ছোট্ট একটি ভুল

এই গল্পটির মূল গল্পকার হচ্ছেন যাতিন গৌতম। তিনি এই গল্পটি প্রথম Xossip এ প্রকাশ করেছিলেন। গল্পটা আমি পড়ি আর আমার কাছে খুব ভাল লাগে। আমি চাই যে অন্যরাও এটা পড়ুক। কিন্তু এটা হিন্দি ভাষায় লেখা ছিল এবং বেশ দীর্ঘ ছিল। তাই আমি একে নিজের মত শব্দ ও চিন্তাধারা ব্যবহার করে কিছুটা সংক্ষিপ্ত ও নাম পরিমার্জন করে বাংলা ভাষায় লিখি। কিন্তু পটভূমি একই রেখেছি আমি। এক অপ্রতিরোধ্য তরুণের হাত ধরে এক গৃহবধূর পদস্খলন আর তার পরিতাপ, হত্যা, ধর্ষণ, ফিরে আসা, জীবন বোধ সব মিলিয়ে এক অপূর্ব গল্প ছোট্ট একটি ভুল। তো চলুন এক উত্তেজনাকর ও রোমাঞ্চকর যাত্রায়…….

——————-অজানা মানব

ছোট্ট একটি ভুল পর্ব- ১
“যে মানুষটা নিচে নেমে যায় তার আবার উপরে উঠে আসার সম্ভাবনা থাকে”। নিউটনের ৩য় সূত্রও তাই বলে। “প্রত্যেক ক্রিয়ারই একটি সমান ও বিপরীত প্রতিক্রিয়া রয়েছে”। তবে এটা সত্য যে সবাই উঠে আসতে পারে না কিন্তু এর সম্ভাবনাকে অবহেলা করা যাবে না- যাতিন গৌতম
ছোট্ট একটি ভুল- এর মাধ্যমে আমরা এই সম্ভাবনাকেই খোঁজার চেষ্টা করব।
আমি অনন্যা। আমি সিলেটে বসবাসকারী এক গৃহবধূ। ফারুখের সাথে আমার বিয়ে ২০০৩ সালে হয়েছিল। তিনি একজন ডাক্তার আর তার নিজের একটি ক্লিনিক আছে। আমাদের ৭ বছরের এক বাচ্চা আছে যাকে আমরা বাবু বলে ডাকি।
জীবন আমার সাথে এক জঘন্য খেলা খেলেছে। যার ফলে আমাকে তীব্র যন্ত্রনা পেতে হয়েছে। কিন্তু দুঃখ হল যে এই সব কিছুর জন্য কোথাও না কোথাও আমি নিজেই দায়ী। সব কিছুই আমার ছোট্ট একটি ভুলের পরিণাম। আমি কখনই ভাবি নি যে ছোট্ট একটি ভুল আমার জীবনে এত বড় ঝড় বয়ে আনবে।
এটা ২০ এপ্রিল ২০০৮ এর কথা। আমি বেলা প্রায় ২ টার সময় রান্নাঘরে কাজ করছিলাম। অনেক গরম পরেছিল তাই আমি একটু ঠাণ্ডা বাতাস পাওয়ার জন্য বেডরুমের জানালার পাশে এসে দাঁড়াই। বাইরে থেকে ঠাণ্ডা বাতাসের ঝাপটা আমাকে তরতাজা করে যাচ্ছিল। আমাদের বাসার পেছনটাতে ঝোপ-ঝার ছিল আর জায়গাটা কিছুটা নিরব ছিল আর কোন ঘরবাড়ি ছিল না। হটাৎ করে দেখলাম এক লম্বা, পেশীবহুল, হ্যান্ডসাম, সানগ্লাস পড়া লোক দাঁড়িয়ে আছে। লোকটা স্মোক করছে আর আমার দিকেই তাকিয়ে আছে। বয়স ৩০ এর মত হবে। আমি তাকে দেখে সরে যাই। কিন্তু আমি সরে যাবার আগেই ও আমাকে দেখে ফেলে। আমার বুক ধক্ ধক্ করতে থাকে, আমি কিছুটা ভয় পেয়ে গিয়েছিলাম। কিন্তু যেহেতু আমাকে লাঞ্চ বানাতে হবে তাই আমি রান্নাঘরে এসে আবার কাজ শুরু করি। কলিংবেল বাজল, আমি দরজা খুললাম আর দেখলাম ফারুখ এসেছেন। সাথে বাবুকে স্কুল থেকে নিয়ে এসেছেন। উনি ভেতরে ঢুকেই আমাকে জড়িয়ে ধরলেন আর বললেন আজ সন্ধ্যায় আমরা বিয়েতে যাচ্ছি। তারপর আমরা তিনজন একসাথে লাঞ্চ করি। আমি জানালার পাশের ঘটনাটা ভুলে যাই। ফারুখ এরপর ক্লিনিক চলে গেলেন আর আমি বাবুকে ঘুম পাড়িয়ে গোসল করতে চলে গেলাম। সন্ধ্যায় আমরা বিয়েতে গেলাম আর খুব এঞ্জয় করলাম। পরের দিন আমি আবার লাঞ্চ বানাতে থাকলাম। গরম লাগার দরুন আমি জানালার পাশে গিয়ে দাঁড়ালাম। শাড়ির আঁচল দিয়ে আমি ঘাম মুছলাম। হটাৎ জানালার পাশে আমার নজর গেল আর দেখলাম জানালার ঠিক পাশেই কালকের ঐ লোকটা দাঁড়িয়ে। আমি কালকের মতই সরে গেলাম ঐখান থেকে। আমি কিচেনে গিয়ে বাকি কাজ শেষ করতে লাগলাম। ফারুখ একটু পর আসলেন আর খাবার খেয়ে চলে গেলেন। যাবার সময় ফারুখ বলে গেলেন কাল আমার জন্য লাঞ্চ বানিয়ো না কারণ আমাকে একটা জটিল অপারেশন করতে হবে। আমি বললাম ঠিক আছে। এরপর আমি বাবুকে ঘুম পাড়িয়ে নিজেও শুয়ে পড়লাম। পরের দিন ফারুখ যেহেতু লাঞ্চে আসবেন না তাই আমার আর তেমন কিছু রান্না করার ছিল না। গরমে অতিষ্ট হয়ে আমি জানালার ধারে দাঁড়াই আর তখনই ঐ লোকটাকে জানালার পাশে দাঁড়ানো দেখতে পাই। কিন্তু এবার আমি সরলাম না। আর তখনই লোকটা আমার সামনেই প্যান্টের চেইন খুলে প্রস্রাব করতে থাকল। এই সব এত তাড়াতাড়ি হয়ে গেল যে আমি লোকটার পেনিস দেখে ফেললাম। আমি সাথে সাথে ওখান থেকে সরে গেলাম। আমার শরীর শিরশির করছিল। আমি ভাবতে লাগলাম লোকটা কে? আর প্রতিদিন কেন আসে আমার বাসার সামনে? কিন্তু লোকটার মধ্যে এমন কিছু ছিল যা আমাকে আকর্ষণ করেছিল। আমি ঘাম মুছে পানি খেলাম। বাবু আসার পর ওকে খাইয়ে ঘুম পাড়িয়ে দিলাম। কিন্তু আমার ঘুম আসল না। আমি ভাবতে লাগলাম লোকটা কি ইচ্ছা করেই আসে নাকি এমনিতেই? আমি ঠিক করলাম রাতে ফারুখ এলে তাকে আমি সব বলব। কিন্তু রাতে ফারুখের সাথে এই ব্যাপারে কোন কথাই হল না কারণ ফারুখ সেক্স করার মুডে ছিলেন আর সেক্স করে শুয়ে পড়লেন।

ছোট্ট একটি ভুল পর্ব- ২
পরের দিন সকালে আমার বাবুর স্কুলে যাওয়ার কথা ছিল তাই আমি ফারুখ সকালে চলে যাবার পর ১১ টা বাজে বাবুর স্কুলে যাবার জন্য বের হলাম। স্কুল থেকে আমি মার্কেটে গেলাম আর কিছু কেনাকাটা করলাম। ২ টা কখন বেজে যায় টেরই পাই নি। ফেরার সময় আমি রিক্সা নিলাম আর বাসার দিকে রওনা দিলাম। রিকশাওয়ালা শর্টকার্ট নিয়ে আমাদের বাসার পিছনের গলি দিয়ে বাসার সামনে থামায়। ঐ সময় আমি দেখলাম ঐ লোকটা আজকেও আমাদের বাসার পিছনে দাঁড়িয়ে আছে আর আমাদের রান্নাঘরের জানালা ভিতরের দিকে তাকিয়ে আছে! তার মুখে এক অদ্ভুত হাসি ছিল যা দেখে আমার আত্মা কেঁপে উঠল! আমি চোখ নামিয়ে ফেলে রিকশাওয়ালাকে টাকা দিয়ে বিদায় করে দিলাম আর তাড়াতাড়ি ঘরে চলে গেলাম। আমি বুঝতে পেরেছিলাম যে লোকটা ইচ্ছা করেই এমন করছে। আমি পানি খেলাম আর ভাবতে লাগলাম লোকটা আসলে কি চায়। আমি ভাবলাম জানালা দিয়ে ও আর কি করতে পারবে আর তাই আমি কিচেনের জানালায় এসে দাঁড়ালাম। সে আবার জানালার কাছ থেকে সরে গিয়ে দূরে ঝোপের পাশে দাঁড়িয়ে ছিল। আশেপাশে আর কেউ ছিল না। আমি কিছু বলার আগেই লোকটা প্যান্টের চেইন খুলল আর তার পেনিসকে আমার সামনে ধরে ঘুরাতে লাগল। আমি লোকটার স্পর্ধা দেখে আশ্চর্য হয়ে গেলাম। আমি জোরে চিৎকার করে বললাম এখান থেকে চলে যাও, আমি পুলিশে ফোন করে দিয়েছি এখন তোমার খবর আছে। ও সাথে সাথে প্যান্টের চেইন লাগিয়ে তাড়াতাড়ি ওখান থেকে চলে গেল। আমি স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেললাম। আমি এই ভেবে খুশি হলাম যে ঝামেলা কেটে গেছে। তারপরে আমি কয়েকদিন জানালার ধারে গিয়ে দেখলাম সে আবারও দাঁড়িয়েছে কিনা কিন্তু কাউকে আর দেখিনি।
প্রায়ই এমন হয় যে কোন দুর্ঘটনা বা কোন খারাপ কথা আমাদের মনকে বার বার ঘিরে রাখে। আমার সাথেও এমনি হচ্ছিল। আমি না চাইলেও আমার আমার চোখের সামনে ঐ লোকটার চেহারা বার বার আসছিল। সে দেখতে হ্যান্ডসাম এবং সাদাসিধে ছিল কিন্তু তার কাণ্ডকীর্তি অদ্ভুত ছিল। ওর প্রতি আমার এক অজানা টান লাগছিল। এরকমটা আমার জীবনে আর কারও জন্য হয়নি। আমি প্রতিদিনই জানালা দিয়ে দেখতাম কিন্তু কেউই থাকত না। একদিন প্রতিদিনের মতই আমি জানালা দিয়ে বাইরে তাকিয়ে ছিলাম আর তখন দেখলাম ঐ লোকটা আবারও দাঁড়িয়ে। প্রথমে তো আমি ভয় পেয়ে গিয়েছিলাম কিন্তু পরে আমার মনে খুশিই লাগল। ও সেখানে চুপচাপ দাঁড়িয়ে আমাকে দেখছিল, আর আমিও তাকে দেখছিলাম। না জানি আমার কি হয়েছিল প্রায় ২ মিনিটের মত আমারা একে অপরকে দেখতেই থাকি। এটিই আমার ছোট্ট একটি ভুল যেটা আমি ইচ্ছে করেই করেছিলাম। আমি সেই সময়ও জানতাম না আমি আগুন নিয়ে খেলছি। এরপর হটাৎ করে ও জানালার আরও কাছে এসে বলে পুলিশকে ডাকবে নাতো? আমি কেন জানি ঝট মাথা নেড়ে না বলে দিলাম। তারপর ও বলল আমার পেনিস দেখবে? যদি হ্যাঁ বল তাহলে বাইরে বের করব। আমি অদ্ভুত পরিস্থিতিতে পরে গেলাম। ও আমার চোখের দিকে তাকিয়ে দেখে আর বলে তুমি তো অনেক লজ্জা পাও! তোমার হাসব্যান্ডেরটা কি দেখো নি? এটা বলেই সে চেইন খুলতে লাগল। আমি লজ্জায় লাল হয়ে গেলাম আর আমার বুক জোরে জোরে কাঁপা শুরু করলো। আমি ওখান থেকে সরে যেতে চাইছিলাম কিন্তু আমার যেন কিছু হয়েছিল আমি জানালার ধারেই দাঁড়িয়ে রইলাম। তারপরেও আমি সাহস করে বললাম আমার হাসব্যান্ড এসে পরবেন তুমি এখান থেকে চলে যাও। ও বলল আমি জানি ৩ টার আগে তোমার হাসব্যান্ড আসবে না। ও আবার বলল আমি কি পেনিস বের করব? আমি লজ্জায় মরে যাচ্ছিলাম। ও প্যান্টের মধ্যে হাত ঢুকিয়ে পেনিস বাইরে বের করে আনল। আমি না চাইতেও ওর লম্বা পেনিসটাকে অপলক দৃষ্টিতে দেখছিলাম। আমি এই প্রথম এটা এত ভাল করে দেখলাম। এর আগে কেবল এক ঝলক দেখেছিলাম। সে তার পেনিসকে ধরে আমার সামনে ঘোরাচ্ছিল। ও আমাকে জিজ্ঞেস করলো কেমন লাগল আমার পেনিস? আমি কিছুই না বলে লজ্জায় মাথা নিচু করে ফেলি। ও আমাকে বলল তুমি জানো তোমার ফিগার কত জটিল? আমি অনেকবার তোমাকে তোমার হাসব্যান্ডের সাথে মার্কেটে দেখছি। আমি আশ্চর্য হয়ে সব শুনছিলাম। তুমি যখন হাটো তোমার বড় বড় পাছা লকলক করে। তোমাকে এমন করে হাঁটতে দেখে আমার ইচ্ছা করে তোমার পাছা ধরে পেনিস ঢুকিয়ে ইচ্ছামত তোমাকে ফাক করি। আমি লজ্জায় মাটির সাথে মিশে যাচ্ছিলাম কারণ এই প্রথম কেউ আমার সম্পর্কে এতো খারাপ মন্তব্য করেছিল। আমি কেন এই সব কথা শুনছিলাম আমি নিজেও জানি না। তবে আমার শরীর উত্তেজিত হচ্ছিল এসব শুনে। তোমার বুবস তো অনেক বড়! এরকমটা আমি আর কারও দেখ নি। এক বার দেখাও না! আমি ওকে মাথা নেড়ে সাথে সাথে না করে দিলাম। একটু হতাশ দেখা গেল। আর ঠিক তখনি আমি কিছু পোঁড়ার গন্ধ পেলাম। আমার মনে পড়ল চুলায় সবজী বোধহয় পুড়ে যাচ্ছে। আমি দৌড়ে চুলা অফ করতে গিয়ে দেখি পুড়ে গেছে সব। আমি চুলা অফ করে আবারও জানালার ধারে গেলাম। ও বলল কি হয়েছে? আমি ওকে সোজা ভাষায় বললাম এখান থেকে চলে যাও আর কখনও এখানে এসো না। এটা বলে আমার অদ্ভুত এক শান্তি লাগল। আমি বুঝতে পারছিলাম যা হচ্ছে তা ঠিক না। ও আমার কথা শুনে কিছুক্ষণ চিন্তা করলো তারপর স্মোক করতে করতে চলে গেল। তারপর আমি আমার বাকি কাজে লেগে যাই, কারণ ৩ টা বেজে যাচ্ছে। আমি দশ মিনিট পরে জানালা দিয়ে দেখলাম সেখানে কেউ নেই। আমি মনে মনে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেললাম। কিন্তু লোকটার এক একটা কথা আমার মনে ঘুরপাক খাচ্ছিল। আমি ভাবতে লাগলাম আমি কি সত্যিই এতো সেক্সি? ঐ দিন ফারুখ চলে যাবার পর আমি কাপড় চোপর খুলে নিজেকে আয়নায় ভালো করে খেয়াল করলাম। নিজের ফিগার দেখলাম। নজর ঘুরিয়ে আমার নিতম্ব দেখলাম আর মনে মনে বললাম যে আমি আসলেই খুব সুন্দরী। জীবনে এই প্রথমবার আমি নিজেকে এভাবে দেখছিলাম। হটাৎ আমার মনে হল আমি এসব কি ভাবছি? এরপর আমি আবার শাড়ি পড়ে ঘুমিয়ে পড়ি।

ছোট্ট একটি ভুল পর্ব- ৩
পরের দিন আমি ঠিক করলাম আমি জানালা দিয়ে বাইরে দেখব না। কিন্তু আমার বার বার ঐ লোকটির কথা মনের পড়ছিল। ওর এক একটা কথা আমার মনে দাগ কেঁটে গিয়েছিল। ওর পেনিসের দৃশ্যটা আমার মনে একটা ভিডিওর মত চলছিলো। আমি ২ টা বাজার অপেক্ষা করতে লাগলাম। ২ টা বাজে আমি বাইরে দেখলাম, দেখি কেউ নেই। আমি একটু পর পর এসে দেখে যাচ্ছিলাম কিন্তু কেউ ছিল না। ৩ টা বাজে আমার হাসব্যান্ড বাসায় এসে খাওয়া দাওয়া করে সাড়ে ৩ টায় চলে গেলেন। আমি প্লেটগুলো রাখতে কিচেনে গেলাম মত দেখি ও দাঁড়িয়ে আছে। আমাকে দেখে ও তাড়াতাড়ি জানালার পাশে এসে বলল সরি! আজ একটু লেইট হয়ে গেল। আমি কিছু বললাম না। ওকে দেখে আমার শরীরে এক অদ্ভুত অনুভূতি লাগছিলো। ও সানগ্লাস খুলে বুকে ঝুলিয়ে রাখতে রাখতে বলল জানো আমি কালকে এক মেয়ের সাথে সেক্স করেছি, খুব হট ছিল মেয়েটা বাট তোমার মত নয়। গড সেইক কি বডি তোমার! মনে মনে আমি তোমাকে ইম্যাজিন করে ওকে ফাক করেছি। আমি লজ্জায় অন্য দিকে তাকিয়ে রইলাম। আমি ভাবলাম এই লোকটা কেন এরকম কথাবার্তা বলছে? ওর এসব কথা শুনে আমার যোনি ভিজতে লাগল। ও জিজ্ঞেস করলো তোমার নাম কি? জানি না কেন আমি ওকে বলে দিলাম অনন্যা। আমি ওকে জিজ্ঞেস করলাম তোমার নাম কি? ও বলল সুমন। আমি বললাম তুমি কি কর? ও বলল আমি আহমেদ গ্রুপ অব কোম্পানিস এ জব করি। আমি বললাম ও। আচ্ছা তুমি থাকো কোথায়? ও বলল তোমার হৃদয়ে! আমি বললাম ঠাট্টা নয়। ও বলল হ্যাঁ ঠাট্টা নয়। আমি জানি তোমার হৃদয়ে আমার জন্য সফট কর্নার আছে। অ্যাম আই রাইট? আমি বললাম আমি তোমার ঘরবাড়ির কথা বলছি। ও বলল ওহ! আচ্ছা। কোম্পানি আমাকে থাকার জন্য প্রিয়াঙ্কা রোডে একটা ফ্ল্যাট দিয়েছে। আমি বললাম সত্যি বলছ, নাকি…………ও বলল তুমি আমার চোখে দেখো আর বলো যে আমি মিথ্যা বলছি। আমি ওর চোখের দিকে তাকালাম আর সেখানে সত্য ছিল। ও বলল প্লিজ! একবার তোমার বড় বড় বুবস দেখাও না! আমিও তোমাকে আমার পেনিস দেখাব। কিন্তু আমার এতো সাহস ছিল না যে আমি ফারুখকে ছাড়া আর কাউকে আমার গোপন অঙ্গগুলো দেখাবো। তাই আমি চুপ চাপ দাঁড়িয়ে রইলাম। ও বুঝে গেল যে আমি ওকে কিছুই দেখাবো না। ও বলল ওকে আই অ্যাম গেটিং লেইট, আমার জিমে যাওয়ার সময় হয়েছে। এটা বলে ও চলে গেল আর আমি বেডরুমে এসে শুয়ে পড়লাম। আর ওর ব্যাপারে ভাবতে লাগলাম।

ছোট্ট একটি ভুল পর্ব-৪
সন্ধ্যায় ফারুখ বাসায় আসার পর আমি বিউটি পার্লার গেলাম। ওখানে ৮ টা বেজে গেল। আমি বাইরে এসে রিক্সার জন্য অপেক্ষা করতে লাগলাম। হটাৎ এক বাইকওয়ালা আমার সামনে এসে থামল। বাইকওয়ালাকে দেখে আমি চমকে উঠলাম। বাইকওয়ালা সুমন ছিল। আমি জিজ্ঞেস করলাম তুমি এখানে কি করছ? ও বলল চলো বাইকে ওঠো, তোমাকে বাসায় পৌঁছে দেই। আমি বুঝতে পারছিলাম না আমি কি করব। ও বলল কি হল কি ভাবছ? আমি ভাবলাম দেরি হচ্ছে তাই ভয়ে ভয়েই আমি ওর বাইকে উঠলাম। ও বাইক চালানো শুরু করল। কিছুদূর গিয়েই ও বলল আমি তোমাকে পার্লারে যেতে দেখছিলাম। আমি বললাম তুমি কি সব সময় আমার পিছে লেগে থাক? ও বলল No madam! আমি এখানেই একটু দূরে দাঁড়িয়ে ছিলাম তুমি খেয়াল করো নি। আমি বললাম ঠিক আছে, বাইক তাড়াতাড়ি চালাও। ও বাইক স্টার্ট করলো। আমি ওর শরীর থেকে দূরত্ব বজায় রেখে বসলাম। তারপর ওড়না দিয়ে মুখটা ঢেকে রাখলাম। যদি কেউ দেখে আমাকে চিনে ফেলে তাহলে অনেক প্রবলেম হবে। কিছুদূর গিয়েই ও বলল আজকার ওয়েদারটা খুব সুন্দর না? আমি জিজ্ঞেস করলাম কেন? ও বলল আকাশে মেঘ দেখতে পাচ্ছ না? আমি চুপ করে রইলাম। ও বলল তোমার এই আবহাওয়া ভালো লাগে না? একটু পর আমি ওকে বললাম আমাকে তাড়াতাড়ি বাসায় যেতে হবে তুমি আরও তাড়াতাড়ি চালাও। ও আমার কথা শুনল না। বরং ও বলে উঠল আমার তো মন চাইছে এই সময় তোমার মত কোন সুন্দরী মহিলাকে ইচ্ছামত চুদতে। আমি এই কথা শুনে স্তব্ধ হয়ে গেলাম। আমার এখন মনে হতে লাগল ওর বাইকে উঠে আমি অনেক বড় ভুল করে ফেলেছি। ও পিছন ফিরে বলল তুমি কি মাইন্ড করেছ? কি করব? You are a very sexy woman! আমি দৃষ্টি নামিয়ে ফেললাম এছাড়া আমার আর করার কি ছিল? আমি আবারও ওকে বললাম সুমন তাড়াতাড়ি চালাও, আমার বাসায় যেতে হবে। কিন্তু ও ধীরে ধীরেই বাইক চালাতে থাকল যেমন আরকি ও কিছুই শুনেনি। ও আবারও পিছন ফিরে বলল আমার একটা কথা রাখবে? আমি বললাম কি কথা? ও বলল Give me a little chance! Please! আমি বললাম কিসের চান্স? ও বলল Oh! You are a cute girl! তোমার মত sexy lady র কাছ থেকে আমি আর কি চাইতে পারি? দেখো তোমার জন্য আমার পেনিস উত্তেজিত হচ্ছে। তুমি বুঝতেই পারছ আমি কি বলছি? আমি ভালো করেই বুঝতে পারছিলাম সুমন আমাকে কিসের চান্স দিতে বলছে। আমার কারনেই ওর এতো সাহস বেড়েছে। আমার উচিত ছিল কিচেনের জানালাটা বন্ধ করে দেয়া। কিন্তু মন যাই বলুক আমার শরীরে কিছু একটা হচ্ছিল। ও আবার বলল বল, আমার সাথে যাবে আমার ফ্ল্যাটে? কেউ নেই, কেউ কিছু জানবেও না। আমি এবার রেগেই বললাম আমি বাসায় যাব, তুমি বাইক তাড়াতাড়ি চালাতে পারনা? এটা শুনেই ও বাইকের স্পীড বাড়িয়ে দিল। কিছুক্ষণ ও চুপ থাকল। আমিও চুপ করে রইলাম। একটু পর ও ঘুরে বলল মনে হয় আমার সব চেষ্টা ফেইলিয়োর হল! আমি শুনলাম ওর কথা কিন্তু কিছু বললাম না। আমি মনে মনে ভাবছিলাম বেচারার কি অবস্থা! কিন্তু এতে আমার কোন দোষ নেই। ঐ তো আমার পেছনে লেগেছে। আমি তো ওকে আমার জানালার পাশে আসতে বলি নি। ওর আগে ভাবা উচিত ছিল। আমি বিবাহিতা। আমি কোনমতেই আমার সীমা লঙ্ঘন করতে পারব না। কারণ আমার একটি সাজানো সংসার আছে। আমি এসব ভাবছিলাম আর তখনি বাইক থেমে গেল। আমি একটু প্রস্রাব করে আসছি। Just One minute! ও একটু দূরে গিয়ে ওর প্যান্টের চেইন খুলল। এরপর আমাকে ও ডাকল Hey Babe! আমি তাকিয়ে দেখি ও ওর পেনিস আমার দিকে ধরে আছে। আমি সাথে সাথে অন্য দিকে তাকালাম। আশেপাশে কেউ নেই। আমার ওর উপর অনেক রাগ হচ্ছিল। একটু পর এসে ও বলল দেখছো আমার পেনিস? আমি বললাম তুমি কি পাগল নাকি? তোমার নিজের না হোক আমার সম্মানের কথা তো চিন্তা কর। কেও দেখে ফেললে কি হত? ও একটু ইতস্তত হয়ে বলল সরি! তারপর ও বাইক চালানো শুরু করলো। কিছুক্ষণ পর ও বলে উঠল সবচেয়ে বড় দোষ তোমার। আমি বললাম আমার কিভাবে? ও বলল আচ্ছা তুমি এত বিউটিফুল কেন? প্লিজ! এক বার চান্স দেও না আমাকে! ও আমাকে বলল হা হা তুমি তো অনেক লজ্জা পাও! তুমি যদি আমাকে একবার চান্স দেও তাহলে আমি বলতে পারি তুমি ঠকবে না। আমি তোমাকে স্যাটিসফাই করব। আমি নিশ্চিত আমি তোমাকে এতোটা মজা দিব যেটা তুমি কখনও পাও নি। আমি বললাম আমি আমার স্বামীর সাথে সুখেই আছি। তোমার কোন প্রয়োজন নেই আমার, you understand! ও একটু হাসল। আমার রাগ লাগল। বাইরের পরিবেশ দেখে মনে হচ্ছিল বৃষ্টি হবে। একটু পর সুমন বলল সত্যি করে বল তো এমন ওয়েদারে তোমার শরীর কি কিছু চায় না? একটু চিন্তা কর দেখো। আমি কিছু বলাটা ঠিক মনে করলাম না। ওর কথা ধীরে ধীরে আরও নোংরা হচ্ছিল। আমার যোনিদেশে ওর কথার শিহরণ বয়ে যাচ্ছিল। ও কিছুদূর গিয়ে এক আইসক্রিমওয়ালার সামনে বাইক থামাল। আমি বললাম কি করছ? আমার দেরি হচ্ছে। ও আইসক্রিমওয়ালার কাছ থেকে একটা আইসক্রিম কিনল। এরপর আমাকে ধরিয়ে দিল। আমাকে বলল আইসক্রিম খাও আর ঠাণ্ডা হও। আমি মনে মনে ভাবতে লাগলাম বেচারা কত চেষ্টা করছে আমাকে পটানোর জন্য! ওর উপর আমার করুনাও হচ্ছিল কিন্তু ওর মনের আশা কখনও মিটবে না। তারপর আমি সুমনকে বললাম আমাকে তাড়াতাড়ি বাসায় গিয়ে রান্না করতে হবে। বাইক তাড়াতাড়ি চালাও। এটা শুনেই ও এক রেস্টুরেন্টের সামনে বাইক থামিয়ে দিয়ে বলল একটু ওয়েট করো, আমি দু মিনিটের মধ্যে আসছি। একটু পর ও খাবার পার্সেল করে এনে আমাকে দিল আর বলল রান্নার টেনশন শেষ! আমি বললাম এমন করলে কেন? ও বলল তোমার বাসায় তো আমি তোমাকে পৌছিয়ে দিব, বাট খাবার কিনলাম যাতে তুমি আমাকে বার বার বাইক তাড়াতাড়ি চালাতে না বল। আমি আজ অনেক খুশি। আমি যতটা বেশি সময় পারি তোমার সাথে এখন স্পেন্ড করতে চাই। আমি বুঝতে পারছিলাম কতটা পাগল ও আমার জন্য! ও বলল ইস! যদি তুমি আমার ওয়াইফ হতে then my life will just rock! আমি বললাম মানে কি? ও বলল তার মানে হল তোমার মত বউ পেলে সারাদিন আমি শুধু বাসায় থাকতাম আর তোমাকে সারাদিন আদর করতাম! ও আরো একবার আমাকে বাধ্য করলো লজ্জা পাওয়ার জন্য। ও জিজ্ঞেস করলো কি বলো আমি যদি তোমার হাসব্যান্ড হতাম তাহলে কেমন হত? ও এমন একটা প্রশ্ন আমাকে করেছে যার উত্তর কোন বিবাহিত মহিলা কোন পরপুরুষকে দিতে পারত না। আমি এমন এক পরিবারে মানুষ হয়েছি যেখানে মহিলাদের অনেক বিধিনিষেধের উপর থাকতে হত। আর আমি সেই বিধিনিষেধ মেনেই বড় হয়েছি। বেচারা জানেও যে সে বৃথা চেষ্টা করছে। আমি কোনভাবেই আমার আদর্শের বলি দিতে পারব না। আর আমার সবচেয়ে বড় আদর্শ হল আমার হাসব্যান্ডের প্রতি আমার বিশ্বস্ততা। আমার দৃঢ় বিশ্বাস ছিল আমি আমার স্ত্রী হবার দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করব। কিন্তু বুঝতে পারছিলাম না সুমনকে নিয়ে কি করব। হটাৎ আকাশে বিদ্যুৎ চমকাল। আমি সুমনকে বললাম এখন তো তাড়াতাড়ি কর, ঝড় আসছে। ও পিছন ফিরে বলল গম্ভির কণ্ঠে বলল Sweetheart! এর থেকেও বড় ঝড় উঠে গেছে আর তুমি এটাকে ভয় পাও? আমি টের পেলাম আসলেই ও সত্যি কথাই বলছে। আমি তো আসলেই এক ঝড়ের কবলে পড়েছি। আমি এই ঝড় আমি শরীরের প্রতিটি রোমে রোমে অনুভব করছি। আমি জানি না কেন আমার যোনি দিয়ে রস বেরুতে লাগল। এরকমটা আমার সাথে কেন হচ্ছিল আমি জানি না। সুমন আমার দিকে ফিরে তাকাল। আমি ওর চোখের দিকে দেখলাম। ওর চোখ যেন বলছে আমি যে করেই হোক তোমাকে নিজের কাছে টেনে আনবই। কিন্তু যদি কেউ জেনে ফেলে সবকিছু তাহলে আমার সর্বনাশ হয়ে যাবে।

ছোট্ট একটি ভুল পর্ব- ৫
বাসার কাছে আসতেই বৃষ্টি খুব জোরে আরম্ভ হল আর আশেপাশে কেউ ছিল না। চারিদিক অন্ধকার। আমি কিচেনের লাইট জ্বালিয়ে এসেছিলাম। খুব বেশি আলো না আসলেও আমার ভয় দূর করার মত আলো আসছিল। ও ওর বাইক ঝোপের একপাশে সাইড করলো। আমি নেমে দৌড় দিয়ে ঘরে যাব এমন সময় ও আমার ভেজা আঁচল ধরে টান দিল। আমি বললাম ছাড়ো আমার হাসব্যান্ড দেখে ফেলবে। ও আমাকে টেনে ঝোপের ভিতরে নিয়ে গেল। আমি বললাম সুমন থামো! আমার কাছে আসবে না। আমার কাছে আসলে এই পাথরটা দিয়ে তোমার মাথা ফাটিয়ে দেব। ও শান্ত ভাবেই বলল তাহলে দেও ফাটিয়ে! আমি বললাম আমি চিৎকার করব আর আমার স্বামীকে ডাকবো। ও বলল ঠিক আছে ডাকো। আমি ওনাকে বলব যে তার অগোচরে তার স্ত্রী আমার সাথে পরকীয়া করে। আমি বললাম আমি তোমাকে খুন করব! ও বলল শান্ত হও। তুমি এতো ভয় পাচ্ছ কেন। আমি তোমাকে রেইপ করব ভাবছ? না আমি এতোটা জঘন্য চরিত্রের মানুষ না। আমি কেবল তোমাকে একটু আদর করতে চাই। এটা বলে ও আমার কাছে আসলো। আমি স্থির দাঁড়িয়ে রইলাম। হটাৎ আমি আআআহ বলে চিৎকার দিয়ে উঠলাম। কারণ সুমন আমার নিতম্বে কামড় বসিয়ে দিয়েছিল। আমি ওকে বললাম এমনটা আর কক্ষনও করবে না। ও বলল সরি! হটাৎ ঝোপঝাড় নড়াচড়া শুরু করলো। আমি ওকে বললাম সুমন, থামো! মনে হয় কেউ আসছে! আর তখনই একটা কুকুর ঝোপঝাড় থেকে বেরিয়ে এল। আমি স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেললাম। আমি ভয় পাচ্ছিলাম যে কেউ আমাদের একসাথে না দেখে ফেলে। এরপর আমি সুমনের দিকে তাকালাম। দেখি ও প্যান্টের চেইন খুলছে। আমি অন্যদিকে তাকালাম কারণ আমি ওর পেনিস দেখতে চাইনা। এই পেনিস দেখার জন্যই তো আমার এই অবস্থা। আমি সুমনকে বললাম অনেক হয়েছে! আমি এভাবে এখানে দাঁড়িয়ে থাকতে পারব না। এবার ও দুই হাতে আমার নিতম্ব ধরল আর আমাকে ঘুরিয়ে পেনিস দিয়ে আমার নিতম্বের মাঝে হালকা চাপ দিল। আমি বললাম এটা ঠিক না। আমি ওর পেনিসটা অনুভব করছিলাম। ও পেনিস ঘষতে লাগল । আমার মনে হচ্ছিল যেন আমি আমারই ঘরের পেছনে ঝোপঝাড়ের মধ্যে ওর সামনে খেলনার জিনিস হয়ে দাঁড়িয়ে ছিলাম। আমার ভয় লাগছিলো যদি ফারুখ দেখে ফেলেন। আমার যোনিতে রস আসতে লাগল। এরপর ও আমার কামিজের গিঁট খুলতে লাগল। আমি ওর হাত ধরে ফেললাম। আমি বুঝলাম বাড়াবাড়ি হয়ে যাচ্ছে। আমার এখন ওকে ভাগিয়ে দেয়া উচিত। ও বলল আরে থামোনা, তোমার মজা লাগছেনা? আমি বললাম আমি নিজের ইচ্ছায় এখানে দাঁড়িয়ে নেই, আমাকে যেতে দাও। তোমার ভালো লাগছে ঠিকই তুমি নিজের সাথে মিথ্যা বলছ। আমাকে ও ছেড়ে দিল। আমি ঘুরে দেখি ওর পেনিস ফনা তুলে আছে আমার দিকে। ও আমার একহাত ধরে ওর পেনিসের উপর রাখল। আমি সাথে সাথে হাত সরিয়ে নিলাম। আমার শরীরে বিদ্যুৎ খেলে গেল। আমি এতকাল কেবল আমার হাসব্যান্ডেরটাই দেখেছি। আমার হাসব্যান্ডেরটা মনে হয় ওরটার অর্ধেক হবে। আমি সরে যাওয়ার চেষ্টা করলাম। ও আমার হাত ধরে ফেলল। আমাকে বলল শোনো! এতো মজা কোন মহিলাকে করে পাইনি যত মজা আজ তোমার এই hot & sexy পাছা হাতিয়ে পেলাম! আমি বললাম আমি যাচ্ছি আর তুমিও চলে যাও। ও বলল এখন যাচ্ছি sweetheart! বাট দেখা হবে, হয়ত কালকেই! এটা বলে ও বাইক নিয়ে চলে গেল। আমি তাড়াতাড়ি বাসায় ঢুকে গেলাম। আমার জামা পুরো ভিজে গিয়েছিল। আমি বেডরুমে ঢুকে দেখি ফারুখ ঘুমাচ্ছে। আর বাবু খেলছে। আমি সাথে সাথে ভিজা কাপড় ছেড়ে গোসল করতে চলে গেলাম। এরপর আমি রান্না করতে লাগলাম। আর পার্সেলটা লুকিয়ে রাখলাম। একটু পর ফারুখ কিচেনে এসে বলল কখন এলে? আমি বললাম ১ ঘণ্টা আগে। তারপর আমরা খেয়ে ঘুমিয়ে পড়ি।

ছোট্ট একটি ভুল পর্ব- ৬
পরের দিন সাড়ে ১২ টার সময় কলিংবেল বেজে উঠল। দরজা খুলে আমি দেখলাম সুমন দাঁড়িয়ে। ও বলল ভেতরে আসতে বলবে না? আমি বললাম তুমি এখানে এসেছ কি জন্য? কেউ দেখে ফেলবে। ও বলল তাহলে ভিতরে আসতে দেও! এটা বলে ও নিজেই দরজায় জোরে ঠ্যালা দিয়ে ঘরে ঢুকে গেল। এরপর বলল চলো বসে কথা বলি। এটা বলে ও সোফায় বসে পড়ল। আমি বললাম কেউ দেখে ফেললে সর্বনাশ হবে। তুমি এখানে এসেছ কেন? ও বলল তোমার সাথে দেখা করতে! আচ্ছা তোমাদের টয়লেট কোন দিকে? আমি বললাম ঐ দিকে। ও টয়লেটে গিয়ে একটু পর আমাকে ডাক দিল। ও বলল অনন্যা একটু এদিকে আসো তো দরজা আটকে গেছে। আমি অবাক হয়ে গেলাম। কখনও তো এমন হয় না? আমি গিয়ে দেখি ও আমার সামনে ওর পেনিস বের করে দাঁড়িয়ে আছে। আমি বললাম কি করছ এসব? এরপর আমি ওখান থেকে সরে গেলাম। এরপর ও আসলো। আমি বললাম এখান থেকে চলে যাও। যাবো তবে যাবার আগে তোমার vagina তে kiss করব। আমার শরীরে উত্তেজনা বয়ে গেল। আমি না বললাম। ও বলল ঠিক আছে তাহলে আমার পেনিসটা একটু ধর। ও আবার পেনিস বের করলো আর আমি চোখ বন্ধ করে নিলাম। ও আমার হাতে নিয়ে আমার পেনিসে ধরিয়ে দিল। আমি ওর পেনিস ধরে আমি দাঁড়িয়ে দিলাম। ও ওর নিম্নাঙ্গের লোম পরিষ্কার করে রেখেছিল আগেই। আমি বললাম ঠিক আছে এবার যাও। কিন্তু ও আমার সামনে বসে গেলো আর কাপড়ের উপর দিয়েই আমার যোনিকে চুমতে লাগল। আমি বললাম প্লিজ থামো! কিন্তু ও থামলো না। আমি শিহরণ টের পাচ্চ্ছিলাম শরীরে। আমি কামকাতর হতে থাকলাম। এরপর ও আমার পাজামার গিঁটে হাত রাখল আর খুলতে লাগল। আমি বাঁধা দিলাম। কিন্তু ও খুলে ফেলল আর নামিয়ে আনল আমার পায়ের নিচ পর্যন্ত। আমি আমার যোনিকে হাত দিয়ে ঢাকতে চেষ্টা করলাম। ও আমার হাত ধরে টেনে সরিয়ে দিল। আর বলল Woaw! Beautiful! একটাও লোম নেই। আমি আজ প্যানটি পড়িনি আর এই সুযোগটাই ও পেয়ে গেল। ও ওর জিব্বা আমার যোনির ভেতরে ঢুকিয়ে চুষতে লাগল। আর আমি দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে আনন্দ সহ্য করতে লাগলাম। কিছুক্ষণ পর আমার যোনিরস খসল। আর ও টা চুষে ফেলল। আমার খুব ভালো লাগছিলো তখন। এরপর ও আমাকে কোলে তুলে নিল আর বলল তোমার বেডরুম কোথায়? আমি বললাম আমকে নামিয়ে দেও আমি তোমার সাথে আমাদের বেডরুমে যেতে পারব না। ও বলল আমি আর থাকতে পারছি না! ও ওর ঠোঁট আমার ঠোঁটের উপর রাখল। আর আমিও ওর ঠোঁটের স্পর্শে নিজেকে হারিয়ে ফেললাম। প্রায় ৫ মিনিট পর ও বলল চলো না বেডরুমে! তোমাকে কিন্তু দেড় টার মধ্যে চলে যেতে হবে। ওরা এসে পরবে। ও বলল চিন্তা কর না। আমি আগেই শেষ করব। এখন তুমি কেবল মজা নেও। আমি বললাম আমার ভয় লাগছে! কিন্তু আমি মনে মনে ওর সাথে আমার সকল সীমা লঙ্ঘন করতে চাইছিলাম। ও বলল ভয় পেও না কেউ জানবে না। আমার নিঃশ্বাস ঘন হচ্ছিল। ও আমাকে বেডরুমে নিয়ে আমার জামাটাও খুলে ফেলতে চাচ্ছিল। আমি বললাম কি করছ? ও বলল তোমার সুন্দর শরীরটা আমি ভালো করে দেখতে চাই। আমার হাত পা অবশ লাগছিলো। ও আমার জামাটা খুলে ফেলল। ও বলল তোমার ব্রাটা খুলে ফেলো না! একটু দেখি তোমার বুবসগুলা! আমি লজ্জা মাখা কণ্ঠে বললাম তুমিই খুলে নেও, ন। ও বলল আমার জন্য এতটুকু করে দেও না! আমি আস্তে আস্তে ব্রা খুলে একপাশে রেখে দিলাম। ও সাথে সাথে আমার স্তন জোড়াকে চেপে ধরল আর জোরে জোরে কচলাতে লাগল। আমি বললাম একটু আস্তে কর প্লিজ! ও বলল আমি পারব না। কত সেক্সি বুবস তোমার! পুরো রাউন্ড শেইপ! আমার খুব ভালো লাগছিলো। স্তন জোড়ায় এক আনন্দকর অস্বস্তি লাগছিলো! ও আমার এক নিপ্পলকে মুখে দিয়ে চুষতে আরম্ভ করলো। আমি অদ্ভুত শিহরণে ওর মাথার চুল দু’হাতে ধরে ওকে আমার বুকের সাথে জাপতে ধরলাম। এরপর ও আরেকটা নিপ্পল চুষতে লাগল। আমি শিহরিত হয়ে পরেছিলাম। এরপর ও আমার স্তন জোড়া ছেড়ে আমার দুই পায়ের মাঝে বসলো। ও আমার যোনি দ্বারে আবার চুম্বন করলো। আমি ওর মাথা আমার যোনির সাথে চেপে ধরলাম। কিছুক্ষন পর ও শার্ট প্যান্ট খুলে ফেলল। কিন্তু জাঙ্গিয়া খুলল না। ও আমাকে বলল প্লিজ আমার আন্ডারওয়ারটা খুলে দেও না! আমি বললাম তুমি নিজে খুলে নেও না। ও বলল লক্ষ্মীটি প্লিজ খুলে দেও। আমি ওর জাঙ্গিয়া খুলে দিলাম আর ও পুরো ন্যাংটা হয়ে গেল। আমি দেখলাম ওর পেনিস লম্বা টান হয়ে শক্ত হয়ে আছে। ও বলল এখন বল তোমার কি ইচ্ছা হচ্ছে? আমি বললাম মানে? ও বলল তুমি কি চাও আমি তোমাকে ফাক করি? আমার বিরক্ত লাগল ওর কথা শুনে। আমি বললাম ঢং করছ কেন? আমি বললে কি তুমি থেমে যাবে? ও বলল অহ তুমি দেখি রাগ করলে আমি তো কনফার্ম করার জন্য বলছিলাম! আমি হটাৎ উত্তেজনার বশে খেয়াল না করেই বললাম তো হয়ে গেছ কনফার্ম? এরপর ও ওর পেনিস আমার যোনি দ্বারের পর্দায় উপর রাখল আর বলল দেখ অরা কিভাবে কিস করছে! আমার শরীর সহ্যের সীমা ছাড়িয়ে যাচ্ছিল। ওর পেনিস বাইরে থেকেই গরম অনুভূত হচ্ছিল। আমি ওকে বলতে চাইছিলাম ধীরে ধীরে ঢুকিয়ো কিন্তু কেন যেন লজ্জা করছিল! কিন্তু ও নিজ থেকেই ধীরে ধীরে আমার ভেতরে পেনিস প্রবেশ করাতে লাগল। ওর পেনিস আমার ভেতরে সামান্য ঢুকতেই আমার সীমা লঙ্ঘন হল। আমি আমার স্বামীকে ধোঁকা দিলাম। আমি জীবনে এই প্রথমবার কোন পরপুরুষের সাথে কামলিলায় মত্ত হলাম। আমি আর কিছু ভাবতে পারছিলাম না। আমি ভুলেই গেলাম যে আমি কারও স্ত্রী। এখন আমি কেবল এক নারী হয়ে এক পুরুষের কাছে নিজের নারীত্ব সঁপে দিচ্ছিলাম। আমার ব্যাথা লাগছিলো কিন্তু অতটা নয়। ও আমাকে আস্তে করে জিজ্ঞেস করলো ব্যাথা লাগছে আমি চোখ বন্ধ করে বললাম না। তুমি করতে থাক আমি সয়ে নেব। তারপর ও আমার উপর পুরোপুরি ঝুকে গেল আর ওর এতো বড় পেনিসটা পুরো আমার ভেতরে ঢুকিয়ে দিল। আমার এবার ব্যাথা লাগছিলো কিন্তু আমি ব্যাথা নয় বরং আনন্দ উপভোগ করতে চাইছিলাম। ও আমার নিপ্পল গুলো চুষতে লাগল। আমিও ওকে জড়িয়ে ধরে রাখলাম। ঐ মুহূর্তটা আমার কাছে ভালোবাসা মেশানো মনে হচ্ছিল। একটু পর ও বলল আমি কি এবার শুরু করব? আমি দরদ ভরা কণ্ঠে বললাম করো। এরপর ও ওর পুরো পেনিস বের করে নিল। আমি অস্বস্তিতে পড়ে গিয়েছিলাম। কিন্তু আবার কাম নেশায় হারিয়ে গেলাম যখন আবার প্রবেশ করাল। আমি ওকে বললাম এমন করলে কেন? ও বলল এটা হচ্ছে একটা সুন্দর দুষ্টামি! আমি তোমার চেহারায় কাম উত্তেজনা দেখতে চাইছিলাম তাই এমন করেছি। আমি বললাম তুমি একটা পাগল! ও বলে দেখ এই পাগল তোমাকে কিভাবে পাগল করে! এরপর ও হালকা একটা ধাক্কা মারল। আর বলল ও বলল ঠিক আছে? আমি বললাম হুম। কিছুক্ষন ও এভাবেই করতে থাকল। আমার নিঃশ্বাস ধীরে ধীরে আরও গভির হচ্ছিল। ও বলল ভালো লাগছে? আমি পরম আবেশে বললাম হুম! এরপর আরও একটু জোরে ধাক্কা দিতে দিতে বলল কেমন লাগছে? আমি বললাম তুমি করতে থাক প্লিজ! এরপর ও আরও জোরে জোরে ধাক্কা মারতে লাগল। এরপর ও আমার ডান নিপ্পল চুষতে চুষতে জোরে জোরে ধাক্কা মারতে লাগল। কাম উত্তেজনা আমাকে পাগল করে তুলছিল। আমি চোখ বন্ধ করে সব সইছিলাম। এরপর ও থেমে গেল। আমি বললাম কি হল? ও বলল ঘুরে যাও। আমি বললাম কেন? ও বলল আমি এবার পিছন থেকে তোমাকে চুদব। এরপর আমি ধীরে ধীরে ডগি স্টাইলে ওর সামনে বসে পড়লাম। ও পিছন থেকে আমার নিতম্বকে চেপে ধরে ওর পুরা পেনিস আমার যোনিতে ঢুকিয়ে দিল। আমি চিৎকার করে বললাম আস্তে সুমন আমার ব্যাথা লাগছে। ও বলল সরি! এরপর ও একটা হালকা ধাক্কা মেরে বলল এখন ব্যাথা করছে? আমি বললাম না। এরপর ও আমাকে পিছন থেকে ধাক্কা মারতে লাগল। ওর ধাক্কায় আমার স্তন জোড়া ঝুলছিল। ও আমার এক স্তন চেপে ধরে টিপতে টিপতে বলল কেমন লাগছে? আমি বললাম খুব ভালো। আমার দুশ্চিন্তাও হচ্ছিল ও যেভাব করছিল তাতে অনেক সময় লাগবে। আমি ওকে বললাম প্লিজ একটু তাড়াতাড়ি কর! ও বলল ঠিক আছে আর এই বলে ও ধাক্কার স্পীড আরও অনেক বাড়িয়ে দিল। আমি আআআআহহহ আআআহহহহ আআআ করতে লাগলাম। আর আমার শরীরে সুখের বন্যা বয়ে গেল। এরপর ও বলল তোমার হাসব্যান্ড আর আমার মধ্যে কোনদিকে ডিফারেন্সে বলতে পারবে? আমি ধাক্কা সামলাতে সামলাতে বললাম তুমি ধাক্কা বেশি জোরে মারতে পারো। এরপর ও বলল আচ্ছা কারটা দিয়ে মজা বেশি আমার না ডাক্তার সাহেবের? আমি লজ্জায় চুপ করে রইলাম। আমি বললাম তুমি এতো কথা বল কেনো বল? যা করছ কর। ও আর কিছু জিজ্ঞেস করলো না। আমার হৃদপিণ্ড খুব জোরে ধক ধক করতে লাগল। আর নিঃশ্বাস থেমে যেতে লাগল। আমি বুঝতে পারছিলাম আমার হয়ে আসছে। আমি সুমনের ধাক্কার সাথে তাল মেলাতে থাকলাম। সুমনের নিঃশ্বাসও গভির হচ্ছিল। আমি ঘেমে পুরো ভিজে গেলাম। সুমনও ঘামে ভিজে অস্থির। আমার কাছে সুমনকে খুব আপন মনে হচ্ছিল। সুমন ধাক্কা চরমে নিয়ে গেল। আমি ব্যাথা আর ভাললাগার আবেশে পাগল হয়ে উঠছিলাম। আমার আনন্দের কোন সীমা ছিল না। এতটা ভালো লাগছিলো যে আমার সহ্য হচ্ছিল না। অবশেষে আমার সহ্যের সীমা ছাড়িয়ে গেল আর আমার যোনির কলকল করে সব রস ছেড়ে দিল। আমি কাঁপা কাঁপা কণ্ঠে বললাম সুমন আমি আর পারছিনা। ও বলল জান আরেকটু! ওর মুখে এই কথা শুনে আমার মন অন্যদিকে ঘুরে গেল। একটু পর আমার যোনিপথ পুরোটা ওর কাম রসে ভরিয়ে দিল। এরপর আমি ফ্লোরে শুয়ে পড়ি আর ও আমার আমার ভিতরে পেনিস রেখেই আমার পিঠের উপর শুয়ে পড়ে। আমি কিছুক্ষন পর ঘড়িতে দেখাল্ম ২ টা বাজে আমার গায়ে কাঁটা দিয়ে উঠল। আমি ওকে বললাম তাড়াতাড়ি এখান থেকে যাও। ২ টা বেজে গেছে। ও বলল আর কিছুক্ষণ থাকি না। আমি বললাম না, তাহলে সব শেষ হয়ে যাবে। ও ধীরে ধীরে ওর পেনিস বাইরে বের করে আনল আর বলল একটু চুষে দিতে। আমি সময় নষ্ট না করে ওর পেনিসের মাথাটা মুখে পুড়ে দিলাম। এই প্রথম কোন পর পুরুষের লিঙ্গ আমি মুখে দিলাম। কয়েক মিনিট চুষে দেয়ার পর আমি ওকে বললাম আর এক মুহূর্তও না। ও ওর কাপড় পড়ল। আর বলল তুমি অনেক ভালো Blowjob দিতে পারো। আমি দেখলাম আমার কাপড়গুলোও এখানে সেখানে পড়ে আছে। আমি সব তুলে পড়ে নিলাম। এরপর ও বলল আবার কখন করবে? আমি বললাম পরেরটা পড়ে দেখা যাবে। ও দরজার কাছে গিয়ে বলল তুমি আমাকে আজ অনেক মজা দিয়েছ। আমি এমন মজা কখনও পাই নি। আমি বললাম যাও ভাগো। এরপর ও বাইক নিয়ে দ্রুত চলে গেল। ও চলে যাওয়ার পর আমি বেডরুমে আসি আর ভাবতে থাকি এ আমি কি করলাম? ও আমার উপর কি জাদু করেছে যে আমি ওর সাথে এমন করলাম? তারপর আমি এক অদ্ভুত ভালবাসা মেশানো অনুভূতি টের পেলাম। আমার মনে হচ্ছিল যেন আমি সুমনকে ভালোবেসে ফেলেছি। কিন্তু না এটা হতে পারে না! আমি বিবাহিতা আমার ভালবাসা কেবল আমার হাসব্যান্ডের জন্য। কিন্তু পরে আমার মনে হল আমি তাহলে এমনটা কেন অনুভব করছি। তার মানে আমি কি আজও ফারুখকে ভালবাসতে পারিনি। না তা কি করে হয়? আমি কি তাহলে এতো বছর এই ভুল ধারনায় ছিলাম যে আমি কেবল ফারুখকেই ভালবাসি? না , না। কিন্তু কেন ফারুখের প্রতি আমার কখনও এমনটা মনে হয় নি? আচ্ছা সুমন তখন আমাকে জান বলল কেন? ওকি আমাকে ভালোবাসে? আমি একদিকে পাপবোধে ভুগছিলাম আর আরেকদিকে ভালোলাগায় হারিয়ে যাচ্ছিলাম। হটাৎ আমার মনে হল সুমনই যদি আমার হাসব্যান্ড হত! কিন্তু পড়ে আমি বললাম না না আমি এসব কি ভাবছি? কিন্তু আমি এটাও আমি বুঝতে পারলাম আমার সর্বনাশ হয়ে গেছে। যেই আমি কলেজ জীবনে কত ছেলেকে বিধিনিষেধের ভয়ে দূরে ঠেলে দিয়েছি আজ সেই আমি ৯ বছর সংসার করে, এক সন্তানের মা হয়ে এতোটা পথ পাড়ি দিয়ে এসে কেন কিশোরী মেয়েদের মত অস্থির হয়ে উঠলাম? এরপর আমার মনে পড়ল আমার খাবার বানাতে হবে। ত্যারপর আমি রান্না ঘরে চলে গেলাম। কিন্তু সারাদিন আমার সুমনের কথাই মনে হতে থাকল। কিন্তু একটা কথা আমি বারবার অনুভব করতে পারছিলাম যে সুমনের জন্য আমার মনে কিছু একটা জন্মেছে আর তা হল ভালবাসা।

ছোট্ট একটি ভুল পর্ব- ৭
পরের দিন সকালে আমি ঘরের কাজে লেগে গেলাম। ১ টা বাজে আমি জানালার কাছে এসে দেখি সুমন দাঁড়িয়ে আছে। আমার শরীর উত্তেজিত হতে লাগল। ও আমার সাথে কথা শুরু করলো অন্য ভাবে। আমাকে বলল দরজা খুলো না। আমি বললাম কেন? ও দেখাল ওর পায়ে কেটে রক্ত পড়ছে। আমি ওকে বললাম তুমি দরজার কাছে যাও। আমি আসছি। এরপর আমি ফার্স্ট এইড নিয়ে এসে দরজা খুললাম। আমি বললাম কিভাবে হল? ও বলল এই কেটে গেছে আর কি! আমি ওকে বললাম সোফায় বসো আর আমি ওর পায়ে ব্যান্ডেজ করে দিলাম। আমি জানি না আমি কেন এমন করলাম। একদিকে আমি ওর এখানে আসা পছন্দ করছি না আর আরেক দিকে আমি ওকে আহত দেখে অস্থির হয়ে যাচ্ছি। ও বলল তুমি আসলে যেমন দেখতে আসলে তেমন না। আমি বললাম আমি কেমন। ও বলল তুমি দেখতে যেমন সুন্দর তোমার মনটা আরও সুন্দর! আমি বললাম ও তাই! ও বলল আচ্ছা চল ঐ ঝোপের দিকে গিয়া কথা বলি। আমি বললাম কি দরকার? আমি যাব না। ও আমার হাত ধরে আমাকে ঝোপের ভিতরে নিয়ে গেল। আমি বললাম কেউ এসে পরবে আমি যাই। ও বলল এখানে আমদের কেউ দেখবে না। আমি দেখলাম অনেক ঘন ঝোপ হয়ে ছিল এখানে। যদি কেউ এসেও যায় তাহলে আমরা যেখানে এসেছি সেখানে আমাদের কেউ দেখবে না। এটা বলে ও আমার নিতম্বে হাত রাখল। আমি ওর হাত সরিয়ে দিয়ে বললাম আমি এসব আর করতে পারব না। কেন তোমার ভালো লাগেনি কালকে? আমি কিছু বলতে পারছিলাম না। তারপরেও আমি বললাম আমি বেশি কিছু করতে পারব না। ও বলল তুমি চিন্তা কর না। বেশি কিছু করব না। চলো এখানে বসি। আমি খুশি হলাম যে ও আর বেশি কিছু করবে না। আমারা ঝোপের ভিতরে বসলাম। কিচুক্ষন আমার দিকে তাকিয়ে থাকার পর ও বলল একটু ঘুরবা? আমি লজ্জা পেলাম। ও বলল প্লিজ ঘোরো না! লজ্জা পাও কেন? আমি ওর সামনে ঘুরে বসলাম। ও বলল আচ্ছা তোমার হাসব্যান্ড কখনও তোমাকে অ্যানাল করেছে? আমি ওর কথা শুনে হতভম্ব হয়ে গেলাম। আমি ধীরে ধীরে বললাম হ্যাঁ…… সুমন বলল আমি জানতাম এমন পুটকি যদি কেও না মারে তাহলে সে পুরুষই না! সুমন এরপর আমার সেলওয়ারের গিঁট ধরে টান দিল। আমি বললাম না ছাড়ো! কি করছ তুমি? তোমার এসব করার কথা ছিল না। কিন্তু ও আমার কথা শুনল না আর একটানে আমার সেলওয়ারের গিঁট টেনে খুলে ফেলল। আমি সাথে সাথে ওর হাত সরিয়ে নিলাম। ও বলল কাপড় খোলো না। আমি তোমার ল্যাংটা পাছা দেখতে চাই। আমি বললাম না আমি খুলব না। ও বলল বাস্ এক বার খোলো না। প্লিজ! এক মিনিট পরে আবার পড়ে নিয়ো। আমি বললাম ঠিক আছে, তবে বেশি কিছু না। ও বলল ঠিক আছে। আমি বললাম আমার লজ্জা করে, ও হাসতে হাসতে বলল এখনও লজ্জা করে? আমি বললাম আমি খুলতে পারব না। তুমি খুলে নেও। ও কাপড় ধরে টান দিল আর আমিও আস্তে আস্তে ওকে সেলওয়ারের খুলতে দিলাম। আমার শরীর থর থর করে কাঁপছিল। সুমন দুই হাতে আমার কাপড়ের উপর নিতম্ব ধরে জোরে জোরে চাপ দিতে লাগল। ও বলল তোমার পাছা আসলেই বড় আর খুব নরম। এরপর ও আমার পাছায় পাগলের মত চুমতে লাগল। আমার শরীরে বিদ্যুৎ খেলছিল। ও জোরে জোরে আমার পাছা টিপছিল আর চুমছিল। এরপর ও থেমে গেল। আমি ঘুরে দেখলাম ও প্যান্টের চেইন খুলছে। আমি বললাম এমন করো না। প্লিজ! ও আমার কথা শুনল না। আমি আবার বললাম এটা ঠিক হচ্ছে না। এরপর ও একটা টিউব থেকে লিকুইড বের করে ওর পেনিসে আর আমার পায়ুপথের লাগাল। আমি বললাম এতা কি? ও বলল তোমার যাতে ব্যাথা না লাগে তাই আমি এতা নিয়ে এসেছি। আমি বললাম তার মানে তুমি প্ল্যান করে এসেছও? তাই না? ও বলল দেখ আমাদের মধ্যে শারীরিক সম্পর্ক হয়ে গেছে। So, আমাদের তো উচিত এটাকে আরও এঞ্জয়এবল করে তোলা। So, babe! Let me do anal! এটাতে তুমি অনেক মজা পাবে। ট্রাস্ট মি! আমি আর কোন বাঁধা দিলাম না। আমি শুধু দেখে যাচ্ছিলাম ওর কাণ্ড কারখানা। এরপর ও আমার নিতম্ব ধরে ওর পেনিস আমার পায়ুপথে রেখে দিল। আমার মাথা কাজ করা বন্ধ করে দিয়েছিল। আমার সংসারের কথা আমি ভুলে গেলাম। এরপর ও বলল আমি কি এইবার শুরু করব? আমি অস্থির হয়ে উঠলাম। আমি কিছু বলছিলাম না। ও আবার বলল আমি কি এইবার শুরু করব? আমি এবার বললাম কর। ও হালকা একটা ধাক্কা দিল আর ওর পেনিসের কিছুটা আমার পায়ুপথ দিয়ে ঢুকে গেল। আমি ঘাস দুই হাতে শক্ত করে ধরে রাখলাম। আর মনে হচ্ছিল আমি আর ও সারা পৃথিবীতে একা। আআআআআআআহহহহ। ও বলল চিন্তা করো না আমি ধীরে ধীরেই করব। আমি চুপচাপ ওর ধাক্কা সহ্য করছিলাম। ধীরে ধীরে ও তার পুরো পেনিস আমার ভেতরে ঢুকিয়ে দিল। এরপর আমাকে জিজ্ঞেস করলো এখন কি আমি মারতে থাকব? আমি অস্থির হয়ে উঠেছিলাম। আমি বললাম ঠিক আছে মারো। আর এটা শুনে ও খুশি হয়ে আমাকে থাঙ্ক ইউ বলল। ও তার পুরো পেনিস বাইররে বের করে আবার ভেতরে ঢুকালো। আমার নিঃশ্বাস ভারি হয়ে উঠল আর চোখের সামনে অন্ধকার দেখতে পেলাম। অনেক ভালো লাগছিলো। ও ধীরে ধীরে স্পীড বাড়াল। আমার আরও বেশি মজা লাগতে লাগল। এভাবে ও অনেক্ষন করলো। ও বার বার ওর পেনিসকে আমার পায়ুপথের ভিতর পর্যন্ত ঢুকাতে আর বের করতে লাগল। এরপর ও ধাক্কার স্পীড আরও বাড়াল। আমার আরও বেশি অনেক গুন মজা লাগতে লাগল। সুমন বলল কেমন লাগছে? আমি বললাম খুব ভালো। ও বলল এমন মজা আর কখনও পেয়েছ? আমি ওর ধাক্কা নিতে নিতে বললাম না। ও বলল আমি বলেছিলাম না আমি তোমাকে স্যাটিসফাই করব। আমি অ্যানাল সেক্সকে আগে ভয় পেতাম কিন্তু এই প্রথম আমি এত মজা পাচ্ছিলাম। আমি ওর প্রতি ধাক্কার সাথে সাথে আনন্দের সাগরে ভেসে যাচ্ছিলাম। হটাৎ আমি টের পেলাম আমার যোনি থেকে রস গড়িয়ে পায়ে নেমে গেছে। ও বলল বলো কতক্ষন তোমার পুটকি মারব? আমি বললাম মারতে থাকোনা! ও বলল তুমি যতক্ষন বলবে ততক্ষন মারব। ও ধাক্কার স্পীড অনেক গুন বাড়িয়ে দিল আর আমি আনন্দের সাগরে ডুবে যেতে লাগলাম। ও আআনহহহহ আওয়াজ করে উঠল আর অনেকখানি গরম রস আমার পায়ুপথে ঢেলে দিল। ও বলল সত্যি কথা! এমন মজা আমি কখনও পাই নি। Thank you very much. হটাৎ আমি জানালার দিকে তাকিয়ে দেখলাম ফারুখ দাঁড়িয়ে আছেন। আমার পায়ের তলার মাটি সরে গেল। আমি সুমনকে বললাম তাড়াতাড়ি সরো ফারুখ এসে পরেছেন। সুমন জানালার দিকে তাকালো আর সাথে সাথেই আমি গুলির শব্দ পেলাম। আমি জানালার দিকে তাকিয়ে দেখলাম ফারুখ পিস্তল হাতে দাঁড়িয়ে আছেন। হটাৎ সুমন আমার পেছন থেকে সরে গেল। আমি ঘুরে তাকিয়ে দেখি সুমনের গায়ে গুলি লেগেছে। এরপর আমি জ্ঞান হারিয়ে ফেলি।

ছোট্ট একটি ভুল পর্ব- ৮
হটাৎ আমার জ্ঞান ফিরে আসে আমি দেখি যে আমি হাসপাতালে আছি। আমার সব ঘটনা মনে পড়ল আর এটাও মনে পড়ল যে সুমনের গুলি লেগেছে। আমি শুনলাম কেউ ফারুখকে বলছে কিরে কি হয়েছে ভাবির? ফারুখ তাকে বলল আমি কিছু বুঝতে পারছিনা, আমার মনে হচ্ছে অনন্যাকে রেইপ করেছে তাও আমার বাসার পেছনে। কি বলছিস তুই? তুই পুলিশে রিপোর্ট করেছিস? না, তবে আমি ঐ ছেলেকে গুলি করেছি। আমি কণ্ঠ শুনে বুঝলাম যে এটা আমার হাসব্যান্ডের বন্ধু রায়হান। রায়হান বলল ঐ ছেলেকে তুই চিনিস? ফারুখ রাগী কণ্ঠে বলল ঐ ছেলেটা সুমন। রায়হান বলল কি বলছিস এসব? কিন্তু তুই ঐসময় পৌঁছলি কি করে? ফারুখ বলল আমাকে কেউ ফোন করে বলল বাসায় যান ডাক্তার সাহেব, আর দেখুন আপনার স্ত্রীর কি অবস্থা! আমি তাড়াতাড়ি বাসায় যাই। আর যাওয়ার সাথে সাথেই একটা এসএমএস আসে। এসএমএসটাতে আমাকে কিচেনে যেতে বলে। আমি কিচেনের জানালা দিয়ে তাকিয়ে দেখি অনন্যা ছটফট করছে আর ঐ সুমন ওকে……………………

রায়হান বলল এসব তাহলে সুমন করেছে? ফারুখ বলল এজন্যই তো ওকে গুলি করেছি। ফোনটা আমাকে সুমনই করেছিল। শুয়োরেরবাচ্চা বাঁচবে না। ওদের কথা শুনে আমি ভাবতে লাগলাম ফারুখ সবকিছু রেইপ ভাবছে। যদি আমিও সব কিছুকে রেইপ বলে দেই তাহলে আমি বেঁচে যাব। আমার পরিবারও সর্বনাশের হাত থেকে বেঁচে যাবে। আর সুমন যেহেতু মরে গেছে তাহলে আর সত্যি প্রকাশ হবার ভয় নেই। কিন্তু পরক্ষনেই চিন্তা করলাম আমি তো ফারুখকে মিথ্যা বলে দেব কিন্তু নিজেকে কি কিরে বলব? কারণ সত্যিটাতো আমি জানি। আর এই সত্য আমাকে সারাজীবন পোঁড়াতে থাকবে। তাই আমি ঠিক করলাম এবার আমি ফারুখকে সব বলে দিব। আমি ফারুখকে ডাকলাম। ফারুখ দৌড়ে আমার কাছে আসলো। আমি ওনাকে বললাম আমার আপনার সাথে একান্তে কিছু কথা আছে। ফারুখ দরজা লাগিয়ে দিল। ফারুখ আমার হাতে হাত রেখে বলল আমি আছি তো, আমাকে সব বল। আমি বললাম ফারুখ আমি আপনাকে সত্যি কথা বলতে চাই। আমি নিজেই সুমনর সাথে দেখা করতে ওখানে গিয়েছিলাম। ফারুখ বলল মানে? আমি কাঁদতে কাঁদতে বললাম আমি ওর কথায় বিপথে চলে গিয়েছিলাম। আমাকে আপনি মাফ করে দিন। ফারুখ এটা শুনে আমার গলা টিপে ধরল। আমার শ্বাস আটকে গেল। ফারুখ বলল খানকি মাগি! আমি তোকে কি দেইনি? আর তুই আমার সাথে এইরকম করলি? আমার মনে হচ্ছিল আমি মরে যাচ্ছি। হটাৎ কেউ দরজায় করা নাড়ল। ফারুখ আমাকে ছেড়ে দরজা খুলল আমি দেখলাম বাবা এসেছে। বাবা ফারুখকে জিজ্ঞেস করলেন অনন্যা কেমন আছে? ফারুখ রাগী স্বরে বলল নিজেই দেখে নিন। এটা বলে সে চলে গেল। বাবা আমার কাছে এসে বললেন কেমন আছিস মা? আমি এসে গেছি, আর তোর কোন ভয় নেই। তুই শুয়ে থাক আমি ফারুখের সাথে কথা বলে আসি। বাবা ফারুখের কাছে গেলেন। আমি ভাবতে লাগলাম এখন ফারুখ কি করবেন? আমি মনে মনে হালকা অনুভব করছিলাম যে আমি সত্যটা ফারুখকে বলতে পেরেছি। বাবা যাওয়ার পর আমি ভাবতে লাগলাম কেন সুমন ওখানে ফারুখকে ডাকলও? আর ওরা সুমনকে চেনে কিভাবে? আমি কিছুই বুঝতে পারছিলাম না। হটাৎ ফারুখ এসে আমাকে বলে ওঠ্ বের হয়ে যা আমার চোখের সামনে থেকে। আমি এক সেকেন্ডও তোকে দেখতে চাই না। আমি ওনাকে বললাম আমাকে দয়া করে একটা সুযোগ দিন। ফারুখ বলল এই তো দিচ্ছি! তোকে জানে মারছি না! আর তখনই বাবা আসলেন আর বললেন ওকে ছাড়ো। ওর চিকিৎসা দরকার আর তুমি এসব কি শুরু করেছো ফারুখ? ফারুখ বাবাকে বলল সব কিছু শুনেও আপনি এই কথা বলছেন? কি হয়েছে ওর যে ওর চিকিৎসা লাগবে? আমি বাবাকে বললাম বাবা, আপনি চলে যান। আমি মরে যেতে চাই। আপনি চলে যান এখান থেকে। বাবা বললেন তুমি তোমার দোষ স্বীকার করে নিয়েছ এটা কি কম বড় কথা? সবাই সত্যি কথা বলতে পারের না। তুমি নিজেকে আর দোষ দিও না। ফারুখ বাবাকে বলল হ্যাঁ সব দোষ তো আমার! আমার ঘরে ওর কোন জায়গা নেই। আপনি নিয়ে যান আপনার মেয়েকে। বাবা আমাকে বললেন চল্ মা আমার সাথে। তোর এখানে থাকার দরকার নেই। আমরা বাবুকেও আমাদের সাথে নিয়ে যাব।

ছোট্ট একটি ভুল পর্ব- ৯
বাসায় আসার পর মা আমাকে কিছুই জিজ্ঞেস করেন নি। বোধহয় বাবা তাকে সব বুঝিয়ে দিয়েছেন। আমি সারাদিন আমার রুমেই থাকতাম। কিছু দিন এভাবেই কেটে গেল। কিন্তু মনে কোন শান্তি খুজে পাচ্ছিলাম না। ফারুখ কোন ফোন করেন নি। এক দিন সকালে লাবনী আসলো দেখা করতে। ও আমার স্কুল জীবনের বান্ধবী। ওকে এতদিন পর দেখে খুব ভালো লাগল। আমি ওকে জিজ্ঞেস করলাম কিভাবে খবর পেলি আমি এখানে? ও বলল আন্টি কাল ফোন করে বলল তুই বাসায়, তাই এলাম। ও বলল কিরে সব ঠিক আছে তো? আমি ওকে সব ঘটনা বলে দিলাম। ও বলল আমার তো বিশ্বাস হচ্ছে না! আচ্ছা একটা কথা বলত তুই যখন ক্লিনিকে ফারুখ আর রায়হানের কথা শুনছিলি তখন তোর মনে হয়নি একটা ঝামেলা আছে? আমি বললাম আমিও বুঝতে পারছিনা ওরা সুমনকে চেনে কিভাবে? লাবনী বলল ঠিকিতো ওরা সুমনকে চেনে কি করে? ওরা তো বলাবলি করছিলো যে ফারুখকে সুমনই আসতে বলেছিল। তাহলে ওরা সুমনকে অনেক ভালো করেই চেনে। তোর কি মনে হয়? আমি বললাম আমারও তাই মনে হয়। লাবনী বলল সব কিছু ঠিক মত জানা দরকার। আমি এক কাজ করি, মাসুদকে দায়িত্ব দিয়ে দেই সব ঘটনার কারণ খুঁজে বের করতে। আমি বললাম তুই দুলাভাইকে সব জানাবি? লাবনী বলল তুমি চিন্তা করিসনা তোর দুলাভাইয়ের কাজই তো এইটা। ও সব খবর বের করে আনবে। আমি বললাম তুমি যা ভাল বুঝিস কর।
২০ এপ্রিল ২০০৮ থেকে আজ ২৬ সেপ্টেম্বর ২০০৮ পর্যন্ত এই ৫ মাসে আমার সাথে অনেক কিছু ঘটে গেছে। আমার ছোট্ট ভুলকে আমি ডাইরিতে লিখার চিন্তা করলাম। কিন্তু পরের দিন ডিভোর্স পেপার এসে গেল আর আমি পুরোপুরি ভেঙ্গে পড়লাম।

অক্টোবরের ১০ তারিখে লাবনী ফোন করে বলল তোর দুলাভাই সুমনের অফিসে খোঁজ করেছে। ও ঐ কোম্পানির ম্যান্যাজিং ডিরেক্টর। ওর বাবার কোম্পানি ছিল ওটা আর তারপরে ওই সেটা চালাচ্ছিল। তারপর তোর দুলাভাই ওর ফ্ল্যাটে যায়। ও সেটা নিজে ভাড়া নিয়েছিল। কোম্পানি ওকে দেয় নি। সেখানে ২০০৮ সালের এপ্রিলে ও ভাড়া নিয়েছিল। ওর প্রতিবেশীরা কেউ ওর সম্পর্কে জানে না। ওর ঐ বাসার বাড়িওয়ালা বলল ও ৫-৬ মাসের মত ছিল তারপর ও ঢাকা চলে যায়। এখন ও ঢাকায় কোথায় আছে তা কেউ জানে না। আমি লাবনীকে বললাম আর কিছু জেনেছিস নাকি এতটুকুই? হ্যাঁ ওর ঘরে মাসুদ একটা ডাইরি পেয়েছে। একটা পেজে ফারুখের আর রায়হানের নাম, ঠিকানা বিস্তারিত লিখা আছে। কিন্তু অবাক করার বিষয় পুরো ডাইরিতে কেবল তাদের নামই লিখা! আর ফারুখের ক্লিনিকের নাম ঠিকানাও লিখা আছে। যাক এখন আমারা কনফার্ম হতে পারলাম যে ওদের নিজেদের মধ্যে কানেকশন আছে। আর সবচেয়ে বড় ব্যাপার হল ডাইরিতে তোদের সম্পর্কে ডিটেইল লিখা আছে। যেমন ফারুখ কখন ক্লিনিকে যায়, আবার ফিরে আসে বাবু কখন স্কুলে যায় বা আসে। আর তুই কখন রান্নাঘরে যাস, পার্লারে যাস। আমি বললাম এসব ও কি করে বের করলো? লাবনী বলল আর জানিস? মাসুদ বলল যে রক্ত দিয়ে একটা কথা লিখা আছে ডাইরিতে। আমি বললাম বলিস কি? কি লেখা আছে? লেখা হল “ডাক্তার সাহেবেরতো এটাই সাজা ছিল কিন্তু উকিল সাহেবকে অবশ্যই মরতে হবে” কিন্তু আমি বুঝলাম না এই উকিলটা কে? আমি বললাম এই উকিলটা আর কেউ নয় রায়হান। লাবনী বলল কিন্তু এই লেখার মানে মাসুদ ধরতে পারে নি। আমি বললাম এটা ও কেন লিখল? লাবনী বলল আমিও তো বুঝতে পারছি না। চিন্তা করিস না। সময় মত সব বের হয়ে আসবেই। আমি বুঝতে পারলাম যে ও কিছুদিন আগেই তাহলে সিলেট এসেছিল। এখন সুমন আমার কাছে রহস্যময় হয়ে উঠল। লাবনী বলল এখন তাহলে রাখছি। আর কিছু জানলে তোকে জানাব। আমি বললাম ঠিক আছে। লাবনী আমাকে অনেক গুলো প্রশ্ন দিয়ে গেল আমার মনে। আমি সারা দিন এগুলোই ভাবতে লাগলাম।

ছোট্ট একটি ভুল পর্ব- ১০
কয়েকদিন পর লাবনী ফোনে বলল মাসুদ জানতে পেরেছে সুমন বেঁচে আছে। আর ওকে বাঁচিয়েছে ভিনা জোসেফ নামের এক খ্রিস্টান বৃদ্ধা মহিলা। আমি বললাম ভিনা জোসেফ? হ্যাঁ হ্যাঁ আমি তো ওনাকে ফারুখের ক্লিনিকে দেখেছিলাম। লাবনী বলল সুমন রক্তাত্ত অবস্থায় পালিয়ে যাবার সময় রাস্তা থেকে ভিনা জোসেফ তাকে হাসপাতালে নিয়ে যায় আর রেখে সুস্থ করে। এরপর সুমন ঢাকা চলে যায়। আমি মনে মনে ভাবলাম সুমন তাহলে বেঁচে আছে! আমার অস্থির লাগছিলো। আমি লাবনীকে বললাম আমি পরে কথা বলছি।
আজ ৬ জানুয়ারী ২০০৯ আর আমি এখন গুলশানে। বাবু নানা নানির সাথে সিলেটে আছে। লাবনী আমাকে ওর পরিচিত এক কোম্পানিতে অ্যাসিস্ট্যান্ট ম্যানেজারের পোস্টে চাকরির ব্যাবস্থা করে দিয়েছে। আমি অনেক ভেবে চিন্তে চাকরি জয়েন করেছি। এখন আমাকে বাবুর ভবিষ্যৎ এর কথা চিন্তা করতে হবে। কোম্পানি আমাকে একটা ফ্ল্যাট দিয়েছে। কিছুদিন এভাবেই কেটে গেল।
কিছুদিন পর আমি আমার ফ্ল্যাটের দরজার নিচে একটা চিঠি পাই। আমি চিঠি খুলে দেখি সুমন লিখেছে। ও লিখেছে যে ও আমার সাথে দেখা করতে চায়। আমি মনে মনে ভাবলাম আমার জীবন তো ও নষ্ট করে দিয়েছে। আর কি চায় সে? না আমি যাব না।
এভাবে প্রতিদিনই আমি অফিস থেকে আমার ফ্ল্যাটে এসে দরজার নিচে ওর চিঠি পাই। সেই একি কথা লেখা থাকে রোজ। আমি সব ইগনোর করে আমার অফিসের দিকে মন দিলাম। একদিন ও আমার অফিসের বাইরে সে বলল প্লিজ আমার কথা শোন। আমি তোমাকে কিছু কথা বলতে চাই। আমি ওকে বললাম তোমার যদি এতটুকু লজ্জা থাকে তাহলে আমাকে আর বিরক্ত করবে না। আমার সব কিছু শেষ। আমি আর তোমার কোন কথাই শুনব না। আর আমি জানি তুমিও কত বড় শয়তান, মিথ্যাবাদী। চলে যাও। আমি বাসায় চলে গেলাম।

তারিখ ৯/২/০৯
সকাল ৭ টা বাজে লাবনী বলল এই সব ঘটনা কবিতা নামের এক মেয়েকে নিয়ে। আমি বললাম কবিতা নামের আমি একজনকে চিনি। কবিতা ফারুখের ক্লিনিকে কাজ করত। তুই কি ঐ কবিতার কথা বলছিস? ও বলল হ্যাঁ। আমি বললাম কিন্তু ওর সাথে কি সম্পর্ক সবকিছুর? লাবনী বলল মেয়েটা গত ১ বছর বছর যাবত নিখোঁজ। আমি বললাম না না, ও তো চাকরি ছেড়ে চলে গিয়েছিল ১ বছর আগেই। একবার আমি ফারুখের ক্লিনিকে গিয়েছিলাম। তখন আমি কবিতার কথা ফারুখকে জিজ্ঞেস করেছিলাম। ও বলেছিল যে কবিতা চাকরি ছেড়ে চলে গেছে। লাবনী বলল ও হটাৎ করে নিখোঁজ হয় আর ওকে কোথাও কেউ খুঁজে পায় নি। আর জানিস কবিতা কে? আমি বললাম কে? কবিতা সুমনের বোন! আমার বুকে ধক্ দিয়ে উঠল। আমি বললাম বলিস কি? তারপর লাবনী বলল তুই শান্ত হ। এইবার সুমনের রহস্য কিছুটা খুলল। আমি বললাম কিভাবে? ও বলল হয়ত কবিতার নিখোঁজ হওয়া আর সুমনের তোর জীবনে আসার একটা কারন আছে। আমি বললাম লাবনী আমি পরে ফোন করছি।

ছোট্ট একটি ভুল পর্ব- ১১
আমি চিন্তা করলাম আমি আজই যাব আর রমনা পার্কে সুমনের সাথে দেখা করব। আমি ওখানে গিয়ে দেখি সুমন দাঁড়িয়ে আছে। ওকে কেমন যেন অসুস্থ মনে হচ্ছিল। আমি ওর কাছে গিয়ে বললাম আমার কিছু কথা জানার ছিল। ও বলল আমারও তোমাকে কিছু বলার ছিল। আমি তোমাকে আরও আগেই বলে…………ও এই পর্যন্ত বলে আমাড় সামনে লুটিয়ে পড়ল। আমি ওকে বললাম কি হল সুমন? কি হয়েছে তোমার? ও জ্ঞান হারিয়ে ফেলল। আমি লোকজনের সহায়তায় ওকে হাসপাতালে হাসপাতালে নিয়ে গেলাম। ডাক্তার ওকে দেখে বলল কোন বড় মানসিক চাপে ওর এই অবস্থা হয়েছে। মনে হয় ও খাওয়া দাওয়া ঠিক মত করছে না। আমার চোখ দিয়ে পানি পরতে লাগল ওর জন্য। আমি সেই মানুষটার জন্য কাঁদছি যে আমার জীবন শেষ করে দিয়েছে! কিছুক্ষণ পর সুমনের জ্ঞান ফিরল। ও বলল আমি তোমাকে কিছু সত্যি কথা বলতে চাই। আমি বললাম আগে কিছু খেয়ে নেও। ও বলল আগে আমার কথা শোন। আমি বললাম বল। আজ আমার ছোট বোন কবিতার জন্মদিন। আর আমি এতটা হতভাগ্য যে আমি জানি না সে আজ কোথায় আছে বেঁচে আছে না মরে গেছে। আমি ভাই হয়েও ওকে বাঁচাতে পারি নি। আমার বাবা মা নেই, এই বোনই আমার সব কিছু ছিল। আমাদের মা মারা যান খুব ছোট বেলায়। আর কয়েক বছর পর বাবা খুন হন। তখন আমার বয়স ১২ বছর ছিল। আমাকে আর কবিতাকে আমার ছোট ফুপু বড় করেছেন। আমি কোম্পানির কাজ নিয়েছিলাম আর ও মেডিক্যালে পড়াশুনা করার জন্য সিলেট চলে যায়। ও ফারুখের ক্লিনিকে চাকরী নিয়েছিল। আর আমি ঢাকায় ছিলাম। আমি ওর জন্য এক ভালো ছেলে দেখেছিলাম। ওকে আমি ২০০৮ এর ফেব্রুয়ারির ২ তারিখে ফোন করে বলি তুই ঢাকায় আয়। তোর জন্য আমি ছেলে দেখেছি। ছেলের পরিবার তোকে দেখতে চায়। ও বলল ঠিক আছে ভাইয়া আমি কাল আসছি। আমি ৩ তারিখ সারা দিন অপেক্ষা করলাম কিন্তু ও আসলো না। আর ওর ফোন বন্ধ পেলাম। আমি ছেলেপক্ষকে মিথ্যা কথা বলে না করে দিলাম আসতে। তারপর পরদিন আমি সিলেট গেলাম। আমি সিলেট পৌঁছে ও যেখানে ভাড়া থাকত সেখানে গেলাম কিন্তু তালা লাগানো দেখলাম। আমি বাড়িওয়ালাকে জিজ্ঞেস করলাম উনি বললেন কালকে তো কবিতা ফিরেই আসে নি। এরপর আমি ফারুখের ক্লিনিকে গেলাম। আমি ফারুখকে জিজ্ঞেস করলাম কবিতার কথা। ও বলল কবিতাতো চাকরী ছেড়ে কাল চলে গেছে। আমি জানি না সে কোথায়। আমি এটা শুনে আরও অস্থির হয়ে পড়লাম। আমি ওখানকার এক নার্স যার নাম ভিনা জোসেফ তাকে জিজ্ঞেস করলাম সে বলল সে কাল কবিতাকে ফারুখের কেবিনে যেতে দেখেছিল কিন্তু কবিতা যখন বের হয়ে আশে তখন সে কাঁদছিল। ও কাউকে কিছু না বলে ক্লিনিক থেকে চলে যায়। তারপর ফারুখের উকিল বন্ধু রায়হানকে তার কেবিনে যেতে দেখে। পরে সে ডাক্তার ফারুখকে জিজ্ঞাসা করেছিলো তখন সে ভিনা জোসেফকে বলেছিলেন যে কবিতা কাজ ছেড়ে চলে গেছে। কিন্তু আরও আগে থেকেই কবিতা কোন ব্যাপারে চিন্তিত ছিল। কারণ উকিল রায়হান ওকে আজে বাজে কথা বলত। ওর সাথে অশালীন ব্যবহার করত। কিন্তু কাল মনে হয় ওর সাথে অনেক বেশি খারাপ ব্যবহার করেছিলো। আমি ভিনা জোসেফের মুখে এসব শুনে পাগল হয়ে গেলাম। আমি ফারুখের কেবিনে যাই আর ওকে মারি আর ওর মুখ থেকে রক্ত ঝরতে থাকে। তারপর কত্থেকে যেন রায়হান আসলো আর আমাকে পেছন থেকে মারল। এরপর ওরা দুজনে আমাকে মেরে কাবু করে ফেলে। আমি আরেকবার ওদের মারতে নিয়েছিলাম কিন্তু রায়হান পিস্তল বের করে আমার সামনে ধরে। আর ফারুখ আমাকে ইচ্ছামত ঘুশি মারতে থাকে। তারপর আমাকে ছাড়ে আমি পড়ে যাই। এরপর
ফারুখ আমার সামনে ওর মোবাইলটা ধরে আমি দেখতে পাই আমার বোন চিৎকার করছে আর রায়হান ওকে রেইপ করছিল। আমি ওকে মারার জন্য উঠে দাঁড়াই আর তখনি ও সরে গিয়ে আমাকে একটা চেয়ার দিয়ে মাথায় বারি মারে আর আমি পড়ে যাই। রায়হান বলে দেখ কুত্তারবাচ্চা তোর বোনকে আমি কিভাবে চুদছি। এরপর ফারুখ বলে দ্যাখ এইবার আমি তোর বোনকে কিভাবে পুটকি মারছি! দ্যাখ! আর অনন্যা জানো তুমি সেটা কোন জায়গা? ওটা তোমার আর ফারুখের বেডরুম! আর তাই আমি তোমাকেও ঐদিন তোমার বেডরুমে নিয়ে গিয়েছিলাম বদলা নিতে। আমি বললাম ঐ সময়ত আমি অনেকদিনের জন্য বাবার বাড়ি গিয়েছিলাম। আমি ভাবতে পারছিনা ফারুখ এটা করতে পারে। সুমন বলল আমি পুলিশের কাছে গিয়েছিলাম। কিন্তু পুলিশ কবিতার কেস নিয়ে তাল বাহানা করতে থাকে। দুই মাস পেরিয়ে যায় কিন্তু তারা আমার বোনকে খুঁজে বের করতে পারে না। তখন আমি নিজেই প্রতিশোধ নিতে কিছু করার চিন্তা করি। আর তাই ফারুখের উপর প্রতিশোধ নিতে আমি তোমার সাথে এসব করেছি। আমি তোমাকে প্রেমের জালে আঁটকিয়ে ছিলাম ফারুখের উপর প্রতিশোধ নিতে। আমি ওকে বললাম যে তুমি আমার সম্পর্কে এক বারও ভাবলে না। আমি কি ক্ষতি করেছিলাম তোমার? আমি চাইছিলাম যে ওর সবচেয়ে দুর্বল জায়গায় আঘাত করতে। আর ফারুখের সবচেয়ে দুর্বল জায়গা হচ্ছ তুমি। আমি জানতাম তুমি যদি ওকে ধোঁকা দেও তাহলে ও সবচেয়ে বেশি কষ্ট পাবে। কিন্তু এখন আমি ভাবি যে এসব কিছু করে আমার কি লাভ হল? আমার বোনকেতো আমি ফিরে পেলাম না। আর তোমার দোষীও হয়ে গেলাম। আমার কবিতার জন্য দুঃখ লাগল। যে হাসব্যান্ডকে আমি সবসময় এক আদর্শবান মানুষ মনে করতাম অথচ সে আসলে এক নরপশু! কবিতাকে সে আমার বাসায় আমার শোবার ঘরে এক লম্পট বন্ধুকে নিয়ে ধর্ষণ করেছে! আর তার ভিডিও করেছে! ছিঃ ছিঃ আমি নিজেকে পাপী মনে করছিলাম আর দোষ দিচ্ছিলাম যে আমি তার বিশ্বাসের সাথে প্রতারণা করেছি আর এখন তো দেখা যাচ্ছে যে সে আমাকে আগে ধোঁকা দিয়েছে। আমার কান্না আসছিল। সুমন আমাকে বলল আমি আমার দোষ স্বীকার করছি কিন্তু আমি এখন তোমাকে ভালবাসি। আমি ওকে বললাম ভালবাসার মানে তুমি কি জানো? হ্যাঁ আমি জানি। এটা একটা অনুভূতি। যা বারবার বলে আমি তোমাকে ছাড়া থাকতে পারব না। আমি এখানে তোমাকে পাবার জন্য এসেছি। আমি আমার বোনকে হারিয়ে ফেলেছি। কিন্তু তোমাকে হারাতে পারব না। এখন আমি তোমাকে অনেক গভীরভাবে ভালবেসে ফেলেছি। আমার মত অনুভূতি তোমারও হবে। তুমি দেখে নিও। আমি বললাম আমার সকল অনুভূতি নষ্ট হয়ে গেছে। আমার ভেতরে এখন কেবল অন্ধকার আর অন্ধকার। এসব কথা বলে তুমি আমাকে সেই পাপের পথে টানতে চাইছ। না সেই রাস্তা আমি প্রতিশোধের নেশায় করেছিলাম। কিন্তু আমি পথ এখন অন্য। এটা ভালবাসার পবিত্র পথ। আমি এসব শুনতে চাইছিলাম না। আমি ওখান থেকে বের হয়ে চলে যাচ্ছিলাম। সুমন পেছন থেকে বলল তুমি যাই কর না কেন অনন্যা তুমি আমাকে কখনই ভুলতে পারবে না। যেভাবে আমি তোমার জন্য কষ্ট পাচ্ছি এমনটা তুমিও পাবে। যে পাপ আমার জন্য ভালবাসা হয়ে গেছে তা থেকে তুমিও বাঁচতে পারবে না। একদিন তুমি নিজেই আমার কাছে আসবে। আমার ভালবাসা তোমাকে টেনে আনবে। আমি এখন থেকে এখানেই থাকব। ততদিন পর্যন্ত যতদিন তোমাকে পাবার ইচ্ছা আমার মনে থাকবে।

ছোট্ট একটি ভুল পর্ব- ১২
তারিখ ২২/ ৩/ ০৯
একটু আগেই লাবনী ফোন করেছিল আর বলল খবর দেখছিস? তোর সিলেটের ঐ বাসা দেখাচ্ছে। তোর ঐ বাসার পেছনে কবিতার কঙ্কাল পাওয়া গেছে। অনেক ভয়ানক দৃশ্যরে! আর শোন তোর দুলাভাই ফারুখের ক্লিনিক থকে একটা পেনড্রাইভ পেয়েছে। পেনড্রাইভে একটা ভিডিও আছে। ওটা কবিতার রেইপের ভিডিও। পুলিশের ধারণা এই ভিডিও দ্বারা কবিতাকে ব্ল্যাকমেইল করা হচ্ছিল। ওটাকেও সেন্সর করে দেখানো হচ্ছে। কিন্তু দুইজন লোককে স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে। একটা ফারুখ আরেকটা সম্ভবত রায়হান। পেনড্রাইভ আরও এক সপ্তাহ আগেই মাসুদ ক্লিনিক থেকে পেয়ে গিয়েছিল। তারপর মাসুদ পুলিশকে জানায়। তারপর পুলিশ আজ লাশ উদ্ধার করে। আমি বললাম দুলাভাই কিভাবে করল এসব? ও বলল আরে তুই তোর দুলাভাইকে চিনিস না! আমি লাবনীকে বললাম তুই ফোন রাখ আমি টিভি অন করছি। আমি টিভি অন করে দেখি সব চ্যানেলে এটাই দেখাচ্ছে। খবরে বলা হচ্ছে কবিতাকে জীবিত কবর দেয়া হয়। ফারুখে আর রায়হানের ছবিও দেখাচ্ছে সাথে আরও দুইজনের। ফারুখ আর রায়হানকে রেইপ করার জন্য আর ঐ দুইজনকে লাশ দাফন করার জন্য গ্রেফতার করা হয়েছে। ইনভেস্টিগেশন এখনও চলছে। আমি সুমনের সঙ্গে
দেখা করতে চাইছিলাম। কিন্তু ওর আর কোন চিঠি পাই নি। আমি রমনা পার্কেও গিয়েছিলাম কিন্তু আমি ওকে পাইনি।

তারিখঃ ২২/৬/০৯
আজ ৩ মাস হয়ে গেছে কবিতার লাশ পাওয়া গেছে অথচ সুমন পুলিশের কাছে যায়নি লাশের খোঁজ করতে আর আমার সাথেও যোগাযোগ করেনি। আমি একটু একটু করে ওকে হয়ত ভালোবাসতে শুরু করেছিলাম কিন্তু এখন মনে হচ্ছে ও আর আসবে না। আমি সুমনকে বলতে চাইছিলাম যে হ্যাঁ তুমি ঠিক বলেছিলে যে আমিও তোমার মতই কষ্ট পাব। সে পাপ আমার জন্য ভালবাসায় পরিণত হয়েছে। আমি ওকে সেদিন কিছু না বলে চলে এসেছিলাম আর আজ আমি ওকে কিছু বলতে চাই তো ও আমার কাছে নেই। আমি ওকে বলতে চাই যে তুমি আমার শরীর থেকে আমার আত্মা পর্যন্ত পৌঁছে গেছ। আমি ওকে বলতে চাই যে আমি তোমাকে মাফ করে দিয়েছি সুমন। আমার মনে হতে লাগল ও হয়ত আর বেঁচে নেই। যদি থাকত তাহলে ও অবশ্যই আমার কাছে আসতো। অন্তত ওর বোনের দাফনের জন্যও অবশ্যই আসতো। আমি অঝোরে কাঁদতে লাগলাম। আমার ডাইরি লেখা শেষ।

ছোট্ট একটি ভুল পর্ব- ১৩
অনন্যা ডাইরি লেখা বন্ধ করে দিয়েছিল। তাই আমি সুমন ডাইরিটা শেষ করার চেষ্টা করি।

২৮ শে জুন আমার জীবনের এক আনন্দময়য় দিন। আমি ঐ দিন অনন্যাকে দেখার জন্য ফিরে আসি। অনন্যা অফিস থেকে বের হবার পর আমি ওকে ডাক দেই। অনন্যা আমাকে দেখে স্তব্ধ হয়ে কিছুক্ষন দাঁড়িয়ে থেকে আমাকে জড়িয়ে ধরে কাঁদতে থাকল। ও বলল কোথায় চলে গিয়েছিলে তুমি? আমি তো ভেবেছিলাম তুমি আর বেঁচে নেই। তুমি কি জানো কিভাবে কেটেছে আমার এই দিনগুলো? তোমার বোনকে মাটি দিতেও তুমি আসোনি, কেমন ভাই তুমি? কেন করেছিলে এমন? আমি বললাম সব কিছু খুলে বলব তোমাকে। আমি হাসপাতাল থেকে ফিরে আমার কোম্পানিতে ফিরে যাই কিন্তু কাজে মন দিতে পারছিলাম না। আমাকে পাপবোধ ভোগাচ্ছিল। তাই আমি মার্চের ৮ তারিখে চিটাগাং চলে যাই। আর ওখানে আমার বন্ধু রাহাতের কাছে গিয়ে উঠি। আমি জানতাম তুমি আমাকে ভালবাসবেই আর আমার পথ চেয়ে থাকবে। আমারা এক হবই। তাই আমি তোমাকে আমার জীবনে আনার আগে আমার জীবনটা গুছিয়ে নিতে চাইছিলাম। এরই মধ্যে একদিন রাহাত আমাকে খবর দেয় যে কবিতার লাশ পাওয়া গেছে। তখন আমার শেষ আশাটাও শেষ হয়ে যায়। আমি কবিতা লাশ দেখতে যাই নি। কিভাবে যাব? যে মেয়েকে আমি কোলে পিঠে করে বড় করেছি তার লাশ দেখতে যাব আমি? তার কংকাল দেখতে যাব? অনন্যা আমাকে বলল প্লিজ শান্ত হও। আমি বললাম আমি মানসিকভাবে ভেঙ্গে পড়েছিলাম। আমি ধীরে ধীরে মনটাকে হালকা করি। নামাজ পরে আল্লাহ্র কাছে তওবা করি। আমার জীবনকে গোছাতে থাকি। আর আজ আমি এসেছি তোমাকে আমার করে নিতে। আজ থেকে আমাদের জীবন নতুন করে শুরু করব। অনন্যা বলল আমি তোমার, সুমন। আমি বললাম আমি তোমাকে বিয়ে করতে চাই। আমি তোমার বাবার সাথে কথা বলব। ও বলল আমি তোমাকে ভালোবাসি ঠিকি কিন্তু আমি তোমাকে বিয়ে করতে পারব না। আমি বললাম কেন? অনন্যা বলল আমি একবার আমার আগের স্বামীকে ধোঁকা দিয়েছি। আমার স্ত্রী হবার যোগ্যতা নেই। আমি তোমাকে বিয়ে করলে আমি তোমাকেও ধোঁকা দিতে পারি। আমি আরেকজনের কাছে শরীর বিলিয়ে দিতে পারি। তোমার উচিত হবে না আমাকে বিয়ে করা। আমি হাসতে হাসতে বললাম তুমি হয়ত ভুলে যাচ্ছ তুমি আমাকে ভালোবাসো। আর ভালবাসার মধ্যে থাকে বিশ্বস্ততা আর সৎ থাকার ইচ্ছা। আমি বললাম আমি ফারুখের সাথেও বিশ্বস্ত থাকতে চেয়েছিলাম। কিন্তু আমি তো তোমার সাথে পাপের পথে হেঁটেছি। আমি বললাম তুমি কি তাকে ভালবাসতে পেরেছিলে? তুমি ফারুখকে কখনও ভালইবাসনি। তুমি কেবল তাকে স্বামী হিসেবে শ্রদ্ধা করতে। কারন তাকে যদি ভালইবাসতে তাহলে আমাকে আর ভালবাসতে পারতে না। তাছাড়া আর কেউ তোমার জীবনে আর আসতে পারবে না। কারন আমার ভালবাসা তোমার জীবনকে কানায় কানায় ভরে দিবে। তাই কেউ চাইলেও আমার জায়গা নিতে পারবে না। অনন্যা কাঁদতে কাঁদতে বলল আমি আর কাউকে আসতে দিব না। আমি একবার সর্বনাশের পথে হেঁটে সব হারাতে বসেছিলাম কিন্তু এই ভুল আর করব না। আমি বললাম তাহলে তোমার বাবার সাথে আমি কাল কথা বলব। ও বলল আমি আগে বাবার সাথে কথা বলব। আমি বললাম ঠিক আছে। ও আমাকে বলল আমি তোমাকে সে কথাটা বলতে চাই। আমি বললাম বল। আমি তোমাকে ভালবাসি সুমন। আমি তোমাকে ছাড়া আর থাকতে পারবনা। তোমার কথাই আজ সত্য হয়েছে। আমি বললাম আমিও তোমাকে ভালবাসি। আমরা এবার এক হব। ও বলল হ্যাঁ। ও আমার কাছ থেকে আমার ফোন নাম্বার রাখল আর ওরটাও দিল। আমি ওকে গাড়িতে উঠিয়ে বাসায় যাবার কথা চিন্তা করি। কিন্তু পরক্ষনেই আমার বোনের কথা মনে পড়ল। আমি বাসায় ফিরে গেলে কবিতার কথা বার বার মনে পড়বে। তাই আমি এক হোটেলে উঠলাম। এরপর আমি আমার কোম্পানিতে আবার জয়েন করলাম।

ছোট্ট একটি ভুল শেষ পর্ব
কয়েকদিন পর ও আমাকে বলল ওর বাবা বিয়েতে রাজি হননি। তিনি ওকে বলেছেন আমাকে বিয়ে করলে অনন্যাকে তিনি মেরে ফেলবেন। তাই অনন্যা আর আমি বাধ্য হয়েই নিজেরা আয়োজন করে বিয়ে করলাম। বিয়েতে অনন্যার মা, লাবনী ও তার হাসব্যান্ড মাসুদ, আমার বন্ধু রাহাত, ভিনা জোসেফ আর কয়েকজন অফিসিয়াল গেস্ট ছিলেন। অনন্যার বাবা আসেন নি কারন তার কাছে আমি আজও পাপী যে কিনা তার মেয়েকে পাপের পথে নিয়ে গেছে। তিনি এও বলে দিয়েছেন আমাদের কাছে তিনি বাবুকে পাঠাবেন না। এভাবে আমাদের বিয়ে হয়ে গেল।

অনন্যাকে বিয়ে করার পর আমার জীবনে আনন্দের বন্যা বয়ে যাচ্ছে। আমাদের বিয়ের একমাস হয়ে গেছে। ও এখন আমার সব কিছু। আমারা একে অপরের কাছে আসতে বেশ সময় নিয়েছি। অনন্যা বিয়ের রাতে বাসর ঘরে আসতে দেরী করায় ওকে খুঁজতে আমি পাশের ঘরে যাই। গিয়ে দেখি ও হাত তুলে খোদার দরবারে মোনাজাত করছে। আমি বাসর ঘরে চলে যাই। এরপর ও বাসর ঘরে এসে বিছানায় বসে। আমি ওর ঘোমাটা সরিয়ে ওকে অপলক দৃষ্টিতে দেখতে থাকি। আমি ওকে বললাম আজ আমরা এক হলাম সারা জীবনের জন্য। কিন্তু ও আমাকে বলেছিল ওর কিছু সময় দরকার। ও তার পিছনের দিনগুলোর স্মৃতি মুছে ফেলতে পারে নি। আমি বলেছিলাম আমি তোমাকে লালসার স্বীকার করেছিলাম ঠিকই কিন্তু তোমাকে এখন আমি ভালবেসে পেতে চাই। তাই তুমি যতদিন না আমার কাছে আসছ আমি তোমার কাছে স্বামীর অধিকার নিয়ে আসব না। ও আমাকে বলেছিল তুমি অনেক পাল্টে গেছ সুমন তুমি কি ছিলে আর কি হয়েছ! আমি বললাম অনন্যা আমি সবসময় এমনি ছিলাম কিন্তু প্রতিশোধের নেশায় আমি নোংরা পথ বেছে নিয়েছিলাম। তুমি ছাড়া আমি আর কোন মেয়েকে জীবনে স্পর্শ করি নি, অনন্যা। তুমি হয়ত আমার এই কথা বিশ্বাস করবে না। অনন্যা আমাকে বলল আমি তোমার কথা বিশ্বাস করব না এমনটা তুমি ভাবলে কি করে? তোমাকে আমি ভালবেসেছি সুমন আর ভালোবাসায় বিশ্বাস থাকবে না এমনটা হতে পারে না। আমি বললাম আমি তোমাকে দুঃখ দিতে চাইনি। এরপর ও পাশের ঘরে চলে যায়। এভাবে আমাদের বিবাহিত জীবনের শুরু হয়। আমারা বেশ কিছুদিন আলাদা রুমে থাকি। এই সময়টা আমরা দুজনে যার যার অফিসের কাজে ব্যস্ত থাকি। মাঝে মাঝে সময় পেলে একসাথে ঘুরতে যাই, বাইরে ডিনার করি, মাঝে মাঝে পার্টিতে যাই, শপিং করি। কিন্তু কেউ কারও শরীরে স্পর্শ করি না।
একদিন রাতে অনন্যা আমাকে বলল আজ আমি তোমার স্ত্রী হবার জন্য তৈরি। আমাকে কাছে টেনে নেও সুমন আর আমি তোমার থেকে দূরে থাকব না। সেই রাতে আমি অনন্যাকে ভালবাসার পরম আবেশে চরম সীমায় নিয়ে যাই। আমাদের শরীরে শরীর স্পর্শ করেছিল আর আত্মা এক হয়ে উঠেছিল।
তারিখঃ ৯/৮/০৯
আজ সন্ধ্যায় আমরা একে অপরকে গিফট দেই। অনন্যার জন্য আমার গিফট হলো একটা শাড়ি। অনন্যাকে শাড়িতে অনেক সুন্দর লাগছিলো। আমি ওকে হলুদ শাড়িতে দেখতে চাইছিলাম। তাই আজ হলুদ শাড়ি কিনেছিলাম। বাসায় এসেই আমি অনন্যাকে শাড়ি ধরিয়ে দেই। ও শাড়ি দেখে অবাক হয়ে গেল। আমি জিজ্ঞেস করলাম শাড়ি পছন্দ হয়নি? ও বলল না খুব সুন্দর হয়েছে। তুমি চোখ বন্ধ কর আমি তোমাকে কিছু দেবো। আমি চোখ বন্ধ কর ফেললাম। একটু পর ও বলল চোখ খোল। আমি চোখ খুলতেই অনন্যা আমার হাতে একটা শার্ট দিল। ওটা একটা হলুদ শার্ট! আমারা দুজন ম্যাচিং জামা নিয়ে আসলাম কিভাবে? ও বলল এটাই তো ভালবাসা! আমারা আসলে একে অপরের জন্যই তৈরি হয়েছিলাম। আমি এরপর এই ডাইরির শেষভাগ লেখার জন্য বসলাম। মনে হচ্ছে আমাদের ভালবাসা এখন অনেক স্বর্গে পৌঁছে গেছে। হয়ত আমরা ঈশ্বরের কাছে পৌঁছে গেছি। হয়ত বলছি কারণ সত্য আমি জানি না। শুধু জানি অনন্যার ভালবাসায় আমি নিজেকে হারিয়ে ফেলেছি।

“When it comes to love between men and women, than love has infinite possibilities. It can be beautiful seduction. It can be beautiful erotica. And ultimately it can also be God. It all depends upto what level lovebirds are ready to go in journey of love” ——–

Jatin Gautam

***সমাপ্ত***

গল্পটি কেমন লাগলো ?

ভোট দিতে স্টার এর ওপর ক্লিক করুন!

সার্বিক ফলাফল 5 / 5. মোট ভোটঃ 1

এখন পর্যন্ত কোন ভোট নেই! আপনি এই পোস্টটির প্রথম ভোটার হন।

Leave a Comment