পাতাল সুন্দরী

Written By Lekhak (লেখক)

।। এক ।।
মেয়েটাকে যতবারই আমি দেখি, পুরোন কখনও মনে হয় না। যেন নতুন নতুন রূপে দেখা দিচ্ছে আমার কাছে। মুগ্ধ চোখে ওকে শুধু দেখি আর আলোড়ন সৃষ্টি করে মনে, কখনও চেতনে কখনও অবচেতনে। এই নিয়ে পরপর চার সপ্তাহ হল, প্রতিদিন সকাল আটটার কিছু পরে ওকে টালীগঞ্জ মেট্রো স্টেশনে দেখছি। অন্যসব নিত্য যাত্রীদের সঙ্গে ও প্ল্যাটফর্মে অপেক্ষা করে ট্রেন ধরার জন্য।
আমাকেও প্রতিদিন ট্রেনে করে ধর্মতলায় যেতে হয়। ওখান থেকে পায়ে হেঁটে দশ মিনিট লাগে আমার অফিসে পৌঁছোতে। পাতালের ভেতর দিয়ে প্রতিদিনই গরু-ভেড়ার মতো লক্ষ লক্ষ ট্রেন যাত্রীদের সাথে ওঠানামা করি। আমার মনের মধ্যে কোন বদ কুমতলব নেই, কিন্তু তবু যেন মেয়েটাকে দেখলেই আমার ভেতরটা কেমন ধুকপুক করে ওঠে।
সেদিন মেয়েটা টিকিট কাটার জন্য লাইনে দাঁড়িয়ে ছিল। আমি গিয়ে দাঁড়ালাম, ঐ লাইনেই অনেক পেছনে। মেয়েটা টিকিট কেটে পেছনে ঘুরে, আমার সামনে দিয়েই চলে গেল। ওর মুখখানা দেখলাম, চেহারাটার মধ্যেও এমন টানটান আকর্ষণ। আমি পুরো মোহিত হয়ে গেলাম।
আমি অবাক হলাম, মেয়েটা কিছুটা দূরে চলে গিয়েও থমকে দাঁড়িয়ে পড়ল একবার। পেছন ঘুরে স্থির চোখে তাকিয়ে রইল আমার দিকে। আমি হাঁ করে মেয়েটির দেহের সৌন্দর্য সুধা পান করতে লাগলাম শুধু।
হঠাৎ লম্বা চওড়া স্বাস্থ্যবান একটা লোক এসে থমকে দাঁড়িয়ে পড়ল মেয়েটিকে আড়াল করে। আমার মুখটা ও আর দেখতে পাচ্ছিল না। অগত্যা ওকে সরে যেতে হল ওখান থেকে। মনটা খুব খারাপ হয়ে গেল আমার। সবে মাত্র মেয়েটার রূপ আর যৌবন দেখতে দেখতে আমি পাগল হতে শুরু করেছি, তখনই ঐ লম্বা লোকটা আমার রসভঙ্গ করে দিল। মনটা ক্ষুন্ন হয়ে গেল। টিকিট কেটে যখন এদিক ওদিক চাওয়া চাওয়ি করলাম, মেয়েটাকে আর দেখতে পেলাম না। মনে হল নিশীথে, শয়নে, স্বপনে আমি বোধহয় ওকেই দেখতে শুরু করব এবার। আমার রাতের ঘুমটা ও পুরোপুরি কেড়ে নেবে।
পরদিন সকালবেলা ঠিক এখই সময়ে আবার ঐ জায়গায় মুগ্ধকরা মেয়েটির সুন্দর মুখ খানি আবার দেখতে পেলাম। দুটো চোখ দিয়ে ওর সৌন্দর্যসুধা গোগ্রাসে গিলতে লাগলাম। মেয়েটি যেন খুব কাছ থেকেই খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে নিরীক্ষণ করাচ্ছিল আমাকে। টাট্টু ঘোড়ার লেজের মতো মেয়েটির পিঠ কালো চুল, ওর টিকোল নাক, দুটি পিঙ্গল চোখের মূগ্ধ করা চাহনি। আহা কি অপরূপা সুন্দরী।
রোজই ওকে দেখছি, বহূবার দেখেছি, তবুও তৃষ্ণার চোখ আমার। রূপটা যেন প্রতিদিনই নতুন ভাবে দেখা দিচ্ছে।
তুমি কোন বাগানের ফুল গো সুন্দরী? একবার যদি সেই বাগানের মালি হতে আমি পারতাম। তাহলে হয়তো তোমার সৌন্দর্যের পরিচর্যা করতাম।
এই জানুয়ারী মাসে কলকাতায় এখন একটু ঠান্ডা। শীতকালে মেয়েদের বুক দেখার সহজে উপায় নেই। ও ওর সুন্দর বুক দুটোকে গায়ে একটা সোয়েটার দিয়ে ঢেকে রেখেছিল। আমার মেয়েটির ওপর ভীষন রাগ হচ্ছিল, সাথে একটু অভিমানও। এত সুন্দর জিনিষ কেউ ওভাবে ঢেকে রাখে? সর্বজন দেখার জন্য জিনিষ কেন ওভাবে ঢেকে রাখবে?
আমি বুক ছেড়ে ওর চোখের দিকেই আবার মনোনিবেশ করলাম। চোখের তৃষ্ণা মিটলেও বুকের তৃষ্ণাটা আমার অপূরণই থেকে গেল।
সেদিন আমি বাড়ী ফিরলাম, মনে হচ্ছিল, দু’ হাত দিয়ে মেয়েটিকে আমার বুকের মধ্যে জড়িয়ে ধরে পাখীর মত ওর নরম বুক দুটি পিষে ফেলে, যতক্ষণ না ও ব্যাথা পাচ্ছে এবং মুখ ফুটে না বলছে, ততক্ষণ আমিও ছাড়ছি না। তাহলে কেমন হত ব্যাপারটা? কিন্তু আজও তো সেই ইচ্ছাটা আমার অধোরাই থেকে গেল। আমি কি শুধু চোখের দৃষ্টি দিয়ে ওকে লেহন করে যাব? মনে হয় এর থেকে বেশী এগোন সম্ভব নয় আমার পক্ষে।
মনে হল, মেয়েটির মধ্যে অবশ্য একটা ইচ্ছা আমি দেখেছি। ও মনে হয় আমার সাথে আলাপ পরিচিতিটা সেরে নিতে রাজী আছে। চোখে মুখের ভাব তো সেরকমই কিছু বলতে চাইছে আমাকে। আমি ওর আহ্বানে সাড়া দেব না ও আমার আহ্বানে?
দেহমনের ইচ্ছেটাকে দাবিয়ে রাখতে আমার বুক ফেটে যাচ্ছিল। রাস্তাঘাটে কোনো অপরিচিতা মেয়ের সঙ্গে কথা বলা, তার দিকে তাকিয়ে হাসা কিংবা কোনভাবেই হোক তার সঙ্গে বন্ধুত্বের সম্পর্ক স্থাপন করতে যাওয়াকে নাকি নিষিদ্ধ বলে। নিজের মনকে প্রবোধ দিতে বাধ্য করছে। কিন্তু মেয়েটাকে দেখেও তো সুখ আছে। এ যেন এক আলাদা অনুভূতি, আলাদা উপলব্ধি। যা কোন নারীর স্পর্ষে পাওয়া যায় না, এমনকি মিলনেও যে সুখ অনুপস্থিত থেকে যায় দেহে, বিশেষ করে মনের দিক থেকে তো বটেই।
উপলব্ধিটা যেন মেয়েটির সম্পর্কে আগ্রহে আরো বেশী করে আগুন জ্বালিয়ে দিচ্ছিল বুকে।
আমার এতদিন দিনগুলি শুরু হতো, ম্যাড়ম্যাড়ে এবং নীরস ভাবে। কিন্তু এখন? রোজই মেয়েটিকে দেখছি, ওর পোশাকের বহর, চলার ছন্দ আমাকে উপভোগ করাচ্ছে। নিবিড় সম্পর্ক যদি একটা গড়ে ওঠে? ভাবতেই কেমন মজা লাগছে।
মেয়েটিকে দেখে মনে হয় কোন অফিসে চাকরী করে। হালকা লিপস্টিক আর হালকা রঙের চোখের ভুরু রঙ করা ওর অভ্যাস। চেহারায় কোন ভারী মেকআপ নেই, অথচ কত সুন্দর ওর মুখশ্রী।
এপ্রিলের প্রথম সপ্তাহে আমি মেয়েটির ঘন সান্নিধ্য লাভের জন্য খুব উদগ্রীব হয়ে উঠলাম। গরম পড়েছে, তাই ও এখন আর শোয়েটার ব্যবহার করে না। পরণের আঁটো জামা, যার ফলে ওর শরীরের সব উঁচু নিচু অংশগুলি প্রস্ফুটিত হয়ে উঠেছে। জামার বোতামগুলো যদি অসাবধানতাবশত কখনও খুলে যায়, তাহলেও ওর ধবধবে সাদা মাংসল স্তনজোড়া পদ্মফুলের কুড়ির মতো বিকশিত হয়ে উঠবে।
আমি ট্রেনের কামড়ার মধ্যেই একটু দূর থেকে ওকে দেখছিলাম। মনে হল ওর স্তনদুটি হাতের মুঠোয় আবদ্ধ করে রাখার জন্য যথেষ্ট। আমি যদি মাংসের বল দুটি হাতে নিয়ে একটু নিষ্পেষন শুরু করি, সহজে ছিটকে বেরিয়ে যাবে না, হাতের মুঠো থেকে।
পাতলা রোগাটে মুখখানি, আপাতদৃষ্টিতে নিষ্পাপ। কিন্তু এ মেয়ের দেহের সঙ্গে একমাত্র ইলেকট্রিক কারেন্টেরই তুলনা করা যায়। কারেন্ট যেমন একবার শরীরে ধরলে ছাড়ে না। আমার মনে হল, এই মেয়ের সঙ্গে যদি যৌন সংসর্গ করা যায়, যদি একবার ওর সঙ্গে মিলিত হতে পারা যায়, তাহলে এও আমাকে ছাড়বে না। আমার জীবনের অন্ধকার ঘুচিয়ে ও আমাকে আলোর জগতে টেনে নিয়ে যাবে, যেখানে আছে অপার সুখ ও নিরবিচ্ছিন্ন শান্তি।
আমি প্রলুব্ধ হচ্ছি, রতিক্রিয়ায় লিপ্ত হতে। প্রতিদিন সকালে সৌন্দর্যের সঙ্গে স্পর্ষের রহস্যটা ওকে পাওয়ার জন্য আমাকে এক উদগ্র কামনায় জর্জরিত করে তুলছে। আমার জীবনের প্রধান লক্ষ্য হয়েই দাঁড়িয়েছে এখন ওকে জয় করার হাতছানি।
আমি এরপরে প্রতিদিনই তাড়াতাড়ি ঘুম থেকে উঠতে শুরু করলাম। সময়মত স্নান সেরে পছন্দের পোষাক পরে নিতাম। মেয়েটির কাছে নিজেকে আকর্ষনীয় করে তোলবার জন্য সর্বতো ভাবে চেষ্টা করতে লাগলাম।
।। দুই ।।
গ্রীষ্মকালে আবহাওয়া যতই গরম হচ্ছে, মেয়েটির পোশাকও তত হালকা হচ্ছে। ভীড়ে ঠাসা গাড়ীর মধ্যে আমি মেয়েটির খুব কাছাকাছি দাঁড়ানোর চেষ্টা করতে লাগলাম। দূরত্বের ব্যবধান ক্রমশই কমছে। একদিন ট্রেন একটু ফাঁকা পেয়ে ওর পাশে বসে আমি ওর শরীর স্পর্শ করে বসলাম।
ওর দেহের স্পর্ষে এক অদ্ভূত রোমাঞ্চ লাগল দেহমনে। ওর শরীর থেকে এক অদ্ভূত সুগন্ধীর সুবাস অনুভব করছি। মনে হল এই শরীর দিয়েই তো শরীরের স্বাদ গ্রহন করতে হয়। নারী ও পুরুষের উভয়ের শরীরের ঘর্ষন হলেই তো রক্তে চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়, উত্তেজনা জাগে। রক্ত যদি গরমই না হয় তাহলে কি আর মিলনে প্রবৃত্ত হওয়ার ইচ্ছা জাগে? আমার মনে হল ওকে সপাটে জাপটে ধরি। ওর গালে আমার উষ্ণ ঠোঁটটা ঠেকাই। জামার ওপর থেকেই বুকে আর তলপেটে নির্ভয়ে হাত বোলাই। ওর সারা শরীরের তাপটা আমি নিজের শরীরে নিই। একটু বেশ জোড়ে জোড়েই ওর বুকে হাত বোলাই, যদি ও আপত্তি না করে তাহলে আর একটু বেশী সাহস নিয়ে। আমার হাতের পাঁচটা আঙুল সিক্ত হবে। এই আঙুলগুলো দিয়ে আমি মেয়েটির বুকের ওপর থেকে শুরু করে নিচে নাভিদেশ পেরিয়ে আরো নিচে নামাতে নামাতে ওর দুই উরুর সন্ধিস্থলে হাত রাখবো। ভাবছি, তাই করব কিনা-হঠাৎই মেয়েটা কেমন রেগেমেগেই আমাকে বলল, এই যে মিষ্টার, এটা ট্রেন। এটা তোমার বেডরুম নয়।
মনে হল, ইস, কি ভুলটাই করে ফেলেছি, প্রথমেই অন্তরঙ্গ হওয়ার চেষ্টা করছি, অথচ ওর নামটাতো আমার আগে জিজ্ঞেস করা উচিত ছিল। চোখে মুখের ভাব দেখেই বুঝলাম, একটু অস্বস্তি বোধ করছে। সাধারনত মেয়েদের আলগা আলগা ভাব, হাসিখুশি স্বভাব দেখলে বোঝা যায় পুরুষকে তারা আরো কাছে ঘেঁসতে দিতে চায় কিনা। ভাবলাম, এত সুন্দর যার চোখ, কপালে, গালে, ঘাড়ে আর বুকে লেগে থাকা পাউডারের প্রলেপ, ভরাট বুকের ওপর ঝুলে থাকা সরু সোনার চেনের লকেটটা আমার সু্প্ত যৌনচেতনাকে জাগিয়ে তুলছে, ওর হাঁটুতে আমার হাঁটু ঘষে যাচ্ছে, কিন্তু ব্যাস ঐ পর্যন্তই, এর বেশী না পারছি ওর হাঁটুর ওপরে উঠে যেতে, না পারছি না পারছি নাভিদেশের নিচে নেমে যেতে। কামনা বাসনা, সব ইচ্ছের দৌড়গুলো যেন সব তলানিতে এসে ঠেকেছে।
জমিয়ে যে ওর সঙ্গে কথা বলব, তাও পারছি না। আমরা দুজনেই দুজনকে কতবার দেখেছি, অথচ আমি যেন ওর কাছে এক আগুন্তক। কামনা আর বন্য উত্তেজনায় এদিকে আমার পাগল হয়ে যাবার মত অবস্থা।
মেয়েটি যদি লাজুক হয়, তাহলে প্রস্তাব আমাকেই দিতে হবে। দ্বিধা না রেখে মনের কথা বলতে হবে। কিন্তু মেয়েটির ইচ্ছার গতিপ্রকৃতি যদি ভাসা ভাসা হয়, গভীরতা যদি না থাকে, তাহলে এর কাছে প্রস্তাব রাখা কঠিন। তখন ধীরে চলার নীতিই অনুসরণ করতে হবে। এতে যদি সাফল্য আসে ভাল, নইলে মেয়েটি আমার কাছে অধরাই থেকে যাবে। এমন মেয়ের সঙ্গে দেহ সংযোগ ঘটাতে না পারলে দূঃখতো একটু হবেই। কিন্তু এর সাথে এটাও আমাকে মেনে নিতে হবে, সব মেয়েরাই তো এমন খোলামেলা হয় না। যারা আবার একটু বেশী গায়ে পড়ে আগলে পড়ে, তাদেরকে আবার দেহের পূজারিণী বলা হয় না, তাদেরকে দেহের পশারিণী বলে।
আমি একটু কাপুরুষ আর বিজ্ঞতার লক্ষণ দেখিয়ে ওর থেকে একটু দূরে সরে গেলাম। ধর্মতলা স্টেশন আসার আগেই মেয়েটা গাড়ী থেকে নেমে গেল। কিন্তু যাবার আগে আমার দিকে তাকিয়ে আবার একটু ফিক করে হেসেও গেল। আমি আরো চিন্তায় পড়ে গেলাম।
পরের দিন মনটা শক্ত করলাম। স্টেশনে হাজির হলাম। ঠিক করেই এসেছিলাম, নিজে থেকে মেয়েটির দৃষ্টি আকর্ষণ করতে যাব না। মেয়েটি যদি নিজে থেকে কথা বলে, তাহলেই বলব, নচেৎ নয়। আমি ওর পিছু পিছুই ট্রেনে উঠলাম। যে কম্পার্টমেন্টে ও উঠেছিল, ভীড়ের মধ্যে দিয়ে গা বাঁচিয়ে অনায়াসেই ওর পাশ দিয়ে চলে গেলাম গট্ গট্ করে। ও আমার দিকে তাকালো, কিন্তু আমি ওর দিকে তাকালাম না মোটেই।
ট্রেনটি খুব জোরে চলছিল। আমি ওর একটু দূরেই দাঁড়িয়েছিলাম। প্রচন্ড একটা ঝাঁকুনি দিয়ে ট্রেনটি হঠাৎ মাঝপথে দাঁড়িয়ে পড়ল। প্রবল ঝাঁকুনিতে যাত্রীরা সব এ ওর গায়ে ঢলে পড়লো। পাল্লা দিয়ে মেয়েটিও আছড়ে পড়ল। একেবারে কাত হয়ে আছড়ে পড়ল আমারই বুকের ওপরে।
আমার শরীরের ওপর দিয়ে যেন হাই ভোল্টের বিদ্যুত প্রবাহিত হয়ে গেল। ওর স্তনের স্পর্শ তখন আমার বুকে। ওকে ধরে রয়েছি, মুখোমুখি দাঁড়িয়ে একে অপরের স্পর্শসুখ অনুভব করছি। লিঙ্গটা শানিত হতে শুরু করেছে প্যান্টের ভেতরে। ও উঠে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছিল, নিতম্বের ওপর দুহাত রেখে পরিমাপ করতে গিয়ে বুঝলাম, মেয়েটির নিতম্ব বেশ সুগৌল।
আমার মুখের দিকে তাকিয়ে ও হাসছিল। বুঝলাম, আমি বোধহয় এখন ওর অনেক কাছের মানুষ হয়ে গেছি।
ট্রেনটি শুধুই দাঁড়িয়ে পড়েছিল না। এবার কামরার আলোগুলোও আসতে আসতে নিভে গেল। লাউড স্পীকারে ঘোষনা করা হল, যাত্রীরা সবাই নির্ভয়ে থাকুন। যান্ত্রিক গোলযোগের দরুন ট্রেনটি মাঝপথে দাঁড়িয়ে পড়েছে। কিন্তু একটু পরেই এটি আবার রওনা দেবে।
আমি বহুদিন রক্তের স্বাদ পাইনি। সেই কলেজের পর থেকে কোন মেয়ের দেহ স্পর্ষ করিনি। কিন্তু মেয়েটি আমার বুকের ওপর আছড়ে পড়তেই আমার ভেতরে দুষ্টুমিটা আবার জেগে উঠেছে। বাতিগুলো নিভিয়ে দিয়ে যেন আমাদের আরো ঘনিষ্ট হওয়ার সুযোগ করে দিয়েছে ট্রেনটা। ওর শরীরটা আমার গায়ের সাথে তখনও লেপ্টে ছিল। নিটোল গোল গোল বুক দুটো ছোঁয়া দিয়ে আমাকে ভীষন চঞ্চল করে তুলছে। আমি ওকে জড়ানো অবস্থাতেই আরো টেনে আনার চেষ্টা করছিলাম। পাখীর মতন নরম স্তনজোড়া যদি আমার বসিষ্ট বুকের চাপে নিষ্পেষিত করতে পারি।
এই অন্ধকারেই যদি হাত ঢুকিয়ে দিতে পারি ওর জামার খাঁজের মধ্যে। তারপর মেয়েটির কানের কাছে মুখ নামিয়ে গিয়ে বলব, “প্রিয়তমা, আমি যে তোমায় ভালবাসি। প্লীজ যদি এই সুযোগে তুমি একটু আমাকে আদর করতে দাও।”
মেয়েটির মুখের মধ্যে কোন ভাবাবেগ বা চঞ্চলতা নেই। অন্ধকারে ওর ঠোঁটে জিভ ঠেকিয়ে একটু মিষ্টি স্বাদটা নিতে ইচ্ছে করছিল। আমি ওর দুই মাংসল উরুর ওপরে হাত রাখতেই মেয়েটি আমার হাতটা চেপে ধরলো। আমাকে বলল, “এই….. এখন নয়…..”
আমাকে ও অস্ফুট গলায় করুন স্বরে মিনতি করতে লাগল। আমার কানের দুপাশটা তখন ঝাঁ ঝাঁ করছে। ওর ঠোঁটে একটা চুমু খাবোই। শরীর দিয়ে আগুনের হলকা বইছে। ওর মুখটা আমার মুখের কাছে চলে এসেছে, ট্রেনের মধ্যে আমি শিহরণ অনুভব করছি। লিঙ্গটা এমনই শক্ত হয়ে উঠেছে যেন আমার ট্রাউজারের জীপার ফেটে যেতে পারে যে কোন মূহূর্তে। আমি চুমুটা খেতেই যাচ্ছিলাম আর সেই মূহূর্তে কামড়ার আলোগুলো আবার জ্বলে উঠলো। কেঁচোয় নুন পড়ার মত গুটিয়ে গেল আমার উত্তেজিত লিঙ্গটা। আমরা দুজনে পরষ্পরের থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে গেলাম। সহযাত্রীরা কেউ বুঝতে পারলো না। বুঝতে পারলে ওদের ট্রেনযাত্রা অনেক সুখপ্রদ হত, একটা স্বল্পদীর্ঘের ব্লু ফিল্ম দেখার দৌলতে।
ট্রেনের মধ্যে বাকী সময়টুকু আমি আর ওর শরীর স্পর্ষ করতে পারলাম না। ধর্মতলার আগের স্টেশনটাতেই ও আবার নেমে গেল। আমিও ট্রেন থেকে নেমে অফিসে প্রবেশ করলাম।
মেয়েটির সাথে আমার বুকে বুক ঠেকে যাওয়া, ওর নিতম্বে হাত রাখা, ট্রেনের মধ্যে অন্তরঙ্গের দৃশ্যগুলো মনে পড়ে যাচ্ছিল। অফিস ঘরের মধ্যে নিজেই নিজের লিঙ্গটাকে হাতের মুঠোর মধ্যে প্রবল ভাবে চেপে ধরেছি। দৃশ্যগুলো চিন্তা করতে করতে হস্তমৈথুন করতে ইচ্ছে করছে। চেয়ারে বসে হেলান দিয়ে লিঙ্গটাকে নিয়ে নড়াচড়া করতে করতেই বীর্যস্খলন করে বসলাম। অসংযত ফ্যান্টাসী পূরণের এর থেকে ভাল সুখ আর কি হতে পারে? মেয়েটির ঐ শরীরটাই যেন ইন্ধন যোগানোর পক্ষে যথেষ্ট।
মনে হল ওর যোনীটা নিশ্চই তাপ উৎপাদন কারী কোন ফানেলের মতো। জঙ্ঘা দিয়ে ও যদি আমার জঙ্ঘাটা চেপে ধরে রাখে, তাহলে নিশ্চই আমার সারা দেহ পুরে ছাই হয়ে যাবে। সত্যিকারের মিলন যখন হবে, তখন শয্যাসঙ্গী হিসেবে আমার অবস্থা হবে সঙ্গীন। আমার উদ্যম হয়তো শেষ হয়ে যাবে, কিন্তু ওর হবে না। দেহের ক্ষুধা যাদের একবারে মেটে না, একের অধিকবার যৌনসঙ্গম করে যে পুরুষ সেই ক্ষুধা মেটাতে সক্ষম হবে, তারমত সুখী পুরুষ এই পৃথিবীতে আর কেউ নেই।
আমার মনে হল জীবনে এমন পার্টনার পেলেই তো ভাল। মেয়েটির সঙ্গে আমার জমবে ভাল। অফিসে বাকীসময়টুকু আমার কাটতেই চাইছিল না। আবার ঠিক ওর সাথে দেখা হবে, এই ভেবে মিটি মিটি হাসতে লাগলাম।
আজ তুমি আমার অনেক কাছে এসেও দূরে চলে গেলে, কিন্তু কিছু তো বলে গেলে না! তোমার না বলার কথার অর্থ আমি জেনে গেছি। শরীরটার সঙ্গে শরীরটার যতটুকু মিলিত হতে দিয়েছ, সেটুকু থেকেই আমার উপলব্ধি অনেক, অনেক বেশী। ঐটুকু সময়েই আমি বুঝেছি, তোমার শরীরটা আগুনের মত জীবন্ত! মসৃণ ভেলভেটের মত নরম! চুম্বকের মত আকর্ষক।
পরদিন শনিবার। দুদিন কাজের বিরতি। আমি এতোটাই উত্তেজিত, বুঝতে পারছিলাম, কিছুতেই একা একা উইকএন্ডের ছুটীটা আমি কাটাতে পারব না।
কেন জানিনা আমার শুধু মনে হচ্ছিল, আমি বোধহয় নির্বুদ্ধিতার পরিচয় দিয়েছি। মেয়েটির গা ঘেষে বসেছিলাম, ওর বুকের সাথে আমার বুকটা ঠেকে গেল, আগের থেকে মেয়েটিরও ভোল পাল্টে গেল। এতটাই ওর চুম্বক আকর্ষণ, আমি বশীভূত হয়ে পড়েছি, অথচ দেহমনের চাপটাকে সহজ করার জন্য আমি ওর কাছে আসল কথাটাই এখনও বলতে পারলাম না।
ট্রেনের আলোটা হঠাৎই নিভে যাওয়াতে, আমি পূর্ণ সুযোগের সদ্ব্যবহার করতে চেয়েছিলাম, কিন্তু ঐ ছোট্ট চৌহদ্দির ভেতরে কি সেটা সম্ভব হত? একে পাবলিক প্লেস, চলন্ত ট্রেন আমার নিভৃত শয়ণকক্ষ নয়। আমি যা খুশি তাই করব, আর পার পেয়ে যাব।
আমি ওকে সত্যি ভালবেসে ফেলেছি। বুকের মধ্যে তীব্র ভালবাসার বিচিত্র অনুভূতি কুরে কুরে খাচ্ছে আমাকে। ওর রূপ রস আর রঙ যেন গলে গলে পড়ছে আমার চোখের সামনে। ইচ্ছেটা আমার রক্তকে ভয়ঙ্কর গরম করে তুলেছে, অথচ আমি ওর সঙ্গে যৌন সংসর্গে কিছুতেই লিপ্ত হতে পারছি না।
ঠিক করলাম, উইক এন্ডের পরে ওকে যদি আবার পাই, ট্রেনের মধ্যেই এবার আমি একটা কান্ড ঘটিয়ে ছাড়ব। এবার আর অপেক্ষা করা যাচ্ছে না।
।। তিন ।।
দুদিন আমাকে ওর সাথে দেখা না হওয়া পর্যন্ত আবার অপেক্ষা করতে হবে। কোনরকমে উইক এন্ডটা কাটিয়ে আমি সোমবারে আবার মেট্রো স্টেশনে পৌঁছে গেলাম। দেখলাম ও এসেছে, আর পরণে জামাটা আজ খুবই পাতলা পড়েছে। এতটাই স্বচ্ছ যে নিচে মেয়েটির সাদা চামড়াগুলো বেশ স্পষ্ট হয়ে উঠছিল। ব্রা-বিহীন বুক, আমি যেন সুন্দর সপ্রাণতা আজ অনুভব করছি। বুক থেকে চোখ নামিয়ে ওর ফর্সা পা দুটোর জৌলুস এবার দেখতে লাগলাম। পায়ে নীল রঙের হাই হীল জুতো। আজ ওর কাঁধ ছুই ছুই হেয়ার কাট। চোখে নতুন কাজল। যেন আইভুরু পেন্সিল বুলিয়েছে একটু আগে। ফর্সা মুখটায় যেন কেউ গোলাপী আবির ছড়িয়ে দিয়েছে।
খুব ইচ্ছে করছিল, কাছে গিয়ে ওকে বুকের মধ্যে সজোরে টেনে নিয়ে, কপালে গালে তারপর ঠোঁটে চুমুর বন্যা বইয়ে দিই। তারপরে আবারো ভাবলাম, সেই তো পাবলিক প্লেস। সহযাত্রীরা দেখলে কি ভাববে, মেয়েটিও চটে যেতে পারে। আমি নিজেই নিজেকে ব্যাচারা বললাম, দেহের ক্ষুধা, সাধ সবই জেগে উঠেছে, অথচ ক্ষুধা নিবৃত্তির পথটাই যেন আমি খুঁজে পাচ্ছি না।
মেয়েটি ট্রেনে উঠল, আমিও ওর পিছু পিছু উঠলাম। এক কামার্ত প্রেমিকের মত আজ ওকে অনুসরণ করছি। আমাকে পেছন পেছন উঠতে দেখে ও একটু তাকিয়ে হাসলো। যেন আমি একটি মাছ, জলের মধ্যে আমাকে খেলিয়ে খেলিয়ে বঁড়শিতে গেঁথে ডাঙায় তুলতে চাইছে। এত সুন্দরী নারী, নিজের আকর্ষনীয় চেহারা দিয়ে আমার কৌমার্য হরণ করে নিয়েছে পুরোপুরি।
আমি কামড়ার মধ্যে ওর পাশে বসার ছুঁতো খুঁজছিলাম। ট্রেনটা চলতে শুরু করেছে, দেখলাম অন্যদিনের তুলনায় আজ অফিস যাত্রী খুব কম। প্রতিদিনের গাদাগাদি ভীড় আজ একেবারেই নেই। যেন একটা স্বস্তি পেলাম, তাহলে ওর পাশে বসে, আরামে ওকে পুরো রাস্তাটাই আদর করতে করতে যেতে পারবো। সাতসকালের চনমনে শরীর মন যেন আমার সব বেকার হয়ে গেল, ও ফাঁকা সীটে বসেছে, অথচ ওর পাশে বসতে গিয়ে আমি বাঁধা পেলাম। একজন বয়স্ক লোক, আমাদের মাঝখানে প্রাচীর তুলে দিয়ে সীটের ওপরে বসে পড়লেন। সুবর্ণ সুযোগে আবারো একটা বাধাপ্রাপ্তি ঘটল। দেখলাম, ও বেশ মজা পেয়েছে। ফিক ফিক করে হাসছে, আমার দিকে তাকিয়ে। সান্নিধ্য পাওয়া থেকে আমাকে বঞ্চিত করেছে লোকটা, ওর ঠোঁট টেপা হাসিটা যেন থামতেই চাইছিল না।
ভদ্রলোক শুধু আসন গ্রহণ করলেন না, আগ বাড়িয়ে, গায়ে পড়ে জমিয়ে গল্প করতে শুরু করলেন আমার সঙ্গে। আমাকে বললেন, “অফিসে যাচ্ছেন বুঝি?”
আমি শুধু ঘাড় নাড়লাম।
উনি আমাকে ওনার জীবনের কাহিনী শোনাতে শুরু করলেন। গড়গড় করে কত কথাই বলে গেলেন, কোনটাই আমার কানে ঢুকলো না, শুধু বুঝলাম, একবার যদি উনি আসনটা ছেড়ে উঠে যান, তাহলে এই সীটটা অন্য কাউকে দখল করতে আর আমি কিছুতেই দেব না।
ট্রেনটা আসতে আসতে চলছে, ভ্রাম্যমাণ নিষিদ্ধ প্রেমে লিপ্ত হওয়ার সুযোগটাকে আমি কিছুতেই কাজে লাগাতে পারছি না। এরপরে হঠাৎই গন্তব্যস্থল এসে যাবে, আমার আজকেও তেমন কিছু আর করা হবে না। পনেরো মিনিটের যাত্রাপথে চরম সুখপ্রাপ্তির লক্ষে কখনও পৌঁছোনো সম্ভব নয়। তবুও আমি আশা নিয়ে বসে আছি, কারন উনি আমাকে বলেছেন, তিনটে স্টেশন পরেই উনি নেমে যাবেন।
ভদ্রলোক বললেন, “আজ ট্রেনে লোক নেই, সব কামরাগুলো ফাঁকা ফাঁকা। জানেন তো কেন?”
আমি বললাম, “জানি না আমি, কেন?”
উনি মুচকী হেসে বললেন, “আগামীকাল বেরোবে, ইলেকশনের রেজাল্ট। কি হবে তার ফলাফল?”
লোকে টেনশন নিয়ে ঘর থেকে বেরোবে না, এই দুটো দিন। বেশীর ভাগ লোকই ঘর থেকে বেরোয়নি আজকে। এরই জন্য তো ট্রেন আজ ফাঁকা ফাঁকা।
মনে যেন আশার আলো জ্বলে উঠল। আজ তাহলে দুজনের এই সম্পর্কটা একবার যাচাই করে নেওয়া দরকার। দৃঢ়তার সঙ্গে ওর হাতটা হাতে নিয়ে বলব, “মিস, তুমি কি আমাকে পছন্দ করো? আমি তোমার সন্মতির অপেক্ষায়। এই ভ্রাম্যমান ট্রেনে রোজই অফিস যাত্রা করতে করতে আমি তোমাকে একটু একটু করে ভালবেসে ফেলেছি। আজ তুমি আমার ভালবাসাকে তাই ঠুকরে ফেলে দিও না।”
আমার অপেক্ষার অবসান ঘটল, লোকটি যখন তিনটে স্টেশন পরে নেমে গেল, আমার মুখে তখন আনন্দের হাসি ফুটে উঠল।
এদিক ওদিক তাকিয়ে দেখলাম, পুরো কামরাটাই ফাঁকা হয়ে গেছে। যেকটা লোক বসেছিল, নেমে গেছে আগের স্টেশনটাতে। শুধু আমি আর ও। আমাদের দৈহিক ব্যবধান এবার অনেকটা কমে এসেছে। চোখের আকুতি দৃষ্টি নিয়ে ও আমাকে দেখছে, আমি আনন্দে বিহ্বল। যেন কোন এক স্বপ্নের নারীকে দেখছি, খুব কাছ থেকে। আমার মনের কথাটা ওকে বলতে চাইছি। ওর চোখের ভাষাতে বুঝতে পারছি, যে সুযোগ আমি জীবনে কখনও পাইনি, সেই সুযোগই এবার পেতে চলেছি মনে হয়।
আমি হাবভাবে ওকে বোঝাতে চাইছিলাম, ওর সুন্দর গায়ের রঙ দেখে আমি ওর প্রতি লুব্ধ নই, আমি মুগ্ধ। আমার মনে কোন খারাপ মতলব নেই। সেদিন অজান্তেই ওর গায়ে গা’টা ঠেকে গিয়েছিল। আমি কোন অসৎ উদ্দেশ্য নিয়ে ওর শরীর স্পর্শ করিনি।
আমাকে তুমি বলে সন্মোধন করে মেয়েটা বলল, “বা রে, শুধু দেখেই যাবে আমাকে? মুখে কিছু বলবে না? ভালবাসার শুরুতে কিছু তো অন্তত বলতে হয়।”
জীবনে এমন সোহাগ মিশিয়ে ভালবাসার কথা আমাকে কোন মেয়ে বলেনি। প্রত্যুত্তরে আমি কি বলব, ভেবে পাচ্ছিলাম না। ও আমাকে বলল, “ট্রেন তো এরপরে স্টপেজে এসে যাবে। আমি নেমে গেলে তারপর কি বলবে তোমার মনের কথা?”
আড়ষ্টতা কাটিয়ে আমি যেন মনের জোড়টা দারুন ভাবে ফিরে পেলাম। দৃঢ়তার সঙ্গে ওর হাতের ওপরে আমার হাতের স্পর্শ দিলাম। সিটের ওপরে ইঞ্চি দুয়েক এগিয়ে গেলাম মনের কথাটা বলার জন্য। আমার কথাটা বলার আগেও ও আমাকে বলল, “তোমাকে আমার ভাল লেগে গেছে।”
ও চোখের দৃষ্টিতে আমি যেন একটা অনুমোদন পেলাম। মনে হলো এই ফাঁকা কামরাতে ওকে যদি একটু জড়িয়ে ধরে চুমু খেয়ে বসি, ও নিশ্চই প্রতিবাদ করবে না আমাকে।
চোখের দিকে তাকিয়ে ও আমাকে বলল, “চুমুটা খাও, কেউ তো নেই। কেউ দেখতে পারবে না তোমাকে আর আমাকে।”
এত সহজে ওকে চুমু দেবার অনুমতি পেয়ে যাব, ভাবতে পারিনি। মনকাড়া ওর চাহনির মধ্যে অনুরাগের ছোঁয়া। জীবনে এমন অভূতপূর্ব মূহূর্ত কোনদিন আসেনি। এতদিন যা চেয়েছি, আশা করেছি, তারই পূর্ণতা লাভ করল ওর সন্মতির মাধ্যমে। আমি ওর ঠোঁটে প্রথমে আলতো করে ঠোঁটের স্পর্শ দিয়ে তারপরে প্রবল ভাবে চুমু খাওয়ার জন্য অস্থির হয়ে পড়লাম।
ওর উষ্ণ ওষ্ঠদ্বয় আমার ওষ্ঠদ্বয়ের ওপর চেপে ধরে মেয়েটিও আমাকে চুম্বনের তৃপ্তি দিতে লাগল। আমাকে ঘনঘন চুমু খেতে দিয়ে ও যেন আমাকে পাগল করে তুললো। সীটের ওপরে ওকে জড়িয়ে ধরে নিজেকে রীতিমত সক্রিয় করে তুলেছি, তীব্র চুম্বনে ঠোঁটের সুধা পান করতে করতে আমি এবার যৌন আবেগে অস্ফুটে কঁকিয়ে উঠলাম। – “ভালবাসি, আমি তোমাকে ভীষন ভাবে ভালবাসি”, এইটুকু বলে, বারে বারে চুম্বিত হতে লাগলাম।
ট্রেন চলছে দ্রুত গতিতে। কেউ আমাদের দেখতে পাচ্ছে না। তালে তাল রেখে দুজনে এক ভ্রাম্যমান অভিসারে গা ভাসাতে চলেছি। শৃঙ্গারে আমি যেন প্রবল সহযোগীতা পাচ্ছি ওর কাছ থেকে। চুম্বনের ধারাটা অব্যাহত রেখে আমি এবার ওর বুক হাত দিয়ে স্পর্ষ করে বসলাম। স্তনের ওপরে আমার পাঁচ আঙুল স্থাপন। তবুও ওর কোন আপত্তি নেই। আমি ধীরে ধীরে আঙুলের চাপটা আরো বাড়াতে লাগলাম। মনে হল যৌনকাঙ্খা চরিতার্থ করার জন্য আমি যেন আরো কয়েক ধাপ এগিয়ে যেতে পারি। ও ট্রেনের মধ্যেই জামার বোতামটা নিজ হাতে খুলে দিল। প্রশস্ত বুকের ওপর চেপে ধরা হাতটাকে ও এবার ভেতরে প্রবেশ করাতে বলল। হাতের মুঠোয় স্তনদুটো নিয়ে খেলার জন্য প্রতিশ্রুতি পেলাম। ও আমাকে নিষ্পেষনের মাধ্যমে প্রবল সুখ দিতে লাগল।
ট্রেনের মধ্যে যৌনচেতনাকে জাগিয়ে দিয়ে আমি যে প্রবল রতি কার্যকলাপে রত হয়ে পড়েছি, এতে আমার কোন ভ্রুক্ষেপ নেই। ওর স্তনকে দলাই মালাই করতে করতে আমার পৌরুষ জাগছে। এক প্রবল উত্তেজিত পুরুষ আমি। নিজের দেহকে প্রসারিত করে ও আরো ঝুঁকে পড়েছে আমার দিকে। যেন দেহটাকে আমার খুশি মতো ব্যবহার করার অনুমতি দিচ্ছে। উত্থিত লিঙ্গের ফলাটা প্যান্টের ভেতর থেকে মেয়েটির দুটি পায়ের সন্ধিস্থলে খোঁচা দিতে শুরু করেছে। কামনায় জর্জরিত হয়ে পাগলের মতো ওকে বললাম, “এই আমি পারছি না নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করতে। তোমার শরীরে কি উত্তাপ, এত ভালবাসা আমি যে পাইনি সোনা। তুমি, তুমি, ওহ্……”
দুহাত দিয়ে মেয়েটা আমার গলা জড়িয়ে ধরেছে। সীটের ওপরে ওকে পুরো ঠেসে দিয়ে ওর কোমর জড়িয়ে ধরে ট্রাউজারের ওপর থেকেই চাপ দিলাম ওর তলপেটে। দুটি মন দুটি দেহ সংযুক্ত হয়ে যাচ্ছে আসতে আসতে। আলিঙ্গনে আবদ্ধ হয়েই ওর বুকে মুখ রেখে বসলাম। ঠোঁট দুটো দিয়ে জামার ওপরে মুখ ঘসাঘসি করছি। হাতড়ে বেড়াচ্ছি, চূড়োর জায়গাটা। যদি একবার পাই, কামড় লাগাবো স্তনের বৃন্ততে।
নাছোড়বান্দার মতো মুখ ঘষে অনুসন্ধান করছিলাম ওর বৃন্তটাকে। জামার ভেতর থেকে বুকের ঐশ্বর্য বেরিয়ে পড়েছে অনেকখানি। জোড় করে ওর সন্মতি আদায় করে ওর বৃন্ত মুখে পুরে এবার আমি চুষতে শুরু করলাম। ঘনিষ্ট আবেষ্টনীর মধ্যেই চলন্ত ট্রেনে ওর বুক চুষছি। ও আমাকে বিচ্ছিন্ন করতে পারছে না। সীটের ওপরে ধনুকের মতো দেহটা বেঁকিয়ে দিয়ে ও আমাকে ক্রমাগত লেহন করাচ্ছে বৃন্তটাকে। কখনও বাম দিক, কখনও ডান দিক। দুটো স্তনই মুখে পুরে চোষনের আনন্দ উপভোগ করতে লাগলাম। পাতাল রেলের যাত্রাপথে ও যেন আমার সুখপ্রাপ্তিকে আরো ভরিয়ে তুলতে লাগল উজাড় করে।
।। চার ।।
ট্রেন চলে এসেছে, ধর্মতলায়। দুএকটা লোক উঠতে শুরু করেছে কামড়ার মধ্যে। ও আমাকে ঠেলা দিয়ে বলল, “এই, ছাড়ো ছাড়ো, এক্ষুনি লোকে দেখলে যা তা বলবে আমাদের।”
আমি তাড়াতাড়ি ওকে ঘনিষ্ট আলিঙ্গন থেকে বিচ্ছিন্ন করে দিলাম। দুজনে হাত ধরাধরি করে আমরা পরের স্টেশনে নেমে গেলাম। আনন্দে বিহ্বল হয়ে ওকে জড়িয়ে ধরছি বারবার।
এস্কেলেটরে উঠতে উঠতে ওকে বললাম, “আজ আমি অফিস যাব না। চলো না দুজনে মিলে একটু ঘোরাঘুরি করি সেই সন্ধে পর্যন্ত। তোমাকে আজ আমার জন্য পেয়েছি, ভাল লাগবে তোমার সাথে আরো কিছু সময় কাটাতে।”
মেয়েটি আমার দিকে তাকিয়ে হাসছিল, ওকে বললাম, তোমার নামটা কি বললে না? হাতটা ধরে ও আমাকে টেনে নিয়ে গেল থামের আড়ালেতে। চিবুকে ঠোঁটের স্পর্শ দিয়ে বলল, “নাম বুঝি সব কিছু করার পরে জানতে ইচ্ছে করে? ট্রেনের মধ্যে আমাকে জড়িয়ে ধরেছিলে, তখন কেন করলে না?”
আমি একটু লজ্জা পাচ্ছিলাম। বললাম, “বহু আকাঙ্খিত, বহু কামনার সঙ্গিনীকে পেয়েছিতো এতোদিন পর। তাই একটু উত্তপ্ত হয়ে পড়েছিলাম। আমাকে তুমি ক্ষমা করে দাও প্লীজ”
যা ছিল এতদিনের স্বপ্ন, তাই আজ বাস্তব রূপ ধারণ করেছে। ও বলল, “যাও, তোমাকে দিলাম করে ক্ষমা। এবার কোথায় আমাকে নিয়ে যাবে বলো?”
ওকে বললাম, “চলো আমরা কোথাও যাই নিরিবিলিতে। যেখানে তুমি আর আমি, নিশ্চিন্তে নিজেদের মনের কথাগুলো ভাগাভাগি করে নিতে পারব।”
জীবনে যেন এক শ্রেষ্ঠ নারীকে পেয়েছি, উচ্ছ্বাসে মাতোয়ারা আমি, ওর গাল দুটো এক হাতে টিপে দিয়ে বললাম, “আমার নাম হল দেব, এবার তোমার নামটা কি, বলো তো সুন্দরী?”
ও বলল, “তোমার নাম যদি দেব হয়, তাহলে আমি হলাম তোমারই প্রেয়সী, এই দেবের দেবিকা।”
আমি অবাক হলাম, বললাম, “সত্যি বলছ?”
ও বলল, “সত্যিই তো বলছি, দেবিকা হল আমার নাম।”
আমি বললাম, “স্বর্গের কোন এক দেবিকার নাম শুনেছি, তুমি কি তাহলে মর্ত্যের?”
ও হেসে বলল, “ধরে নাও আমি তাই, আমি হলাম মর্ত্যের দেবিকা।”
ভেবেছিলাম জীবনে বুঝি প্রেম নেই আর আমার আর এখন প্রেমের শ্রোতে ভাসতে ইচ্ছে করছে। স্টেশন থেকে সাবওয়ে দিয়ে মাটির ওপরে উঠে দুজনে রাস্তা দিয়ে হাঁটতে লাগলাম। পথচারীরা সব আমাদের দুজনকে দেখছে। বেশি দেখছে দেবিকাকে। অপরূপা সুন্দরী ও। রাস্তায় অগুন্তি পুরুষমানুষ, ভালো লাগার চোখে ওকে দেখতেই পারে।
আমরা দুজনে একটা রেস্টুরেন্টের সামনে গিয়ে দাঁড়ালাম। দেবিকাকে বললাম, “কি খাবে? চলো একটু চা কিংবা কফি, সাথে কিছু স্ন্যাক্স হয়ে যাক।”
দেবিকা বলল, “আমি তো খেয়েই বেরিয়েছি। শুধু শুধু পয়সা খরচা করবে আমার জন্য? কি হবে? চলো আমরা বরং অন্য কোথাও……”
দেবিকাকে বললাম, “চা কফি আর এমন কি? খেয়ে তো আমিও বেরিয়েছি। দুজনে একটু গল্প করব, মনের কথা বলব। নিখরচায় ভেতরে বসে তো আমাদের এমনি এমনি গল্প করতে দেবে না। তাই একটু……”
দেবিকা বলল, “গল্প করার কি আর কোন জায়গা নেই? চলো না আমার বাড়ীতে।”
– “বাড়ী?” আমি বেশ অবাক হলাম। “ধর্মতলায় তোমার বাড়ী? তাহলে তুমি যে দেখি রোজ টালীগঞ্জ থেকে এখানে আসো। আমি ভেবেছি তুমি বুঝি চাকরি করো এখানে রোজ রোজ এসে।”
দেবিকা বলল, “চাকরি তো করতাম। কিন্তু নিজের ভুলে যে চাকরিটাকে খোয়ালাম। এখন আর কে দেবে আমাকে চাকরি? সব শেষ।”
বেশ অবাক হলাম দেবিকার কথা শুনে। ওকে বললাম, “কেন? একথা বলছ কেন? একটা চাকরি নেই বলে কি আর চাকরি জুটবে না তোমার? কে বলেছে?”
আমার হাতটা ধরে দেবিকা বলল, “তুমি দেবে আমাকে চাকরি? যদি তোমার কাছে আমার হারানো সুখগুলো সব ফিরে পেতাম, দূঃখ কষ্ট ভুলে গিয়ে নতুন করে বাঁচতে শিখতাম। পুরুষমানুষ ভীষন নির্দয় হয়। প্রথমে মিষ্টি মিষ্টি কথা বলে ওরা, তারপরই সব ভুলে যায়। নিজেদের আসল রূপটা প্রকাশ করে ফেলে।”
মুখটা একটু করুন মতো করে আমি বললাম, “কেন? আমিও কি সেরকম? তোমার তাই মনে হচ্ছে?”
দেবিকার দেখলাম চোখটা একটু ছল ছল করছে। রাস্তার একপাশেই ওকে ডেকে নিয়ে বললাম, “কি হয়েছে বলো তো? তোমার জীবনে কি কোন কষ্ট আছে? ব্যাথা আছে? আমাকে বলো। আমি কথা দিচ্ছি, আমার সাধ্যমত চেষ্টা করবো, তোমার সেই দূঃখ কষ্টকে চিরকালের জন্য ঘুঁচিয়ে দিতে।”
এবার একটু আলতো হাসি দিয়ে দেবিকা বলল, “চেষ্টা করো, যদি পারো। তবে আমার মনে হয় না তুমি আর পারবে সেটা।”
।। পাঁচ ।।
টালীগঞ্জ থেকে ধর্মতলা। পাতাল রেলে কুড়ি মিনিট ধরে আমরা সুখপ্রদ যাত্রা করে এসেছি। আলিঙ্গনে আবদ্ধ হয়ে দেবিকার সাথে ভালবাসার খেলা খেলছিলাম, বাকী জীবনটায় ওকে নিয়ে বাঁচবো বলে শপথ করলাম, অথচ ও কেন এমন দূঃখ ভরা কথা বলছে, বোধগম্য হল না। জীবনের কোন বেদনাদায়ক স্মৃতিকে আঁকড়ে ধরে রয়েছে দেবিকা, আমার মনে হল, আমি যদি ওর এই দূঃখ কষ্টকে ভুলিয়ে দিতে না পারি, তাহলে বোধহয়, আমি ওর প্রেমিক হবার যোগ্যই নই।
মূহূর্তে দেবিকা পরিস্থিতিটা ভাল থেকে খারাপ করে আবার নিজেই ভাল করার চেষ্টা করতে লাগল। আমাকে খোঁচা দিয়ে বলল, “যাবে নাকি আমার বাড়ীতে? কেউ নেই ওখানে। শুধু তুমি আর আমি।”
দেবিকাকে বললাম, “বাড়ীতে তুমি একা থাকো? কেউ নেই? তোমার বাবা মা? তারা নেই?”
দেবিকা বলল, “মা তো মারা গেছেন, এই দুমাস হল। বাবা অনেকদিন আগেই। তাই আমি এখন একাই থাকি, আর কেউ নেই।”
আমার হাতটা ধরে টানছিল দেবিকা, যেন আমাকে ওর বাড়ীতে নিয়ে যাবেই। পথে ঘাটে এখন কত কি হয়, নারী ফাঁসায় পুরুষকে, পুরুষ ফাসায় নারীকে। উদ্দেশ্য কখনও ভালো আবার কখনও খারাপও হতে পারে। তবু কেন জানি না আমার মনে হল, দেবিকার মত সুন্দরী মেয়ে কোন খারাপ উদ্দেশ্য নিয়ে, এভাবে আমাকে ওর বাড়ীতে টেনে নিয়ে যেতে পারে না।
একটু হেসে বলল, “কি মিষ্টার? ট্রেনে তো খুব বীরত্ব দেখাচ্ছিলে, আর এখন আমার বাড়ীতে যেতে তোমার ভয় করছে?”
আমি বললাম, “না না, ভয় কেন? তুমি যখন চাইছ, তখন তোমার বাড়ীতেই তাহলে যাওয়া যাক। আমার এতে কোন আপত্তি নেই।”
ধর্মতলা থেকে পায়ে হেঁটে পনেরো মিনিট ওর বাড়ী। জায়গাটার নাম ওয়েলিংটন। লেলিন সরণীর ওপরে কিছুদূর গিয়ে বাঁক নেওয়া ডানদিক একটা সরু গলি। গলিটার মুখে একটা ছোট্ট স্টেশনারী দোকান। কিছুদূর গিয়ে একটা মোবাইল শপ। তার পাশেই আর একটা ছোট গলি। দোতলায় ওঠার জন্য কাঠের সিঁড়ি। ওপরে উঠে চওড়া একটা ফটক। ফটকে ঝুলছে তালা। যেন অনেক পুরোন বাড়ী। দেবিকারা অনেক দিন ধরে রয়েছে এ বাড়ীতে।
কাঠের সিঁড়ি দিয়ে উঠতে উঠতে ওকে বললাম, “তাহলে টালীগঞ্জে রোজ রোজ তুমি কি কারনে যাও? আমি যে রোজ দেখি তোমাকে ওখানে সকালে?”
দেবিকা নিরুত্তর। দরজা খুলে আমাকে ঘরের মধ্যে প্রবেশ করিয়ে ও যেন সত্যি কথাটা বলতে চাইছিল না। আমাকে বলল, “কি হবে জেনে? ধরো আমি রোজ যাই, প্রতিদিনই যাই, যদি সেই মানুষটাকে কোনদিন খুঁজে পাই। জানি হয়তো পাব না। তবুও…..”
সাত সকালে উঠে রোজই ও টালীগঞ্জে যায়? কার জন্য যায় দেবিকা? আমারো তো জানতে ইচ্ছে করে। কাউকে কি ও ভালবাসে? ভালবাসার পুরুষ আমি ছাড়াও এ পৃথিবীতে আছে হয়তো দেবিকার। ওকে একটু চাপ দিয়েই বললাম, “আমাকে যদি না সত্যি কথাটা না বলো, তাহলে ভাববো, তুমি হয়তো এখনও মন থেকে মেনে নিতে পারোনি আমাকে। ”
আমার মাথায় হাত রেখে দেবিকা বলল, “তিন সত্যি করে তোমায় বলছি, বিশ্বাস করো, তোমাকে ছাড়া আর কাউকেই এখন ভালবাসি না আমি। কিন্তু জীবনে এক সময়ে একজনকে আমি ভালবেসে ফেলেছিলাম। তাকে মন প্রাণ দিয়ে সবকিছু উজাড় করে দিয়েছিলাম। আমার এই শরীরটা, এই দেহটা তাকে পুরোপুরি সমর্পণ করেও মন পাইনি তার। সে আমাকে খুব কষ্ট দিয়েছে। আমার ভালবাসার প্রতিদানে সে আমায় কিছুই দিতে পারেনি। জীবনটা নিয়ে শুধু খেলতে চেয়েছিল। তাকে বিশ্বাস করে আমি তুমুল মেলামেশা শুরু করলাম। এই শহরে যেকটা নিরিবিলি জায়গা আছে, সব জায়গাতেই তার সাথে ঘুরেছি, হাতে হাত রেখে। প্রেমের জোয়ারে ভেসে চাকরিটাও ছেড়ে দিলাম। আমার মাকেও আমি দুমুঠো অন্ন জুগিয়েছি চাকরিটা করে। ও বলল, আমি তোমাকে বিয়ে করব। কি হবে তোমার চাকরি করে। একবারও সেই সময় মায়ের কথাটাও মনে হয় নি আমার। আমি চাকরি না করলে মায়ের কি দূর্দশা হবে। মাকে ছেড়ে কদিন ওর কাছে গিয়েও রইলাম। কিন্তু কিছুতেই ওর আসল রূপকে আমি ধরতে পারিনি। শয়তান, নারীলোভী একটা মানুষের সঙ্গে সংসার বাধতে গিয়েছিলাম। যখন ওর আসল চেহারাটা আমার সামনে আসলো তখন অনেক দেরী হয়ে গেছে।”
দেবিকা কে এই মূহূর্তে সান্তনা দেওয়া ছাড়া আমার কোন উপায় নেই। পুরোনো স্মৃতিকে মন থেকে অত সহজে ভোলা যায় না। ওর মুখের দিকে তাকিয়ে শুধু ভাবছিলাম, আমিও তো এক পুরুষ। এই কদিনে দেবিকাকে প্রতিনিয়ত দেখতে দেখতে আমারো ওর প্রতি লোভের জন্ম নিয়েছে। কিন্তু তাই বলে আমি তো ওর সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করতে পারি না। আমি যে ওকে ভীষন ভাবে ভালবাসি।
দেবিকা বলল, “মা এই কষ্টতেই মারা গেল। বাবাকে ছোটবেলায় হারিয়েছি, মা ও চলে গেল, আমি ভীষন একা। আমার এই পৃথিবীতে এখন কেউ নেই। নিঃসঙ্গ জীবন যাপন করছি। যদি তুমি এবার আমাকে বাঁচার আলো দেখাতে পারো।”
দেবিকার মতো সুন্দরী মেয়ের পুরুষমানুষের কখনও অভাব হবে না। তবুও আমার মনে হল, পুরোনো বেদনাদায়ক স্মৃতি হয়তো ওকে কিছুটা হলেও কুঁকড়ে দিয়েছে। প্রথম প্রেমিকের পর, দ্বিতীয় প্রেমিক হিসেবে আমি সেই ভাগ্যবান পুরুষ, যার এতদিনের মনোবাসনা আজ পূরণ হয়েছে। দেবিকার আমাকে ভাল লেগে গেছে। আমারো ভাল লেগে গেছে দেবিকাকে।
দেবিকা বলল, “ও টালীগঞ্জে যে বাড়ীটায় থাকতো, সে বাড়ীতে থাকে না এখন। আমি অনেক বার ওকে গিয়ে খুঁজেছি। পুরো টালীগঞ্জ চষে বেরিয়েছি, যদি কোনদিন ওকে দেখতে পাই। তাহলে শোধ নেব। উশুল করে নেব, আমার জীবনের অপূরনীয় ক্ষতি। কিন্তু পাই নি কোনদিন, যখন তোমাকে রোজ দেখতাম, ভাল লাগত আমার। কিন্তু মনে একটা ভয় ছিল, শঙ্কা ছিল। তুমিও যদি আবার ওর মতোই হয়ে যাও দেব। তাহলে?”
মূহূর্তে দেবিকাকে জড়িয়ে ওকে আবার কাছে টেনে নিলাম। আমার বুকে মুখটা রেখে ফুঁপিয়ে উঠে দেবিকা বলল, “মাঝে মাঝে আমার মনে হত, মেট্রো স্টেশনে চলন্ত কোন ট্রেন আসার আগেই যদি এই দেহটা নিয়ে ঝাঁপ দিই। শেষ করে দিই এই জীবনটাকে। আমার বেঁচে থাকার যেন কোনো মানে হয় না।”
ও ফুঁপিয়ে ফুঁপিয়ে কাঁদছিল। বুকে জড়িয়ে ধরে বললাম, “কেন শেষ করে দেবে এই জীবন? জীবন কি এতই সস্তা? ভাঙাগড়া এই জীবনেরও তো একটা মূল্য আছে। পুরোনো স্মৃতিকে মনে করে নিজেকে এত কষ্ট দিয়ে দূঃখ পেও না দেবিকা। আজ থেকে আমি দেখব তোমাকে। তোমার বাকী জীবনের সুখকে ফিরিয়ে আনার দায়িত্ব নিলাম আজ থেকে। এই দেব বলে ছেলেটা যতদিন বাঁচবে, শুধু তোমার জন্যই বাঁচবে আজ থেকে।”
বুঝতে পারছিলাম ও কোন জাদু দিয়ে নয়। সত্যি কথাটা সরল ভাবে বলে আমার মনকে আচ্ছন্ন করে ফেলেছে। ট্রেনের মধ্যে না বুঝেই আমি একটু অতিরিক্ত কামনা মেটানোর চেষ্টা করেছি। কিন্তু এই দেবিকা আমার চোখ খুলে দিয়েছে। ওকে আগে শুধু ভালবাসব, শরীর দেওয়া নেওয়ার খেলা তো পরেও চলতে পারে।
দেবিকা তবু আমার বুকে মুখটা রেখে বলল, সত্যি বললে তো দেব। তুমি তাহলে কথার খেলাপ করবে না। আমাকে ঠকাবে না, বিশ্বাসঘাতকতা করবে না বলো…..”
।। ছয় ।।
জীবনে কোনদিন মিথ্যেকে সত্যি বানিয়ে বলার চেষ্টা করিনি। অন্তত কোন নারীকে ভালবাসার ক্ষেত্রে। এর আগে যাদের সান্নিধ্যে পড়েছিলাম, তারা শুধু ভালবাসা নিয়ে খেলা করেছে আমার সঙ্গে, অন্তত তাদের মত দেবিকাকে আমি দেখব, সেই আশা করি না। আমি চাই আমার ভালবাসার পাত্রীটা যেন এমন ফুলের মতই নরম হোক, সুন্দর হোক। আর তার এই ভালবাসার ঘ্রাণ নিতে নিতে আমি তন্ময় হয়ে থাকি চিরকাল ধরে।
দেবিকা দেখল, আমি পুরোপুরি নিষ্ক্রিয় হয়ে রয়েছি। হয়তো ওর কথা শুনে বারবার চিন্তা করছি। কিন্তু ট্রেনের মতো ওকে সেভাবে আর আদর করছি না। নীরব নিষ্ঠাবান পুরুষের মতো চুপচাপ বসে থেকে শুধু ওর দিকে ফ্যালফ্যাল করে তাকিয়েই আছি।
আমি স্তব্ধ, হতবাক, দেখছি ও নিজেই এবার শরীরের জামাটা খুলতে লাগলো দুহাত লাগিয়ে। ভাবছি এত কিছু হওয়ার পরেও কি ও নগ্ন অবস্থায় আমার পায়ের কাছে লুটিয়ে পড়বে? আর আমাকে আবার পুনরায় বিশ্বাস করে যৌন সংসর্গ করার জন্য আকুল মিনতি জানাবে? ছোট্ট ঘরের মধ্যে দেবিকা নিজেকে নিবারণ করছে আসতে আসতে। গোপন দৃশ্যের পেক্ষাপট তৈরী হচ্ছে। ওর ঘরে ঢোকার পর থেকে আমার মনের মধ্যে যে নিস্তেজ নিরুত্তাপ ভাবটা চলে এসেছিল, সেটা ও নিজেই কাটানোর চেষ্টা করছে এবার। কামনাকে জাগিয়ে তুলছে, দেখছে আমি এবার উত্তেজিত হই কিনা?
ওকে বললাম, “আমাকে পরীক্ষা করতে চাইছ দেবিকা? আমি কিন্তু এটা করতে চাই নি।”
আমার ঠোঁটটা ওর ঠোঁট দিয়ে কামড়ে ধরে দেবিকা এবার দুষ্টুমি শুরু করে দিতে চাইছিল। বলল, “যদি চাও ঠকাবে আমাকে, আমি আর কি বলব? একবার ঠকেছি, তাই বলে বারবার তো আমি ঠকবো না। তোমাকে ভালবেসে যখন বাড়ীতে নিয়ে আসলাম, তখন কিছু না করতে দিয়েই তোমাকে অভূক্ত করে রাখবো, সে কি আর আমি পারব? দেবিকা যখন কাউকে ভালবাসে, তখন এইভাবেই তাকে সবকিছু উজাড় করে দেয়। তাকে মনে প্রাণে বিশ্বাস করে। আমি তোমাকেও বিশ্বাস করেছি দেব। নাও এবার আমাকে আদর করো।”
চোখের সামনেই ও নিজেকে এবার নগ্ন করলো। শরীরি উত্তাপ বাড়ছে, তবু নিজেকে ওর মতন নগ্ন করতে পারছি না। ওর লজ্জার স্থানটা এবার আমাকে দিয়েই উন্মুক্ত করতে চাইল। মেয়ে হয়ে পুরুষের কাছে ধর্ষিতা হওয়ার মানসিকতা দেবিকা দেখাতে চাইছে, ওর এই উদার মনকে তখন আমি অগ্রাহ্যও করতে পারছি না। রোমান্স, শিহরণ, মন থেকে যা কিছুক্ষণ আগেও উবে গিয়েছিল, সেগুলিই দেবিকা ফিরিয়ে আনতে লাগল এক এক করে। আমার ঠোঁটে উৎসাহব্যাঞ্জক চুমু দিতে দিতে ও বলল, আমার প্যান্টিটা টেনে নিচে নামিয়ে দাও। তারপরে তুমিও নগ্ন হও। ভালবাসার খেলা শুরু করতে তোমার এত সময় লাগে নাকি? নাও চটপট হাত লাগাও। আর আমাকে তোমার শরীরে প্রবেশ করিয়ে নাও।
আমি সন্মতি পেয়ে হাত দুটো বাড়িয়ে ওর কোমরের ঠিক ওপরে নাভিদেশে স্থাপন করলাম। প্রথমে দেবিকার নাভিদেশে হাত বোলাতে বোলাতে একটানে প্যান্টিটা টেনে নামিয়ে দিলাম, গোড়ালি পর্যন্ত। সম্পূর্ণ নগ্নিকা। মনে হল ও বুঝি প্রকৃতির আবরণ থেকে এইমাত্র উন্মুক্ত হয়ে এসেছে। ওর চুলগুলো এলায়িত অবস্থায় হাওয়ায় লুটোপুটি খাচ্ছিল। চেহারায় অপূর্ব সুন্দরী তিলোত্তমা। পুরুষ্ট স্তনদুটো দেখে আমি ঈর্ষা আর চেপে রাখতে পারছিলাম না। জোড়া স্তনবৃন্ত, জোড়া সূচের মতোই তীক্ষ স্তনাগ্র, বিঁধে যেতে পারে পুরুষমানুষের হৃদয়ে। বুকের উপত্যকায় মাথা রেখে যেন নির্ভাবনায় ঘুমোনো যায়। নিচে সুন্দর সমুদ্রতটের মতোই ওর নাভীদেশ। যেখানে জোড়া আঙুলগুলো জোড়া জোড়া পায়ের মতই হেঁটে চলে বেড়াতে চায়, ওর নাভিদেশে, তারপর ধীরে ধীরে ঢালু পাহাড়ী পথ বেয়ে আরো নিচে, যেখানে আছে তলপেট, তারও নিচে মেদবহূল মাংসল উরুর সুন্দর মনোরম সন্ধিস্থলে ছড়িয়ে থাকা লোমগুলি যেন ঘাসের মতন মসৃণ এক আবরণ সৃষ্টি করে রেখেছে।
আমাকে অঙ্গ শোভা প্রদর্শনটা ও এমন ভাবে দেখাতে লাগল, যে দুচোখে আমি শুধু ওকে গোগ্রাসে গিলতেই লাগলাম। নিজের পরণের পোশাক শার্টটা এবার দেবিকার নির্দেশেই খুলে ফেললাম। নগ্ন আমি, নগ্ন দেবিকাও। দেহ মিলনের সব বাঁধা বিপত্তিকে মনে না রেখে দেবিকা এবার গা ভাসিয়ে দিতে চাইছে আমার সঙ্গে।
ডিভানের ওপর নগ্ন অবস্থায় শুয়ে পড়ে দেবিকা নিজেই নিজেকে শৃঙ্গার করতে লাগল। নিজের স্তনদুটো দুহাতে চেপে ধরে, সুডৌল পা দুটি দুদিকে এত বেশী প্রসারিত করে দিল, যে ওর দুই উরুর সন্ধিস্থলের গহ্বরের দুটি প্রাচীর ভেদ করে জ্বলজ্বল করতে লাগল ভেতরটা, দৃশ্যটা দেখে আমি ঝাঁপিয়ে পড়তে চাইছিলাম।
নারীর প্রকৃত সৌন্দর্যের প্রকাশ হলো তার নগ্ন দেহ উন্মোচনের মতো। দেবিকার নগ্ন দেহের সৌন্দর্য চাক্ষুস করতে গিয়ে দেহে এক অদ্ভূত শিহরণ খেলে যাচ্ছিল। মনে হল ওর এই নগ্ন দেহটা আর শৃঙ্গারের দৃশ্যটা কোনো মৃত্যুপথযাত্রী সন্ন্যাসীর নিথর দেহেও উত্তেজনা সৃষ্টি করতে পারে। আগুন লাগিয়ে দিতে পারে।
আমার দৃষ্টিটা আরো একবার নিম্নমুখী হলো। বুক থেকে নাভিদেশ, তলপেটের নিচে, তার দুটি উরু যেখানে মিশেছে, সেখানটা যেন অরণ্যের দিন রাত্রি, ঘন কালো লোম খাড়া হয়ে আছে উলুখাগরার বনের মতো। ভাবছিলাম, এখনই যদি ওর এই মৃত্তিকা আমি ফালা ফালা করে চিরে ফেলে দিই, যন্ত্রণা নিশ্চই সহ্য করতে পারবে দেবিকা। এর আগেও যে পুরুষের সঙ্গে ও দেহসঙ্গম করেছে, সেও তো পারেনি তার লোভ কে সংবরণ করতে।
আমি একটু ঝুঁকে পড়লাম। কৃষি জমির মতো মাংসল অংশের ঠিক মাঝখানে একটা ফাটল, তার ভেতর থেকে যেন আগ্নেয়গিরির লাভা বেরিয়ে আসছে। ঠোঁট দুটি দেবিকার গহ্বরের ভেতর থেকে স্পষ্ট উঁকি মারছিল। একটা তাপ অনুভব করাচ্ছিল। আমাকে আহ্বান করে দেবিকা বলল, “আমি প্রস্তুত দেব। এবার তো তুমি আমার ভেতরে প্রবেশ করো।”
দেবিকার দুচোখ দিয়ে যেন আগুন ঝরে পড়ছিল। নিঃশ্বাসে আগুনের হল্কা। দেহ মনের ঝড় ঝাঁপিয়ে মুখর হতে চাইছে আমার সঙ্গে। আমাকে আবার বলল, আমি আজ হারিয়ে যেতে চাই দেব, তুমি আমাকে গ্রহন করো।
আমি হাঁটু মুড়ে বসলাম, দেবিকার এই ভাবাবেগ আর উচ্ছ্বাস দেখে অবাক হয়ে যাচ্ছি। কামনা বাসনার আগুনে ও এতটাই জ্বলতে পুড়তে শুরু করেছে, মনে হচ্ছে না, আজই সবেমাত্র আমরা প্রেমিক প্রেমিকা হিসেবে, অঙ্গীকার বদ্ধ হয়েছি। আমি যেন ওর অনেক পুরোনো সাথী। দেবিকা আমাকে অনেকদিন ধরে চেনে।
।। সাত ।।
দেবিকাকে জড়িয়ে ধরার পর ওর কন্ঠস্বর জড়িয়ে আসছিল। দুহাত দিয়ে আমার পিঠ খিমচে ধরে ও ভীষন তাড়াহূড়ো করতে লাগল। এক্ষুনি লিঙ্গটাকে ওর যোনিদ্বারে ঢুকিয়ে আমাকে আছড়ে পড়তে হবে। এমন ভাবে পা দুটো ছড়িয়ে আমার কোমরের ওপর তুলে দিয়ে ও চাপ দিতে লাগল, দেখলাম ওর ঠোঁট দুটো প্রায় মাছি খাওয়ার মতো কাঁপতে শুরু করেছে। আমার গলা দুটো হাতে জড়িয়ে বলল, “শুরু করো না গো। অপেক্ষা করছ কেন?”
আমি প্রথমে চুমু খাওয়ার জন্য মুখটা নামিয়ে আনলাম। উদগ্র কামনা, আমার থেকে দেখলাম, ওর মধ্যেই বেশী জেগে উঠেছে।
ও আমার ঠোঁটে ঠোঁট মিলিয়ে ঘনঘন চুমু খেতে লাগলো। তারপর বলল, “এখনও সুবোধ বালকের মতো অপেক্ষা করছো? ট্রেনের মধ্যে তখন অত বাহাদূরি দেখাচ্ছিলে, আর এখন কি হল তোমার? আমার ধৈর্যের পরীক্ষা নিচ্ছো? ঠিক আছে, আমিও হারবো না। এই হার না মানা হারের খেলায় আমি ঠিক জয়ী হবোই শেষ পর্যন্ত তুমি দেখো……”
চিৎকার করে বলে উঠল, “আমি আর পারছি না দেব, আমার শরীরটা শেয়ালের খাদ্যের মত ছিঁড়ে ফালা ফালা করে দাও। ঠান্ডা করে দাও আমায়। আমি তৃপ্তি পেতে চাই এক্ষুনি, এই মূহূর্তে।”
এক সম্পূর্ণ নতুন ধরনের উত্তেজনা। আমি আগে কখনও অনুভব করিনি। এ উত্তেজনা শুধু শরীরের দিক থেকে নয়, মনের এবং আত্মার দিক থেকেও। লিঙ্গটা ওর যোনিদ্বারে ঢোকানোর পরে আমি এক অদ্ভূত সুখানুভূতি অনুভব করলাম, দেহমনে। যেন অষ্টমাশ্চর্যের স্বাদ। ভেবেছিলাম, আসতে আসতে ওকে পাকিয়ে নেব। কিন্তু দেহের নৈবেদ্য সাজিয়ে ও নিজেকেই তুলে দিল আমার হাতে পাকা ফলের মতো।
অভ্যন্তরে লিঙ্গটা খেলাতে শুরু করেছি। আসতে আসতে ওর পাপড়ির শেষ পর্যন্ত প্রবিষ্ট হলাম। উদ্দাম হয়ে দেবিকা আমাকে সঙ্গম সুখের স্বাদ দিতে শুরু করেছে। চরম সুখ যে কি হতে পারে অনুভব করছিলাম। চোখমুখ দেবিকার উদগ্র সঙ্গমোত্তর রাগ মোচনের জন্য বিস্ফোরিত হয়ে উঠেছে। উত্তাপ যেন গলে গলে পড়ার অপেক্ষায়। কোমরটা দুহাতে জড়িয়ে ওকে একটা জোরে ধাক্কা দিলাম। দেবিকা অধীর আনন্দে বলে উঠলো, “আঃ……”
উঃ এ যেন স্বর্গসুখ। ভয়ঙ্কর কঠিন হয়ে গেছে আমার লিঙ্গটা। আমারও উত্তাপ সব গলে গলে পড়তে লাগল দেবিকার মধ্যে। ও তবু আমাকে জড়িয়ে ধরে আরো জোরে জোরে আঘাত প্রত্যাশা করতে লাগল। মুখে বলল, “আরো বেশি করে ধাক্কা দাও দেব, নইলে আমি কিন্তু তোমাকে কামড়ে, ক্ষতবিক্ষত করে তুলবো।”
মনে হল, ঈশ্বর যেন কত মহান। এত সুখ এত তৃপ্তি দিয়ে ভরিয়ে দিচ্ছে মেয়েটা। এতটা আমিও আশা করিনি। মনে মনে বললাম, “আমার এই প্রেমিকাটিকে আমার কাছে পাঠিয়ে তুমি আমার জীবনকে যেভাবে ধন্য করে দিলে ভগবান, আমি চিরকাল ঋণী থাকবো তোমার কাছে।”
প্রচন্ড উত্তেজনায় দেবিকা আমার পিঠে হাত বুলিয়ে যাচ্ছে একনাগাড়ে। যৌবনের সব উত্তাপ ঝরিয়ে দিচ্ছে আমার লিঙ্গরাজের ওপরে। আমিও দ্রুত গতিতে ওকে আঘাত করতে করতে শরীরের সব শক্তি ক্ষয় করে ফেলছি।
ঠোঁটে পাগলের মত চুমু খেতে খেতে দেবিকা বলল, “এভাবে কোন মেয়েকে ভোগ করেছো কোনদিন?”
অস্ফুট স্বরে ওকে বললাম, “না দেবিকা না, কখনও করিনি।”
চুম্বনটা ঠোঁট থেকে আমার সারা মুখমন্ডলে ছড়িয়ে দিচ্ছিলো ও। বলল, “আমাকে সত্যি ভালবাসবে তো দেব? বলো, আমাকে কোনদিন কষ্ট দেবে না?”
আমি বললাম, “না দেবিকা, না। কোনোদিন না। তোমাকে কষ্ট দেবার আগে আমি মরে যাব, সেও ভাল। যা কষ্ট তুমি পেয়েছো, আর কোনদিনই তোমার সেই পুরোনো দূঃখকে আমি মনে করাবো না দেবিকা। দেখে নিও। এই দেব, কেমন আদরে, যত্নে, ভালবেসে রাখবে তোমাকে।”
যৌনতার মধ্যে ভালবাসার আবেগ গুলোও বারবার উচ্চারিত হচ্ছিল দুজনের মুখ থেকে। ওর মধ্যেই দেবিকা যেন পুরো শরীরটা সমর্পণ করে দিয়ে আমাকে বারে বারে শপথ করাচ্ছিল। কোমরটা নিজে থেকেই অল্প একটু উপরে তুলে দিল, তারপর আবার ধাক্কা দিতে বললো। যন্ত্রচালিত মেশিনের মতো লিঙ্গটা খুব গভীরে চালান করতে করতে আমিও উত্তেজনায় একটু কঁকিয়ে উঠলাম। মনে হলো এমন সুখকে চিরকাল ধরে রাখতে হলে ওর মতো মেয়েকে আমার কিছুতেই হারানো চলবে না। দেবিকাকে আমি ভালবাসব। ওর সব দূঃখ কষ্ট আমি ভুলিয়ে দিবো
চরম অনুভূতি। অনুভূতির গভীরতা বোঝাবার ভাষা আমার নেই। দেবিকা আর আমার শরীরে শুধুই তীব্র কামোত্তেজনা। দেহে দেহে সংযোগ ঘটছে, দুটি পাপড়ির ফাঁকে লিঙ্গ ক্রমাগত প্রবেশ করে চলেছে। পিচ্ছিল যোনিপথ দিয়ে লিঙ্গ চলাচল করতে করতে আমার মনে হচ্ছিল, আমি যেন অনন্তকাল ধরে ওর মধ্যে বিদ্ধ হয়ে থাকি। যে মেয়েটা কাঙালের মতো এতক্ষণ যৌনসুখ ভিক্ষা করছিল আমার কাছে। সেই এখন চরম সুখপ্রাপ্তির আবেশে আচ্ছন্ন। আমি ওকে উপভোগ করছি আর ভাবছি, আজ থেকে পুরোনো প্রেমিক বলে দেবিকার জীবনে কেউ নেই। ওগুলো অতীত। এই দেবই আজ থেকে ওর সাথে সহবাস করবে, ভালবাসা আর আদর দিয়ে রানী করে রাখবে এই সুন্দরীকে।
সুখের সর্বোচ্চ শিখরে দেবিকাকে পৌঁছে দিয়ে আমি ওর নরম মৃত্তিকায় এবার কামনার জারকরস উদগীরণ করে দিলাম। বীর্য তখন বৃষ্টিপাতের মতই ঝড়ে পড়ছে আর দুজনেরই অভ্যন্তরে সুখের লাভা গলে গলে পড়ছে। বীর্যপাতের একটু পরে দেবিকা বললো, “বড্ড তাড়াতাড়ি হয়ে গেল না দেব? নিজের কামনাকে নিয়ন্ত্রণ না করতে পেরে, আমিই তোমাকে জোড় করলাম, আর তুমিও আমার ভেতরেই সব ঢেলে দিলে।”
আমাকে জড়িয়ে ধরে তারপরেও ও শুয়ে রইলো অনেকক্ষণ। বললাম, “তাতে কি হয়েছে দেবিকা? আসল সুখকে তো দুজনে উপভোগ করলাম, এরপরে তোমার জীবনে পুরোনো কোনো স্মৃতি আর কোনোদিনই তোমাকে কষ্ট দেবে না। তুমি শুধু আমার কথা চিন্তা করবে, আর আমিও দিবারাত্রি তাই করবো।”
উঠে বসে একটু আপেক্ষের সুরে দেবিকা আমাকে বলল, “ওতো তাই করেছিল আমার সঙ্গে। কিন্তু…..”
আমি বললাম, “কে সে?”
টালীগঞ্জের সেই পুরোনো প্রেমিকের কথা আবার তুলে দেবিকা বললো, “অসাবধানতা বশত ওর সাথে বারবার যৌনকামনা মেটাকে গিয়ে গিয়ে, হঠাৎ একদিন অনুভব করলাম, আমি বোধহয় মা হতে চলেছি। পেটের ভেতরে থেকে একটা শিশু বড় হতে চাইছে। একদিন সে বেরিয়ে এসে পৃথিবীর আলো দেখবে। যখন ডাক্তারকে দেখালাম, ডাক্তারও একই কথা বললো। আমি নাকি প্রেগনেন্ট।”
একটু অবাক হয়ে দেবিকাকে বললাম, “তারপর?”
দেবিকা বললো, ডাক্তার আমাকে দেখার পর, ছুটে গেলাম ওর কাছে। ওকে বললাম, “এই কান্ডটা তুমি করেছো। প্রেমিকাকে অন্তঃসত্বা করে দিয়েছ, এবার তো আমাকে তোমায় বিয়ে করতেই হবে। নইলে এই বাচ্চাটাকে নিয়ে কোথায় যাব আমি? আমার এখন কেউ নেই। একমাত্র তুমি ছাড়া।”
দেবিকাকে বললাম, “দেবিকা, তুমি অন্তঃসত্বা হয়ে পড়েছিলে? তারপর? তোমার বাচ্চাটার কি হল?”
আবার সেই হতাশ মুখ। চোখমুখে দূঃখ কষ্টটা আর নেই, তবুও বলল, “আমার সাথে যে বিশ্বাসঘাতকতা করেছে, তার সন্মন্ধে আর কি বা তোমায় বলবো? ও আমাকে কিছুই বুঝতে দিল না। বলল, তুমি তো আমার কাছেই আছো দেবিকা, তোমার আবার চিন্তা কিসের? ভুল বশত এমনটা হয়েছে। এতো হতেই পারে। তোমার আমার দুজনেরই যখন ভুল, তখন বাচ্চাটাকে জন্ম দেওয়াটাও তো আমাদের কর্তব্য। তবে বিয়েটা এখনই নয়। এরজন্য তোমাকে কিছুদিন অপেক্ষা করতে হবে। বাবা মায়ের অনুমতি নেওয়াটা দরকার।”
আমি বললাম, “তারপর?”
দেবিকা বলল, এতদিন ওর সাথে ঘনিষ্ঠ ভাবে মেলামেশা করেছি, অন্তরঙ্গ হয়েছি। বিয়ে মানে সামাজিক একটা স্বীকৃতি, সেটাই যখন শুনলাম, পেতে দেরী হবে। আমি একটু অধৈর্য হয়ে পড়লাম। মনে হলো, এ আমার কেমন প্রেমিক? যে স্ত্রী হিসেবে আমাকে গ্রহন করতে চায় না। মনে হলো ও বুঝি ছল করছে আমার সঙ্গে। খেলতে চাইছে আমার জীবনটা নিয়ে। বাড়ীর লোককেও আমার ব্যাপারটা এখনও জানাতে চাইছে না। দিন কেটে যাচ্ছে, রাত কেটে যাচ্ছে। বাচ্চাটাও পেটের মধ্যে বড় হচ্ছে। অথচ বিয়ের কথা তুললেই ও যেন কেমন নির্লিপ্ত।
একদিন আমি খুব রেগে গেলাম। শুনেছিলাম, ওর বাবা মা নাকি আসানসোলে থাকে। ছেলে একবারও আমার কথা তাদেরকে বলেনি। আমি বললাম, “তুমি তোমার বাবা মাকে খবর দিচ্ছো না কেন? তাদেরকে জানাও। খবর দাও। একবার অন্তত তারা এসে দেখে যাক এই মেয়েটিকে। কেমন নিঃস্বার্থ ভাবে সব কিছু ছেড়ে ছুড়ে দিয়ে তোমার কাছে পরে রয়েছে? তুমি যখন চাও না ওনারা সত্যি কথাটা জানুক, তাহলে বিয়ের কথাটা সেরে নিতেই বা তোমার আপত্তিটা কোথায়?”
আমাকে নিয়ে লিভ টুগেদার করছে আমার প্রেমিক। আমাকে সে বিয়ে করেনি। অথচ আমি অন্তঃসত্বা। নিজের বাবা মাকেও আমার কথা জানানোর প্রয়োজন বোধ করেনি। রাগ দেখে আমার মন ভোলানোর চেষ্টা করতে লাগল ও। আমাকে বলল, “ব্যস্ত হয়ো না ডার্লিং। বাবা মাকে খবর দিয়েছি, ওনারা সাতদিন পরেই এখানে আসবে। তারপরই তোমাকে বিয়ে করবো আমি। সাতপাকে বাঁধা পড়ব বলে আমিও তো অপেক্ষা করে আছি বিয়ের জন্য। তুমি কি আমার ছটফটানি দেখেও সেটা বুঝতে পারছো না?”
একটু চুপ থেকে দেবিকা বড় নিঃশ্বাস ফেলে বললো, “শয়তান লোকটাকে সেদিনও দেখে বুঝতে পারিনি, ওর মধ্যে কি অভিসন্ধি লুকিয়ে আছে। পারলে আমার এতবড় ক্ষতি আজ হতো না।”
দেবিকাকে বললাম, “তারপরে কি তোমাদের বিয়ে হয় নি? ও কথা রাখে নি?”
দেবিকা আফশোস করে বললো, “মা বলেছিল, শাঁখা সিদুঁর পড়বি যখন নিজের মুখটা আয়নায় একবার দেখবি। মেয়েদের সত্যিকারের রূপ। সাধ ছিল বধূ বেশে নিজেকে দেখবার। সে সাধ আর পূর্ণ হলো কই?”
এক এক করে পুরোনো সব কথা ও বলে দিলেও, দেবিকার বাচ্চাটার কথা ভীষন জানতে ইচ্ছে করছিল। ওকে বললাম, “কিন্তু তোমার বাচ্চাটার কি হলো দেবিকা? শেষ পর্যন্ত ওকে কি জন্ম দিলে? পৃথিবীর আলো যাকে দেখাতে চাইছিলে, সে নিশ্চই তোমার কাছেই এখন। কিন্তু কোথায় সে? এখানে এসে তো তাকে একবারও দেখলাম না।”
ওর চোখের কোনে দেখলাম আবারও জল চিকচিক করছে। বাচ্চাটার কথা বলতে গিয়েও বলতে পারছে না। মনের ভেতরে জমানো দূঃখটা যেন এখনো কুড়ে কুড়ে খাচ্ছে ওকে। একটা ফুলের মতো মুখ। অথচ এই ফুলটাকেই ছিঁড়ে তছনছ করে কে যেন বিষাদে ভরিয়ে দিয়েছে ওকে।
আমার কথার জবাব দিচ্ছিলো না দেবিকা। ওকে বললাম, “কি হলো দেবিকা? বাচ্চাটার কথা তুমি এখনো বললে না? কি হয়েছে বলো? শেষ পর্যন্ত বাচ্চাটা কি পৃথিবীর আলো দেখলো? কি হলো তার? বলো বলো…..”
দেবিকার চোখদুটো দিয়ে একনাগাড়ে জল পড়তে দেখে মায়া হচ্ছিল। সুন্দরী এক যুবতী আমার সামনে অশ্রুসিক্ত নয়নে নিজের পুরোনো দূঃখ গুলোকে স্মরণ করছে। কিন্তু এবার যেন একেবারেই স্তব্ধ ও। মুখে কোনো কথা নেই। শুধু ফ্যাল ফ্যাল করে চেয়ে আছে আমার দিকে।
অনেক্ষণ চুপ করে থেকে আমাকে ও বলল, “বাচ্চাটাকে আমি বাঁচাতে পারিনি দেব। ও আমার পেটের মধ্যেই….. আর ও আমাকে পেছন থেকে ধাক্কা মেরে…..”
মনে হলো আমিই বা ক ফোঁটা চোখের জল ওর জন্য ফেলতে পেরেছি, যে ওকে ভালবাসবো? দেবিকার চোখে জল দেখে আমারও তখন চোখটা একটু চিকচিক করতে লাগলো। আমার বুকের মধ্যে মুখ রেখে ও বলল, “এখনও ভাবি, মরে গেলেও বোধহয় শান্তি পাবো না কোনোদিন। একজনকে ভালবেসে শেষ পর্যন্ত কি পেলাম? আমার জীবনটাকে এভাবে ছারখার করে দিল ও। দেখবে ওরও ভাল হবে না কোনদিন। জীবনে কোনদিন সুখী হতে পারবে না ঐ শয়তান লোকটা।”
বুকের মধ্যে দেবিকাকে শক্ত করে জড়িয়ে রেখেছি। কপালে চুমু খেয়ে বললাম, “আবার তুমি মরার কথা চিন্তা করছো? কেন তাহলে আমাকে এখানে নিয়ে এলে তুমি? মরতেই যদি চাও।”
বুকের মাঝে শক্ত করে চেপে ধরে আবার বললাম, “দেবিকা, আমার দেবিকা। তোমাকে ছাড়া আমিও বাঁচার কথা চিন্তা করতে পারি না আজ থেকে। তুমি আমি দুজনেই বাঁচবো। নতুন করে বাঁচতে শেখাবো তোমাকে। আর যেদিন মরবো, সেদিন দুজনে একসাথেই মরবো।”
দেবিকা মুখটা একটু তুলে বললো, “সত্যি বলছো? আমি মরলে তুমিও মরবে?”
বললাম, “সত্যিই তো বলছি। তোমাকে অত সহজে আমি আর মরতে দেবো না দেবিকা। আর যদি তোমাকে বাঁচাতেই না পারি। তাহলে জেনে রেখো, এই দেবও তোমার জন্য প্রাণটা দিয়ে দিতে রাজী থাকবে। আমার এই জীবনটা আজ থেকে শুধু তোমার জন্য, তুমি ছাড়া আমার জীবনের কোনো মূল্য নেই।”
।। সাত ।।
দেবিকাকে জড়িয়ে ধরার পর ওর কন্ঠস্বর জড়িয়ে আসছিল। দুহাত দিয়ে আমার পিঠ খিমচে ধরে ও ভীষন তাড়াহূড়ো করতে লাগল। এক্ষুনি লিঙ্গটাকে ওর যোনিদ্বারে ঢুকিয়ে আমাকে আছড়ে পড়তে হবে। এমন ভাবে পা দুটো ছড়িয়ে আমার কোমরের ওপর তুলে দিয়ে ও চাপ দিতে লাগল, দেখলাম ওর ঠোঁট দুটো প্রায় মাছি খাওয়ার মতো কাঁপতে শুরু করেছে। আমার গলা দুটো হাতে জড়িয়ে বলল, “শুরু করো না গো। অপেক্ষা করছ কেন?”
আমি প্রথমে চুমু খাওয়ার জন্য মুখটা নামিয়ে আনলাম। উদগ্র কামনা, আমার থেকে দেখলাম, ওর মধ্যেই বেশী জেগে উঠেছে।
ও আমার ঠোঁটে ঠোঁট মিলিয়ে ঘনঘন চুমু খেতে লাগলো। তারপর বলল, “এখনও সুবোধ বালকের মতো অপেক্ষা করছো? ট্রেনের মধ্যে তখন অত বাহাদূরি দেখাচ্ছিলে, আর এখন কি হল তোমার? আমার ধৈর্যের পরীক্ষা নিচ্ছো? ঠিক আছে, আমিও হারবো না। এই হার না মানা হারের খেলায় আমি ঠিক জয়ী হবোই শেষ পর্যন্ত তুমি দেখো……”
চিৎকার করে বলে উঠল, “আমি আর পারছি না দেব, আমার শরীরটা শেয়ালের খাদ্যের মত ছিঁড়ে ফালা ফালা করে দাও। ঠান্ডা করে দাও আমায়। আমি তৃপ্তি পেতে চাই এক্ষুনি, এই মূহূর্তে।”
এক সম্পূর্ণ নতুন ধরনের উত্তেজনা। আমি আগে কখনও অনুভব করিনি। এ উত্তেজনা শুধু শরীরের দিক থেকে নয়, মনের এবং আত্মার দিক থেকেও। লিঙ্গটা ওর যোনিদ্বারে ঢোকানোর পরে আমি এক অদ্ভূত সুখানুভূতি অনুভব করলাম, দেহমনে। যেন অষ্টমাশ্চর্যের স্বাদ। ভেবেছিলাম, আসতে আসতে ওকে পাকিয়ে নেব। কিন্তু দেহের নৈবেদ্য সাজিয়ে ও নিজেকেই তুলে দিল আমার হাতে পাকা ফলের মতো।
অভ্যন্তরে লিঙ্গটা খেলাতে শুরু করেছি। আসতে আসতে ওর পাপড়ির শেষ পর্যন্ত প্রবিষ্ট হলাম। উদ্দাম হয়ে দেবিকা আমাকে সঙ্গম সুখের স্বাদ দিতে শুরু করেছে। চরম সুখ যে কি হতে পারে অনুভব করছিলাম। চোখমুখ দেবিকার উদগ্র সঙ্গমোত্তর রাগ মোচনের জন্য বিস্ফোরিত হয়ে উঠেছে। উত্তাপ যেন গলে গলে পড়ার অপেক্ষায়। কোমরটা দুহাতে জড়িয়ে ওকে একটা জোরে ধাক্কা দিলাম। দেবিকা অধীর আনন্দে বলে উঠলো, “আঃ……”
উঃ এ যেন স্বর্গসুখ। ভয়ঙ্কর কঠিন হয়ে গেছে আমার লিঙ্গটা। আমারও উত্তাপ সব গলে গলে পড়তে লাগল দেবিকার মধ্যে। ও তবু আমাকে জড়িয়ে ধরে আরো জোরে জোরে আঘাত প্রত্যাশা করতে লাগল। মুখে বলল, “আরো বেশি করে ধাক্কা দাও দেব, নইলে আমি কিন্তু তোমাকে কামড়ে, ক্ষতবিক্ষত করে তুলবো।”
মনে হল, ঈশ্বর যেন কত মহান। এত সুখ এত তৃপ্তি দিয়ে ভরিয়ে দিচ্ছে মেয়েটা। এতটা আমিও আশা করিনি। মনে মনে বললাম, “আমার এই প্রেমিকাটিকে আমার কাছে পাঠিয়ে তুমি আমার জীবনকে যেভাবে ধন্য করে দিলে ভগবান, আমি চিরকাল ঋণী থাকবো তোমার কাছে।”
প্রচন্ড উত্তেজনায় দেবিকা আমার পিঠে হাত বুলিয়ে যাচ্ছে একনাগাড়ে। যৌবনের সব উত্তাপ ঝরিয়ে দিচ্ছে আমার লিঙ্গরাজের ওপরে। আমিও দ্রুত গতিতে ওকে আঘাত করতে করতে শরীরের সব শক্তি ক্ষয় করে ফেলছি।
ঠোঁটে পাগলের মত চুমু খেতে খেতে দেবিকা বলল, “এভাবে কোন মেয়েকে ভোগ করেছো কোনদিন?”
অস্ফুট স্বরে ওকে বললাম, “না দেবিকা না, কখনও করিনি।”
চুম্বনটা ঠোঁট থেকে আমার সারা মুখমন্ডলে ছড়িয়ে দিচ্ছিলো ও। বলল, “আমাকে সত্যি ভালবাসবে তো দেব? বলো, আমাকে কোনদিন কষ্ট দেবে না?”
আমি বললাম, “না দেবিকা, না। কোনোদিন না। তোমাকে কষ্ট দেবার আগে আমি মরে যাব, সেও ভাল। যা কষ্ট তুমি পেয়েছো, আর কোনদিনই তোমার সেই পুরোনো দূঃখকে আমি মনে করাবো না দেবিকা। দেখে নিও। এই দেব, কেমন আদরে, যত্নে, ভালবেসে রাখবে তোমাকে।”
যৌনতার মধ্যে ভালবাসার আবেগ গুলোও বারবার উচ্চারিত হচ্ছিল দুজনের মুখ থেকে। ওর মধ্যেই দেবিকা যেন পুরো শরীরটা সমর্পণ করে দিয়ে আমাকে বারে বারে শপথ করাচ্ছিল। কোমরটা নিজে থেকেই অল্প একটু উপরে তুলে দিল, তারপর আবার ধাক্কা দিতে বললো। যন্ত্রচালিত মেশিনের মতো লিঙ্গটা খুব গভীরে চালান করতে করতে আমিও উত্তেজনায় একটু কঁকিয়ে উঠলাম। মনে হলো এমন সুখকে চিরকাল ধরে রাখতে হলে ওর মতো মেয়েকে আমার কিছুতেই হারানো চলবে না। দেবিকাকে আমি ভালবাসব। ওর সব দূঃখ কষ্ট আমি ভুলিয়ে দিবো
চরম অনুভূতি। অনুভূতির গভীরতা বোঝাবার ভাষা আমার নেই। দেবিকা আর আমার শরীরে শুধুই তীব্র কামোত্তেজনা। দেহে দেহে সংযোগ ঘটছে, দুটি পাপড়ির ফাঁকে লিঙ্গ ক্রমাগত প্রবেশ করে চলেছে। পিচ্ছিল যোনিপথ দিয়ে লিঙ্গ চলাচল করতে করতে আমার মনে হচ্ছিল, আমি যেন অনন্তকাল ধরে ওর মধ্যে বিদ্ধ হয়ে থাকি। যে মেয়েটা কাঙালের মতো এতক্ষণ যৌনসুখ ভিক্ষা করছিল আমার কাছে। সেই এখন চরম সুখপ্রাপ্তির আবেশে আচ্ছন্ন। আমি ওকে উপভোগ করছি আর ভাবছি, আজ থেকে পুরোনো প্রেমিক বলে দেবিকার জীবনে কেউ নেই। ওগুলো অতীত। এই দেবই আজ থেকে ওর সাথে সহবাস করবে, ভালবাসা আর আদর দিয়ে রানী করে রাখবে এই সুন্দরীকে।
সুখের সর্বোচ্চ শিখরে দেবিকাকে পৌঁছে দিয়ে আমি ওর নরম মৃত্তিকায় এবার কামনার জারকরস উদগীরণ করে দিলাম। বীর্য তখন বৃষ্টিপাতের মতই ঝড়ে পড়ছে আর দুজনেরই অভ্যন্তরে সুখের লাভা গলে গলে পড়ছে। বীর্যপাতের একটু পরে দেবিকা বললো, “বড্ড তাড়াতাড়ি হয়ে গেল না দেব? নিজের কামনাকে নিয়ন্ত্রণ না করতে পেরে, আমিই তোমাকে জোড় করলাম, আর তুমিও আমার ভেতরেই সব ঢেলে দিলে।”
আমাকে জড়িয়ে ধরে তারপরেও ও শুয়ে রইলো অনেকক্ষণ। বললাম, “তাতে কি হয়েছে দেবিকা? আসল সুখকে তো দুজনে উপভোগ করলাম, এরপরে তোমার জীবনে পুরোনো কোনো স্মৃতি আর কোনোদিনই তোমাকে কষ্ট দেবে না। তুমি শুধু আমার কথা চিন্তা করবে, আর আমিও দিবারাত্রি তাই করবো।”
উঠে বসে একটু আপেক্ষের সুরে দেবিকা আমাকে বলল, “ওতো তাই করেছিল আমার সঙ্গে। কিন্তু…..”
আমি বললাম, “কে সে?”
টালীগঞ্জের সেই পুরোনো প্রেমিকের কথা আবার তুলে দেবিকা বললো, “অসাবধানতা বশত ওর সাথে বারবার যৌনকামনা মেটাকে গিয়ে গিয়ে, হঠাৎ একদিন অনুভব করলাম, আমি বোধহয় মা হতে চলেছি। পেটের ভেতরে থেকে একটা শিশু বড় হতে চাইছে। একদিন সে বেরিয়ে এসে পৃথিবীর আলো দেখবে। যখন ডাক্তারকে দেখালাম, ডাক্তারও একই কথা বললো। আমি নাকি প্রেগনেন্ট।”
একটু অবাক হয়ে দেবিকাকে বললাম, “তারপর?”
দেবিকা বললো, ডাক্তার আমাকে দেখার পর, ছুটে গেলাম ওর কাছে। ওকে বললাম, “এই কান্ডটা তুমি করেছো। প্রেমিকাকে অন্তঃসত্বা করে দিয়েছ, এবার তো আমাকে তোমায় বিয়ে করতেই হবে। নইলে এই বাচ্চাটাকে নিয়ে কোথায় যাব আমি? আমার এখন কেউ নেই। একমাত্র তুমি ছাড়া।”
দেবিকাকে বললাম, “দেবিকা, তুমি অন্তঃসত্বা হয়ে পড়েছিলে? তারপর? তোমার বাচ্চাটার কি হল?”
আবার সেই হতাশ মুখ। চোখমুখে দূঃখ কষ্টটা আর নেই, তবুও বলল, “আমার সাথে যে বিশ্বাসঘাতকতা করেছে, তার সন্মন্ধে আর কি বা তোমায় বলবো? ও আমাকে কিছুই বুঝতে দিল না। বলল, তুমি তো আমার কাছেই আছো দেবিকা, তোমার আবার চিন্তা কিসের? ভুল বশত এমনটা হয়েছে। এতো হতেই পারে। তোমার আমার দুজনেরই যখন ভুল, তখন বাচ্চাটাকে জন্ম দেওয়াটাও তো আমাদের কর্তব্য। তবে বিয়েটা এখনই নয়। এরজন্য তোমাকে কিছুদিন অপেক্ষা করতে হবে। বাবা মায়ের অনুমতি নেওয়াটা দরকার।”
আমি বললাম, “তারপর?”
দেবিকা বলল, এতদিন ওর সাথে ঘনিষ্ঠ ভাবে মেলামেশা করেছি, অন্তরঙ্গ হয়েছি। বিয়ে মানে সামাজিক একটা স্বীকৃতি, সেটাই যখন শুনলাম, পেতে দেরী হবে। আমি একটু অধৈর্য হয়ে পড়লাম। মনে হলো, এ আমার কেমন প্রেমিক? যে স্ত্রী হিসেবে আমাকে গ্রহন করতে চায় না। মনে হলো ও বুঝি ছল করছে আমার সঙ্গে। খেলতে চাইছে আমার জীবনটা নিয়ে। বাড়ীর লোককেও আমার ব্যাপারটা এখনও জানাতে চাইছে না। দিন কেটে যাচ্ছে, রাত কেটে যাচ্ছে। বাচ্চাটাও পেটের মধ্যে বড় হচ্ছে। অথচ বিয়ের কথা তুললেই ও যেন কেমন নির্লিপ্ত।
একদিন আমি খুব রেগে গেলাম। শুনেছিলাম, ওর বাবা মা নাকি আসানসোলে থাকে। ছেলে একবারও আমার কথা তাদেরকে বলেনি। আমি বললাম, “তুমি তোমার বাবা মাকে খবর দিচ্ছো না কেন? তাদেরকে জানাও। খবর দাও। একবার অন্তত তারা এসে দেখে যাক এই মেয়েটিকে। কেমন নিঃস্বার্থ ভাবে সব কিছু ছেড়ে ছুড়ে দিয়ে তোমার কাছে পরে রয়েছে? তুমি যখন চাও না ওনারা সত্যি কথাটা জানুক, তাহলে বিয়ের কথাটা সেরে নিতেই বা তোমার আপত্তিটা কোথায়?”
আমাকে নিয়ে লিভ টুগেদার করছে আমার প্রেমিক। আমাকে সে বিয়ে করেনি। অথচ আমি অন্তঃসত্বা। নিজের বাবা মাকেও আমার কথা জানানোর প্রয়োজন বোধ করেনি। রাগ দেখে আমার মন ভোলানোর চেষ্টা করতে লাগল ও। আমাকে বলল, “ব্যস্ত হয়ো না ডার্লিং। বাবা মাকে খবর দিয়েছি, ওনারা সাতদিন পরেই এখানে আসবে। তারপরই তোমাকে বিয়ে করবো আমি। সাতপাকে বাঁধা পড়ব বলে আমিও তো অপেক্ষা করে আছি বিয়ের জন্য। তুমি কি আমার ছটফটানি দেখেও সেটা বুঝতে পারছো না?”
একটু চুপ থেকে দেবিকা বড় নিঃশ্বাস ফেলে বললো, “শয়তান লোকটাকে সেদিনও দেখে বুঝতে পারিনি, ওর মধ্যে কি অভিসন্ধি লুকিয়ে আছে। পারলে আমার এতবড় ক্ষতি আজ হতো না।”
দেবিকাকে বললাম, “তারপরে কি তোমাদের বিয়ে হয় নি? ও কথা রাখে নি?”
দেবিকা আফশোস করে বললো, “মা বলেছিল, শাঁখা সিদুঁর পড়বি যখন নিজের মুখটা আয়নায় একবার দেখবি। মেয়েদের সত্যিকারের রূপ। সাধ ছিল বধূ বেশে নিজেকে দেখবার। সে সাধ আর পূর্ণ হলো কই?”
এক এক করে পুরোনো সব কথা ও বলে দিলেও, দেবিকার বাচ্চাটার কথা ভীষন জানতে ইচ্ছে করছিল। ওকে বললাম, “কিন্তু তোমার বাচ্চাটার কি হলো দেবিকা? শেষ পর্যন্ত ওকে কি জন্ম দিলে? পৃথিবীর আলো যাকে দেখাতে চাইছিলে, সে নিশ্চই তোমার কাছেই এখন। কিন্তু কোথায় সে? এখানে এসে তো তাকে একবারও দেখলাম না।”
ওর চোখের কোনে দেখলাম আবারও জল চিকচিক করছে। বাচ্চাটার কথা বলতে গিয়েও বলতে পারছে না। মনের ভেতরে জমানো দূঃখটা যেন এখনো কুড়ে কুড়ে খাচ্ছে ওকে। একটা ফুলের মতো মুখ। অথচ এই ফুলটাকেই ছিঁড়ে তছনছ করে কে যেন বিষাদে ভরিয়ে দিয়েছে ওকে।
আমার কথার জবাব দিচ্ছিলো না দেবিকা। ওকে বললাম, “কি হলো দেবিকা? বাচ্চাটার কথা তুমি এখনো বললে না? কি হয়েছে বলো? শেষ পর্যন্ত বাচ্চাটা কি পৃথিবীর আলো দেখলো? কি হলো তার? বলো বলো…..”
দেবিকার চোখদুটো দিয়ে একনাগাড়ে জল পড়তে দেখে মায়া হচ্ছিল। সুন্দরী এক যুবতী আমার সামনে অশ্রুসিক্ত নয়নে নিজের পুরোনো দূঃখ গুলোকে স্মরণ করছে। কিন্তু এবার যেন একেবারেই স্তব্ধ ও। মুখে কোনো কথা নেই। শুধু ফ্যাল ফ্যাল করে চেয়ে আছে আমার দিকে।
অনেক্ষণ চুপ করে থেকে আমাকে ও বলল, “বাচ্চাটাকে আমি বাঁচাতে পারিনি দেব। ও আমার পেটের মধ্যেই….. আর ও আমাকে পেছন থেকে ধাক্কা মেরে…..”
মনে হলো আমিই বা ক ফোঁটা চোখের জল ওর জন্য ফেলতে পেরেছি, যে ওকে ভালবাসবো? দেবিকার চোখে জল দেখে আমারও তখন চোখটা একটু চিকচিক করতে লাগলো। আমার বুকের মধ্যে মুখ রেখে ও বলল, “এখনও ভাবি, মরে গেলেও বোধহয় শান্তি পাবো না কোনোদিন। একজনকে ভালবেসে শেষ পর্যন্ত কি পেলাম? আমার জীবনটাকে এভাবে ছারখার করে দিল ও। দেখবে ওরও ভাল হবে না কোনদিন। জীবনে কোনদিন সুখী হতে পারবে না ঐ শয়তান লোকটা।”
বুকের মধ্যে দেবিকাকে শক্ত করে জড়িয়ে রেখেছি। কপালে চুমু খেয়ে বললাম, “আবার তুমি মরার কথা চিন্তা করছো? কেন তাহলে আমাকে এখানে নিয়ে এলে তুমি? মরতেই যদি চাও।”
বুকের মাঝে শক্ত করে চেপে ধরে আবার বললাম, “দেবিকা, আমার দেবিকা। তোমাকে ছাড়া আমিও বাঁচার কথা চিন্তা করতে পারি না আজ থেকে। তুমি আমি দুজনেই বাঁচবো। নতুন করে বাঁচতে শেখাবো তোমাকে। আর যেদিন মরবো, সেদিন দুজনে একসাথেই মরবো।”
দেবিকা মুখটা একটু তুলে বললো, “সত্যি বলছো? আমি মরলে তুমিও মরবে?”
বললাম, “সত্যিই তো বলছি। তোমাকে অত সহজে আমি আর মরতে দেবো না দেবিকা। আর যদি তোমাকে বাঁচাতেই না পারি। তাহলে জেনে রেখো, এই দেবও তোমার জন্য প্রাণটা দিয়ে দিতে রাজী থাকবে। আমার এই জীবনটা আজ থেকে শুধু তোমার জন্য, তুমি ছাড়া আমার জীবনের কোনো মূল্য নেই।”
।। আট ।।
পোশাকটা গায়ে আবার যথারীতি চড়িয়ে নিয়ে দেবিকা বলল, “চলো তাহলে তোমাকে একটু এগিয়ে দিই। বাড়ী ফিরবে যখন, এখন ধর্মতলা থেকে প্রচুর মেট্রো ট্রেন আছে। স্টেশন অবধি তোমাকে একটু পৌঁছে দিয়ে, তারপর না হয় আমি আবার ফিরে আসবো এখানে।”
ওর সঙ্গ আমার ত্যাগ করতে ইচ্ছ করছিল না একেবারেই। দেবিকাকে বললাম, “কাল সকালে তাহলে আমাদের দেখা হচ্ছে আবার। তোমাকে কি টালীগঞ্জে পাবো? তুমি আসবে আবার?”
দেবিকা বললো, “নিশ্চয়ই আসবো। রোজ তো যেতে পারি না এখন। তবে তোমার জন্য নিশ্চই আমি যাবো।”
আমি জামা প্যান্ট পরে নিয়ে ওর সাথে আবার হাত ধরাধরি করে বেরিয়ে আসলাম। পায়ে হেঁটে ধর্মতলায়। চারিদিকে লোকে লোকারণ্য। এর মধ্যেই হাত ধরাধরি করে হাঁটছে কত কিশোর কিশোরী আর যুবক যুবতী।
কিন্তু এই ভীড়ে লোকে কেমন আলাদা রকম চোখে দেখছে আমাকে। দেবিকার মতো সুন্দরী যুবতীকে পাশে নিয়ে হাঁটছি, হয়তো সেই জন্যই। ওকে জড়িয়ে ধরছি, রাস্তার মধ্যেই আদর করছি। ভালোবাসার উচ্ছ্বাসে ফেটে পড়ছি। আর আমার আচরণ দেখে বিস্মিত হয়ে যাচ্ছে সবাই। খুব কাছ থেকে কিছু লোক, আমাকে ওরকম করতে দেখে হাসতে হাসতে চলে গেলো। ভাবছি, যে যা ভাবছে, ভাবুক, আজ আমার এতে কোনো ভ্রূক্ষেপ নেই।
দেবিকা বলল, “চলো তোমার সাথে নিচে একেবারে পাতাল অবধি যাই। তোমাকে ট্রেনে তুলে দিয়ে, আমি আবার উঠে আসবো উপরে।”
সিঁড়ি দিয়ে পাতালের মধ্যে ঢুকে, আমি টিকিটের লাইনে দাঁড়ালাম। দেবিকাকে বললাম, “তোমার জন্যও একটা টিকিট কাটি। নইলে তো মেশিন আটকে দেবে। টিকিট ছাড়া ঢোকা যে অসম্ভব।”
তবু দেবিকা বললো, “কাটছো কাটো। কিন্তু আমার এখন টিকিট না হলেও চলে।”
ওর কথা শুনে একটু অবাক হলাম। তবুও টিকিট কাটলাম। দেবিকা অপেক্ষা করছে একটু পেছনে। কিন্তু কাউন্টার ছেড়ে বেরুবার পরেই লক্ষ্য করলাম, ও ওখানে আর দাঁড়িয়ে নেই। যেখানে দাঁড়িয়ে ছিল, সেখানে দেবিকা নেই। নিমেষের মধ্যে ভ্যানিস হয়ে গেছে, চোখের সামনে থেকে।
অবাক হলাম, এই তো ছিল কাছে। আবার তাহলে কোথায় গেল?
সন্ধেবেলা অফিস ফেরত নিত্যযাত্রীদের তাড়াহূড়োতে হূড়োহূড়ি। কিন্তু এর মধ্যেই দেবিকা আমার চোখের সামনে থেকে উধাও। মনটা ভীষন ব্যাকুল হয়ে পড়েছে। দেবিকা কোথায় হারিয়ে গেলো, ওকে খোঁজার জন্য আমি ছটফট করে এদিক ওদিক তখন দৌড়াদৌড়ি শুরু করেছি।
দেবিকাকে হঠাৎই লক্ষ্য করলাম ও হনহন করে এগিয়ে যাচ্ছে। একজন লম্বা ফর্সা পুরুষ টিকিট হাতে ধরে এগিয়ে যাচ্ছে মেশিনটার দিকে। ট্রেন ধরবে বলে অন্যকয়েকজন যাত্রীদের মতো সেও পা বাড়িয়েছে ঐ গেটের দিকে, আর দেবিকাও ঠিক যাচ্ছে ওর পেছনে পেছনে।
আমি চিৎকার করে উঠলাম, “দেবিকা, কোথায় যাচ্ছো তুমি? দেবিকা তুমি তো আমার কথার কোনো জবাব দিলে না।”
অদ্ভূত ব্যাপার। লোকটা টিকিটটা মেশিনে ঢুকিয়ে ভেতরে প্রবেশ করলো। কিন্তু দেবিকা ওর পেছনে পেছনে প্রবেশ করলো টিকিট ছাড়াই।
ট্রেন আসছে একটা দমদম থেকে। লোকটা তাড়াহূড়ো করে সিঁড়ি দিয়ে নামছে ট্রেনটা ধরবে বলে। দেবিকাও খুব দ্রুত পা চালিয়ে নামছে লোকটাকে পিছু পিছু ধাওয়া করে।
আমি অবাক হলাম। টিকিট মেশিনে ঢুকিয়ে আমিও দ্রুত ভেতরে প্রবেশ করলাম। দেবিকা তখন তরতর করে নীচে নেমে অনেকটা এগিয়ে গেছে সামনে। দূর থেকে দেখলাম দমদম থেকে টালীগঞ্জ যাবার ট্রেনটা তখন অনেকটাই এগিয়ে এসেছে সামনে। লোকটা প্ল্যাটফর্মের খুব ধারে চলে গেছে। দেবিকাও ঠিক ওর পেছনে। ট্রেন আরো সামনে আসা মাত্রই, পেছন থেকে আচমকাই লোকটাকে ঠেলা মারলো দেবিকা। লম্বা লোকটার শরীরটা ট্রেনের চাকার সামনে পরে গেলো। সেই সাথে দেবিকাও ঝাঁপ দিলো সামনে। মনে হলো ট্রেনের তলায় কাটা পরে ছিন্ন ভিন্ন হয়ে গেল দুজনের দেহটা।
ট্রেন দাঁড়িয়ে পড়েছে একটু দূরে। ড্রাইভার ব্রেক কষেও মনে হয় বাঁচাতে পারেনি ওদের দুজনকে। আতঙ্কে ছুটোছুটি শুরু করে দিয়েছে অনেকে। এগিয়ে দেখছে অনেকে, কি হলো শেষ পর্যন্ত ওদের দুজনের। আমি স্তম্ভিত। মর্মান্তিক একটা দৃশ্য দেখলাম চোখের সামনে। ভাবতেই পারছি না, দেবিকা এমন কাজটা করলো কি করে?
প্রতিশোধের আগুনটা জ্বলতে দেখেছিলাম দেবিকার শরীরে। ও বলেছিল, যদি কোনোদিন ওর পুরোনো প্রেমিককে ও দেখতে পায়, তাহলে শোধ তুলবে। উশুল করে নেবে নিজের অপূরনীয় ক্ষতিটাকে। কিন্তু তা বলে কি এইভাবে? একজনকে হত্যা করে, নিজেকেও আত্মাহুতির বলি দিয়ে? কেন দেবিকা এভাবে শেষ করে দিল জীবনটাকে? আমি তো ওকে নিয়ে নতুন স্বপ্নই গড়তে চেয়েছিলাম। নিজেকে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দেবার আগে দেবিকা একবারও কি আমার কথা চিন্তা করলো না।
ভাবছি, আর শরীরটা তখন থরথর করে কাঁপছে আমার। শুনেছি, মেট্রোর লাইনে ঝাঁপ দিয়ে নাকি প্রাণ হানির ঘটনা আকছার ঘটে। কিন্তু আজ যা চোখের সামনে দেখলাম, কেউ হয়তো জীবনে কল্পনাও করতে পারবে না।
আর একটু আগে থেকে যদি তৎপর হতাম, দুটো প্রাণকেই হয়তো আমি বাঁচাতে পারতাম।
[size=undefined]
কর্তা ব্যক্তিরা এরপর সব একে একে এলেন। লাইন থেকে দেহ দুটো তোলার তোড়জোড় চলছে। একজন তার মধ্যে বললেন, দু মাস আগে একটি অল্পবয়সী মেয়ে ঝাঁপ দিয়েছিল লাইনে। আজ আবার একটি নিত্যনৈমিত্তিক ঘটনা ঘটলো। তবে এবার মনে হয় কোনো একজন পুরুষের প্রানহানি ঘটেছে। সবাই তো তাই বলছে। সিসিটিভি ক্যামেরাতেও তাই ধরা পরেছে।
আমি খুব কাছেই ছিলাম, বললাম, “না না কি বলছেন, আমি দেখেছি, দুজনকে। একটি লোক আর তার পেছনে ছিল একটি মেয়ে। মেয়েটি পেছন থেকে ধাক্কা মেরেছে লোকটাকে। তারপর নিজেও প্রাণ দিয়েছে।”
ওরা বললো, “আপনি কাকে দেখেছেন? আমাদের ক্যামেরাতে তো সেরকম কোনো মেয়ের ছবি ধরা পরেনি। যে লোকটা পড়ে গেল ট্রেন আসার আগের মূহূর্তে। ওর পেছনে তো কোন মেয়ে ছিল না।”
আমি অবাক হলাম। কি বলছে এরা? আমি দেবিকাকে দেখলাম। ও এতক্ষণ আমার সাথে ছিল। আমি ওর সাথে যৌনসঙ্গম করলাম। আমাকে ও দূঃখের কাহিনী শোনালো। তারপরই এই ঘটনা। অথচ এরা বলছে কোনো মেয়ে ঝাঁপ দেয় নি? এর মানেটা তাহলে কি?
একজন তার মধ্যে একটু আমার সাথে আলাদা করে কথা বলার জন্য এগিয়ে এলেন। বললেন, “কি ব্যাপারটা কি বলুন তো? আপনি সঠিক কি দেখেছেন?”
ওনাকে সমস্ত ঘটনাটাই খুলে বললাম। উনি হেসে বললেন, “আপনি সুস্থ আছেন তো? কি যা তা বলছেন। একটি মেয়ে পেছন থেকে লোকটিকে ধাক্কা মেরেছে। আপনি বলছেন দেখেছেন। অথচ আর কেউ দেখেনি। এও কি হতে পারে নাকি?”
আমি চেঁচিয়ে বললাম, “কেন আমার কথা আপনারা বিশ্বাস করছেন না? আমি সত্যি দেখেছি। মেয়েটির সাথে টালীগঞ্জ থেকে একসাথে ট্রেনে করে আমি এসেছি। মেয়েটি আমার সাথে এতক্ষণ ছিল। আমি ওর বাড়ী গেছি। ওর সাথে কথা বলেছি। ওর সাথে প্রেম ভালবাসা করেছি। শরীরে শরীর বিনিময় করেছি। একসাথে জীবন কাটাবো বলে চিরপ্রতিজ্ঞা করেছি। মেয়েটি ওর দূঃখের কাহিনী শুনিয়ে আমাকে ওর পুরোনো প্রেমিকের কথা বলেছে। যে ওর সাথে প্রতারণা করেছে, ওর জীবনটাকে নষ্ট করেছে। তাকেই ও ধাক্কা মেরেছে পেছন থেকে। আমি সচক্ষে দেখেছি।”
আশে পাশের লোকজন ভীড় করে ফেলেছে আমার কথা শোনবার জন্য। কেউ মুখ চাওয়া চাওয়ি করছে। কেউ বা করছে হাসাহাসি। ভাবছে কি পাগলের প্রলাপই একনাগাড়ে করে যাচ্ছে লোকটা।
আমি অধীর আগ্রহ নিয়ে অপেক্ষা করছি। আর ভাবছি দুটো দেহ যখন একসাথে ট্রেন লাইন থেকে তোলা হবে, তখনই বোধহয় ভুলটা এদের ভাঙবে।
লোকটির ছিন্ন ভিন্ন দেহটাকে কাপড়ে মুড়ে যখন ট্রেন লাইন থেকে তোলা হলো, তখন সত্যি আমার কথা মিথ্যে প্রমাণিত হয়ে গেল। ওর দেহের সাথে আর কোনো মৃতদেহ তখন ছিল না। কোনো মেয়ের দেহ পাওয়া যায় নি। দেবিকার শরীরটাকে খুঁজে পায়নি উদ্ধারকারী দল।
দেবিকা আমাকে কথায় কথায় বলেছিল, “ও আমাকে পেছন থেকে ধাক্কা মেরে……” তখন কথাটা ধরতে পারিনি। দেবিকা বলেছিল আমি মরেও শান্তি পাবো না। এই দুটো কথার মধ্যেই ও বোঝাতে চেয়েছিল, যাকে নিয়ে স্বপ্ন দেখছো তুমি, সে আর ইহজগতে বেঁচে নেই। এই পাতালেই মৃত্যু ঘটেছে তার।
পুরোনো রেকর্ড বলছে, দুমাস আগে একটি সুন্দরী মেয়ের মৃত্যু হয় বালীগঞ্জ স্টেশনে। কিন্তু সেটি আত্মহত্যা না কি হত্যা? সে রহস্য ভেদ করতে পারেননি কেউ । কিন্তু পেরেছি আমি। দেবিকার আত্মাটা শুধু ঘুরে বেড়াচ্ছিল এতদিন,এ স্টেশন থেকে ও স্টেশনে। ওর আত্মার সাথে যৌনসংসর্গ করেছি আমি। ভাবতেও গায়ে কেমন কাঁটা দিচ্ছে। দেবিকা প্রতিশোধ নিয়েছে। আর ওর আত্মারও মুক্তি ঘটেছে চিরতরে।

***সমাপ্ত***

গল্পটি কেমন লাগলো ?

ভোট দিতে স্টার এর ওপর ক্লিক করুন!

সার্বিক ফলাফল 0 / 5. মোট ভোটঃ 0

এখন পর্যন্ত কোন ভোট নেই! আপনি এই পোস্টটির প্রথম ভোটার হন।

Leave a Comment