পাপ কাম ভালোবাসা ২ [১]

Written by MegaAgun

প্রথমেই বলে রাখি ‘পাপ কাম ভালোবাসা ২’ গল্পটি পিনুরামের লেখা নিষিদ্ধ গল্প ‘পাপ কাম ভালোবাসা’ থেকে অনুপ্রানিত হয়ে লেখা… গল্পের চরিত্র একই আছে… শুধু যেখানে গল্পটি শেষ হয়েছিল সেখান থেকে আমার গল্পটি শুরু হয়েছে… পিনুরামের গল্পটিতে ছিল অনেক উত্থান-পতন… কিন্তু আমার গল্পটি আপনাকে শুধুই উত্তেজিত করবে… এখানে বলে রাখা ভাল আমি কোন লেখক নই… তাই এই গল্পের বেশিরভাগ বর্ণনাই আমার ভাল লাগা বিভিন্ন গল্প থেকে নিয়ে এই গল্পের পরিপেক্ষিতে অদল বদল করা হয়েছে… তাই বলে সবই আবার সংগ্রহীত নয়… আমারও অবদান আছে এই গল্পের কাহিনীতে… গল্পটা কতদুর নিয়ে যাব তা আপনাদের উপর নির্ভর করছে… যদি ভাল লাগে জানাবেন… পোস্ট দিব… আর পরিশেষে পিনুরাম সহ তাদের সবাইকে ধন্যবাদ যাদের বিভিন্ন গল্পের বর্ণনা আমার এই গল্পে অন্তর্ভুক্ত করেছি… সবার নাম জানা নেই তাই ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি… কারও যদি ভাল না লাগে বা মনে হয় আগেও পড়েছি তাহলে প্লিজ আমার গল্পটি পড়া বন্ধ করে থ্রেড থেকে বের হয়ে যাবেন কিন্তু উলটাপালটা পোস্ট দিবেন না।

প্রারম্ভিক
টানা ২০ দিন হাসপাতালের বিছানায় শুয়ে থাকার পর ছাড়া পায় দেবায়ন। দেবায়ন আগেই চলে আসতে চেয়েছিল, কিন্তু সবার এক কথা… সম্পূর্ণ সুস্থ না হয়ে হাসপাতাল থেকে বের হতে পারবে না সে। কি আর করা? বাধ্য হয়েই তাকে এই কয়দিন হাসপাতালে থাকতে হল। যদিও সে জানে সবাই তার ভালই চায়। তার অসুস্থতায় ব্যবসায় যাতে কোন ক্ষতি না হয় সেজন্য রূপক আর শ্রেয়া দিন রাত খাটতে লাগলো… এরই মাঝে রূপক জার্মানি গেল মিস্টার হেরজগের সাথে দেখা করতে… জার্মানিতে তাদের আইটি বিজনেস এর সুনাম দিন দিন বেড়ে চলছে… কি করে সেখানে আর পাকাপোক্ত ভাবে বিজনেস করা যায় সেই বিষয়েই কথা বলবে তার সাথে… জার্মানিতে দেবায়নেরই যাওয়ার কথা ছিল… কিন্তু শরীর তখনও ভাল হয়নি বলে দেবায়নের পরামর্শে রূপক গেছে… আর অনুপমা দেবায়নকে নিয়ে ব্যস্ত বলে অফিস সামলানোর ভার পরে শ্রেয়া আর পায়েলের উপর… এর মধ্যেই তার আর অনুপমার বিয়ের তারিখ ঠিক করে ফেলেছে তাদের বাবা মা। আজ থেকে ঠিক ২৯ দিন পর শীতের মাঝামাঝি সময়ে তাদের বিয়ে। সবাই খুব উল্লাসিত… বিয়ের কেনাকাটা নিয়ে ব্যস্ত। অনুপামা আর দেবায়নের জীবনের মধুক্ষণের আগে বাকি এই কয়টা দিনের গল্প নিয়েই ‘পাপ কাম ভালবাসা ২’

বউ-শাশুড়ির যুদ্ধ
দেবায়নকে নিয়ে অনুপামা সোজা দেবায়নের বাসায় উঠলো। আসতে আসতে রাত ৮টা বেজে গেল। অনুপমা তার মাকে ফোন দিয়ে বলে দিল আজ রাতে সে দেবায়নের বাড়ীতেই থাকবে। পারমিতা দেবায়নকে দেখতে বাসায় আসতে চাইল, কিন্তু অনুপমা বলল কষ্ট করে এত রাতে আর আসতে হবে না কাল আসলেও চলবে। পারমিতা অনুপমাকে দেবায়নের যত্ন নিতে বলে ফোন রেখে দিল। কতদিন সে দেবায়নের স্পর্শ পায়নি, আজ মন ভরে তার আদর নিবে এই চিন্তা মাথায় আসতেই তার শরীর গরম হয়ে গেল।
এদিকে দেবশ্রী ছেলের আগমন উপলক্ষে তার পছন্দের সব আইটেম রান্না করেছে। খেতে বসে তার পছন্দের সব খাবার দেখে আনন্দে মাকে জড়িয়ে ধরে মায়ের গালে ভিজে চুমু এঁকে দিল দেবায়ন, ঠিক তার বান্ধবীর মতো। অনেক দিন পর গালে ছেলের ঠোঁটের স্পর্শ পেয়ে দেবশ্রীর শরীরে শিহরণ খেলে গেল। আর একজন নারী কখন শিহরিত হয় তা আরেকজন নারী ঠিকই বুঝতে পারে। দেবায়নের স্পর্শেই যে দেবশ্রী শিহরিত হয়েছে তা ঠিকই অনুপমা বুঝতে পেরেছে। এমনিতেই দেবায়নেকে অনেকদিন পর কাছে পাবে চিন্তাতে সে গরম হয়ে ছিল তার উপর ছেলের স্পর্শে দেবশ্রীর চোখ বন্ধ হয়ে গেছে, তা দেখে অনুপমা আরও উত্তেজিত হয়ে উঠলো। এটা যে নিষিদ্ধ কামের উত্তেজনা তা বুঝতে পেরে অনুপমার গাল লজ্জায় লাল হয়ে গেল। সে নিজেকে শান্ত করে নিল। দেবশ্রীর জন্য অনুপমার অনেক খারাপ লাগল। তার হবু শাশুড়ি (যাকে নিজের মায়ের থেকেও বেশি ভালবাসে অনুপামা) যে অনেক দিনের অভুক্ত তা বুঝতে পারে সে। জানে ধৃতিমানের পর তার লক্ষী মামনিটা আর কাওকেই আপন করে কাছে টেনে নেয়নি। দেবায়ন যেমন অনুপমার মায়ের চাহিদা পূরণ করেছে তাকে কাছে টেনে অনুপমা মনে মনে ঠিক করল দেবায়নের মায়ের দৈহিক চাহিদা মিঠানোর ব্যবস্থা সেই করবে।
এদিকে অনেকদিন পর ছেলের এমন উষ্ণ আলিঙ্গনে দেবশ্রীর মাথা প্রায় নষ্ট হয়ে যাওয়ার অবস্থা। হঠাৎ অনুপমার কথা মনে হতেই লজ্জায় কান লাল হয়ে গেল তার। কোনমতে দেবায়্নকে ধাক্কা দিয়ে সরিয়ে দিল দেবশ্রী। লজ্জায় অনুপমার দিকে তাকাতে পারল না সে। দেবায়ন অবশ্য এই স্বল্প সময়ে তার জীবনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দুই নারীর মধ্যে কি ঘটেছে তা বুঝতে পারল না। সে চেয়ার টেনে বসে পড়ল খেতে। দেবশ্রী অনুপমার পাশে বসলো। দুজনের থালায় খাবার দিয়ে নিজেও নিল, কিন্তু কেন জানি সে খেতে পারছে না। নিজের হবু বউমার সামনে তারই নিজের ছেলের আলিঙ্গনে সেক্সের জ্বালায় পাগল হয়ে যাওয়ার জন্য নিজেকে ধিক্কার দিল। অনুপমা পাশে বসে ঠিকই বুঝতে পারল তার মামনি তার কথা ভেবেই লজ্জা পাচ্ছে। মামনিকে সান্ত্বনা দিতে মামনির বাম হাতের মুঠি তার হাত দিয়ে চেপে ধরল। নিজের হাতের উপর অনুপমার হাতের ছোঁয়া পেয়ে আঁতকে উঠলো সে। চট করে অনুপমার দিকে ফিরে তাকাল সে। অনুপমা তার দিকে তাকিয়ে মুচকি হাসি দিল; সাথে সাথেই দেবশ্রী বুঝে গেল সে ধরা পরে গেছে অনুপমার কাছে। লজ্জায় মাথা নিচু করে ফেলল সে। অনুপমা তার দিকে ঝুঁকে কানে কানে বলল ‘Take it Easy Mamoni…’
কি বুঝাতে চায় অনুপমা? সেকি ওপেন রিলেশনশিপে বিশ্বাসী? সেকি তার এই নতুন মামনির কষ্ট বুঝতে পেরেছে?… চিন্তাগুলো তার মাথার ভিতর ঘুরপাক খেতে লাগলো… দেবায়ন খাওয়া শেষ করে উঠে পড়ল… মাকে বলল একটু বাইরে যাচ্ছে, বন্ধুদের সাথে দেখা করতে, ঘণ্টা দুইয়ের ভিতরেই ফিরে আসবে…। তারপর মায়ের সামনেই অনুপমাকে একটা চুমো দিয়ে বের হয়ে গেলো।
দেবশ্রী কোনমতে খাওয়া শেষ করে ময়লা থালা বাসনগুলো নিয়ে উঠে পড়ল… বাহিরে যাওয়ার দরজাটা বন্ধ করে রান্নাঘরে গিয়ে ময়লা বাসনগুলো ধুতে লাগলো। ধোওয়া শেষ হতেই ড্রইংরুমে বসে টিভি দেখতে লাগলো…
অনুপমার খাওয়া শেষ হতেই হাত ধুয়ে হবু শাশুড়ির পাশে গিয়ে বসলো।
অনুপমা – মামনি কী দেখছো টিভি তে।
দেবশ্রী – কি আর দেখবো… সিরিয়ল দেখছি একটা।
অনুপমা – ধুর আমার এগুলো ভালো লাগে না, আমি বুঝি না, কে যে কার বৌ।
দেবশ্রী – হা হা হা… তা ঠিক বলেছিস।
অনুপমা – হুম শুধু যৌনতাকেই উসকানি দেয় সিরিয়াল গুলো…
দেবশ্রী – অবাক হয়ে বলল, ধ্যাত তাই না কী। কই আমি ভাবি নি তো।
অনুপমা – হ্যাঁ মামনি দেখো ওই মহিলাটাকে। তোমার থেকে বয়সে বড় অথচ পোষাক পড়ার স্টাইল দেখো। শরীর দেখাতেই যেন বেশি ভালোবাসে।
দেবশ্রী – ওনার যা বয়স উনি দেখালেই কেউ দেখবে কেনো।
অনুপমা – কী যে বল মামনি। তুমি দেখি কিছুই জানো না… এখানকার ছেলে ছোকরারা তো বয়স্ক মহিলাই পছন্দ কারে।
দেবশ্রী – কী যে বলিস না…
অনুপমা – হ্যাঁ মামনি এটাই সত্যি। এই দেখো না তুমি যখন আমার সাথে কোথাও যাও আমি যতই সাজ়ি, ছেলে গুলো দেখি তোমার দিকে হাঁ করে তাকিয়ে আছে। আমার তো খুব হিংসা হয় তোমাকে দেখে।
দেবশ্রী হাসতে হাসতে বললো – ধুর পাগলী আমি তো বুড়ি হয়ে গেছি। এই বয়সে কী আছে আমার।
অনুপমা – মামনি তুমি জানো না কী আছে তোমার। তোমার বুক আর পাছা দেখার জন্য সবাই পাগল।
দেবশ্রী – চুপ করবি তুই?… অসভ্য।
অনুপমা – এরপর তুমি যখন রাস্তায় বেরোবে ছেলে গুলোর চোখকে লক্ষ্য করবে, নিজেই বুঝতে পারবে।
অনুপমা কিছক্ষন চুপ থেকে টিভি দেখে আবার কথা বলে উঠলো – মামনি তোমাকে কিন্তু শাড়িতে বেশ মানায়। তোমার পাছাটাকে বেশ বড় মনে হয়…
দেবশ্রী – কী যাতা বলছিস।
অনুপমা – হ্যাঁ মা। পাছা দেখিয়েই তো ছেলেদের মন জয় করতে হয়।
দেবশ্রী – আমি ওসব বুঝিনা বাপু, পড়তে হয় তাই পড়ি।
অনুপমা – হ্যাঁ মামনি তোমার শরীরটা এমন যে যা পড়বে তাতেই মানাবে। দেখনি যখন সুট পড়ে অফিসে যেতে সবাই কেমন ডেব ডেব করে তোমার দিকে তাকিয়ে থাকতো…
দেবশ্রী – সত্যি তুই না খুব বাজে হয়েছিস।
অনুপমা শাশুড়ির হাসি মাখানো ধমক শুনে আরও প্রশ্রয় পেলো।
অনুপমা – মামনি… বাড়িতে তো তুমি নাইটি পড়তে পারো। অনেক খোলা মেলা থাকতে পারবে।
দেবশ্রী – আগে পরতাম তো… কিন্তু এখন পড়ি না… ছেলে বড় হয়েছে তাই…
অনুপমা – তাতে কি?…
দেবশ্রী – না রে আমার লজ্জা করে।
অনুপমা – মামনি, একটা কথা রাখবে?…
দেবশ্রী – কি কথা রে?
অনুপমা – একটা নাইটি পরে আসবে… একটু দেখতাম নাইটিতে কেমন লাগে তোমাকে?
দেবশ্রী – এখন? না না আমি পারব না… যে কন মুহূর্তে দেবায়ন চলে আসবে…
অনুপমা – ওর আসতে দেরি আছে… প্লিজ মামনি যাও না… প্লিজ…
দেবশ্রী – তুই আর দেবায়ন না এক রকম… একটা কথা বললে না রাখা পর্যন্ত শান্তি নেই… পরবো এক শর্তে… তকেও আমার সাথে নাইটি পরতে হবে…
অনুপমা – আচ্ছা মামনি, তুমি পরলে আমিও পরবো…
অনুপমা একটা হলুদ রংয়ের ফিতে লাগানো নাইটি পড়লো। যার ঝুল হাঁটু পর্যন্ত। নীচে শুধু প্যান্টি পড়েছে। আর দেবশ্রী ব্রাউন কালার এর স্লীভলেস নাইটি পড়লো। পিঠটা অনেকটা খোলা… নাইটির নীচে একটি লেস এর ব্রা আর প্যান্টি… ব্রায়ের উপর দিয়েই দুধের বোঁটা স্পষ্ট ফুঁটে উঠেছে।
অনুপমা – মামনি তোমাকে যা সেক্সী দেখাচ্ছে না… আমি যদি পুরুষ হতাম না… ইসস্স যে এখন দেখবে তোমাকে খেয়ে ফেলবে…
দেবশ্রী – এগুলো পরে আমি কাকে দেখবো বল দেখি।
অনুপমা – এগুলো ঘরে পড়বে। বাড়িতে এরকম একটু খোলা মেলা পোষাক পড়া যায়।
দেবশ্রী – তুই যে কী বলিস। দু’দিন পর ছেলের বিয়ে আর এখন এগুলো পড়বো…
অনুপমা – মামনি তোমার এই সেকলে মেন্টালি চেঞ্জ করতে হবে বলেই তো এই পোষাক গুলো পড়া।
অনুপমা আর থাকতে পাড়লো না… সে তার নিজের হবু শাশুড়িকে জড়িয়ে ধরলো। ঘাড়ে গলায় চুমু খেতে থাকলো।
দেবশ্রী – এই কী কারছিস… ছাড় আমাকে… ছাড় বলছি।
অনুপমা দেবশ্রীকে না ছেড়ে নাইটির ভিতর দিয়ে তার পেটে হাত বুলিয়ে দিতে লাগলো আর এক হাত নিয়ে গেলো ব্রায়ের হুকে। অনুপমা তার হবু শাশুড়ি কানের লতিতে হালকা করে কামড় দিলো।
দেবশ্রী – আাহঃ ছাড় প্লীজ… এই কী কারছিস… আাহঃ… ছাড়রররর…
অনুপমা ব্রা এর হুক খুলে একটানে নাইটি খুলে ছুঁড়ে দিল। ইষৎ ঝুলে যাওয়া দুধ গুলো টিপতে লাগলো… চাপা শীত্কার দিতে লাগলো দেবায়নের মা।
অনুপমা দুধের বোঁটায় মুখ নিয়ে গেলো, চুষতে লাগলো দুধগুলো… দেবশ্রী আর নিজেকে ধরে রাখতে পড়লো। নিজের ভেতরের নিভে যাওয়া আগুনে যেন নতুন করে আগুন জালানো হলো। অনুপমার মাথা নিজের বুকে চেপে ধরে আাহঃ করতে করতে জল খসিয়ে দিলো… অনুপমা বুঝতে পেরে হাত নিয়ে গেলো প্যান্টিতে আর বলল, দিলেন তো মামনি প্যান্টিটা ভিজিয়ে।
দেবশ্রী – দস্যি মেয়ে একটা তুই দূর হো আমার সামনে থেকে…
মুখে বললেও অনুপমাকে নিবিড় করে বুকে জড়িয়ে ধরল… তারপর নিজেকে এলিয়ে দিলো। অনুপমার হাত ঢুকে গেলো প্যান্টির ভেতর। একটা আঙ্গুল দিলো যোনিতে… রসে ভড়া যোনিতে পুচ করে ঢুকে গেলো। কামনায় কাঁপতে কাঁপতে মনে মনে হবু বৌমাকে থ্যাংক্স জানালো। মুহূর্তের মধ্যে আবার অর্গাজম হোল তার… অনুপমা তার যোনি থেকে আঙ্গুল বের করে মুখে নিয়ে চুষে দিল… দুজনে আবার শাড়ি পরে ফেলল…
অনুপমা – মামনি তুমি যা সেক্সী না, দেখলেই আদর করতে ইচ্ছে করে… তাই আর নিজেকে আটকাতে পারলাম না…
দেবশ্রী – আমার থেকে তুই বেশি সেক্সি, বুঝলি…
অনুপমা – আমি তো মেয়ে, তোমাকে ছেলেরা পেলে ছিড়ে খাবে একেবারে…
দেবশ্রী – তোর কী বাড়িয়ে বলার অভ্যেটা যাবে না।
অনুপমা – কী বলছেন মামনি? এটাই সত্যি… আগে একটা ছেলের বুকে ধরা দাও… তখন নিজেই মিলিয়ে দেখবে।
দেবশ্রী – আমি আর এ বয়সে কোথায় ছেলে খুজতে যাবো…
অনুপমা – বাইরে যেতে হবে কেন? ঘরে ভেতরেই খুঁজে নাও না… মানা করেছে কে?
দেবশ্রী – ঘরের ভেতরে মানে?
অনুপমা – কেন নিজের ছেলেকে কি চোখে লাগে না?
দেবশ্রী একটু রাগ করে বললো, তোর যাতা কথা বলা বন্ধ কর তো… তোর মাথা ঠিক আছে তো?
অনুপমা – মাথা ঠিক থাকবে না কেন? মাথা ঠিকই আছে… তুমি খালি একবার হাত বাড়িয়ে দেখ… তোমার ছেলেকে তো আমি চিনি… সে লাফ দিয়ে তোমার বুকে ধরা দিবে…
দেবশ্রী – ছিঃ ছিঃ তাই বলে নিজের ছেলেকে দিয়ে… তাছাড়া সে না দ’দিন পর তোর বর হতে যাচ্ছে?
অনুপমা – ঠিক আছে তোমার মন চাইলে থাক… আমি আছিনা… আমিই তোমার কষ্ট দূর করে দিব… তারপর না হয় আস্তে আস্তে তোমার ছেলেকে দিয়ে তোমাকে…
অনুপমার কথা শেষ না হতেই দেবশ্রী নিজের হবু বৌমার ঠোট মুখে নিয়ে চুষতে লাগলো। অনুপমাকে জড়িয়ে ধরে, অনুপমার নীচের ঠোট চুষতে লাগলো। অনুপমার মুখে জীব ঢুকিয়ে দিলো। অনুপমা ও জড়িয়ে ধরলো দেবশ্রীকে।
কিছুক্ষণ পর হঠাৎই অনুপমাকে দূরে সরিয়ে বলছে … না না আমি পারবো না। নিজের ছেলের সাথে… না না…
দৌড়ে দেবশ্রী অন্য ঘরে চলে গেলো।
অনুপমা ঠিক করল, নিজের হবু শাশুড়িকে আরেক বার খেলাবে। তাই পিছন পিছন ছুটে গেল সে… দেখে ডাইনিং রুমে চেয়ার ধরে দারিয়ে আছে তার মামনি…
অনুপমা – আচ্ছা মামনি আমি আর দেবায়নের কথা তোমাকে বলবে না… কিন্তু তুমি বিশ্বাস করো মামনি, ওর ইয়া মোটা পুরুষাঙ্গটা দিয়ে যখন ঘন্টার পর ঘণ্টা আমার সাথে সঙ্গম করে না… কি বলব তোমাকে… আহঃ আমার তো ৪/৫ বার জল খসে যায়।
দেবশ্রী কৌতুহলি হয়ে জিজ্ঞেস করে … তোর ব্যাথা লাগে না…
অনুপমা – না তখন খুব আরাম, ব্যাথা অল্প লাগলেও আনন্দই বেশি…
অনুপমার লক্ষ্য করেছে দেবশ্রীর চোখের ভাসা। সে যে নিজের ছেলেকে কামনা করছে সেটা বুঝতে পেরেছে সে।
অনুপমা মজা করে বলল, তোমার ছেলের মতো কাউকে পেলে আর তোমার সুখের শেষ থাকবে না। দেখবে নাকি নিজের ছেলেকে একটু চেখে।
দেবশ্রী – চুপ করতো, এসব ইয়ার্কি আমার একদম ভালো লাগে না।
অনুপমা – আচ্ছা বাবা আচ্ছা, এই কানে ধরলাম… আর কখন দেবুর কথা বলব না তোমাকে… এবার কাছে আস তো দেখি… আজ এখনই তোমাকে সুখের রাজ্যে নিয়ে যাই…

কথাগুলো বলেই অনুপমা তার মামনির জড়িয়ে ধরতে গেলো … কিন্তু তাদের মধ্যে এতো কিছু হওয়ার পরেও দেবশ্রী লজ্জায় দৌড় দিয়ে রান্নাঘরে চলে গেল… রান্নাঘরে গিয়ে অবশিষ্ট থালা-বাসন গুলো ধুতে লাগলো…
কিছুক্ষন পর দেবশ্রী অনুভব করলো অনুপমা তার পিছনে দাঁড়িয়ে আছে… তার বুক ধুক ধুক করতে লাগলো… কত রাত সে অনুপমার সাথে ঘুমিয়েছে কই কখনোতো এমন লাগেনি… তাহলে আজ্ তার কি হল? কি করছে সে তার হবু বউমার সাথে… হয়তবা তার বউমা একটু পাগলামি করেছে, তাই বলে সে কেন সেই পাগলামিতে সায় দিতে গেল… নাহ… এই ভাল লাগাকে আর সায় দেয়া যাবে না… দেবায়ন জানতে পারলে কেলেংকারী হয়ে যাবে… কিন্তু যখন অনুপমা আস্তে আস্তে দেবশ্রীর পিছনে এসে দাঁড়ালো… ঘাড়ে অনুপমার গরম নিঃশ্বাস পড়লো সব ভুলে দেবশ্রীর শরীরে কাঁটা দিয়ে উঠলো। থালা বাসন ধুতে ধুতে হঠাৎ তার হাত থেমে গেল… সময় যেন থমকে গেছে.. অনুপমার নিঃশ্বাসের শব্দ পানি পরার শব্দের থেকেও জোড়ে এসে দেবশ্রীর কানে বাজতে লাগলো… অনুপমা ফিসফিসিয়ে দেবশ্রীর কানের কাছে ডেকে উঠলো ‘মামনি…’
দেবশ্রী অনুপমার উপস্থিতি জানা সত্ত্বেও আঁতকে উঠে ঘুরে দাঁড়ালো… ঘুরতে গিয়ে হাত থেকে কাঁচের বাসন পরে গিয়ে টুকরো টুকরো হয়ে গেল… কাঁচের ছোট্ট একটা কণা এসে দেবশ্রীর পায়ে বিঁধল… দেবশ্রী ব্যথা পেয়ে উঁহ করে উঠলো… অনুপমা তাড়াতাড়ি নিচু হয়ে কণাটি মামনির পা থেকে বের করে দিল… তারপর পানি বন্ধ করে তাকে ধরে এনে সোফাতে বসিয়ে দিল… পা উঠিয়ে দেখল জখম বেশি পেয়েছে কিনা… পা উঠিয়ে ধরার কারনে দেবশ্রীর শাড়ী হাঁটু পর্যন্ত উঠে গেল… লজ্জায় সে চোখ বন্ধ করে ফেলল…
দেবশ্রীঃ ছেড়েদে… কিছু হয়নি… (লজ্জায় এখনও সে চোখ খুলতে পারেনি)
অনুপমাঃ চুপটি করে বসে থাক… রক্ত বের হচ্ছে আর বলে কিছু হয়নি…
কথা বলতে বলতেই অনুপমা পায়ের পাতায় মুখ নামিয়ে আনল… চোখ বন্ধ থাকার কারনে দেবশ্রী দেখতে পায়নি অনুপমা কি করছে… পায়ের পাতায় ঠোঁটের স্পর্শ পেতেই দেবশ্রী বুঝে গেল অনুপমা কি করতে চলেছে… অতি সুখে বাকরুদ্ধ হয়ে গেল সে… অনুপমা পায়ের পাতা থেকে সব রক্ত শুষে খেয়ে ফেলল… এই সামান্য শোষণেই দেবশ্রীর দুই থাইয়ের মাঝে বান ডাকল… দুই থাই শক্ত করে চেপে ধরে রাখল সে… এদিকে যেন নেশায় পেয়েছে অনুপমাকে… সে পায়ের পাতা থেকে ঠোঁট সরিয়ে পায়ের আঙুলে ঠোঁট নিয়ে এল… তারপর এক এক করে প্রতিটি আঙুল মুখে নিয়ে চুষতে লাগলো… পাগল হয়ে গেল দেবশ্রী… ছেলে, সমাজ, সম্পর্ক সব ভুলে গেল সে…
একটানে অনুপমাকে টেনে তুলে নিজের কাছে নিয়ে এল… দুহাত দিয়ে অনুপমার মুখ ধরে কিছুক্ষন তার চোখের দিকে তাকিয়ে থাকলো… তারপর আস্তে আস্তে নিজের ঠোঁট নামিয়ে আনল অনুপমার ঠোঁটের উপর… একজন ক্ষুদার্থ মানুষ যেমন অনেক দিন পর খওয়া পেলে খাবার মুখে দিয়ে গোগ্রাস গিলতে থাকে তেমনি দুজন দুজনের ঠোঁট চুষতে লাগলো… একজন আরেকজনের মুখে জিহ্বা ঢুকিয়ে খেলতে লাগলো… অনুপমার ঠোঁট এতই রসালো হয়ে গেছে যে বার বার পিছলিয়ে বের হয়ে যেতে চাচ্ছে… মনে হচ্ছে শরীরটাও ভারি হয়ে গেছে… দেবশ্রী বুঝল এভাবে বেশিক্ষন অনুপমাকে ধরে রাখা যাবে না… সে অনুপমাকে তুলে নিজের বেডরুমের দিকে নিয়ে চলল। রুমের দিকে যেতে যেতে দুজন দুজনকে জড়িয়ে ধরে থাকলো… অনুপমার ব্লাউজের গলা পিছনে অনেক বড়। খালি পিঠে দেবশ্রীর হাতের ছোঁয়া পেয়ে অনুপমার শরীরে কাঁটা দিয়ে উঠল। সাথে সাথে শরীরের প্রতিটি লোমকুপ দাঁড়িয়ে গেল। জোড়ে শ্বাস নিল সে। দেবশ্রীর বুকের মাতাল করা ঘ্রান তাকে পাগল করে দিল। সব কিছু ভুলে দেবশ্রীর বুকে মুখ ঘষতে লাগল সে। বুকে অনুপমার মুখের ঘষা দেবশ্রীকেও পাগল করে দিল। সে হাত দিয়ে নিজের বুকের উপর থেকে শাড়িটি সরিয়ে দিল। শুধু ব্লাউজের আঁড়ালে থাকা দেবশ্রীর দুধ দেখে অনুপমা পাগল হয়ে গেল। হিতাহিত জ্ঞান হারিয়ে ব্লাউজের উপর দিয়েই সে দেবশ্রীর একটি স্তন মুখে পুরে চুষতে লাগল।
কিছুক্ষন চুষতে দিয়ে দেবশ্রী অনুপমার মাথা সরিয়ে দিল। তারপর ব্লাউজ না খুলেই নিজের বুকের ভিতর হাত ঢুকিয়ে একটি দুধ বের করে আনল। নিপল সহ অর্ধেক স্তন বেরিয়ে আসল। নিপলটি ঠিক যেন আঙ্গুরের মত দেখতে। দেখলে মনে হয় সুরের মূর্ছনায় তিরতির করে কাঁপছে। অনুপমা পাগলের মত দেবশ্রীর উপর ঝাপিয়ে পড়ল। তাল সামলাতে না পেরে দেবশ্রী বিছানায় শুয়ে পড়ল। অনুপমাও তার উপর শুয়ে পড়ল। তারপর মুখ বাড়িয়ে দেবশ্রীর খোলা স্তনটি নিপল সহ মুখে পুরে নিয়ে চুষতে লাগল। দেবশ্রী অনুপমার মাথা নিজের বুকে চেপে ধরে থাকল। অনুপমা সম্পূর্ণ স্তন কিছুক্ষন চুষে শুধু নিপলটা মুখে রেখে দুধের বাকি অংশ মুখ থেকে বের করে দিল। তারপর নিপলের মাথাটি জিহ্বা দিয়ে কিছুক্ষন নাড়াচড়া করে দুপাশের দাঁত দিয়ে ছোট ছোট কাঁমড় দিতে লাগল। মিষ্টি মিষ্টি ব্যাথা আর উত্তজনায় দেবশ্রীর দুই রানের মাঝখানটি ভিজে চপচপ করতে লাগল। অনুপমা দেবশ্রীর নিপলটি দাঁত দিয়ে ধরে উপরের দিকে জোরে একটা টান দিয়ে আবার ছেড়ে দিল। ব্যাথায় দেবশ্রীর গলা ছিঁড়ে উহ্ শব্দটি বেরিয়ে আসল। দেবশ্রী অনুপমাকে টেনে উপরে নিয়ে আসল। অপলক চোখে দুজন দুজনের দিকে তাকিয়ে থাকল। দুজনের নাক দিয়েই কামনার গরম নিশ্বাঃস বের হচ্ছে। ঘড়ির কাঁটা যেন থেমে গেছে। নিশ্বাঃসের ভারি শব্দ ছাড়া বাতাসে আর কোন শব্দ নেই। অনুপমা ফিসফিসিয়ে বলল, মামনি আজ আমাকে তোমার সবটুকু ভালবাসা দিয়ে ভাসিয়ে দাও…….
দেবশ্রী আস্তে করে অনুপমার কমলার মত ঠোঁট দু্টি নিজের ঠোঁটে চেপে ধরে চুষতে লাগল। অনুপমাও কম গেল না। সে তার গরম জিহ্বাটি দেবশ্রীর মুখের ভিতর ঠেলে ঢুকিয়ে দিল… দেবশ্রী পাগলের মত অনুপমার জিহ্বাটি চুষতে লাগল। লিঙ্গ যেমন একবার মুখে ঢুকিয়ে বের করে ঠিক তেমনি সে অনুপমার জিহ্বাহাটি মুখ দিয়ে সাক করতে লাগল। এরকম রাম চোষণ খেয়ে অনুপমার মাথা নষ্ট হয়ে গেল। সে পায়েল, শ্রেয়া ও আর অনেকের সাথেই লেসবি সেক্স করেছে কিন্তু মনে মনে স্বীকার করে নিল তার শাশুড়ি মায়েরটাই বেস্ট… সেও দেবশ্রীর জিহ্বাটি অনুরূপ চুষতে লাগল। দুজন দুজনার ঠোঁট পাগলের মত চুষে যাচ্ছে। পরস্পরের লালায় মাখামাখি হয়ে ঠোঁটগুলো এত পিচ্ছিল হয়ে গেছে যে মুখ থেকে ঠোঁট পিছলে বের হয়ে আসতে চাচ্ছে। অনুপমা দেবশ্রীর সারা মুখে লালাসিক্ত ঠোঁটের পরশ বুলিয়ে দিতে দিতে তার কানের কাছে মুখ নিয়ে জিহ্বা দিয়ে কানের ভিতরের অংশটি ভিজিয়ে দিল। তারপর কানের লতিটি মুখে নিয়ে চোষা শুরু করল।
মেয়েদের এই জায়গাটিতে এমনিতেই অনেক সেক্স থাকে, তার উপর অনুপমার নরম রসালো ঠোঁটের স্পর্শ দেবশ্রীকে আরও পাগল করে দিল। সে একটানে অনুপমাকে তার উপর থেকে সরিয়ে নিজে তার উপর উঠে আসল। বিছানায় শুয়ে অনুপমা হাপড়ের মত হাপাতে লাগল। তার নাকে উত্তেজনায় বিন্দু বিন্দু ঘাম জমতে লাগল, যা তাকে আরও সেক্সি করে তুলেছে। দেবশ্রী মুখ নামিয়ে অনুপমার নাক থেকে ঘামগুলো চেটে খেয়ে ফেলল। ঘামের নোনতা স্বাদ তার কাছে অমৃতের মত লাগল। সে অনুপমার নাকটি মুখের ভিতর নিয়ে চুষতে লাগল। অনুপমা মুখ দিয়ে শ্বাস নিতে নিতে উত্তেজনায় দেবশ্রীর পিঠে খামছাতে লাগল। দেবশ্রী কিছুক্ষন নাকটি চুষে সারা মুখে চুমুতে লাগল। তারপর আস্তে আস্তে ঠোঁটের পরশ বুলিয়ে নিচের দিকে নামতে লাগল। চোখ, নাক, মুখ, গ্রীবা, গলাতে চুমু দিতে দিতে বুকের কাছে এসে থেমে গেল। অনুপমার শাড়ী আগেই বুক থেকে সরে গেছে। যার কারনে উন্নত দুটি স্তন ব্লাউজের আড়াঁল থকে উঁকি মারছে। দেবশ্রী হাত বাড়িয়ে ব্লাউজটি খুলে দেওয়াতে তা আরও উন্মুক্ত হয়ে গেল। ব্রায়ে বন্দি অনুপমার দুধগুলোকে মুক্তি দিতে সে ব্রাটিও খুলে ফেলল। উফ্… যেন মুক্ত দুটি পায়রা আকাশের পানে উড়াল দিল। চমৎকার দুটি বলয়ের ভিতর শিবলিঙ্গের মত দেখতে দুটি নিপল মাথা তুলে দাঁড়িয়ে আছে। দেবশ্রী আঙ্গুল দিয়ে সাতফেরি নেওয়ার মত করে একটি স্তনের বাদামি বৃত্তের উপর নিপলটিকে ঘিরে সাতবার চক্কর দিল। তারপর নিপলটি দু’আঙ্গুলের ভিতর নিয়ে কচঁলাতে লাগল। উত্তেজনায় অনুপমার নিপলগুলো শক্ত হয়ে গেল। দেবশ্রী আস্তে করে নিপলের উপর তার ঠোঁট নামিয়ে আনল। তারপর হাভাতের মত স্তনের যতটুকু মুখে নেয়া যায় নিয়ে চুষতে লাগল। অন্য স্তনটি হাত দিয়ে ময়দা মাখার মত কচলাতে লাগল। আরামে অনুপমার চোখ বন্ধ হয়ে আসল। সে কাটা মুরগীর মত ছটপট করতে লাগল। উত্তেজনার চরম মুহূর্তে দেবশ্রী দুধ চোষা বন্ধ করে দিল। চোখ খুলে অনুপমা দেবশ্রীর দিকে প্রশ্নাবোধক চিহ্ন নিয়ে তাকাল। সে ভাবতেও পারেনি মাঝপথে দেবশ্রী এমন কাজ করবে। উত্তেজনায় তার শরীরে আগুন জ্বলে উঠেছিল, যে আগুন দেবশ্রী ছাড়া এখন আর নিভানো যাবে না। কিন্তু দেবশ্রীর যেন সেদিকে বিন্দুমাত্র ভ্রুক্ষেপ নেই। সে অনুপমার কামনাকে সম্পূর্ন উপেক্ষা করে বিছানা থেকে উঠে দাঁড়ালো।
কি হল? অনুপমার কন্ঠ দিয়ে একই সাথে রাগ, অভিমান, প্রশ্ন ঝরে পড়ল!?…. দেবশ্রী কোন উত্তর দেওয়ারও প্রয়োজন বোধ করল না।
মামনি, প্লিজ আমি মরে যাব… কিন্তু দেবশ্রী তা শুনেও না শুনার ভান করল…..
দেবশ্রী অনুপমার দিকে পিঠ রেখে দাঁড়ালো। তার মুখে যে সুক্ষ হাসির রেখা ফুঁটে উঠেছে তা অনুপমা দেখতে পেল না। দেবশ্রী সোজা ফ্রিজের দিকে হেটে গেল। তারপর আইসক্রিমের একটা বাটি নিয়ে অনুপমার কাছে ফিরে এলো। দেবশ্রী কি করতে চাচ্ছে তা বুঝতে পেরে অনুপমার মুখে হাসি ফুঁটে উঠল।
দেবশ্রী ধাক্কা দিয়ে তাকে বিছানায় ফেলে দিল। বিছানায় পড়ার সাথে সাথে তার দুধগুলো স্প্রীং এর মত কাঁপতে থাকল। দেবশ্রী তার স্তনের বোঁটায় আইসক্রিম লাগিয়ে মুখ বাড়িয়ে চুক চুক করে তা খেতে লাগল। কিছুক্ষনের মধ্যেই তাকে নেশায় পেয়ে বসল। মাতালের মত সে জোরে জোরে অনুপমার নরম তুলতুলে দুধগুলো কাঁমড়াতে লাগল। খঁয়েরী নিপল গুলো লিঙ্গের মত মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে গেল। দেবশ্রী জিহ্বা দিয়ে তাতে সুড়সুড়ি দিতে লাগল। কামনায়, শিহরণে, উত্তেজনায় অনুপমা জবাই করা মুরগীর মত ছটপট করতে করতে দেবশ্রীর মাথার চুল ধরে মাথাটি তার বুকের সাথে জোড়ে জোড়ে পিষতে লাগল। দেবশ্রী পালাক্রমে দুটি দুধ মুখে নিয়ে চুষতে লাগল। দুধ খাওয়া শেষে সে অনুপমার দুই উপতক্যার মাঝের গিরিখাদটি জিহ্বা দিয়ে লেহন করতে করতে নিঁচে নামতে লাগল। জিহ্বাটি ঠিক নাভির উপর এসে থেমে গেল। নাভিতো নয় যেন একটি পেয়াল। এত গভীর যে ডুব দিলে কেউ খুঁজে পাবে না। ছেলের ভাগ্য দেখে গর্ভে তার বুক ভরে উঠলো…
দেবশ্রী অনুপমার নাভিতেও আইসক্রিম লাগাল, তারপর জিহ্বা দিয়ে চেটে তা খেয়ে ফেলল। ছোট বাচ্চারা যেমন একই জিনিস বার বার করে তেমনি সেও বারবার আইসক্রিম লাগাতে লাগলো আর চুক চুক করে তা খেতে লাগল। অনুপমা চোখ বুঁজে দেবশ্রীর এই দুষ্টমি উপভোগ করতে লাগল। একসময় দেবশ্রীর খেলা শেষ হল। সে তার জিহ্বাটি অনুপমার নাভির ভিতর ঢুকিয়ে নাভির চারপাশের দেয়ালে ঘুরাতে লাগল। শিহরণে অনুপমার পিঠ বারবার বিছানা থেকে উঠে যেতে লাগল। তীব্রবেগে তার যোনী দিয়ে কামনার রস বেরিয়ে আসল। দু’রান রসে মাখামাখি হয়ে গেল। সে দু’পা দু’দিকে ছড়িয়ে দিল। দেবশ্রী আস্তে আস্তে নিচে নেমে আসল। অনুপমার যোনীর দিকে তাকিয়ে থমকে গেল। ভিতর থেকে লাল রুবী উঁকি মারছে। দেখে মনে হয় কেউ যেন টবে লাল গোলাপ সাজিয়ে রেখেছে। দেবশ্রী আর নিজেকে ধরে রাখতে পারল না। সে দ্রুত অনুপমার যোনীর উপর মুখ নামিয়ে আনল।
অনুপমা পাগল হয়ে গেল, সে দুই হাত দিয়ে দেবশ্রীর মাথা নিজের যোনিতে চেপে ধরল। দেবশ্রী পাগলের মত যোনীর রস চুষতে লাগল। মিনিট পাঁচেক পর অনুপমা নিজেকে ধরে রাখতে পারল না। কাট মুরগীর মত ছটপট করতে করতে সে দেবশ্রীর মুখে রসের বন্যা বইয়ে দিল। দেবশ্রী চেটেপুটে সব রস খেয়ে ফেলল। অনুপমা ক্লান্ত হয়ে কিছুক্ষণ শুয়ে থাকলো… ঘামে তার বুক দুটি চকচক করতে লাগলো… দেবশ্রী অনুপমার পাশে শুয়ে হাপাতে লাগলো আর ভাবতে লাগলো দৈহিক উত্তেজনায় সে যে কাজটা তারই হবু বউমার সাথে আজ একবার না দু’বার না বারবার করলো সেটা কি ঠিক হল?… সে কিভাবে তার ছেলের কাছে মুখ দেখাবে?… যে সমাজের ভয়ে একদিন তার ছেলেকে সে ফিরিয়ে দিয়েছে সেই সমাজ আজ তাকে কি বলবে?… অনুপমা তাকে আর ভাবার সময় দিল না… সে দেবশ্রীর উপর উঠে তাকে চুমো দিয়ে বলল, ‘এবার আমার পালা মামনি…’

দেবশ্রী তাকে কিছু বলতে চাইল… অনুপমা বুঝতে পেরে তাকে থামিয়ে দিয়ে বলল, ‘তুমি কিচ্ছু ভেবো না, আমি সব ঠিক করে দেবো’ তারপর দেবশ্রীকে বুকে জড়িয়ে ধরে বললো, ‘আমার শ্বশুর মারা যাওয়ার পর শুধু দেবায়নের দিকে তাকিয়ে তুমি এতদিন একা ছিলে… আমরা বলার পর তাও ধৃতিমানের সাথে কিছুদিন মিশেছিলে কিন্তু সেও তোমাকে ধোঁকা দিয়েছে… যার কারনে আমি আমার দেবায়নকে পেয়েছি সেই মামনি কষ্টে থাকবে আর আমি তার ছেলেকে নিয়ে সুখে থাকব তা কি হয় বল? প্রয়োজনে তোমার এই দুই ছেলে-মেয়ে মিলে তোমাকে সুখ দিবে তারপরেও আর কখনো কষ্টে থাকতে দিবোনা তোমাকে, বুঝতে পেড়েছ?’ বলে দেবশ্রীকে চুমোয় চুমোয় ভরিয়ে দিলো। কিছুক্ষণ আগে যে জড়তা তাকে পেয়ে বসেছিল অনুপমার লাগাতর চুমুতে তা কাটতে সময় লাগলো না। এতবার অর্গাজমের পরেও দীর্ঘদিন অতৃপ্ত ছিল বলে তার শরীর খুব দ্রুত সাড়া দিল।
অজাচারের ধর্মই হলো অনুভুতির তীব্রতা। আত্মার সম্পর্ক আর হৃদয়ের অবিচ্ছেদ্য বন্ধন থাকায় তাদের আবেগ তীক্ষ আর গভীর হলো। মামনিকে সুখী করার এক অদম্য বাসনা অনুপমাকে তাড়িত করলো। অন্যদিকে বউমার মমতাময়ী আদর সোহাগে দেবশ্রীর ভিতরে সুখের বন্যা বইয়ে দিল। বিয়ের এত বছর পরেও তার স্তনগুলি এত সুন্দর আর সুডৌল যে অনুপমার চোখ সরে না। ৩৮ সি কাপ। বয়সের ভারে হাল্কা ঝুলে গেলেও একনও অনেকটা টান টান। মনে হয় রাবারের বল। নিপল গুলি যেন বড় সাইজের মার্বেল পাথর। অনুপমা মনের সুখে মামনির নিপল চুষতে লাগলো। মামনির নিপলস সাক করতে করতে অনুপমার শরীরও আবার গরম হয়ে গেল। সে দেবশ্রীকে বুকের নীচে ফেলে শরীর ও মনের সকল শক্তি আর আবেগ দিয়ে পিষতে লাগলো। দেবশ্রী নীচে, অনুপমা উপরে। দেবশ্রীর ২ হাত যীশুর মুর্তির মত ২ দিকে প্রসারিত। পা দুটি পরস্পরের সাথে লাগানো। অনুপমা তার উপরে সমভাবে প্রতিস্থাপিত হল। হাত বরাবর হাত, স্তনের উপর স্তন, ঠোটে ঠোট, নাভীর উপর নাভী, যৌনীর উপর যৌনী। পায়ের বুড়ো আংগুল দিয়ে অনুপমা তার মামনির আংগুলগুলো চটকাচ্ছে। হাতের তালু মামনির হাতের তালুতে রেখে আংগুলের ভিতর আংগুল দিয়ে চটকাচ্ছে। স্তন দিয়ে স্তন চাপছে। ঠোটের উপর ঠোট রেখে কখনও নিজের জিহ্বা মামনির মূখে কখনও মামনির জিহ্বা নিজের মূখের ভিতর নিয়ে চুষছে।
এরপর ঘুরিয়ে মামনিকে বুকের উপর আর নিজে নীচে শুয়ে একই কায়দায় চুম্বন, চোষণ আর মর্দন চালিয়ে গেল অনেকক্ষণ। যৌনী দিয়ে যৌনী পিষে চ্যাপ্টা করে ফেললো। দু’জনের গুদেই রসের বান ডেকেছে। দেবশ্রী প্রায় দু’বছর কারও স্পর্শ পায়নি… আর গত দু’মাস দেবায়নকে না পেয়ে অনুপমার শরীরও অতি মাত্রায় সংবেদনশীল ছিল। এ অবস্থায় কিছুক্ষণ চালানোর পর তারা 69 পজিশনে গেল। সমান হাইটের কারণে এটা হল পারফেক্ট 69 । যৌনীর ভিতর জিহ্বা ঢুকতেই রীতিমত পাগল হয়ে গেলেন দেবশ্রী। সেও অনুপমার যৌনী চাটতে থাকলো… যৌনীর ঠোটে চাটাচাটি করতে করতে হবু বউ-শাশুরি দু’জনেই ক্লাইমেক্সে পৌছাল। তবে দেবশ্রী অনেকদিনের ক্ষুদার্ত থাকায় তার জল খসে গেল আগে। জল খসার পরেও অনুপমা তার চোষণ চালিয়ে যেতে লাগলো… অনেকদিন পর আজ অনুপমার অনবরত মূখ চোষণে দেবশ্রীর অরগাজম হওয়া সত্ত্বেও আবার সে পাগল হয়ে গেলো। তার শীৎকার রীতিমত চিৎকারে পরিণত হল, ‘ওরে মারে… ওরে বাবারে… ও বউমা মরে গেলাম… দেবায়ন তর বউ আমাকে মেরে ফেলল… আর পারছিনা… থাম… বউমা তোর পায়ে পড়ি থাম এবার…’ বলে চিৎকার করতে লাগলো দেবশ্রী।
অনুপমা বুঝতে পারলো তার মামনির শেষ অর্গাজমটি খুবই তীব্র হচ্ছে। এক সময় উ…উ…উ…উ… শব্দ করে খুব জোরে অনুপমাকে জড়িয়ে ধরে তীব্র এক কামড় বসিয়ে দিলো তার গুদে। অনেকদিন পর বলে এমন কিছু ঘটতে পারে তা অনুপমা আগেই ভেবে রেখেছিল তাই দাতে দাত চেপে ব্যাথাটা সয়ে নিলো। কিছুক্ষনের মধ্যেই দেবশ্রী কাঁপতে কাঁপতে হরহর করে একগাদা রস ছেড়ে দিলো অনুপমার মুখে… অনুপমা চ্যাঁটেপুঁটে সব খেয়ে ফেললো… তারপর ঘুরে মামনির ঠোঁটে চুমু দিল… দুজনের যৌনী রসে দু’জনের ঠোঁট একাকার হয়ে গেলো… এক সময় সব কিছু শান্ত হয়ে এল। তারপরও তারা পাশাপাশি জড়াজড়ি করে শুয়ে রইলো অনেকক্ষণ। প্রথম মুখ খুলল দেবশ্রী, ‘আজ অনেকদিন পর এত সুখ পেলাম বউমা… তোমাকে অনেক ধন্যবাদ।’
অনুপমা, ‘ছিঃ মামনি, ধন্যবাদ দিয়ে লজ্জা দিবে না… এটা আমার কর্তব্য… বিয়ের পর স্বামী ছাড়াও শ্বশুর-শাশুড়ির সেবা করা সব মেয়েরই কর্তব্য… আমার শ্বশুর নেই… আছে শুধু শাশুড়ি… তার সেবা যদি আমি নাই করি তবে যে আমার পাপ হবে মামনি… তুমি কি তাই চাও বলো?’
দেবশ্রী, ‘বাপরে বাপ, আমার মেয়ে দেখি আমার থেকেও এক কাঠি সরস… তোঁর সাথে কথায় পারব না… কিন্তু মারে… আমরা যেটা করলাম এটাতো সমাজের চোখে অন্যায়… তাছাড়া দেবায়ন জানতে পারলে আমাকে জীবনেও ক্ষমা করবে না…’
অনুপমা এবার তার শেষ চালটা চাললো, ‘দেখ মামনি, আমরা কি করলাম এটা আমাদের কাছে গ্রহণযোগ্যতা পেলেই হল… সমাজ বা কে কি বলল তা নিয়ে পড়ে থাকলে হবেনা… তা ছাড়া দেবায়নের কথা তুমি চিন্তা করো না… আমরা একজন আরেকজনকে অনেক ছাড় দিয়ে রেখেছি… যদি কখনো কারও সাথে কিছু করিও শুধু একজন আরেকজনের কাছে না লুকালেই হলো… কারন আমরা বাইরে কিছু করলেও আমাদের ভালবাসার কমতি কখনো হবে না… আর তুমি তো ঘরের মানুষই
দেবশ্রী, ‘মানে কি! তোর আর আমার মাঝে আজ যা হল সব বলে দিবি দেবায়নের কাছে? না… না… আমি তাহলে জীবনেও দেবায়নকে মুখ দেখাতে পারব না…’
অনুপমা, ‘মা তুমি তোমার ছেলেকে চিন্তেই পারনি, সে বরং শুনে খুশিই হবে যে, আমি তোমার কষ্ট কিছুটা হলেও লাঘব করতে পেরেছি। আর সে না তোমার বন্ধু, তাহলে কেন সে কষ্ট পাবে বল? তাঁরই তো উচিৎ ছিল তোমার কষ্ট দূর করা, সেখানে না হয় আমি করলাম…’
দেবশ্রী, ‘না মা এটা আর বলিস না… আমি পারব না… তাছাড়া সে না তোর হবু স্বামী… তাকে তুই পারবি আমার সাথে ভাগ করে নিতে? তোর কষ্ট হবে না…’
অনুপমা, ‘মামনি, তুমি তোমার এই মেয়েকে এখনো বুঝলে না, আমি আমার পরিবারের সুখের জন্য সব করতে পারি… আর তোমার যদি মনে হয় দেবায়নকে বলা ঠিক হবে না তবে না হয় এখননি তাকে কিছু জানাব না… তবে তার কাছে আমি কখনই কিছু লুকাইনি… তাই একসময় না একসময় তাকে সব জানাতেই হবে আর সেটা কবে তা তুমিই ঠিক করে দিও… এবার খুশীতো…’ বলেই অনুপমা দেবশ্রীকে জড়িয়ে ধরে তার ঠোঁট জোড়া নিজের মুখে নিয়ে চুষতে লাগলো…
অনুপমার স্পর্শে দেবশ্রীর শরীর আবারও গরম হয়ে গেল… সেও প্রতিউত্তরে অনুপমার দুই থাইয়ের মাঝে হাত নিয়ে গিয়ে দুটি আঙ্গুল সজোরে যোনীর ভিতর ঢুকিয়ে দিল… তারপর একবার বের করতে লাগলো, একবার ঢুকাতে লাগলো… অনুপমা দেবশ্রীর ঠোঁট মুখের ভিতরে রেখেই উহ…আহ… চিৎকার করতে লাগলো… সে দেবশ্রীর ঠোঁট ছেড়ে একটি স্তনে মুখ এনে দুধের বোঁটাতে ছোট ছোট কামড় দিতে লাগলো… অন্যটি একহাত দিয়ে জোড়ে জোড়ে চাপতে লাগলো… মিষ্টি মিষ্টি ব্যথা সেই সাথে কামনা দুইয়ে মিলে দেবশ্রীর যোনিতে জলের ফোয়ারা বইতে লাগলো… দুজনে ৬৯ পজিশনে চলে গেল…
অনুপমা দেবশ্রীর যোনিতে জিহ্বা ঢুকিয়ে চাটতে লাগলো আর দেবশ্রী অনুপমার যোনিতে আঙ্গুলি করতে লাগলো… কিছুক্ষন পর অনুপমা নিজেকে ধরে রাখতে পারল না… সারা শরীর কাঁপিয়ে সে তীব্র গতিতে প্রস্রাব করে দিল… দেবশ্রীর মুখ ঠিক অনুপমার যোনীর নীচে ছিল বলে তার মুখ ভেসে গেল… দেবশ্রী হা করে সবটুকু পানীয় গিলে ফেলল… তীব্র ঝাঁঝালো গন্ধ কিন্তু মিষ্টি একটা স্বাদ দেবশ্রীকে পাগল করে দিল… সে সমানে অনুপমার যোনি চাটতে লাগলো… অন্য দিকে অনুপমা দেবশ্রীর যোনীর ঠোঁট দুটি মুখে নিয়ে চকলেটের মত চোষতে লাগলো… বেশ কিছুক্ষন চোষার পরে দেবশ্রীও নিজেকে আর ধরে রাখতে পারল না… তার যোনি থেকে গলগলিয়ে মধুরস বের হয়ে অনুপমার সারা মুখ ভাসিয়ে দিল… অনুপমা সব চেটেপুটে খেয়ে ফেলল… দুজনেই ক্লান্ত হয়ে ৬৯ পজিশনে একজন আরেকজনকে জড়িয়ে শুয়ে থাকল…
মিনিট দশেক পর দুজনে উঠে বাথরুমে গেল ফ্রেশ হওার জন্য… দেবশ্রীর তীব্র প্রস্রাব পেল… তাই অনুপমাকে একটু তাড়াতাড়ি বের হতে বলল… অনুপমা মামনিকে জড়িয়ে ধরে বলল, ‘আমাকে লজ্জা কেন… আমার সামনেই কর… আমি দেখব…’ দেবশ্রী কথা না বারিয়ে বাথরুমের মেঝেতে বসে গেল… চোখ বন্ধ করে তীব্র বেগে হিশু করতে লাগলো সে… সেটা দেখে নিজেকে আটকাতে পারলো না অনুপমা… নিচু হয়ে হা করে দেবশ্রীর প্রস্রাব ঢকঢক করে খেতে লাগলো… দেবশ্রী কিছু একটা আন্দাজ করে চোখ খুলে অবাক হয়ে গেল… প্রস্রাব শেষ হতেই সে অনুপমাকে জিজ্ঞাসা করলো, ‘কি করলি এটা… তোর ঘেন্না লাগলো না…’
অনুপমা, ‘কেন ঘেন্না লাগবে… তুমি আমার মামনি না… তোমার শরীরের সব কিছুই আমার কাছে মধুর মত লাগে… আর তাছাড়া তুমিওতো কিছুক্ষন আগে আমার প্রস্রাব খেয়েছ… তোমার যদি ঘেন্না না লাগে তাহলে আমার কেন লাগবে…’
দেবশ্রী অনুপমাকে জড়িয়ে ধরে বলল, ‘সত্যিই আমার দেবায়ন অনেক লাকী যে তোর মত একটা বউ পেয়েছে… ভগবানের কাছে প্রার্থনা করি যেন পরের সাত জনমেও আমি তোকেই আমার বউমা হিসেবে পাই…’
দুজনেই ফ্রেশ হয়ে বাথরুম থেকে বের হয়ে আসলো… ঘড়ির দিকে তাকিয়ে অবাক হয়ে গেল অনুপমা… কোনদিক দিয়ে দু’ঘণ্টা পার হয়ে গেছে তারা টেরই পায়নি… দুজনেই শাড়ি পড়ে ফেলল… অনুপমা দেবশ্রীর কাছ থেকে রাতে পড়ার জন্য একটা নাইটি চেয়ে নিয়ে তাকে বলল, ‘মামনি আমি একটু দেবায়নের ঘরে যাই, অনেক ক্লান্তি লাগছে.. ঘুমে চোখ বন্ধ হয়ে যাচ্ছে… দেবায়ন এলে আমাকে ডেকে দিও…’
দেবশ্রী, ‘যা তুই ঘুমা… আমি তোকে ডেকে দিব…’
অনুপমা, ‘আর মনে রেখো দেবায়নের সাথে বান্ধবীর মত আচরণ কোর… তাতে যদি তোমাদের মধ্যে শারীরিক কিছু ঘটেও যায় আমি কিন্তু কিচ্ছু মনে করব না…’
দেবশ্রী, ‘ গেলি তুই… কোন কিছু আটকায় না মুখে… না?’ বলেই কিল তুললো অনুপমাকে মারার জন্য… অনুপমা হাসতে হাসতে দৌড় দিয়ে চলে গেল দেবায়নের ঘরে। তারপর শাড়ি খুলে মামানির দেয়া নাইটিটা পড়ে বিছানায় গাঁ এলিয়ে কম্বল মুড়ি দিয়ে শুতে না শুতেই ঘুমের রাজ্যে হারিয়ে গেল সে…

নতুন সম্ভাবনা
অনুপমা রুমে চলে যেতেই দেবশ্রী সোফাতে বসে অনুপমার কথাগুলি ভাবতে লাগলো… এতদিনের সংরক্ষিত দেয়াল তার বউমার ছোঁওয়ায় আজ এক নিমিষেই ভেঙ্গে গেল… অনুপমা দেবায়নকে নিয়ে যে নিষিদ্ধ চিন্তা তার মাথায় ঢুকিয়ে দিয়েছে টা কল্পনা করতেই তার শরীর শিহরিত হয়ে উঠলো… মনে পরে গেল তার ছেলে তাকে কিভাবে জড়িয়ে ধরে আদর করেছিল… তখন সমাজের ভয়ে বেশিদূর যায়নি… কিন্তু আজ তার বউমার সম্মতিতে কিছুটা হলেও ছাড় দিতে মন চাইল…
সবাই যদি সুখ পায় সে কেন নিজেকে বঞ্চিত করবে? কিন্তু তারপরেও নিজের ছেলে বলে কথা… তাই মনে মনে ঠিক করলো আজ থেকে সে তার ছেলের সাথে বান্ধবির মতই আবার মিশবে… পরে যদি সেই সম্পর্কে আরও কিছু যোগ হয় তখন দেখা যাবে… ভাবতে ভাবতেই তার চোখ লেগে আসলো… কতক্ষন ঘুমিয়েছে বলতে পারবে না কিন্তু হঠাৎ ঘুম ভেঙ্গে গেল বেলের শব্দে… ঘড়ির দিকে তাকিয়ে দেখল ১২ টা বাজতে ১৫ মিনিট বাকী… উঠে দরজা খুলে দিল… দরজায় ছেলেকে দেখেই বলে উঠলো…
দেবশ্রী, ‘এতক্ষন কোথায় ছিলি? জানিস না ঘরে আমরা মা মেয়ে দুইজন একা… তোর কি একটুও চিন্তা হয়নি আমাদের জন্য… কতদিন পরে বাসায় আসলি… কই আমাদের সময় দিবি, তা না এসেই চলে গেলি বাইরে… গেলি ভাল কথা কিন্তু তাই বলে এত দেরী করবি…’
মায়ের ঝাড়ি খেয়ে দরজায় দাঁড়িয়েই কানে ধরে ফেলল দেবায়ন… বলল, ‘আর এমন হবে না মা… এই কানে ধরছি’।
ছেলের দুষ্টমি দেখে হেসে ফেলল দেবশ্রী। ছেলেকে ভিতরে ঢুকতে দিয়ে বলল, ‘ঘরে যা… মেয়েটা ক্লান্ত… ঘুমিয়ে আছে… খবরদার তাকে বিরক্ত করবি না…’ বলে দরজা আটকিয়ে দিল…
দেবায়ন পিছন থেকে মাকে জড়িয়ে ধরে বলল, ‘যাও কথা দিলাম তাকে বিরক্ত করবোনা যদি তুমি তোমাকে বিরক্ত করতে দাও…’ বলেই মায়ের চুলের মধ্যে নাক ঘষতে লাগলো।
ছেলের আলিঙ্গনে দেবশ্রী কেঁপে উঠে উত্তর দেয়, ‘ছাড় আমাকে… পাশের ঘরে বউ ফেলে আসছে মাকে বিরক্ত করতে…’
দেবায়ন মায়ের নরম পেটের ওপরে থাবা জোর করে বসিয়ে বলে, ‘বারে… তুমিইতো বললে তাকে বিরক্ত করতে না… এখন তুমিই বল কাকে বিরক্ত করব?’ বলতে বলতে মায়ের বুকের খাঁচা চেপে বাম হাত নিয়ে যায় মায়ের সুউন্নত স্তনের নীচে। বুড়ো আঙ্গুল আলতো করে মায়ের ব্রা ঢাকা স্তনের নীচে ছুঁয়ে যায়। ঘন কণ্ঠে মায়ের গালে গাল ঘষে বলে, ‘তুমি না আমার বান্ধবী? তাই তোমাকেই বিরক্ত করছি…’।
ছেলের কথা অনুধাবন করতে চেষ্টা করে দেবশ্রী। এতক্ষন অনুপমার সাথে সেক্সের পরেও ছেলের কথা শুনে ওর শরীর উত্তেজিত হয়ে উঠেল। হবু বউমার কথা মত ছেলেকে আপন করে নেয়ার কথা ভাবতেই ওর মনে কামনার জোয়ার ওঠলো। ওর ছেলে যেমন ভাবে ওকে জড়িয়ে ধরে আছে তাতে ছেলের অভিসন্ধি বুঝতে একটু কষ্ট হয় না।
ওর ভারী পাছার খাঁজের মধ্যে ছেলের কঠিন পুরুষাঙ্গ ধাক্কা মারছে, যেন শাড়ি ভেদ করে প্যান্টি ভেদ করে ছেলের পুরুষাঙ্গ ওর পাছা পুড়িয়ে দেবে। কঠিন আঙ্গুল গুলো ওর নাভির চারপাশের নরম মাংস আলতো আলতো চেপে ওকে উত্তেজিত করে তুলছে, সেই সাথে ছেলের একটা হাত ওর স্তনের নীচে পৌঁছে গেছে। উফফফ, একি করতে চলেছে ওর ছেলে। ওর শরীর নিয়ে কি খেলায় মেতে উঠেছে। বুকের রক্ত এলো-পাথারি ছুটতে শুরু করে দেয়। শ্বাস ঘন হয়ে আসে সংযমের বাঁধে চিড় ধরে যায়।
আবেগ ঘন মিহি কণ্ঠে ছেলের হাতের ওপরে হাত রেখে স্তনের দিকে অগ্রসর হওয়া হাত টাকে থামিয়ে দিয়ে বলে, ‘অনেক রাত হয়েছে সোনা, যা ঘরে যা…’
চোখ আধা বোজা করে মায়ের কানের লতির ওপরে উষ্ণ শ্বাস বইয়ে দিয়ে বলে, ‘রাত তো সবে শুরু মা…’।
ছেলের হাত ওর নাভির নীচে নেমে গেছে। উফফফ মাগো একি করছে ওর ছেলে ওর দেহ নিয়ে। পাগল করে দেবে এখুনি। শরীর আর মন দোলা দেয় কিন্তু হৃদয় মানতে চায় না। অনুপমার সাথে সেক্সের পর আর প্যান্টি পড়েনি, তাই পাছার খাঁজে ছেলের বিশাল লিঙ্গের কঠিনতা ভালো ভাবে অনুভব করতে পারে।
শাড়ি শায়া ছিঁড়ে ছেলের লিঙ্গ ওর পাছা পুড়িয়ে দিচ্ছে। শাড়ির কুঁচির ওপরে হাত চলে গেছে, তলপেট চেপে ওর নিম্নাঙ্গ নিজের দিকে চেপে ধরেছে। আলতো ধাক্কা মেরে পুরুষাঙ্গ ঘষে দিচ্ছে ওর পাছার খাঁজে। কুলকুল করে ওর যোনি রসে ভিজতে শুরু করে দেয়। দেবশ্রীর চোখের পাতা ভারী হয়ে আসে ছেলের এহেন তীব্র বাহু বেষ্টনী আর ভীষণ আদরের ফলে।
আচমকা এক অস্ফুট আওয়াজ ওর খোলা ঠোঁট ছেড়ে বেরিয়ে আসে, ‘সোনা আমার….. অনেক দুষ্টমী হয়েছে….. এইবারে আমাকে ছেড়ে দে।’
দেবায়ন কিছুতেই মা’কে ছাড়ে না, আরো চেপে ধরে নিজের লিঙ্গ মায়ের পাছার খাঁজে ধাক্কা মেরে বলে, ‘একটু আদর করতে দোষ আছে নাকি। আমি কি আমার মাকে ঠিক ভাবে আদর পর্যন্ত করতে পারবো না।’
দেবশ্রী কিছু আর ভাবতে পারছে না। একবার ভাবে ওকে যে পুরুষ জড়িয়ে ধরে আছে তার কাছে নিজেকে আত্মসমর্পণ করে দেবে, পরক্ষনেই হৃদয় কঠিন হয়ে যায়। যে ওকে জড়িয়ে ধরে সে ওর ছেলে, কি ভাবে এক ছেলের কাছে এক মা এই ভাবে আত্মসমর্পণ করবে।
ওর ঘাড় বেঁকে যায় পেছনের দিকে, ছেলের গালে গাল ঘষে চোখ বুজে আবেগ ঘন কণ্ঠে বলে, ‘এই ভাবে কোন ছেলে তার মাকে আদর করে না রে।’
দেবায়ন মায়ের নরম গালে সিক্ত ঠোঁট ছুঁইয়ে বলে, ‘শুধু একটু ঘন আদর করতে চাই মা আর কিছু না।’
ছেলের হাতের ওপরে হাত রেখে শক্ত করে ধরে ফেলে। যে ভাবে ওর ছেলে ওকে সাপের প্যাচের মতন জড়িয়ে ধরেছে তাতে বেশিক্ষণ দেরি লাগবে না ওর বুকে আর তলপেটে হাত চলে যেতে। এত নিবিড় করে দেবায়নের বাবার পরে আর কেউ ওকে জড়িয়ে ধরেনি। নরম উষ্ণ গালের ওপরে ছেলের সিক্ত ঠোঁটের ছোঁয়া পেয়ে কেঁপে ওঠে দেবশ্রী। চোখ জোড়া আবেগে বুজে মিহি কণ্ঠে ছেলেকে বলে, ‘অনুপমা দেখে ফেলবে বাবা… ছাড় আমাকে’
হাতের ওপরে মায়ের নরম আঙ্গুলের চাপে আর মায়ের উত্তপ্ত দেহের পরশে দেবায়ন বুঝে যায় ওর মা ধীরে ধীরে ওর দিকে ঢলে যেতে শুরু করে দিয়েছে। তাই নিজের সাথে মায়ের নধর দেহ পিষ্ট করে বলে, ‘ও দেখলেও কিছু মনে করবে না মা… ও জানে আমি তুমাকে কত ভালবাসি’
দেবশ্রী কেঁপে ওঠে ছেলের এই এই কথা শুনে। একদিকে বউমার সম্মতি অন্যদিকে ছেলের আবদার; নিজেকে ছেলের কাছে বিলিয়ে দিতে ইচ্ছে করে। তারপরেও দেবশ্রী হৃদয়ের আকঙ্খা দমিয়ে বলে, ‘না সোনা আজ না… তবে কথা দিচ্ছি অন্য আরেকদিন…’
দেবায়নের মন নেচে ওঠে, ‘সত্যি কথা দিচ্ছ যে আমি তোমাকে আমার মতন আদর করতে পারি?’
দেবশ্রীর মাথা হঠাৎ ঝনঝন করে ওঠে, একি বলে ফেললো ছেলেকে, ‘না মানে তবে শুধু বান্ধবীর মতন আদর করতে পারবি, তার বেশি নয়।’
মায়ের গালে ঠোঁট চেপে তীব্র আবেগ ঘন চুমু খেয়ে বলে, ‘বেশ তো, তুমিতো আমার বান্ধবীই আর আমি তোমার বন্ধু।’
দেবশ্রী ছেলের হাতে চিমটি কেটে বলে, ‘বন্ধু বান্ধবীর মাঝে কিন্তু একটা গণ্ডি থাকে।’
দেবায়ন নাক কুঁচকে মায়ের ঠোঁটের কাছে ঠোঁট এনে বলে, ‘জানি এক গণ্ডি থাকে তবে সেই গণ্ডি কোথায় শুরু আর কোথায় শেষ সেটা কিন্তু জানি না।’
দেবশ্রী আবেগ মিশ্রিত কণ্ঠে বলে, ‘জানিয়ে দেব, এখন যা ঘরে যা।’

দেবায়ন মায়ের গালে আদর করে বেশ কয়েকটা চুমু খেয়ে হাতের বেড় আলগা করে দেয়। কঠিন আলিঙ্গন থেকে মুক্তি পেয়ে দেবশ্রী ওর দিকে ঘুরে দাঁড়ায়। মা ওর দিকে বড় বড় সিক্ত চোখে তাকিয়ে রয়েছে। চোখের চাহনিতে একটু দুষ্টুমির ছাপ, ঠোঁটে বাঁকা অজানা অর্থের হাসি।
দেবায়ন এক দৃষ্টে মায়ের গোলাপি নরম ঠোঁটের দিকে চেয়ে। মায়ের ঠোঁট জোড়া অল্প কেঁপে ওঠে সেই সাথে নিচের ঠোঁটের কাছে যে তিলটা আছে সেটাও নড়ে ওঠে। দেবায়নের বুক পাগল প্রায় হয়ে যায়, মনে হয় একটু ঝুঁকে মায়ের ওই গোলাপি নরম ঠোঁটে একটা জোর কামড় বসিয়ে দেয়।
ছেলের চোখের তীব্র আগুনে চাহনি দেবশ্রীকে ঝলসে দেয়। মনে মনে এক থেকে দশ পর্যন্ত গুনে সংযমের বাঁধ শক্ত করে নেয়। চিন্তা করে, ছেলের সাথে এই বন্ধুত্তের খেলা খেলতে খেলতে কত দুর যাবে? না না, ওর ছেলে ওকে মায়ের চোখেই দেখবে, এটা নিছক ছেলের একটা আদুরে আবদার। নিজেকে শান্ত করে নেয় দেবশ্রী, শরীরের কাছে কিছুতেই বিবেক বুদ্ধিকে হারতে দেওয়া চলবে না।
ছেলের প্রশস্ত ছাতির ওপরে হাতের পাতা মেলে ঠেলে দিয়ে হেসে বলে, ‘ঘরে যাস না কেন, ওই ভাবে কেন তাকিয়ে আছিস।’
দেবায়ন মায়ের দিকে একটু ঝুঁকে জিজ্ঞেস করে, ‘তুমি কিছু বলবে বলছিলে, তার অপেক্ষায় আছি।’
ঝুঁকে পরার ফলে ওর উত্তপ্ত চেহারার ওপরে ছেলের উষ্ণ শ্বাসের ঢেউ বয়ে যায়। সেই শ্বাসের সাথে সাথে দেবশ্রীর হৃদয়ের রক্ত টগবগ করে ফুটে ওঠে। ছেলের চোখ ওর চোখের ওপরে একভাবে নিবদ্ধ। কি এত মন দিয়ে দেখছে।
ছেলের কালো চোখের মণির মধ্যে নিজের প্রতিচ্ছবি দেখতে পেল। গলে যাচ্ছে দেবশ্রীর হৃদয়। বহু বছর আগে যখন দেবায়নের বাবার প্রেমে বিভোর হয়ে ছিল তখন তার চোখের মণিতে নিজের প্রতিচ্ছবি দেখেছিল। তারপরে আর ঠিক ভাবে ওকে কেউ দেখেনি, নিজেও কারুর চোখের দিকে ওইভাবে তাকিয়ে নিজের প্রতিচ্ছবি দেখেনি।
ঠোঁট জোড়া মেলে উষ্ণ শ্বাস বেরিয়ে আসে। ঘন শ্বাসের ফলে ওর নিটোল উন্নত স্তন জোড়া ফুলে ওঠে। দেবশ্রীর গলার কাছে স্বর দলা পাকিয়ে যায়, ‘পরে বলবো এখন যা… বউমা তোর ঘরে একা শুয়ে আছে।’
মায়ের এই তীব্র ঘন শ্বাস আর সিক্ত চোখের চাহনি দেখে বুঝতে পারে যে ওর মা গলে গেছে। বুকের ওপরে মায়ের নরম আঙ্গুল চেপে বসে।
দেবায়ন মায়ের হাতের ওপরে হাত রেখে বুকের বাম দিকে চেপে ধরে আরও জোরে চেপে নিচু অথচ গভীর কণ্ঠে বলে, ‘অপেক্ষায় থাকবো কিন্তু।’
নিচের ঠোঁট দাঁতের মাঝে নিয়ে ধীরে ধীরে ছেলের বুকের ওপর থেকে হাত সরিয়ে নেয়। ডালের হাতা তুলে নিয়ে ছেলের দিকে উঁচিয়ে বলে, ‘যা এখুনি, না হলে মারবো কিন্তু!’
দেবায়ন মায়ের মুখের ওপরে ঠোঁট গোল করে গরম হাওয়া বইয়ে বলে, ‘তুমি না বড্ড দুষ্টু মিষ্টি, আমসত্বের মতন।’
দেবশ্রীর বুকের আকুলিবিকুলি করে ওঠে ছেলের গরম শ্বাসের ফলে। ঠোঁটে দুষ্টুমির হাসি মাখিয়ে আলতো মাথা দুলিয়ে ছেলেকে ঠেলে দিয়ে নিজের রুমের দিকে চলে যায়।

গল্পটি কেমন লাগলো ?

ভোট দিতে স্টার এর ওপর ক্লিক করুন!

সার্বিক ফলাফল 1 / 5. মোট ভোটঃ 1

এখন পর্যন্ত কোন ভোট নেই! আপনি এই পোস্টটির প্রথম ভোটার হন।

Leave a Comment