পাপ কাম ভালোবাসা ২ [২]

Written by MegaAgun

প্রেয়সীর বাহুডোর
কলিংবেলের শব্দে অনুপমার ঘুম ভেঙ্গে যায়… বিছানা থেকে উঠে রুম থেকে বাহির হতে যাবে দেখে দেবায়ন মাকে নিবিড় ভাবে জড়িয়ে ধরে আছে… মামনির কামুক চাহনি দেখে অনুপমা আর ঘর থেকে বের হয়না… দরজার আড়ালে দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে দেখতে থাকে কি ঘটে… সে মন থেকেই চায় দেবায়ন যেমন করে তার মায়ের চাহিদা পূরণ করেছে ঠিক তেমনি তার মামনির চাহিদাও যাতে সে পূরণ করে… কিছুক্ষন পর তার মামনি দেবায়নকে রমের দিকে ঠেলে দিচ্ছে দেখে মামনির উপর বিরক্ত হয় এমন সুযোগ হাত ছাড়া করার জন্য… পরক্ষনে এই ভেবে নিজেকে শান্তনা দেয় যে দেবায়ন যখন হাত বাড়িয়েছে তার মামনিকে আর বেশীদিন অপেক্ষা করতে হবে না… দেবায়নকে রমের দিকে আসতে দেখে সে মুচকি হেসে আবার বিছানায় উঠে কম্বল গায়ে টেনে শুয়ে পরে…
রুমে ঢুকে অনুপমাকে শোয়া দেখে দেবায়ন নিজেকে বলে যে, প্রেয়সীকে উত্যক্ত করে লাভ নেই। ঘরের মধ্যে মৃদু নীলচে আলো ঘরে একটা অপরূপ রোম্যান্টিক শোভার আবহাওয়া তৈরি করেছে। অনুপমা কম্বল গায়ে বিছানায় শুয়ে আছে। বিছানার একপাসে শুয়ে আছে সে, ঠোঁটে লেগে আছে এক অধভুত মিষ্টি হাসি। ডান হাত ভাঁজ করে মাথার নিচে রাখা, উন্মুক্ত মসৃণ ফর্সা হাত। মাথার চুল মাথার পেছনে হাত খোঁপায় বাঁধা বালিশের ওপরে এলিয়ে পরে আছে। ঘরের মৃদু নীলচে আলো ওর ত্বকের ওপর যেন পিছলে যাচ্ছে। বাম হাত মুঠি করে কম্বলটিকে আঁকড়ে ধরে আছে উন্নত বুকের কাছে। কম্বলে ঢাকা দেহের অবয়াব দেখে মনে হয় যেন সাদা সমুদ্রের ওপরে এক মত্ত ঢেউ। উঁচু কাঁধ, সরু হয়ে নেমে এসেছে পাতলা কোমরে তারপরে ফুলে উঠেছে সুগোল নিতম্বদেশ। বাম পা ডান পায়ের সামনে রাখা, যার জন্য দেহের অবয়াব দেখে মনে হয় যেন এক জলপরী শুয়ে দেবায়নের দিকে প্রেমাগ্নির চাহনি নিয়ে তাকিয়ে।
নাকের ডগা লাল, গাল গোলাপি। মুখে প্রসাধনির লেশ মাত্র নেই, কানে দুল নেই, হাতে চুড়ি নেই। কাজল কালো, বাঁকা ভুরু জোড়া যেন ওকে উত্যক্ত করে জিজ্ঞেস করছে, কি ওই রকম ভাবে দেখছ? কোমল লাল ঠোঁট জোড়া অল্প খোলা, তার মাঝে ঝিলিক মারে মুক্ত সাজান দাঁত। চেহারায় এক সুন্দর আলোক ছটা।
দেবায়নের নাকে ভেসে আসে অনুপমার মাদকতাময় বেলী ফুলের সুবাস। সেই সুবাস সারা ঘরের বাতাসে ছড়িয়ে আছে আর দেবায়নকে মাতাল করে তুলেছে। দেবায়ন অনুপমার চোখের ভাষা বুঝতে চেষ্টা করে… সে কি তার আর তার মায়ের এতক্ষনের কথাবার্তা শুনে ফেলেছে… ‘প্রেয়সী কি বাঘিনীর মতন ক্ষিপ্ত, না মাছরাঙার মতন অপেক্ষা করছে মাছ ধরার জন্য?’
দেবায়ন বিছানার পায়ের দিকে বসে, ওর দিকে তাকিয়ে পায়ের ওপরে হাত রাখে। কম্বলের ওপর দিয়ে, বাম পায়ের গুলির ওপরে আদর করে দেয়।
অনুপমা গম্ভির সুরে ওকে বলে, ‘কয়টা বাজে খেয়াল আছে? এত দেরী করলে কেন? জাননা কতদিন তোমাকে কাছে পাইনি তাই আজ আমি তোমার সাথে থাকতে এসেছিলাম… তাড়াতাড়ি ফ্রেস হয়ে শুতে এস, আমি খুব ক্লান্ত, আমার খুব ঘুম পাচ্ছে…’।
গম্ভির গলার আওয়াজ শুনে দেবায়ন একটু ঘাবড়ে যায়। অনুপমা বালিশের ওপরে মাথা গুঁজে চোখ বন্ধ করে নেয়। তাকে না ঘাঁটিয়ে সামনে ঝুঁকে পরে জুতো খুলতে যায় দেবায়ন, অনুপমা পেছন থেকে ওর শিরদাঁড়ার নিচে পায়ের বুড়ো আঙ্গুল দিয়ে মৃদু খোঁচা মারে। নখের আঁচরের অনুভুতি দেবায়নের শরীরে বিদ্যুতের শিহরণ ছড়িয়ে দেয়। দেবায়ন মাথা ঘুরিয়ে অনুপমার দিকে তাকায়, অনুপমা সঙ্গে সঙ্গে কম্বলের মধ্যে পা টেনে নিয়ে চোখ বন্ধ করে পরে থাকে। দেবায়ন কম্বলের নিচের দিক পায়ের ওপর থেকে সরিয়ে দিয়ে পায়ের পাতার তলায় তর্জনী দিয়ে আঁচর কেটে দেয়। অনুপমা মোচর দিয়ে উঠে, খিলখিল করে হেসে ফেলে।
দেবায়ন ওর হাসি শুনে বিছানার ওপরে লাফ দিয়ে উঠে অনুপমাকে বলে, ‘আমার সাথে দুষ্টুমি করা হচ্ছে, বেবি?’
অনুপমা ওর বুকের ওপরে পা রেখে ঠেলে দিয়ে বলে, ‘তাড়াতাড়ি বাথরুমে গিয়ে পরিষ্কার হয়ে এস।’
দেবায়ন, ‘তারপরে?’
অনুপমা, ‘তারপরে আর কি, তারপরে ঘুমিয়ে পড়ব।
দেবায়ন হাফ প্যান্ট হাতে নিয়ে বাথরুমে ঢুকে পরে। প্রেয়সীর হাসি আর গালের লালিমা ওর ভেতরের জমে থাকা এইকদিনের কামনায় আগুনে জ্বালিয়ে দিয়েছে। প্রেয়সীকে বিছানায় বেশিক্ষণ অপেক্ষায় রাখা উচিত নয়। চোখের উষ্ণ লালিমার ছটায় দেবায়নের বুঝতে দেরি হয়নি যে চাতকের ন্যায় প্রেম বারির জন্য অপেক্ষা করছে প্রেয়সী। যেন এক জলপরী সমুদ্র থেকে উঠে এসে ওর বিছানায় শুয়ে প্রেম বারির জন্য কাতরাচ্ছে। কোনোরকমে স্নান সেরে বাথরুম থেকে বেড়িয়ে আসে দেবায়ন। ঘরে ঢুকে অবাক হয়ে যায়, বিছানায় অনুপমা নেই।
দরজা অল্প খোলা, কম্বল এলোমেলো হয়ে পরে আছে বিছানার ওপরে। দেবায়ন ঠিক বুঝে উঠতে পারেনা, হলো টা কি? এত রাতে অনুপমা ওকে একা ছেড়ে আবার কোথায় চলে গেল। ঘরের বাল্ব জ্বালিয়ে দরজার দিকে এগিয়ে যায় বাইরে দেখতে যে গেল কোথায় অনুপমা।
যেই মাত্র দরজা খুলেছে, তখনি অনুপমা দেবায়নকে পেছন থেকে এসে কোমরের দুপাস দিয়ে হাত বাড়িয়ে শক্ত করে জড়িয়ে ধরে। নগ্ন পিঠের ওপরে চেপে ধরে নরম বুক। বুকের ওপরে রাখে হাতের তালু, পিঠের শিরদাঁড়ার ওপরে চেপে ধরে গাল। উষ্ণ দেহের স্পর্শে মনে হয় যেন অনুপমার মাখনের মতন পেলব শরীর ওর পিঠের ওপরে গলে মাখামাখি হয়ে যাচ্ছে। দেবায়ন দরজা বন্ধ করে সামনে ঝুঁকে, অনুপমাকে পিঠের ওপরে তুলে নেয়। অনুপমা ওর পিঠের ওপরে ভার দিয়ে মাতি থেকে পা ভাঁজ করে তুলে নেয়।
প্রেমঘন সুরে কানে কানে বলে, ‘খুঁজে পেলে না তো আমাকে।’
দেবায়ন, ‘ছিলে কোথায়?’
অনুপমা ওর বাম বুকের ওপরে হাত চেপে বলে, ‘আমি এখানে ছিলাম, তুমি দেখতে পাওনি।’
বিছানার দিকে হেঁটে যায় দেবায়ন, অনুপমা ওর পিঠের ওপরে ঠোঁট চেপে ধরে চুমু খেতে শুরু করে। তপ্ত ঠোঁটের পরশে দেবায়নের দেহে বিদ্যুতের সঞ্চার হয়। বাঁ দিকে একটু ঝুঁকে পরে, অনুপমাকে বিছানার ওপরে শুইয়ে দেয় দেবায়ন। অনুপমা বিছানার পায়ের দিকে বসে, পেছন দিকে ঝুঁকে যায় কুনুইয়ের ওপরে ভর দিয়ে। তার ফলে পীনোন্নত বুক জোড়া হিমালয়ের সুউচ্চ শৃঙ্গের মতন আকাশের পানে ঠেলে ওঠে। অনুপমার পরনে সিল্কের নাইটি, কাঁধ, উপরি বক্ষ, বুকের খাঁজের অধিকাংশ অনাবৃত। পরনের রাত্রিবাস অনেক ছোটো, কোনোক্রমে শুধু মাত্র জানুর মাঝ পর্যন্ত নেমে এসেছে। জানুর মসৃণ ত্বকের ওপরে ঘরের আলো পিছল খেয়ে পড়ছে। সেই দৃশ্য দেখে দেবায়নের সিংহ ভেতরে ভেতরে মাথা উঁচু করে জেগে ওঠে, তলপেটের কাছে যেন তরল আগুন দলা পাকিয়ে মোচর দেয়। অনুপমা অনুধাবন করে দেবায়নের তপ্ত চাহনি, যেন ওর অনাবৃত জানু, বুক, কাঁধ জ্বালিয়ে দিচ্ছে। নিচের ঠোঁট কামড়ে ধরে প্রেমঘন চাহনি নিয়ে তাকায় উদ্দাম দেবায়নের দিকে। দেবায়ন অনুপমার দিকে ঝুঁকে পরে ওর নরম কোমর হাতের মাঝে চেপে ধরে। কোমল নারী মাংস তপ্ত আঙ্গুলের স্পর্শে যেন গলে যায়।
দেবায়ন নিজের শরীর টেনে নিতে চায় অনুপমার দেহের ওপরে, কিন্তু অনুপমা ওর ডান পা ভাঁজ করে দেবায়নের বুকের ওপরে চেপে ধরে। অনুপমার হাঁটু দেবায়নের চিবুক ছুঁয়ে যায় আর পায়ের পাতা দেবায়নের নাভির কাছে ছুঁয়ে যায়। সেই স্পর্শে দেবায়নের সারা দেহে কাঁটা দিয়ে ওঠে। দেবায়ন যত চেষ্টা করে অনুপমার দিকে ঝুঁকতে, অনুপমা ততই যেন ঠেলে দেয় দেবায়নকে, দুজনে যেন প্রেমের এক খেলায় মেতে ওঠে। দুজনের চোখে ঝরে প্রেমের ঘন তরল আগুন।
অনুপমার রাত্রিবাস জানু ছাড়িয়ে কোমর পর্যন্ত উঠে আসে। সুগোল ফর্সা ডান নিতম্ব অনাবৃত হয়ে যায় ঠেলাঠেলির খেলায়। অনুপমা রাতে শোয়ার সময়ে অন্তর্বাস পড়তে ভালবাসেনা, দেবায়নের মাথায় সেই চিন্তা আসতেই দেবায়নের চোখ চলে যায় অনুপমার জানুসন্ধির দিকে। রাত্রিবাস উঠে গেছে ঠিকই কিন্তু অতি সন্তর্পণে ঢেকে রেখেছে অনুপমার জানুসন্ধির নারীঅঙ্গ। প্রেমের মত্ত ক্রীড়ায় দুজনের শ্বাস বর্ধিত হয়ে ওঠে। দেবায়ন ঠেলে দেয় অনুপমার ডান জানু, অনুপমার উন্নত বুকের ওপরে।
অনুপমা দুষ্টু হেসে জিজ্ঞেস করে, ‘ওই রকম ভাবে কি দেখছ, সোনা?’
দেবায়ন, ‘আমি আমার জলপরীকে দেখছি, যে সাগর থেকে উঠে আমার বিছানায় শুয়ে আমার প্রেমের জন্য কাতরাচ্ছে।’
অনুপমা বড় বড় চোখ করে দেবায়নের মুখের দিকে তাকিয়ে বলে, ‘তাহলে দেরি কেন করছ? জলপরীকে কোলে তুলে আবার সাগরের জলে ছেড়ে দাও।’
দেবায়ন, ‘সাগরের জলে যে অনেক ভয়ঙ্কর মাছ আছে। আমিতো আমার জলপরীকে বুকের মাঝে রাখতে চাই।’
দেবায়নের পেটের ওপরে অনুপমার কোমল নিতম্বের ছোঁয়া লাগে, সেই সুখের স্পর্শে দেবায়নের মনে যেন ওর আগ্নেয়গিরি এখুনি ফেটে পড়বে। দেবায়ন ফিসফিস করে জিজ্ঞেস করে, ‘এই নাইটিটা কোথায় পেলে? তোমাকে তো দারুন লাগছে…’
অনুপমা, ‘মামনির কাছ থেকে চেয়ে নিয়েছি’

দেবায়ন ওর শরীরের ওপর থেকে ভার হাল্কা করে আর সেই সঙ্গে সঙ্গে অনুপমা পেটের ওপরে মাথা নিচু করে বিছানার ওপরে শুয়ে পরে। নরম বালিস আঁকড়ে ধরে মুখ লুকিয়ে নেয় তুলোর মধ্যে। কামনার আগুনে জ্বালায়, শ্বাসের গতি বেড়ে যায়, দ্রুত ওঠানামা করে অনুপমার পিঠ, যেন বুকের মাঝে এক বিশাল ঝড় বয়ে চলেছে।
সিল্কের সেই ছোটো রাত্রিবাস অনুপমার সুগোল নিতম্ব ঢেকে রাখতে পারেনা। নরম সুগোল দুই নিতম্ব আর নিতম্বের মাঝের গভীর সরু খাঁজ পুরপুরি দেবায়নের কামতারিত চাহনির সামনে অনাবৃত। নিম্নাঙ্গে পরনে কোন অন্তর্বাস নেই।
দেবায়ন অনুপমার মেলে ধরা পায়ের দুপাশে হাত রেখে সামনের দিকে ঝুঁকে পরে, বাম পায়ের গুলির ওপরে তপ্ত শ্বাস ছাড়ে। ডান হাত নিয়ে যায় অনুপমার অনাবৃত ডান পায়ের গুলির ওপরে আর ধিরে ধিরে আদর করতে শুর করে, পায়ের গোড়ালি থেকে হাঁটুর পেছনের ভাঁজ পর্যন্ত। আদরের ছোঁয়ায় অনুপমার উত্তপ্ত শরীর মোচর দিয়ে ওঠে, মৃদু শীৎকার ওঠে ওঠে অনুপমা।
দেবায়ন মুখ নামিয়ে আনে অনুপমার জানুর পেছনে, রাত্রিবাস না সরিয়ে কাপড়ের ওপর দিয়ে, জিবের ডগা দিয়ে বৃত্তাকারে ভিজিয়ে দেয় অনুপমার নরম নিতম্ব। ভিজে ওঠা রাত্রিবাস কম্বলটে যায় অনুপমার তপ্ত নিতম্বের ত্বকের ওপরে, বারংবার কেঁপে ওঠে কোমল নিতম্ব দুটি। আলতো করে চেপে ধরে ঠোঁট অনুপমার নিতম্বের ওপরে।
অনুপমা মৃদু কনে শীৎকার করে ওঠে, ‘ম্মম্মম্মম্মম……… দেবায়ন… সোনা…’
দেবায়ন মাথা উঠিয়ে দেখতে চেষ্টা করে অনুপমার মুখের দিকে, অনুপমা মাথা গুঁজে রাখে বালিশের ওপরে। নিতম্বের ওপরে ছোটো ছোটো চুমুতে ভরিয়ে দিয়ে দেবায়নের ঠোঁট উঠে আসে, শিরদাঁড়ার শেষ প্রান্তে, যেখানে শিরদাঁড়া আর নিতম্ব মিলেছে। ঠোঁট চেপে ধরে শিরদাঁড়ার শেষ প্রান্তে, ভিজিয়ে দেয় রাত্রিবাসের কাপড় মুখের লালায়। নগ্ন বুকের নিচে চেপে ধরে কোমল নিতম্ব, পিষে দেয় অনুপমাকে বিছানার সাথে আর বুকের নিচে। পায়ের পাতার ওপরে অনুপমা অনুভব করে দেবায়নের তপ্ত শলাকা। কামনায় প্রজ্বলিতে দেহ মুচরে ওঠে কঠিন পরশ পেয়ে। দেবায়নের বুকের নিচে যেন প্রেয়সীর সাপের মতন শরীর বারে বারে মোচর দেয় আর দেবায়নের শলাকাকে বারেবারে উত্যক্ত করে তোলে।
অনুপমা দেবায়নের নামে ঠোঁটে এনে মৃদু শীৎকার করে ওঠে, ‘দেবায়নননন… আমাকে মেরে ফেললে যে হানি…’
বিছানার ওপরে চেপে ধরা বুক, দুপাশ থেকে ফেটে বেড়িয়ে পরে, অনুপমার মুখ তখন বালিসে গোঁজা। রাত্রিবাস পিঠের দিকে অর্ধেকটা উন্মুক্ত, পুরো কাঁধ আর পিঠের অধিকাংশ অনাবৃত, লিপ্সা মাখানো দেবায়নের চোখের সামনে।
দেবায়ন আরও ঝুঁকে পরে অনুপমার পিঠের ওপরে চুমু দিতে শুরু করে। ঘাড়ের নিচ থেকে শুরু করে, শিরদাঁড়ার ওপর দিয়ে যে টুকু অনাবৃত, সেই টুকু অংশে চুমুতে ভরিয়ে দেয় দেবায়ন, আর জিবের ডগা দিয়ে বৃত্তাকারে দাগ কেটে দেয়। তপ্ত শ্বাসে অনুপমার সারা দেহে কাটা দিয়ে ওঠে। ভিজে গেছে পিঠ দেবায়নের তপ্ত লালায়। মাঝে মাঝে দেবায়ন অনুপমার পিঠের নরম মাংস দাঁতের মাঝে নিয়ে আলত করে কামড়ে দেয়, জিব পুর বের করে চেটে দেয় শিরদাঁড়া। অনুপমার মুখ লাল, গায়ে ঘাম। দেবায়নের জিবে লাগে নোনতা স্বাদ।
বাম কুনুইয়ের ওপরে ভর দিয়ে অনুপমার বাম দিকে শুয়ে পরে দেবায়ন, কুনুই ছুঁয়ে যায় অনুপমার বাম বক্ষের পাশে। ডান হাতে অনুপমার মাথার চুলের বাঁধন খুলে দেয়। মুঠি করে ধরে নেয় অনুপমার মাথার পেছনের চুল আর ধিরে ধিরে নখের ডগা দিয়ে আঁচরে দেয় মাথা। অনুপমা পাগল হয়ে ওঠে দেবায়নের উষ্ণ আদরের ছোঁয়ায়।
দেবায়ন সামনে ঝুঁকে মরালী গরদানে তপ্ত শ্বাস ছাড়ে। অনুপমার কোমরের ওপরে দেবায়ন ওর ডান পা উঠিয়ে দেয়, হাঁটু দিয়ে চেপে ধরে নিতম্ব আর পায়ের পাতা দিয়ে বুলিয়ে দেয় জানুর পেছন দিকে। ধিরে ধিরে দেবায়নের পা, জানু থেকে ওপরে উঠে যায় আর রাত্রিবাস সরে যায় নিতম্বের ওপর থেকে। অনুপমা ওর বাম নিতম্বের পাশে দেবায়নের তপ্ত শলাকার পরশ অনুভব করে, মনে হয় যেন কঠিন কোন গুঁড়ি ওর কোমলতাকে চেপে ধরে পেষণ করছে।
ঘাড়ের পেছনে ঠোঁট চেপে ধরে দেবায়ন। চোখ দুটি শক্ত করে বন্ধ করে মাথা ওঠায় অনুপমা, চিবুক রাখে বালিশের ওপরে আর বিছানার মাথার দিকে মুখ। ঠোঁট জোড়া অল্প খোলা, আর সেই তপ্ত ঠোঁট জোড়ার ভেতর থেকে তপ্ত শ্বাস বয়ে চলে অবিরাম। ঘাড়ের পেছনে দাঁত দিয়ে আলতো করে চেপে দেয় দেবায়ন। দাঁতের আদরের পরশে পাগল হয়ে ওঠে অনুপমা। বুকের ওপরে শক্ত কফ্রে চেপে ধরে বালিশ, যেন নরম তুল দিয়ে ভরিয়ে দেবে কোমল উন্নত বুক জোড়া।
অনুপমা এবারে তপ্ত শ্বাস ছেড়ে শীৎকার কর ওঠে, ‘আআআআআ… তুমি যে আমাকে একদম পাগল করে দিলে দেবায়ন…’
অনুপমার মাথার পেছনে নাক ডুবিয়ে চুলের ঘ্রান বুকে টেনে নেয়। নগ্ন বুক চেপে ধরে অনুপমার অনাবৃত পিঠের ওপরে। কানে কানে বলে, ‘বেবি, তুমি এত রসাল, যে আমি তোমার সারা শরীর চুমু খেলেও সেই রস ফুরাবে না। তোমার দেহের প্রতি রোম কুপের থেকে নির্গত রস যে কত মধুর তা বলে বুঝাতে পারবনা বেবি।’
অনুপমা, ‘আমিতো একটা কুঁড়ি ছিলাম সোনা, তোমার ছোঁয়ায় আমি সিক্ত ফুটন্ত রসে ভরা হয়ে উঠেছি।’
দেবায়ন, ‘আলো কি বন্ধ করে দেব, বেবি?’
অনুপমা, ‘আমি জানিনা, তোমার যা ইচ্ছে করে সেটা করও। আজ আমার কিছু বলার নেই দেবায়ন। আজ তুমি আগের থেকে অনেক অনেক বেশি দুষ্টুমি করছ, সোনা।’
ডান হাত দিয়ে অনুপমার ডান কাঁধ থেকে রাত্রিবাসের পাতলা বাঁধন নামিয়ে দেয়। কাঁধ একটু নড়িয়ে দেবায়নকে সাহায্য করে যাতে রাত্রিবাস খুলে আসে। চিবুক দিয়ে বাম দিকের রাত্রিবাসের বাঁধন নামিয়ে দিতেই অনুপমার শরীর মোচর দিয়ে ওঠে। দেবায়নের মাথায় খেলে যায় যে আজ রাতে ও তাঁর প্রেয়সীর অপরূপ দেহ সুধা দুচোখ ভরে পান করার সুযোগ পাবে, অনেক দিন ধরে দেবায়নের দেবায়নপ্রায় আজ রাতে সফল হবে। আসন্ন সুধা পানের চিন্তায় যেন বুকের মাঝে উত্তাল ঢেউ দোলা দেয়।
ফিস ফিস করে অনুপমাকে জিজ্ঞেস করে, ‘সোনা আর কি সুধা লুকিয়ে আছে তোমার দেহে?’
দেবায়নের আঙ্গুল অনুপমার বাজুর ওপরে আলতো করে আঁচর কাটে। মৃদু কনে বলে অনুপমা, ‘তুমি যা পছন্দ করো, সেই বাগান আমি পরিষ্কার করে রেখেছি।’
কথাটা বলতে গিয়ে অনুপমার কান লাল হয়ে যায় লজ্জায়, চোখ দুটি লজ্জায় আরও শক্ত করে চেপে নেয়। গাল লাল, সারা শরীর যেন আরও উত্তপ্ত হয়ে ওঠে ওই কথা বলার সময়ে। দেবায়ন চাপা চেঁচিয়ে ওঠে, ‘উউউউউ… বেবি…’
দেবায়ন ডান হাত দিয়ে অনুপমার নিতম্বে আলতো করে চাঁটি মারে দেবায়ন, মৃদু হাতের চাপে, নরম মাংসে ঢেউ খেলে যায়।
কানের কাছে মুখ নামিয়ে বলে, ‘দুষ্টু অনুপমা আমাকে আজ রাতে সত্যি সত্যি মেরে ফেলবে যে।’
অনুপমা প্রেমের ঘোরে ককিয়ে বলে, ‘তোমার ছোঁয়ায় আমি পুরো পাগল হয়ে গেছি, আমি আর তোমাকে কি মারব, সোনা।’
দেবায়ন নিতম্বের দিকে দেখে একবার তারপরে, ধিরে ধিরে রাত্রিবাস উঠিয়ে দেয় নিতম্বের ওপর থেকে। ধিরে ধিরে ঘরের আলোয় অনাবৃত হয় কোমল সুগোল ফর্সা নিতম্ব। মসৃণ ত্বকের ওপরে যেন আলো পিছলে যায়। আঙ্গুলের নখ দিয়ে বৃত্তাকারে আঁচর কাটে নরম নিতম্বের ত্বকের ওপরে। বারে বারে কেঁপে ওঠে সুপুষ্ট নিতম্ব দুটি আর ঢেউ খেলে যায় নরম মাংসের ওপরে। অনুপমা আর থাকতে না পেরে বালিশে ঠোঁট চেপে দেবায়নের নাম ধরে ডাকে। দেবায়নের নিখের ছোঁয়ায় নিতম্বের কাপুনি যেন আরও বেড়ে যায়, মনে হয় যেন বৃষ্টিতে ভিজে এক জোড়া নরম খরগোস ঠাণ্ডায় কাঁপছে।
দেবায়ন বিছানা থেকে নেমে অনুপমার পায়ের কাছে বসে পরে, রাত্রিবাস নিচের থেকে টেনে নামিয়ে দেয়। অনুপমা শরীরকে আলতো করে মুচরে, দেবায়নকে সাহায্য করে গায়ের থেকে কাপড় খানি খুলে ফেলতে। দেবায়নের চোখের সামনে পেটের ওপরে শুয়ে প্রেমের আগুনে থরথর কাপে প্রেয়সীর উন্মুক্ত দেহ পল্লব। পা জোড়া এঁকে ওপরের সাথে শক্ত করে চেপে ধরা, মনে হয় যেন মাঝখান থেকে একটি ঘাসের পাতাও যেতে পারবে না। প্রেমের কাপনে বানংবার দেহের ওপরে ঢেউ খেলে যায়। এই কামার্ত দেহ পল্লব যে কোন মুনি ঋষির ধ্যান ভঙ্গ করে দিতে পারে।
দেবায়ন অনুপমার দুপা ধরে ধিরে ধিরে চিত করে শুইয়ে দেয়। অনুপমা মাথার বালিস শক্ত করে ধরে থাকে, অতিব লজ্জায় দুচোখ চেপে বন্ধ করা। দেবায়নের চোখ যায় পীনোন্নত বুকের দিকে। হিমালয়ের সুউচ্চ শৃঙ্গের মতন বুক জোড়া আকাশের দিকে উঁচিয়ে, আর শৃঙ্গ ওপরে বসে থাকা তপ্ত গাড় বাদামি রঙের নুড়ি। সেই বুকের দিকে চোখ গেল দেবায়নের, বুকের মাঝের উত্তাল তরঙ্গকে শান্ত করে নেয় দেবায়ন, প্রেমের সাগরে ডুব দেওয়ার আগে আরও কিছু খেলা বাকি তাঁর প্রেয়সীর সাথে। দৃষ্টি চলে যায় ফর্সা কোমল বুকের দিকে, ব্রিন্তের চারদিক থেকে নেমে আসে অতিব হাল্কা নীলচে আর লালচে শিরা উপশিরা।
বুকের নিচ থেকে নাভি পর্যন্ত সরু হয়ে নেমে আসে মধ্যচ্ছদা, যেন কোন সরু পাহাড়ি নদী, সেই নদী যেন নাভিদেশে এসে মিশে গেছে। গোল পেটের নিচে একটু ফুলে উঠে অতিব সুন্দর বাঁক নিয়ে নেমে গেছে ফোলা তলপেট। উত্তেজনায় কাঁপছে অনুপমার তলপেট। অনুপমা যেন আর থাকতে পারছে না দেবায়নের উত্তপ্ত চাহনির সামনে, বারে বারে শরীর মুচড়ে উঠছে।
দেবায়নের দৃষ্টি কেন্দ্রীভূত হয় জানুসন্ধিখনে। অনুপমার জানুসন্ধি ফুলে বেঁকে হারিয়ে গেছে চেপে ধরা দুই জানুর মাঝে। অতিব যত্নে সাজান সেই নারীত্বের সুখের দোরগোড়া, রোমের লেশ মাত্র নেই।
পরনের কাপড় খুলে ফেলে দেবায়ন, কঠিন সিংহ অবশেষে ছাড়া পেয়ে লাফিয়ে ওঠে। দেবায়ন ঝুঁকে পরে অনুপমার জানুর ওপরে আর জিবের ডগা দিয়ে বৃত্তাকারে আদর করতে থাকে জানুর ওপরে। ধিরে ধিরে ঠোঁট ওপরে নিয়ে আসে দেবায়ন।
অনুপমার অর্ধ ফাঁক করা ঠোঁটের ভেতর থেকে বেড়িয়ে আসে একটা আওয়াজ, ‘আআআআ… পারছিনা… সোনা…’

বাম পা ভাঁজ করে নেয় অনুপমা আর নারীসুখের গহ্বর দেবায়নের দৃষ্টির সামনে উন্মুক্ত হয়ে যায়। দেবায়নের নাকে ভেসে আসে জোরালো এক ঘ্রান, জিবের ডগা অনুপমার জানুর মাঝে নিয়ে আদর করে চেটে দেয়।
চোখের সামনে উন্মুক্ত অনুপমার সুখের স্বর্গদ্বার। এত সুন্দর করে পরিষ্কার করে রেখেছে যে, সেই দ্বার দেখে মনে হয় যে, উল্টান একটি ত্রিভুজের মাঝে অতিব সরু এক নদী।
সেই গোলাপ ফুলের পাপড়ির কোমলতা বুঝতে দেবায়নের দেরি লাগেনা। প্রেমের বারিতে সিক্ত হয়ে উঠেছে দুই পাপড়ি আর অল্প অল্প বেড়িয়ে সিক্ত করে তুলেছে বাইরেটা। অনুপমার সারা শরীর কেঁপে ওঠে এই ভেবে যে দেবায়নের আগুন ঝরান চাহনি ওর নারীত্বের দোরগোড়ায় কেন্দ্রীভূত আর পুড়িয়ে ওকে ছারখার করে দিচ্ছে। অল্প ঠোঁট খুলে তপ্ত শ্বাস ছাড়ে অনুপমার নারীত্বের ওপরে, অনুপমার দেহ প্রচন্ড ভাবে কেঁপে ওঠে তপ্ত শ্বাসের পরশে। কামাতুর দেবায়নের চোখের সামনে সেই মালভূমির দ্বার অল্প অল্প কাঁপতে থাকে।
দেবায়ন দু’হাত বাড়িয়ে বুকের ওপরে নিয়ে এসে, থাবা মেলে দুই বক্ষ হাতের মুঠোয় নিয়ে আলতো করে পিষে দেয়। হাতের তালুর নিচে চেপে ধরে তপ্ত শৃঙ্গের নুড়ি। অনুপমা, বুকের ওপরে দেবায়নের উত্তপ্ত হাতের পেষণে কামপাগল হয়ে ওঠে। দেবায়ন ঝুঁকে পরে জানু মাঝে, জিব বের করে চেপে ধরে জানুমাঝের সিক্ত মালভুমিতে, চেটে নেয় অনুপমার মধু।
কামপাগল অনুপমার শরীরে তীব্র কামনার আগুন ঝলসে যায়। থাকতে না পেরে বালিসে মাথা দাপাতে শুরু করে অনুপমা। অনুপমার দেহ ধনুকের মতন বেঁকে ওঠে, উঁচু হয়ে ওঠে বুক আর পেট, মাথা বেঁকে নিচে নেমে আসে। দু’হাত দেহের দুপাশে ছড়ান, বিছানার চাদর মুঠিতে খাচে ধরে। ধিরে ধিরে জিব দিয়ে অনুপমার মধু চাটতে শুরু করে দেবায়ন, মাঝে মাঝে সেই সরু ঝরনা ধারার ফাটলে জিব ঢুকিয়ে দিয়ে পাগল করে তোলে অনুপমাকে। বারংবার কেঁপে কেঁপে উঠে তীব্র শীৎকার করে ওঠে অনুপমা, সারা শরীরে বিন্দু বিন্দু ঘামের দানা ফুটে ওঠে, বেঁকে, মুচরে, দুমড়ে যায় অনুপমার কোমল নধর দেহ পল্লব। বারেবারে মাথার পেছন দিয়ে বালিসে মারে।
দেবায়ন ওর মালভূমির ঝরনা ধারা ছেড়ে, অনুপমার সিক্ত কমনীয় দেহ পল্লবের ওপরে উঠে আসে। অনুপমা জানু ফাঁক করে আহবান জানায় দেবায়নের উত্তপ্ত কামাতুর দেহ খানি। মালভুমির ঝরনা ছেড়ে দেবায়নের সিক্ত জিব উঠে আসে ওপরে, ঠিক ওর নাভিদেশের কাছে গোল করে জিবের ডগা বুলিয়ে দেয়, আদরের চোটে পাগল হয়ে ওঠে অনুপমা। জিবের ডগা দিয়ে নাভির ভেতর চেটে দেয় আর দেবায়ন দাঁত ফাঁক করে আলতো কামর বসিয়ে দেয় নাভির ওপরে থলথলে পেটে।
অনুপমা ওর ঠোঁটের ওপরে পেট চেপে ধরে শীৎকার করে ওঠে, ‘সোনা, আমাকে আর পাগল করো না, কত দিন তোমার স্পর্শ পাইনি… আজ আমি মরে যাব যে।’
অনুপমার কাতর শীৎকার উপেক্ষা করে ঠোঁট দিয়ে চেপে ধরে অনুপমার নাভিদেশ। ক্ষণিকের জন্যেও অনুপমা চোখ খোলেনা। জানুমাঝে দেবায়নের তপ্ত কঠিন পুরুষ দন্ড মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে, অনুপমার জানুমাঝের কোমল মাংসে বারেবারে ধাক্কা মারে। অনুপমা অনুধাবন করে যে দেবায়নের তপ্ত শলাকা ওর নারীসুখের দোরগোড়ায় প্রবেশ করার জন্য উন্মুখ হয়ে প্রতীক্ষা করছে।
দুই হাঁটু ভাঁজ করে দুপাশে মেলে ধরে অনুপমা, দেবায়ন নিজের নিচের অঙ্গ চেপে ধরে অনুপমার জানুমাঝে। অনুপমার দেহ পল্লবের দুপাশে হাত দিয়ে ভর করে সামনে ঝুঁকে জিবের ডগা দিয়ে অনুপমার মধ্যচ্ছদার ওপর দিয়ে বুলিয়ে দেয়, সাথে সাথে মুখের লালা ভিজিয়ে দেয় তপ্ত ত্বক। অনুপমা ঠোঁট জোড়া ছোটো গোল আকার করে, শ্বাস নিতে থাকে, ঘাড় বেঁকে গেছে পেছনের দিকে। উমত্ত অনুপমা, জানু দিয়ে চেপে ধরে দেবায়নের শরীর আর পা উঠিয়ে আনে দেবায়নের কোমরের উপরে। শিরদাঁড়ার ওপরে গোড়ালি দিয়ে চাপ দেয় আর দেবায়নের কঠিন শলাকার সম্পূর্ণ বহিরাঙ্গ পিষে যায় অনুপমার সিক্ত পাপড়ির ওপরে। অনুপমা পা দিয়ে দেবায়নের কোমর চেপে ধরে বারেবারে আহবান জানায় ওর দেহ কে গ্রহন করতে, ওকে পাগল করে দিতে, নিয়ে যেতে সুখের স্বর্গোদ্যানে।
দেবায়নের কঠিন শলাকার মাথা কোমল সিক্ত নারীসুখের পাপড়ি মাঝে ছুঁয়ে যায়, অল্প ফাঁক হয়ে যায় পাপড়ি জোড়া। ক্ষীণ প্রবেশ করে দেবায়ন অনুপমার শরীরে। নিচের ঠোঁট কামড়ে ধরে অনুপমা। দেবায়ন সামনে ঝুঁকে পরে ডান বুকের কঠিন নুড়ি দাঁতের মাঝে নিয়ে নেয়, প্রথমে আলত করে দাঁতে চাপ দেয় দেবায়ন, কিছু পরে ঠোঁট দিয়ে চেপে ধরে কোমল সুগোল বক্ষ আর চুষে নেয় মধুর নুড়ি। অনুপমার হাত উঠে আসে দেবায়নের মাথার ওপরে, দশ আঙ্গুলে খামচে ধরে মাথার চুল, মাথা চেপে ধরে নরম বুকের ওপরে। জানু মাঝে অনুপমা বুঝতে পারে যে দেবায়নের শলাকা কিঞ্চিত ওর সুখের গুহার ভেতরে প্রবেশ করেছে।
দেবায়নের মাথা আরও এগিয়ে যায়, চলে আসে অনুপমার মুখের ওপরে। গোলাপের পাপড়ির মতন লাল ঠোঁট চেপে ধরে ঠোঁট দিয়ে, নিচের ঠোঁট ঠোঁটের মাঝে নিয়ে চুষে দেয় দেবায়ন। অনুপমার সারা মুখে দেবায়নের তপ্ত শ্বাস বয়ে যায়। অনুপমা ওর নিচের ঠোঁট নিজের থথের মাঝে নিয়ে আলতো কামর বসিয়ে দেয়। জিব বের করে ঠোঁটের ওপরে বুলিয়ে দেয় দেবায়ন। পেশি বিহুল বুকের নিচে পিষে যায় কোমল তুলতুলে বক্ষ জোড়া। হাতের ওপরে হাত বুলিয়ে দুহাতের দশ আঙ্গুল মিলে যায়, দুজনেই হাত চেপে ধরে একে ওপরের, সাপের মতন পেচিয়ে যায় একে ওপরের আঙ্গুল।
শেষ পর্যন্ত অনুপমা আর থাকতে না পেরে, কোমরে মোচর দিয়ে ঠেলে উপরে অথাবার চেষ্টা করে আর সেই সময়ে দেবায়নও ওর ডাকে সারা দেয়। মিলেমিসে একাকার হয়ে যায় দুই দেহ। নারীসুখের দ্বার খুলে যায়, আহবান জানায় উম্মত্ত কঠিন সিংহকে, থেমে থাকেনা দেবায়নের সিংহ, ধিরে ধিরে প্রবেশ করে অনুপমার জানুমাঝের সুখের দ্বারের ভেতরে। মাখনের মাঝে যেন এক তপ্ত ছুরি কেতে ঢুকে পরে। সিক্ত দেয়াল চেপে ধরে শলাকার ত্বক, উষ্ণ মধু ভিজিয়ে দেয় কঠিন অঙ্গ।
অনুপমা দেবায়নের নিচের ঠোঁট কামড়ে ধরে থাকে যতক্ষণ দেবায়নের সিংহ প্রবেশ করে ওর ভেতরে। গলে মিশে একাকার হয়ে যায় দুই কপোত কপোতী, ধিরে ধিরে বিচরন করে সুখের স্বর্গোদ্যানে। বারে বারে সুখের হরিত মালভুমির ওপরে ঘুরে বেড়ায় দুজনে, একে ওপর কে সাপের মতন জড়িয়ে ধরে সারা বিছানার ওপরে গড়াতে থাকে।
দেবায়নের চুড়ান্ত সময়ে অনুপমার বুকের ওপরে দাঁত বসিয়ে দেয়, অনুপমা ওর পিঠে দশ আঙ্গুলের নখ দিয়ে আঁচর কেটে দেয়, পিঠের ত্বক আঁচরে যায়। দেবায়নের বারি মিলিত হয় অনুপমার সুধার সাথে। অনেক দিনের উন্মুখ অপেক্ষার পরে দেবায়নের প্রেয়সী, প্রানের বেলী ফুল স্বমহিমায়, ফুটে ওঠে স্পিতি নদীর তীরে। মামনির সাথে চারবারেরও বেশী অর্গাজমের পর দেবায়ন কঠিন পেষণে আবারও ভেসে গিয়ে শরীরের আর একফোঁটাও শক্তি অবশিষ্ট নেই অনুপমার… তাই দেবায়নকে জড়িয়ে ধরেই ঘুমের রাজ্যে হারিয়ে গেল সে… দেবায়নও অনুপমাকে জড়িয়ে ধরে ঘুমিয়ে পড়লো।
এলোমেলো রুক্ষ চুলের মধ্যে নরম আঙ্গুলের স্পর্শে দেবায়নের ঘুম ভেঙ্গে গেল। চোখ মেলে চেয়ে দেখল সামনে অনুপমার হাসি মাখা মিষ্টি চেহারা। বিছানার ওপরে ওর পাশে বসে অনুপমা ওর দিকে মিষ্টি হাসি নিয়ে তাকিয়ে আছে। অদ্ভুত এক মধুর আলোর ছটা যেন ওর সারা মুখে মাখা। বেশ খানিকটা ঝুঁকে পড়ার জন্য দেবায়নের বুকের ওপরে ওর ঘন কালো চুল খেলা করছে।
অনুপমার মিষ্টি হাসি দেখে দেবায়নের গত কাল ঘটনা মনে পড়ে গেল। চেয়ে দেখল ঘরের মধ্যে সকালের মিষ্টি রোদের খেলা। বিশাল জানালার পর্দা গুলো একদিকে সরান, মনে হয় অনুপমা বাইরের শোভা দেখছিল। ওর দিকে চেয়ে একটু হাসল দেবায়ন। অনুপমা ওর মুখের ওপরে ঝুঁকে ওর কপালে ঠোঁট ছুঁইয়ে দিল। ঝুঁকে পড়ার ফলে দেবায়নের চিবুক অনুপমার উন্নত বক্ষে স্পর্শ করল।
‘উঠে পড়ো সোনা।’

মৃদু নাকে নাক ঘষে দিল অনুপমা তারপরে আলতো করে ঠোঁটে ঠোঁট ছুঁইয়ে দিয়ে একটা সুন্দর চুমু খেল। দেবায়ন ওর মুখের ওপর থেকে চুলের গুচ্ছ সরিয়ে দিয়ে মাথা টা আরও কাছে ঠেনে নিল যাতে চুম্বন টা আরও নিবিড় হয়ে যায়। ঠোঁটে ঠোঁট চেপে রইল দুজনে কিছুক্ষণ।
দেবায়ন ওর পাতলা কোমর জড়িয়ে ধরে কোলের ওপরে টেনে নিল। দেবায়নের জানুর ওপরে অনুপমার কোমল নিতম্বের স্পর্শে ওর সারা শরীরে শিহরণ খেলে গেল। অনুপমা ওর অর্ধশায়িত বুকের ওপরে নিজেকে সঁপে দিল। পরনে রাতের হালকা গোলাপি হাত কাটা নাইট ড্রেস। বক্ষের অধিকাংশ অনাবৃত, দেবায়নের চোখ গেল অনুপমার গভীর বক্ষ বিভাজনের দিকে। অনুপমার নরম গালে নাক ঘষে দিল দেবায়ন।
দেবায়নের বাঁ হাত অনুপমার নরম গোল পেটের ওপরে বিচরন করতে থাকে। আঙ্গুল দিয়ে নাভির চারদিকে আলতো করে আঁচর কেতে দেয় দেবায়ন। অনুপমার কোমল নিতম্ব দেবায়নের তলপেটের ওপরে চেপে বসে। সেই নরম উষ্ণ স্পর্শে দেবায়নের সিংহ মাথা উঁচু করতে শুরু করে। অনুপমার পীনোন্নত বক্ষ যুগল পিষ্ট হয়ে যায় দেবায়নের প্রসস্থ বুকের ওপরে। দেবায়নের মুখের ওপরে অনুপমার গরম শ্বাসের ঢেউ খেলে বেড়ায়। আদর খাওয়ার ফলে অনুপমার শ্বাসে আগুন লাগে, প্রেমের আগুন ধিকিধিকি করে জ্বলতে শুরু করে দিয়েছে অনুপমার বুকের মাঝে।
দেবায়ন ওর কাঁধের মাঝে মুখ গুঁজে ঘাড়ের ওপরে ঠোঁট আর জিব দিয়ে আলতো করে চেটে দেয়। আস্তে আস্তে দেবায়নের ঠোঁট, ঘাড় ছাড়িয়ে কানের লতির ওপরে চাটে। মুক্তোর কানের দুলের সাথে কানের একটা লতি ঠোঁটের মাঝে নিয়ে আলতো করে চুষে দেয় দেবায়ন। অনুপমা ঘনঘন কেঁপে ওঠে কানের ওপরে ঠোঁটের স্পর্শে। দেবায়নের হাত অনুপমার পেটের ওপরে বিচরন করতে করতে ধিরে ধিরে উপরের দিকে উঠতে শুরু করে। অনুপমা বুঝতে পারে যে দেবায়নের হাত আর কিছুক্ষণের মধ্যেই ওর পীনোন্নত বক্ষ পিষ্ট করে দেবে। তীব্র বাসনার ফলে চোখ বন্ধ করে নেয় অনুপমা, আধ খোলা ঠোঁটের ফাঁক দিয়ে অস্ফুট এক শীৎকার দেয়।
বুকের মাঝে যেন বিশাল ঢেউ আছড়ে পড়েছে, অনুপমার উন্নত বক্ষ যুগল বারে বারে ঢেউয়ের মতন ওঠা নামা করতে শুরু করে। দেবায়নের হাত ঠিক অনুপমার বক্ষের নিচে পৌঁছে যায়। অনুপমা আসন্ন বক্ষ পেষণের আশঙ্কায় আধ খোলা চোখ দেবায়নের মুখের দিকে তাকাল। হাত দুটি শক্ত করে ধরে রইল যাতে দেবায়ন ওর বুকের ওপরে হাত দিতে না পারে। মৃদু মাথা দোলালো অনুপমা, ‘না’ কিন্তু ঠোঁটে লেগে তীব্র কামনার হাসি। দেবায়ন ওর দিকে প্রশ্ন নিয়ে তাকাল।
লাজুক হেসে ফিসফিস করে বলল, ‘আমার লজ্জা করছে।’
শক্ত করে জড়িয়ে ধরে উত্তর দিল দেবায়ন, ‘এই রুমে আমি আর তুমি ছাড়া আর কেউ নেই।’
ঘাড়ের ওপরে মুখ গুঁজে, গলা জড়িয়ে মাথা নাড়িয়ে ফিসফিস করে বলল, ‘না না না… এই দিনের আলোতে তোমার ওই আগুনে চোখের সামনে আমার খুব লজ্জা করছে…’
দেবায়ন ওর কথা শুনে হেসে ফেলল, ‘আমার সামনে তোমার লজ্জা কিসের?’
অনুপমা, ‘আমি লজ্জায় লাল হয়ে যাচ্ছি আর তুমি হাসছ? তুমি না খুব বদমাশ ছেলে জান’।
দেবায়ন, ‘ওকে, তুমি লজ্জা পেলে আর কি কি হল মনের মধ্যে সেটা একটু খুলে বলবে না।’
অনুপমা মাথা না উঠিয়ে ফিসফিস করে বলল, ‘তুমি না ভীষণ শয়তান। আমি কিছুতেই বলব না আমার বুকের ভেতরে কেমন লাগছিল।’
দেবায়ন ওর পিঠের ওপরে হাত বোলাতে বোলাতে আবার জিজ্ঞেস করল, ‘একবার বলো না সোনা, শুনি না তোমার কেমন লাগছিলো’
অনুপমা ওর কথা শুনে মৃদু চিৎকার করে উঠল, ‘যাও বলব না, তুমি না একটা মস্ত শয়তান আর কিছু না।’
দেবায়নের আঙ্গুল অনুপমার পিঠের ওপরে ওর শিরদাঁড়ায় আঁচর কাটতে থাকে। আঙ্গুল দিয়ে ঘাড় থেকে পিঠের নিচে কোমর পর্যন্ত বারে বারে আঁচর কেটে দেয়। থেকে থেকে অনুপমার সারা শরীর কেঁপে ওঠে বারংবার। দেবায়নের ঘাড় থেকে কিছুতেই মাথা ওঠায় না অনুপমা।
কানে কানে বলে, ‘দেবায়ন, আমার খুব খিদে পেয়েছে।’
দুষ্টুমি করে উত্তর দেয় দেবায়ন, ‘এত যদি খিদে পেয়েছে তাহলে আমাকে খেয়ে নাও না কেন।’
দেবায়নের মাথার পেছনে আলতো করে থাপ্পর মেরে বলে, ‘সত্যি বলছি আমার খিদে পেয়েছ, আর দুষ্টুমি কোরোনা।’
এই বলে দেবায়নের তীব্র আলিঙ্গন থেকে নিজেকে কোন রকমে মুক্ত করে উঠে পড়ল অনুপমা। কামনার এক সুন্দর হাসি সারা মুখে লেগে আছে, চোখ দুটি যেন প্রেমের আগুনে জ্বলছে ধিকিধিকি করে। নিচের ঠোঁট কামড়ে ধরে বুকের মাঝের আগুন টাকে প্রাণপণে যেন দমিয়ে রেখেছে। দেবায়ন কে হাত ধরে টেনে উঠিয়ে দিল বিছানা থেকে, ব্রাশে পেস্ট লাগিয়ে দিয়ে বাথরুমের মধ্যে ঠেলে ঢুকিয়ে দিল। দেবায়নের অনুধাবন করতে বিশেষ বেগ পেতে হল না যে সকালের রোদ এই ঘরের মধ্যে কিছুক্ষণের মধ্যে আগুন জ্বালিয়ে দেবে।
তাড়াতাড়ি বাথরুম থেকে বেড়িয়ে এল দেবায়ন, ওর যে আর তর সইছে না অনুপমাকে কাছে পাওয়ার। দেবায়নকে দেখে কাপে চা ঢেলে দিল অনুপমা। ওর পাশে একটা চেয়ার টেনে বসে অনুপমা কে ওর কোলের ওপরে বসিয়ে দিল। অনুপমা আরাম করে দেবায়নের কোলের ওপরে বসে এক হাতে ওর গলা জড়িয়ে ধরল। দেবায়ন এক হাতে অনুপমার কোমর জড়িয়ে ধরে বসল। দেবায়নের নচ্ছার হাত খানি অনুপমার কোমল পেটের পাশে আলতো করে কাতুকুত দিল।
অনুপমা ওর দিকে মিষ্টি রেগে তাকিয়ে বলল, ‘এখন নয় দেবায়ন, মামনি উঠে গেছে।’
দেবায়ন, ‘ছোট্ট একটা কিস ব্যাস…’
একটু নড়ে বসল অনুপমা, মৃদু রেগ গিয়ে বলল, ‘ধুৎ আগে খাও তারপরে দেখা যাবে’ এই বলে ওর মুখের সামনে স্যান্ডউইচ এনে ধরল।
গল্প করতে করতে ওরা সকালের খাওয়া শেষ করল। অনুপমা ওর কোলে বসে ওকে খাইয়ে দিল আর নিজে খাবারের সাথে দেবায়নের মিষ্টি আদর খেতে থাকল। ওর মুখে শুধু চিতকুলের সৌন্দর্যের জয়গান। খাওয়ার শেষে অনুপমার কোমর জড়িয়ে কাছে টেনে নিল, অনুপমা ওর মুখ খনি আঁজলা করে নিয়ে আলতো করে নাকে নাক ঘষে দিল।
দেবায়ন ওর ডান হাত হাতে নিয়ে, কোমল আঙ্গুলের ওপরে ঠোঁট ছোঁয়াল, এক এক করে আঙ্গুল গুলো মুখে পুরে চুষে দিল। একদম আঙ্গুলের গোড়া থেকে মাথা পর্যন্ত।
অনুপমা মৃদুকণ্ঠে বলে উঠল, ‘আবার দুষ্টুমি শুরু করে দিয়েছ।’
আঙ্গুল চোষার ফলে অনুপমার কমনীয় শরীর বারে বারে শিহরিত হয় যেন শরতের বাতাসে ধানের মাথা আন্দোলিত হচ্ছে। অনুপমা বাঁ হাতে দেবায়নের গলা জড়িয়ে ধরে ওর মাথা বুকের ওপরে টেনে নিল। কোমল বুকের উষ্ণতায় মুখ ডুবিয়ে দিল দেবায়ন। হাত ছেড়ে অনুপমার পেটের ওপরে হাত দেয়, বৃত্তাকারে বারে বারে গোল পেটের মসৃণ ত্বকের ওপরে হাত বলাতে থাকে। মাঝে মাঝে কিঞ্চিত টিপে ধরে নরম মাংস।
অশান্ত ডান হাত অনুপমার পিঠের ওপরে বিচরন করে, ঘাড় থেকে নিতম্বের কাছে। মাঝে মাঝে ওর বাঁকা শিরদাঁড়ার ওপরে নখের আঁচর দেয় দেবায়ন। দেবায়ন মাথা নিজের বুকের ওপরের থেকে উঠিয়ে ঠোঁটে ঠোঁট চেপে ধরে অনুপমা। প্রথমে আলতো ঠোঁটের ছোঁয়া ক্রমশ তীব্র চুম্বনে পরিনত হয়। জিবের ডগার সাথে জিব লাগে। নিচের ঠোঁট কামড়ে ধরে অনুপমা, দেবায়নের সারা শরীরে কাটা দেয়।

দেবায়ন অনুপমার জানুর ওপরে হাত রাখে, হাঁটু থেকে কোমর পর্যন্ত হাত বুলাতে থাকে মসৃণ পেলব জানুর ওপরে। জানু ধরে ভাল করে টেনে নেয় কোলের ওপরে। অনুপমার কোমল পুরুষ্টু নিতম্ব দেবায়নের তলপেটে আগুন জ্বালিয়ে দেয়। অনুপমা ওর কোমল নিতম্বের মাংসের ওপরে দেবায়নের উত্তপ্ত সিংহের ছোঁয়া বুঝতে পারে। আদরের গতি ক্রমশ বেগ পায়, অনুপমার শ্বাসে কামনার আগুনের হল্কা। দেবায়ন অনুপমার জানুর ওপরে হাত চেপে ধরে, ছুঁতে চেষ্টা করে জানু মাঝে নারী সুধার কাছে। অনুপমা চুম্বন টিকে বন্দ করে ওর চোখের দিকে তীব্র বাসনাময় চাহনি নিয়ে তাকায়।
চোখের কোন চিকচিক করে ওঠে অনুপমার, নিচু কম্পিত সুরে বলে, ‘দেবায়ন, আমি তোমাকে খুব ভালবাসি। তোমাকে ছাড়া আমি বাঁচতে পারব না দেবায়ন।’
দেবায়ন জিভ বের করে অনুপমার অধরের ওপরে আলতো করে বুলিয়ে দেয়।
অনুপমা, ‘আমাকে শক্ত করে জড়িয়ে ধর দেবায়ন, আমি তোমাকে ছেড়ে যেতে চাই না।’
ওর কথা শুনে দেবায়নের মনের ভেতরে প্রেমের আগ্নেয় গিরি গুরগুর করে উঠল। দু’জনেই বুঝতে পারল যে সম্ভাবিত মিলনের সময় কাছে এসেছে। দেবায়ন অনুপমাকে শক্ত করে জড়িয়ে ধরল যেন পৃথিবীর অন্তিম কাল নিকটে আর অনুপমা একমাত্র মানুষ যে দেবায়নকে ওই অন্তিম সময় থেকে বার করতে পারবে। অনুপমা ওর বলিষ্ঠ বাহুপাসে নিজেকে সম্পূর্ণ রুপে সঁপে দিল।
দেবায়ন ওর কানে কানে বলল, ‘আমি তোমাকে ছেড়ে কোথাও যাবো না অনুপমা।’
অনুপমা, ‘কথা দাও আমাকে যে আমাকে ছেড়ে দেবে না, আমাকে এই বিশাল নিষ্ঠুর পৃথিবীর মাঝে একা ছেড়ে যাবেনা। কথা দাও দেবায়ন।’
দেবায়ন, ‘আমি কথা দিচ্ছি অনুপমা, আমি তোমাকে ছেড়ে কোথাও যাব না।’
দুজনে এঁকে অপরেকে জড়িয়ে ধরে অনেকক্ষণ চুপচাপ বসে থাকে, একজন আরেকজনকে মিষ্টি আদরে করতে থাকে।
দেবায়ন মৃদুকনে অনুপমার কানে কানে বলে, ‘তুমি কি এইরকম ভাবে সারা দিন আমার কোলে চুপ করে বসে থাকবে, কিছুই কি বলবে না?’
অনুপমা, ‘তোমার ভালবাসা আর আদর দিয়ে আমার হৃদয়টা পরিপূর্ণ করে নিতে চাই আমি।’
দেবায়নের বুকের ওপরে তর্জনীর নখের আঁচর কেটে লিখে দেয় অনুপমা, ‘আই লাভ ইউ।’ দেবায়ন অনুপমার কানে কানে বলে, ‘আই লাভ ইউ টু হানি।’
অনুপমা তারপরে ওর বুকের ওপরে নখ দিয়ে নিজের নাম লিখে দেয়, ‘অনুপমা!’
নিজের বুকে অনুপমার নামের দাগ অনুভব করে শিহরিত হয় দেবায়ন।
‘উম্মম কি মিষ্টি লাগছে তোমাকে…’
দেবায়ন অনুপমার ঘাড়ে হাত রেখে ওর মুখখানি আবার নিজের মুখের কাছে টেনে নেই, চেপে ধরে ঠোঁট জোড়া অনুপমার কোমল অধর ওষ্ঠের ওপরে। কামর বসিয়ে দেয় অনুপমার ঠোঁটের ওপরে, কেঁপে ওঠে অনুপমা, দেবায়নের দাঁত ওর ঠোঁট জোরে কামড়ে ধরে। উন্নত বক্ষ পিষ্ট হয়ে যায় দেবায়নের প্রসস্থ বুকের ওপরে, কোমল উত্তপ্ত বক্ষের নরম মাংস লেপ্টে যায় দেবায়নের বুকের সাথে।
অনুপমার ঘাড়ের থেকে সারা পিঠে হাত বলাতে থাকে দেবায়ন, পাতলা গায়ের কাপড় অনুপমার শরীরের কোমলাতে আর উষ্ণতাকে ঢেকে রাখতে পারেনা। কামনার স্ফুলিংগ যেন পাতলা কাপড় ফুঁরে বেড়িয়ে আসতে চেষ্টা করে। আধাখোলা ঠোঁটের মাঝে অনুপমা ওর জিব বের করে দেবায়নের জিব চেটে দেয়, জিবের ডগা ঠোঁট ছাড়িয়ে নাকের ওপরে বিচরন করতে থাকে।
দেবায়ন মৃদুকনে বলে, ‘আমি তোমার সকাল প্রেমের আগুনে ভরিয়ে তুলবো।’
অনুপমা ওর দিকে কাজল কালো নয়নে তাকিয়ে যেন জিজ্ঞেস করল, ‘আর কি করে ভরিয়ে তুলবে দেবায়ন?’
দেবায়ন অনুপমাকে পাঁজাকোলা করে কোলে তুলে নিল, অনুপমা ওর গলা জড়িয়ে ধরে থাকল। একবারের জন্য প্রেমের আলিঙ্গনে কোন ভাটা পড়তে দিল না দুজনে। দেবায়ন অনুপমাকে যেই না বিছানার ওপরে বসিয়ে দিল, দুষ্টু অনুপমা মিষ্টি হেসে পেছনে সরে গিয়ে নাক পর্যন্ত কম্বলটা টেনে নিজেকে ঢেকে নিল। এক টানে গায়ের গেঞ্জি খুলে ফেলল দেবায়ন।
দেবায়নের প্রশস্ত ছাতি দেখে কেঁপে উঠল অনুপমা। বুকের মাংস পেশি যেন অনুপমাকে হাতছানি দিয়ে কাছে ডাকছে। দেবায়ন পায়ের দিকে কম্বল টেনে অনুপমাকে কম্বল থেকে বের করে নিতে চেষ্টা করে। অনুপমা জোরে মাথা নাড়ায়, চোখ মুখ লজ্জায় লাল হয়ে গেছে, নাকের ফুটো বড় হয়ে গেছে অনুপমার, নাকের থেকে গরম নিঃশ্বাস নির্গত হতে থাকে। প্রেমের আগুনে দু চোখ চিকচিক করছে।
মৃদু শীৎকার দিয়ে দেবায়নের নাম ডেকে উঠল অনুপমা, ‘দেবায়ন…… না…।।
‘কি হল?’
আবার কম্বল টানতে চেষ্টা করে দেবায়ন। অনুপমা মাথা নাড়ায়, ‘না কম্বল ছাড়বো না, আমার লজ্জা করছে দেবায়ন।
দেবায়ন ওর পায়ের কাছে হাঁটু গেড়ে বসে পরে, কম্বলের ভেতরে হাত দিয়ে অনুপমার বাঁ প্যে হাত রাখে, আস্তে আস্তে করে পায়ের পাতার ওপরে হাত বোলায়। মসৃণ কোমল ত্বকের ওপরে উত্তপ্ত হাতের ছোঁয়ায় অনুপমা কেঁপে ককিয়ে ওঠে।
আস্তে আস্তে কম্বলটা টেনে গায়ের থেকে সরিয়ে দেয় দেবায়ন। হাত জোড়া করে বুকের কাছে নিয়ে আসে অনুপমা, প্রেমের আগুনে ঝলসানো চোখে দেখে দেবায়নকে। দেবায়ন ওর পায়ের পাতা বুকের ওপরে চেপে ধরে, আলতো করে বুকের ওপরে যেখানে হৃদপিন্ডটি আছে সেখানে চেপে ধরে। তারপরে পায়ের ফর্সা বুড়ো আঙ্গুল টিকে মুখের মধ্যে নিয়ে চুষে দেয়। পায়ের ওপরে দেবায়নের ভেজা ঠোঁটের পরশে আর চুপ করে থাকতে পারে না অনুপমা।
বুকের ওপরে হাত চেপে শীৎকার করে ওঠে অনুপমা, ‘সোনা আমাকে মেরে ফেললে যে… দেবায়ন উফফফ…’
বাঁ হাত দিয়ে অনুপমার পায়ের ওপর থেকে কাপড় সরিয়ে দিল দেবায়ন, ধিরে ধিরে ফর্সা পায়ের মসৃণ বাঁকা পায়ের গুলি দিনের আলতে বেড়িয়ে পড়ল। অনুপমা দেবায়নের কবল থেকে নিজের পা বাচানর চেস্টায় পা খানি টানতে চেষ্টা করল, কিন্তু দেবায়ন শক্ত করে পা খানি ধরে রয়েছে। দেবায়ন হাতের পাতা দিয়ে পায়ের গুলি আস্তে আস্তে করে আদর করতে থাকে, হাতের পাতায় অনুভব করে যে অনুপমার গায়ে কাটা উঠেছে, উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে অনুপমার মসৃণ ত্বক। শরতের মিষ্টি হাওয়ায় দোলা খাওয়া গাছের পাতার মতন কাঁপতে থাকে অনুপমা। থেকে থেকে মৃদু শীৎকার করে ওঠে অনুপমা। দু’চোখ চেপে বন্ধ করা, লজ্জায় সারা মুখ লাল, বুকের কাছে দুহাত জোড়া করে চেপে ধরা।
অনুপমা শীৎকার করে বলে ওঠে, ‘দেবায়ন প্লিজ এবারে যদি তুমি আমার পা না ছাড় তাহলে আমি মরে যাবো সোনা।’
দেবায়ন ওর কথায় কান না দিয়ে ঝুঁকে পরে পায়ের পাতার ওপরে ঠোঁট ছোঁয়ায়, জিব বের করে চেটে দেয় আঙ্গুল থেকে পায়ের গোড়ালি পর্যন্ত। আর থাকতে না পেরে, বিছানায় শুয়ে পরে অনুপমা, পেটের ওপরে শুয়ে বালিসে মুখ গুঁজে দেয়। পিঠ ওঠা নামা করতে থাকে ভীষণ ভাবে, বুকের মাঝে যেন বিশাল ঢেউ বারংবার আছড়ে পড়ছে যেন। দেবায়ন বিছানায় উঠে ওর পাশে শুয়ে পরে।
ধিরে ধিরে পিঠের ওপর থেকে কম্বল সরিয়ে ওকে জড়িয়ে ধরে। লম্বা চুল অনুপমার চওড়া পিঠের ওপর থেকে সরিয়ে দেয়। অনুপমা বালিস টাকে খামচে ধরে তার ওপরে মুখ গুঁজে পরে থাকে, আসন্ন ভালবাসার আশঙ্কায়। অনাবৃত পিঠের ওপরে নখের আঁচর কেটে দেয় দেবায়ন, কাঁধের গোলায় আঙ্গুল রেখে অনুপমার গায়ের কাপড়ের পাতলা স্ট্রাপ টা সরিয়ে দেয়। সরু স্ট্রাপ কাঁধ থেকে নেমে আসে বাজুর ওপরে কিন্তু শুয়ে থাকার জন্য জামা খুলতে পারেনা দেবায়ন।
মাথা উঁচু করে অনুপমা, চিবুক বালিশের ওপরে, দু’চোখ বন্ধ, হাত দুটি মাথার দুপাসে ভাঁজ করে রাখা। দেবায়ন ওর মসৃণ পিঠের ওপরে ঝুঁকে পরে শিরদাঁড়ার ওপরে চুমু খায়। উত্তপ্ত ত্বকের ওপরে ভিজে জিবের ডগা দাগ কেটে দেয়। দেবায়নের মনে হয় যেন ফুটন্ত ত্বকের ওপরে ওর জিব লেগেছে।
অনুপমা ভেজা জিবের ছোঁয়া পেয়ে কেঁপে উঠে মৃদুকনে বলে, ‘আমাকে মেরে ফেললে যে সোনা। আমার সারা শরীরে কিছু হচ্ছে যেন সোনা…’
দেবায়নের তলপেটের নিচ থেকে আগ্নেয় গিরির লাভা ফুটতে শুরু করে দেয়। দেবায়নের সিংহ মাথা উঁচু করে নিজের অস্তিতের জানান দেয়। অনুপমাকে নিজের ওপরে টেনে তোলে দেবায়ন। দেবায়নের বুকের ওপরে উঠে নিজেদের কে কম্বলের নিচে ঢেকে নেয় অনুপমা। দিনের আলতে ওর চোখ খুলতে প্রচন্ড লজ্জা করে। অনুপমার সামনের সারা শরীর দেবায়নের শরীরের ওপরে, বুকের সাথে বুক কম্বলটে গেছে, পেটের সাথে পেট, জানুর সাথে জানু আর দেবায়নের সিংহ থেমে থাকতে পারেনা। দেবায়নের মাথার দু দিকে হাত ছড়িয়ে মুখের ওপরে মুখ নিয়ে আসে অনুপমা। দেবায়ন নিচের দিক থেকে ওর কাপড় উঠিয়ে দেয় হাঁটু পর্যন্ত।
অনুপমা দুই জানু ফাঁক করে দেবায়নের কোমরের দুপাসে ফেলে দেয়। নরম তলপেটের ওপরে দেবায়নের পুরুষ সিংহের মৃদু ধাক্কা ওর সারা শরীরে কামনার তীব্র আলোড়ন তোলে।
কুনুইয়ের ওপরে ভর দিয়ে অনুপমা নিজের ঊর্ধ্বাঙ্গ চেপে ধরে দেবায়নের বুকের ওপরে, মুখ খানি দেবায়নের মুখের সামনে, চোখ বন্ধ। দেবায়ন ওর জিব বের করে অনুপমার ঠোঁটের ওপরে বুলিয়ে দেয় আবার। কপাল নামিয়ে কপালের সাথে ঠেকায় অনুপমা, নাকের ডগার সাথে নাক ঘসা খায়, চিবুকের সাথে চিবুক। দেবায়নের নখ অনুপমার পিঠে গেঁথে দেয়।

দেবায়ন ওকে চোখ খুলতে বলে, মৃদু মাথা নাড়ায় অনুপমা, ‘না… দেবায়ন… আমার লজ্জা করে…’
সারা মুখে কামনার তীব্র ছটা। বুকের মধ্যে তব্র আলোড়ন, নরম বক্ষ পিষে যায় দেবায়নের নগ্ন ছাতির মাংস পেসির ওপরে। মাথার পেছনের চুল মুঠি করে ধরে মাথা তুলে ধরে দেবায়ন, মরালির ন্যায় গলার ওপরে ঠোঁট আর আলতো করে দাঁত বসিয়ে দেয় দেবায়ন।
অনুপমা শীৎকার করে ওঠে, ‘পারছিনা… দেবায়ন… সোনা আমার…’
ফিসফিস করে দেবায়ন বলে, ‘আই লাভ ইউ অনুপমা।’
ধিরে ধিরে চোখ খোলে অনুপমা, যেন পদ্ম ফুল পাপড়ি মেলে ধরেছে। ঠোঁট জোড়া তিরতির করে কাঁপছে, থেকে থেকে কাঁপছে চোখের পাতা, দু’চোখ চিকচিক করছে প্রেমের বন্যায়, ‘কি করছ দেবায়ন, এত শয়তানি লুকিয়ে ছিল তোমার মধ্যে…’
দেবায়ন দুষ্টুমি সুরে বলে, ‘আর অবুঝের মতন কথা বল না সোনা, যেন তুমি কিছুই জানো না’
অনুপমা, ‘তোমার শয়তানি আমাকে পাগল করে তুলেছে দেবায়ন। আমার হৃদয় টা এখুনি ফেটে পড়বে দেবায়ন।’
বুকের ওপরে অনুপমার বুকের ধুকপুক বুঝতে পারে, মনে হয় যেন খুব জোরে একটা রেল গাড়ি দৌড়চ্ছে। দেবায়ন ওকে বলে, ‘আমার বুকের ওপরে তোমার বুকের শব্দ শুনতে পাচ্ছি সোনা। তুমি আমার কি বুঝতে পারছ বল?’
তলপেটের ওপরে দেবায়নের সিংহ গর্জন করে চলেছে বারে বারে, সেটা অনুভব করে অনুপমা বলে, ‘শয়তান ছেলে….. বলব না।’
দেবায়ন ওর মাথা ছেড়ে হাত নামিয়ে আনে অনুপমার পুরুষ্টু নিতম্বের ওপরে, থাবার মধ্যে পিষে ফেলে দুই নিতম্বের কোমল নারী মাংস, চেপে ধরে অনুপমার তলপেট নিজের লৌহ কঠিন সিংহের ওপরে।
একটা উত্তপ্ত নিঃশ্বাস ওর মুখ থেকে বেড়িয়ে পরে, ‘আহহহহ…’
নিতম্বের ওপরে দেবায়নের হাত বারে বারে খিমচে ধরে, শক্ত হয়ে ওঠে দেবায়ন, সিংহ বড় জ্বালাতন করছে তাঁর সাথে হাতের মাঝে অনুপমার কোমল নিতম্ব। আগুন নির্গত হতে থাকে দুজনার ক্ষুধার্ত শরীর থেকে। প্রেমের ক্ষীরোদ সাগরে দুজনে সম্পূর্ণ রুপে নিমজ্জিত। ধিরে ধিরে অনুপমার কাপড় উঠিয়ে দিল কোমরের ওপরে, চেপে ধরল সিংহ কে অনুপমার কোমল জানু মাঝে। কেঁপে উঠল অনুপমা, নারী সুধার দোরগোড়ায় দেবায়নের সিংহের পরশ পেয়ে। সেই ভীষণ ঠাণ্ডায় দুজনের শরীর থেকে ঘাম ছুটছে। গায়ের কাপড় কিছুক্ষণের মধ্যে আর শরীরের ওপরে থাকে না, কোথাও যেন উধাউ হয়ে যায়।
ওকে জড়িয়ে ধরে পালটি খায় দেবায়ন, অনুপমা নিচে আর দেবায়ন তার ওপরে। পেলব মসৃণ জানু ফাঁক করে অনুপমা আহ্বান জানায় দেবায়নকে, পা দুটি উঠে আসে দেবায়নের পায়ের ওপরে। দুহাতে খিমচে ধরে দেবায়নের মাথার চুল।
ধিরে ধিরে দু’জনে প্রবেশ করে প্রেমের স্বর্গোদ্যানে। বিয়াস নদীর তীরে মিলন ঘটে দুই তৃষ্ণার্ত কপোত কপোতীর। কেউই যেন সেই মিলন টাকে শেষ করতে চায় না, বারে বারে এঁকে ওপরে কে ঠেলে নিচে করে দেয়। ঘুরতে থাকে সারা বিছানার ওপরে। কিছু মিষ্টি ব্যাথা আর প্রচুর অনির্বচনীয় সুখের রেশ টেনে একে অপরকে ভালবাসায় ভরিয়ে দেয়।
বাইরে কনকনে ঠাণ্ডা হাওয়া বইছে আর ঘরের ভেতরে সবে মাত্র আগ্নেয়গিরি থেকে লাভা নির্গত হয়েছে। জানালার নিচে বরফে ঢাকা। বাইরে সূর্যের মিষ্টি রোদ সারা আকাশে নেচে বেড়াচ্ছে। ঘরের ভেতরে, বিছানার ওপরে শীতকালের মিষ্টি রোদ খেলে বেড়াচ্ছে। দেবায়নের ডান পাশে শুয়ে অনুপমা, দুজনের গায়ের ওপর কম্বল। ধবধবে সাদা বিছানার ওপরে শুয়ে আছে দু’জনে। দেবায়নের বুকের ওপরে অনুপমার মাথা, দেবায়নের পা আটকে আছে অনুপমার দুই জানুর মাঝে। দেবায়ন আদর করে অনুপমার পিঠে হাত বলাতে থাকে। অনুপমা ওর বুকের ওপরে নখ দিয়ে আদর করে আঁচর কাটতে থাকে, মাঝে মাঝে ও নিজের নাম আর দেবায়নের নাম লিখে দেয় দেবায়নের প্রসস্থ বুকের ওপরে। অনুপমার মাথার চুলে নাক ডুবিয়ে বুক ভরে অনুপমার ঘ্রান নিয়ে নেয়। সারা টা সময়ে অনুপমা একটি বারের জন্যও কম্বলটাকে ওদের শরীর থেকে সরাতে দেয় নি।
অনেকক্ষণ পরে মৃদু সুরে অনুপমা বলে, ‘তুমি না একদম যা তা… খুব শয়তান ছেলে, আমাকে আছড়ে পিষ্টে পাগল করে তুলেছিলে… মামনি যদি সুন্তে আপ্য কি ভাববে বলতো?’
দেবায়ন, ‘মা কিছুই ভাববে না… কারন মা জানে তুমি তার লক্ষী বউমা’
অনুপমা মুখ না উঠিয়েই বলে, ‘আচ্ছা, তুমি কি জান মামনির বুকে যে অনেক কষ্ট’
দেবায়ন চিন্তিত হয়ে, ‘কেন কি হয়েছে মায়ের’
অনুপমা, ‘মামনির কি বয়স বেশী হয়েছে? তারওতো একটা চাহিদা আছে… যাও একজনকে মামনির ভাল লেগেছিল সেই ধৃতিমানও মামনিকে ধোঁকা দিল… এখন তুমিই বল মামনি কিভাবে তার চাহিদা মিটাবে?’
দেবায়ন, ‘আমিতো মাকে বলেইছি কাউকে খুঁজে নিতে… এখন না নিলে আমি কি করব বল?’
অনুপমা, ‘তুমিই পার সব কিছু করতে… আমি চাই মামনি যাতে আর কষ্ট না পায়… তাই বাহিরের কেও নয় তুমি যেভাবে আমার মায়ের অতৃপ্তি গুছিয়েছ তেমনি আমি চাই তুমি আমার মামনির চাহিদাও পূরণ করবে… বলো, রাখবে না আমার কথা?’
‘এযেনো মেঘ না চাইতেই বৃষ্টি…’ মনে মনে ভাবলেও মুখে প্রকাশ করলো না দেবায়ন… মুখে বলল, ‘তোমার কি মাথা ঠিক আছে… মা কখনই রাজী হবে না’
অনুপমা, ‘আমি যা বলছি ভেবে শুনেই বলছি… আমি জানি তুমি মাকে কত ভালোবাসো… এও জানি তুমি যদি হাত বাড়িয়ে দাও মামনি তোমার বুকে ধরা দিবেই’
দেবায়ন, ‘ধর মানলাম তোমার কথা, মা আমার বুকে ধরা দিল… কিন্তু এতে তুমার কষ্ট লাগবে না?’
অনুপমা, ‘মিস্টার দেবায়ন এই চিনলে আমাকে? তুমি যদি আমার মাকে খুশী করতে পার, আমার বান্ধবীদের খুশী করতে পার, আমাকে ছাড় দিতে পার তবে আমি কেন তুমার মায়ের খুশির জন্য এইটুকুন ছাড় দিতে পারব না? তাছাড়া তুমার মা কি আমার মা না? আমি কি চাইব না আমার মা সুখী হোক? আর এই সুখ যদি মামনি তুমার থেকে পায় এতে আমি কেন কষ্ট পাব?
অনুপমার কথা শুনে আজ নতুন করে তার প্রেমে পড়লো দেবায়ন… তাকে জড়িয়ে ধরে চুমোতে চুমোতে ভরিয়ে দিল…
অনুপমা আলতো করে একটি থাপ্পর মারে ওর বুকের ওপরে। আবার দেবায়ন ওর পিঠের ওপরে আঁচর কা্টে। অনুপমা মৃদু কেঁপে ওঠে, ‘আবার শয়তানি…’
অনুপমা যত নিজেকে ছাড়ানোর চেষ্টা করে দেবায়ন ওকে আরও জোরে জড়িয়ে ধরে। জড়াজড়ি তে আবার মনে হল যেন দুজনের শরীরে আগুন ধরে গেল। অনুপমা দেবায়নের সিংহের অস্তিত্ব নিজের জানুর ওপরে অনুভব করতে পারল।
মিলনের ইচ্ছুক দুই প্রান একে অপরকে প্রাণপণে জড়িয়ে ধরে। দেবায়নের হাত নেমে যায় অনুপমার জানুর ওপরে। অনুপমা জানু ভাঁজ করে দেবায়ন কে সাদর আহ্বান জানায় গ্রহন করার জন্য। অনুপমার ঘাড়ের ওপরে ঠোঁট চেপে ধরে দেবায়ন। উতপ্ত ত্বকের ওপরে ভেজা ঠোঁট যেন আগুনের ফুল্কি উদ্গিরন করে।
মৃদু শীৎকার করে ওঠে অনুপমার আধা খোলা ঠোঁট, ‘ম্মম্মম্মম্মম্ম… সোনা আমার… আমাকে পাগল করে দিচ্ছ তুমি…’
অনুপমার হাতের দশ নখ দেবায়নের কাঁধে বসে যায়, শিরদাঁড়ার ওপরে অনুপমার হাত বিচরন করতে শুরু করে, আবেগের বশে মাঝে মাঝে নখ বসিয়ে দেয় দেবায়নের কঠিন পিঠের পেশিতে।
দেবায়ন ওর জানুর ভেতরে নখ দিয়ে আঁচর কাটে, হাঁটু থেকে নখের দাগ জানুর সন্ধিখন পর্যন্ত নিয়ে যায় দেবায়ন। শীৎকার করে ওঠে অনুপমা, ‘আআআআআআ… মেরে ফেললে আমাকে সোনা……’
অদ্ভুত শিহরণ খেলে যায় অনুপমার সারা শরীরে আর থাকতে অনুপমা নখ বসিয়ে দেয় দেবায়নের কাঁধে। দেবায়নের ঠোঁট নেমে আসে অনুপমার উপরি বক্ষে, জিবের ডগা দিয়ে গোল গোল দাগ কাটে ওর নগ্ন ত্বকের ওপরে। চিবুক দিয়ে সরিয়ে দেয় বুকের অপরের কাপড়, অনাবৃত পীনোন্নত বক্ষ যুগল ঘরের হালকা নীল আলো মনে হয় এই প্রথম দর্শন করল। অনুপমা লজ্জা পেয়ে কম্বলটা আরও ওপরে টেনে ধরে যাতে দেবায়ন ওর নগ্নতা দেখতে না পারে। শত চেষ্টা করেও দেবায়ন কম্বল টাকে গা থেকে সরাতে পারে না। অনুপমার হাত নেমে আসে দেবায়নের কোমরে, দু’হাতের থাবার মধ্যে শক্ত করে ধরে ফেলে দেবায়নের শক্ত নিতম্ব, টেনে ধরে দেবায়নের নিম্নাঙ্গ নিজের সিক্ত নারীত্বের ওপরে। সাপের মতন ফিস্ফিসিয়ে ওঠে অনুপমা, ‘দেবায়ন আমাকে তোমার করে নাও, আমি তোমার আলিঙ্গনে আজ মরতে রাজি আছি, দেবায়ন।’
দেবায়নের কোমর একটু মোচড় দেয়, দুহাত অনুপমার শরীরের দুপাসে দিয়ে ঊর্ধ্বাঙ্গ একটু উঁচু করে কামাগ্নি ভরা চোখে অনুপমার মুখের দিকে তাকায়। ওর মুখের উপরে তপ্ত শ্বাস ছেড়ে বলে, ‘মরার সময় নেই অনুপমা, আমি তোমাকে অনেক অনেক ভালবাসি সোনা।’
রুমের আবহাওয়া উত্তপ্ত হয়ে ওঠে প্রেমিক যুগলের নগ্ন ত্বকের ঘর্ষণে আর মৃদুকনে। থেকে থেকে গুঞ্জরিত হয় ওদের মিলিত শীৎকার আর আদরের আওয়াজ। দেবায়ন নিজেকে নামিয়ে নিয়ে আসে অনুপমার সিক্ত গহ্বরে। মিলিত হয়ে যায় দুই ভালবাসায় ভরা প্রান। আবার দু’জনে জড়াজড়ি করে শুয়ে থাকল, কিছুক্ষণ পরে অনুপমা আস্তে আস্তে বিছানা থেকে নেমে গেল। দেবায়ন উঠে বসল বিছানার ওপরে, অনুপমা ওর মুখের ওপরে ঝুঁকে কপালে একটা ছোটো চুমু খেল। তারপরে চালে মত্ত ছন্দ তুলে নিজের কাপড় নিয়ে বাথরুমে ঢুকে গেল। বাথরুমে ঢোকার আগে, ডান হাতের তর্জনী ঠোঁটের কাছে এনে, তর্জনীর ডগায় আলতো চুমু খেয়ে, দেবায়নের দিকে নাড়িয়ে দিয়ে চলে গেল।
ফ্রেশ হয়ে বের হতেই দেখে দেবায়ন আবারও ঘুমিয়ে পড়েছে… তাকে আদর করে ডেকে দিল অনুপমা। বলল, ‘তুমি ফ্রেশ হয়ে নাও… আমি বের হব… আজ আর আসতে পারবনা… আমি চাই যেভাবে হোক আজকের ভিতরেই মামনি যেন তার হারান প্রেম তোমার মাঝে খুজে পায়… মনে থাকবে তো?’
দেবায়ন, ‘থাকবে বাবা থাকবে… তবে তুমি থাকলে বরং ভাল হতো… দুজনে মিলেই না হয় মাকে আদর করতাম…’
অনুপমা, ‘আমার ভাগেরটা নিয়ে তোমাকে চিন্তা করতে হবে না, আমারটা আমি ঠিকই মামনিকে দিয়ে দিবো… তবে মামনি যদি তোমাকে না জানানোর অনুমতি দেয় তবে কিন্তু এই একটি বিষয় তোমার কাছ থেকে আমি লুকাব…’
দেবায়ন, ‘নো প্রবলেম বেবি, তোমাকে অনুমতি দিয়ে রাখলাম, আর যেহেতু অনুমতি দেয়া আছে তাই কিছু করে না বললেও কোন আপত্তি নেই…’
অনুপমা, ‘তাই বলে তুমি কিন্তু কিছু লুকাতে পারবে না… মামনির সাথে কতদুর এগুলে আমাকে পাই পাই জানাবে…’
দেবায়ন, ‘ওকে বাবা… মনে থাকবে…’ বলে উঠে অনুপমাকে জড়িয়ে একটা প্রগাড় চুমু খেয়ে বাথরুমে চলে গেল ফ্রেশ হতে।

গল্পটি কেমন লাগলো ?

ভোট দিতে স্টার এর ওপর ক্লিক করুন!

সার্বিক ফলাফল 0 / 5. মোট ভোটঃ 0

এখন পর্যন্ত কোন ভোট নেই! আপনি এই পোস্টটির প্রথম ভোটার হন।

Leave a Comment