পাপ কাম ভালোবাসা ২ [৪]

Written by MegaAgun

মেকওভর
দেবায়নের বাড়ি থেকে বের হয়ে শ্রেয়াকে ফোন দিল অনুপমা, জানাল পার্লারে যাচ্ছে… সেখান থেকে শপিংএ যাবে… শ্রেয়াকে বলল সে যাতে ঠিক দু’ঘণ্টা পর শপার্সের সামনে থাকে… অনুপমা পার্লার থেকে সরাসরি সেখানে চলে আসবে…
পার্লারের দরজাটা খুলে সে আস্তে করে ঢুকে এদিক ওদিক তাকাতে লাগল। দেখলো তার অপেক্ষায় একটি মেয়ে দাঁড়িয়ে আছে… মেয়েটা খুব সুন্দর না হলেও মুখটা বেশ মিষ্টি। ফিগারটাও বেশ স্লিম এন্ড ট্রিম, যাকে বলে ওয়েল মেইনটেন্ড বা এক কথায় টোন্ড।
আস্তে আস্তে সেদিকে এগিয়ে গিয়ে অনুপমা বলল, ‘হাই, আমি অনুপমা… তুমিই তো…’
কথাটা মাঝখান দিয়ে কেটেই মেয়েটি বলল, ‘ইয়েস ম্যাম, তুমি আমারই ক্লায়েন্ট। আমার নাম প্রীতি। ওয়েলকাম টু এসেন্স ম্যাসাজ পার্লার ফর লেডিস।’
অনুপমা একটু হেসে প্রীতিকে ধন্যবাদ জানিয়ে চেঞ্জ করতে চলে গেল।
প্রীতি তখন সব দরকারের জিনিসগুলো গুছিয়ে নিতে লাগল। অনুপমা কিছক্ষন বাদে চেঞ্জিং রুম থেকে বেড়িয়ে এলো নিজেকে একটা টাওয়েলে জড়িয়ে।
প্রীতি ম্যাসাজ টেবিলটার দিকে ইশারা করে বলল, ‘আসুন ম্যাম, এখানে শুয়ে পড়ুন পিঠটা উপরে দিকে দিয়ে।’
অনুপমা লক্ষ্মী মেয়ের মতো তাই করল। প্রীতি অনুপমাকে বলল টাওয়েলটা খুলে নীচের দিকে নামিয়ে দিতে যাতে পিঠ টা ফাঁকা হয়ে যায়। অনুপমা তাই করল। অনুপমা পিঠটা খালি করতেই প্রীতি দেখল অনুপমার ফর্সা পিঠের বাঁ দিকে একটা কালো বড় তিল। দেখেই প্রীতির কেমন আকৃষ্ট লাগল নিজেকে।
আরও খেয়াল করলো অনুপমার কোমরটা সরু খুব সুন্দর আর স্তনগুলো সাইড দিয়ে উপুর হয়ে শোয়ার কারনে অনেকটা ফুলে বেড়িয়ে আছে। যে কোনো ছেলেকে পাগল করে দেওয়ার মতো দৃশ্য। প্রীতি আস্তে করে একটা হারবাল প্যাক নিয়ে ওর পিঠে ভালো করে লেপে দিল আর ম্যাসাজ করতে লাগল। অনুপমার পিঠটা খুবই নরম আর মোলায়েম।
প্রীতি জিজ্ঞাসা করলো, ‘ম্যাম, আপনি কি নিয়মিত ম্যাসাজ করান?’
অনুপমা উত্তর দিল, ‘না, আসলে বাড়িতেই যত্ন করি। তবে সামনে বিয়ে তো তাই আর কি…’ বলে ও থেমে গেল।
প্রীতি একটু মুচকি হেসে ফেললো আর হটাৎ তখনই খেয়াল না করার ফলে তার হাতটা অনুপমার বড় গোল স্তনের পাশে গিয়ে একটু লাগল।
প্রীতি হাতটা সরিয়ে খুবই বিনম্র হয়ে বললো, ‘সরি ম্যাম, বুঝতে পারিনি।’
তাতে ও বলল, ‘আরে, ইটস ওকে। তাছাড়া অতো ভাবনার কি আছে? তুমিও তো মেয়েই।’
প্রীতি আবারও একটু মুচকি হাসলো। তারপর প্যাকটা ভালো করে পরিষ্কার করলো। পিঠটা যেন আরও মসৃণ হয়ে উঠেছে, আরও উজ্জ্বল লাগছে আর তিলটা আরও ফুঁটে উঠেছে। তারপর প্রীতি পিঠটা ভালো করে ওয়েল ম্যাসাজ করতে লাগলো আর হুট করে বলে উঠলো, ‘আপনার স্তন দুটোও ম্যাসাজ করে দেব? তাহলে আরও সুন্দর হয়ে যাবে বিয়ে অব্দি।’
এটা শুনে উত্তেজিত বোধ করলেও প্রীতি অপরিচিত বলে রেগে গেল অনুপমা। বলল, ‘হোয়াট ননসেন্স? কি সব যাতা বলছেন তুমি? আমি কিন্তু তোমার নামে কমপ্লেন করব।’
প্রীতি আস্তে করে বললো, ‘রাগবে না ম্যাম, একটু আগে বললো না যে আমিও মেয়ে, তাই এতে লজ্জা পাওয়ার কিছু নেই। আর আপনার ভালোর জন্যই বললাম। সব ছেলেরাই চায় যে তার বউয়ের স্তনগুলো সুন্দর হবে তবেই না চুষে আর টিপে মজা পাবে, তাছাড়া আপনারও খুব ভালো লাগবে, একবার করিয়েই দেখুন না! ভালো না লাগলে আপনি যখনি বলবে তখনই বন্ধ করে দেব।’
শুনে অনুপমা বেশ খানিকটা কনভিন্স হয়ে বলল, ‘তা ঠিক, কিন্তু আমার লজ্জা লাগবে।’
প্রীতি বললো, ‘আরে বাবা লজ্জা কিসের? আমি কি ছেলে নাকি!?’
কথাটা বলেই প্রীতি ওকে ঘুরতে বললো। অনুপমা আস্তে করে উঠে টাওয়েলটা নিচে জড়িয়ে ঘুরে গেল। ঘুরে শুতেই প্রীতি দেখলো কি সুন্দর সুডোল স্তনগুলো। বোঁটাগুলো হাল্কা লালচে রঙের, লজ্জায় আর হয়তো খানিকটা চাপা উত্তেজনায় ফুলে উঠেছে, যেন কারো চোষার জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছে।
প্রীতি ওকে আস্তে করে শুইয়ে রিলাক্স করতে বললো, তারপর শুরু করলো তার আসল খেলা। বাটি থেকে আস্তে করে তেল নিয়ে অনুপমার দুটো স্তনের ঠিক মাঝখানে ঢাললো। খানিকটা ঢালার পর দুটো টিস্যু পেপার নিয়ে অনুপমার দুটো স্তনের উপরে রাখলো। তারপর আগে ঢালা সেই তেলটা নিয়ে অনুপমার পেটে আলতো আলতো করে ম্যাসাজ করতে লাগলো আর কখনো নাভির গর্তে তেল ঢেলে তাতে আঙ্গুল ঢুকিয়ে ম্যাসাজ করতে লাগলো। খেয়াল করলো অনুপমার হাজার চেষ্টা সত্ত্বেও তার শরীর অন্য কথা বলতে শুরু করেছে। টিস্যু পেপার ভেদ করে যেন অনুপমার স্তনের বোঁটাগুলো বাইরে আসতে চাইছিল।
ফাক বুঝে প্রীতি তেল নিয়ে অনুপমার স্তনের নীচের অংশটায় আলতো করে যেই ছুঁলো, ওমনি অনুপমা আস্তে করে বলল, ‘কি করছ? এটা ঠিক নয়।’ যেন অনুপমা আর অনুপমার শরীর দুটো দুই রকম কথা বলছে। কথাটার মধ্যে কোনো জোড় ছিল না বুঝতে পেড়ে প্রীতি হাতে তেল নিয়ে উপর দিকের বোঁটাটা টিপতে লাগলো।
তেল দিয়ে অনেকক্ষণ ম্যাসাজ করার পর দুটো পাথর নিয়ে সেগুলো হাল্কা মোমের আঁচে অল্প গরম করে যেই অনুপমার শরীরে ছোঁয়ালো, ও কেমন শিউরে উঠল। তারপর ওগুলো আলতো করে অনুপমার স্তনের চারদিকে ঘোরাতে লাগলো আর এরকম করতে করতে অনেকক্ষণ বাদে পাথরগুলো অনুপমার তৈলাক্ত স্তনের বোঁটায় নিয়ে ঘসতে লাগলো।
অনুপমার মুখ দিয়ে তখন ‘আঃ’ আওয়াজ বেরোল।
প্রীতি বললো, ‘ম্যাডাম, আপনাকে আরও খুশি করতে পারি যদি আপনি চান।’
এইবার আর অনুপমা মানা করল না, উল্টো টাওয়ালটা আস্তে করে সরিয়ে দিল। টাওয়ালটা সরাতেই অনুপমার যোনি দেখে প্রীতির মনে কেমন একটা হল। মনে হল এখুনি চাটতে শুরু করে, কি মসৃণ আর কি ফর্সা অনুপমার যৌনিটা। তার ওপর দিয়ে লালচে হাল্কা আভা ফুটে উঠেছে হয়তো উত্তেজনায়। খেয়াল করলো যে অনুপমার যৌনিটা বেশ ভিজে গেছে। প্রীতি আর দেরী না করে তেলের বাটিটা নিয়ে অনুপমার যৌনির উপরে ঢালতে থাকলো।
দেখলো অনুপমার মুখটা যেন আরও লাল হয়ে যাচ্ছে আর কেমন ছটফট করছে, ও চোখটা বন্ধ করে হাত দিয়ে শক্ত করে টেবিল ক্লথটা ধরে আছে। প্রীতি তেলটা নিয়ে অনুপমার যৌনির চারপাশে চেপে চেপে আঙ্গুল কখনো ঘোরাতে লাগলো কখনো বা যৌনিটা ওপরদিকে টানতে লাগলো আর দেখে অবাক হলো যে তাতেই কতো জল বের হচ্ছিলো অনুপমার যৌনির থেকে।
অনুপমার যৌনির থেকে বেরোনো জল আর তেল নিয়ে প্রীতি এবার অনুপমার ক্লিটোরিয়াসটা ম্যাসাজ করতে লাগলো আর ওইদিকে অনুপমার স্তনের বোঁটায় দুটো পাথর চেপে বসিয়ে দিলো। ও আর সহ্য না করতে পেরে নিজেই পা দুটো ফাঁক করে দিলো, যার ফলে যৌনির ফুটোটা ফুলের মতো ছড়িয়ে গেল।
প্রীতি বুঝতে পেরে তার দুটো আঙ্গুলে ভালো করে তেল মাখিয়ে অনুপমার যৌনিতে ঢুকিয়ে দিলো আর ক্লিটোরিয়াসে নিজের জিভ দিয়ে ম্যাসাজ করতে লাগলো। অনুপমার যৌনিতে আঙ্গুল ঢুকিয়ে আস্তে আস্তে আগে পিছে করতেই প্রীতি বুঝলো যে একটু বাদেই অনুপমা জল ছেড়ে দেবে। তখন সময় বুঝে ঠিক অনুপমার অর্গাজম হওয়ার আগের মুহূর্তে প্রীতি থামিয়ে দিলো সব।
অনুপমা নিজেকে আর থামাতে না পেরে বলে উঠলও, ‘প্লিজ থেমো না, প্লিজ ফিঙ্গার মি।’
প্রীতি ওকে আরেকটু টিজ করতে লাগলো। তারপর ঠোঁট নামিয়ে অনুপমার ঠোঁটে কিস করতে লাগলো আর দুই হাত দিয়ে অনুপমার স্তনের বোঁটাগুলো আবার ম্যাসাজ করতে থাকলো। কিছুক্ষন পর প্রীতি তার মুখ অনুপমার স্তনে নামিয়ে এনে বোঁটাগুলো মুখে নিয়ে ভালো করে চুষতে থাকলো, মনে হচ্ছিল অনুপমা তাতেই যেন জল ছেড়ে দেবে।
আর দেড়ি না করে প্রীতি আবার আঙ্গুল ঢুকিয়ে এবার একটু জোরে জোরেই ফিঙ্গারিং করতে লাগলো। একটু বাদেই একটা সরু জলের ধারা অনুপমার যৌনি থেকে বের হয়ে প্রীতির হাত ভিজিয়ে দিলো। সে দেখলো অনুপমার মুখ আর পুরো শরীরটা কেমন লাল রঙের হয়ে গাছে। অনুপমার অর্গাজমের কিছুক্ষন বাদে প্রীতি তার যৌনি থেকে হাত সরিয়ে ফেলল। অনুপমা আস্তে আস্তে নর্মাল হলো।
একটু জল খেতে চাওয়ার পর ও প্রীতিকে প্রশ্ন করল, ‘সত্যি করে বলো তো তুমি কি…!’
প্রীতি প্রশ্নটা বুঝে ওকে থামিয়ে বললো, ‘হুম, আপনি ঠিকই ধরেছেন আর আপনি আসার পর থেকেই আপনাকে খুব পছন্দ হয়েছিল। আশা করি আপনারও খুব ভালো লেগেছে।’
অনুপমা শুধু হাল্কা হেসে বলল, ‘আমার বিয়ে সামনে, তুমি অবশ্যই আমার বিয়েতে আসবে… আর আজ থেকে কোন আপনি নয়… কারন আমার বান্ধবীরা আমাকে তুমি/তুই করে ডাকে…’
অনুপমা কাপড়-চোপড় পড়ে বিল দিতে গেলে প্রীতি বিল রাখলো না… বললো, ‘যেহেতু আমাকে বান্ধবী বানিয়েছ তাই আমার বান্ধবীদের কাছ থেকে আমি বিল নেই না… তোমাকেও বিল দিতে হবে না… তোমার যেদিন খুশি এসো… আমি এমনিতেই ম্যাসেজ করে দিবো…’
অনুপমা প্রিতিকে জরিয়ে ধরে ঠোঁটে চুমু খেয়ে তার কাছ থেকে বিদায় নিয়ে মার্কেটের উদ্দেশ্যে রওনা দিল… ঠিক তখনি দেবায়নের ফোন আসলো তার মোবাইলে…
অনুপমা মুচকি হেসে ফোন ধরে বলল, ‘কি ব্যাপার মাহাশয়ের, মামনির বাহুডোরে কি ধরা খেয়েছেন?’
দেবায়ন, ‘তোর কথা মত একটু আদর করতে গিয়ে কেলেঙ্কারি হয়ে গেছে রে’… তারপর বিস্তারিত খুলে বলল সব…
অনুপমা, ‘তাতে সমস্যা কোথায়, আজ অল্প একটু আদর করতি, কালতো ঠিকই কাপড় খুলতি… না হয় আজি খুলে গেল…’
দেবায়ন, ‘না মানে… মামনি ঘটনাটির পর সহজ হতে পারছে না’
অনুপমা, ‘চিন্তা করিস না, বাসায় যা মামনিকে ভাল করে আদর কর… দেখবি সব ঠিক হয়ে গেছে… আমি আজ আর আমি তোর বাড়ি আসবনা… সারা রাত পরে আছে… দেখবি সব ঠিক হয়ে গেছে… আর আমি মামনিকে ফোন দিচ্ছি… আমার সাথে কথা বললে দেখবি সব ঠিক হয়ে গেছে…’
দেবায়ন, ‘তুই এখন কোথায়?’
অনুপমা, ‘পার্লারে ছিলাম… এখন মার্কেটে যাচ্ছি… শ্রেয়া অপেক্ষা করছে… ও তোকে তো বলা হয়নি, পার্লারের মেয়েটা না সেরামম্মম্ম… ইয়াম্মি…’
দেবায়ন অনুপমার কথা শুনে হেসে ফেলল… বলল, ‘তাকেও ছাড়লি না? তা, আমার ভাগেরটা কই?’
অনুপমা, ‘লোভ কত শালার? আমার মা আর মামনির যোনিতে মাল ফেলেও ক্ষুদা যায়নি তোর… না? আবার আমারটায় ভাগ বসাতে চায়… চিন্তা নেই বিয়েতে নিমন্ত্রন করেছি… তোর ভাগেরটা তখন বুঝে নিস…’
দেবায়ন হাসতে লাগলো অনুপমার কথা শুনে… এতক্ষন মনটা ভারী ছিল… মেয়েটা জাদু জানে… কথা বলার সাথে সাথেই মনটা ভাল হয়ে গেল…
দেবায়ন, ‘আচ্ছা রাখিরে, সাবধানে যাস মার্কেটে, শ্রেয়াকে আমার ভালবাসা দিস… আর বাসায় ফিরে কল দিস একটা…’
অনুপমা, ‘তুইও বাসায় যা, আমি মামনিকে ফোন দিচ্ছি… কোন চিন্তা করিস না…’ বলে ফোন কেটে মামনিকে ফোন দিলো অনুপমা…

মুক্ত বিহঙ্গ ১
বেশ কিছুদিন ধরে বাড়িটা খালি খালি লাগছে পারমিতার কাছে। এত বড় বাড়ি, মানুষও ৫জন কিন্তু যে যার মতো ব্যস্ত। অনুপমা দেবায়নকে নিয়ে, সোমেশ ব্যবসা নিয়ে, পায়েল অফিস নিয়ে আর অঙ্কন কলেজ আর কলেজ শেষে পায়েলকে নিয়ে। কিন্তু এই ঘরে যে আরেকটা মানুষ আছে তা যেন কারোই খেয়ালই নেই। আগে যখন সারাদিন পার্টি নিয়ে থাকতো তখন কোন বন্ধুর অভাব ছিল না। আর এখন দেবায়নের কারণে সেই সব উছশৃঙ্খলতা বাদ দিয়ে সংসারের কাজে নিজেকে মনোনিবাস করেছে, তারপরেও বুকটা কেমন যেন খালি খালি লাগে। এই যেমন এখন, সারা বাড়িতে সে ছাড়া কেও নেই। সোমেশ আর পায়েল সকালেই চলে গেছে যে যার কাজে। অনুপমা দেবায়নকে হাসপাতাল থেকে নিয়ে গতকাল তার বাড়িতে গেছে, রাতে আর ফিরেনি। আর তার একমাত্র ছেলে কলেজে থেকে ফিরবে দুপুরের পর। খাওয়াদাওয়া শেষ করেই আবার বের হয়ে যাবে বন্ধুদের সাথে সময় কাটাতে, ফিরবে সন্ধ্যায় পায়েলকে নিয়ে। কেন যেন একটা দীর্ঘশ্বাস বেরিয়ে আসে তার বুক ছিঁড়ে।
বাথরুমে ঢুকে ঝর্নার নিচে কাপড় না ছেড়েই দাঁড়িয়ে থাকে কিছুক্ষন। সরিরতা হটাত গরম হয়ে উঠেছে। আস্তে আস্তে গায়ের কামিজটা ভিজে লেপটে যায় শরীরের সাথে। কি ভেবে কাপড় না খুলেই ভিজা কাপড় পড়ে বের হয়ে আসে বাথরুম থেকে। ধীরে ধীরে আয়নার সামনে এসে দাঁড়িয়ে পরে। সিক্ত কামিজে ঢাকা নিজের শরীর আপাদমস্তক নিরীক্ষণ করে।
ভিজে কামিজটা ওর অঙ্গ প্রত্যঙ্গের সাথে প্রলেপের মতন লেপটে গেছে। কোমরে হাত রেখে ধীরে ধীরে কামিজটা উপরের দিকে উঠিয়ে মাথা থেকে খুলে ফেলে পারমিতা। ঊর্ধ্বাঙ্গ সম্পূর্ণ অনাবৃত, দুই ভারী স্তন ছোট চাপা ব্রা’র বাঁধনে হাঁসফাঁস করে উঠছে। যেন দুই স্তন ওকে ডাক দিয়ে বলছে, আমাদের একটু বাঁধন থেকে মুক্তি দাও। পিঠের পেছনে হাত দিয়ে ব্রার বাঁধন আলগা করে দিতেই নড়ে উঠে দুই ভারী স্তন জোড়া ঠিকরে বেরিয়ে আসে। মুক্তি পেয়ে স্তন জোড়া আনন্দে লাফিয়ে ওঠে। কোমল ভারী স্তনের আকার দেখে নিজের বুকের রক্তে হিল্লোল দেখা দেয় পারমিতার। ইসসস, স্তনের বোঁটা জোড়া কি ভাবে ফুলে গেছে। ভিজে ব্রা খানা শরীর থেকে এক টান মেরে খুলে মেঝেতে ফেলে দেয়। পিঠের দিকে চাপা ব্রার দাগ পড়ে গেছে।
লেগিন্সটা ওর কোমরের নিচের অঙ্গের সাথে প্রলেপের মতন লেগে রয়েছে। ভারী সুগোল পাছার ওপরে প্যান্টির দাগ স্পষ্ট হয়ে ফুটে উঠেছে। কোমরের দুইপাশে হাত দিয়ে কোমর দুলিয়ে লেগিন্স নামাতে চেষ্টা করে। বেশ আঁটো হয়ে বসে গেছে ভিজে লেগিন্স।
এদিকে কলেজে গিয়ে অঙ্কন দেখে আজ ক্লাস হবে না। তাই দ্রুতই বাসায় চলে আসে। নিজের কাছে দরজার এক্সট্রা চাবি থাকায় বেল না চেপে নিজেই চাবি দিয়ে তালা খুলে ঘরে প্রবেশ করে সে। দরজা লাগিয়ে এদিক অদিক তাকায়। জানে এই সময় মা ছাড়া বাসায় আর কেও নেই। কিন্তু মাকে নিচে কোথাও না পেয়ে উপরে উঠে যায় সে। ওর কামরার বাম পাশের কামরাটিতে তার বাবা মায়ের থাকে, আর ডান পাশের ঘরটিতে পায়েল ও অনুপমা। পায়েলের কথা ভাবতেই সটান দাঁড়িয়ে পড়ে তার লিঙ্গটি। বেশ কিছুদিন যাবৎ পায়েল আর তার মধ্যে নিয়মিতই সেক্স হচ্ছে। মা বাবা কেওই তাদের আর বাঁধা দেয় না। জানে আজ হোক কাল হোক পায়েল এই ঘরেরই বউ হবে। অঙ্কন কিছু না ভেবেই মায়ের দরজায় এসে দাঁড়ায়। ‘মা’ বলে ডাক দিতে গিয়েও ভিতরের দৃশ্য দেখে শব্দটা গলায় আটকে যায়। নিজেকে একটু আড়াল করে উঁকি দিয়ে ভিতরে তাকিয়ে থাকে।
ওর রূপসী তীব্র লাস্যময়ী মা ড্রেসিং টেবিলের আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে নিজের শরীর পর্যবেক্ষণ করছে। পরনে শুধু মাত্র কালো রঙের প্যান্টি ছাড়া কিছু নেই। মায়ের তীব্র লাস্যময়ী, যৌন উদ্রেককারী রূপ দেখে মাথা খারাপ হয়ে যায়। চোখের সামনে মায়ের পেছন আর আয়নায় মায়ের সামনের দিকটা স্পষ্ট দেখতে পায়। মাথার লম্বা চুল কাঁধ ছাড়িয়ে প্রশস্ত পিঠের ওপরে ছড়ান। পিঠের দিক বেঁকে নেমে এসেছে ঈষৎ পাতলা কোমরে আর তারপরে প্রশস্ত হয়ে ছড়িয়ে পড়েছে ভারী দুই পাছার আকারে।
দুই পাছার সম্পূর্ণ অনাবৃত, প্যান্টির দড়ি ভারী সুগোল কোমল পাছার খাঁজের মাঝে হারিয়ে গেছে। দুই মোটা থামের মতন ঊরু কদলি কান্ডের মতন মসৃণ আর রোমহীন। ফর্সা পায়ের বাঁকা গুলি নেমে মিশে গেছে দুই ছোটো সুন্দর গোড়ালিতে। মায়ের এমন রূপ দেখে মাথার মধ্যে ইতর মনোভাব চাগিয়ে ওঠে তার। নিজেকে একটু নিজের অজান্তেই পেন্টের চেইন নামিয়ে দিয়ে লিঙ্গটা বের করে ফেলে। মায়ের এমন অতীব যৌন উত্তেজক রূপ দেখে লিঙ্গ মুঠি করে ধরে নাড়াতে শুরু করে দেয়।
পারমিতার দৃষ্টি নিজের দেহের ওপরে নিবদ্ধ। দুই নিটোল ভারী স্তন হাতের মধ্যে নিয়ে আলতো চেপে ঘুড়িয়ে দেখে। সামনের দিকে উঁচিয়ে দুই গাঢ় বাদামি রঙের স্তনের বোঁটা, সেই বোঁটার চারপাশে বাদামি বৃন্ত। পেটের ওপরে চোখ চলে যায় অঙ্কনের। বয়সের ভারে পেটে একটু মেদ জমেছে তবে সেই মেদের ফলে নরম পেটের সৌন্দর্য আরও অধিক বাড়িয়ে তুলেছে। ফোলা ফোলা নরম গোল পেটের মাঝে নাভির চারপাশে স্বল্প মেদ পেটের আকার আর সৌন্দর্য বর্ধিত করেছে। নাভির নিচের দিক বেঁকে দুই পেলব জঙ্ঘার মাঝে হারিয়ে গেছে। মায়ের জানুসন্ধি কালো রঙের প্যান্টিতে ঢাকা থাকলেও যোনির আকার অবয়াব অনুধাবন করতে অসুবিধে হয় না অঙ্কনের। মায়ের ভিজে গোলাপি ঠোঁটের কামুকী তৃষ্ণার্ত হাসির প্রতিফলন দেখে কামজ্বালায় উন্মাদ হয়ে যায় অঙ্কন।
আয়নায় নিজের উলঙ্গ তীব্র লাস্যময়ী রূপ দেখে পারমিতার ঠোঁট জোড়া আলতো গোল হয়ে খুলে যায়। চোখের পাতা কামুকী আবেশে ভারী হয়ে আসে। দেবায়নের কথা মনে পড়ে যায়। কতদিন সে দেবায়নকে কাছে পায় না। আবারও সেই ঋজু কাঠামোর দেহের পেষণ নিপীড়ন উপভোগ করতে ওর হৃদয় আকুলিবিকুলি করতে থাকে। মনে মনে তাকে কল্পনা করে বুকের খাঁচার ওপরে দুই হাত চেপে ধরে ধীরে ধীরে দুই ভারী স্তনের নীচে নিয়ে যায়। পায়রার মতন কোমল নিটোল দুই স্তন দুই হাতের থাবার মধ্যে ধরে আলতো পিষে আদর করে দেয়। আঙ্গুল গুলো ছড়িয়ে দিয়েও সম্পূর্ণ স্তন ওর হাতের থাবার মধ্যে আসেনা। দুই আঙ্গুলের মাঝে শক্ত হয়ে ফুটে ওঠা বোঁটা জোড়া চেপে ধরে। সিক্ত কামার্ত শরীর সেই অজানা মানুষের ছোঁয়া পাওয়ার জন্য উন্মুখ হয়ে ওঠে। হাতের চাপ ধীরে ধীরে শক্ত হয়ে আসে স্তনের ওপরে। বোঁটা জোড়া চেপে ধরতেই ঠোঁট থেকে ‘উম্মম্ম ইসসসস’ করে একটা অস্ফুট কামার্ত শীৎকার বেরিয়ে আসে।
হ্যান্ডসামের খালি শরীরটা মাথার মধ্যে এঁকে নিয়ে দুই স্তন নিয়ে বেশ কিছুক্ষণ খেলা করে চলে পারমিতা। ধীরে ধীরে ওর নরম হাত স্তন ছেড়ে, বুকের খাঁচা চেপে নিচের দিকে নেমে আসে। দুই হাত চলে যায় গোলগাল পেটের ওপরে। কোমরে হাত দিয়ে এদিক ওদিকে ঘুরে নিজেকে পর্যবেক্ষণ করে মনে মনে হেসে ফেলে। কোমরে হাত রেখে একটু ঘুরে দাঁড়িয়ে আয়নার প্রতিফলনে সুগোল নরম ফর্সা পাছার আকার দেখে। তলপেট ছাড়িয়ে ধীরে ধীরে ওর ডান হাত চলে যায় প্যান্টি ঢাকা নরম ফোলা যোনির ওপরে। যোনি বেদি কুঞ্চিত কেশে ঢাকা। বেশ কিছুদিন হয়েছে ঠিক ভাবে ছাঁটা হয়নি যোনির চারপাশের কেশ গুচ্ছ। বুজলো কেশ ছাঁটার সময় হয়ে গেছে।
দেবায়নের লিঙ্গ চোখে ভেসে উঠতেই ‘উফফফ ইসসস’ করে ওঠে কামার্ত পারমিতা। ওর শরীর কাঁপতে শুরু করে দেয়। ‘ইসসস, কত বড় ওরটা’ আপন মনে বুক থেকে কথাটা বেরিয়ে গেল পারমিতার। ‘ওর স্বপ্নের রাজকুমার যার প্রতীক্ষায় এখনও দিন গুনে পারমিতা তাকে যদি আবারও কাছে পেত’ দুই পেলব জঙ্ঘার ওপরে নখের আঁচর কাটতে কাটতে ভাবে। নখের আঁচর কাটতে কাটতে হাত নিয়ে আসে ওর প্যান্টির ওপরে। ‘আর না, আর ভাবতে পারছি না…. একটু চাই তোমাকে….’ মন আকুলিবিকুলি করে ওঠে।
প্যান্টির ওপর দিয়েই যোনির চেরার ওপরে আঙুল বুলাতে বুলাতে প্রচন্ড কামাবেগে দুই চোখ আধবোজা হয়ে আসে। ডান হাতের মুঠিতে ডান স্তন চেপে ধরে ফেলে। ডান হাতের আঙ্গুল ছড়িয়ে স্তন চেপে ধরে বাম হাতের দুই আঙ্গুল সোজা করে যোনির চেরার ওপরে আঙুল বুলিয়ে কামাসিক্ত মনের আগুন হুহু করে জ্বালিয়ে নেয়। শ্বাসের গতি বেড়ে ওঠে, দুই স্তন ফুলে ফুলে ওঠে আবেগ ঘন শ্বাসের ফলে। গোলাপি ঠোঁট জোড়া গোল হয়ে ফাঁক হয়ে যায়, চোখের পাতা ভারী হয়ে আধবোজা হয়ে যায়।
দুই পা একটু বেঁকিয়ে পেলব মসৃণ ঊরুজোড়া একটু ফাঁক করে যোনির চেরায় ঘষতে থাকে। অনামিকা আর মধ্যমা দিয়ে ঘষতে ঘষতে পাতলা প্যান্টির কাপড় আবার ভিজে ওঠে ওর আঠালো যোনি রসে। প্যান্টির কাপড় যোনির চেরার মাঝে ঢুকে পড়ে। চোখ চেপে বন্ধ করে অস্ফুট ‘উফফ উফফ ইসসসসসস ইসসসসস সসসসসস উম্ম উম্ম না না…’ মিহি শীৎকার করতে করতে আঙুল চেপে ধরে যোনির ওপরে। ভিজে প্যান্টির কাপড় ওর যোনি কেশের সাথে মিশে গেছে। আঙ্গুলের ওপরে ফুটে ওঠা ভগাঙ্কুর ডলা খায়। ওর শরীর বেয়ে এক বিদ্যুতের ঝলকানি বয়ে যায়। ‘আহহহহহহ না… রে…’ ভগাঙ্কুর বেশ ফুলে গেছে, প্যান্টির কাপড়ের সাথে ভগাঙ্কুর ডলতে এক কামাবেগে আচ্ছন্ন হয়ে যায় ওর সিক্ত তৃষ্ণার্ত বুক।
শরীর তীব্র কামনার আগুনে দাউদাউ করে জ্বলে ওঠে। ঊরু জোড়ায় কাঁপুনি ধরে যায়, চিনচিন করতে শুরু করে দেয় পারমিতার তলপেট। উফফফ একি হচ্ছে ওর, তিরতির করে যোনিরস কাটছে যোনির মধ্যে। ঝরনার মতন বয়ে আসে যোনির বাইরে। প্যান্টি সুদ্ধু দুই আঙ্গুল যোনির মধ্যে চেপে ধরে ওর শরীর স্থির হয়ে যায়। কামাবেগে ওর চোখ জোড়া জ্বলে ওঠে, একটু সিক্ত আগুন ওর চোখের তারায় দেখা দেয়। তারপরে আয়নায় নিজের প্রতিফলনে দিকে তাকিয়ে হেসে ফেলে। নিজেকে নিয়ে খেলার পরে আয়নার উলঙ্গ প্রতিফলনকে দেখে মৃদু বকে দেয় পারমিতা। ‘ছি একি করছিস তুই?’

মুক্ত বিহঙ্গ ২
মায়ের আত্মরতির তীব্র যৌন উত্তেজক ভঙ্গিমার দৃশ্য দেখে অঙ্কন তীব্র গতিতে ভিমকায় লিঙ্গ মুঠিতে নিয়ে নাড়াতে শুরু করে দেয়। ওর লিঙ্গের শিরা উপশিরা ফুলে ওঠে, কঠিন লিঙ্গ ফুঁসতে শুরু করে দেয়। দরজার আড়ালে দাঁড়িয়ে মায়ের ঘরের মধ্যে চোখের পলক না ফেলে এক দৃষ্টে তাকিয়ে, মৃদু উফফ উফফ করতে করতে লিঙ্গ চেপে ধরে নাড়াতে থাকে। সারা শরীর ঘেমে যায় তীব্র ইতর কামোত্তেজনায়। চিনচিন করে ওঠে ওর তলপেট, অণ্ডকোষে প্রবল এক ঝঞ্ঝার ডাক দেয়। ওর শরীর উত্তপ্ত হয়ে যায়। মনের ভেতরে চিৎকার করে ডাক দেয় মায়ের নাম, ‘ওগো মা, তুমি ভীষণ সুন্দরী। তোমার ওই মিষ্টি মধুর দেহের মাঝে হারিয়ে যেতে চাই মা। কোথায় ছিলে তুমি এতদিন মা? তোমার ভারী দুই স্তনের মাঝে মুখ ডুবিয়ে থাকতে চাই। স্তন জোড়া চুষে দুধ খেতে চাই। উফফফ, মা আর থামতে পারছি না আমি।’
কিন্তু একটি শব্দও মুখে থেকে বের করে না পাছে মায়ের কাছে ধরা পরে যায় সেই ভয়ে। মায়ের ঘরের ভেতরে লোলুপ দৃষ্টে চোখের পলক না ফেলে তাকিয়ে থাকে। বীর্য মাথায় উঠে পাক খাচ্ছে কিন্তু ঝড়ার নাম নেই। ভীষণ গতিতে লিঙ্গ মুঠি করে ধরে নাড়াতে থাকে অঙ্কন। ‘আমার সোনা মিষ্টি মা, তোমাকে….. আমার বুকে চাই, তোমাকে আপন করে নিতে চাইইইইইই মা…..’ চরম কামাবেগে গোঙাতে থাকে অঙ্কন।
পারমিতা অতীব সুন্দর মোহিনী চেহারায় এক কাম পরিতৃপ্তের অনাবিল এক আলোকচ্ছটা ছড়িয়ে পরে। দুই হাতের দুই তর্জনী প্যান্টির কোমরের দড়িতে ফাঁসিয়ে ধীরে ধীরে নিচের দিকে টেনে নামাতে শুরু করে। ধীরে ধীরে সুগোল পাছা আর কোমর দুলাতে দুলাতে প্যান্টি নামিয়ে আনে। পাছা ছাড়িয়ে একটু একটু করে নেমে আসে ওর প্যান্টি। ত্রিকোণ কাপড়টা অতি ইতর ভাবে ওর যোনি চেরার মধ্যে চেপে থাকে। পারমিতার ঠোঁটে এক কাম মোহিনী হাসি খেলে যায়। যোনি রসে সিক্ত প্যান্টি কিছুতেই ওর আঠালো রসে ভেজা যোনি গহ্বর ছেড়ে যেন আর নামতে চায় না।
পারমিতা আয়নায় নিজের ঊরুসন্ধির দিকে তাকায়। ওর ফোলা নরম যোনির চারপাশে সিক্ত কুঞ্চিত কালো কেশ যোনি রসে ভিজে চকচক করছে। প্যান্টিটা একটু একটু করে টেনে নামাতে থাকে। সামনের দিকে একটু খানি ঝুঁকে যায়, দুই সুগোল পাছা পেছনের দিকে ঠেলে বেরিয়ে আসে। প্যান্টির পেছনের দড়িটাও বেশ শয়তানি করছে। দুই সুগোল পাছার খাঁজে এক বদ পুরুষের পুরুষাঙ্গের মতন আটকে গেছে। ডান হাঁটু মুড়ে আরো নিচের দিকে নামিয়ে দিল প্যান্টি, তারপরে প্যান্টির কোমর বন্ধনি ছেড়ে দিতেই হাঁটুর নীচে নেমে যায়, ক্ষুদ্র কালো প্যান্টি।
অঙ্কনের মাথা ঝিম ঝিম করতে শুরু করে দেয়। একি ভীষণ লাস্যময়ী কামুকী দৃশ্য ঘটে চলেছে ওর চোখের সামনে। ক্ষণিকের জন্য পলক ফেলতে পারে না পাছে কোন দৃশ্য বাদ পরে যায়। মায়ের এই তীব্র লাস্যময়ী উলঙ্গ শরীর নিয়ে খেলা করার দৃশ্য লোলুপ ক্ষুধার্ত দৃষ্টিতে দেখে। সামনের দিকে ঝুঁকে যখন ওর মা প্যান্টি খুলছিল তখন সুগোল ফর্সা পাছার ফাঁক দিয়ে মায়ের যোনি স্পষ্ট দেখতে পেয়েছিল অঙ্কন। পায়েল তার জীবনে আসার পর সে কখনো ভাবেনি অন্য কোন নারী তাকে আকর্ষণ করবে, কিন্তু আজ তার মায়ের এমন রূপ দেখে একই হচ্ছে তার? সে আর নিজেকে আতকিয়ে রাখতে পারছে না। ‘উফফফ মা গো, একি করছ তুমি আমি যে পাগল হয়ে গেলাম। কি মিষ্টি তোমার শরীর গো মা।’ ওর বুকটা অস্ফুট গোঙাতে থাকে। মোটা মোটা পেলব মসৃণ থাই যুগল আর সুগোল ফর্সা রোমহীম পাছার খাঁজের মধ্যে দিয়ে কালো কুঞ্চিত যোনি কেশে ঢাকা ফোলা যোনি দেখা যায়। ঠিক যেন একটা বড়সড় পটল কেউ মাঝখান থেকে চিড়ে দিয়ে মায়ের পায়ের ফাঁকে লাগিয়ে দিয়েছে। ওই মিষ্টি মধুর যোনির চারপাশের ঘন কালো কেশ দেখে অঙ্কন পাগল হয়ে যায়। বুকের রক্ত ওর শরীরের সর্বত্র এক বিক্ষিপ্ত ভাবে ছুটতে শুরু করে দেয়। প্যান্টি ফর্সা পায়ের গোড়ালি তে আটকে থাকে। ওর চোখের সামনে ওর মা সম্পূর্ণ উলঙ্গ। দুই হাত উপরের উঠিয়ে মাথার পেছনে নিয়ে যায়।
চোখে মুখে ছড়িয়ে এক ভীষণ মিষ্টি হাসির ছটা। হাত তুলে মাথার পেছনে নিয়ে চুলের খোঁপা খুলে দেয়। ঢল বেয়ে নেমে আসে মেঘের মতন কালো চুল। হাত দুটো উপরে উঠাতে অঙ্কনের চোখ যায় মায়ের ফর্সা কামানো বগলের দিকে। মাথা ভর্তি কোমর পর্যন্ত ঢল নেমে আসা মেঘের মতন কালো চুল আর ঊরুসন্ধি মাঝে একটা ছোট কালো যোনি কেশে ঢাকা বাগান ছাড়া মায়ের সারা অঙ্গে আর কোথাও একফোঁটা লোম নেই।
এতক্ষণ নিজের সাথে খেলা করে মায়ের ফর্সা গালে লালিমার ছটা লেগে গেছে। অঙ্কন চরম জোরে নিজের লৌহ কঠিন লিঙ্গ চেপে ধরে হস্তমইথুনে রত হয়। পাগল হয়ে যায় ওর মাথা। এই নারীকে ওর চাই, এই নারী যতই ওর মা হোক, কিন্তু ওর বুকে চাই। মাকে নিজের পেশী বহুল দেহের নীচে ফেলে আস্টেপিস্টে ভোগ করতে চায়। একি ভাবছে অঙ্কন, না এযে পাপ, তার না পায়েল আছে? কিন্তু মায়ের এমন রূপ দেখে মাথা খারাপ হয়ে যায় তার। মায়ের এই নধর পুষ্ট লাস্যময়ী অতীব যৌন আবেদনময়ী শরীর ছাড়া আর যে কিছুই ভাবতে পারছে না অঙ্কন। মায়ের কামুকী আত্মরতির দৃশ্য দেখে অস্ফুট গোঙাতে গোঙাতে বীর্য স্খলন করে দেয় অঙ্কন।
পায়ের কাছে দলা হয়ে পড়ে রয়েছে কামিজ, লেগিন্স প্যান্টি। আরো একবার নিজের উলঙ্গ দেহ আয়নায় দেখে পারমিতা। আয়নার প্রতিফলনে হঠাৎ করে ওর চোখ চলে যায় দরজার দিকে। একি দরজাটা যে ভেজিয়ে দিয়েছিল কিন্তু খুলে গেল কি করে? ইসসস ভুল হয়ে গেছে, হয়তো ঠিক ভাবে ভেজাতে ভুলে গেছে। ইসসস একটু দুধ, অজান্তেই নিজের স্তনে হাত পড়ে যায়। হেসে ফেলে পারমিতা।
মা যেই দরজার দিকে ঘুরে তাকায় সঙ্গে সঙ্গে অঙ্কন দরজার আড়ালে চলে যায়। ওর লিঙ্গের শিরা উপশিরা ফুলে উঠেছে, লিঙ্গ কঠিন লোহার দন্ডের মতন গরম হয়ে গেছে। সম্পূর্ণ হাত বীর্যে ভরে গেছে।
অঙ্কন পা টিপে টিপে নিজের ঘরে ঢুকে পড়ে। মাথার মধ্যে মায়ের উলঙ্গ রূপ। পায়েলের সাথে মাত্র গত রাতেই সঙ্গম করেছে কিন্তু আজ একটু আগে মাকে উলঙ্গ হয়ে আয়নার সামনে ওইভাবে নিজের শরীর নিয়ে খেলা করতে দেখে অঙ্কনের মন আবারও চঞ্চল হয়ে যায়। বীর্য বের হওয়ার পরও লিঙ্গ এখনো সটান দাঁড়িয়ে আছে। কি করবে ভেবে না পেয়ে ঘরের ঢুকে এক লাফে বিছানায় উঠে চিত হয়ে শুয়ে পড়ে। বিছানার পাশ থেকে টিস্যু নিয়ে হাত আর লিঙ্গ মুছে টিস্যু ফেলে দেয়। পেন্টটা হাঁটুর নীচে নামিয়ে কঠিন লিঙ্গ আবারও হাতের মুঠির মধ্যে শক্ত করে চেপে ধরে। পাশের একটা বালিশ বুকের ওপরে চেপে ধরে মায়ের দেহ চিন্তা করতে করতে আবারও ভীষণ জোরে হস্ত মৈথুন করতে শুরু করে দেয়।
‘উফফফ মা তুমি ভারী সুন্দরী মা, তোমার শরীরের সব কিছুই সুন্দর। তোমার ভারী নরম দুধ জোড়া, বড় বড় চুচি, নরম পেট, উফফফ মা গো তোমার মাথার চুল গুলো কত লম্বা। ইচ্ছে করছে লিঙ্গে তোমার চুল জড়িয়ে রাখি, মা… ইসসস একি করছ তুমি। মা… মা… মাগো, তোমাকে আমার এই বুকে চাই… না, তুমি আমার মা হতে পারো না… তুমি পারমিতা… না না… এই নাম সবার জন্য….. তুমি আমার মিতা… হ্যাঁ হ্যাঁ তুমি আমার মিতা… ‘ এই সব আবোল তাবোল আওড়াতে আওড়াতে তীব্র গতিতে হস্ত মৈথুন করে চলে।
সারা শরীর গরম হয়ে গেছে চরম কামোত্তেজনায়। মানস চক্ষে মাকে উলঙ্গ করে নিজের বিছানায় ফেলে চরম কামযুক্ত সম্ভোগে মেতে ওঠে অঙ্কন। বীর্য ওর লিঙ্গ বেয়ে ঊর্ধ্বমুখী হয়, ওর শরীর বেঁকে যায়, বুকের সাথে প্রাণপণ শক্তি দিয়ে বালিশ আঁকড়ে ধরে, দাঁতের মাঝে বালিশ কামড়ে ধরে। এযে এক বিশাল ঝঞ্ঝা, এতদিনে পায়েলের সাথে সঙ্গম করেও এত কামোত্তেজিত হয়নি যতটা এইমাত্র মা’কে উলঙ্গ দেখে কামোত্তেজিত হয়েছে। আর কিছু ভাবতে পারছে না অঙ্কন, ওর নীচে ওর উলঙ্গ কামুকী তীব্র লাস্যময়ী মা শুয়ে। অঙ্কন নিজের গর্ভধারিণী মাকে পিষে ধরেছে বিছানার সাথে, দুই পেলব জঙ্ঘা নিজের কাঁধের ওপরে উঠিয়ে দিয়েছে, আর সজোরে নিজের ভিমকায় লৌহ কঠিন লিঙ্গ মায়ের মিষ্টি নরম ফোলা যোনির মধ্যে চেপে ধরে চরম বেগে সঞ্চালন করে চলেছে।
কামোন্মাদ ষাঁড়ের মতন গোঙাতে শুরু করে দেয় অঙ্কন। বীর্য ওর লিঙ্গে নয় ওর মাথায় উঠে পাঁক মারছে, ‘মা মা মা… চেপে ধর প্লিজ আমাকে চেপে ধর, আমার আসছে মা… না না সোনা তুমি আমার মিষ্টি সোনা…’
বাঁধ ভাঙ্গা বন্যার মতন দ্বিতীয়বারের মতো লিঙ্গের মাথা দিয়ে ছিটকে বেরিয়ে আসে থকথকে সাদা বীর্য। বিছানার চাদর ভিজে যায়, কিছুটা ওর পেটের ওপরে পড়ে, কিছুটা মেঝেতে। বীর্যের ধারা যেন আর থামতে চায় না। উফফ উফফফ উফফফফ… দুইবার স্ফলনের পরও কিছুতেই ওর লিঙ্গ স্তিমিত হতে চায় না। মায়ের নরম কোমল ভারী স্তন জোড়া ভেবে দাঁত দিয়ে চরম জোরে বালিশ কামড়ে ধরে সে। বীর্যের শেষ ফোঁটাটুকু বের হয়ে ওর অণ্ডকোষ নিঃশেষ হয়ে যাওয়ার পর সে হাঁপাতে হাঁপাতে নিঃশেষিত গাছের মতন এলিয়ে পড়ে বিছানায়।
পারমিতা এলো চুল ঝাঁকিয়ে পিঠের ওপরে ছড়িয়ে দেয়। ঝুঁকে পড়ে মেঝেতে পড়ে থাকা ভিজে কামিজ, লেগিন্স প্যান্টি উঠিয়ে কোমর আর পাছা দুলাতে দুলাতে উলঙ্গ হয়েই বাথরুমে ঢুকে পড়ে। বুকের মাঝে দোদুল্যমান এক অজানা উত্তেজনায় নগ্ন দেহ পল্লব শিউরে ওঠে। বাথরুমের বড় আয়নার সামনে আবার দাঁড়িয়ে থাকে কিছুক্ষণ। নিজেকে পর্যবেক্ষণ করার এক মুহূর্ত নষ্ট করতে চায় না যেন। নিজের শরীর দেখেই ওর বুকের রক্ত ছলকে উঠে। পানি ছেড়ে দেখে বেশ ঠাণ্ডা তাই গিজার দেয়। গরম জলে বালতি ভর্তি করে তোয়ালে ভিজিয়ে সারা শরীর মুছে নেয়। প্যান্টির সাথে যোনি চেরা ডলতে ডলতে ওর ভগাঙ্কুর সেই যে ফুলে গেছে এখন স্তমিত হয়নি।
তোয়ালে দিয়ে বুক মোছার সময়ে স্তনের বোঁটা জোড়া বেশ জোরে টিপে ধরে আর স্তন জোড়া বেশ ভালো ভাবে চটকে ধরে মুছে নেয়। যোনির চারপাশে কুঞ্চিত কেশের জঙ্গল হয়ে গেছে, কয়েক সপ্তাহ আগে ছেঁটেছিল তারপরে আর নজর দেওয়া হয়নি। মোটা মাংসল ঊরু জোড়া ছড়িয়ে দাঁড়িয়ে তোয়ালে দিয়ে ভিজে যোনি কেশ গুচ্ছ মুছে নেয়। নরম তোয়ালে দিয়ে যোনি কেশ মোছার সময়ে একটু যোনি চেরা ডলে দেয়। ঠোঁট জোড়া গোল হয়ে খুলে আবার উষ্ণ শ্বাসের সাথে এক অস্ফুট মিহি শীৎকার বেরিয়ে আসে। গরম জল ওর উষ্ণ ত্বকের ওপরে কামনার আগুনের ফোস্কা ফেলে দেয়। নিচের ঠোঁট কামড়ে আধা চোখ মেলে সামনের আয়নায় তাকিয়ে দেখে নিজেকে। এখন লাস্যময়ী কামিনী রূপ ওর অঙ্গে প্রত্যঙ্গের সাথে জড়িত। এই মুহূর্তে কাউকে বিছানায় পেলে ভালো হত, কিন্তু কিছুই করার নেই।
শরীর মুছে উলঙ্গ হয়ে নিজের ঘরে চলে আসে। এলো চুল একটা হাত খোঁপা করে ঘাড়ের কাছে বেঁধে নেয়। কাপবোর্ড থেকে একটা সুতির পাতলা সাদা রঙের প্যান্টি বের করে নেয়। রাতের বেলা সুতির অথবা মসৃণ সিল্কের প্যান্টি পড়তে বেশি আরামদায়ক। প্যান্টিটা পা উঁচু করে গলিয়ে নিয়ে কোমর পর্যন্ত টেনে আনে। দুই সুগোল পাছার অর্ধেক প্যান্টির ভেতরে ঢাকা পরে গেছে। প্যান্টিটা বেশ পাতলা তাই ওর ঊরুসন্ধি মাঝের ঘন কালো কেশের আবছা ভাব বোঝা যায়। যোনির কেশ গুলো ঠিক ভাবে শুকায়নি তাই সাদা প্যান্টি একটু ভিজে ওঠে। বেশ কিছু কেশ প্যান্টির দুইপাশ থেকে একটু করে বেরিয়ে যায়। আঙ্গুল দিয়ে সেই কেশ গুলো গুঁজে দেয় প্যান্টির মধ্যে। কোমরের দিকে প্যান্টি টেনে ধরার জন্য কাপড়টা একটু খানি ওর যোনি চেরার মধ্যে ঢুকে যায়। হাতের তালু মেলে ঊরুসন্ধি চেপে যোনির সাথে প্যান্টির কাপড় সমান করে নেয়। জানে বাসায় কেও নেই তাই একটা পাতলা হাল্কা নীল রঙের নুডুল স্ট্রাপ স্লিপ গলিয়ে নেয় গায়ে। সিল্কের স্লিপটা ওর নধর গোলগাল অঙ্গের সাথে লেপটে যায়। ভারী পাছা ছাড়িয়ে একটু নেমে এসে পেলব ঊরু জোড়ার মাঝে এসে শেষ হয়ে গেছে স্লিপ। নুডুল স্ট্রাপ হওয়ার ফলে ভরী গভীর বক্ষ বিভাজনের অধিকাংশ উন্মুক্ত হয়ে পড়েছে।

মুক্ত বিহঙ্গ ৩ (শেষ)
গুনগুন করে তার পছন্দের একটা গান গাইতে গাইতে ঘর থেকে বেরিয়ে এলো পারমিতা। পাশেই ছেলের ঘর, দরজা ভিড়ানো। অঙ্কন কি চলে এসেছে? কই তাকে তো ডাকলো না, নাকি এতক্ষন সে রুমে যা করেছে সব দেখে ফেলেছে? কথাটা ভাবতেই লজ্জায় গাল লাল হয়ে গেলো। অঙ্কনের ঘরের দরজাটা একটু ঠেলে ভেতরে দেখতে চেষ্টা করে পারমিতা, দেখে দিনের বেলাতেই ঘরের সব পর্দা দেয়াতে ঘরটা অন্ধকার হয়ে আছে আর অঙ্কন বিছানায় শুয়ে আছে। ‘কি রে কখন এলি, কই আমাকে ডাকলি নাতো? কি রে উত্তর দিস না কেন? এই অবেলাতেই ঘুমিয়ে গেলি নাকি?’
অঙ্কন বালিশে মুখ গুঁজে উপুড় হয়ে শুয়ে মায়ের উলঙ্গ অপ্সরা রূপী দেহ পল্লব বারেবারে বুকে গেঁথে চরম কামোত্তেজনার শেষ পর্যায়ের সুখানুভূতি তাকে উপভোগ করছিল। মায়ের মিষ্টি মিহি গলা শুনেই ওর শরীর বেয়ে এক হিমশীতল ঠাণ্ডা লয় বয়ে যায়। এ মা, ওর প্যান্টটা যে এখন ওর হাঁটুর কাছে আটকা। ওর শরীর শক্ত হয়ে যায়। কি করে… কি করে… ভাবতে ভাবতে ঘাড় কাত চোখ একটু খানি খুলে দরজার দিকে তাকায়।
ওর মা একটা পাতলা নুডুল স্ট্রাপের স্লিপ গায়ে দরজার কাছে দাঁড়িয়ে। করিডোরের আলোয় মায়ের নধর দেহ পল্লবের অবয়াব স্পষ্ট ফুটে ওঠে স্লিপের নীচ থেকে। অঙ্কন নিঃসাড় হয়ে শুয়ে আধা বোজা চোখে মাকে দেখে। ভারী স্তন জোড়া অনেকটাই উপচে বেরিয়ে এসেছে স্লিপের উপরের দিক থেকে। পেলব জঙ্ঘার মাঝে এসে শেষ হয়ে গেছে স্লিপ। মডেল দের মতন একটু বেঁকে দাঁড়িয়ে ওর ঘরের ভেতরে তাকিয়ে হয়তো ওকে দেখার চেষ্টা করছে। ব্রার বাঁধন মুক্ত ভারী স্তন জোড়া মায়ের হাঁটার ফলে একটু দুলে দুলে ওঠে। ওর মা এক পা এক পা করে ওর দিকে হেঁটে আসছে। মরা গাছের মতন অঙ্কনের কাঠ হয়ে ঘুমিয়ে থাকার ভান করে বিছানায় পড়ে থাকে।
ইসসস ছেলেটা যে কি করে না, ভাবতে ভাবতেই পারমিতা ছেলের বিছানার দিকে এগিয়ে যায়। ছেলেকে বিছানায় অর্ধ উলঙ্গ হয়ে শুয়ে থাকতে দেখে ওর চোখ জোড়া বড় বড় হয়ে যায়। উফফফ একি পেটানো পেশীবহুল শরীর বানিয়েছে ওর ছেলে। বাড়িতে ছেলে শুধু বারমুডা পরে ঘুরে বেড়ায় তখন ঠিক ভাবে চোখ যায়নি কোনোদিন, কারন ওর নিজের ছেলে বলে। কিন্তু এখন অর্ধউলঙ্গ ছেলের এই শরীর দেখে দেহের ভেতর দিয়ে এক উষ্ণ রক্ত প্রবাহ খেলে গেল।
ছেলের ঋজু দেহ দেখে বুকের রক্ত উদ্দাম তালে নেচে ওঠে। ঠিক দেবায়নের মতো ছেলের শরীরটা। পারমিতা নিচের ঠোঁট দাঁতে কেটে অতি সন্তর্পণে বিছানার দিকে এগিয়ে যায়। পর্দার ফাঁক দিয়ে আসা আবছা আলোয় দেখতে পায় যে ছেলের প্যান্টটা হাঁটু পর্যন্ত নামানো। কি করছিল ছেলে? চোখ পড়তেই শিহরণ খেলে যায় পারমিতার সর্বাঙ্গে। প্রশস্ত পিঠ, পেশীবহুল বাহু জোড়া ঈগলের দীর্ঘ ডানার মতন মাথার উপরে বেঁকিয়ে বালিশ আঁকড়ে শুয়ে, কঠিন ঊরু জোড়া বেশ লোমশ। একটা পা ভাঁজ করে বেঁকে রয়েছে। শক্ত দুটো পাছার মাঝে লুকিয়ে আছে কিছু একটা যার কথা ঠিক চিন্তা করতে চায় না।
তাও পারমিতার বুক অজানা এক উত্তেজনায় কেঁপে ওঠে। হাত দুটো নিশপিশ করে ওঠে ছেলেকে একটু ছুঁয়ে দেখার জন্য। উপুড় হয়ে শুয়ে থাকার ফলে ছেলের পুরুষাঙ্গ ঠিক ভাবে চোখে পড়ে না। কিন্তু বড় কালচে অণ্ডকোষ পাছার খাঁজ দিয়ে বিছানার সাথে থেঁতলে পেছনের দিকে বেরিয়ে এসেছে। আবছা আলো হলেও দেখতে অসুবিধে হয় না যে ছেলের যৌনাঙ্গের চারপাশে ঘন কেশের জঙ্গল। কাছে আসতেই ওর নাকে অতি পরিচিত বীর্যের গন্ধ এসে লাগে। উত্তেজনায় সঙ্গে সঙ্গে হাত মুঠি হয়ে যায় পারমিতার। ঊরু জোড়া শক্ত হয়ে কাঁপুনি ধরে যায়। পায়ের পাতা শক্ত হয়ে যায়। ঊরুসন্ধি ঘামাতে শুরু করে দেয়। বুঝল এতক্ষন হস্তমৈথুনকরে ক্লান্ত হয়ে ঘুমিয়ে গেছে ছেলে। বড্ড জানতে ইচ্ছে করে ওর ছেলে কার কথা চিন্তা করে আত্মরতি করছিলো। ছি একটা চাদর গায়ে পর্যন্ত দিতে পারে না এই ভেবে পায়ের কাছের একটা একটা চাদর ছেলের গায়ে টেনে দেয়।
উফফফ করে অস্ফুট শ্বাস নেয় অঙ্কন। ওর মা একি করছে। ওর নগ্ন পাছার দিকে একভাবে তাকিয়ে রয়েছে। চাদর দিয়ে ওর শরীর ঢাকা দেওয়ার সময়ে ওর মা ওর পাছার ওপরে আলতো করে হাত বুলিয়ে দিল। লম্বা নখের আঁচর লাগতেই কেঁপে উঠল অঙ্কন। মা এতক্ষণ ওর বিছানার পাশে দাঁড়িয়ে কি করছে। মায়ের দেহের কাঁপুনি দেখতে পায় না অঙ্কন কিন্তু ঘন শ্বাসের ক্ষীণ আওয়াজ ওর কানে ভেসে আসে। ভাবতেই দাঁতে দাঁত পিষে শক্ত কাঠ হয়ে যায় অঙ্কন।
ছেলের গায়ে চাদর ঢাকা দেওয়ার সময়ে ঋজু কাঠামো ছুঁয়ে দেখার অবৈধ লোভ সামলাতে পারে না পারমিতা। হাত নিশপিশ করে ওঠে ওই শক্ত পাছা জোড়া একটু ছুঁয়ে দেখার জন্য। ঘুমিয়ে আছে ত টের পাবে না, ভেবেই চাদর ঢাকা দেওয়ার সময়ে ছেলের শক্ত পাছার ওপরে নখের আঁচর কেটে দেয়। হাতের পাতা মেলে খনিকের জন্য পাছা চেপে ধরে। উষ্ণ কঠিন পাছা ওর নরম হাতের ছোঁয়া পেয়ে একটু কেঁপে উঠল। একটু ঝুঁকে পরে পিঠের ওপরে। ছেলে যেন একটু কেঁপে উঠল, সঙ্গে সঙ্গে পাছার ওপর থেকে হাত সরিয়ে নেয় পারমিতা।
ছেলে নড়ে ওঠার ফলে, অণ্ডকোষের নীচ থেকে নেতিয়ে পরা বিশাল লিঙ্গের কিছুটা মাথা বের করে শুয়ে থাকে বিছানার ওপরে। পারমিতার চোখ জোড়া চকচক করে ওঠে। ‘উম্ম, ছেলে তাহলে বেশ বড় হয়ে গেছে। হবেই বা না কেন? এতদিন ধরে পায়েলের কাছে ট্রেনিং নিচ্ছে না? তার হবু বৌমা তো এমনেতেই ঝানু মাল। দেবায়ন আর অনপমার সাথে তো তার এই বাসাতেই সেক্স করেছে, সে কি আর তার ছেলেকে ছোট থাকতে দিবে?’ কথা গুলো ভাবতে ভাবতে আড়চোখে অঙ্কনের লিঙ্গের দিকে তাকিয়ে থাকে পারমিতা।
নেতিয়ে পরে থাকা পুরুষাঙ্গ হলে হবে কি, এখন তার কঠিনতা হ্রাস পায়নি। ডগার চামড়া গুটিয়ে গিয়ে লাল মাথা বেরিয়ে এসেছে। উফফ কি বিশাল ওই ডগাটারে বাবা দেখেই মনে হচ্ছে বেশ কঠিন। লাল লিঙ্গের ডগা এখন কাম রসে চকচক করছে। আর পারছে না পারমিতা, এইবারে একটু নিজেকে ছুঁতেই হবে কিন্তু একি ছেলের লিঙ্গ দেখেই ওর এই অবস্থা? ছিঃ পারমিতা কি করছিস তুই। প্রথমে নিজের মেয়ের জামাই আর এখন নিজের পেটের ছেলে? নিজেকেই ধিক্কার দিয়ে চাদরটা শেষ পর্যন্ত ছেলের গায়ের ওপরে টেনে দিল। মাথার উসকোখুসকো এলো চুলে আঙ্গুল ডুবিয়ে আদর করে দিল। শুয়ে থাকলে একদম বাচ্চা ছেলে, যেন ভাজা মাছ উল্টে খেতে জানে না।
মা এত ঝুঁকে ওর পাছার ওপরে কি দেখেছে? চোখ চেপে বন্ধ করে একটু নড়ে ওঠে অঙ্কন। মায়ের তপ্ত শ্বাস ওর গরম পিঠের ওপরে বয়ে চলে। মায়ের স্তন জোড়া শ্বাসের ফলে ওঠা নামা করছে, সেই দৃশ্য আবার ওকে কামোত্তেজিত করে তোলে। সুন্দরী অতীব লাস্যময়ী মায়ের মুখ খানি ওর পাছার এত কাছে। চাদর উঠিয়ে দিয়ে মায়ের মুখ ওর মুখের কাছে চলে এসেছে। ওর মাথার চুলে বিলি কেটে দিল। নরম আঙ্গুলের পরশে কামোত্তেজনা আরো বেশি করে চাগিয়ে দিল ওর মা।
অঙ্কনের হাত নিশপিশ করে ওঠে মাকে টেনে বিছানায় ফেলে দিতে চায়। ভীষণ যৌন আবেদনে মাখামাখি এক শরীর হাতের এত কাছে, চঞ্চল চিত্ত অবৈধ কামনার তাড়নায় দাউদাউ করে জ্বলে ওঠে। না না, মা তাহলে বুঝে যাবে যে ও জেগে আছে, বড় লজ্জা। মা ওর পাশ থেকে উঠে যেতেই, অস্ফুট গুঙিয়ে চিত হয়ে শুয়ে পড়ে অঙ্কন। চাদরের তলায় ওর বিশাল লিঙ্গ একটা তাঁবুর আকার ধারন করে ছাদের দিকে উঁচিয়ে যায়। কিছুতেই চঞ্চল চিত্তকে বাগে আনতে পারছে না, একটু লিঙ্গ ছুঁতে হবেই কিন্তু যতক্ষণ না মা ওর ঘর থেকে বেরিয়ে যায় ততক্ষণ ওকে ঘুমানোর ভান ওকে করে যেতে হবেই। উফফফ মা গো, বড় কঠিন হয়ে গেছে ওর লিঙ্গ, চাদরের নীচে পেন্ডুলামের মতন নড়তে শুরু করে দেয়। একটু হাত লাগাতেই হবে কিন্তু নিরুপায়।
যেই ছেলের পাশ থেকে উঠে দাঁড়ালো অমনি ছেলে চিত হয়ে শুয়ে গেল। ইসসস, এখুনি চাদর না ঢাকলে ভালো হত। ইতর দুষ্টুমি মাথায় ভর করে আসতেই পারমিতার মনে দুষ্টুমির কামনার হাসির কল্লোল বয়ে যায়। একটু খানি দেখতে পেত তাহলে কি বিশাল পুরুষাঙ্গ ওর বাড়িতে ওর সামনে লুকিয়ে।
ছেলে না হোক, ওই পুরুষাঙ্গকে মানস চক্ষে এঁকে নিয়ে কাম কেলিতে মেতে উঠতে পারতো তাহলে। চাদর ফুঁড়ে তাল গাছ হয়ে গেছে। হাত জোড়া নিশপিশ করে ওঠে, ছি ছি একি ভাবছে। ছেলে জেগে ওঠার আগেই ওকে ঘর থেকে বেরিয়ে যেতে হবে। এই ভাবে বেশিক্ষণ ছেলের বিছানার কাছে দাঁড়িয়ে থাকলে হয়তো নিজেকে সামলাতে পারবে না। বেশ কিছুদিন যাবৎ ওর অভুক্ত যোনি কোন বিশাল লিঙ্গের ধাক্কা খেতে প্রস্তুত, ওর নধর অতৃপ্ত দেহ পল্লব এক ভারী পুরুষের পেষণ খেতে প্রস্তুত।
ওর মা ঘর ছেড়ে বেরিয়ে যেতেই, অঙ্কনের সংযমের বাঁধ ভেঙ্গে গেল। কঠিন লিঙ্গ হাতের মুঠির মধ্যে নিয়ে মায়ের ছবি এঁকে তৃতীয়বারের মতো হস্তমইথুনে রত হয়। ‘উম্মম মা একি করলে তুমি। তুমি যে আমার রক্তে আগুন ধরিয়ে দিয়ে চলে গেলে। ইসসস একটু ছুঁয়ে দেখলে না কেন। তোমার হাতের ছোঁয়া পাওয়ার জন্য পাগল হয়ে গেছি। তোমার দেহের মাঝে আমাকে লুকিয়ে ফেল মা। তুমি আমার মা না হয়ে পায়েল হলে এতক্ষণে তোমাকে এই বিছানায় ফেলে ভালোবাসা কাকে বলে বুঝিয়ে দিতাম। তোমার সারা অঙ্গে চুমু খেয়ে, তোমার ওই বড় বড় মাই জোড়া চটকে পিষে ধরে, তোমার নরম ঠোঁটের রস চিবিয়ে খেয়ে তোমাকে শান্তি দিতাম। অসীম সুখ দিতাম। একটি বারের জন্য ভুলে যেতে চাই যে তুমি আমার মা নও।’
কিন্তু সে জানে, ওদের ঘরের মাঝখানে শুধু মাত্র একটি দেয়াল হলেও, তাদের মাঝে মা আর ছেলের সম্পর্কের এক বিশাল দুর্ভেদ্য দেয়াল দাঁড়িয়ে। নদীর দুই কূল যেমন কোনোদিন মিশতে পারবে না তেমনি ওদের মাঝে কোনোদিন মিলন হতে পারবে না।
কথাগুলো ভাবতেই তার লিঙ্গের মাথায় বীর্য এসেও থেমে যায়। কোন ভাবেই আর বের হতে চায় না। কিন্তু এখন বীর্য বের না হলেও সমস্যা। কার কাছে গেলে এই মুহূর্তে তার মাথা থেকে মাল নামবে সে ভাল করেই জানে, তাই তাড়াতাড়ি বিছানা ছেড়ে উঠে পরে সে। তারপর বাথরুমে গিয়ে ফ্রেস হয়ে এসে জামাকাপড় পালটিয়ে তাড়াতাড়ি পায়েলের অফিসে যাওয়ার উদ্দেশ্যে ঘর থেকে বের হয়ে যায় সে।
ছেলেকে বের হতে দেখে পারমিতা। বুঝতে পারে সে যখন ছেলের রুমে গিয়েছিলো তখন ছেলে সজাগ ছিল। আর এও বুঝতে পারে ছেলে আজ তাকে উলঙ্গ দেখেই তার কথা চিন্তা করে হস্তমৈথুন করেছে। কথাটা ভাবতেই লজ্জায় কেঁপে উঠে সে। ভেবে পায় না কি করে সে ছেলের তিকে চোখ তুলে তাকাবে। এটাও ভেবে পায় না হটাৎ তাকে না বলে এত তাড়াহুড়া করে কোথায় গেলো অঙ্কন।

গল্পটি কেমন লাগলো ?

ভোট দিতে স্টার এর ওপর ক্লিক করুন!

সার্বিক ফলাফল 0 / 5. মোট ভোটঃ 0

এখন পর্যন্ত কোন ভোট নেই! আপনি এই পোস্টটির প্রথম ভোটার হন।

Leave a Comment