পাপ কাম ভালোবাসা ২ [৫]

Written by MegaAgun

ভঙ্গুর দেয়াল
দেবায়ন চলে যাওয়ার কিছুক্ষন পরে অনুপমার ফোন আসে। মেয়েটির কথা শুনে দেবশ্রী বুজতে পারে যে, সে সব জানে… দেবায়নের উপর রাগ হয় তার… অনুপমা তাকে বুঝিয়ে শান্ত করে… বলে, ‘আমিতো সবই জানি মামনি, তাহলে কেন রাগ করছ?… আজ না হোক কালত সবই হতো… তাহলে এত লজ্জা কিসের?… নাকি দুজনে এসে একসাথে তোমার লজ্জা ভাঙ্গাবো?… তুমি চাইলে কিন্তু সেটাও করতে পারি…’
দেবশ্রী, ‘না না… তোকে আসতে হবে না… আমি নিজেই পারব নিজের লজ্জা ভাঙতে… আগে লজ্জা ভাঙ্গি তারপর না হয় মা, ছেলে মিলে একসাথে তোর আদর খাবো…’ কথাটা বলেই আবারও লজ্জা পেল দেবশ্রী… অনুপমা বুঝতে পেরে হেসে ফেলল… মামনি যে সহজ হয়ে গেছে… তার যে সঙ্কোচ কেটে গেছে তা বুঝতে পেরে বিদায় নিয়ে ফোন কেটে দিলো অনুপমা… অনুপমার সাথে কথা বলতেই মনটা ফুরফুরে হয়ে গেল দেবশ্রীর… মেয়েটা জাদু জানে… ফুরফুরে মেজাজেই বাথরুমে ঢুকে পড়ল গোছল করতে…।
বাথরুম থেকে বেরিয়ে আসে উদ্ভিন্ন যৌবনা, রূপসী দেবশ্রী। ড্রেসিং টেবিলের সামনে দাঁড়িয়ে নিজের কমনীয় দেহ পল্লবকে পর্যবেক্ষণ করে চলেছে। পরনে শুধু একটা তোয়ালে…!
ঘন কালো রেশমী এলোমেলো চুল ওর সুন্দর গোল মুখের চারপাশে ইতস্তত ছড়িয়ে। বয়স হলেও চেহারা এখনও কচি ফুলের মতন, গাল দুটো গোলাপি, মাখনের মতন গায়ের রঙ। কোমল নিটোল উন্নত কুঁচ যুগল দেখে মনে হয় মধুর রসের মধুভান্ড। উপরিবক্ষে অতি ক্ষুদ্র জলের ফোঁটা ঘরের আলোয় ঝিকিমিকি করছে। তোয়ালেটা ওর পাছার ঠিক নীচে এসে শেষ হয়ে গেছে। তোয়ালের নীচ থেকে নেমে এসেছে পুরুষ্টু মসৃণ রোমহীন কদলী কান্ডের ন্যায় দুই জঙ্ঘা। এতই পুরুষ্টু যে দুই জঙ্ঘার মাঝে একটা ঘাসের পাতা গলতে পারবে না। সুগোল কোমল নিতম্ব জোড়ার দুলুনি দেখে পুরুষের মস্তিস্ক বিভ্রম হয়ে যায়।
নিজেকে দেখে নিজের কেমন লাগে, কচি দুষ্টু মেয়ের মতন চোখ পাকিয়ে ঠোঁট বেঁকিয়ে আয়নার প্রতিচ্ছবিকে মৃদু বকুনি দিয়ে তোয়ালে খুলে ফেলে শরীর থেকে। ভারী স্তন জোড়া সামনের দিকে উঁচিয়ে। দুই স্তন হাতের মধ্যে নিয়ে একটু টিপে টিপে দেখে নেয়। হালকা বাদামী স্তন ব্রন্তের মাঝে ফুটে ওঠা গাঢ় বাদামী রঙের স্তনাগ্র ঠাণ্ডা জলের পরশে বেশ শক্ত হয়ে গেছে। তোয়ালে দিয়ে স্তনের ওপরের জলের ফোঁটা গুলো মুছে নেয়। দুই পেলব ঊরুর মাঝে ভিজে ভিজে ঠেকে। ঊরুসন্ধি কোমল রেশমি যোনিকেশে আবৃত। শিশির ভেজা ঘাসের মতন যোনি কেশ চকচক করছে। তোয়ালে দিয়ে যোনি বেদি আর যোনিকেশ মুছতে মুছতে শরীরের রক্তে আগুন লেগে যায়। তোয়ালে দিয়ে যোনিচেরা ডলে দেয় আস্তে করে।
পেলব ফর্সা পিঠে মেলে ধরা ঘন কালো লম্বা চুল। পিঠের দিক বেঁকে নেমে এসেছে ঈষৎ পাতলা কোমরে আর তারপরেই ছড়িয়ে পড়েছে আর সুগোল ভারি দুই পাছার আকার ধারন করেছে। পেছন থেকে দেখলে মনে হয় দেহ নয় যেন একটা দামি কাঁচের ফুলদানী। বাল্বের আলো সুগোল পাছার ত্বকের ওপরে পিছলে যাচ্ছে। সারা শরীর জুড়ে চকচক করছে কামনার বিন্দু বিন্দু ঘাম। দুই ভারি পাছায় একটুকুও টোল পড়েনি। দুই সুগোল মোটা থামের মতন ঊরু জোড়া সরু হয়ে নেমে এসেছে ছোট গোল হাঁটুতে, তারপরে বেঁকে গেছে পায়ের গুলি, শেষ হয়েছে ছোট গোল গোড়ালিতে। এতদিন ওয়াক্সিং করানো হয়নি তাই দুই পায়ে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র মোলায়েম লোমে ভর্তি। কিন্তু এই ক্ষুদ্র লোমেও তার দুই পা বড় সুন্দর দেখায়।
দেবশ্রী জুলুজুলু লাজুক কামাসিক্ত দৃষ্টিতে নিজের রূপ সুধা আহরন করছে দুই চোখ ভরে। তার দুই চোখের পাতা কামনার ঝলকানিতে ভারি হয়ে এসেছে। উফফ, একি পাগল রূপ এই দেহে। ছেলেটার বিশাল লিঙ্গের আকার গঠন আর উত্তাপ বারেবারে তলপেটে অনুভব করে আর বারেবারে শিরশির করে ওঠে সারা শরীর। পিনোন্নত স্তন যুগল সামনের দিকে উঁচিয়ে, বয়সের ভারে একটু নরম হলেও আকার শিথিল হয়ে যায়নি, এখন যুবতীর তীব্র যৌন উদ্রেক রূপ ওর সারা অঙ্গে। স্তনের বোঁটা জোড়া ফুলে ফেটে পরার যোগাঢ়, বোঁটার চারপাশের বাদামি বৃত্ত মিহি ঘামের বিন্দুতে চকচক করছে। স্তনের বোঁটা থেকে অতি হাল্কা নীল শিরা উপশিরা সুগোল স্তনের নিচের দিকে একেবেকে নেমে গেছে। ছেলের আলিঙ্গনের কথা ভাবতেই স্তনের বোঁটা ফেটে পরে। ইসস, কবে যে ওর যোনির মধ্যে ছেলের প্রকান্ড গরম লিঙ্গটা ঢুকবে আর ওকে ফুঁড়ে ছিন্নভিন্ন করে দেবে সেই অতৃপ্ত আশায় দুই ঊরু কাঁপতে শুরু করে দেয়।
তার পেটের আকার ছোট গোল তার মাঝে সুগভীর নাভী দেশ। নাভির নিচের দিক একটু ফুলে উঠে দুই জানুর মাঝে হারিয়ে গেছে। দেবশ্রীর যোনি পাপড়ি সেই কুঞ্চিত কেশের আড়াল থেকে একটুখানি বেরিয়ে এসেছে। ‘আহহহ, একি করছিস রে সোনা…. এইভাবে কি মাকে কেউ আদর করে রে….’ ভাবতে ভাবতে দেবশ্রী তোয়ালে ফেলে নিজের নরম হাতের মুঠোতে কোমল পিনোন্নত স্তন জোড়া ধরে পিষে দেয়।
দেবশ্রীর বিন্দু মাত্র খেয়াল নেই যে সে তার ছেলের কথা চিন্তা করে স্তন মর্দন করছে। কামনার তীব্র আগুনে ঝলসানো শরীর সব কিছু ভুলে নিজেকে পর্যবেক্ষণ করে চলে। দুই হাতে স্তন নিয়ে কিছুক্ষণ নাড়াচাড়া করে, স্তনের বোঁটা জোড়া আঙ্গুলের মাঝে নিয়ে টিপে শক্ত করে তোলে। উম্মম্ম, বেশ শক্ত হয়ে উঠেছে দুই স্তনের বোঁটা। বড় ভালো হত কারুর ভিজে জিবের পরশ পেলে অথবা কেউ যদি দাঁতের মাঝে ধরে ওর স্তনের বোঁটা জোড়া কামড়ে ধরত, অথবা দুই বিশাল শক্তিশালি হাতের থাবার মাঝে ওর এই পিনোন্নত স্তন জোড়া বেশ করে পিষে নিংড়ে ওকে আরো পাগল করে তুলত। উফফফ, ছেলেটা যখনি ওকে জড়িয়ে ধরে তখনি একদম স্তনের নিচে পর্যন্ত হাত চলে আসে। খেলার ছলে ছেলের আলিঙ্গনের দিন গুলোর কথা ভাবতেই নরম স্তন উত্তপ্ত হয়ে যায়।
বাম হাতের মুঠোতে বাম স্তন পিষতে শুরু করে দেয় আর ডান হাত নেমে আসে দুই মসৃণ সুগোল ঊরুর মাঝে। ঘন কালো কেশে ঢাকা যোনি বেদির ওপরে আঙ্গুল বুলিয়ে নিজেকে আত্মতৃপ্তি দেয়। কুঁচকানো রোমের জঙ্গল সরিয়ে যোনি চেরার ওপরে আঙ্গুল বুলাতে থাকে। কতদিন কেউ ভালোবেসে ওকে এইভাবে আদর করেনি। দুই ঊরু বাঁকিয়ে একটু ফাঁক করে যোনি চেরা আদর করার জন্য জায়গা তৈরি করে। ইসসস, একি হচ্ছে দেবশ্রীর শরীরে, সারা শরীর জুড়ে তীব্র শিরশিরানি আর অদ্ভুত জ্বালা ধরে যায়। বাম হাতে স্তন নিয়ে খেলে আর ডান হাতে যোনির ওপরে আঙ্গুল বুলিয়ে রাগমোচন করে। গোলাপি নরম ঠোঁট জোড়া একটু হাঁ হয়ে যায়, চোখের পাতা ভারি হয়ে নেমে আসে, চোখের মণি ঘুরে যায় কামযাতনায়। উমা, একটু আগেই দুই সুগোল ঊরুর মাঝে ভীষণ গরম দুটো বড় বড় বলের ধাক্কা অনুভব করেছিল, যোনি বেদি থেকে নাভি পর্যন্ত লম্বা কঠিন উত্তপ্ত ভিমকায় এক লিঙ্গের পরশ পেয়েছিল। হোক না সেই লিঙ্গ নিজের ছেলের কিন্তু এখন চেহারার বদলে শুধু লিঙ্গের চিন্তায় মগ্ন হয়ে উঠল দেবশ্রী।
ওই ঐ বিশাল লিঙ্গ দিয়ে ছেলে যদি সত্যি সত্যি ওকে ছারখার করে দিত তাহলে ওর এই অতৃপ্ত বুকের হাহাকার মিটে যেত। নরম পেলব মধ্যমা আর অনামিকা দিয়ে যোনির চারপাশে ঘষতে শুরু করে দেয়। যোনির ভেতরটা ভিজে একসা হয়ে গেছে, চপচপ করছে যোনি গুহা, অত্যুগ্র কামনায় মাছের মতন হাঁ হয়ে গেছে যোনির মুখ। উফফ, ইসসস, ছেলেটা যেভাবে শাল গাছের মতন বিশাল আর গরম লিঙ্গ ওর তলপেটে চেপে ধরে ঘষে যাচ্ছিল তাতে মনে হচ্ছিল একটু হলেই শেষ হয়ে যাবে। এই রকম শক্তিশালি পুরুষের কাছে আদর খাওয়ার জন্য উন্মুখ হয়ে ওঠে ওর হিয়া। মধ্যমা আর অনামিকা দিয়ে যোনি চেরা ফাঁক করে ভগাঙ্কুরে চাপ দেয়। সারা শরীর শিরশির করে ওঠে অত্যুগ্র কামনার জ্বালায়। সত্যি যদি ওই রকম বিশাল লিঙ্গের অধিকারি কোন পুরুষকে এই রাতে পাওয়া যেত। ভাবতে ভাবতে দেবশ্রী দুই আঙ্গুল ঢুকিয়ে দেয় সিক্ত পিচ্ছিল যোনির মধ্যে। দুই আঙ্গুল ভেতর বাহির করতে করতে রাগমোচন করতে শুরু করে দেয়। কিন্তু কোমল পেলব আঙ্গুল কি আর বিশাল কঠিন লিঙ্গের মজা দিতে পারে?
তাও, উফফফ মা গো, ইসসস একি হচ্ছে, ছেলে যখন জড়িয়ে ধরে তখন বারেবারে মনে হয় একটু বেশি করেই জোর দিক। আর পারছে না, দুই ঊরু কাঁপছে, দাঁতে দাঁত লেগে গেছে। আহহহহ…. ইসসসস…. দেবায়নরে একটু জড়িয়ে ধর মাকে, একটু নিবিড় করে, গভীর করে ভালবাস আমাকে। আমি বড্ড দুষ্টু মেয়ে, তোকে আমি আমার ভেতরে করে নিতে চাই। আয় না সোনা, একবার মায়ের বুকে ধরা দে, এই শরীর নিয়ে যা ইচ্ছে তাই কর, চটকে পিষে, মথিত করে দলে একাকার করে দে না সোনা। হোক না আমি তোর মা, কিন্তু প্রেমিকা করে নিতে…. আহহহ আহহহ যোনির দেয়াল কামড়ে ধরছে দুই আঙ্গুল। বাম হাতের থাবায় পিষে ধরে স্তন, দুই স্তন নিয়ে পাগলের মতন পিষে যায়। হাত উঠে যায়, মুখে। নখের আচর কেটে দেয় নরম ফর্সা স্তনের ওপরে। পিষতে পিষতে দুই স্তনের ত্বক লাল হয়ে গেছে। নখের আচরে বুকের ওপরে দাগ পরে যায়। মাথা ঝাকুনি দিয়ে পাগলের মতন যোনির ভেতরে ভীষণ জোরে আঙ্গুল সঞ্চালন করে।
তিরতির করে কেঁপে নিজেকে ভাসিয়ে দেয় দেবশ্রী। আয়নায় নিজেকে দেখে ঠোঁট কুঁচকে বকে দেয় সে, ‘কি করছিস তুই?’ ওর নগ্নতা উপভোগ করার জন্য আশেপাশে কেউ নেই তাই মনের আনন্দে নগ্ন হয়েই আলমারির দিকে হেঁটে যায়। নিজের তীব্র যৌন আবেদনে মাখামাখি নগ্নতা বেশ উপভোগ করে সুন্দরী লাস্যময়ী দেবশ্রী।
আলমারি খুলে কি পরবে ঠিক করে উঠতে পারে না। এক জোড়া কালো ছোট ব্রা আর প্যান্টি বের করে আগে। কালো ব্রা পরবে না গোলাপিটা পরবে। অবশ্য মাখন রঙের ত্বকের সাথে কয়েক দিন আগে কেনা গাঢ় নীল রঙের ব্রা প্যান্টি বেশ মানাবে। যদিও এই ক্ষুদ্র অন্তর্বাসে ওকে দেখার কেউ নেই, সত্যি কি নেই? আপন মনে হেসে ফেলে দেবশ্রী। হালকা হাসিতে স্তনের ওপরে হিল্লোল দেখা দেয়। ছোট নীল রঙের প্যান্টিটা পায়ে গলিয়ে কোমর পর্যন্ত টেনে আনে। পেছনের দড়িটা সত্যি নেই, দুই পুরুষ্টু সুগোল পাছার খাঁজে হারিয়ে গেছে, কোমর বন্ধনীটাও খুব পাতলা একটা দড়ির আকারে। কেনার সময়ে একদম বুঝতে পারেনি দেবশ্রী যে প্যান্টিটা এত ছোট।
সামনের দিকে ছোট ত্রিকোণ কাপড় কোনরকমে ওর ফোলা নরম যোনি দেশ ঢেকে রেখেছে। প্যান্টিটা ভালো করে টেনে ধরে যোনির সাথে। মসৃণ কাপড় একটু খানি যোনি চেরার ভেতরে ঢুকে যায়। সদ্য স্নাত সিক্ত যোনি পাপড়ি সঙ্গে সঙ্গে ওর প্যান্টির খানিকটা ভিজিয়ে দেয়। ঊরুসন্ধিতে তিন আঙ্গুল বুলিয়ে সমান করে নেয় প্যান্টি। তারপরে ব্রা খানি হাতে ধরে এদিক ওদিকে দেখে। কেনার পরে আর পরা হয়নি। কাপ দুটো বেশ ছোট, ওর ভারী নিটোল সুডৌল স্তনের অর্ধেকটাই ঢাকা থাকবে, তাই যথেষ্ট। আশঙ্কার সাথে একটু হেসে ফেলে দেবশ্রী, স্তনাগ্র যদি ফুটে উঠে তাহলে হয়তো ব্রার কাপ ছাড়িয়ে বেরিয়ে আসতে পারে। ছি ছি না না, ব্রার কাপের মধ্যে ভালো করে স্তনাগ্র গুঁজে চেপে দেয়।
আলমারি থেকে গাঢ় নীল রঙের একটা টপস আর প্লাজো বের করে নেয়। টপস পরে নিজেকে একবার ভালো করে আয়নায় দেখে। নুডুল স্ট্রাপ টপস যেন ওর দেহের সাথে লেপটে গেছে। সামনের দিকে গলার কাছে গভীর খাঁজ, ভারী বক্ষ বিভাজনের বেশ খানিকটা উপচে বেরিয়ে এসেছে। একটু লজ্জা লাগে যদিও কিন্তু তার সাথে একটু লুকোচুরির খেলা দেখাতে বেশ ভালো লাগে। স্তনের সাথে মিশে গেছে গায়ের কাপড়, পেটের সাথে লেপটে গেছে মসৃণ পোশাক। কোমরের নীচ থেকে বেশ বড় ঘেড় তবে ফোলা পুরুষ্টু নিতম্বের বেশ খানিকটা টপসের চাপে উপচে বের হয়ে যায়। পাতলা প্লাজো ওর কোমর থেকে পায়ের গোড়ালি অবধি ত্বকের সাথে রঙের মতন মিশে যায়। দেহের প্রত্যকের অঙ্গের আঁকিবুঁকি চাপা পোশাকের ভেতর থেকে ঠিকরে বেরিয়ে আসে। নিজেকে দেখে একটু লজ্জা পেয়ে যায় দেবশ্রী।
আয়নার সামনে একটা টুল নিয়ে বসে আপন মনেই চুল আঁচড়াতে থাকে দেবশ্রী… হটাৎ কলিংবেল এর শব্দে চমকে উঠে… দরজা খুলে দেখে ছেলে দাঁড়িয়ে আছে… দেবায়ন ভিতরে ঢুকতেই দরজা লাগিয়ে দেয় দেবশ্রী। মাকে এত সল্প পোশাকে দেখে মাথা নষ্ট হয়ে যায় দেবায়নের… কিন্তু নিজেকে শান্ত করে নেয় সে… মনে মনে ঠিক করে নেয় তার মা আগ বাড়িয়ে না এলে সেও এগুবে না… দেবায়নের চোখে কামনা দেখে মনে মনে হেসে ফেলে দেবশ্রী… চিন্তা করে, যা করার আজকেই করবে… কিন্তু তা প্রকাশ হতে দেয় না… দেবায়নকে ফ্রেশ হতে বলে খাবার বাড়তে চলে যায় দেবশ্রী… ফ্রেশ হয়ে আসতেই চুপচাপ খেয়ে নেয় দুজনে…

ক্ষমাহীন ভুল
বাড়ি থেকে বের হয়েই অঙ্কন চলে আসে সোজা বোনের অফিসে। পায়েল এই কোম্পানিতেই পার্টনার হিসেবে কাজ করছে। গত কয়েকদিন রূপক’দা, দেবায়ন’দা আর অনুপমাদি’র অনুপস্থিতে পায়েল আর শ্রেয়া’দি দিন রাত পরিশ্রম করছে। তাই অঙ্কন এই কয়েকদিন পায়েল কে একটুও বিরক্ত করেনি। কিন্তু আজ মায়ের এমন রূপ দেখে নিজেকে আর আটকিয়ে রাখতে পারলো না। যেভাবেই হোক আজ তার একটা জ্যান্ত মাংসপিণ্ড চাই।
অঙ্কন অফিসে ঢুকে দেখে অফিস কেমন যেন ফাঁকা ফাঁকা। অফিসে শান্তনু’দা, মনীষা’দি এমনকি শ্রেয়া’দি কেও কোথাও দেখতে পেলো না, চুপি চুপি পায়েলের অফিস রুমের দিকে যায় অঙ্কন। দেখে এক মনে কাজ করে যাচ্ছে পায়েল।
আস্তে করে রুমে ঢুকে স্লাইডিং দরজাটা বন্ধ করে দেয় সে। ঘোলা কাঁচের দরজার কারণে এখন আর বাহির থেকে কেও দেখতেও পারবে না। রুমে ঢুকেই অঙ্কন এগিয়ে যায় লাস্যময়ী তরুণী পায়েলের দিকে। তারপর এক ঝটকায় তাকে কোলে তলে ফেলে। আঁতকে উঠে পায়েল। চোখ তুলে অঙ্কনকে দেখে অবাক হয় সে।
অঙ্কন কোন কথা না বলে, পায়েলকে পাঁজাকোলা করে অফিসে রুমের সোফার ওপরে বসিয়ে দেয়। তারপর তাকে জড়িয়ে ধরে ঠোঁটের সাথে ঠোঁট মিলিয়ে গভীর চুম্বনে মেতে ওঠে অঙ্কন। অবাক হলেও উত্তপ্ত হয়ে উঠে তার শরীর। বুঝতে পারে যেকোনো কারনেই হোক অঙ্কন হট হয়ে আছে। তাই কোন কথা না বাড়িয়ে আগে তাকে ঠাণ্ডা করার সিদ্ধান্ত নেয়। আস্তে আস্তে পায়েলের হাত উঠে আসে অঙ্কনের জামার কাছে।
এক এক করে বোতাম খুলে জামা খুলে দেয় অঙ্কনের। পায়েলের শার্টের বোতাম খুলে দিতেই ছোট কাপ ব্রা’র বাঁধনে থাকা নিটোল কোমল স্তন যুগল অঙ্কনের দিকে উঁচিয়ে যায়। ইতিমধ্যে পায়েলের ঊরুসন্ধি ভিজে গেছে, পাতলা প্যান্টি যোনির ওপরে লেপ্টে গেছে। গতকাল যোনিকেশ কাচি দিয়ে ছোট ছোট করে ছেঁটে নিয়েছিল। সম্পূর্ণ কামানো যোনি নিজের পছন্দ নয় আর অঙ্কনেরও পছন্দ নয়।
চুমু খেতে খেতে ধীরে ধীরে অঙ্কন পায়েলকে সোফায় শুইয়ে দেয়। জামা গেঞ্জি খুলে ওর ওপরে চড়ে বসে অঙ্কন। দুই ঊরু মেলে অঙ্কনকে নিজের পায়ের মাঝে আঁকড়ে ধরে পায়েল। দুইজনের প্যান্ট তখনো পরা, তাও পায়েল অঙ্কনের কঠিন লিঙ্গের ধাক্কা নিজের যোনির ওপরে অনুভব করে। বিশাল কঠিন লিঙ্গ এখুনি যেন ওকে ফুঁড়ে মাথা থেকে বেরিয়ে আসবে। প্রবল ধাক্কা দেয় অঙ্কন, মত্ত ষাঁড়ের মতন সঙ্গমে মেতে ওঠে বারে বারে।
প্রথম প্রথম ওদের যৌন সঙ্গমে এতটা তীব্রতা ছিল না, ইদানিং কয়েকমাস ধরে অঙ্কনের মনোভাব বদলে গেছে। বিশেষ করে যৌন সহবাসের সময়ে কেমন যেন পাগল হয়ে যায়, দুই পা কাঁধের ওপরে তুলে কোমর টেনে টেনে ওকে শেষ করে দেয়। পায়েলের বেশ ভালো লাগে এই ষাঁড়ের নীচে পড়ে মাছের মতন ছটফট করতে।
পায়েলের বুক থেকে ব্রা একটানে খুলে ফেলে অঙ্কন। একটা স্তন হাতের মুঠোর মধ্যে নিয়ে আলতো কচলিয়ে বলে, ‘খাসা দুধে ভরা স্তনগুলো তোমার।’
পায়েল ওর মাথা নিজের স্তনের ওপরে চেপে ধরে আবেগ জড়ানো কণ্ঠে বলে, ‘সব তোমার জন্য।’
অঙ্কন একটা স্তনের বোঁটা আঙ্গুলের মাঝে ধরে ঘুরিয়ে চেপে শক্ত করে বলে, ‘বোঁটা দুটো যেন ঠিক কিসমিস, চুষে খাবো না কামড়াবো বুঝতে পাচ্ছি না।’
স্তনের বোঁটার ওপরে শক্ত আঙ্গুলের পেষণে পায়েল ছটফট করে ওঠে। ওর দেহ আর যেন নিজের নয়, অঙ্কনের হাতের ওপরে হাত রেখে ওর থাবা নিজের স্তনের ওপরে চেপে ধরে বলে, ‘পিষে চটকে দাও, যেভাবে খুশি সেভাবে খাও তারপরেও কিছু একটা করো প্লিজ।’
অঙ্কন ওর স্তনাগ্র মুখের মধ্যে নিয়ে চুষতে শুরু করে দেয়। তীব্র কামযাতনায় ছটফট করে ওঠে পায়েল। দুই হাতের থাবার মধ্যে দুই কোমল নিটোল স্তন জোড়া টিপতে টিপতে অঙ্কনের মাথা নেমে যায় পায়েলের ফোলা নরম পেটের ওপরে। নাভির চারপাশে জিব বুলিয়ে উত্যক্ত করে তোলে সুন্দরী লাস্যময়ী তরুণীকে।
নাভির চারপাশে জিবের ডগা বুলিয়ে অঙ্কন ওকে বলে, ‘তোমার নাভিটা আর পেটটা বড় তুলতুলে। মনে হয় কামড়ে কামড়ে খাই।’
তিরতির করে রসে ভিজে যায় পায়েলের যোনি। তীব্র কামাবেগে অঙ্কনের মাথার চুল আঁকড়ে নিচের দিকে ঠেলে চোখ বুজে বলে ওঠে, ‘ওহহহহহ… আর ওইভাবে পেটে কামড়িও না, প্লিজ… অঙ্কন নাহহহহ… আর পারছিনা…।’
অঙ্কন ওর জিন্সের প্যান্ট খুলে পায়েলকে উলঙ্গ করে দেয়। প্যান্টের সাথে সাথে ছোট কালো প্যান্টি খুলে চলে আসে। চোখের সামনে শায়িত সুন্দরী তীব্র যৌন আবেদনে মাখামাখি তরুণী পায়েল। কাম যাতনায় ছটফট করতে করতে ওর দিকে হাত বাড়িয়ে কাছে ডাকে। দুই পেলব মসৃণ ঊরুর মাঝে হাত রেখে মেলে ধরে অঙ্কন। হাঁটুর ওপরে চুমু খেয়ে হাত নিয়ে যায় পায়েলের ঊরুসন্ধির কাছে। এক হাতে নিজের এক স্তন মুঠি করে ধরে ধীরে ধীরে কচলে ধরে পায়েল। চোখের পাতা তীব্র কামাবেগে ভারী হয়ে এসেছে। অঙ্কনের মুখ হাঁটু ছাড়িয়ে ওর পেলব মসৃণ ঊরুর ভেতরের ত্বকের ওপরে লালার দাগ কেটে দেয়।
দুই হাতে পায়েলের দুই স্তন জোড়া মুঠি করে ধরে মেখে দেয় অঙ্কন। মাথা নামিয়ে দেয় মেলে ধরা ঊরুসন্ধির ওপরে। নাক মুখ ঘষে পায়েলের সদ্য ছাঁটা খোঁচা খোঁচা যোনিকেশের ওপরে। নাক ঘষতে বেশ ভালো লাগে অঙ্কনের আর সেই সাথে নাকে ভেসে আসে নারী গহ্বর হতে নিঃসৃত সোঁদা তীব্র ঝাঁঝালো ঘ্রাণে। মাতাল হয়ে যায় অঙ্কন পায়েলের যোনি চেরা চাটতে চাটতে।
দুই হাতে পায়েলের নিটোল কোমল স্তন জোড়া মাখনের তালের মতন পিষতে পিষতে বারেবারে স্তনাগ্র আঙ্গুলের মাঝে চেপে ধরে ঘুরিয়ে দেয়। চরম কাম যাতনায় পায়েলের শরীর ধনুকের মতন বেঁকে যায়। যোনি পাপড়ি যোনি চেরা থেকে বেরিয়ে পরে। ঠোঁটের মাঝে একের পর এক যোনি পাপড়ি কামড়ে ধরে টেনে ধরে। লকলকে জিব বের করে চেটে দেয় সিক্ত পিচ্ছিল যোনি।
তীব্র কামনার জ্বালায় পায়েল অঙ্কনের চুল খামচে ধরে বলে, ‘প্লিজ প্লিজ প্লিজ অঙ্কন আর কষ্ট দিও না আমাকে, সারা শরীর জ্বলছে এইবারে প্লিজ আমার ভেতরে ঢুকিয়ে দাও আর থাকতে পারছি না যে।’
বেশ কিছুক্ষণ যোনি চাটার পরে অঙ্কন পায়েলের মেলে ধরা পেলব জঙ্ঘার মাঝে হাঁটু গেড়ে বসে পড়ে। ভীষণ কামঘন শ্বাসের ফলে ভীষণ ভাবে ওঠানামা করে কোমল স্তন জোড়া। মাথার চুল বালিশের ওপরে ছড়িয়ে ছিটিয়ে গেছে, সারা চেহারায় ফুটে উঠেছে অনাবিল কামনার ছটা। ঠোঁট কামড়ে কামুকী হাসি দিয়ে অঙ্কনকে নিজের যোনির ভেতরে প্রবেশ করতে আহবান জানায় সুন্দরী লাস্যময়ী তরুণী।
একহাতে ওর একটা পা নিজের কাঁধের ওপরে উঠিয়ে দেয় আর অন্য হাতে নিজের ভিমকায় কঠিন লিঙ্গ পায়েলের হাঁ হয়ে থাকা যোনি চেরার ওপরে চেপে ধরে। একটু একটু করে লিঙ্গের চকচকে লাল ডগা যোনি পাপড়ি ভেদ করে মাথা গুঁজে দেয়। পায়েলের শরীর ফুলে ওঠে ডগার সাথে বেশ কিছুটা লিঙ্গ প্রবেশ করার ফলে। ঠোঁট কামড়ে চোখ বুজে অঙ্কনকে নিজের পিচ্ছল যোনির ভেতরে আরো বেশি প্রবেশ করতে আহবান জানায়।
ধীরে ধীরে সম্পূর্ণ লিঙ্গ হারিয়ে যায় প্রেমিকার কোমল আঁটো যোনির ভেতরে। ঊরুসন্ধির সাথে ঊরুসন্ধি মিশে যায়। যৌন কেশের সাথে যৌন কেশ কোলাকুলি করে। অঙ্কন ঝুঁকে পড়ে পায়েলের দেহের ওপরে, কোমর নিচের দিকে করে চেপে ধরে লিঙ্গের গোড়া যোনির পাপড়ির সাথে। লিঙ্গের ডগা যোনির শেষ প্রান্তে গিয়ে ঠেকে যায়।
পায়েলের ঠোঁট খুঁজে নেয় অঙ্কনের ঠোঁট। মাথার চুল আঁকড়ে তীব্র কামঘন চুম্বন আরো নিবিড় করে নেয় পায়েল। অঙ্কন কোমর উঁচিয়ে লিঙ্গ টেনে বের করে আনে, পায়েলের সিক্ত পিচ্ছিল আঁটো যোনির কামড় ওর লিঙ্গ কামড়ে ধরে থাকে। আবার ঠেলে ঢুকিয়ে দেয় অঙ্কন। শরীরের মিলনের শব্দ গুঞ্জরিত হয় অফিস রুমের দেয়ালে। থপথপ, পচপচ শব্দে শুরু হয় অঙ্কন আর পায়েলের আদিম কাম ক্রীড়া।
অঙ্কন ওর পিচ্ছিল যোনি মধ্যে লিঙ্গ সঞ্চালন করতে করতে জিজ্ঞেস করে, ‘কেমন লাগছে আজকে?’
নগ্ন লিঙ্গের উত্তাপ নিজের যোনির দেয়ালে উপভোগ করে পায়েল উন্মাদ হয়ে যায়। কঠিন ভিমকায় লিঙ্গ যোনির ভেতরে তীব্র বেগে সঞ্চালন হয়ে ওকে পাগল করে তোলে।
নিচের থেকে যোনি উঁচিয়ে অঙ্কনের মন্থনের সাথে তাল মিলিয়ে শীৎকার করে ওঠে, ‘উফফফ আজ আমি সত্যি পাগল হয়ে যাবো অঙ্কন। তুমি পাগল করে দিচ্ছ আমাকে। করে যাও প্লিজ….. জোরে জোরে করে যাও…..’
ভীষণ বেগে লিঙ্গ সঞ্চালনে মেতে ওঠে কামোন্মাদ অঙ্কন। চোখ বুজে পায়েলকে সোফার সাথে পিষে ধরে কোমর নাচিয়ে যায়। বেশকিছু পরে অঙ্কনের উত্তেজনা চরমে পৌঁছে যায়, অণ্ডকোষে বীর্য ফুটতে শুরু করে দেয়।
চোখ খুলে দেখে নীচে পায়েলের জায়গায় ওর জন্মদাত্রী সুন্দরী মিষ্টি মা শুয়ে। মা’কে উলঙ্গ দেখতে পেয়ে আরো বেশি কামোন্মাদ হয়ে ওঠে অঙ্কন। বীর্য ওর লিঙ্গের ডগায় এসে পড়ে, আঁটো যোনির মধ্যে ছটফট করে ওঠে ভিমকায় লিঙ্গ।
পায়েলকে সোফার সাথে চেপে ধরে শেষ পর্যন্ত গোঁ গোঁ করে অঙ্কন বলে ওঠে, ‘মিতা হবে, আমার মিতা সোনা, হবে আমার হয়ে যাবে সোনা….. উফফফ মিতা আমাকে চেপে ধরো গো……’
কামনার অত্যুগ্র জ্বালার শেষ প্রান্তে এসে যদি কেউ সঙ্গম রত অবস্থায় প্রেমিকের মুখে অন্য নারীর নাম শোনে তার কি অবস্থা হয়? পায়েলের শরীর চরম কামাবেগে কাঠ হয়ে যায়, ওর উত্তেজনা শিখরে পৌঁছে গেছে কিন্তু এই সময়ে অঙ্কনের ঠোঁটে এক ভিন্ন নারীর নাম শুনে ক্ষেপে ওঠে পায়েল।
‘হঠাৎ একি হয়ে গেল? এতদিন যে অঙ্কনকে চিনতো সে কোথায়? এতদিন ওকে ছাড়া আর কাউকে দেখে নাই অঙ্কন। তাহলে এই মিতা নামক মেয়েটি কে? এই অঙ্কনের প্রেমে পড়েই তো পায়েল আগের জীবন ছেড়ে নতুন করে বাঁচতে চেয়েছে। এই অঙ্কনের কারনেই তো অনুপমা, দেবায়নের আকর্ষণের থেকে নিজেকে বাঁচিয়ে রেখেছে। আর আজ কিনা সেই অঙ্কনের মুখে অন্য মেয়ের নাম?’ ভাবতেই চোখে জল এসে পরে তার।
এক ধাক্কায় অঙ্কনকে বুকের ওপর থেকে সরিয়ে দিয়ে সজোরে এক চড় কষিয়ে দেয় অঙ্কনের গালে। ঝাঁঝিয়ে ওঠে কামনার জ্বলায় জ্বলন্ত পায়েল, ‘মিতা কে?’
আঁটো পিচ্ছিল যোনির ভেতর থেকে লিঙ্গচ্যুত হয়ে যাওয়ার ফলে অঙ্কন ক্ষেপে যায়। পায়েলকে সোফার সাথে চেপে ধরে ওর ওপরে ঝাঁপিয়ে পড়ে, কিন্তু পায়েল ওকে আঁচরে খামচে নিজের থেকে দূরে সরিয়ে দেয়। অঙ্কন বুঝতে পারে কি ভুল করেছে।
শরীরের নীচে পায়েলের জায়গায় নিজের সুন্দরী লাস্যময়ী মা’কে দেখতে পায়। সেই গোলগাল তীব্র যৌন আবেদনময় দেহের গঠন, ভারী দুই স্তন, ভারী নিতম্ব, সুগভীর নাভি, ফোলা নরম পেট। ইসসস তাহলে কি অঙ্কনের শরীরের প্রত্যেক স্নায়ু এতক্ষন তার মা’কে মানসচক্ষে কল্পনা করে প্রেমিকা পায়েলের সাথে যৌন সঙ্গমে মেতেছিল। আর শেষ পর্যন্ত সব চাহিদার অবসান ঘটিয়ে মায়ের নাম ঠোঁটে এসে গেল। কি ভুল। কিন্তু পায়েলকে ‘মিতা’ নামক মহিলার আসল পরিচয় কি করে দেয়। এযে এক অবৈধ চাহিদা, এক অবৈধ কামনা।
কামনার জ্বালা ততখনে অঙ্কনের মাথা থেকে উবে গেছে। পায়েল সোফায় উঠে বসে ওর দিকে আহত চাহনি নিয়ে তাকিয়ে জিজ্ঞেস করে, ‘এই মিতা কে, অঙ্কন?’
অঙ্কন চুপ করে সোফায় বসে থাকে।
পায়েল আহত কণ্ঠে অঙ্কনকে বলে, ‘আমি তোমাকে সত্যি সত্যি ভালবেসে ছিলাম অঙ্কন।’
অঙ্কনও অনেক ভালবাসে পায়েলকে, কিন্তু আজ মায়ের এমন রূপ দেখে নিজেকে সামলাতে পারেনি সে। কি করে সত্যি কথাটা বলবে পায়েলের কাছে ভেবে পায় না সে। অঙ্কনকে মাথা নিচু করে বসে থাকতে দেখে পায়েল আরোও বেশি ক্রুদ্ধ হয়ে যায়।
দাঁতে দাঁত পিষে নিজের জামা কাপড় পরে ওকে বলে, ‘তোমার মুখ চেহারাই অনেক কিছু বলে দিচ্ছে। প্রেমিকার বুকে থেকে, তার সাথে সঙ্গমরত অবস্থায় তুমি কি করে আরেক মেয়ের নাম মুখে আনলে? কে এই মিতা আমাকে বলতেই হবে তোমার? যদি না বলতে পার আর কোনোদিন আমাকে কাছে পাবে না।’
পায়েল চোখের জল মুছতে মুছতে অফিস রুমের দরজা খুলে বেরিয়ে গেলো। অঙ্কন চুপচাপ জামাকাপড় পরে উঠে দাঁড়ালো। কি করবে সে? কাকে বলবে এই ঘটনা? হঠাৎই বা ওর কি হয়ে গেল? শেষ পর্যন্ত নিজের মায়ের সাথে যৌন সঙ্গমের স্বপ্ন দেখে ফেললো?!
ভাবতে ভাবতেই অঙ্কন অফিস থেকে বের হয়ে আসলো। বাহিরে এসে পায়েলকে খুঁজলো। কোথাও দেখতে পেলো না। জানে পায়েল যতো যাই হোক না কেন সোজা বাসাতেই যাবে, তাই সেও বাসার উদ্দেশ্যে রওনা দিলো।

গল্পটি কেমন লাগলো ?

ভোট দিতে স্টার এর ওপর ক্লিক করুন!

সার্বিক ফলাফল 1 / 5. মোট ভোটঃ 1

এখন পর্যন্ত কোন ভোট নেই! আপনি এই পোস্টটির প্রথম ভোটার হন।

Leave a Comment