পার্ভার্ট [৫]

Written by Baban

বিকেলে আমরা বাইরে যাবার জন্য রেডি হতে লাগলাম. দাদু নিজের ঘরে আর মা আমাকে জামা প্যান্ট পরিয়ে দিতে লাগলো. আমার হয়ে গেলে মা আমাকে বাইরে পাঠিয়ে নিজে তৈরী হতে লাগলো. দাদু বেরিয়ে এসে আমায় দেখে বললো : বাহ্ দাদুভাই তুমি তৈরী? তা মা কি রেডি হচ্ছে? আমি বললাম হ্যা. দাদু আমাকে কোলে নিয়ে হাটাহাটি করতে লাগলো. একসময় দাদু বারান্দার সামনে গিয়ে দাঁড়ালো আর আমাকে বাইরে দেখাতে লাগলো কিন্তু নিজে মা বাবার ঘরের দিকে চোখ রাখলো. ওই জানলার কাছেই আমরা ছিলাম. দাদুর চোখ ছিল জানলার ভেতরের ওই আয়নায়. আমি এসব জানতাম না কারণ আমি বাইরে তাকিয়ে ছিলাম. কি একটা প্রশ্ন করতে দাদুর দিকে ফিরতেই দেখি দাদুর চোখ অন্যদিকে. সেই দৃষ্টি অনুসরণ করে বুঝলাম সেই দৃস্টি আয়নায় বা বলা যেতে পারে আয়নায় প্রতিফলিত আমার মায়ের দিকে. মা তখন হাত দুটো পেছনে করে ব্রা এর হুক লাগাচ্ছিল. সেটা হয়ে গেলে মা আয়নার দিকে এগিয়ে এসে নিজের দুদু দুটো হাতে ব্রায়ের ওপর দিয়ে হাতে নিয়ে দুবার নাড়িয়ে নিলো. মানে সেট করে নিলো. ব্রাটা কালো রঙের ছিল. মায়ের ফর্সা গায়ে কালো ব্রাটা দেখে দাদুর মুখ দিয়ে উফফফফফ করে আওয়াজ বেরিয়ে এলো. আমি দাদুর দিকে তাকালাম. দেখি তীক্ষ্ণ চোখে আমার মায়ের ওই রূপ দেখছে. কোলে যে আমি রয়েছি যেন খেয়ালই নেই. দাদু?….. প্রথমবার ডাকে দাদু আমার দিকে তাকালোনা. তারপরে আবার দাদু ডাকতে সে আমার দিকে তাকালো.
হ্যা? হ্যা? কি হয়েছে? আমি তখন দাদুকে বললাম : আমরা তিনজন কখন বেরোবো দাদু? দাদু হেসে আমার মাথায় হাত বুলিয়ে বললো : এইতো… তোমার মা শাড়ীটা পড়ে নিক. তারপরেই বেরোবো. এখন এই অবস্থায় যদি তোমার মা আমাদের সাথে রাস্তায় বেরোয় তাহলে কতজন যে তোমার মাকে ছেঁকে ধরবে তখন আমি একা পারবোনা তাদের থেকে তোমার মাকে বাঁচাতে হি… হি.
আমি বুঝলাম না দাদুর কথা. আমি জিজ্ঞেস করলাম : মানে? দাদু হেসে বললো : কিছুনা সোনা. আগে তোমার মা তৈরী হয়ে নিক তারপরে বেরোবো. আর আমরা তিনজন নয় চার জন. কমলাও যাবে আমাদের সাথে. চলো ঐদিকতায় যাই. এই বলে দাদু আমাকে নিয়ে বারান্দার অন্য প্রান্তে গেলো. একটু পরে মা দরজা খুলে বেরিয়ে এলো. দাদু আমি দুজনেই মায়ের দিকে তাকালাম. এমনিতেই মাকে খুব সুন্দরী দেখতে তারওপর মা নীল রঙের একটা শাড়ী পড়েছে আর কালো ব্লউস. খোলা চুল, ঠোঁটে লিপস্টিক, মাথায় কালো টিপ. আমার তো মাকে খুব সুন্দর লাগছিলো কিন্তু দাদু হা করে মায়ের দিকে তাকিয়ে ছিল. শশুর মশাই ঐভাবে তাকিয়ে আছে দেখে মা লজ্জা পাচ্ছিলো, বিশেষত যে শশুরের সাথে কাল রাতে বিছানায় নষ্টামী করেছে তার ঐরকম চাহুনি মাকে হয়তো অপ্রস্তুত করে তুলছিলো. তবে মাকেও দেখলাম এবারে দাদুর দিকে তাকালো. হেসে মুখের ওপর থেকে চুল সরিয়ে কানের পাশে নিয়ে গেলো. মাও দাদুর দিকে তাকিয়ে. ওই লম্বা হাট্টা কাট্টা বিশাল চেহারার লোকটার লোভনীয় নজর তার ওপর পড়েছে এই ব্যাপারটা হয়তো মায়েরও ভালো লাগছিলো. আমি আর থাকতে না পেরে বলেই বসলাম : কিগো? আমরা কখন বেরোবো দাদু? এতে দুজনেই সম্বিৎ ফিরে পেয়ে তাড়াহুড়ো করে আমাকে নিয়ে বেরিয়ে এলো. একতলায় এসে দেখি কমলা মাসী দাঁড়িয়ে.
দাদু : হ্যা.. চল বেরোই. হ্যারে কমলা তোর বর কোথায়?
কমলা : ঘরেই আছে.
দাদু : ওকে বলেছিস তো নজর রাখতে? আমরা থাকছিনা তাই?
কমলা : হ্যা… দাদাবাবু. ও ঘরেই আছে. কোনো চিন্তা নেই. চলুন.
দাদু, আমি, মা আর কমলা মাসী বেরিয়ে পড়লাম বাড়ি থেকে. এই প্রথম মা এই বাড়ির বাইরে বেরোলো. দাদু আমার হাত ধরে আগে আগে হাটছে আর পেছনে মা আর কমলা. আমি মাঝে মাঝে পেছনে তাকিয়ে ওদের দেখছি. দেখি ওরা কথা বলতে বলতে হাটছে. রাস্তায় কয়েকজনের সাথে দাদুর দেখা হতে তারা যেতে যেতে কেমন আছেন? কি খবর এইসব জিজ্ঞেস করছিলো. দাদুও এককথায় উত্তর দিয়ে এগিয়ে যাচ্ছিলো. মানে এলাকায় দাদুর বেশ নাম ডাক আছে. হবারই কথা. একসময়ের নামকরা পুলিশ বলে কথা. কিছুটা হাঁটার পর আমরা একটা সরু রাস্তা ধরলাম. রাস্তাটার পাশেই নোংরা একটা পুকুর. মা নাকে শাড়ীর আঁচল চাপা দিয়ে আসছিলো কারণ বেশ নোংরা আর গন্ধ আসছিলো. আমি যতটা বুঝলাম এইদিকে খুব একটা কেউ আসেনা. সরু রাস্তার শেষেই শুরু হলো জঙ্গল. তিনদিকে উঁচু ঢিপি. সেখানেও ওঠা যায়. সেখানে আরও ঘন জঙ্গল. চারিদিকে শুধু গাছ আর গাছ. নীচে শুকনো পাতায় ভোরে গেছে. সেগুলো মাড়িয়ে হাঁটতে লাগলাম. আমি সঙ্গে আমার বলটা নিয়ে এসেছিলাম. দাদু আমার হাত ছেড়ে বললো : যাও খেলো. এখানে যত ইচ্ছে খেলো, বল হারাবেনা. শুধু ঝোপ ঝাড়ে যেও না. আমি বল নিয়ে খেলতে লাগলাম. আর দাদু দাঁড়িয়ে রইলো. দেখলাম মা আর কমলা মাসী একটা জায়গায় দাঁড়িয়ে কথা বলছে আর এদিক ওদিক দেখছে. খেলতে খেলতে হঠাৎ আমার নজর পড়লো জঙ্গলের উঁচু ঢিপির ওপরে একটা ভাঙা বাড়ি মতো দেখা যাচ্ছে. বাড়িটার ভেতর দিয়েই একটা বটগাছ গজিয়েছে. বহুদিনের পরিত্যক্ত বাড়ি. আমি দৌড়ে দাদুর কাছে গেলাম আর দাদুকে জিজ্ঞেস করলাম : দাদু….. ওই বাড়িটা কার? দাদু বললো কোন বাড়ি? আমি ওপরের দিকে আঙ্গুল দেখিয়ে বললাম : ঐযে উঁচুতে বাড়িটা? দাদু ঐদিকে তাকিয়ে বললো : ওহ… ওইটা? ওটা পুরোনো জমিদার বাড়ি ছিল. এখন ওটা ভাঙা কেউ থাকেনা.
এইটুকু বলেই দাদু থেমে গেলো. তারপর বাড়িটার দিকে চাইলো দাদু আর তারপরেই মাথা ঘুরিয়ে মায়ের দিকে তাকালো. মা তখন নিচু হয়ে একটা সাদা ফুল তুলছে. দাদু আবার বাড়িটার দিকে তাকালো তারপর মুচকি হাসলো. আমি দাদুকে জিজ্ঞেস করলাম : দাদু কি হলো? দাদু আমার দিকে তাকিয়ে বললো : দাদুভাই…. ওই বাড়িটা খুব ভয়ঙ্কর !! ওখানে ভুত থাকে !! খুব ভয়ঙ্কর ভুত !! একদম ওই বাড়ির দিকে তাকাবেনা. তুমি এইখানে খেলো কেমন… আমি আসছি…. ঐদিকে উঁচুতে যাবেনা কিন্তু. দাদু এইটা বলে যেদিকে মা আছে ঐদিকে যেতে লাগলো. আমার তখন যা বয়স তাতে সত্যি মিথ্যা বোঝার ক্ষমতা হয়নি. তাই দাদুর কোথায় একটু ভয়ই পেলাম. তাকিয়ে দেখলাম বাড়িটার দিকে সত্যিই ভয় লাগলো বাড়ির অবস্থা দেখে. তখনি আমার কাঁধে একটা হাত. চমকেই উঠলাম একটু. ঘুরে দেখি কমলা মাসী. হাসিমুখে দাঁড়িয়ে. আমায় বললো কি দেখছো বাবু? বাড়িটা? ওটা খুব খারাপ. চলো আমরা ওই ফাঁকা দিকটায় যাই. ওখানে তুমি আমি বল বল খেলি. চলো. আমায় নিয়ে কমলা মাসী বেশ কিছুটা উত্তর দিকে এসে একটা ফাঁকা জায়গায় এলো আর আমরা বল নিয়ে খেলতে লাগলাম. একবার মাসী আমার দিকে বল ছুড়ে দেয় আরেকবার আমি মাসির দিকে. বেশ ভালোই লাগছিলো. কিন্তু এরকম খেলতে খেলতে কিছু সময় পার হয়ে গেলো.
আমি : কমলা মাসী…. দাদু আর মা কোথায়? ওরা কোথায় গেলো?
মাসী : ওরা কাছেই আছে. চিন্তা কোরোনা. চলো আমরা খেলি. এই নাও… বল ধর দেখি..
আমরা আরও কিছুক্ষন বল খেললাম. ভালোই লাগছিলো. কিন্তু হঠাৎ মাসির খুব জোর বেগ এলো. মাসী আমাকে বললো : বাবু…. আমার একটু বড়ো বাইরে পেয়েছে. তুমি থাকো… আমি… আমি আসছি. এই বলে সে দৌড়ে অন্যদিকে চলে গেলো. তার দৌড়ানোর সময় পাতার খস খস শব্দ পেলাম. একসময় সব নিস্তব্ধ. আমি একা. একা একা কি খেলবো? তাই আবার আগের জায়গায় ফিরে এলাম. কিন্তু কই? মা বা দাদু কেই নেই. ওরা গেলো কোথায়? আরেকটু এগিয়ে গেলাম সামনে কিন্তু কেউ নেই. এবারে আমার একটু ভয় ভয় লাগতে লাগলো. এই ফাঁকা জঙ্গলে আমি কি তাহলে একা? চিল্লিয়ে মাকে দাদুকে ডাকবো? কি করবো ভাবছি এমন সময় আমার নজর পড়লো উঁচুতে ওই বাড়িটার দিকে. এক পলকের জন্য মনে হলো যেন ওই বাড়িটার ভাঙা জানলা দিয়ে মায়ের নীল শাড়িটা দেখতে পেলাম, সাথে দাদুর সাদা জামা. আবার ভালো করে তাকালাম. আর কিছু দেখা যাচ্ছেনা. আমি একটু একটু করে ঢিপি বেয়ে কিছুটা ওপরে উঠলাম. এবারে বাড়িটা বেশ ভালো ভাবে দেখা যাচ্ছে. বেশ পুরোনো বাড়ি, শুধু ইটের বাড়ি. আর তার ভেতর দিয়ে ওই বিরাট গাছটা গজিয়েছে. আমি তাকিয়ে আছি এমন সময় আবার মনে হলো দোতলার জানলায় আবার মায়ের নীল সারি আর মায়ের চুল দেখতে পেলাম. এবারে আর ভুল নয়, ঠিক দেখেছি. ওটা মা ই. কিন্তু…….. ওই ভুতুড়ে বাড়িতে কেন? দাদুতো আমায় বললো ওখানে ভয় আছে, না যেতে. এদিকে নিজেরাই চলে গেছে দেখতে? আমাকে সঙ্গে নিলোনা? আমি ছোট বলে? একটু রাগ হলো আমার. এইভাবে আমাকে একা ছেড়ে গেছে ভেবে. ভাবলাম আমি গিয়ে মাকে বলবো আমাকে কেন নিয়ে এলেনা? কিন্তু দাদু বলেছে না যেতে. কিন্তু আমি একা কি করবো? তার থেকে ভালো মায়ের কাছে যাই. এই ভেবে আমি আরও কিছুটা ঢিপি সামলে উঠে জঙ্গল দিয়ে হাঁটতে লাগলাম. যত বাড়িটার কাছে যাচ্ছি ততই ভয় হচ্ছে. কি অবস্থা বাড়িটার. মা ওই বাড়িতে আছে বলে, নইলে আমি এইবাড়ির আশেপাশেও আসতাম না. একসময় বাড়িটার দরজার কাছে পৌঁছে গেলাম. দরজা নেই, ভেতরে গাছপালা জন্মে গেছে. আমি ভাবলাম একবার মা বলে চিল্লিয়ে ডাকবো? তারপর ভাবলাম থাক হঠাৎ করে গিয়ে চমকে দেবো মাকে দাদুকে. আমি সাহস করে ভেতরে ঢুকলাম. জানলা আর ফাঁক ফোকর দিয়ে আলো এসে বাড়িটা আলোকিত করে রেখেছে. আমি সিঁড়িতে পা রাখলাম. ভয় করছে তবে ওপরে মা আছে বলে যা ভরসা. আমি সাহস করে ধীরে ধীরে ওপরে উঠতে লাগলাম. বেশ একটা রোমাঞ্চকর অনুভূতিও হচ্ছিলো. ওপরে একবার একটা আওয়াজ এলো. সেটা শুনেই বুঝলাম ওটা মায়ের গলা. আমি এবারে পুরো সাহস পেয়ে ওপরের দিকে উঠতে লাগলাম. গিয়েই চমকে দেবো মাকে. ওপরে উঠে এদিকের ওদিকের ঘরে দেখলাম সব ফাঁকা. আর তারপর দূরের একটা ঘরের দরজার সামনে আসতেই আমার সব সাহস রোমাঞ্চ উড়ে গেলো সামনের দৃশ্য দেখে. আমার মা আর দাদুই রয়েছে সেই ঘরে কিন্তু তাদের যে অবস্থায় দেখলাম তাতে আমি স্থির হয়ে রইলাম. দুজনেই আমার উল্টোদিকে মুখ করে তাই আমায় দেখতে পায়নি. কিন্তু আমি তাদের ওই অবস্থায় দেখে অবাক. কারণ আমার মায়ের শাড়ীটা কোমর পর্যন্ত তোলা আর মা ভাঙা দেয়ালে দুই হাত রেখে দাঁড়িয়ে আছে আর মায়ের পেছনে দাদু দাঁড়িয়ে. কিন্তু তার পরনে কালো প্যান্টটা নেই. সেটা পায়ের সামনে পড়ে আছে আর দাদুর জামাটাও পেট অব্দি তোলা. আর দাদুর পাছাটা খুব জোরে আগে পিছু হচ্ছে আর থপ থপ থপ করে একটা আওয়াজ আসছে. দাদু একহাতে মায়ের শাড়ীটা কোমর অব্দি তুলে ধরে আছে আর অন্য হাতে মায়ের মুখে আঙ্গুল ঢুকিয়ে আছে. মা সেই আঙ্গুলটা চুষছে আর উমমম.. উমমম করে আওয়াজ করছে. আমি দরজার সামনে থেকে সরে পাশে চলে এলাম. সেখানেও বেশ কয়েকটা জায়গায় ইট খসে পড়েছে. সেখান দিয়ে ভেতরে চোখ রাখলাম. দাদু আর মা যে ঘরে রয়েছে সেই ঘরের মধ্যে দিয়েই বট গাছ টা ঢুকে ছাদ ভেদ করে ওপরের দিকে উঠে গেছে. দাদু আর মা দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে ঐভাবে কোমর নাড়ানাড়ি করছে. মা চোখ বুজে দাদুর আঙ্গুল চুষছে আর নিজের পাছাটা দাদুর দিকে বার বার ঠেলছে. দাদু মায়ের মুখ থেকে আঙ্গুল সরিয়ে মায়ের চুল গুলো ডান দিক থেকে সরিয়ে পুরোটা বাঁদিকে করে দিলো আর নিজের মাথাটা মায়ের ঘাড়ে রেখে আবার মায়ের মুখে অন্য একটা আঙ্গুল ঢুকিয়ে দিলো. এদিকে দাদু আমার দিকে পেছন করে থাকার ফলে আমি দাদুর পাছা স্পষ্ট দেখতে পাচ্ছি আর সেই ফাঁক দিয়ে দাদুর ঝুলন্ত বিচির থলি টাও দেখতে পাচ্ছি. অনবরত দুলে চলেছে ওইটা. কি বড়ো বিচির থলিটা. আমার হাতে যে বলটা আছে প্রায় ঐটার মতোই বড়ো. এবারে দাদু মায়ের শাড়ী আর সায়াটা তুলে নিজের মুখের সামনে নিয়ে এলো আর মুখে কামড়ে ধরলো ওই কাপড় দুটো. ফলে দাদুর ওই হাতটাও মুক্ত হলো. আর সেই হাতে দাদু মায়ের নাভিতে আর পেটে হাত বোলাতে লাগলো. তারপর সেই হাতটা মায়ের দুদুর কাছে নিয়ে এলো আর ব্লউসের বোতাম গুলো খুলতে লাগলো. মা যদিও বাঁধা দেবার একবার চেষ্টা করলো কিন্তু তাতে কোনো লাভ হলোনা. দাদু ব্লউসের বোতাম খুলে সেটা দুদিকে ফাঁক করে সরিয়ে দিলো আর ভেতরের কালো ব্রায়ের ওপর দিয়েই এবারে দুই হাতে মায়ের ফুলে থাকা দুদু জোড়া চেপে ধরলো আর শুরু হলো খুব জোরে কোমর নাড়ানো. থপ থপ আওয়াজ এবারে জোরে হতে লাগলো.
মা : আহহহহহ্হঃ.. আহহহহহ্হঃ… আহহহহহ্হঃ বাবা….. বাবা…. আহহহহহ্হঃ..বাবা করুন…. করুন আমাকে….. উফফফফ… আমি জানিনা… আমার কি হয়েছে…… আমি নিজেকে আটকাতে পারছিনা… উফফফফ বাবা….. আমি কিছুতেই সামলাতেই পারছিনা নিজেকে….. আমায়….. আমায় শান্ত করুন বাবা
দাদু : হুহ… হুহ… তোমায়….. সেই জন্যই তো নিয়ে এলাম এখানে. এই জায়গাটাতে কেউ আসেনা. ফাঁকা নিরিবিলি. এখানে আমাদের কেউ বিরক্ত করবেনা. আমি জানি বৌমা…. তোমার কি হয়েছে. তোমার এতদিনের অভুক্ত শরীরটা এখানে এসে তার খাবার পেয়েছে. আমার ছেলে তোমার খিদে মেটাতে অসফল হয়েছে কিন্তু তার বাপ মানে আমি সফল. তাই তোমার শরীর এমন করছে. তাকে আর অভুক্ত রেখোনা. ভুলে যাও সব পাপ পুন্য. এসো আমরা শশুর বৌমা নিজেদের শান্ত করি.
এইগুলো বলার সময় দাদুর মুখ দিয়ে সায়া আর শাড়ী আবার নীচে পড়ে গেছিলো. দাদু আবার ওগুলো তুলে মুখে কামড়ে ধরলো আর মায়ের ফর্সা পাছায় চটাস করে একটা থাপ্পড় মারলো. তাতে মা আহহহহহ্হঃ বাবা করে উঠলো. এবারে দাদু হাত বাড়িয়ে একটা একটা করে মায়ের দুদু ওই ব্রা থেকে বার করে আনলো. দুটো দুদুই এখন ব্রায়ের বাইরে. দাদু হাতের থাবায় নিয়ে টিপতে লাগলো ওগুলো.
মা : আহহহহহ্হঃ… উফফফফ.. বাবা… আপনি খুব খাড়াপ….. এইভাবে নাতিকে বাইরে ঘুরতে আনার নাম করে বৌমার সাথে নোংরামি করছেন?
দাদু মুখ থেকে কাপড় সরিয়ে : এমন বৌমা পেলে নাতির দিকে কি আর নজর থাকে নাকি? সব নজর তো থাকে নাতির মায়ের ওপর.
মা : ইশ… অসভ্য আপনি খুব. খুব বাজে আপনি. আমি বুঝেছি আপনার হাত থেকে আমার আর নিস্তার নেই. যে নিজের ভাইকে ছাড়েনি, তার সব কেড়ে নিয়ে তাকে পাগলা গারদে পাঠিয়েছে সে আমায় কি করে ছাড়বে? তাহলে নিন আমাকে…. শেষ করে দিন আমায়. দেখান আপনার শক্তি.
দাদু এবারে দাঁত খিঁচিয়ে মায়ের দুদু দুটো টিপতে টিপতে খুব জোরে কোমর নাড়তে শুরু করলো আর মায়ের সারা শরীর আগে পিছু হতে লাগলো সাথে মায়ের চিল্লানি. থপ থপাস থপাস থপাস আওয়াজে ঘরটা ভোরে উঠলো. দাদু এবারে মাকে করতে করতে এক পা একপা করে চলা শুরু করলো. মা এখন দেয়াল থেকে সরে এসে বট গাছটার কাছে চলে এসেছে. দাদু মাকে করতে করতে ওই বটগাছটার কাছেই আনলো আর গাছটার কাছে এগিয়ে গেলো. মা এবারে নিজের দুই হাত তুলে নোংরা বট গাছটার ওপর রাখলো আর আরেকটু ঝুঁকে দাঁড়ালো. দাদু এবারে হুমম… হুমমম করে গজরাচ্ছে. সে এবারে মায়ের সায়া শাড়ী টেনে নীচে নামিয়ে দিলো আর মাকে উলঙ্গ করে দিলো. মায়ের পা দুটো আরও ফাঁক করে নিজের কোমর দোলাতে লাগলো. খুব জোরে মায়ের পাছায় ধাক্কা মারছে দাদু. মায়ের দুদু দুটো ঝুলে আছে আর এদিক ওদিক দুলছে. মা দুই হাতে পুরোনো নোংরা গাছটার গায়ে নখ বসিয়ে পেছনে তাকিয়ে দাদুকে দেখতে লাগলো. দাদুও মায়ের সব চুল একত্রিত করে এক হাতে সেটা মুঠো করে ধরলো আর নিজের কোমর নাড়িয়ে চললো. আমার মায়ের মুখ দেখে মনে হচ্ছিলো দাদু যা করছে তাতে মায়ের খুব ভালো লাগছে কারণ মা মাঝে মাঝে চোখ বুজে হেসে উঠছে.
কিন্তু এর পরেই যেটা হলো তাতে আমরা সবাই চমকে উঠলাম. এতক্ষন আমি লক্ষই করিনি ওই গাছটার কাছে একটা নোংরা চাদর পড়ে আছে. কিন্তু চাদরটা নড়তেই আমার চোখ সেদিকে গেলো. একি !!!! চাদরের সরিয়ে একটা লোকের মাথা দেখা যাচ্ছে. লোকটার অবস্থা দেখে বোঝাই যাচ্ছে পাগলা. লোকটা এবারে চাদর সরিয়ে সামনে সরে এলো একটু. এবারে লোকটাকে ভালোভাবে দেখা যাচ্ছে. ময়লা পোশাক, ছেঁড়া প্যান্ট, মাথার চুল নোংরা, মুখ ভর্তি দাড়ি লোকটার. এক দৃষ্টিতে আমার মায়ের দিকে তাকিয়ে. দাঁড়ি চুলকাতে চুলকাতে মায়ের দিকে এগিয়ে এলো একটু. মায়ের চোখ বন্ধ তাই তার নিচেই যে একটা পাগল মার্কা লোক বসে তার ঝুলন্ত দুদু দেখছে সেটা লক্ষই করেনি মা. এবারে যখন পাগলটা মায়ের থাইয়ে হাত রাখলো তখন চোখ খুলে তাকালো মা আর পায়ের কাছে এক রোগা, নোংরা লোককে দেখে ভয় আঁতকে উঠলো মা. দাদুও লক্ষ্য করেনি ব্যাপারটা. তার মনোযোগ মায়ের দিকে ছিল. এবারে দাদুও দেখলো লোকটাকে.
মা : বাবা !!! এখানে একটা লোক !!! পাগল একটা !!
দাদু : এই শালা !!! কি করছিস এখানে?
পাগলটা মাথা চুলকিয়ে হেসে উল্টো পাল্টা কি বললো কিছুই বুঝলাম না. মা খুব ঘাবড়ে গেছে. সে দাদুর থেকে আলাদা হবার চেষ্টা করছে কিন্তু দাদু মায়ের কোমর চেপে ধরে আছে আর পাগলটার দিকে বড়ো বড়ো চোখ করে দেখছে. পাগলটা দু পা সরে গেলো বসে বসেই.
মা : বাবা…. চলুন এখান থেকে. এই পাগলটা আমাদের কেমন করে দেখছে !! আমাদের কোনো ক্ষতি করে দিতে পারে. চলুন বাবা… চলুন… আমার কেমন লাগছে.
দাদু : আরে বৌমা… ওই লিকলিকে পাগলা করবে আমাদের ক্ষতি? এক ঘুসি মারলে আর বেঁচে থাকবে কিনা সন্দেহ. চিন্তা কোরোনা. এসো আমরা আমাদের কাজ করি.
মা : কিন্তু…. কিন্তু এই পাগলটার সামনে? না বাবা আমার কেমন লজ্জা করছে. বাড়ি গিয়ে যা করার করবেন. এখন চলুন.
দাদু মায়ের ঐখানে গদাম গদাম করে ধাক্কা দিতে দিতে মাকে আবার ওই গাছের কাছে নিয়ে এসে বললো : বাড়ি গিয়ে তো তোমায় আদর করবোই…. কিন্তু এইখানেও তোমায় আদর করবো. এমন পরিবেশে এমন বাড়িতে নোংরামি করার মজাই আলাদা. চিন্তা কোরোনা… ওই পাগল কাউকে কিছু বলবেনা. ওর সামনে আর লজ্জা কি? ও দেখুক. এই ব্যাটা… দেখ কেমন করে আমায় আমার বৌমার সাথে দুস্টুমি করছি. এই বলে দাদু মায়ের পরনের ব্লউস আর ব্রাটা মায়ের হাত গলিয়ে খুলে মাকে একেবারে উলঙ্গ করে নিলেন আর মাকে ধাক্কা দিতে লাগলেন আর মায়ের ব্রা টা ছুড়ে দিলেন পাগলটার দিকে. পাগলটার মাথায় গিয়ে পড়লো ওটা. ওটা হাতে নিয়ে শুকতে লাগলো পাগলটা.
মা : একি বাবা…. ওটা ওই পাগলটাকে দিলেন কেন? আমার তো ওটা?
দাদু : বেচারা… খেলুক ওটা নিয়ে. আমি তোমায় অমন একশোটা কিনে দেবো.
দাদু মায়ের সাথে আরাম করে দুস্টুমি করছে কিন্তু মা মাঝে মাঝে পাগলটার দিকে তাকাচ্ছে. পাগলটাকে ওই ব্রাটা নিয়ে যাতা করছে. কখনো শুকছে, কখনো মাথায় ঘসছে. মা সেটা দেখছে. দাদুও এবারে পাগলটার দিকে তাকালো আর হাসলো. মাকে বললো : দেখো বৌমা… তোমার ওইটা পেয়ে ও কত খুশি. মা লজ্জা পেয়ে বললো : বাবা যা করার তাড়াতাড়ি করুন.. নীচে ছেলেটা রয়েছে. দাদু মায়ের নগ্ন পিঠে হাত বুলিয়ে বললো : ও থাকুক নীচে…. ওর মা ওর দাদুর সাথে ব্যাস্ত. এবারে দাদু নিজের নুনুটা মায়ের ভেতর থেকে বার করলো. দিনের আলোয় ভালো মতো দেখলাম দাদুর ওই নুনুটা. অনেক আগে একবার একটা গাধার পাঁচটা পা দেখেছিলাম. যদিও পঞ্চমটা পা নয় অন্য কিছু ছিল কিন্তু আজ দাদুর নুনু দেখে আমার সেটা মনে পড়ে গেলো. ইশ…. কি লম্বা আর মোটা কিন্তু একদম সোজা হয়ে দাঁড়িয়ে. আমি ভাবলাম দাদুর ওটা অমন দাঁড়িয়ে আছে কি করে? আমার তো সবসময় হিসু করার আগে ও পরে দুই সময়ই নেতিয়ে থাকে. ছোট বয়সে বুঝিনি বড়ো হলে কাম উত্তেজনা মানুষের ওই নেতিয়ে থাকা নুনুকেই জাগ্রত করে বাঁড়াতে পরিবর্তন করে.
দাদু মাকে ঘুরিয়ে দাঁড় করিয়ে নিজের কোলে তুলে নিলো. মা আহহহহহ্হঃ বাবা বলে হাতে পায়ে জড়িয়ে ধরলো দাদুকে. দাদু একহাতে মায়ের পাছা ধরে অন্য হাতে নিজের বিশাল নুনুটা ধরে মায়ের ফাঁক হয়ে থাকা ফুটোর সামনে এনে নুনুর মুন্ডিটা মায়ের ওই ফুটোয় ঢুকিয়ে হাত সরিয়ে মায়ের পাছা দুই হাতে চেপে ধরলো আর একটা ধাক্কা মারলো. ব্যাস… চোখের সামনে দেখলাম আমার মায়ের ওই ফুটোর ভেতর দাদুর ওই বিশাল নুনুর অনেকটা ঢুকে গেলো আর মা আহহহহহ্হঃ করে চিল্লিয়ে উঠলো. দাদু দাঁত খিঁচিয়ে মায়ের পাছায় হাত দিয়ে মাকে ওপর নিচ করাতে লাগলো. দাদু এত জোরে মাকে ওপর নিচ করছে যে মায়ের চুল গুলোও ওপর নিচ দুলে উঠছে. মা দাদুর দুই কাঁধে হাত রেখে দুই পা দিয়ে দাদুর কোমর জড়িয়ে ঝুলে রয়েছে আর দাদু মায়ের পাছা দুই হাতে ধরে মায়ের ভার সামলাচ্ছে. এবারে দাদু একহাতে মায়ের শরীরের ভার রেখে অন্য হাতে মায়ের হাত নিজের কাঁধ থেকে সরিয়ে সেই হাতটা নিজের হাতে চেপে ধরে মায়ের হাত মায়ের পিঠের দিকে করে দিলো. এখন মা একহাতে দাদুর কাঁধ আঁকড়ে আছে আর অন্য হাতটা দাদু মায়ের পিঠে চেপে ধরে আছে. এবারে দাদু যে হাতে মায়ের পাছা ধরে ছিল সেই হাতে চাপ দিয়ে মাকে ওপরের দিকে তুলে ধরলো যার ফলে মায়ের শরীরটা ওপরের দিকে উঠে গেলো আর মায়ের দুদু দুটো দাদুর মুখের সামনে চলে এলো. দাদু জিভ বার করে বাঁ দিকের দুদুর গোলাপি বোঁটাতে জিভ বোলাতে লাগলো. একটু পরে সেটা মুখে নিয়ে চুষতে লাগলো আর মা আহহহহহ্হঃ উমমম উমমম করতে লাগলো. ওদিকে পাগল ওদের কান্ডকারখানা দেখছে আর আমিও. সেও কিছু বুঝছেনা আর আমিও নয়. শুধু এইটুকু বুঝলাম দাদুর গায়ে কত জোর. একহাতে মায়ের শরীরটা ওপরের দিকে তুলে ধরলো !! ঠিক ছোট বাচ্চা যেমন মায়ের দুদু চুষে দুধ খায় সেইভাবেই দাদু এখন মায়ের দুদু চুষছে. কিন্তু দাদু তো ছোট নয়… তাহলে কেন মায়ের দুদু চুষছে? আর এর জন্য কাপড় খুলে ল্যাংটো হবারই বা কি দরকার? ওদিকে মা মাথা নামিয়ে দেখছে দাদু কিভাবে তার দুদু চুষছে. মা এবারে দাদুর চুলে হাত বুলাতে বুলাতে নিজেই বাঁ দিকের দুদুটা সরিয়ে ডানদিকের দুদুটা দাদুর মুখের সামনে নিয়ে এলো আর দাদু চুষতে লাগলো. ওদিকে দেখলাম পাগলটাকে একটু একটু করে এগিয়ে যাচ্ছে ওদের দিকে. একেবারে প্রায় দাদুর পায়ের কাছে এগিয়ে গেছে লোকটা. এবারে দাদু মাকে আবার নামিয়ে এনে আগের মতো কোলে নিয়ে দুই হাতে মায়ের পাছা ধরে রইলো. কিন্তু এবারে আমি দেখলাম মা নিজেই দাদুর ওপর লাফাতে শুরু করলো. দুই হাতে পায়ে দাদুকে জড়িয়ে ধরে ঠোঁট কামড়ে মা নিজেই ওপর নিচ লাফানো শুরু করলো আর অদ্ভুত সব আওয়াজ করতে লাগলো. ওদিকে পাগলটা একেবারে দাদুর পায়ের কাছে পৌঁছে গেছে. দাদু খুবই লম্বা বলে মাকে সেই তুলনায় অনেক ছোট লাগছে. মায়ের যত্ন করা শরীরে দুটো তরমুজের মতো দুদু এখন লেপ্টে রয়েছে দাদুর বুকে. মা দাঁত খিঁচিয়ে দাদুর দিকে তাকিয়ে লাফাচ্ছে আর দাদুও দাঁত খিঁচিয়ে মায়ের দিকে তাকিয়ে. মা এবারে নিজের মুখ এগিয়ে নিয়ে দাদুর ঠোঁটে বসিয়ে চুমু খেতে লাগলো আর লাফাতে লাগলো. ওদিকে পাগলের মাথা এখন মায়ের পাছার তলায়. সে হা করে দেখছে মায়ের পাছা. আমার ভয় হলো পাগলটা আবার মায়ের বা দাদুর কোনো ক্ষতি করবে নাতো কিন্তু এগোতে সাহস পেলাম না. পাগলটাকে দেখলাম হাত বাড়িয়ে মায়ের ফর্সা পাছার ওপর রাখলো. হাতটা বোলাতে লাগলো মায়ের পাছায়. কিন্তু মায়ের কোনো খেয়াল নেই সেদিকে. দাদুর ওপর খুব জোরে লাফাচ্ছে সে. লোকটার নোংরা হাত মায়ের ফর্সা পাছায় ঘুরে বেড়াচ্ছে. একসময় লোকটার হাত দাদুর হাতে ঠেকলো কারণ দাদুও মায়ের পাছা ধরে ছিল. দাদু মাথা ডানদিকে করে দেখলো যে পাগলটাকে একেবারে তাদের নীচে চলে এসেছে. আমি ভেবেছিলাম দাদু হট্ হট্ করে ওকে সরিয়ে দেবে বা নিজেরা সরে যাবে কিন্তু তার কিছুই হলোনা. আমি দেখলাম দাদু মুচকি হেসে নিজেই বসে থাকা পাগলটার দুদিকে পা দিয়ে দাঁড়ালো. পাগলটার ওপরেই এখন দাদু মাকে নিয়ে দুস্টুমি করছে. পাগলটাকে হা করে মাথার ওপর মায়ের পাছার দাবনা ওপর নিচ হওয়া দেখছে. লোকটা এবারে হঠাৎ এগিয়ে এসে মায়ের ফাঁক হয়েছে থাকা পাছার ফুটোর কাছে নিজের মুখ এনে জোরে জোরে শুকতে লাগলো. এরপর মাথা চুলকিয়ে বড়ো বড়ো চোখ করে হেসে উঠলো তারপর আবার মায়ের ঐখানে নাক লাগিয়ে শুকতে লাগলো. তখনি দাদু আরও কিছুটা এগিয়ে গেলো সামনের দিকে আর তার ফলে লোকটার নোংরা মুখটা পুরো মায়ের পাছায় চাপা পরে গেলো. দাদু সেটা লক্ষ করলো আর মায়ের দিকে তাকালো. মা তখন নিজের মধ্যে নেই. ওষুধের গুনে আর শরীরী চাহিদার ফলে লজ্জা শরম ভুলে শশুরের কোলে উঠে তার বিরাট নুনু গিলতে ব্যাস্ত. ওদিকে পাগলটা এখন মায়ের পাছা থেকে মুখ সরিয়ে মাথা নিচু করে দাদুর আর মায়ের জুড়ে থাকা জায়গাটা দেখছে. দাদু এবারে আবার পাগলটার দিকে তাকালো আর পাগলটাও দাদুর দিকে তাকালো. দাদু জিভ বার করে নাড়াতে নাড়াতে ইশারায় লোকটাকে মায়ের পাছা দেখিয়ে দিলো. আর মায়ের পাছার দাবনা দুটো দুই হাতে ফাঁক করে ধরলো. পাগলটা যেন সেই ইশারা বুঝতে পারলো. আশ্চর্য…. যৌনতার ইশারা কি তাহলে এক পাগলকেও সচেতন করে তোলে? পাগলটা বিচ্ছিরি ভাবে হেসে নিজের জিভ বার করে মায়ের পাছার কাছে নিয়ে এলো. ঠিক তখনি দাদুর নুনুটা মায়ের ভেতর থেকে পচাৎ করে ছিটকে বেরিয়ে এলো. মা আবার হাত বাড়িয়ে ওটাকে ধরতে যেই নীচে তাকিয়েছে তখনি নিজের পাছার নিচে পাগলের মুখ দেখে চিল্লিয়ে উঠলো. পাগলটাও ভয় সরে গেলো.
দাদু : কি হলো বৌমা?
মা : বাবা… ওই পাগলটা একেবারে আমার কাছে এসেগেছিলো !!
দাদু : কি !! এতবড়ো সাহস !! শালা ওই ভাগ এখান থেকে.
আমি অবাক হলাম. দাদু তো আগেই জানতো লোকটা মায়ের নীচে ছিল তাহলে আবার না জানার ভান করলো কেন? কতকিছুই বোঝা বাকি ছিল আমার. সত্যি মিথ্যা, ন্যায় অন্যায়, বাস্তব অভিনয় কত কি. দাদু মাকে কোলে নিয়ে নিজেই সরে গেলো আর মাকে ধাক্কা দিতে লাগলো. মা ভয় ভয় পাগলটার দিকে তাকিয়ে আছে দেখে দাদু মাকে বললো : ওকে দেখতে দাও বৌমা… তুমি আমার দিকে তাকাও. মা দাদুর দিকে তাকালো. দাদু এবারে মাকে কোলে নিয়ে নিজে ওই গাছটার গায়ে পিঠ ঠেকিয়ে দাঁড়ালো আর সাপোর্ট নিলো আর মায়ের পাছা ধরে জোরে জোরে মাকে নিজের নুনুর ওপর ওপর নিচ করাতে লাগলো. দাদু গায়ের জোরে মাকে ওপর নিচ করাচ্ছে আর মা আহহহহহ্হঃ আহহহহহ্হঃ করছে. এবারে মা নিজে আবার দাদুর কাঁধ খামচে ধরে দাঁত খিঁচিয়ে দাদুর চোখে চোখ রেখে লাফাতে শুরু করলো. মা আর দাদু দুজনেই যেন রাগী চোখে একে ওপরের দিকে তাকিয়ে আছে যদিও পরে বুঝেছি সেটা প্রচন্ড কামনার প্রতিক্রিয়া. মা মেয়েলি হুঙ্কার দিতে দিতে দাদুর ঐটার ওপর লাফাতে লাগলো. ওদের দেখে এবারে পাগলটা হাততালি দিয়ে উঠলো. মা আর দাদু পাগলটার দিকে তাকালো. লোকটা তখনো হাততালি দিচ্ছে. এটা দেখে ওরাও হেসে উঠলো.
দাদু : দেখেছো বৌমা? পাগলটা আমাদের এসব করতে দেখে কি খুশি?
মা : হি… হি… তাই তো দেখছি.
দাদু : চলো ওকে আরও খুশি করে দি.
এই বলে দাদু মাকে ঐভাবেই কোলচোদা করতে করতে আবার পাগলটার খুব সামনে নিয়ে এলো. মায়ের তখন ভয় করছেনা বরং প্রবল উত্তেজনায় চিল্লাছে আর দাদুকে আঁকড়ে ধরে ওই লম্বা নুনুর ওপর লাফাচ্ছে. পাগলটা হি হি করে হাসছে আর হাততালি দিচ্ছে. এবারে মা হঠাৎ দেখলাম দাদুর ঠোঁটে চুমু দিতে লাগলো. একটু পরে মা আকাশের দিকে মুখ করে আহহহহহ্হঃ আহহহহহ্হঃ বাবা বাবা আসছে… আমার আসছে….. আরও জোরে করুন…. শেষ করেদিন নিজের বৌমাকে… আহহহহহ্হঃ .. এসব বলতে শুরু করলো. কিন্তু দাদু তখনি মাকে নামিয়ে দিলো. মা অবাক চোখে তাকিয়ে রইলো দাদুর দিকে. কিন্তু মাকে অবাক করে দিয়ে দাদু আবার মাকে কোলে তুলে নিলো কিন্তু এবারে উল্টো দিক করে. এতক্ষন মায়ের সামনে দিক দাদুর দিকে ছিল এবারে মায়ের পিঠ দাদুর বুকে চেপে রইলো আর মা পেছনে হাত নিয়ে গিয়ে দাদুর ঘাড় চেপে ধরলো আর অন্যহাতে নিজের যোনিতে দাদুর ওই বিশাল দণ্ডটা ঢুকিয়ে নিয়ে সেই হাতটাও পেছনে নিয়ে গিয়ে দাদুর কাঁধ চেপে ধরলো. দাদু মায়ের থাই দুটো হাতে ধরে থেকে ফাঁক করে গায়ের জোরে হুঙ্কার দিতে দিতে কোমর নাড়াতে শুরু করলো আর আমার মায়ের ওই দুদু জোড়া ভয়ানক গতিতে ডান বাম ওপর নীচে দুলতে লাগলো. শুধু মায়ের দুদু নয় নীচে তাকিয়ে দেখলাম দাদুর নুনুর নিচের বিচির থলিটাও খুব জোরে ওপর নীচে দুলছে. ছিটকে এসে মায়ের তলপেটে ধাক্কা মারছে আবার পেছনে চলে যাচ্ছে.
এতক্ষন পাগলটা মায়ের পেছন দিকটা দেখছিলো কিন্তু এখন সে আমার মায়ের সামনের দিকটা দেখছে. মায়ের দুদুর দুলুনি হা করে দেখছে. মায়ের কি মনোভাব বোঝার উপায় নেই কারণ মা খুব জোরে চিল্লাছে আর যাতা বলছে. শুধু বুঝলাম বাবা গো….. আর পারলাম না….. ওগো আমায় ক্ষমা করো…. তোমার বাবা আমায় নষ্ট করে দিলো….. আহহহহহ্হঃ আহ্হ্হঃ আহহহহহ্হঃ….
আর তারপরেই মায়ের তীক্ষ্ণ একটা চিৎকার কার পুচুৎ করে দাদুর নুনুটা মায়ের ঐখান থেকে বেরিয়ে গেলো. আর তারপরেই সেই বীভৎস দৃশ্য. চোখের সামনে দেখলাম আমার মা দাদুর কোলে ঐভাবেই ঝুলে থেকে হিসু করতে শুরু করলো. মায়ের ঐখান দিয়ে তীব্র গতিতে জল বেরিয়ে আসছে আর সেই জল সোজা গিয়ে পড়ছে পাগলটার মুখে আর গায়ে. মায়ের ওসব দিকে খেয়াল নেই সে চোখ কপালে তুলে কোমর তুলে তুলে লাফিয়ে উঠছে আর চিরিক চিরিক করে জল ছিটকে বেরিয়ে আসছে. মায়ের ঐভাবে হিসু করতে দেখে দাদুরও মনে হয় হিসু পেয়ে গেছিলো. আমি দেখলাম দাদুর ওই লম্বা নুনুটা হঠাৎ তরাং তরাং করে লাফাতে শুরু করলো আর তারপরেই দাদুরও হিসু বেরোতে শুরু করলো. কিন্তু…. এ কেমন হিসু? এমন ঘন জেলির মতো কেন? আর সাদা রঙের কেন? এ আবার কেমন হিসু? বুঝিনি তখন ওটা বড়োদের সুখের প্রমান. কিন্তু মায়ের ওই হিসু ছিটকে পাগলের গায়ে পড়াতে পাগলটা হঠাৎ বৃষ্টি বৃষ্টি বলে চিল্লিয়ে দূরে সরে গেলো কিন্তু মা আরও কয়েকবার ঐভাবে লাফিয়ে লাফিয়ে জল বার করে হিসু করে তবে থামলো. মায়ের শরীর তখনো কাঁপছে. দাদু মায়ের ওই রূপ দেখে ঠোঁটে জিভ বোলালো. তারপরে মাকে নীচে নামালো. মা কিছুক্ষন দাদুর বুকে মাথা রেখে হাপালো তারপরে ঠিক হলো. দাদুও শান্ত হলো. আমারো মনে হলো হয়তো ওরা এবারে বেরোবে তাই আর না থেকে ফিরে আসতে লাগলাম. এসে দেখি কমলা ওই ফাঁকা জায়গাটায় দাঁড়িয়ে. আমায় দেখে বললো : বাবু কোথায় ছিলে? আমি এইমাত্র এলাম, এসে দেখি তুমি নেই? আমি বললাম হিসু করতে ঐদিকটায় গেছিলাম. তারপরে আরও কিছুক্ষন থেকে ফিরে এসেছিলাম. দাদু আর মাও কিছু পরে আমাদের কাছে এসেছিলো.
আজও ভাবি কি ভয়ানক ছিল এক ছোট মানুষের পক্ষে ঐসব দৃশ্য দেখা. তাও আবার নিজের মায়ের.
আরেকটা কথা আজ ভাবি…. কে পাগল? কে বেশি বিকৃত মস্তিষ্কের? ওই নোংরা জামা কাপড় পড়া পাগল লোকটা? নাকি ভদ্রতার মুখোশের আড়ালে লুকিয়ে থাকা আমার দাদু?

১৪
সেদিন রাতেই আবার নতুন দৃশ্য দেখ্লাম. সেদিন ফিরে এসে আমি আর দাদু ঘরে গিয়ে ফ্রেস হয়ে টিভি দেখছিলাম. দাদুকে বেশ আনন্দিত মনে হচ্ছিলো. কিছুক্ষন পরে আমি কি একটা কারণে মায়ের ঘরে যাবার জন্য উঠলাম. বারান্দা পেরিয়ে মায়ের ঘরের দরজার পর্দা সরিয়ে দেখি মা বিছানায় বসে আছে. মা ম্যাক্সি পড়ে নিয়েছে. কিন্তু মায়ের হাতে টাকা. সেই দাদুর দেওয়া টাকা. মা হাসিমুখে সেগুলো গুনছে. মায়ের হঠাৎ নজর পড়লো আমার ওপর. আমি ভাবলাম হয়তো মা এবারে বকবে কিন্তু তা না করে মা হেসে আমাকে কাছে ডাকলো. আমি কাছে যেতে মা আমায় বললো : কাল আমি তোর জন্য নতুন জামা, আমার নতুন শাড়ী কিনতে বেরোবো. তোর বাবার জন্য শার্ট কিনবো. ভালো হবে না? আমি হেসে মাথা নাড়লাম. কি মজা কাল কেনাকাটা করতে বেরোবো. মা আমার মাথায় হাত বুলিয়ে টাকা গুলো আবার আলমারিতে রেখে আমায় কোলে নিয়ে বাইরে বেরিয়ে এসে আমাকে দাদুর কাছে বসিয়ে দাদুকে বললো : বাবা চা করে আনি?
দাদু হেসে বললো : আবার তুমি কেন? কমলা আছে তো. মা হেসে বললো : সবসময় কি ওর চা খাবেন নাকি? বৌমার হাতের চা খাবেন না? দাদু হেসে বললো : খাবোনা কেন? নিশ্চই খাবো. আমার বৌমা আমার জন্য নিজের হাতে চা করে আনবে আর আমি খাবোনা? মা হেসে বেরিয়ে গেলো. আমি দাদুর পাশে বসে টিভি দেখতে লাগলাম. দাদু খবর দেখছে. আমি অবশ্য নিউস দেখিনা কারণ ওটা আমার কার্টুন দেখার বয়স. একটু পরে দেখি মা চা নিয়ে এলো আর মায়ের পেছনে কমলা মাসী. তার হাতে নিমকির প্লেট. মা দাদুকে চা দিলো আর নিজে নিলো আর মা আমাকে নিমকি খেতে দিলো. কমলা মাসীও আমাদের সাথে নীচে মেঝেতে বসে গল্প করতে লাগলো. এই কদিনে আমার মা আর কমলা মাসির মধ্যে একটা ভালো সম্পর্ক গড়ে উঠেছে. আমি মাঝে বসে আর দাদু ওইপাশে আর মা এই পাশে. আর মায়ের একদম পায়ের কাছে কমলা মাসী. আমরা টিভি দেখছি. নিমকি খেতে খেতে আমি হঠাৎ মায়ের দিকে তাকালাম. আমি দেখলাম আমার মা মুচকি হাসি দিয়ে কমলা মাসির দিকে তাকিয়ে আছে. আমি মাসির দিকে তাকালাম সেও মায়ের দিকে তাকিয়ে. কিন্তু কেন? সেটা বুঝলাম একটা জিনিস দেখে. দেখি কমলা মাসির একটা হাত মায়ের ম্যাক্সির ভেতর ঢোকানো আর সেটা মায়ের পায়ে ঘোরা ফেরা করছে. মা কমলা মাসিকে নিজের পুরোনো দু তিনটে ম্যাক্সি দিয়েছিলো. মাসিও তার একটা পড়ে এসেছে. এবারে আমি দেখলাম আমার মা চায়ে চুমুক দিয়ে নিজের একটা পা সোফায় তুলে আরও মাসির দিকে এগিয়ে গেলো আর মাসিও একেবারে মায়ের পায়ের কাছে এগিয়ে মায়ের পায়ের তলায় বসলো. এবারে মা যে পা টা সোফায় তুলেছিল সেই পায়ের পাতাটা এখন কমলা মাসির গালে ঠেকছে. আর মাসী নিজেই নিজের গাল ওই পায়ে ঘসছে আর হাত দিয়ে মায়ের অন্য পায়ে হাত বোলাচ্ছে. মা আর মাসী এখন আর সেইভাবে লুকিয়ে কিছু করছেনা. আমাকেও আর হয়তো বাচ্চা মানুষ ভেবে পরোয়া করছেনা. এবারে মা যে পা টা নীচে ছিল সেটা হঠাৎ কমলা মাসির থাইয়ের ওপর রাখলো আর মাসিও সেই পায়ের থেকে ম্যাক্সির কাপড় সরিয়ে মায়ের ফর্সা পায়ে হাত বোলাতে লাগলো. আমি মাকে দেখলাম মা চায়ে চুমুক দিলো কিন্তু নজর কাজের মাসি তার পা নিয়ে কি করছে সেই দিকে. মা এবারে নিজের একটা হাত মাসির কাঁধে রাখলো আর বোলাতে লাগলো. কমলা মাসী মায়ের মতো ওতো ফর্সা নয় তবে কালোও নয়. মাঝারি রং তার গায়ের. আমি দেখলাম আমার মা নিজের সেই হাত ধীরে ধীরে কমলা মাসির গলার কাছে নিয়ে গেলো আর মাসির গলায় হাত বোলাতে লাগলো. একসময় মা চায়ের কাপটা টেবিলে রাখার সুযোগ নিয়ে ঝুঁকলো আর সেই সুযোগে নিজের অন্য হাতটা মাসির ডান দিকের দুদুর কাছে নিয়ে গিয়ে একবার চাপ দিলো তারপরে আবার সোজা হয়ে বসলো. কমলা মাসী মাথা তুলে মায়ের দিকে তাকিয়ে হাসলো আর মাও হাসলো তারপরে মায়ের হঠাৎ আমার দিকে নজর পড়লো. মা সঙ্গে সঙ্গে মাসির থেকে সরে এসে ঠিক ঠাক হয়ে আমার মাথায় হাত বুলিয়ে টিভি দেখতে লাগলো. মাসিও সব প্লেট নিয়ে উঠে চলে গেলো.
সেদিন রাতেই আবার ঘটলো পুনরাবৃত্তি. তবে এবারে একটু অন্যরকম. আর সেদিন থেকেই পুরোপুরি ভাবে আমার বাবা নিজের অজান্তেই জীবনের সব থেকে বড়ো কিছু হেরে গেলো. রাতে মাছ হয়েছিল. কমলা মাসী পরিবেশন করছিলো. আমাকে মাছের বাটিটা দিয়ে দিয়ে মাসী যখন দাদুর দিকে গেলো আর তার মাছের বাটিটা দিচ্ছিলো তখন দাদু মাসিকে মায়ের মাছির বাটিটা দেখালো ইশারায় আর মাসিও দেখলাম হ্যা সূচক মাথা নাড়লো. আর তাতে দাদুও মুচকি হেসে নিজের খাবারে মন দিলো. মা ফোনে বাবার সাথে কথা বলছিলো. একটু পরে এসে আমাদের সাথে যোগ দিলো. খাবার খাওয়া শেষ হলে আমরা প্রত্যেক দিনের মতোই দাদুর কথা মতো কিছুক্ষন হাঁটাচলা করলাম আর তারপর কিছুক্ষন রাতের মতো টিভি দেখে ঘুমোতে গেলাম. আগেই বলেছি নতুন জায়গায় আমার ঘুম হয়না তাই হঠাৎ দাদুর নড়াচড়াতে ঘুমের ঘোরটা কেটে গেলো. চোখ খুললাম. দেখি চারিদিক অন্ধকার. খালি মাথার কাছের খোলা জানলা দিয়ে আলো ঢুকে ঘরটা কিছুটা আলোকিত করে রেখেছে. আমি জানিনা কটা বাজে কিন্তু বাইরে অন্যান্য দিনের মতো কুকুরের ঘেউ ঘেউ শুনতে পেলাম. একটু পরেই হঠাৎ বাইরে কারোর পায়ের শব্দ পেলাম. কেউ যেন এদিকেই আসছে. দোতলায় তো আমরা আর ওই ঘরে মা ছাড়া কেউ নেই. তাহলে মাই হবে. হয়তো বাথরুমে যাবে বলে উঠেছে. কিন্তু আওয়াজটা খালি এদিকে এগিয়ে আসছে. বাথরুম তো অন্যদিকে. এবারে পায়ের আওয়াজটা একেবারে আমাদের দরজার বাইরে. ঐতো ভেজানো দরজাটা কেউ ঠেলছে. ভেতরে কেউ উঁকি দিলো. এক মুহূর্তের জন্য ভয় পেয়েছিলাম স্বীকার করতে লজ্জা নেই. কিন্তু কালো ছায়াটা যখন একটু পরে এগিয়ে এসে বিছানার সামনে দাঁড়ালো জানলার আলোয় চিনতে পারলাম সেটা অন্য কেউ নয় আমার মা. কিন্তু মা এত রাতে এই ঘরে কেন? আমায় দেখতে এসেছে ঘুমিয়েছি কিনা? কিন্তু মা তো আমার দিকে তাকিয়ে নেই. মা তো ঘুমন্ত দাদুর দিকে তাকিয়ে. মা আরও বিছানার কাছে এগিয়ে এলো. এক দৃষ্টিতে মা দাদুর ঘুমিয়ে থাকা মুখটা দেখছে. মায়ের একটা হাত বুকের কাছে ঘোরাফেরা করছে. মা একবার আমার দিকে তাকালো. অন্ধকারে হয়তো ভাবলো আমি ঘুমিয়ে তাই আবার দাদুর দিকে তাকালো. মা হাত বাড়িয়ে দাদুর বুকের ওপর রাখলো আর ধাক্কা দিলো কিন্তু দাদু ঘুমিয়ে তাই কোনো সাড়া দিলোনা. মা এবারে ঝুঁকে দাদুর বুকে হাত রেখে আবার ডাকলো কিন্তু দাদু সাড়া দিলোনা. মা এবারে দাদুর পায়ের কাছে তাকালো. মা এবারে দাদুর পায়ের কাছে গিয়ে দাঁড়ালো. একবার দাদুর দিকে তাকালো মা আর তারপরে দাদুর ধুতির ওপর দিয়ে দাদুর পায়ের মাঝে নিজের হাত ডলতে লাগল. একটা হাত দাদুর পায়ের ওপর আর অন্য হাতে মা দাদুর পায়ের মাঝে ঘসছে. আমি ভাবলাম এ আবার কেমন ভাবে ডাকছে মা দাদুকে? কিন্তু একটু পরেই দেখলাম মা যেখানে হাত ঘষছিলো সেই জায়গাটা আমার চোখের সামনে একটু একটু করে ফুলতে শুরু করলো. আমিতো অবাক. ওটা অমন উঁচু হয়ে যাচ্ছে কি করে? দেখতে দেখতে দাদুর পায়ের মাঝে ধুতিটা একটা তাঁবুর আকার ধারণ করলো. মা তাকিয়ে আছে সেটার দিকে. মা তাকালো আবার দাদুর দিকে. দাদুর চোখ বোজা. মা এবারে ধুতিটা ধরে ওপরের দিকে তুলতে লাগলো. দাদুর ধুতি মা যত তুলছে দাদুর ঠ্যাং ততো বেরিয়ে আসছে. এবারে মা ওই ফুলে থাকা জায়গা থেকে ধুতিটা তুলে সরিয়ে দিতেই আমি দেখলাম দাদুর নুনুটা সেই বিশাল আকার ধারণ করে একেবারে সোজা হয়ে দাঁড়িয়ে আছে. মায়ের চোখ ওই নুনুতে আটকে গেছে. বড়ো বড়ো চোখ করে তাকিয়ে আছে ওই নুনুর দিকে. এবারে মা ঝুঁকে নিজের মুখটা দাদুর ওই নুনুর কাছে এনে অবাক চোখে তাকিয়ে আছে ওই বিশাল নুনুর দিকে. এবারে মা নিজের একটা হাত ওই নুনুর ওপর রাখলো কিন্তু সাবধানে. আলতো করে ধরলো নুনুটা. মা একটা ঢোক গিললো. তাকালো একবার দাদুর দিকে তারপরে আবার নজর দিলো হাতে ধরে থাকা যৌনাঙ্গের দিকে. মায়ের চোখে মুখে কেমন যেন একটা ভাব. এমন ভাবে আমি মাকে আগে দেখিনি. মা এবারে যে হাতে ওটা ধরেছিলো সেই হাতটা নিচের দিকে নামালো আর অমনি দাদুর নুনুর ঢাকনা খুলে গেলো আর ভেতর থেকে বেরিয়ে এলো লাল মুন্ডিটা. মা আবার হাত ওপরের দিকে তুললো আর আবার লাল মুন্ডুটা চামড়ায় ঢাকা পড়ে গেলো. পরক্ষনেই আবার মা গত নামালো আর বেরিয়ে এলো মুন্ডিটা. মা তাকিয়ে আছে দাদুর নুনুর দিকে. নিজের ঠোঁট কামড়ে অসহায় চোখে তাকিয়ে আছে ধরে থাকা লম্বা দন্ডটার দিকে. একবার ওটা ছেড়ে সরে গিয়ে পেছন ঘুরে বেরিয়ে যাচ্ছিলো মা কিন্তু একটু এগিয়ে আবার ঘাড় ঘুরিয়ে পেছনে তাকালো আর ঘুমন্ত দাদুর লম্বা হয়ে থাকা নুনুটার দিকে কিছুক্ষন তাকিয়ে আবার ফিরে এলো. আবার ঝুঁকে হাতের মুঠোয় নিলো নুনুটা. বার বার ঢোক গিলছে মা যেন মুখে জল চলে আসছে তার. মায়ের মুখটা আরও এগিয়ে আসলো নুনুর দিকে. নুনুটার দিকে তাকিয়ে ঠোঁটে জিভ বোলালো মা.
হা করে নিজের মুখটা নুনুর মুন্ডীটার কাছে এনে মা শেষবারের মতো তাকালো দাদুর দিকে তারপর একবারেই পুরোনো লাল মুন্ডিটা মুখে নিয়ে নিলো মা আর দুই হাতে নুনুর চামড়া ধরে ওপর নিচ করতে লাগলো. নুনুটা এতোই বড়ো যে মা দুই হাতে ধরার পরেও আরও দুই হাতে ওটা ধরা যাবে. উমম উমম আওয়াজ বেরিয়ে আসছে মায়ের মুখ দিয়ে. যেন খুব খিদে পেয়েছিলো মায়ের. আমি দেখছি আর ভাবছি মা এটা কি করছে? কেন করছে? দাদুর নুনুতে মা মুখ দিচ্ছে কেন? কি লাভ এতে? মা এদিকে জিভ বার করে ওই মুন্ডিতে বোলাচ্ছে তারপরে আবার পুরো মুন্ডুটা মুখে নিয়ে চুষছে. দাদুর নুনুটা মা মুখ থেকে বার করতেই ওটা তরাং তরাং করে দুবার লাফিয়ে উঠলো আর মা আবার ওটা ধরে মুখে পুরে নিলো. একটা হাত দাদুর পেটের ওপর রেখে অন্যহাতে নুনুটা ওপর নিচ করতে করতে মা চুষছে ওটা. উমমম…. উমমমম উম্ম্মাআ…. এসব আওয়াজ আসছে মায়ের মুখ দিয়ে. আমি এবারে তাকালাম দাদুর দিকে আর এবারে আমিও চমকে গেলাম. দাদুর চোখ খোলা. সে এখন মাকে দেখছে. দাদু একটুও নড়ছেনা কিন্তু চোখ খুলে মাকে নিজের নুনু চোষা দেখছে. ওদিকে মা এখন নুনুটার গায়ে জিভ বোলাচ্ছে আর তারপর আবার ওই লাল মুন্ডিটা নিজের জিভে ঘসছে. মা এমন ভাবেই নুনু চুষতে ব্যাস্ত যখন তখনি হঠাৎ দাদু হাত বাড়িয়ে মায়ের মাথা নিজের নুনুর ওপর চেপে ধরলো আর নিজের পা দুটো ফাঁক করে কোমর তুলে তুলে মায়ের মুখে ধাক্কা দিতে শুরু করলো. মা কিছু বোঝার আগেই ব্যাপারটা ঘটে গেলো. চার পাঁচটা ঠাপ দিয়ে দাদু থামলো আর নিজের হাত সরিয়ে নিলো. মা মুখ থেকে ওটা বার করে অবাক চোখে দাদুর দিকে চাইলো. মায়ের মুখ দিয়ে বেরিয়ে এলো : বাবা… আপনি জেগে…
কিন্তু মায়ের কথা শেষ করতে না দিয়ে দাদু মাকে ঠোঁটে আঙ্গুল দিয়ে চুপ করতে বললো আর নিজের নুনুটা হাতে নিয়ে মায়ের সামনে দোলাতে লাগলো. মা দেখলো নুনুটা কেমন দাঁড়িয়ে দুলছে. দাদু মায়ের একটা হাত নিজের হাতে নিয়ে সেটা নিজের নুনু ধরিয়ে দিলো. মা নুনুটা ধরে ওপর নিচ করতে লাগলো. দাদু মায়ের হাত থেকে নুনু সরিয়ে নিজেই মাকে দেখিয়ে দেখিয়ে নুনুটা ওপর নিচ করতে লাগলো. মা লোভী চোখে তাকিয়ে আছে ঐটার দিকে. দাদু এবারে মায়ের হাত ধরে নীচে টানলো. মা একটু ঝুঁকে দাঁড়ালো. দাদু মায়ের মাথার চুল মুঠো করে ধরে মায়ের মাথাটা নিজের নুনুর কাছে নিয়ে গেলো আর অন্য হাতে নুনু কচলাতে লাগলো. মায়ের একেবারে মুখের সামনে দাদুর নুনুটা একবার চামড়া থেকে লাল মুন্ডিটা বেরিয়ে আসছে আবার ভেতরে ঢুকে যাচ্ছে. মা মনে হয় আর নিজেকে আটকে রাখতে পারলোনা. হা করে মুখ খুললো. আর তখনি দাদু মায়ের হা করা মুখটার ভেতর নিজের নুনুটা ঢুকে দিলো. মা আবার উমমম… উমমম করে চুষতে শুরু করলো. এবারে আরও জোরে মাথা ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে. আমি ভাবছিলাম মা কেন এসব করছে? ওখান দিয়ে তো মানুষ হিসু করে, তাহলে ওটা মুখে নিয়ে মা অমন চুষছে কেন? এবার দাদু মায়ের মাথা সরিয়ে দিলো নুনুর ওপর থেকে. মা অবাক হয়ে চাইলো দাদুর দিকে. দাদু নিজের নুনুটা একহাতে নিজের পেটের ওপর চেপে ধরে অন্যহাতে নিজের বিচির থলিটাতে হাত বোলাতে লাগলো. মা দেখছিলো দাদু কিভাবে বিচি দুটোতে হাত বোলাচ্ছে. এবারে দাদু মায়ের মাথা ধরে তার মাথাটা নিজের ওই বিচির কাছে নিয়ে আসলো আর নিজের পা দুটো আরও ফাঁক করলো. আমি জানিনা সেদিন মায়ের কি হয়েছিল কিন্তু দাদু মায়ের মুখটা নিজের ওই বড়ো বিচির থলিতে চেপে ধরাতেও মা কোনো বাঁধা দিলোনা. বরং দাদুর হাত সরিয়ে নিজেই চুমু খেতে লাগলো থলিটায়. দাদুর নুনুর মতো বিচি দুটোও বেশ বড়ো. কিন্তু মা এটা কি করছে? আমি অবাক হয়ে দেখলাম মা ডান দিকের বিচিটা মুখে নিয়ে পেছনের দিকে টানতে লাগলো. ফলে ফলে দাদুর একদিকের বিচি অন্যটার থেকে লম্বা হয়ে গেলো. মা পুরো বিচিটা মুখে নিয়ে নিয়েছে আর টানছে. দাদুর মুখ দিয়ে আহহহহহ্হঃ করে হালকা গোঙানি বেরিয়ে এলো. এবারে মা ওটা মুখ থেকে বার করলো আর আমি দেখলাম ওটা নীচে পড়ে গেলো আর ধীরে ধীরে আবার নিজের আগের জায়গায় ফিরে এসে দুটোই সমান আকারের হয়ে গেলো. এবারে মা বাঁ দিকের বিচিটা মুখে নিলো আর টানতে লাগলো. এবারে ওই দিকটা লম্বা হয়ে গেলো. মা মনে হয় খুব মজা পাচ্ছে এসব করে. কিন্তু দাদু আহহহহহ্হঃ আহহহহহ্হঃ করছে. এবারে মা ওটাও মুখ থেকে বার করলো আর ওটাও নিজের জায়গায় ফিরে এলো. এবারে মা আবার ওই বিচির থলিটার ওপরের লম্বা নুনুটা হাতে নিয়ে চুষতে শুরু করলো. আমার কেমন যেন ভয় ভয় লাগছিলো এসব দেখে. আমি আমার মায়ের এই রকম রূপ এর আগে কোনোদিন দেখিনি কিন্তু মা এসব কি করছে? নিজের মাকে আমি ভয় পাচ্ছি আজ. কিন্তু এর থেকেও ভয়ের ব্যাপার ঘটলো. হঠাৎ দাদুর মধ্যে পরিবর্তন দেখলাম. দাদুর সেই মুখ যেন পাল্টে গেছে. খুব রেগে গেলে মানুষের যে মুখ হয় যেন সেরকম চোখে তাকিয়ে মায়ের নুনু চোষা দেখছে. আমি ছিলাম একেবারে দেয়ালের দিকে আর দাদু ওপাশের ধারে. মাঝে অনেকটা ফাঁক ছিল কারণ এই খাটটা বেশ বড়ো. আমি দেখলাম হঠাৎ দাদু একটু উঠে মায়ের হাত ধরে নিজের দিকে টানলো. মায়ের মুখে তখন নুনুটা ছিল. পচাৎ শব্দে সেটা মায়ের মুখ থেকে বেরিয়ে গেলো.এ কিছু বোঝার আগেই দাদু মাকে টেনে বিছানায় বসিয়ে দিলো আর মাকে নিজের পাশে শুইয়ে দিলো. মা কিছু বলাতেও পারলোনা তারপর আগেই দাদু মায়ের ম্যাক্সিটা কোমর অব্দি তুলে মায়ের একটা পা নিজের হাতে নিয়ে ওপরের দিকে তুলে ধরলো. তারপর মায়ের না বাবা না এখানে না এইকটা শব্দ শুনতে পেলাম আর তারপর পরেই মায়ের আহ্হ্হঃ করে হালকা চিৎকার. এবারে দেখলাম মায়ের একটা পা হাতে ধরে রেখে দাদু কোমর নাড়ছে. মা দাদুর ওপাশে ছিল তাই আমি মাকে দেখতে পাচ্ছিনা শুধু মায়ের উঁচু হয়ে থাকা পা টা দেখতে পাচ্ছি. দাদু মায়ের পা টা উঁচু করে ধরে শুয়ে শুয়ে কোমর নাড়ছে আর মায়ের গোঙানি ভেসে আসছে. মাঝে মাঝে পচাৎ পচাৎ পকাৎ জাতীয় শব্দও আসছে. বিছানা টাও কেঁপে কেঁপে উঠছে. একবার মাকে বলতে শুনলাম : ওহ বাবা আস্তে…… অজয় জেগে যাবে. কিন্তু দাদু থামলোনা যা করছিলো করতে লাগলো. আর মাও দাদুকে কিছু বল্লোনা. দাদু কিছুক্ষন পরে থামলো আর মায়ের পা ছেড়ে দিয়ে খুব সাবধানে উঠে বসলো. তারপর আমার দিকে তাকিয়ে দেখলো. আমি চোখ বুজে ফেলেছি সঙ্গে সঙ্গে. মাকে বলতে শুনলাম : ও ঘুমিয়ে তো? দাদু শুধু হুম বললো. এরপর আমি বুঝলাম বিছানা থেকে কেউ নামলো. আমি হালকা করে চোখ খুলে দেখলাম মা বিছানা থেকে নামলো আর দাদু পা ঝুলিয়ে বসলো. দাদু মাকে নিজের পায়ের ফাঁকে টেনে একেবারে জড়িয়ে ধরলো আর মাও দাদুর মুখে মুখ লাগিয়ে সে কি সোহাগ. দাদুর গালে গাল ঘসছে মা. এই প্রথমবার মা নিজে এসেছে দাদুর কাছে. দাদু এবারে মায়ের ম্যাক্সিটা ধরে ওপরের দিকে তুলতে লাগলো. আমার চোখের সামনে মায়ের ম্যাক্সিটা দাদু মায়ের পেট অব্দি তুলে দিলো আর মাও হাত দুটো ওপরে তুলে ধরলো আর দাদু ম্যাক্সিটা মায়ের হাতের ওপর দিয়ে গলিয়ে খুলে নীচে ফেলে দিলো. মা এখন পুরো নগ্ন. বাইরের চাঁদের আলোয় মায়ের নগ্ন রূপ দেখছে দাদু. রোগা বা বলা যেতে পারে খুব যত্ন করা মেদহীন শরীরে তরমুজের মতো দুটো দুদু. একেবারে উঁচু হয়ে আছে দুদু দুটো. দাদু অমনি মাকে আবার কাছে টেনে নিজের মাথা নামিয়ে মায়ের দুদুর কাছে এনে চুক চুক চুষতে লাগলো মায়ের দুদু. আমার এক বন্ধু আমায় বলেছিলো সে নাকি তার এক দাদার কাছে শুনেছে মায়েরা নাকি ছোটবেলায় তার বাচ্চাকে ওই দুদু দিয়ে দুধ খাওয়ায়. বাচ্চারা ওই দুদু চুষে খায়. আমার মাও কি দাদুকে দুধ খাওয়াচ্ছে? কিন্তু দাদু তো ছোট নয়, সেতো বড়ো মানুষ. তাহলে কেন? মা কেমন ভাবে দাদুর মাথাটা নিজের দুদুর ওপর চেপে ধরে আছে আর দাদুর দুদু চোষা দেখছে. একবার মা আমার দিকে তাকালো. আমি একটুও নড়ছিলাম না তাই মা ঘুমিয়ে আছি বুঝে আবার দাদুর দিকে নজর দিলো. দাদু মায়ের ওই দুদুর ওপর জিভ বোলাচ্ছে, চুষছে, পুরোনো দুদুতে জিভ বোলাচ্ছে. ওদিকে মা দাদুর চুলে হাত বোলাচ্ছে. এবারে দাদু বিছানা থেকে নামলো আর মায়ের সামনে দাঁড়ালো. দাদু কি লম্বা বোঝাই যাচ্ছিলো. দাদুর বুকের কাছে মায়ের মাথা শেষ. কে বলবে আমার বাবার বাবা ইনি. আমার বাবা মায়ের থেকে একটু লম্বা. মা আর দাদু একে অপরকে কেমন করে দেখছে. এবারে দাদু মাকে ঘুরিয়ে দাঁড় করালো আর মায়ের ফুলে থাকা পাছায় হাত বোলাতে লাগলো. এবারে দাদু ঝুঁকে নিজের নুনুটা মায়ের পাছার দাবনার মাঝে রেখে ঘষতে লাগলো আর দুই হাত সামনে নিয়ে গিয়ে মায়ের দুদু জোড়া হাতে নিয়ে টিপতে লাগলো. এবারে দাদু মাকে ঐভাবেই নিয়ে গেলো আমার মাথার পেছনে. সেখানে একটা ড্রেসিং টেবিল ছিল. আমি কোনোরকম করে হালকা মাথা ঘুরিয়ে দেখি মা আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে. পেছনে দাদু ঐভাবেই নিজের নুনুটা মায়ের পাছায় ঘসছে আর দাদুর হাতে মায়ের দুদু. দুজনেই আয়নায় একে অপরকে দেখছে. দাদু এবারে মাথা তুলে আয়নার ওপরে তাকালো. সেখানে দাদু আর ঠাকুমার ছবি টাঙানো ছিল.
দাদু : দেখেছো প্রভা? তোমার বৌমার কত সুন্দর সেবা করছে তোমার বর? এই দেখো তোমার ছেলের বৌ কেমন করে আরাম পাচ্ছে. আমাদের নাতির সামনেই সে আমার আদর খাচ্ছে.
মা : বাবা…. কি করছেন কি? উনি আমার শাশুড়ি. আমার লজ্জা করছে.
দাদু : লজ্জা কিসের বৌমা? উনি কি আর এখানে আছে যে তোমায় আমায় এইভাবে সামনে দেখতে পাবে? সে যদি দেখতো তার ছেলের জন্য সে যে বৌ পছন্দ করেছিল সেই মেয়ে তার বৌমা হয়ে এসে তার শশুরের সঙ্গে এসব করছে তাহলে বোধহয় অক্কা পেতেন.
মা : ইশ..বাবা. নিজের স্ত্রীয়ের ছবির সামনে আমার সাথে এসব করতে লজ্জা করছেনা? খুব খারাপ আপনি.
দাদু : আমি কত খাড়াপ দেখবে? চলো দেখাই. ওই ঘরেও তোমার শাশুড়ির একটা ছবি আছে না? চলো দেখাই আমার আসল রূপ.
এই বলে দাদু মাকে ঘুরিয়ে মায়ের হাত ধরে মাকে নিয়ে চললো বাইরে. দরজা আবার ভিজিয়ে দিলো. এবারে আবার সব শান্ত. ঘরে খালি আমি একা. কিছুক্ষন শুয়ে রইলাম. কিন্তু নতুন কিছু দেখা, কৌতূহল, ভয় এইসব আমায় আর শুয়ে থাকতে দিলোনা. বার বার মনে হচ্ছিলো আমার মায়ের সাথে কি করবে দাদু? এটা কেমন কাজ? মা এসব কেন করছে? না… আর পারলাম না শুয়ে থাকতে. উঠে পড়লাম আর বেরিয়ে এলাম ঘর থেকে. এগিয়ে যেতে লাগলাম মায়ের ঘরের দিকে. যত এগোচ্ছি ততই মায়ের আহহহহহ্হঃ আহহহহহ্হঃ আহহহহহ্হঃ এসব আওয়াজ পাচ্ছি. আমি বারান্দার সামনে ঠিক সেখানে দাঁড়ালাম যেখানে জানলার ভেতর দিয়ে আয়নাটা দেখা যায়. হ্যা জানলা খোলা আর আয়নাটাও দেখা যাচ্ছে. কিন্তু আয়নার ওপর মায়ের প্রতিফলন পড়েছে ঠিকই কিন্তু সেই সাথে মায়ের দুটো হাত আয়নার দুপাশে রাখা সেটাও দেখা যাচ্ছে. মানে মা আয়নাটার ওপর হাত রেখে দাঁড়িয়ে. আয়নায় দেখলাম মায়ের মুখ হা করা আর আয়নায় তাকিয়ে. নীচে মায়ের দুদু দুটো ঝুলছে আর এদিক ওদিক দুলছে. এবারে মায়ের মাথার পাশ দিয়ে দাদুর মুখটাও আয়নায় দেখতে পেলাম. দাদু দাঁত খিঁচিয়ে কি যেন করছে. দুজনেই দুলছে. মা যেখানে আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে সেই আয়নার নিচেই একটা শোকেস. আর সেই শোকেসের ওপর দুটো ছবি রাখা. দুটোই আমাদের সঙ্গে আনা. একটা বাবা আর মায়ের আমার সাথে তোলা ছবি আরেকটা ঠাম্মার ছবি. দুটোই ওই শোকেসের ওপর দাঁড় করানো আর তার ওপরেই আয়না. এবারে আমি শুনলাম দাদু বলছে….
দাদু : দেখো প্রভা….. নিজের চোখেই দেখো. কত চেষ্টা করেছিলে যাতে ছেলে আর বৌমা এইবাড়িতে না আসে. কিন্তু আমি ঠিক নিয়েই এলাম. তুমি জানতে পেরেছিলে বৌমার ওপর আমার নজর আছে. কিন্তু লজ্জায় কাউকে কিছু বলতে পারোনি. আমাকেও ওদের ফ্ল্যাটে যেতে দাওনি. কিন্তু শেষ পর্যন্ত কি আর আটকাতে পারলে? এই দেখো… তুমি যেতেই ছেলে বৌমা নাতিকে এই বাড়িতে নিয়ে এলাম আর আজ দেখো কিভাবে তোমার বৌমাকে ঠাপাচ্ছি.
মা : আহহহহহ্হঃ… আহহহহহ্হঃ বাবা… তার মানে আপনি অনেক আগে থেকেই আমায়…..
দাদু : হ্যা বৌমা. এই বয়সেও অনেক মহিলা ভোগ করেছি কিন্তু আমার নিজের ঘরেই যে এমন মাল আমার বৌমা রূপে আসবে ভাবতেও পারিনি. তোমায় দেখার পর থেকেই ভাবতাম কবে তোমায় নেবো. প্রথম প্রথম ভাবতাম এটা ঠিক নয়, লজ্জা হতো ভাবতাম তুমি আমার ছেলের বৌ কিন্তু শেষ অব্দি পারিনি নিজেকে আটকাতে. তোমাকেও আমার করে নেবার সংকল্প করলাম. এটা তোমার শাশুড়ি মা মনে হয় আঁচ করেছিল. আমি বুঝতাম সে আমাকে তোমার কাছ থেকে দূরে রাখতে চায়. কিন্তু শেষমেষ পারলোনা ঠেকাতে. দেখো তারই ছবির সামনে তোমায় করছি.
মা : ছি বাবা আপনি এত খারাপ. নিজের ভাইকে পাগল করেছেন, নিজের ছেলের বৌকে নিলেন আর এখন নিজের মৃত স্ত্রীয়ের নামে এসব বলছেন.
দাদু হেসে বললো : বৌমা….. আমার নাম সুবীর. আমার দাদুর দুই বৌ ছিল. দুই বৌ সতীন হওয়া সত্ত্বেও একে ওপরের বোনের মতো ছিল. একবার আমার দাদুর প্রথম স্ত্রী জানতে পারে দাদু নাকি আরেকটা মহিলার চক্করে পড়েছেন. দাদুর সেই বৌ তার সতীনকে ব্যাপারটা জানায়. দুই বৌ তারপর স্বামীর কাছে গিয়ে কৈফিয়ত চায়. আর জানো পরের দিনই দাদু সেই নতুন মহিলাকে বিয়ে করে আনেন. এরপরে দাদুর দুই বৌ ঝামেলা শুরু করলে দাদু তিন বৌকেই একঘরে নিয়ে গিয়ে দরজা লাগান. পরের দিন সকালে সেই দরজা খোলে. তিন বৌয়ের মুখেই হাসি ছিল সেদিন. এরপর থেকে তিন বৌ সতীন হয়েও বোনেদের মতো থাকতো. সেই দাদুর নাতি আমি. আমার দেহে তার রক্ত বইছে. আর সেই আমার ছেলে হলো কিনা ওই রকম রোগা পেটকা. এটা আমি মেনে নিতে পারিনি. আমি চাইতাম আমার ছেলে হবে আমার মতো শক্তিশালী পুরুষ. কিন্তু তা আর হলোনা. কিন্তু ওর যখন তোমার সাথে বিয়ে হলো তখন বুঝেছিলাম ও পারবেনা তোমার মতো মহিলাকে শান্ত করতে. কি বৌমা? ও পারে আমার মতো এমন ভাবে তোমায় করতে? বলো বৌমা.. বলো? তোমার মুখ থেকে শুনতে চাই আমি বলো…… কি হলো? বলবেনা? বলতেই হবে তোমায় বলো….
এই বলে দাদু ভয়ঙ্কর জোরে কোমর নাড়াতে শুরু করলো আর দূর থেকেও থপাস থপাস আর পচ পচ আওয়াজ শুনতে পারছিলাম আমি. মায়ের সেকি আউউ আউউউ চিৎকার আর দাদু বলছে বলো বৌমা… বলো কে ভালো আমি না আমার ছেলে.. বলো
মা এবারে না পেরে বললো : আহহহহহ্হঃ… আহহহহহ্হঃ বলছি বলছি… আপনি….. আপনি বাবা… আপনি. উফফফফ আহহহহহ্হঃ.
দাদু হেসে মায়ের দুদু দুটো হাতে নিয়ে টিপতে টিপতে জিজ্ঞেস করলো আবার : কার বড়ো? ছেলের না আমার?
মা : আপনার বাবা আপনার…. উফফফ ওর আপনার অর্ধেকও নয়…. আপনার ছেলে হয়ে ও এসবের কিছুই পায়নি.
দাদু ঠাম্মার ছবির দিকে তাকিয়ে বললো : দেখেছো প্রভা দেখেছো? কেমন ছেলে জন্ম দিয়েছো? শালা বৌমাকে ঠিক ভাবে সুখ দিতেই পারেনা. আহারে…..তোমার ভুলের জন্যই একটা মেয়েকে এমন ছেলের সাথে বিয়ে করতে হলো. এটা না হলে হয়তো আজ তোমার বউমার আজ এক লম্বা চওড়া পুরুষের সাথে বিয়ে হতো. রোজ তোমার বৌমাকে সে বিছানায় সুখ দিতো. তোমার বৌমা আর তার একটা ফুটফুটে ছেলে হতো. কিন্তু সেসব কিছুই হলোনা আমাদের ছেলের জন্য. ছেলে যখন আমাদের তখন তার ভুলের মাসুল আমাদেরই দিতে হবে. আমিই না হয় তোমার বৌমার সব খেয়াল রাখবো. তোমার ছেলে যা কিছু ওকে দিতে পারেনি সেই সব দেবো. ওকে সুখও দেবো আবার আমার সব সম্পত্তিও দেবো. তোমার ওই অকাজের ছেলেকে এক নয়া পয়সাও দেবোনা আমি. সব আমার বৌমার নামে করে দেবো. তোমার ছেলে সব সময় তোমার বৌমার কাছে হাত পাতবে এটাই হবে ওর শাস্তি.
মা : বাবা…. ও কি কিছুই পাবেনা?
দাদু : না বৌমা….. ওকে কিচ্ছু দেবোনা আমি. সব তোমায় দেবো.
মা : কিন্তু ও যদি ব্যাপারটা মেনে না নেয় তখন?
দাদু : বৌমা… সম্পত্তি আমার. আমি কাকে দিয়ে যাবো সেটা আমি ঠিক করবো. ও ব্যাটা আমার কোনোদিন কোনো কাজে লাগেনি. কোনো ইচ্ছা পূরণ করতে পারেনি. কিন্তু তুমি…. তুমি আমার সব ইচ্ছা পূরণ করছো. তুমি আমায় আবার জোয়ান করে তুলছো. তোমায় সব দেবোনা তো কাকে দেবো? তুমি চিন্তা কোরোনা…. এমন ভাবে সব করবো ও কোনো বাঁধাই দেবেনা.
মা : কিন্ত বাবা……
দাদু : বৌমা….. তুমি কি চাও? তোমার বর সম্পত্তি পাক নাকি তুমি সব পাও. ভেবে দেখো এত সব তোমার নিজের. তুমি হবে সবকিছুর মালিক. আর ওকে দিলে সব ওর হবে. তোমার নয়. তাই ভেবে বলো.
মা : কিন্তু…. সে আমার স্বামী.
দাদু : স্বামীর দারিদ্র আগে নাকি শশুরের সব সম্পত্তি আগে. তোমার বর তো ঠিক মতো ব্যবসা দাঁড় করাতেই পারলোনা কিন্তু তুমি যদি চাও তুমি ওকে সাহায্য করতে পারবে. ভেবে দেখো তোমার বর তোমার কাছে হাত পেতে টাকা নিচ্ছে আর তুমি আলমারি থেকে তাকে টাকা বার করে দিচ্ছ. কি? দারুন না দৃশ্যটা?
মা দাদুর দিকে তাকিয়ে হাসলো.
দাদু : কি? সব তোমাকে দেবতো তাহলে?
মা : হুম
দাদু : উহু… হুম বললে হবেনা. বলো বাবা আপনার সব সম্পত্তি আপনার ছেলে কে না দিয়ে আমার নামে লিখেদিন. আমি ওর সব সম্পত্তি নিজের নামে করে নিতে চাই. বলো.
মা লজ্জা পেয়ে : বাবা…. আপনার ছেলের সব সম্পত্তি আমার নামে লিখেদিন. ওকে কিছু দেবেন না.
দাদু : বাহ্…. বৌমা. সাবাশ. হয়তো এই প্রথমবার হবে যে ছেলের প্রাপ্য সম্পত্তি তার বাবা তাকে না দিয়ে তার বৌকে দিয়ে দেবে. নিজের স্ত্রী স্বামীকে ঠকিয়ে তার সব নিজের নামে করে নেবে. শশুর বৌমা মিলে ছেলেকে পথে বসাবে. এই বলে দাদু বাবার ছবিটা তুলে নিয়ে বললো : বাবলু দেখ আমি আর বৌমা মিলে তোর সব কিছু নিজেদের করে নেবো. তোর মায়ের ভাগের সম্পত্তিও আমি তোর বৌকে দিয়ে দেবো. এখন আমি আর বৌমা একদলে আর তুই একা. কি বলো বৌমা.
মা শুধু হাসলো. আর দুজনে বাবার ছবির দিকে তাকিয়ে রইলো.
আজ ভাবি টাকা কি সবাইকে পাল্টে ফেলতে পারে? হয়তো পারে. নইলে আমার বাবা যার সাথে এতগুলো বছর কাটালো সেই আমার মা তারই সব সম্পত্তি তাকে ঠকিয়ে নিজের নামে করতে চলেছে !! আমার নিজের মা আমার বাবাকে ঠকিয়ে তার সব প্রাপ্য থেকে তাকে দূরে সরিয়ে দিতে চলেছে !! আর সেটাতে তাকে সাহায্য করছে আমার বাবার বাবা !! হ্যা নিজের বাবা নিজের ছেলেকে ঠকিয়ে তাকে কিচ্ছু না দিয়ে তার সব সম্পত্তি তার বৌকে দিতে চলেছে. এক সন্তান জানতেও পারলোনা তার নিজের পিতা আর নিজের স্ত্রী একসাথে মিলে বাবার বিরুদ্ধে এতবড়ো সিদ্ধান্ত নিয়েছে.
ভাবুন বন্ধুরা…… আমার নিজের মা আর দাদু একসাথে মিলে আমার বাবার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র গড়ছে যাতে সে কোনো টাকা না পায়.

গল্পটি কেমন লাগলো ?

ভোট দিতে স্টার এর ওপর ক্লিক করুন!

সার্বিক ফলাফল 4.5 / 5. মোট ভোটঃ 2

এখন পর্যন্ত কোন ভোট নেই! আপনি এই পোস্টটির প্রথম ভোটার হন।

Leave a Comment