বাবা মেয়ের অবৈধ চোদাচুদি

প্রতিদিনের মতই সকলের দৃষ্টি ঘোরাতে ঘোরাতে কলেজের গেট থেকে বেরিয়ে আসে শালিনী| তার হাঁটার ছন্দ দৃপ্ত ও সাবলীল| সাদা কামিজে চোখ ঝলসানো রূপের ছ্বটা নিয়ে, পিঠ অবধি এলিয়ে পরা একটি ক্লিপে বাঁধা ঘন কালো চুলের সম্ভারে ঢেউ তুলতে তুলতে হাঁটছে সে| তার প্রতিমার মত নিখুত কাটা কাটা নাক-চোখ ও ফুলের পাপড়ির মতো ফোলা ফোলা দুটি ঠোঁটে সমৃদ্ধ পরমা সুন্দরী মুখমন্ডল অল্প হাসির আভায় আলোকিত|

কামিজের সাদা ওড়না গলায় ঝোলানো এবং বুকে ফুলে ওঠা দুটি উদ্ধত স্তনের প্রতিক স্পষ্ট, যে যুগল আরও প্রকট হয়ে উঠছে যখন কামিজের কাপড় দামাল, দুষ্ট হাওয়ায় শালিনীর স্ফীত বুকের সাথে লেপ্টে যাচ্ছে| দামাল হাওয়া তার সরু পাতলা কোমরের বিভঙ্গে ও সুঠাম নিতম্বের আদলেও অবাধ্যতা করছে| সুন্দরী ময়ূরীর ছন্দে ব্যাগটা এক কাঁধে ঝুলিয়ে কলেজ চত্বর পেরিয়ে আসে শালিনী| নিজের বাড়ির নির্জন রাস্তাটায় এসে হাঁটতে থাকে সে, এমন সময় তার নরম ফর্সা ডানহাত কেউ টেনে ধরে…

-“এই, কি হচ্ছে..”

-“শালু, কেমন আছো?”

শালিনী নিজের অপরূপ সুন্দর মুখে মুচকি হাসি নিয়ে তাকায় তার চলতি প্রেমিক বিমলের দিকে| বছর ছাব্বিশ-এর যুবা| লম্বা এবং সুদর্শন, যদিও অল্প শ্যামলা|

-“ভালো, আছি, এবার হাত ছাড়ো!”

-“উম, তোমার এত তাড়া কিসের? “বিমল হাতে টান দিয়ে কাছে টেনে নেয় শালিনীকে|

-“ইস ছাড়ো, বাপ্পী রাগ করবে দেরী হলে!”

-“তুমি নিশ্চই ঠাট্টা করছ? একুশ বছরেও বাপ্পিকে এত ভয়?”

শালিনী জোর করে হাত ছাড়িয়ে নেয়| মুখে এসে পরা চুল সরায় -“সবসময় ঠাট্টা করি না আমি!”

-“আচ্ছা ঠিক আছের বাবা, একটা চুমু তো দিয়ে যাও!”

-“উমমমা” শালিনী হেসে বিমলের গালে ছোট্ট একটি চুমু এঁকে দেয়|

-“ওখানে নয়, এখানে!” বিমল নিজের ঠোঁট দেখায়|

চোখ কটমটিয়ে ওঠে শালিনী, তারপর প্রায় না ছোঁয়ার মতো করে অল্প একটু নিজের ঠোঁট ওর ঠোঁটে ছুঁয়ে দিয়েই জোরে হেঁটে প্রস্থান করে| বিমল দীর্ঘশ্বাস ফেলে|

-“আজ কাজের মাসি এসেছিলো বাপ্পী?” কাঁধ থেকে ব্যাগ নামাতে নামাতে শালিনী সোফায় বসা বাহান্ন অতিক্রান্ত স্থূলকায় ব্যবসায়ী তার পিতা রজত মল্লিকের দিকে চায়|

-“হ্যাঁ ফুলতুসী!” হেসে বলেন তিনি নিজের খবরের কাগজ থেকে অল্প চোখ তুলে|

-“গুড, আমায় তাহলে কিছু করতে হবে না!” হেসে বলে শালিনী| “আমি হাত পা ধুয়ে এসে চা করে দিচ্ছি তোমায়|”

-“হম” মুচকি হাসি ছুঁড়ে দেন দুহিতাকে রজতবাবু কাগজ পড়তে পড়তে|

-“উমমমম,.. আজকে কি মেখেছিস রে দুষ্টু?”

-“হিহি কেন বাপ্পী?”

-“উম্ম কেমন একটা বেবি জনসন পাউডারের গন্ধ! উম খুব মিষ্টি!”

-“উম, হিহি, তোমার পছন্দ তো?”

-“হমমমম…”

শালিনী এখন কলেজের সাদা কামিজটি পরেই পিতার বিছানায় চিত্ হয়ে শায়িতা| তার ঘন কালো চুল লেপ্টে আছে তার মথার চারপাশে| মেয়ের নরম দেহের উপর দেহের একাংশের ভর রেখে শুয়ে আছেন উপুর হয়ে রজতবাবু| তাঁর দুটি বাহু আলগা-ভাবে জড়িয়ে আছে শালিনীকে, তাঁর মুখ এখন শালিনীর বুকের উপর সাদা কামিজে সটান ফুলে ওঠা দুটি উদ্ধত, সুডৌল স্তনের উপর| মুখ ডুবিয়ে দিয়েছেন তিনি সেখানে|

দুপুরবেলা, স্কুল-শিক্ষিকা স্ত্রী শঙ্করার অনুপস্থিতিতে তাঁর একুশ বছরের পরমা সুন্দরী ললনার বুকের এই দুটি প্রানবন্ত, উষ্ণ-নরমগ্রন্থি নিয়ে খেলা করা তাঁর খুব প্রিয় অবসর বিনোদন| মুখের নিচে সাদা কামিজে স্ফীত সে দুটি ফলে পরপর তিনি সস্নেহে চুমু খান একটির পর একটি “প্চুঃ,..প্চুঃ,..

আজকে কলেজে কত ক্লাস হয়েছে ফুলতুসির?”-“

বাপ্পী, কতবার বলেছিল ওই নামে আর ডাকবেনা! আমি আর ছোট্ট খুকিটি নেই!” পিতার বাহু বন্ধনে আদূরে অভিযোগ করে শালিনী| পিতার নিচে কাতরে ওঠে|

-“উমমম” রজতবাবু নিবিড়ভাবে নিজের মুখ মেয়ের নরম দুটি স্তনে দাবিয়ে দিয়ে কামিজের উপর দিয়ে সে দুটির নরম মাংস মুখ-চিবুক দিয়ে ডলতে ডলতে বলেন “তুমি খুব বড় হয়ে গেছ না? খুব বড় হয়েছে!”

-“উহ.. লাগে বাপ্পি! হিহিহি! “খিলখিলিয়ে হেসে ওঠে শালিনী নিজের অপরূপ সুন্দর মুখে সৌন্দর্যের ঝর্ণা তুলে, “ইশ! তোমার গাল কি খরখড়ে! জামার উপর দিয়ে তোমার দাড়ি গায়ে ফুটছে তো!”

-“উম, তো কি হয়েছে! উম্ম..প্চুম.. উম..”

নাছোর বান্দার মতো মুখের নিচে মেয়ের সুডৌল স্তনদুটি চুমুতে চুমুতে ভরিয়ে দিতে থাকেন রজতবাবু| তিনি খুব ভালো করেই জানেন এই দুটি তাঁর দুর্বলতা| দুটি নরম পর্বত টিলার মাঝে মুখ গুঁজে তিনি নিবিড়ভাবে শালিনীর বুকের সুমিষ্ট ঘ্রান নেন..”উমমমম, তুমি কিচ্ছুটি বড় হওনি! শুধু তোমার এই আম দুটো পাকা হয়েছে!” বলে তিনি শালিনীর ডান স্তন-এর নরম তুলতুলে শরীর মুখ দিয়ে চাপেন, কামিজসহ রগড়াতে থাকেন পুষ্ট নরম মাংস| তারপর ওর বাম স্তন| মুখ ঘষে ঘষে ওর বুকের উপর দলাই মলাই করতে থাকেন সাদা কামিজে আবদ্ধ সমুন্নত স্তনজোড়া|

-“আঁউ.. উফ কি যে করনা তুমি!”শালিনী পিঠ বেঁকিয়ে বুক চিতিয়ে ওঠে তার বুকের উদ্ধত গ্রন্থি দুটো নিয়ে পিতার এহেন ছেলে মানুষীর চোটে, আদূরে আওয়াজ বেরোয় তার গলা দিয়ে| ঠোঁট কামড়ে দুষ্টু হেসে ওঠে সে| পিতার সাথে এই অন্তরঙ্গ খুনসুটির সময়টা তার খুব প্রিয়| যত রকম অন্যায় আবদার করে নিতে পারে সে এই সময় আর পিতা কিছুতেই না করতে পারেন না| তাই কলেজ থেকে ফিরেই প্রায় প্রত্যেক দিনেই তার রুটিন হচ্ছে তাড়াতাড়ি হাত-পা ধুয়ে নিজের রূপের ডালি নিয়ে ও আকর্ষনীয়, উদ্ধত স্তন জোড়ার আবেদনে পিতাকে প্রলুব্ধ করে বিছানায় এনে ফেলা…তারপরের কাজ অতি সহজ, শুধু সে, তার দুটি নরম উত্তেজক স্তন, তার পিতা ও তার আবদার|

সে কথা মাথায় রেখেই কলেজের চোখ ধাঁধানো সুন্দরী শালিনী, নিজের পিতার বিছানায় ওঁর আলিঙ্গনে আদূরে মেয়ের মতো দুষ্টুমি করে কাতরে উঠে বলে “বাপ্পী, একটা হীরের নেকলেস কিনে দাওনা কাল!”

-“কেন” মুখের নিচে মেয়ের সাদা কামিজে টানটান ফুলে ওঠা ডান স্তনটির উপর আলতো কামড়ান রজতবাবু “কি দরকার আমার মেয়ের হীরের নেকলেস দিয়ে?”

-“উমমম” পিতার মুখের নিচে আকর্ষনীয় উন্নত বুক ঠেলে হাসি মুখে ভাবে শালিনী কিভাবে নেকলেসটি সারা ক্লাস এবং তার প্রেমিককে দেখিয়ে সে গর্বলাভ করবে” দাও নাআআআ! প্লিইইজ!”

-“উন্হুঃ!”

-“প্লিইইঈঈঈঈঈইজ!” দুহাতে পিতার মুখটা বুক থেকে তুলে ধরে শালিনী, ওকে দেখে চমত্কৃত হন রজত মল্লিক| কি সুন্দর বাচ্চা মেয়ের মতো ঠোঁট দুটো ফুলিয়ে আবদার করছে শালিনী, যেকোনো পুরুষের হৃদয় কাঁপিয়ে দিতে বাধ্য ওর এই মুখভঙ্গি!”উম্ম” তিনি ওর স্ফীত ওষ্ঠা ধরে ঠোঁট চেপে চুমু খান, তারপর ওর চিবুকে, তারপর ওর সুগন্ধি গলায় মুখ ডুবিয়ে| তারপর আবার মুখ নামিয়ে আনেন তিনি ওর বুকের উপর খাড়া-খাড়া দুটি সাদা টিলার উপর… নিবিড় ভাবে মুখ চেপে দাবান তিনি নরম ফল দুটির উপরে, আরামে চোখ বুজে আসে তাঁর, গলা দিয়ে ঘরঘর শব্দ বেরোয় মেয়ের টগবগে নরম স্তনের উত্তাপে ওওমে|

-“আঃ..বাপ্পী তুমি না কথা শোনো না!” শালিনী ইশত কঁকিয়ে ওঠে হেসে ফেলে, পিতার মুখের নিবিড় চাপে তার কামিজের গলার বাইরে দুধ সাদা দুটি নরম বুদবুদের মতো উথলে উঠছে প্রগল্ভা স্তনজোড়া… “বলো না দেবে কিনা! আর কিন্তু চাইবো না আমি!”

 -“উমমম!” মুখের তলায় মেয়ের উত্তপ্ত স্তনের নরম, উষ্ণচাপ নিতে নিতে গুমরিয়ে ওঠেন রজতবাবু, তাঁর মুখের নিচে যেন টলমল করছে নরমত্বের সাগর… “আঃ, ঠিকাছে দেব, কালকেই কিনে দেব! হয়েছে? উম্ম!…. উমমম!” নরম খাড়া-খাড়া স্তন দুটিতে মুখ দাবিয়ে দাবিয়ে চুমু খান তিনি|

-“উম, থ্যাঙ্কিউ বাপ্পী! “পিতার গলা জড়িয়ে ধরে শালিনী ওঁর মাথার উপরে ঘন চুম্বন করে| তারপর ওঁর আলিঙ্গন ছাড়িয়ে উঠে বসে বিছানায়|

-“বাঃ! কাজ ফুরিয়ে যেতেই অমনি উঠে পরা!” সবলে মেয়ের নরম শরীরটা দু-বাহুতে জাঁকিয়ে ধরেন রজত মল্লিক নিজে উঠে বসে|

-“উফ বাপ্পী, আমার বুকে ব্যথা করছে, অনেকক্ষণ তো হলো! “পিতার বাহু বন্ধনে গুমরে ওঠে শালিনী|

-“হমম,..” হেসে শালিনীর পাখির মতো নরম তনুটি আরও চেপে ধরেন রজতবাবু| “বায়নার আগেতো ব্যথা করছিলো না!”

-“হিহি” দুষ্টু হাসে শালিনী|

-“মমঃ!” আদর করে মেয়ের গালে চুমু খান রজতবাবু| “ঠিক আছে যা! গিজার চালিয়ে দেবো?”

-“উম হ্যা..” শালিনী পিতার ঠোঁটে দুটো চুম্বন করে”একটু পরেই সন্ধ্যেবেলা আমাকে তো পাচ্ছই বাপ্পী, বলো আজকে কি পরব তোমার জন্য!?”

-“উম্ম” মেয়ের এমন আদূরে প্রশ্নে যৌন ঝিলিক খেলে যায় রজতবাবুর শরীরে …”শাড়ি আর লাল ব্লাউজ!”

পিতার দিকে টেরিয়ে তাকিয়ে আকর্ষনীয়ভাবে হাসে তাঁর সুন্দরী কন্যা” ঠিক আছে তাই পরব! এখন ছাড়ো!”

-“উমমমম” শালিনীর নরম ফুলেল ঠোঁট দুটি শেষবার চুম্বনে পিষ্ট করে ছাড়েন ওকে ওর পিতা|

বিকেলবেলা প্রায় যখন গোধুলির আলো এসে সিন্দুর মাখাচ্ছে আকাশকে, তখন রজতবাবু কন্যার সন্ধান করতে করতে ঠাকুর ঘরে এসে পৌঁছান| শালিনী তাঁর আবদার মতই লাল চাপা ব্লাউজ ও একই রঙের পাতলা ফিনফিনে শাড়ি পরে ঠাকুরের ছবির সামনে দাঁড়িয়ে ধুপ দিচ্ছিল| পিছন থেকে ওর শরীরটি এত আকর্ষনীয় লাগছে যে রজতবাবুর বুক চলকে ওঠে! পাতলা ফিনফিনে, হাওয়ায় ওর শাড়ির আঁচল উড়ছে বেহিসেবি ভাবে| মাথায় লম্বা বিনুনি করেছে ও, যা ওর পিঠ অবধি এসে পড়েছে| ব্লাউজের উপরে ওর সুঠাম পিঠের খাঁজ ও নিচে ফর্সা সরু কোমরের সুডৌল ভাঁজের আকর্ষণ নেশাগ্রস্ত করে তোলে রজতবাবুকে| কি অপূর্ব ভঙ্গিমায় ওর নিতম্বটি ফুলে রয়েছে, উল্টানো কলসের মতো| পাজামার নিচে অন্তর্বাসহীন মুক্ত এবংশক্ত হয়ে ওঠা পুরুষাঙ্গ টনটন করে ওঠে রজতবাবুর, তাঁর জাগ্রত লিঙ্গের প্রভাবে পাজামার সামনের দিকটি তাঁবুর মতো উঁচু হয়ে উঠেছে| তিনি এবার এগিয়ে এসে দুহিতার পিছনে ঘন হন| নিজের ফুলে ওঠা তাঁবু ওর পাতলা লাল শাড়িতে মোড়া উঁচু নিতম্বের মাঝে দাবিয়ে দিয়ে প্রশমিত করেন, ওর নরম তুলতুলে নিতম্বের উত্তপ্ত আরামে যেন অস্ত্রের মতই চেপে বসে তাঁর শক্ত বেপরোয়া পুরুষাঙ্গ| তিনি বাঁহাতে ওর সরু কোমর বেষ্টন করে নিয়ে ডান হাতে ওর পিঠ থেকে বিনুনি তুলে নাকে চেপে সুঘ্রাণ নেন-

“উমমমমম” শালিনী ধুপের ধোঁয়া দিতে দিতে নিতম্বে পিতার শক্ত পুরুষাঙ্গের চাপ পেয়ে হাসিমুখে নিজের কোমরের উপর রাখা ওঁর লোমশ হাতে নিজের নরম ফর্সা বাম হাত রাখে-

“কেমন ঘুমালে বাপ্পী?” মিষ্ট কন্ঠে শুধায় সে|

-“উমমম খুব ভালো, তোকে কি সুন্দরী লাগছে ফুলতুসী!”তিনি এবার শালিনীর কাঁধের উপর দিয়ে লক্ষ্য করেন ওর শাড়ির আঁচল ঠেলে ফুলে ফুলে ওঠা দুই অহংকারী স্তন| তাঁর দুহাত প্রথমে নেমে আসে মেয়ের নর্তকী-কোমরে| তারপর সেখান থেকে উঠে ওর বগলের তলা দিয়ে এসে শাড়ি-ব্লাউজসহ ওর দুই সুডৌল স্তন দুহাতের থাবায় তিনি জাঁকিয়ে ধরেন, তারপর ধীরে ধীরে মুষ্টি পেষণ করতে শুরু করেন সে দুটি… যেন নরম দুটি স্পঞ্জের বল টিপছেন তিনি! আরামে দীর্ঘশ্বাস পড়ে তাঁর|

-“ইস বাপ্পী, ঠাকুর ঘরে তুমি কি যে শুরু করেছে!” তাঁর মেয়ে আদূরে অভিযোগ জানায়, কিন্তু তাঁর কাজে একটুও বাধা দেয় না| ফুল দিতে থাকে সে ছবিতে, তারপর মালা পরায়|

-“উমমম” দুহাতে টগবগ করছে যেন রজতবাবুর দুটি জীবন্ত কবুতরী! নিবিড়ভাবে মুঠো পাকান তিনি নরম গ্রন্থিদুটি, চটকান শাড়ি-ব্লাউজ সহ নরম মাংস-“তোমার ঠাকুর তো আমিই সোনামণি! উম্ম.. আমাকে ফুল দাও!” তিনি মেয়ের ফর্সা সুগন্ধি ঘাড়ে ঠোঁট বুলিয়ে চুমু খান|

-“কি যে বলো না বাপ্পী!” তাঁর মেয়ে ইশত কাতরে উঠে হেসে ফেলে, বুকটা একটু ঠেলে ওঠে|

রজতবাবু শালিনীর দুটি উদ্ধত স্তনের তলদেশ বেয়ে তালু ঘষে তুলে স্তন দুটি মুঠো পাকিয়ে নিয়ে শাড়ি ব্লাউজসহ তাদের স্বাভাবিক অবস্থান থেকে উপরে তুলে নিয়ে পিষ্ট করেন নরম ফল দুটি দু-থাবায় “উমমমম”

-“উঃ!” নরম স্বরে কঁকিয়ে ওঠে শালিনী, তবে তার সুচারু হাত নিপুণভাবেই গোছায় পূজা-সংক্রান্ত দ্রব্যাদি” উম্ম বাপ্পী এখন কিছু খাবে?”

-“উমমম, খাবো| তার আগে তোমায় খাওয়াবো!” রজত মল্লিক তাঁর দুহিতার কানের লতিতে চুমু খান|

-“উম্ম!” শালিনী হেসে এবার পিতার হাত ছাড়িয়ে ওঁর মুখোমুখি হয়| ঠোঁট বেঁকিয়ে একটি অসাধারণ আকর্ষনীয় হাসি ও লাস্যভরা ছাউনি পিতাকে দিয়ে ওঁর বুকে নরম বাম হাতের তালু দিয়ে ঠেলা মারে “তুমি না খুব অসভ্য!”

-“উম্ম” হেসে রজতবাবু কন্যার চিবুক ডান হাতে তুলে নেড়ে দেন, তারপর তা নামিয়ে ওর স্ফীত অহংকারী বুকের উপর ছিনিমিনি খেলতে থাকা পাতলা ফিনফিনে শাড়ির আঁচলের উপর দিয়ে ওর উদ্ধত স্তন দুটি পরপর মুঠো পাকিয়ে সজোরে পেষণ করেন “আর তোমায় এত রূপসী বেহেস্তের হুরী হতে কে বলেছে উম্ম?!”

শালিনী লজ্জায় মুখ নামিয়ে নেয় একপাশে| পিতার বাহুতে দূর্বল কিল মারে…

-“উমমম” মেয়ের পাতলা কোমর এবার আলগাভাবে মালার মতো জড়ান রজতবাবু “চলো এবার তুমি এবার বাপ্পির নেঙ্কুতোমার অমন সুন্দরী মুখে ভরে চুষবে!”

-“উমমম” শালিনী ঠোঁট টিপে হাসে “কত সখ!”

-“আর কদিন ধরে তুমি পুরোটা খাচ্ছোনা! আজ না খেলে মুখ থেকে বার করতে দেবনা! কেমন?”তিনি হেসে শালিনীর ঠোঁটে আলতো করে তর্জনী ছোঁয়ান|

-“উ হুঃ” শালিনী মুচকি হেসে দু-দিকে মাথা নাড়ে|

-“দুষ্টু!” তিনি কোমরের বেড়ে চাপ দিয়ে মেয়েকে ঘনিষ্ঠ করেন| যাতে তাঁর কঠিন, উত্তপ্ত পুরুষাঙ্গ ওর উদরের উপর চেপে বসে “খুব নেকামো শিখেছে আমার ফাজিল মেয়ে! মারব কিন্তু!”

-“হিহিহি..” হেসে ওঠে শালিনী, অত্যন্ত আকর্ষনীয় ভঙ্গিতে ঠোঁট কামড়ে ধরে পিতার দিকে টেরিয়ে তাকিয়ে| তারপর বলে “বাপ্পী, তোমার ওটা আমি চুষবো, কিন্তু একটা শর্তে!”

-“কি?”

-“আমাকে বিছানায় নিয়ে পুরো একঘন্টা টানা আদর করতে হবে!”

-“হা হা নো প্রবলেম ফুলতুসী!”

-“আর আমাকে একটা জাগুয়ার কিনে দেবে পরে!”

-“এই যে বললি একটা শর্ত! দুষ্টু মেয়ে!”

-“হিহিহি” শালিনী আবার মন মাতানো হাসি হাসে|

-“উমমম” মেয়ের ঠোঁটে সজোরে চুম্বন করেন রজতবাবু “নাও শুরু করো!”

-“এখানেই? মা এসে পড়বে কিন্তু!” শালিনী পিতার দিকে চোখ বেঁকিয়ে চায় মুখে আকর্ষনীয় হাসি নিয়ে|

-“হ্যাঁ, মনে করো ঠাকুর পুজো করছো! হাহা,… আর তোমার মা আসতে এখনো এক-ঘন্টা দেরি আছে! তা আমি জানিনা ভেবেছো?”

-“উম! দুষ্টু!” শালিনী মুখ টিপে হেসে পিতাকে বকে, ওই চেয়ারটায় গিয়ে বস!”

-“উমমম”-“উমমমহমমমম..”

-“উম্ম,.. আঃ,… এই দুষ্টু শালিনী!”

-“উম?…”

-“কি আরাম লাগছে আঃ..”

-“উমমম…. হিহিহি.. অউমমমম!”

-“উফ.. তোর মুখের ভেতরটা কি নরম আর গরম!আহঃ…”

-“হমমমম..”

-“এই শালিনী!”

-“উম!..”

-“তোর কাল কলেজ আছে?”

-“হম..”

-“আহঃ.. মুখের ভিতর আরেকটু ঢোকা, আরেকটু…আঃ.. হ্যাঁ!আহহহহহহঃ!”

-“অঘ্মমম…মমঃ”

-“আচ্ছা, তোর কলেজে রিসেন্ট কি যেন আছে বললি?”

-“উমমমমহঃ …. ফ্রেশার্স বাপ্পী, উমমম,.. খুব বড় করে হবে..”

-“আঃ,.. মুন্ডুটা তোর অমন গোলাপী জিভটা দিয়ে ভালো করে চাট না রূপসী! মাঝখানের খাঁজটা,… আহাঃ… হ্যাঁ, এমন চাটতে চাটতে বল!”

-“হিহিহি,.. উম, ইশশ বাপ্পী এখান দিয়ে তুমি মুতু করোতো! এলললল…”

-“আহাহ.. আহঃ.. বল না মামনি!”

-“উম… কেন তোমার এত জানার ইচ্ছা? তুমি যাবে নাকি? হিহি… উমমমম..”

-“না মামনি, আমার মতো এমন বুড়ো মানুষকে কি মানায়!..আঃ আহহাহ..!”

-“ইস বাপ্পী, তোমার ফুটোটা দিয়ে এক ফোঁটা সাদা মতো কি বেরিয়ে এলো! এমা!..”

-“আঃ,… খেয়ে নে মামনি, চোষ ওটা ভালো করে মুখে নিয়ে আবার! আহ্হ্ম্ম্ম্ম!”

-“উমমম..”

-“আমার দিকে তাকা রূপসী! অমন সুন্দর করে,… হ্যাঁ, এবার মুখে ঢোকা,.. যতটা পারিস!”

-“ঔমমমমমম….মঃ”

-“আঃ.. আরো!”

-“অহম… অগ্খখ..”

-“আহঃ ভালো করে চুষে দে না!উমমম… আহঃ আহঃ ঠিক এমন করে,আঃ ..”

-“মমমম… হমমমম”

-“আঃ… উম্ম… কি আরাম! আঃ!”

-“ম্ম্ম্হ.. মহমমমম ..”

-“মমম,… শালিনী?”

-“উমমমম..”

-“তোর ফ্রেশার্স-এ কোনো ব্যান্ড বা গানবাজনার দল আসবে না?”

-“মমমম.. আঃ বাপ্পী, তোমার এত বড়ো নেঙ্কুটা মুখে নিয়ে একই সাথে তোমার সব কথার জবাব কিভাবে দেবো বলত?”

-“উম্ম.. হাহা, চেষ্টা কর না..তুই তো সবই পারিস মামনি!”

-“হিহি যাতা! বাপ্পী হয় আদর খাও, নয় গল্প করো! যে কোনো একটা..”

-“আচ্ছা ঠিক আছে বাবা, দুষ্টু মেয়ে আমার! ভালো করে মুখে পুরে চোষো বাপির নেঙ্কু.. তার আগে বিনুনিটা সামনে এলিয়ে দাও, বুকের উপর…. দেখতে ভালো লাগবে!”

-“উম্ম, নাও হয়েছে? বাপ্পী তোমার আবদার দিন দিন বাড়ছে!ঔমমমমম ..”

-“আহহহহহহহহহহহহহঃ…. কি সুন্দর চুষিস তুই, আহা… যেন জল তরঙ্গ বাজাস বাপের শরীরে.. আহ্হঃ”

-“হমমউমমমমঃ…”

-“আঃ..”

-“মমমমম…”

-“উফ রূপসী পরী, তোকে কি সুন্দর দেখাচ্ছে বাপের নেঙ্কু মুখে ঢোকানো অবস্থায়, যেন অপ্সরা!বলিউডের হিরোইনরাও হার মেনে যাবে, এত সুন্দরী হলি কি করে তুই? অমন টানা টানা দুটো চোখ, টুসটুসে দুটো ঠোঁট, পান পাতার মতো মুখ,ছোট্ট চিবুক,.. আহ্হাহাহ…”

-“উম্ম্হ্ম্ম!”

-“কেমন খেতে বাপ্পির লাঠি?”

-“মউমমম..”

-“হমমম…. আহাহঃ..”

-“আহ সুন্দরী, আমি আসছি, …..আআহ..আআআআআআহহহহহহহহহহহহহঃ…!!”

-“ঔম্হ!!.. অঃমম.. অগলগ … অঘ্ঘ..”

-“আঃ!… আঃ!… আহ্হঃ!..”

-“অগ্ম্ম্ঘ.. অহম্ম্মঃ ..ম্ম্হঃ .. গলগ ..”

-“আঘ্ঘঘগঘ…আহ্হাআআঃ..!”

-“গলপ.. উমম্হঃ…. হম”

-“আআআআহহহহহহহহমমমমমম…”

-“অম্মমমমমঃ… উমমমমম..”

-“আহহহহহ রূপসী ফুলটুসি!….উম্ম”

-“অম্ম্মঃ … উঃ বাপ্পী, আমার মুখে যেন হামানদিস্তাচালালে!”

-“উম্ম পুরোটা খেয়েছো?”

-“হ্যাঁ! উম! আমার পেট ভরে গেছে! কতটা করলে… উফফ!”

-“হাহাহা… বলেছিলাম না তোমায় খাওয়াবো?”

-“উমমম.. হিহি.”

-“উম, ঠোঁটের চার পাশে লেগে আছে, আর বাপ্পির নুঙ্কুতেও লেগে আছে অনেকটা, ওগুলো ভালো করে চেটে খেয়ে নাও!..”

-“উম্ম .. খাচ্ছি তোওও … উমমম”

-“উম্মম লক্ষ্মী মেয়ে..”২

কয়েকদিন পর সন্ধ্যে সাতটা

শালিনী হাসিমুখে নিজেকে আয়নায় দেখে| নিজের অপূর্ব সুন্দর উজ্জ্বল মুখশ্রী দিকে তাকিয়ে তার নিজের সৌন্দর্যে যেন নিজেই সে বিভোর হয় নতুন করে আবার! তার ঘন কালো টানা টানা দুটি চোখ, তীক্ষ্ণ উদ্ধত নাসা, নরম হালকা গোলাপী পাপড়িরনেয় দুটি ঠোঁট, সুডৌল ছোট্ট চিবুক, ফর্সা মরাল গ্রীবা, সবই যেন অত্যন্ত বেশি করে সৌন্দর্যে মন্ডিত| মাথার চুলের একটি লক তার মুখের একপাশে পরে তার সৌন্দর্যকে একটু রহস্যময়ী লাস্য এনে দিয়েছে| তবে শালিনীর মুখমন্ডলের সব থেকে মারাত্মক আকর্ষনীয় স্থান তার ভ্রূযুগল| নিখুঁত, বাঁকা একটু উপর দিকে আঁচড় কেটে ওঠা সেই ভ্রু-দুটি যেন তার সমস্ত সৌন্দর্যে এক উদ্ধত অশনিসংকেত জাহির করছে, যা দেখে যে কোনো যোগ্য প্রতিদ্বন্দিও দু-পা পিছিয়ে আসতে বাধ্য হবে!

মুচকি হেসে শালিনী আয়নার সামনে চেয়ারে বসতে বসতে লাল সালোয়ার-কামিজে নিজের একুশ বছরের নাচ শেখা ছিপছিপে তনুটিকে মনে মনে তারিফ করে| তার শরীরের গঠন আওয়ার গ্লাসের মতন| জিন্স টপ পরলে তা একদম পরিস্ফুট হয়ে ওঠে| গত দু বছর ধরেই সে ধরে রেখেছে নিজের ৩৪বি-২৪-৩৬গঠনটি| কিন্তু এখন এই চাপা লাল সালোয়ার কামিজেও তার অপরূপ আকর্ষনীয় তনুর আঁক-বাঁক বেশ স্পষ্ট| মুখ টিপে হাসে সে আয়নায়| বুকের উপর তার কামিজ টানটান করে দুটি পাকা কমলালেবুর আদলস্পষ্ট| তার এই মনকারা উদ্ধত স্তনজোড়া আবাল-বৃদ্ধ সকলেরই বুকে তীর বেঁধে সর্বত্র| এর জন্য তাকে কম অসুবিধায় পড়তে হয়নি! যেকোনো পোশাকেই তার স্তন দুটি অত্যন্ত আকর্ষনীয় ভঙ্গিতে ফুলে ফুলেউঁচু-উঁচু হয়ে থাকে| যেন তার শরীর থেকে কিছুটা এগিয়ে সামনের দিকে তাকিয়ে থাকবেই তারা অপার অহংকারে| তার এমন খাড়া-খাড়া স্তন যুগলের মোহিনী রূপের তীরে বিদ্ধ হয়ে অনেকেই তাকিয়ে থাকে, এবং ভেতরে জ্বলে পুরে মরে| এতে শালিনী মজা পেলেও অস্বস্তিও বই তার কম হয়না! বিশেষ করে যখন কোচিং-এ পড়বার সময় এবং কলেজে ফার্স্ট বেন্চ-এ বসলে সে অনুভব করে স্যার এবং অধ্যাপকদের দৃষ্টি ঢুকে পড়তে চায় তার কামিজ অথবা টি-শার্ট-এর গলার ভিতর দিয়ে… |

যাই হোক, শালিনী একরত্তি কোমর একটু বেঁকিয়ে বসে তার মৃণাল বাহুলতা বাড়ায় ড্রেসিং-টেবলের দিকে| মাথার পিঠ অবধি ঘন কালো চুল একহাতে জড়ো করে| সমস্ত প্রসাধন শেষে শালিনী এসে হাসিমুখে রজতবাবুর ভেজানো দরজায় টোকা মারে|

“ভেতরে আয়!” ঘরের ভিতর থেকে গুরু গম্ভীর কন্ঠস্বর পাওয়া যায়|

শালিনী হাসিমুখে এসে দরজা ঠেলে ঢোকে| তার পিতা বিছানার উপর আধশোয়া তাকিয়ায় হেলান দিয়ে| তাঁর অবস্থা বেশ আলুথালু| পরনে স্যান্ডো-গেঞ্জি ও একটি জাঙ্গিয়া| তাঁর স্থুল শরীরটি হাস্যকর লাগছে এই পোশাকে| তাঁর বুকের কাঁচা-পাকা লোম স্যান্ডো-গেঞ্জির বাইরে বেরিয়ে কুঁচকিয়ে আছে| দুটি বিশাল লোমশ থাই-সহ দুটি পা পুরোটাই নগ্ন| এবং সে-দুটি তিনি ছড়িয়ে রেখেছেন বিছানার উপর দু-দিকে| জাঙ্গিয়া আবৃত নিজের শিশ্নদেশ উন্মুক্ত করে রেখে| তাঁর বাঁ-হাতে ধরা একটি মদের বোতল| “আয়, সোনা,কাছে এসে বস!” তিনি ডাকেন শালিনীকে|

শালিনী মুচকি হেসে পিতার দিকে এগিয়ে গিয়ে প্রথমেই ওঁর হাত থেকে মদের বোতল নিয়ে পাশের টেবিলে রাখে| তারপর পা জড়ো করে ঝুলিয়ে রেখে বসে ওঁর ছড়ানো দু-পায়ের ফাঁকে| “কি হয়েছে?”সে মুখ টিপে হেসে শুধায় পিতাকে| নিজের ডান হাতটি বাড়িয়ে এনে রাখে ওঁর সাদা গেঞ্জিতে ফুলে ওঠা বিশাল উদরের নিচে ওঁর শিশ্নদেশের উপর জাঙ্গিয়ার উপর দিয়ে সরাসরি| হাত বুলিয়ে আদর করতে থাকে সে পিতাকে মুখে দুষ্টুমি ভরা হাসি নিয়ে ওঁর মুখপানে চেয়ে|

-‘উমমম,,..” আরামে মদের গন্ধযুক্ত শ্বাস ছেরে হেসে আদুরে ভাবে তিনি ভারী গলায় বলেন “কি আবার হবে, তোমাকে ডাকতে আজকাল আবার কারণ লাগে নাকি রূপসী?

-“হিহি..” শালিনী তার অনিন্দ্য সুন্দর সাজানো দন্তপঙ্গক্তি উন্মুক্ত করে হাসে তার চাঁপার কলির মতো আঙ্গুলগুলি ও নরম তালুর তলায় পিতার জান্গিয়ায় আবদ্ধ পুরুষাঙ্গের নিমেষের মধ্যে শক্ত তাগড়াই হয়ে উঠে ফুঁসতে থাকা অনুভব করতে করতে, জাঙ্গিয়া ঠেলে তাঁবুর মতো উঁচু হয়ে ওঠে অংশটি| সে আদর করে তাঁবুটির আপাঙ্গ তালু বুলায়, জেগে খাড়া হয়ে ওঠা পুরুষাঙ্গটির ফোলা মস্তকটি ধরে অল্প নেড়ে দেয় – “উমমম, খালি আদর খাবার ইচ্ছা না?”

-“হমম, ” শ্বাস ছেড়ে রজতবাবু পাশের টেবিল থেকে মদের বোতলটা নিতে যান, কিন্তু শালিনী ডান হাতে জাঙ্গিয়াসহ ওঁর পুরুষদন্ডটি মুঠো করে ধরে বাঁ-হাতে ওঁকে বাধা দেয় মুখে তেরছা হাসি নিয়ে”নাআআ…!!”

-“আঃ.. দুষ্টু” কন্যার নরম হাতের মুঠোয় দপ-দপ করতে থাকা নিজের শক্ত লি ঙ্গঅনুভব করতে করতে হাত নামান রজতবাবু| “কি হবে রে ছুটকি বাপ্পিকে মদ খেতে না দিয়ে?”তিনি একটু ঝুঁকে ওর থুত নিধরে নেড়ে দেন “আ়া?”

-“উম্ম… হিহি..” মুচকি হাসতে হাসতে শালিনী হাতের মুঠোর মধ্যে আদর করে পিতার শক্ত যৌনদণ্ডটিকে, বুড়ো-আঙ্গুলের নখ দিয়ে অল্প আঁচড় কাটে লিঙ্গটির গায়ে জাঙ্গিয়ার উপর দিয়ে, নিজের অপর হাতটি ওঁর বুকের উপর এনে বুকের কাঁচা-পাকা চুলগুলি নিয়ে খেলা করতে করতে বলে ” না, আমি তা হতে দিতে পারিনা বাপ্পী, তুমি জানো|”

-“উমমম..” রজতবাবু পা-দুটো আরো ছড়িয়ে দেন ওর হাতের স্পর্শ সুখ আরও উপভোগ করার জন্য| কিছু উত্তর করেন না তিনি মেয়ের এই কোথায়|

কিছুক্ষণ এভাবে কাটতে থাকে| শালিনী হাসি মুখে একমনে পিতার জান্গিয়ায় আবদ্ধ শক্ত তাগড়াই পুরুষাঙ্গটি হাতে নিয়ে খেলা করে, মালিশ করে, আদর করে ওঁকে আরাম দিচ্ছে| রজতবাবু একইভাবে পা ছড়িয়ে বসে কন্যার আদর খাচ্ছেন| ওঁর ডান হাতটি এবার উঠে খেলছে শালিনীর কাঁধে এসে পরা চুল নিয়ে, ওর বাহুর উপর ঘোরাঘুরি করছে| শালিনীর প্রত্যেকটা স্পর্শে যেন জাদু! ওঁর শরীরে রোমাঞ্চ এনে দিচ্ছে! ও জানে তাঁর পুরুষাঙ্গের কোন কোন অংশ সবথেকে স্পর্শকাতর, পুলকপ্রদায়ী| দু-পায়ের ফাঁকে যেন অপূর্ব রোমাঞ্চকর সুখের জগত তাঁর এখন! তিনি চাইছেন জাঙ্গিয়া খুলে নিজের নগ্ন উত্তপ্ত পুরুষাঙ্গে ওর নরম চপল আঙ্গুলের সুখ স্পর্শ নিতে, কিন্তু পুরো ব্যাপারটাই তিনি কন্যার হাতে ছেড়ে দিয়েছেন| সম্পুর্ন সমর্পিত তিনি তাঁর কন্যার হাতে|

-“তা বাপ্পি,..” পিতার জান্গিয়া ঠেলে ফুলে ফেঁপে ওঠা শিশ্নদেশে নিজের সুচারু আঙ্গুলগুলির মনোরম খেলায় তাঁকে আরাম দিতে দিতে মিষ্টি হেসে এবার শালিনী ওঁর পানে চেয়ে শুধায় “তুমি জানতে চাইলে না তোমার মেয়ে আজ এত সেজেগুজে কোথায় যাচ্ছে?”

-“তাই তো!..” যেন সম্বিত ফেরে রজতবাবুর, গায়ে সিরসিরানি তোলা যৌন সুখের আরাম নিতে নিতে তিনি হেসে শালিনীর গাল টিপে দেন.. “সত্যি তো! কোথায় যাচ্ছ রূপসী? এই অবেলা?”

-“উম্ম,” যেন দুরন্তসারমেয়কে পোষ মানাচ্ছে এমনভাবে শালিনী পিতার শক্ত, উত্তপ্ত যৌনাঙ্গটিকে জাঙ্গিয়ার উপর দিয়ে আদর করতে করতে ওঁর পানে দুষ্টুমি ভরা হাসি মুখে তাকিয়ে ঠোঁট কাটে, “প্রফেসর সামন্তের বাড়ি!”

“সে কি?’” দুহিতার কথায় রজতবাবুর কপালে দুশ্চিন্তার ভাঁজ পরে, “ওখুব খতরনক লোক! ওর কাছে যেতে হবে না!”

-“ধ্যাত, কি যে বলো নাবা প্পি!” শালিনী হেসে পিতার অন্ডকোষ দুটি ঘাঁটে, জান্গিয়ায় শক্ত হয়ে ফুলে ওঠা, দপদপ করতে থাকা ওঁর উত্তপ্ত পুরুষাঙ্গটির সর্বত্র নিজের পাঁচ আঙ্গুলের নোখ দিয়ে আলতো করে আঁচড় কেটে কেটে, চুলকে দিয়ে দিয়ে স্নেহের সাথে আদর করতে করতে বলে “আমি যথেষ্ট বড় হয়েছি!” সে ওঁর লিঙ্গ মস্তকটি ধরে আদর করে চাপ দেয়, তারপর জান্গিয়ায় ফুলে ওঠা ওঁর সমস্ত শিশ্নদেশ নিজের নরম, উষ্ণ হাতের থাবায় মুঠো পাকিয়ে ধরে, তারপর সেটি ধীরে ধীরে মুঠো পাকিয়ে পাকিয়ে চাপদিতে দিতে পিতার দিকে তাকিয়ে তেরছা হেসে বলে” তাছারা তুমিই তো বলেছে, পড়াশোনার জন্য সব রকম সুযোগ খতিয়ে দেখতে! তাই না?”

-“আহ্হ্ম্ম্মম…” শ্বাস ছাড়েন রজতবাবু, ভীষণ আরাম দিচ্ছে তাঁকে শালিনী| ওর মুঠোর প্রত্যেকটি চাপে যেন আরামের শিহরণ খেলে যাচ্ছে তাঁর শরীরে, “উম, সবই বুঝি..কিন্তু,..” তিনি কথা মুখে রেখে দেন|

শালিনী নিঃশব্দে হাসে পিতার অবস্থা দেখে| অধ্যাপক সামন্ত এবং তার পিতা যেন জন্মকাল থেকে শত্রু| এমনি সময় হলে তিনি শালিনীর এহেন সংকল্প এক কথায় না করে দিতেন গর্জিয়ে উঠে, দ্বিতীয় কোনো প্রস্তাবও শুনতে চাইতেন না! কিন্তু এখন, এমন রাশভারী, রাগী মানুষটির একটি বিশেষ অঙ্গ মুঠো করে ধরে যেন তাঁকে একেবারে নিরুপায় ও জব্দ করে ফেলেছে সে| অত্যন্ত যত্নসহকারে সুন্দর ও সুচারুভাবে মালিশ করে সে পিতার শক্ত, উত্তেজত লিঙ্গখানি জাঙ্গিয়ার উপর দিয়ে| মনের সমস্ত ভালোবাসা যেন উজার করে অঙ্গটির প্রতি, সুন্দর করে একেকটি অন্ডকোষ মুঠো পাকিয়ে পাকিয়ে আরাম দেয় তাঁকে|”তাছাড়াও,” সে একটু এগিয়ে এসে মিষ্টি অদূরে কন্ঠস্বরে পিতার উদ্দেশ্যে বলে “আমার সেল নম্বর তো আছেই, সব খবরই ইচ্ছা করলে তুমি নিতে পারো তাই না?” সে পিতাকে ভারমুক্ত করতে মুচকি হেসে কথাগুলো বলে তার ডান হাতের বুড়ো আঙ্গুল দিয়ে আসতে আসতে চাপ দেয় পিতার লিঙ্গমস্তকের ধার-বরাবর|

-“তা পারি, ‘ রজতবাবু তাঁর সুন্দরী মেয়েকে চোখ ভরে দেখতে দেখতে বলেন, ওর গালের পাশ দিয়ে ডান হাত বুলান,”তোকে নিয় আমার বড় চিন্তা, রূপসী পরী আমার, উর্বশী!”

“উমমম” পিতার মুখে নিজের রূপের প্রশংসা শুনে আহ্লাদী হয়ে পরে শালিনী ,হেসে উঠে একটু চাপ দিয়ে মোচড় দেয় তাঁর যৌনাঙ্গে|

-“আঃ..” কন্যার সুচারু মোচড়ে একটু কেঁপে উঠে গুঙিয়ে ওঠেন রজতবাবু| এবং শালিনী হাতে মুঠো করে ধরা পিতার পুরুষাঙ্গে একটি স্পন্দন অনুভব করে, এবং দেখে তাঁর লিঙ্গমস্তকের কাছে জাঙ্গিয়ার কিছুটা অংশের ভিজে ওঠা, ..

-“ইশশশ বাপ্পি, ” পিতার পুরুষাঙ্গটি আদর করতে করতে হাসে শালিনী, ” কি করে ফেলেছ তুমি!”

-“উম্ম,..’ গভীর শ্বাস ছাড়েন রজতবাবু, কন্যার হাতের মধ্যে তাঁর লিঙ্গ উত্তেজনায় দপদপ করছে আরো, তবুও শালিনীকে ইচ্ছামতো খেলতে দেন তিনি সেটি নিয়ে|

শালিনী এবার হাসিমুখে পিতার জাঙ্গিয়ার ইলাস্টিক ধরে টেনে নামায় একেবারে লোমশ অন্ডকোষ দুটির তলায়| তড়াক করে লাফিয়ে ওঠে রজতবাবুর উন্মুক্ত বাদামি, শিরা-উপশিরা যুক্ত ঠাটানো আখাম্বা পুরুষাঙ্গটি|

-“আঃ” তিনি কঁকিয়ে ওঠেন অস্ফুটে ঘরের শীতল হাওয়ার স্পর্শ সদ্য উন্মুক্ত যৌনাঙ্গে অনুভব করে|

-“উম্ম, হিহি” মিষ্টি হেসে শালিনী পিতার শক্ত, তাগড়াই আন্দোলিত হতে থাকা দণ্ডটিকে অগ্রাহ্য করে সুন্দর করে সে নিজের আঙ্গুলগুলি দিয়ে ওঁর ঘন শিশ্ন কেশে বিলি কেটে দিতে থাকে ধীরে ধীরে|

-“আঃ,..উমমম!” ভীষণ আরাম হয় রজতবাবু কন্যার এমন সুমধুর পরিচর্যায়| আরামের খুশিতে তিনি তাঁর উপেক্ষিত হতে থাকা লিঙ্গদন্ডটি নাচিয়ে ওঠেন, এবং তা যেন তড়াক করে লাফ দিয়ে উঠে শালিনীর বিলি কাটতে থাকা হাতের ফর্সা, নরম কব্জিতে এসে আঘাত করে|

-‘হিহি, দুষ্টু!” শালিনী উজ্জ্বল হাসিতে নিজের অপরূপ সুন্দর মুখমন্ডল উদ্ভাসিত করে, কিন্তু তবুও সে পিতার দন্ডটিতে সরাসরি হাত না দিয়ে ওঁর শিশ্নকেশে, অন্ডকোষদ্বয়ে বিলি কেটে দিতে থাকে, চুলকে দিতে থাকে আর দেখে আরামের অতিশয্যে ওঁর লিঙ্গটি বারবার লাফিয়ে লাফিয়ে উঠতে থাকা, তার নরম হাতের স্পর্শ নেবার বাসনায়| কিছুক্ষণ এমন খেলা করে সে অবশেষে পিতার খাড়া, শক্ত যৌনাঙ্গটি নিজের নরম উত্তপ্ত থাবাতে নিয়ে দৈর্ঘ্য বরাবর সেটি মুঠো পাকিয়ে ধরে অল্প চাপ দেয়|

-“আঃ,..” সুখে টনটন করতে থাকা নগ্ন লিঙ্গের চামড়ায় অবশেষে কন্যার নরম উষ্ণ হাতের স্পর্শে আরামে শীত্কার করে কঁকিয়ে ওঠেন রজতবাবু| কি অপূর্ব সুন্দর এই অনুভূতি! তাঁর দু-উরুর সন্ধিস্থলে যেন স্বর্গীয় আনন্দের শিহরণ! চোখ বুজে ফেলেন তিনি|

-‘উম্ম” পিতাকে আরামে এমন করে উঠতে দেখে হাসি চাপে শালিনী| সকল আবদারের জাদুকাঠি এখন তার হাতে,বিশাল চেহারার অতবড়ো মানুষটি, সমাজের অন্যতম প্রতিষ্ঠিত ব্যক্তি, কড়া, প্রচুর মানুষের বুক হিম করিয়ে দেওয়া সেই বিজনেস টাইকুন এখন তার ডানহাতের মুঠোয় সম্পুর্ন অসহায়| মুচকি হেসে মুখ নামিয়ে দেখে সে তার প্রিয় খেলার বস্তুটিকে! পিতার লিঙ্গ মস্তকটির মাঝখানের চেরা অংশটি চকচক করছে, এবং সেটির ছিদ্রটি দিয়ে একফোঁটা সাদা রঙের অর্ধতরল নির্গত হয়ে বেরিয়ে আছে| সে এবার দন্ডটি মুষ্টি মুক্ত করে ওঁর লিঙ্গমস্তক থেকে সেই তরলটুকু সংগ্রহ করে তর্জনী দিয়ে, তারপর তা ওঁর ব্যাঙ্গের ছাতার মাথার আকৃতির ফোলা লিঙ্গ-মস্তকটির ধারের আগা বরাবর অত্যন্ত সুচারু ভঙ্গিতে, যত্নসহকা রেমাখিয়ে দিতে থাকে| দেখে স্পর্শকাতর স্থানে তার আঙ্গুলের স্পর্শে দন্ডটির তিরতির করে কেঁপে কেঁপে ওঠা|

-“আহাঃ,…” মেয়ের অপরূপ পরিচর্যায় যৌনসুখের শিহরণে রজতবাবুর শরীরে যেন বাজনা বাছে| চোখ খুলে তিনি দেখছেন এখন ওর ইশত-আনতসুন্দর মুখটা, ওর চুলের লকটি এসে ঝুলে পরেছে ওর মুখখানি সামান্য আড়াল করে|

-“উম” মুখ তুলে যেন পিতার চোখের ভাষা পরে নিয়ে মুচকি হেসে শালিনী ওঁর খাড়া, শক্ত দন্ডটি আলতো করে চুলকে দিতে থাকে সবখানে| মস্তক থেকে শুরু করে আলতো নোখের আঁচড় টেনে অন্ডকোষ অবধি, লিঙ্গটির উল্টো পিঠে দুষ্টু-নরম চুলকুনি, কুরকুরানি, অন্ডকোষ দুটির লোম ধরে ধরে অল্প অল্প টান, এখানে ওখানে ছোট ছোট চিমটি, হাসতে হাসতে সে চুলকিয়ে দিতে থাকে পিতার যৌনাঙ্গটি আপাদমস্তক|

-“আহা,.. হাহা, উম্ম” আরামে, সুখে, ভাষাহীন আনন্দে হেসে ওঠেন রজতবাবু তাঁর মেয়ের তাঁর যৌনাঙ্গ নিয়ে এমন চুলকে দেওয়া খেলায়| ওর প্রত্যেকটি আঙ্গুল যেন প্রজাপতির মতো ছটফট করছে তাঁর উত্তেজিত পুরুষাঙ্গখানি নিয়ে, আনন্দে মাতোয়ারা করছে তাঁকে|

-“উম” পিতার নগ্ন, ঠাটানো পুরুষাঙ্গ, শিশ্নকেশ এবং অন্ডকোষসমূহ নিয়ে ডান হাতে নানাবিধ সুমধুর, সুচারু খেলা চালিয়ে যেতে যেতে এবার শালিনী তাঁর পানে চেয়ে ঠোঁট টিপে হেসে বলে ” বাপ্পি, খুবতো আদর খাচ্ছ, কিন্তু একটা কথা তুমি কিন্তু বেমালুম ভুলে যাচ্ছ!”

-“কি মামনি? বল আমায়?” যৌন আরামে হেসে ভারী স্নেহার্দ্র গলায় শুধানর জতবাবু|

-“হাহা,’ তাঁর মেয়ে হেসে ওঠে তাঁর এমন অতি-সদয় মন্তব্যে, তাঁর শক্ত লিঙ্গদন্ডে সুরসুড়ি দিয়ে দিয়ে একই সাথে বুড়ো আঙ্গুলের চাপ দিয়ে দিয়ে তাঁর দুটি অন্ডকোষ পালা করে মালিশ করে দিতে দিতে, “উমমম, মনে করে দেখো না!’সে আবদারি স্বরে বলে|

-“উম্ম,… কি রে? সত্যি মনে পরছে না!’

-“হিহিহি..” নিজের দুষ্টুমিতে হেসে ফেলে শালিনী| আসলে তার পিতার কিছুই ভুলে যাওয়ার কথা না, কেননা সে কিছুই চায়নি এর আগে| কিন্তু এভাবে প্রসঙ্গ উত্থাপন করার মধ্যে এক আলাদা মজা আছে, সে তার সুন্দর দন্তপঙ্গক্তি দিয়ে তলার ঠোঁট কামড়ে মিষ্টি হেসে বলে, “ইশশ বাপ্পি তুমি কিছু মনে রাখতে পারো না! আমি যে একটা রুকস্যাক চেয়েছিলাম ভালো!”

-“উম্ম কেন গো সুন্দরী? তোমার রুকস্যাক দিয়ে কি হবে?” রজতবাবু হেসে ডানহাত বাড়িয়ে মেয়ের গলার কাছে সুরসুরি কাটেন মজা করে|

-“ধ্যাত বাপ্পি, হাত সরাও, সুরসুরি লাগছে! হিহি..” কিন্তু তিনি হাত সরাতে পারেন না| তাঁর হাতের একটু নিচেই শালিনীর বুকের উপর লাল কামিজে টানটান, খাড়া খাড়া হয়ে মাথা তুলে আছে ওর দুটি মারাত্মক আকর্ষনীয় স্তন! তিনি হেসে এবার ওর বুকে কুরকুরি কাটতে কাটতে বলেন

-“আমাদের সময় তো এত কিছু লাগতো না রে! হাহা..”

-“ধ্যাত!হিহি..” হাসির ঝর্ণা বইতে থাকে শালিনীর শরীর জুরে, পিতার ক্রীড়ারত হাতের দুপাশে উগ্র স্তন জোড়া দুটি টিলার মতো কামিজ ঠেলে ফুলে উঠছে ওর এখন,.. মারাত্মক উদ্ধত তাদের ভঙ্গি,.. তার হাত সমানতালে পিতার ঠাটানো যৌনাঙ্গটি নিয়ে আদর-খেলায় মত্ত,… দন্ডটিকে অস্থির করছে সে তার চাঁপার কলির মতো আঙুলগুলি দিয়ে…

-“উম এই আম দুটো খুব পেকে উঠেছে তো ..হাহা, উম্ম” আর না পেরে এবার রজতবাবু কন্যার কামিজে ফুলে ওঠা ডান দিকের উদ্ধত স্তনটি ডানহাতে গ্রহণ করেন, হাতের মধ্যে চাপ দিয়ে নরম তুলতুলে মাংস পিন্ডটি মুঠো পাকিয়ে তোলেন, আহ্লাদে লক্ষ্য করেন তাঁর হাতের চাপে শালিনীর কামিজের গলার বাইরে দুধে-আলতা ত্বকে সুডৌল আঁচড় কেটে ওর স্তনটির উঠলে ওঠা|

-“উম্ম! বাপ্পি!” অল্প উষ্মা নিয়ে তাকায় তাঁর মেয়ে তাঁর পানে|

-“ইশশশ দুষ্টু মেয়ে! ব্রা পরিসনি?” তিনি হেসে শুধান, শালিনীর পাকা কমলালেবুর মতো স্তনটি আরামে কামিজসহ কচলাতে কচলাতে, জীবন্ত উদ্ধত গ্রন্থিটির সমস্ত নরম নির্যাসটুকু মুঠোয় মিশিয়ে নিতে নিতে| যেন লেবু কচলে সরবত বানাচ্ছেন তিনি!

-‘বাপ্পি, ইশশ ছাড়ো!’ শালিনী রাগতভাবে পিতার লিঙ্গে মোচড় দিয়ে বলে “বেশ করেছি ব্রা পরিনি! তোমার তাতে কি?”

-‘উম্ম” হেসে রজতবাবু এবার মেয়ের কামিজ ঠাটিয়ে ফুলে থাকা অপর স্তনটি ধরে কচলাতে আরম্ভ করেন, শালিনী এবার রেগে উঠে পিতার লিঙ্গ নিয়ে খেলা বন্ধ করে ওঁর হাত ছাড়িয়ে উঠে পড়তে পড়তে বলে” ইশশ তুমি আমার কামিজ কুঁচকে দিচ্ছ! আমি চললাম!”

-“কোথায় যাও সুন্দরী? বস না!”তিনি জোর করে শালিনীর বাহু ধরে আকর্ষণ করে বসিয়ে দেন আবার তাঁর সামনে| তারপর এবার তিনি, যেন তাঁরই দিকে তাকিয়ে থাকা কন্যার লাল কামিজে স-অহংকারে ফুলে ওঠা দুটি ঠাটানো স্তনের উপর নিজের দুই হাত স্থাপন করেন| তারপর সে-দুটি একসাথে রিক্সার হর্নের মতো, শক্ত মোচড় দিয়ে দিয়ে টিপতে শুরু করেন, নিয়মিত ছন্দে| শালিনী এবার কোনো বাধা দেয়না| শুধু ঠোঁট ফুলিয়ে যেন বাচ্চা মেয়ের অভিমানে পিতাকে তার আকর্ষনীয় স্তনদুটি পীড়ন করতে দেয় তাঁর সামনে বসে| ঐভাবেই সে পিতার শক্ত পুরুষাঙ্গটি আবার নিজের নরম হাতে গ্রহণ করে| দন্ডটি এবার সে মুঠো করে ধরে কচলে কচলে মালিশ করে দিতে থাকে|

-“আহ্ছ্ছঃ..” মেয়ের স্তন দুটি শক্ত দু-থাবায় টিপতে টিপতে লিঙ্গে ওর মালিশে যৌন সুখে হা-হুতাশ করতে থাকেন রজতবাবু| কামিজসহ দু-হাতে নরম মাংস কচলে কচলে ডলতে থাকেন ওর উদ্ধত স্তনজোড়া, হাতের সুখ করে করে|

-“উউউ,দুষ্টু বাপ্পী!” মৃদু কঁকিয়ে উঠে শালিনী পিঠ বেঁকিয়ে ওঠে, মুখে তেরছা হাসি নিয়ে সে এবার জোরে জোরে কচলে চলে পিতার দন্ডখানি|

-“আআহ, আআআহ,…” সুখের জোয়ার হুড়মুর করে চলে আসতে থাকে রজতবাবুর শরীর জুরে, পরাজিত হন তিনি, মেয়ের উদ্ধত স্তন থেকে তার দুহাত খসে পরে বিছানার চাদর খামছে ধরে| শালিনী হাসি মুখে দেখে পিতার হঠাত স্থির হয়ে যাওয়া, তারপর তার হাতের মধ্যে জোরে লিঙ্গ ঠেলে দেওয়া, সে হেসে ওঁর লিঙ্গটি তাক করে উপর পানে, এবং ফোয়ারার মতো সাদা বীর্যের ঝর্ণা লিঙ্গমুখ থেকে উত্সারিত হয়ে উঁচুতে উঠে আবার নেমে এসে পরে শালিনীর কব্জি, বিছানা, রজতবাবুর লোমশ থাই ভিজিয়ে দেয়|

-“হাঃ, এখ্খ,, আহাঃ..” শালিনীর হাতে বারবার পুরুষাঙ্গ ঠেলে ঠেলে তীব্র কামক্ষরণ করতে থাকেন তিনি, ফোয়ারার মতো একেকটি বীর্যের দমক বেরিয়ে এসে নতুন করে ভিজিয়ে দিতে থাকে শালিনীর হাত, বিছানা সবকিছু|

-“হিহিহি,.. ইশশ বাপ্পী কি করছে!” শালিনী হাসতে হাসতে গরুকে দুধ দোয়ানোর মতো যত্ন করে পিতাকে কমক্ষরণ করায়| তার হাত বীর্যে মাখা মাখি হয়ে যেতে থাকে| পিতাকে এমনাবস্থায় থরথর করে কাঁপতে দেখে তার আরো মজা হয়| যেন মৃগীরোগ হয়েছে তাঁর! প্রচন্ড উত্তেজক, সম্পুর্ন কামক্ষরণের পর ক্লান্ত বিধ্বস্ত রজতবাবু তাকিয়ায় হেলান দিয়ে ঘন ঘন লম্বাশ্বাস ছাড়তে থাকেন| তাঁর নাকের পাটা ফুলে ফুলে উঠছে|

-“উম্ম” কিছুক্ষণ পিতার ঘন বীর্যসমূহ এবং নরম তরমূষিকের ন্যায় পুরুষাঙ্গ নিয়ে আপন মনে খেলা করে শালিনী উঠে এসে ওঁর গালে মিষ্টি করে একটি চুমু খেয়ে বলে ওঠে “আসছি বাপ্পি, ভাল্ল হয়ে থাকবে!” তীব্র যৌন পরিতৃপ্তিতে ধ্বসে পরা রজতবাবু মেয়ের কথায় কোনো উত্তর করেন না| হাঁপাচ্ছেন তিনি নিঃশব্দে| শালিনী হাসি মুখে উঠে পরে| বেসিনে হাত ধুয়ে নিয়ে বেরিয়ে আসে পিতার ঘর থেকে| দরজা ভেজিয়ে দেয় আস্তে করে| সকাল সাতটা|

শালিনী রজতবাবুর ঘরে টুকিটাকি জিনিস গোছাচ্ছিল, তার পরনে এখন একটি সাদা রঙের ব্লাউজ ও মেরুন স্কার্ট| স্কার্টটি তার হাঁটু পর্যন্ত এবং তার নিচ থেকে ফর্সা দুটি মসৃনপা  যেন ঝলমল করছে| ব্লাউজটি বুকের কাছে একটু চাপা যার ফলে শালিনী কাজ করার সময় শরীর সামান্য টানটান করলেই দুটি খাড়া খাড়া মারাত্মক স্তন ব্লাউজ ঠেলে সুস্পষ্ট আদলে নিজেদের অস্তিত্ব জানান দিচ্ছে উগ্র দুটি টিলার মতো| শালিনীর ঘন নরম চুল এখন একটি সুন্দর বিনুনিতে বাঁধা| বিনুনীটি দুলে দুলে উঠছে ওর নড়াচড়ার সাথে সাথে| রজতবাবু ঘুম থেকে উঠে বাথরুমে গিয়েছিলেন| ফিরে এসে ঘরে সকালের ঝলমলে আলোয় রূপসী কন্যাকে কাজ করতে দেখে তিনি জোর কদমে এসে ওকে জরিয়ে ধরেই বিছানায় এসে বসে ওকে নিজের কোলে চেপে ধরে ওর গালে, নাকে প্রভৃতি উষ্ণ চুম্বন করতে থাকেন..”উমমম,..উমমমম!”

-“এই, বাপ্পি ছাড়! কি হচ্ছে! ইশশ!” খিলখিলিয়ে হেসে চাপা গলায় গুঙিয়ে ওঠে শালিনী,”রান্নাঘরে মা আছে! ধ্যাত!”

-“উমমম” রজতবাবুর পরনে এখন একটি গেঞ্জি ও সাদা পাজামা| ভেতরে অন্তর্বাস পড়েননি তিনি কোনো| শালিনীকে আরো ঘনিষ্ঠ করে নেন তিনি যাতে ওর স্কার্ট আবৃত নরম উষ্ণ নিতম্ব ও জাং তাঁর শিশ্নদেশে চেপে বসে| ওর সরু একরত্তি কোমর একহাতে পেঁচিয়ে ধরে তিনি জোরে জোরে তাঁর শক্ত হতে থাকা পুরুষাঙ্গ পাতলা পাজামার মধ্যে দিয়ে রগড়াতে থাকেন স্কার্টের উপর দিয়ে ওর নরম তুলতুলে, উত্তপ্ত নিতম্বে ও জংঘায়|

-“আঃ! ইশশশ বাপ্পি, কি দুষ্টু তুমি!” পিতার বাহুবন্ধনে শরীরে মোচড় দিয়ে ঠোঁট কামড়ে হেসে ওঠে শালিনী| সেও স্কার্টের নিচে কোনো অনর্বাস পরেনি| নিজের ঘাড়ে ওঁর উত্তপ্ত চুম্বন অনুভব করে সে আরও কাতরে ওঠে ‘এই, উফ, ধ্যাত!”

-“উমমম!” শালিনীর নিতম্বের আদরে ও প্রশ্রয়ে রজতবাবুর লিঙ্গ পাজামার ভেতরে এখন লৌহশক্ত হয়ে উঠেছে, এবং তা ওর নরম নিতম্বে চাষ করতে করতে জায়গা করে নেয় দুই নিতম্বস্তম্ভের মাঝখানের উত্তপ্ত খাঁজে, আরো চাপ দিয়ে গোটা পুরুষাঙ্গটিই তিনি ঢুকিয়ে দেন সেই উষ্ণতার গভীরে, শালিনীর জংঘা বরাবর| তলদেশ থেকে স্কার্টের ব্যবধানে শালিনীর নরম তুলতুলে অত্যন্ত উত্তাপ বিকিরণ রত যোনিদেশে চেপে বসে তাঁর শক্ত খাড়া দন্ড| সেই নরম গরম উত্তাপে নিজের পুরুষাঙ্গ রগড়াতে রগড়াতে তিনি এবার সামান্য হেসে মেয়ের চুলে মুক্ত হাতটি দিয়ে বিলি কাটতে কাটতে ভারী, স্নেহার্দ্র গলায় শুধান”এত সকালে আমার ঘরে সুন্দরী কি বলে?”

-“উফ, উম্ম..’ শালিনী এখন বাস্তবিকই পিতার শক্ত পুরুষাঙ্গের উপর বসে আছে| তার দু-উরুর ফাঁকে তার নরম যোনিদেশ দলন করছে নিবিড়ভাবে তা| সে এবার হেসে পিতার শক্ত বন্ধনে একটু দেহ ঘুরিয়ে হাত উঠিয় ওঁর গোঁফে দুষ্টু টান দিয়ে বলে “ঘর গোছাতে এসেছিলাম বাপ্পি! তুমি না! ভিশন দুত্তু!”

-‘উম্ম, বেশ তো রূপসী, ঘর গোছাবে, এত রেগে যাবার কি দরকার?”

-“রাগবো না? ইশশ বাপ্পি, কিভাবে ডলছ তুমি আমায় তোমার ওটা দিয়ে, আহ,..’

-“উম্মম্মম্মম…” শালিনীকে চুমু খেতে খেতে ওর তরুণী শরীরের নরম উত্তাপ ও সুগন্ধে মাতোয়ারা হয়ে আরো জোরে জোরে ওর জংঘায় লিঙ্গ রগড়াতে রগড়াতে রজতবাবু নাছোরবান্দার মতো ওকে পেঁচিয়ে জড়িয়ে নিজের শরীরের সাথে মেশাতে চান নিবিড় আশ্লেষে|

-“উম্ম্ফ,..আহ,” শালিনী উত্তপ্ত নিঃশ্বাস ফেলে পিতার ঘন আদরের প্রাবল্যে ওঁর বাহুর মধ্যে মিষ্টি, নরম স্বরে গুমরিয়ে ওঠে, এবং পরমুহুর্তেই তার নরম ঠোঁটদুটি পিষ্ট হয় পিতার আগ্রাসী, অস্থির চুমুচুমুতে|

-“প্চঃ প্ছ্হঃ .. ঔম ঔম্ম্ম,উম্মম্মম্ম.. প্প্প্প্ছ্ম, “শালিনীর জংঘা উত্তেজিত লিঙ্গ দিয়ে দলিত মথিত করতে করতে ওকে সাপটে চেপে ধরে, ওর সমস্ত মুখময় আগ্রাসী চুম্বন খেতে খেতে, নিবিড় ভোগ-আবেশে আরো উন্মাদ হয়ে উত্তপ্ত হয়ে উঠতে থাকেন রজতবাবু| কচি, নরম শরীরের স্বাদ পেয়ে যেন একশটি সিংহ গর্জে উঠেছে তাঁর মধ্যে|

-‘উম্ম..হমম” পিতার কোলে বসে বেশ কিছুক্ষণ বাধ্য মেয়ের মতো চুপটি করে এমন একতরফা আদর খেতে খেতে শালিনী একসময় উনাকে আরো উত্তেজিত হতে দেখে অস্থির হয়ে ছটফটিয়ে নিজেকে ছাড়িয়ে নিতে চায়’ উন্ম্ম্ম্ম !! বাপ্পি, রান্নাঘরে মা!”

-“উম্ম্ফ..” গরম দীর্ঘশ্বাস ছাড়েন রজতবাবু| তাঁর লৌহ কঠিন পুরুষাঙ্গটি যেন একটি ছুড়ির ফলার মতো শালিনীর ঘর্ষণে দলনে আগুন উত্তপ্ত নরম তুলতুলে যোনিস্থলে বিঁধে গেছে, কিছুটা কমরস বেরিয়ে ভিজে উঠেছে সেখানটা তাঁর পাজামার পাতলা কাপড় ভেদ করে| মেয়ের গালে একটি ঘন চুম্বন করে তিনি বাহুবন্ধন কিছুটা আলগা করে ওকে শ্বাস নিতে দেন|

-“আঃ.” বাস্তবিকই দম বন্ধ হয়ে এসেছিলো শালিনীর পিতার আদরের ঠেলায়, সে বুক ঠেলে নিঃশ্বাস নেয়| তার ফলে তার ব্লাউজ টানটান হয়ে প্রকট হয়ে ওঠে মারাত্মক আকর্ষনীয় একেকটি উদ্ধত স্তন!….

-‘উম্ম,..” রজতবাবু মেয়ের চুলে হাত বুলিয়ে আদর করছিলেন, স্বভাবতই তাঁর দৃষ্টি চলে যায় ওর স্ফীত বুকে, এবং পিতার দৃষ্টি অনুসরণ করে শালিনীও ওঁর চাউনি বুঝতে পারে| ঠোঁট টিপে হেসে সে পিতাকে নিরবে সম্মতি দেয়|

-“উম আমার সোনামনি!” মেয়ের সম্মতি পেয়ে লোভী ডানহাত তুলে সমস্ত থাবা দিয়ে রজতবাবু চেপে ধরেন ব্লাউজশুদ্ধ ওর বাম স্তন| চটকে চটকে যেন মুঠোর মধ্যে মন্থন করেন তিনি স্তনটির নরম, সুগঠিত শরীর| কিছুক্ষণ বামস্তনটি উপভোগ করে তিনি খপ করে ধরেন ব্লাউজে ফুলে ওঠা ওর ডানস্তন, থাবা পাকিয়ে মুষ্টি পেষণ করে চটকান সেটিকে|

-“উম,” শালিনী হাসি মুখে দেখে তার খাড়া খাড়া তরুণী আকর্ষনীয় স্তন চটকাতে পেয়ে পিতার আনন্দ আর আহ্লাদ| শালিনীর পাকা ডালিম আকৃতির একেকটি স্তন পুরোটাই থাবায় ভরে যাচ্ছে তাঁর| আর নিবিড় সুখে নরম মাংস থাবায় কচলে কচলে মাখছেন তিনি|

-“উম্ম, হিহি” পিতাকে তাকে এমন উপভোগ করতে দেখে আদূরে মেয়ের মতো তাঁর কোলে নড়েচড়ে ওঠে শালিনী| নিজের খাড়া দুটি স্তন নিয়ে সে যথেষ্ট অহংকারী| আর এভাবে পিতার কোলে বসে তাঁর একান্ত বাহুবন্ধনে সেই স্তন দুটি পীড়িত ও মর্দিত হতে দিয়ে একটি অন্যরকম আপন করে নেওয়া আহ্লাদ জাগে তার মধ্যে| মুখ টিপে হেসেই যায় সে, জানে মা কোনদিন তার সম কক্ষ হতে পারবেন না এ বিষয়ে|

-“উফ, মামনি!” বুকে জ্বালা ধরানো, শালিনীর উন্মুখ পাগলকরা স্তন জোড়া স্বাধীনভাবে মনের ইচ্ছা মতো পীড়ন করতে পেয়ে উত্তেজনায় বেহিসেবীর মতো যেন তার পিতার হাতের তালু হাঁসফাঁস করে তার বুকের উপর স্তন মুঠো পাকাতে পাকাতে| উত্তেজনার বসে তিনি প্রবলবেগে চটকাতে চটকাতে মুচড়ে ধরতে থাকেন শালিনীর একেকটি সুগঠিত তরুণী স্তন, ব্লাউজের কাপড়ে টান পড়ে…

-“উঃ! আউচ!..হাহা..!” পিতার ছেলেমানুষিতে কঁকিয়ে হেসে ওঠে শালিনী “আস্তে বাপ্পি, ছিঁড়ে নেবে নাকি! উম!” সে মুখে টিপে ধরা হাসি নিয়ে বুক ঠেলে আদূরে ভাবে ওঁর হাতের উপর| যদিও নিজের বুক ওঁর হাতে সমর্পিত করে রাখে|বাধ্য মেয়ের মতো স্তনপীড়ন নেয়|

-“মমঃ..” বাচ্চা ছেলে নতুন খেলনা পেলে যেভাবে উত্তেজিত হয়, তেমন আশ্লেষে মেয়েকে কোলে বসিয়ে থাবা পাকিয়ে পাকিয়ে ওর উদ্ধত স্তনগুলি নিয়ে খেলছেন রজতবাবু| সমস্ত আশ মিটিয়ে চটকাচ্ছেন শালিনীর বুকে সর্বদা খাড়া খাড়া হয়ে থাকা পুরুষের হৃদয় কাঁপানো যৌবনের অশনিসংকেত দুটি| চটকে চটকে যেন শায়েস্তা করছেন সে দুটিকে! “শালিনীইইই!!!” রান্নাঘর থেকে রজতবাবুর স্ত্রী-র গলা শোনা যায়|

-‘কি মা?”

-“ও ঘরে তোর গুছানো শেষ হলো? বাবাকে ঘুম থেকে তোল!!” মুখ টেপা হাসি নিয়ে পিতার পুরুষাঙ্গের উপর নড়েচড়ে ওঠে শালিনী ওঁর পানে চেয়ে,”ডাকছি মা!” সে মুচকি হাসে| “উম্হ’ হতাশ ভাবে শালিনীকে কোল থেকে উঠতে দেন রজতবাবু| শালিনী হাসি মুখে বুকের উপর ব্লাউজ টেনে টেনে সমান করে নেয় দাঁড়িয়ে উঠে, এবং তা করতে গিয়ে আবার মারাত্মক খাড়া খাড়া স্তনদুটি ব্লাউজের সাদা কাপড়ে প্রকট করে ফেলে|

-“উম” শালিনী চলে যাবার উদ্রেক করলে রজতবাবু ওর হাত ধরে আবার টেনে কোলে বসিয়ে দেন| তারপর আবার ওর বুকে ডানহাত তুলে একবার ওর বামস্তন, তারপর ডানস্তন থাবায় চেপে ধরে ধরে সজোরে পিষ্ট করেন|

-‘আহঃ! উম্ম!’ শালিনী উত্তপ্ত হেসে ওঁর থাবাটি বুক থেকে তুলে ঠোঁটে এনে চুমু খায়|”উম্প্চ, এবার আমায় ছাড়!”

-“হমম” মেয়ের ঠোঁট দুটি টিপে দেন রজতবাবু| তারপর ওর চিবুক বেয়ে হাত নামানোর সময় আবার ওর ব্লাউজ ফুলিয়ে তলা উন্মুখ স্তনজোড়া পরপর পরম আশ্লেষে মুঠো পাকিয়ে তোলেন|

-“উফ, বাপ্পি!” শালিনী অস্ফুটে কঁকিয়ে ওঠে|

-“উম্ম” আরো কিছুক্ষণ ধরে মেয়ের উন্নত স্তন দুটি আচ্ছা করে চটকে নিয়ে ওর স্ফীত অহংকারী বামস্তনের উপর তালুকে বিশ্রাম দেন রজতবাবু|

-“উফ” পিতার হাতের উপর হাত রেখে শালিনী বলে “হয়ছে? তৃপ্তি হয়েছে? এবার যেতে দাও, নইলে মা চলে আসবে এঘরে!” দীর্ঘশ্বাস ফেলে ছেরে দেন শালিনীকে তিনি| তবে ও চলে যাবার সময় ওর নিতম্বে একটি চপেটাঘাত করেন তিনি ক্রীড়াচ্ছলে|

-“অসভ্য!” শালিনী খিলখিলিয়ে হেসে বেরিয়ে যায়| রজতবাবুর স্ত্রী শঙ্করা রান্নাঘরে মিক্সারে কাজ করছিলেন| মেয়েকে প্রায় দৌড়াতে দৌড়াতে আসতে দেখেন তিনি চোখের কোন দিয়ে| তাঁর ভ্রু একটু কুঁচকে যায়, ছুটবার সময় শালিনীর স্তনদুটো পাতলা চাপা ব্লাউজে যেন জীবন্ত হয়ে লাফাচ্ছে দুটি খরগোশের মতো! ও কি ধরনের ব্রা পরেছে, বা আদৌ ব্রা পরেছে কিনা, প্রভৃতি জানার এক অস্বস্তিমন্ডিত কৌতূহল জন্মায় তাঁর , এবং তার সাথে একটু চাপা বিরক্তি| দীর্ঘশ্বাস ফেলেন তিনি| এসব কথা সহজে জিজ্ঞাস্য নয়| তাঁর মাঝে মাঝে মনে হয় ভগবান তাঁকে মেয়ে হিসাবে এমন মারাত্মক সুন্দরী, গোটা এলাকার পুরুষের হৃদয় জ্বালানো এবং মেয়েদের হিংসায় পোড়ানো অপ্সরা না দিয়ে ছিমছাম, সাধারণ একটি শান্তশিষ্ট মেয়ে দিলে বোধহয় ভালো করতেন| শালিনীর এমন মোহিনী রূপ যত না শুভাকাংখী দেকে আনে তার থেকেও বেশি বিষ ডেকে আনে পাড়া-প্রতিবেশীর আলোচনায়| নানা কথাই তাঁকে শুনতে হয় শালিনীকে নিয়ে| খারাপ বা ভালো|

এত সুন্দরী মেয়ে সামলে রাখা খুব কঠিন| যদিও সম্বন্ধ বিবাহের পক্ষপাতি নন তিনি, তবুও দুশ্চিন্তার বসে ইদানিং মাঝে মাঝেই তাঁর মনে হচ্ছে সুযোগ্য পাত্রের সন্ধান করার কথা| কিন্তু নিজে খুবই ব্যস্ত শিক্ষিকা বলে তাঁর সময়ের খুব অভাব এসব বিষয়ে ভাবার জন্য|

-“মা,সর, আমি দেখছি” শালিনী রান্নাঘরে এসেই মাকে ঠেলে মিক্সারে যেতে চায়| -“না, তুমি তোমার খাবার গরম করো, ফ্রিজে আছে, আর বাপ্পিকে চা দাও! যাও!” শঙ্করা ধমকান মেয়েকে| শালিনী বিনা বাক্য ব্যয়ে মুখ গোমড়া করে তাই করতে শুরু করে| আজ লক্ষ্মীপূজা| রজতবাবুর বাড়িতে প্রত্যেক বছরই বড় করে লক্ষ্মীপূজা হয়| তাঁর স্ত্রী শঙ্করা শিক্ষিকা হলেও খুবই ধর্মভীরু মহিলা| সব খুঁটিনাটি মেনে পুজো করেন তিনি| শালিনীও সকাল থকেই মা-কে সাহায্য করছে সাথে সাথে ঘুরে| পরিবারে বিশেষ কাউকে আমন্ত্রণ করা হয়না| পুজো নিতান্তই ঘরোয়া| রজতবাবুর আজ কোনো কাজ নেই| শালিনী আজ পরিধান করেছে কচি কলাপাতা রঙের সালোয়ার কামিজ| মাথার চুল বিণুনী করেছে| কামিজের ওড়না কোমরে জড়িয়ে নিয়েছে কাজের সুবিধার জন্য| সুযোগ পেলেই দু-চোখ ভরে ওর সৌন্দর্য্য পান করছেন রজত| শালিনীও মায়ের দৃষ্টির আড়ালে সুযোগ পেলেই পিতার দিকে তাকিয়ে ঠোঁট টিপে মন মাতানো, হৃদয়জ্বালানো হাসি ছুঁড়ে দিচ্ছে| নিজের উদ্বেলিত নিতম্ব, নর্তকী কোমর ও উদ্ধত বক্ষের অহমিকায় জর্জরিত করছে পিতাকে,… ওর ওই তেরছা চোখের চাউনি, মুখ টেপা পাগল করা হাসির মধ্যে সব মর্ম লুকানো আছে, যা রজতবাবুকে উত্তেজিত করে তুলছে| যেন সারাদিন তিনি নিজের বাড়িতে এক তরুণী অপ্সরার লাস্যে লালায়িত হচ্ছেন, শালিনীর রূপ এত তীব্র, যেন কোনো বলিউডের সিনেমার পর্দা থেকে উঠে এসেছে ও| ওর চলন বলন, হাসার ভঙ্গি, সবই কত অর্থপূর্ণ ও লাস্যময়ী…

-“কি এত একটানা বসে আছে বলত?”শালিনীর রিনরিনে কন্ঠস্বরে সম্বিত ফেরে রজতবাবুর| সৌন্দর্য্যের ডালি নিয়ে তাঁর কন্যা সুযোগ পেয়েই তাঁর ঘরে এসে দরজা বন্ধ করে দিয়েছে| তারপর এক পা এক পা করে এগিয়ে আসতে আসতে বলে “তখন থেকে আমাকে দেখছো? শখ মিটছে না?”

-“উমমম..” সারাদিন কর্মের ঘামে শালিনীর শরীরে পাতলা কামিজের কাপড় চেপে বসেছে| ওর সমস্ত উতরাই চড়াই পরিস্ফুট… ওর বুকের দিকে তাকিয়ে শ্বাস ফেলতে ভুলে যান রজত, মারন মুখী ভঙ্গিতে কামিজ ঠেলে খাড়া খাড়া হয়ে ফুলে আছে স্তনদুখানি! কোমরে ওড়নাটা বাঁধা, মাথার চুলের বিণুনীটা এসে কাঁধে লুটিয়ে পড়েছে, আঃ.. কি যে মারাত্মক লাগছে শালিনীকে! নিজের বুকের দিকে পিতাকে তাকাতে দেখে শালিনী মুখ টিপে আরও হাসে| “বাপ্পি তুমি না খুব দুষ্টু হয়েছ! সব মেয়েদেরই বুক থাকে!” “উম্ম.. ফুলরানী, আমার কাছে আয়|” সোফায় হাত ছানি দিয়ে ডাকেন পুত্রীকে রজতবাবু| শালিনী তলার ঠোঁট সুন্দর সাজানো দাঁত দিয়ে কেটে বাধ্য মেয়ের মতো পিতার কাছে চলে আসে| “হুমমম…” তরতাজা তরুণীকে রজতবাবু নিজের কোলে থাইয়ের উপর আড়াআড়ি ভাবে বসান| ওর চিবুক ডান হাতে তুলে ধরে বলেন “মা কোথায়?”

-“পাশের বাড়িগুলোয় প্রসাদ দিতে গেছে!”

-“ফিরবে কখন?”

-“তা একঘন্টা!… কেন?” মুখ টিপে হাসে শালিনী| “আহ মিষ্টি, আজকে তোকে খুব সুন্দরী লাগছে..” আচ্ছন্ন গলায় বলেন রজতবাবু কন্যার ঠোঁট জোড়ায় আঙুল বোলাতে বোলাতে “তোর এই খরগোশ দুটি আমায় পাগল করে দিচ্ছে!” আদর করে তাঁর হাত নেমে শালিনীর ডানস্তনের দৌল বেয়ে নামে|

-“উম্হ..” স্তনে পিতার হাতের ছোঁয়া পেয়ে আদরে গুমরে উঠে শালিনী বলে “যাঃ বাপ্পি!”

-“কি?” রজতবাবু শুধান, শালিনীর উদরে হাত বুলিয়ে| -“আমায় অন্যদিন কুত্সিত লাগে?” শালিনী ঠোঁট ফুলিয়ে শুধায়|

-“কখনো না! ও কথা কখনো বলবে না মিষ্টি!” রজতবাবু তর্জনী উঠিয়ে কন্যার ঠোঁটে চেপে ধরেন “কক্ষনো না!”

-“উম্ম..” পিতার তর্জনীর তলায় শালিনীর ঠোঁট দুটো মিষ্টি হাসিতে প্রসারিত হয়| দুহিতার প্রগল্ভা, কামিজ ঠেলে টানটান স্তনজোড়ায় চোখ গিয়ে ব্যাকুল হন রজত|

-“ফুলটুসি,… প্লিইইইজ… আজ তোর খরগোশ জোড়ার দুষ্টামি সারাদিন অনেক সয়েছি!”

-“বাপ্পি!” নরম গলায় ধমকে ওঠে শালিনী|

-“উমমম..” রজত এবার দুহিতার কামিজের হাতা কাঁধ থেকে নামান “ও দুটো আমার ভীষণ চাই!”

-“উমমম…” শালিনী আদূরে গলায় বলে “বাপ্পি মা এসে পড়বে!”

-“এক ঘন্টা পর রে!” রজত আচ্ছন্নভাবে শালিনীর বক্ষ থেকে কামিজ নামাতে টান দেন|

-“উফ.. ছাড়ো!” শালিনী ওঁর হাত সরিয়ে পিঠে হাত নিয়ে কামিজের হুক খোলে| তারপর কাঁধ থেকে তা নামায়| প্রকাশিত হয় সাদা ব্রায়ে মোড়া দুখানি সুডৌল উন্নত স্তন|

-“উন্ম্মম…এই ব্রা-টা আমার কিনে দেওয়া না?”

-“হিহি… কি করে বুঝলে?”শালিনী দুষ্টু হেসে শুধায়| -“উম” রজতবাবু মেয়ের ব্রা-য়ের সামনের হুক খুলতে খুলতে বলেন “আমি সব বুঝি!” ঠোঁট ফুলিয়ে ভ্রু উঁচিয়ে মাথা নাড়ে শালিনী “তাই বুঝি?”

-“হুম” কন্যার বুক থেকে ব্রা খুলে সোফায় ফেলে দেন রজত| লাফিয়ে ওঠে যেন দুটি ফর্সা বিহংগিনী| শালিনীর নগ্ন স্তনদুটির সৌন্দর্য্য অসাধারণ! সুডৌল সমান গরণ, ফর্সা ধবধবে ত্বক, ঠিক মাঝে বসানো দুটি চেরী বৃন্ত যেন সামনের দিকে তাকিয়ে আছে! সব থেকে বড় কথা স্তন দুটি অত্যন্ত জীবন্ত! শালিনীর সামান্য নড়াচড়াতেই যেন লাফিয়ে লাফিয়ে উঠতে চায়!

-“মম..” দুটি নগ্ন স্তন পিতার চোখের সামনে মেলে রেখে লাল ঠোঁটে টিপে ধরা হাসি নিয়ে দেখে শালিনী তাঁর বিমূঢ় অবস্থা| আদূরে ঢং করে সে এবার নিজের বিনুনি ডানহাতের কড়ে আঙুলে জড়াতে জড়াতে বলে “বাপ্পি, আমি সুন্দরী?”

-“তুমি বিশ্বের সর্বশ্রেষ্ঠ সুন্দরী সোনামণি!” স্বর খুঁজে পেয়ে ওর পিতা বলে ওঠেন| সৌন্দর্য্যে যেন চোখ ধাঁধিয়ে যাচ্ছে তাঁর! দিনের আলোয় দুটি টাটকা, নগ্ন ফর্সা স্তন নিয়ে তাঁর তরুণী কন্যা তাঁর কোলে আদূরে ভঙ্গিতে বসে বসে মিটিমিটি হাসছে| পরম আশ্লেষে তিনি আলিঙ্গন করেন শালিনীকে| ঠোঁটে চুমু খান “আঃ..রুপসিনী!” শালিনী তার নিখুঁত নাক ঠোঁটের সুগন্ধ নিয়ে পিতার চোখে মুখে চুম্বন করে “উম্ম..উম্… দুষ্টু বাপ্পি!” “উমমমম…” দুহিতার অর্ধনগ্ন সৌন্দর্য্যে সম্পূর্ণ ঘায়েল রজত এবার বলে ওঠেন”দুষ্টু পাখি, তুই কি নাচ শিখিস?”

-“কেন?” শালিনী শুধায়|

-“বল না!”

-“ওড়িশি!”

-“উম, কোনদিন তো দেখাস না বাপিকে! আজ এখন দেখা না! এই অবস্থায়!”

-“ধ্যত! এই অবস্থায়!”

-“প্লিইইজ..”

-“হিহি..”

শালিনী ঠোঁট কাটে দাঁত দিয়ে, হেসে ওঠে| তারপর কিছু না বলে উঠে পড়ে| কোমরে ওড়নার সাথে কামিজটা বেঁধে নেয় ভালো করে| উগ্র দুটি নগ্ন স্তন নিয়ে হেঁটে গিয়ে ঘরের কোনে সি.ডি প্লেয়ার চালায়| তারপর নাচের মুদ্রা শুরু করে হাসি মুখে ঘরের মাঝখানে| বুকে দামামা নিয়ে রজতবাবু দেখতে থাকেন তাঁর অসাধারণ সুন্দরী কন্যার নগ্ন বক্ষে নাচ! সমস্ত ছন্দে যেন মুক্ত স্তনজোড়া নিজেদের জীবন পেয়েছে,… ফুলে ফেঁপে উঠছে, আছড়ে পরছে, দুলে উঠছে, কেঁপে উঠছে সে দুটি নাচের বিভিন্ন তালে তালে ও বৈচিত্রময় আলোড়নের সাথে| গলা শুকিয়ে আসে তাঁর চোখের সামনে অনির্বচনীয় সৌন্দর্য্য সুধা পান করতে করতে| নাচতে নাচতে শালিনী নিজের বুকের উপর লাফাতে থাকা দুটি ধবধবে ফর্সা লালচে বোঁটাওলা বিহঙ্গীর দাপটে ঘায়েল হওয়া সোফায় হেলান দেওয়া পিতার অবস্থা দেখে মিটিমিটি হাসতে থাকে| কিভাবে জব্দ এখন অতবড় মানুষটি তার সামনে| সে আরো লালিমায় নাচতে নাচতে তার লম্বা বিনুনি সামনে এনে জীবন্ত নগ্ন স্তন জোড়ার মাঝে ফেলে দেয়, ঠোঁট দুষ্টু -মিষ্টি হাসি দিয়ে| রজত চোখের সামনে অর্ধনগ্ন দুহিতার নৃত্যকলা দেখতে দেখতে উত্তপ্ত শ্বাস ফেলেন,.. ‘একটি মেয়ের এত সৌন্দর্য্য থাকা উচিত না!’তিনি ভাবেন মনে মনে,.. এমন রূপসী মেয়ে নিয়ে তিনি কি করে নিজেকে সামলাবেন? ওই মিষ্টি, নিখুঁত মুখখানি! ওই প্রগল্ভা, সুডৌল ও সুপুষ্ট স্তনজোড়া, ওই সম্পূর্ণ মেদহীন একরত্তি কোমর… ওই গভীর নিম্ননাভি, সুঠাম নিতম্ব ও দীর্ঘ দুটি সাবলীল পা,… কোনো পুরুষ একমাত্র অন্ধ না হলে সাধ্য আছে এত সৌন্দর্য্যে বিমোহিত বিহ্বল না হয়ে যাওয়া… কি সরু ও নমনীয় শালিনীর কটিদেশ! নাচের কিছু কিছু মূদ্রায় কি অপূর্ব ভঙ্গিতে বেঁকে সুডৌল কলস-ন্যায় ভাঁজ ফেলছে! দুটি পেলব মসৃণ দীর্ঘ হাতের ভঙ্গি গুলোও কিযে অপরূপ! ওর শরীরের প্রতি অঙ্গ যেন নিজেদের ভাষায় কথা বলে উঠছে! নাচ শেষ হবার পর শালিনী তার দুটি হাত টানটান করে নাভির কাছে পরস্পর মুষ্টি সংবদ্ধ করে ধরে বাচ্চা মেয়ের মতো সুন্দর দাঁত দিয়ে তলার ঠোঁট কামড়ে দুষ্টু হাসতে হাসতে লঘু পায়ে এগিয়ে আসে সোফায় পিতার দিকে| দু-হাত অমনভাবে সংবদ্ধ করে ধরার দরুন তার নগ্ন দু-বাহুর চাপে নগ্ন, সুডৌল স্তনদুটি পরস্পরের সাথে জুড়ে গিয়ে ফুলে ওঠে মাঝখানে এক গভীর বিভাজিকা সৃষ্টি করে, লালচে বৃন্তদুটি সামনে উঁচিয়ে থাকে উগ্রভাবে|

-“উম্ম..”পিতার কাছে এসে শালিনী মিষ্টি স্বরে শুধায় “কেমন হয়েছে বাপ্পি?”

-“অসাধারণ নাচ তুমি!” খসখসে গলায় বলে উঠে রজতবাবু গলাখাঁকারি দেন “ভীষণ ভালো হয়েছে!” শালিনীর গালে টোল পড়ে উজ্জ্বল হাসিতে, অল্প একটু লাফিয়ে উঠে সে নিচু হয়ে পিতার নাকে নাক ঘষে “উমমম…হিহি! থ্যান্ক ইউ! বাপ্পি!”

-“উম্চ” রজত মেয়ের পাপড়ির মতো নরম ঠোঁটে একটা চুমু বসিয়ে দেন|

-“উম্ম” সদ্য চুম্বিত ঠোঁট দুটোয় মিষ্টি হাসি ফুটিয়ে মুখ তোলে শালিনী”সত্যি বলছো তো?” “দুষ্টু পাখি আমার!” আবেগে রজত এবার মেয়েকে টেনে এনে বাম খাইয়ে বসতে বাধ্য করে ওর নগ্ন ঊর্ধ্বাঙ্গ দু-হাতে জড়িয়ে চেপে ধরে পরম আশ্লেষে বলেন “আমি সব সময় সত্যি বলি!”

-“উম্ম” শালিনী মুখ টিপে হাসে, “তাই?”

-“হমম তাই!” রজত ওর তীক্ষ্ণনাসায় চুমু খান| তারপর বলেন”আঃ… সারাদিন ধরে আজ তুই আমার জ্বালা ধরিয়েছিস! এখন দাবানল লাগিয়ে দিলি… এবার আমি কি করবো জানিস?”

-“কিচ্ছু না!” ঠোঁট কেটে দুষ্টুমি করে চলে শালিনী| চোখের তারায় ঝিলিক ফুটিয়ে হাসে|

-“ওহ রূপসী কাকাতুয়া আমার!”রজত চকাস করে ওর ঠোঁটে একটি চুমু খান, তারপর হঠাত উঠে পড়ে ওকে টানতে টানতে বিছানায় নিয়ে আসেন|

-“বাপ্পি!” মৃদু ধমক দিয়ে শালিনী প্রায় দৌড়তে দৌড়তে ওঁর সাথে সামাল দেয়| ওর নগ্ন স্তন দুটি লাফিয়ে উঠতে থাকে| রজতবাবু বিছানায় এনে শালিনীকে চিত্ করে শোওয়ান| শালিনী বাধা দেয় না| আদূরে ভাবে চিবুক গুঁজে চিত্ হয়ে শুয়ে পড়ে| বুক থেকে দুটি ফর্সা সুগোল ঢিবির মতো উঁচু হয়ে থাকে নগ্ন স্তন দুখানি সর্বোচ্চ শীর্ষে দুটি লালচে বোঁটা নিয়ে| নিঃশ্বাসে প্রশ্বাসে তার বুক উঠে, নামে| “আহ” রজতবাবু প্রায় গুঙিয়ে ওঠেন আবেশে বিছানায় তাঁর সুন্দরী দুহিতার অর্ধনগ্ন দেহ অবলোকন করে, ময়াল সাপের মতো ওর সুগঠিত কৃশ কোমরটি অল্প বেঁকে গেছে যেন, মাথার বিনুনিটি গলার উপর দিয়ে এলিয়ে পড়েছে| “কি করবে বাপ্পি তুমি আমায় নিয়ে এখন?” আলতো স্বরে শুধায় শালিনী তার পিতাকে, কাঁধে চিবুক গুঁজে রেখেই আড়চোখে ওঁর পানে তাকিয়ে… রজতবাবু দুহিতার ফর্সা শরীরের পাশে বিছানায় উঠে আসেন “দেখ না কি করি! আজ কে বাঁচাবে তোকে!” কনুইয়ে ভর দিয়ে আধশোয়া হন তিনি ওর পাশে| আস্তে আস্তে দুটি হাত তুলে তিনি তাঁর দীর্ঘ আকাঙ্খিত বস্তুদ্বয়ে

– শালিনীর নগ্ন স্তন্ দুটির উপর স্থাপন করেন| “উম্ম” শালিনী কাঁধে আরও চিবুক গুঁজে দিয়ে চোখ বুজে ফেলে| রজতবাবু বেশ কিছুক্ষণ হাতদুটি স্থাপন করে রেখে অনুভব করেন থাবার নিচে দুহিতার নগ্ন দুটি স্তন|যেন দুটি দুর্লভ বস্তু ধরে আছেন তিনি| অনুভব করছেন তাদের গঠন, আকার, তাদের উত্তপ্ত জীবন্ত উপস্থতি তাঁর তালুর তলায়| এবার আস্তে আস্তে তর্জনী-দ্বয় দিয়ে তিনি ওর স্তনের বোঁটা দুটি নারতে থাকেন| ক্রমশই তীক্ষ্ণ থেকে তীক্ষ্ণতর হয়ে উঠতে থাকে সে দুটি| শালিনী মৃদু কঁকিয়ে পিঠটা সামান্য বেঁকিয়ে তোলে| “উম্ম..” রজত এবার শালিনীর ফর্সা দুই স্তনের তীক্ষ্ণ হয়ে ওঠা দুই বোঁটা তর্জনী ও বুড়ো আঙ্গুলের মাঝে চেপে ধরে পাক দিয়ে মুচড়ে দেন, তারপর তাঁর বৃহত কর্কশ দুটি থাবায় শালিনীর সুডৌল নগ্ন স্তনজোড়া ধরে নিবিড় চাপ দেন, আরামে কঁকিয়ে ওঠেন তিনি যখন তাঁর দুই তালু ও দশ আঙুল দুহিতার বুকের নরম তুলতুলে গ্রন্থি দুটোয় গভীরভাবে বসে যায়| “আহ বাপ্পি..” শালিনী অস্ফুটে কঁকিয়ে উঠে দু-হাতে বিছানার চাদর মুঠো করে ধরে, তবে পিতাকে একটুও বাধা দেয় না| সারাদিন তাঁর হৃদয় অগ্নিশরাঘাতে পরপর বিদ্ধ করে জর্জরিত করার পর তাকে এখন বিছানায় তার নগ্ন বক্ষদুটি নিয়ে ইচ্ছামতো আশমেটাতে দেয় পিতাকে, দুষ্টু অথচ বাধ্য মেয়েরই মতো| “উ.. হুম!” হেসে ওঠেন আহ্লাদেরজত দুই থাবা ভর্তি শালিনীর নরম মাংস নিয়ে… সারাদিন তাঁকে অস্থির করে তোলা দুষ্টু ‘খরগোশ’ দুটো এখনতাঁর হাতের মুঠোয়| ভীষণ নরম, টাটকা ও ভীষণ জীবন্ত! তিনি এবার আয়েশ করে তাঁর দুই থাবায় ভর্তি দুহিতার দুই পুষ্ট, নগ্ন স্তনের নরম-গরম কবুতরী মাংস নিবিড়ভাবে টিপে চটকে মাখতে থাকেন, তাঁর তালু দুটির তলায় শালিনীর দুখানি সুগঠিত স্তনের সমস্ত নরম উষ্ণ নির্যাসটুকু ডলে পিষ্ট হতে থাকে ওর বুকের উপর এবং ওর তীক্ষ্ণ বোঁটা দুটি তাঁর তালুর মাঝ খানে খোঁচা দিতে থাকে|…

-“আহম্ম.. বাপ্পিইইই!” শালিনী পিঠটা অল্প বেঁকিয়ে বুক ঠেলে তুলে কাঁধ হেকে চিবুক তুলে ঠোঁট ফুলিয়ে পিতার পানে চায় “খুব মজা না?”

-“উম..হাহা” দুহিতার জব্দ পরিস্থিতিটি উপলব্ধি করে হেসে ওঠেন দরাজ স্বরে রজতবাবু, এই মুহূর্তে কি যে সুন্দরী লাগছে তাঁর কন্যাকে!

মিষ্টি গাল দুটোয় অল্প লালের আভা, নরম বিনুনীটি গলার ফর্সা নগ্ন চামড়ার উপর দিয়ে একটি কালো কেউটের মতো পাশে এসে লুটিয়ে আছে,.. বাধ্য মেয়ের মতো বিছানায় চিত্ হয়ে শুয়ে দু-হাত দু-পাশে এলিয়ে দিয়ে নিজের সুগঠিত নগ্ন বক্ষ দুটি পিতার শক্তিশালী থাবা-কর্তৃক পিষ্ট হতে দিচ্ছে| যেন দুষ্টু মেয়েটি জানতো তার এত প্রগলভতার এটাই নিঃসন্দেহে পরিনতি হয়ে দাঁড়াবে শেষ অবধি! “ভীষণ মজা!” রজত হেসে বলে এবার কন্যার নগ্ন স্তন জোড়া ঠেস দিয়ে দিয়ে জোরে জোরে চটকান| “আহহহহহঃ” চোখ বুজে কঁকিয়ে ওঠে শালিনী “কি ভাবে টিপছ বাপ্পি! আউচ! লাগছে তো!” “উউম্ম.. দুষ্টু মেয়েরা এটুকু শাস্তি তো পাবেই!”হেসে বলে রজতবাবু এবার শালিনীর স্তনজোড়া ডলতে ডলতে দু-হাতে মুঠো পাকিয়ে টিপে ধরেন, যাতে তাঁর দুইমুঠোর বাইরে ডিমের মতো গোল হয়ে বৃন্তসহ স্তনাংশ বেরিয়ে ফুলে ওঠে সুঁচালো দুটি পরিত্রাহী বোঁটা নিয়ে, স্তনদুটি এই অবস্থায় তিনি জোর করে পরস্পর সংবদ্ধ করেন| “আউচচ!” তার সুডৌল, পুষ্ট গ্রন্থিদুটি পিতা এমন যন্ত্রণাদায়ক ভঙ্গিতে টিপে ধরাতে গুঙিয়ে ওঠে শালিনী, পিঠটা অনেকখানি ধনুকের মতো বাঁকিয়ে ওঠায় সে বিছানা থেকে উঁচুতে”প্লিইইইস বাপ্পি!” অনুনয় করে সে “অমনভাবে টিপো না! আমি আর দুষ্টুমি করবো না অমন!লক্ষ্মী হয়ে থাকবো! উউঃ…উম্ম!” “উম্ম..” রজতবাবু এবার তাঁর দুহিতার দুখানি উদ্ধত স্তনের উঁচু উঁচু ঢিবি দুটি আর মুঠো না পাকিয়ে সেদুটিকে এবার নিজের দুই তালুর তলায় চেপে ধরেন, তারপর সেদুটি ওর বুকের উপর তালুদ্বয় দিয়ে রগড়ে রগড়ে সমস্ত নরম মাংস পিষ্ট করতে থাকেন পরম আশ্লেষে| “আঃ” পিতার এই আচরণে স্বতস্ফুর্তভাবেই শালিনী ঘাড় বেঁকিয়ে নিজের তীক্ষ্ণচি বুকটি কাঁধে ঠেকায়|

কন্যার স্তনজোড়ার পুষ্ট নরম মাংস নিবিড়ভাবে ডলতে ডলতে বেশ অনেকক্ষণ সময় কাটানোর পর এবার হঠাত দুহাতের তালু ও সবকটা আঙুল দিয়ে তিনি স্তন গ্রন্থি দুটি চেপে ধরেন| তারপর রিক্সার হর্ন টেপার ভঙ্গিতে চাপ দিতে শুরু করেন| ক্রমশ তাঁর টেপার গতি বাড়তে থাকে| একসময় তিনি কন্যার নরম ঢিবি দুটি অত্যন্ত দ্রুত গতিতে টিপতে থাকেন|

“আহ!” চোখ বুজে শালিনী অস্থিরভাবে পিঠ বেঁকিয়ে ওঠে তার স্তনদুটি নিয়ে পিতার এহেন অত্যাচারে, নাছোড়বান্দার মতো টিপছেন তিনি শালিনীর স্তনদুটি| সারাদিনের জমে থাকা ইচ্ছা আশ মিটিয়ে যেন মেটাচ্ছেন! বুকের দুটি মাংসখন্ডকে জ্বলন্ত অগ্নিপিন্ডের মতো লাগতে শুরু করেছে শালিনীর এবার! সে এবার আর নিষ্ক্রিয় না থেকে নিজের এমন যন্ত্রনাদায়ক অবস্থার উন্নতি করার জন্য মাথা তুলে দেয়ালে ঘড়ির দিকে তাকিয়ে আদূরেভাবে বলে “বাপ্পি, মা এসে পড়বে আর কিছুক্ষণের মধ্যেই! আমায় করবে নাতো?”

-“উম্ম্ম্হ..” দীর্ঘশ্বাস ফেলে দুহিতার উগ্র নগ্ন স্তন দুটি মুষ্টিমুক্ত করে সে দুটির মাঝে মুখ রেখে ওকে দুহাতে জড়িয়ে ধরে বাচ্চা ছেলের মতো আদূরে ভাবে রজতবাবু বলেন “উমমম.. কিন্তু আমার তো এখনো এই কবুতর দুটো চাখাই হলো না!”

-“উফ.. অতক্ষণ টিপবে, টিপে মুচড়ে মেরেই ফেলেছ ওদেরকে! মা আসলে না হয় তখন চেখ! মাকে দেখিয়ে দেখিয়ে!” শালিনী নরমভাবে বলে পিতার মাথায় হাত বুলিয়ে| গলায় চাপা, উদ্গত হাসি নিয়ে| “দুষ্টু মেয়ে আমার” রজতবাবু শালিনীর দুটি স্তনাগ্রে পরপর চুমু খেয়ে তীক্ষ্ণ অত্যাচারিত বোঁটাদুটি পরপর একবার করে চুষে ও কামড়ে নিয়ে উঠে পড়ে এবার ওর কোমর থেকে ওড়না, সালোয়ার, কামিজ সব খুলে ফেলে ওকে নগ্ন করেন| “উমমম” শালিনী আদূরেভাবে উল্টে গিয়ে উপুড় হয়ে শোয়| সুঠাম ফর্সা দুটি নিতম্ব উঁচু হয়ে থাকে “তারাতারি করো বাপ্পি! উমমম…” সে গুমরে| নিতম্বে উঁচু করে তোলে সামান্য… “হমমম..” রজত পাজামার দড়ি খুলে নিজের শক্ত মোটা পুরুষাঙ্গটি বার করে আনেন,..কন্যার উপুড় হওয়া শরীরের উপর উঠে আসেন| তারপর লোভ সামলাতে না পেরে উঁচু হয়ে থাকা ফর্সা দুটি নগ্ন নিতম্বে অপাঙ্গ নিজের পুরুষাঙ্গটি বোলাতে থাকেন তিনি, তারপর ডলতে থাকেন নিজের শক্ত দন্ড ওর নরম তুলতুলে নিতম্ব জোড়ায়, আরামে শির শিরিয়ে উঠে ঘরঘর করে ওঠেন তিনি! “উমমমম..” ভীষণ আদূরে স্বরে গুমরে উঠে শালিনী নিজের নরম ফর্সা নিতম্বে পিতার রগড়াতে থাকা পুরুষাঙ্গে নিতম্ব আরও ঠেলে ওঠে “কি হচ্ছে বাপ্পিইই… ঢোকাও না আ আ… মা এসে পড়..অআউউউউউহহহহঃ!!!” কন্যার কথা শেষ হবার আগেই নিতম্বের খাঁজ বরাবর নেমে ওর উত্তপ্ত যোনির মধ্যে এক ধাক্কায় পুরুষাঙ্গ ঢুকিয়ে দিতে ভীষণ শীত্কার করে ওঠে মেয়েটি দীর্ঘ প্লুতস্বরে| “অহাহঃ… আআআহঃ..” কন্যার অত্যন্ত চাপ, নরম-উত্তপ্ত যোনির সংক্ষিপ্ত অলিন্দের মধ্যে নিজের পুরুষাঙ্গ আমূল ঢুকিয়ে রজতবাবু পরম আবেশে গলতে গলতে ওর নগ্ন শরীরটির উপর শুয়ে জড়িয়ে ধরেন ওকে|

-“উউঅঃ,,,মম” গুমরিয়ে ওঠে শালিনী “বাপ্পিইইই..”

-“হ্র্ম্ম্ম” নিবিড় আরামে মন্থন করতে থাকেন এবার রজত দুহিতার একুশ বছরের নরম তনুটি|

এত আরাম ও সুখ সত্ত্বেও তাঁর মনে দীর্ঘশ্বাস পড়ে| শুধু স্তন দুটি নয়, শালিনীর অপূর্ব শরীরের সবকিছু এমনই সময় নিয়ে উপভোগ করতে চান তিনি,.. কিন্তু সময় বাধ সাধে| শালিনীর নরম ঘাড়ে মুখ গুঁজে ওর চুলের সুগন্ধি ঘ্রাণ টানতে টানতে, ওর উত্তপ্ত আঁটো যোনির অভ্যন্তরে লিঙ্গ ঠাসতে ঠাসতে অর্ নরম-উত্তপ্ত নগ্নতনুটি নিজের ভারী শরীরের তলায় পিষ্ট করে করে ওকে মন্থন করতে করতে আপাতত সুখের সাগরে তরী বাইতে থাকেন তিনি|

বাংলা চটি – ২৫৪

গল্পটি কেমন লাগলো ?

ভোট দিতে স্টার এর ওপর ক্লিক করুন!

সার্বিক ফলাফল 5 / 5. মোট ভোটঃ 3

এখন পর্যন্ত কোন ভোট নেই! আপনি এই পোস্টটির প্রথম ভোটার হন।

Leave a Comment