মায়ের পরপুরুষের সঙ্গলাভ [১]

হাই ক্লাস সমাজের পাকে পরে সহজ সরল বাঙালি মায়ের চরিত্র হারানো এই গল্পের পেক্ষাপট। আমাদের সমাজ ব্যাবস্থা যত আধুনিক হচ্ছে, প্রতিদিন তত বেশি করে ভালো ঘরের নারী রা নিজেদের চরিত্র হারিয়ে ফেলছে। এই গল্পঃ সেরকম এক নারী র জীবনে ঘটা সত্য কাহিনী র মিশেল। বাস্তবের সঙ্গে এর কোনো মিল খুঁজে পেলে, তা সম্পূর্ণ অনিচ্ছাকৃত।

প্রথম পর্ব
শর্মা আংকেল কে আমার একদম ভালো লাগে না। আমার মার সৌন্দর্য্যে মজে গিয়ে একটু বেশি তার সঙ্গে সব সময় ঘনিষ্ঠ হতে চায়। মা আগে এই অনিকেত শর্মা কে খুব একটা পাত্তা দিত না। কিন্তু যবে থেকে এই শর্মা আংকেল আমার বাপির বিজনেস পার্টনার হয়েছে। মার শর্মা আংকেল এর প্রতি ব্যাবহার তাই পুরো পাল্টে গেছে। শর্মা আংকেল শেষ ১ বছরে একটু একটু করে কাছাকাছি এসে মায়ের শরীর টা বর্তমানে বেশ ভালো রকম চিনে ফেলেছে, তবুও মা চক্ষুলজ্জা নীতি বোধ এখনও পুরোপুরি বিসর্জন দিয়ে উঠতে পারে নি। সে এখনও আংকেল এর সঙ্গে খোলাখুলি সব করতে সংকোচ বোধ করে, গোপনে আড়ালে আবডালে গিয়ে মিলন করে।
শর্মা আংকেল এর সঙ্গে যে মা যৌণ সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েছে এখবর বাইরের লোক এখনও কেউ কিছু জানে না, শর্মা আংকেলের সঙ্গে মার পার্টিতে ক্লাবে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে দারুন মাখামাখি দেখে অনেকেই এই বিষয় টা আন্দাজ করতে পারে কিন্তু মা ব্যাপার টা এখনও বাইরের সমাজের থেকে দূরে রেখেছে। মায়ের এই রাখ ঢাক বিষয় টি দেখে শর্মা আংকেল এখন হাসাহাসি করে। আঙ্কল মা কে বলে, ” পরক্রিয়া এখন আর কোনো অপরাধ নয়, এই রায় বেরিয়ে গেছে। আর আমরা একে অপরের সঙ্গে শুচ্ছি অনেক দিন তো হলো, এখনও তোমার এত ভয়ের কি আছে? বিশেষ করে রাজিব যখন সব কিছুই জানে, আর মেনে নিয়েছে।” মা মার জীবন নিয়ে ঘটা গল্প টা একটু গোরা থেকেই বলা যাক। তাহলে বুঝতে সুবিধা হবে।
আমার মা নন্দিনী রায় ৩৮ বছরের এক সুন্দরী সরল স্বাভাবিক গৃহ বধূ হিসাবে বেশ সুখেই দিন কাটাচ্ছিল। সে ভালো রবীন্দ্র সংগীত জানে, সঙ্গীত চর্চা করতে ভালোবাসতো। তার উপর ভালো শিক্ষিত বনেদি পরিবারে মানুষ হওয়ায় মূল্যবোধ,নীতি জ্ঞান মার অনেক কম বয়স থেকেই বেশ সচেতন। এই হাই ক্লাস পার্টি তে যাওয়া , ক্লাব আর পাবে মেলা মেশা হই চই করা মা বিশেষ পছন্দ করতো না। তার কাছে বিয়ের পর এই পথে ভেসে যাওয়ার অনেক প্রলোভন অনেক অনুরোধ এসেছে কিন্তু মা নিজের মূল্যবোধে এই এক বছর আগে পর্যন্ত স্থির থেকেছে।
আমাকে ও মা নিজের সাঁচে ঢেলে মানুষ করেছে। মার বিষয়ে আমার গর্বের সীমা ছিল না। কিন্তু সেই গর্ব আজ সব মাটিতে লুটিয়ে গেছে। শেষ এক বছরে মার জীবনে নাটকীয় ভাবে পট পরিবর্তন হয়েছে। যার শুরু হ হয়েছিল আমার বাবা র হাত দিয়ে। আমার বাবা রাজিব রায়(৪২) ছিলেন মার চরিত্রের সম্পূর্ণ বিপরীত। বাবা পার্টি ক্লাব এ বন্ধু বান্ধব দের সঙ্গে মেলামেশা, ড্রিঙ্কস করা ভীষন পছন্দ করতেন। ব্যাবসার কারণে তাকে পাঁচ ধরনের লোকদের তোয়াজ করে চলতে হতো। মা কে চেষ্টা করেও বাবা কোনদিন তার মনের মতন করে আধুনিক হাই ক্লাস সমাজের উপযুক্ত করে গড়তে পারে নি। তবে এটাও সত্যি শেষ কয়েক বছরে মা বাপির সন্মান রাখতে নিজেকে অনেকটাই নিজেকে ওপেন আপ করেছে। যার ফলে আস্তে আস্তে তার জীবনে অন্য এক পুরুষ এসেছে। সব শেষে আমার পরিচয় দেওয়া যাক। আমি সুরঞ্জন ১৮ বছর বয়সী ক্লাস টুইলফ এর স্টুডেন্ট। আমি আগাগোড়া শুরু থেকেই মার এই জীবন পরিবর্তনের সাক্ষী।
প্রায় দুই বছর আগে শর্মা আংকেল এর সঙ্গে আমার মায়ের প্রথম আলাপ হয় আমারই বার্থডে পার্টি তে। সেবার বাবা আমার বার্থ ডে টা খুব ধুম ধাম করে পালন করেছিল। প্রথমবার আমাদের বাড়িতে এত বড় মাপের পার্টি আয়োজন করা হয়েছিল, প্রচুর গণ্য মান্য অতিথি পার্টি তে উপস্থিত হয়েছিলেন। তাদের মধ্যে প্রথম সারিতে ছিলেন এই শর্মা আংকেল। যদিও উনি ওনার স্ত্রী কবিতা আন্টি (৪২) কে সঙ্গে নিয়েই এসেছিলেন। তবুও নিজের স্ত্রীর সামনেই আমার মার সঙ্গে একটু বেশি ঘনিষ্ট আলাপ জমাবার চেষ্টা করছিলেন। আমার মা অস্বস্তি বোধ করছিলো, কিন্তু বাপির সন্মানের জন্য শর্মা আংকেল কে কিছু বলতে পারছিল না। তার উপর শর্মা আংকেল এর জন্য বিশেষ করে ঐ পার্টি তে ঢালাও পানীয়র ব্যাবস্থা করা হয়েছিল। ড্রিঙ্কস নেওয়ার পর, শর্মা আংকেল আরো নির্লজ্জের মতো মার দিকে তাকিয়ে তাকে বেশ নোংরা ভাবে মাপছিল।
এক অতিথির হাত থেকে গিফট নিয়ে টেবিলে রাখার সময় অসাবধানবশত মার শাড়ি টা তার বুকের উপর থেকে সরে গেছিল। কয়েক মুহূর্তের জন্য মার বুক খোলা অবস্থায় এসে গেছিল। শর্মা আংকেল এর সেই দৃশ্য দেখে মুখের ভাব সম্পূর্ণ পাল্টে গেছিল। তার চোখ থেকে যৌণ লিপ্সা ঝড়ে পড়ছিল। আমি ওনার পাশের টেবিলে থাকে জিনিস টা লক্ষ্য করেছিলাম। আমার মা শাড়ি সরে গেছে সেটা বুঝতে পেরে অবশ্য সাথে সাথে নিজের শাড়ি ঠিক করে আবার আগের মতন ঠিক করে নিয়েছিল। কিন্তু শর্মা আংকেল তার মধ্যেই যা দেখবার দেখে নিয়েছে। সে সরাসরি বাপির কাছে গিয়ে বলেছিল,” রাজিব তোমার ওয়াইফ একাই ত আজ সবাইকে মাত করে দিচ্ছে। এরকম একটা সুন্দরী ওয়াইফ কে এতদিন বাড়ির ভেতরে বন্দী করে রেখেছ। ইট ইজ নট ফেয়ার। ওকে একটু বাইরে নিয়ে বেরোও। এত সুন্দরী স্ত্রী তোমার, তাকে পার্টি সার্টি তে সঙ্গে করে নিয়ে আসলে তোমার রেপুটেশন ই বাড়বে।” আমার বাবা এই কমপ্লিমেন্ট সাদরে গ্রহণ করলো, তারপর একটু হেসে মার বিষয়ে অনেক কিছু তথ্য আংকেল কে শোনালো। সেগুলো শুনতে শুনতে শর্মা আংকেল বেশ ইমপ্রেস হচ্ছিল, আর চোখে বার বার মার দিকে তাকাচ্ছিলো।
এই পার্টির বিষয় টা মা ভালো ভাবে মেনে নেয় নি। সবাই সেদিন যে যার বাড়ি ফিরে যাওয়ার পর বাবার সঙ্গে এই নিয়ে মার বেশ অশান্তি হয়। মার বক্তব্য ছিল, একটা স্কুলে পড়া ছেলের বার্থডে পার্টিতে সবাই এই ভাবে মদ খেয়ে মাতলামি করবে কেনো? এরপর শর্মা আংকেল ঘন ঘন আমাদের বাড়ি আসতে শুরু করলো। প্রথম প্রথম বাপি ই ডিনারের নেমন্তন্ন করে ডেকে আনত। তারপর থেকে উনি নিজেই আসতেন। শর্মা আংকেল এর আবার মদিরা ছাড়া চলে না। সেই কারণে আমাদের বাড়িতে সব সময় এর জন্য দামী বিদেশি মদ স্টক করে রাখার চল শুরু হয়। অবশ্য উনি যখন আসতেন একবারে খালি হাতে আসতেন না। আমাদের জন্য দামী গিফ্ট ও আনতেন। মার গিফট গুলো সব সময় স্পেশাল হতো আমাদের তুলনায়। অনিকেত শর্মা খুব ভালো কথা বলতে পারতেন। আস্তে আস্তে মিষ্টি মিষ্টি সব কথা বলেই মার মন জয় করে নিতে শুরু করলেন।
শর্মা আংকেল আর বাবার যৌথ উদ্যোগে আমার মা ঘরের চৌহদ্দি ছেড়ে একটু একটু করে বাইরের দুনিয়া তেও পদার্পণ করলো। সিনেমা দেখা, বাবার কিছু বন্ধুদের বাড়িতে যাওয়া, শপিং করা, মাঝে মধ্যে পার্লারে গিয়ে রূপের পরিচর্যা করা মা আস্তে আস্তে এই সব কিছু তে অভ্যস্ত হোয়া শুরু করলো। বার্থ ডে পার্টির চার মাসের মাথায় শর্মা আংকেল এর অনুরোধে তার একটা পার্টি তে বাবার সঙ্গে যেতেও রাজি হলো। আর ঐ পার্টির পর থেকেই আমার মার স্বভাব আর চরিত্রে আস্তে আস্তে কিছু বদল আসা শুরু করলো। শর্মা আংকেল সহ বাবার অন্যান্য বড়োলোক বন্ধু আর তাদের স্ত্রী দের সঙ্গে মার ভালো ঘনিষ্ঠ বন্ধুত্ব গড়ে উঠেছিল। তাদের সঙ্গে ওঠাবসা শুরু করতেই একদিন কবিতা শর্মা র আয়োজিত একটি লেডিজ পার্টি তে মা কে মিসেস শর্মার অনুরোধ আর সন্মান রাখতে প্রথম বার অ্যালকোহল ভর্তি গ্লাস হাতে নিয়ে তাতে ঠোঁট ভেজাতে হয়। এরপর খুব বেশি দিন মা এই মদ থেকে নিজেকে বাঁচিয়ে রাখতে পারে না।
শর্মা আংকেল দের পাল্লায় পড়ে মা কে ড্রিংক করার অভ্যাস তৈরি করতে হয়। আমার বাবার ও মার এই অধঃপতনের পিছনে প্রচ্ছন্ন আর প্রতক্ষ মদত ছিল। আরো দুই মাসের মধ্যে মা শর্মা আংকেল এর আরো কাছাকাছি চলে এসেছিল। অনিকেত শর্মা প্রায় প্রতি রাতেই আমাদের বাড়িতে নিজের office থেকে মদ খেতে আসত। আমাদের বাড়িতে তার আসর জমাতো। আর মা কে সেজে গুজে তাকে অভ্যর্থনা জানাতে হতো। শর্মা আংকেলের জন্য স্নাক্স তৈরি করে দিতে হতো। কখনো সখনো তার পাশে বসে বোতল থেকে তার গ্লাসে পানীয় ঢেলে দিতো। তার সঙ্গে হেসে হেসে দুটো কথা ও বলতো।
শর্মা আংকেল টাকা দিয়ে বাবা কে পুরো হাত করে ফেলেছিল। বাবার কিছু করার ছিল না। বাবার ব্যাবসার সে সময় যা হাল ছিল। মিস্টার শর্মার টাকা ছাড়া তার ব্যাবসা বাঁচতো না। ঘর বাড়ি সব নিলাম পর্যন্ত নিলাম হয়ে যেত। অনিকেত শর্মার কাছে নতি স্বীকার করা ছাড়া আর কোনো উপায় ও বাপি র কাছে ছিল না। বাবার ব্যাবসার সব পেপারস শর্মা আংকেল এর হেফাজতে চলে যাওয়ার সাথে সাথে আমার বাবা নিজের স্থাবর অস্থাবর সমস্ত সম্পত্তির উপর সম্পূর্ণ মালিকানার অধিকার হারিয়ে ফেলেছিলেন।
শর্মা আংকেল খুব উচু দরের খেলোওয়ার ছিলেন। যাতে নিজের বিবাহিত স্ত্রী কে শর্মা আংকেলের মতন মানুষের বিছানা তে পাঠানো র মত বিষয়েও বাবা কিছু না বলতে পারে সেই ব্যাবস্থা করে রেখেছিল। নিজের বোন অঞ্জলী কে বাবার পিছনে লেলিয়ে দিয়ে তার assistant বানিয়ে প্রথমে বাবার চরিত্র তাকে পুরোপুরি সর্বনাশ করলো। অঞ্জলী বাবাকে খুব সহজে নিজের জাল এ ফাসিয়েছিল। পর ক্রিয়ার স্বাদ পেতেই বাবা মা কে ছেড়ে বাড়ির বাইরে বেশি সময় কাটাতে শুরু করলো। মা এত কিছু ভেতরের খবর প্রথমে জানত না। পরে আস্তে আস্তে যখন জেনেছিল তখন শর্মা আংকেল তাকেও ফাঁসিয়ে ফেলে মার চরিত্রর সর্বনাশ করে ছেড়েছিল।।
মা ও শর্মা আংকেলের এইভাবে দিনের পর দিন ঘনিষ্ট হবার জন্য বার বার কঠিন পরীক্ষার সামনে দার করিয়ে দেওয়া মন থেকে পছন্দ করছিলো না। কিন্তু স্বামীর কথা ভেবে সরাসরি শর্মা আংকেল কে একটা থাপ্পর কষাতেও পারছিল না। বাবাকে শর্মা আংকেলের সমন্ধে কিছু বললেই বাড়িতে বাবা মার মধ্যে তুমুল অশান্তি হতো। শেষ মেষ মা বাবাকে কিছু বলাই ছেড়ে দিল। তার পর চোখের সামনে স্বামীর ব্যাবসার ৮০% শেয়ার শর্মা আংকেল কিনে নেওয়ার পর, মার আর কোনো কিছু করার থাকলো না। আর বাবাকে নিজের বিজনেস পার্টনার ঘোষণা করে, তাকে ব্যাবসার নানা কাজে ব্যাস্ত করে আরো ডেসপারেট হয়ে মা কে পাবার জন্য শর্মা আংকেল ঝাপালো। বাবা যখন উপস্থিত থাকতো না, শর্মা আংকেল কে সামলানো মার মতন সারাজীবন সরল সাধাসিধে ভাবে সংসার করা বিবাহিত নারীর পক্ষে দিন দিন কঠিন হয়ে পড়ছিলো।
এই ভাবেই একদিন আজ থেকে মাস ছয় আগে মার জীবনে চরম সর্বনাশ নেমে আসলো। ঐ দিনটা আমি কোনোদিন ভুলতে পারবো না। বাড়িতে নিজের ঘরে বসে ফাইনাল এক্সামের পড়া শোনা করছি। বাইরে খুব মুষল ধারে বৃষ্টি হচ্ছে। ঘড়িতে রাত দশটা বাজে, এমন সময় বাইরে একটা গাড়ির আওয়াজ কানে আসলো। গাড়িটা আমাদের বাড়ির বাইরে গেটের সামনে এসে থেমেছিল। পরক্ষণে আমার খেঁয়াল হলো। সন্ধ্যে বেলা মার একটা পার্টি ছিল। মা বাবা না থাকায়, পার্টি তে যাওয়ার ব্যাপারে না করে দিয়েছিল।
তারপর শর্মা আংকেল নিজে আমাদের বাড়িতে এসে মা কে রাজি করিয়ে পছন্দ সই দামী শাড়ি আর ম্যাচিং হাতকাটা লোকাট ব্লাউস পরিয়ে তাকে নিয়ে গেছিল। মার দেরি হচ্ছে দেখে আমি মনে মনে চিন্তিত ছিলাম। এমনিতে মা বেরোলে সাধারণত এতটা দেরি করে না। মা আংকেল এর সঙ্গে একাই গেছে, তার উপর বাবাও শহরে নেই। বিজনেস টুরে অঞ্জলী আন্টি সহ আরো দুজন বোর্ড মেম্বারের সঙ্গে মুম্বাই গেছিলো দিন দশেকের জন্য। চিন্তা হওয়া স্বাভাবিক। দরজা খোলা র শব্দ পেয়ে আমি আমার ঘরের বাইরে এসেছিলাম। বাইরে ড্রইং রুমের কাছে এসে যা দৃশ্য দেখলাম, আমার হাত পা ঠান্ডা হয়ে গেছিলো। মা যখন শর্মা আংকেল এর সঙ্গে বেরিয়েছিল তখন দিব্যি সুস্থ্য স্বাভাবিক ভাবেই বেরিয়েছিল কিন্তু যখন ফিরলো তাকে আর কিছুতেই স্বাভাবিক বলা চলে না।
সেই সময় মার প্রায় সেন্স ই ছিল না। সে ঠিক মত হাটতে পর্যন্ত পারছিল না। কোনরকমে নিজের পা টানতে টানতে আংকেল এর সাহায্যে গাড়ির ভেতর থেকে ঘরের ভিতর অবধি এসে পৌঁছেছিল। তার উপর দেখলাম মার পোশাক আশাক চুল সব অবিন্যস্ত। কেউ যেনো সেগুলো নিয়ে ভালো রকম খেলেছে তার পর সেটা আর মা গুছানোর সুযোগ পায় নি। মা আর শর্মা গাড়ি থেকে নেমে ভালো মতন ভিজে গেছিলেন। আংকেলের চোখ নেশায় লাল হয়ে ছিল। সে মা কে কোমরের কাছে হাত দিয়ে জড়িয়ে নিজের শরীরের সঙ্গে রেখে হাটছিলো। তার শার্টের বাটন সব খোলা অবস্থায় ছিল। প্যান্টের বেল্ট ও খোলা ছিল। মার শাড়ি টা ভিজে জব জব করছিল। শাড়ির সামনের পর্শন ট্রান্সপারেন্ট হওয়ায় শাড়ির উপর থেকেই ভেতরের শরীরের অবয়ব ভালো মতন ফুটে উঠছিল। শাড়ির অংশ বুক থেকে খানিক টা নেমে গেছিলো। বুকের বিভাজিকা স্পষ্ট দেখা যাচ্ছিল। মার শরীর টা ছিল মারাত্মক রকম সেক্সী। তার ,৩৬-৩০-৩২ ফিগারে ঐ ভিজে যাওয়া শরীর থেকে সেই রাতে যেনো আগুন ঝরছিল।
আঙ্কল আর মা আমাকে দেখেও যেনো না দেখার ভান করে সোজা সামনের বেডরুমে র দিকে এগিয়ে গেলো। তাদের পিছন দিক থেকে আরো ভালো করে দেখলে লক্ষ্য করলাম মার ব্লাউজের নট গুলো সব খোলা অবস্থায় পিঠের পাশে ঝুলছে, ব্রা এর লেস কাধের উপর থেকে অনেকটা নিচে নেমে এসেছে। ওদের পিছন পিছন আমিও ঐ বেডরুমের দরজা অবধি আসলাম। কিন্তু মার খবর নেওয়ার জন্য মার কাছে পৌঁছানোর আগেই মার শাড়ির আঁচল টা যেটা খুব আলগা ভাবে মার ব্লাউজের উপর ঝুলছিল সেটা একটা আলতো টান দিয়ে মেঝে তে লুটিয়ে ফেলে দিয়ে , আমার মুখের উপর শর্মা আংকেল একটা রহস্য ময় হাসি হেসে দরজা টা সটান ভেতর থেকে বন্ধ করে দিল। শর্মা আংকেল ঐ ভাবে দরজা বন্ধ করবার পর, ওরা ভেতরে কি করবে সেটা জানার আমার খুব কৌতূহল হলো। চোরের মতন নিজের মায়ের ঘরের দরজায় কান পাতলাম। কয়েক সেকেন্ড বাদেই , মার বেডরুমের খাট টা বেশ সজোরে নরে উঠবার একটা আওয়াজ পেলাম। তারপর ঘরের ভেতর থেকে খাটের উপর একটা মৃদু ধস্তা ধস্তির শব্দ ভেসে আসলো। তার কয়েক মুহূর্ত বাদে মার একটা মৃদু আর্তনাদ, আআআআহহহহ না… আহহহ হহহ… নাহ্হ্হ্হ্হ্… আংকেল এর ধমক। কথাগুলো বেশ জোরে বলেছিল। ঘরের বাইরে থেকে স্পষ্ট শুনতে পারলাম।
কাম অন ডার্লিং, হোয়াট আর ইউ ডুইং? এত নড়া চড়া করো না , এখন থেকে লক্ষী মেয়ের মতো যা যা বলবো তাই তাই করো দেখবে তুমিও মস্তি পাবে আমার আনন্দ ও ডবল হবে ।।
মা কি বললো শুনতে পারলাম না। কিন্তু মার কথা শুনে শর্মা আংকেল বেশ খুশি হলেন।
উনি বললেন, that’s my good girl, now you are mine.,”” একটা সত্যি কথা বলছি, শুনে রাখো, আমি রাজীবের ব্যাবসার উপর না জাস্ট তোমার উপর ইনভেস্ট করেছি। আর এখন থেকে আমি আমার রিটার্ন পেতে শুরু করেছি। কিচ্ছু ভেবো না ডারলিং, এত জাস্ট শুরুয়াদ আছে, দেখো না তোমাকে কিভাবে সব শিখিয়ে পড়িয়ে তৈরি করে নি। রাজিব তো একটা অকর্মণ্য এত দিনে নিজের এত সুন্দর একটা বউকে নিয়ে কিছু করতে পারলো না। আমাকে সব কিছু করতে হবে। আমার একটা রিসোর্ট ডাইডন্ড হারবারে খালি। চলো না নন্দিনী, ওখানে আমার সঙ্গে গিয়ে কটা দিন কাটিয়ে আসবে। কি ডারলিং আমার সঙ্গে যাবে তো?
তার পর আবার মার গলা শুনতে পারলাম না। শুধু স্বর্গোক্তির মতন না শব্দ তাই ঘরের বাইরে ভেসে এলো। এর জবাবে আংকেল বেশ জোরালো আওয়াজ এর সাহায্যেই নিজের মনের কথা প্রকাশ করলো। শর্মা আংকেল বললো, ” কি বললে, তুমি পারবে না। হা হা হা হা…তোমার না কে হ্যাঁ করতে হয় সেটা অনিকেত শর্মা বহুত আচ্ছা তালিকা সে জানতা হে। কাল শুভা তাক টাইম দিলাম। এর মধ্যে আমার সঙ্গে ঘুরতে যাওয়ার ব্যাপারে হ্যা না বললে আমি তোমার বেডরুম ছেড়ে বেরোব না।”
এর পর আর আঙ্কল দের কোনো কথা শোনা গেলো না। আমি আরো পাচ মিনিট যন্ত্র র মতন ঐ বেডরুমের দরজা তে কান পেতে দাড়িয়ে ছিলাম। কিছু মুহূর্ত পর খাট টা বেশ একটানা ভাবে জোড়ে জোড়ে নড়ার শব্দ আসছিলো। আর ঘরের ভেতর থেকে বাবা যখন মা কে আদর করতো যেরকম আওয়াজ বার হতো ঠিক সে রকম আওয়াজ আসতে লাগলো। তবে মা বাবার তুলনায় শর্মা আংকেল এর সঙ্গে শুয়ে একটু বেশিই শব্দ বার করছিল। খাট টা ও বেশ জোড়ে জোড়ে নড়বার শব্দ আসছিলো। আমার এসব শুনতে ভালো লাগছিল না। আমি মন খারাপ করে নিজের ঘরে ফিরে আসলাম। ফিরে এসে আমিও বই খাতা সব গুছিয়ে শুয়ে পরলাম। বিছানায় শুয়ে মার কথা ভেবে ভেবে ঘুম আসছিলো না।।
বার বার মন চলে যাচ্ছিলো মার বেডরুমের ভিতরে কি চলছে সেই বিষয়ে। শর্মা আংকেল সেই দিন ই প্রথম আমাদের বাড়িতে রাত কাটাচ্ছিল। তাও আবার আমার বাবার শহরের বাইরে থাকার সুযোগে , আংকেল শুয়েছিল আমার মার সঙ্গে এক রুমের ভেতর এক বিছানাতে। প্রথম বার এত সব কাণ্ড চোখের সামনে দেখে আমার মাথা ভো ভো করছিল । বার বার মনে হচ্ছিল এই শর্মা আঙ্কল লোক টা খারাপ। সে মা র দিকে সবসময় কিরকম নোংরা চোখে টাকায়। শর্মা আংকেল এসে শুধুমাত্র আমার বাবা মা কে খারাপ করছে সে তো নয় তার সাথে আমাদের বাড়ির পরিবেশ টাও খারাপ করছে। মাও নিজের ইচ্ছায় শর্মা আংকেলের সঙ্গে এভাবে ঘনিষ্ঠ সময় কাটাচ্ছে না। এই সব সাত পাঁচ ভাবতে ভাবতে আমি ঘুমিয়ে পড়েছিলাম। ঘুম যখন ভাঙলো তখন ঘড়িতে বাজে সকাল সাড়ে সাতটা। তারপর আটটা বাজলো, গীতা দি আমাদের কাজের মহিলা এসে যখন কাজ ও শুরু করে দিয়েছে তখনও দেখলাম ওদের ঘরের দরজা ভিতর থেকে বন্ধ।
গীতা দি আমাকে জিজ্ঞেস করলো,
আচ্ছা দাদাবাবু কোথায় একটা গেছিলো, কাল রাতে ফিরেছেন তাই না?
আমি কি উত্তর দেব ভেবে পেলাম না। গীতা দি মায়ের ঘরের সামনে টা ক্লিন করছিল এমন সময় বেডরুমের দরজা টা ভেতর থেকে খুলে গেলো। ভেতর থেকে পুরো টপলেস অবস্থায় just ekta short pore বেরিয়ে আসলো শর্মা আংকেল। গীতা দি সামনে ঝুঁকে কাজ করছিল। তাই শর্মা আংকেল এর মুখ দেখতে পারছিল না। সে আংকেল কে আমার বাবা মনে করে জিজ্ঞেস করলো, ” দাদাবাবু তোমার কফি টা এখন করে দেবো, নাকি আধ ঘণ্টা পরে।”
আঙ্কল বললো, “কফি টা এখন ই দাও, কফি না খেলে রাতের হাং ওভার টা কাটবে না। Good morning Suro ( আমার ডাকনাম) তুমিও সকালে উঠে পড়েছ।” বাবার বদলে আংকেল কে দেখে গীতা দি চমকে উঠলো, তারপর মুখ তুলে তাকে টপলেস অবস্থায় দেখে শিউরে উঠে লজ্জায় সামনে থেকে সরে কিচেনে চলে গেলো।
গীতা দির ব্যাবহারে, নিজের টপলেস অবস্থায় ঘুরে বেড়ানোর পরেও শর্মা আঙ্কল এর কোনো ভুক্ষেপ ছিল না। drawing রুমে এসে সোফায় বসে নিউজপেপার এর পাতা উল্টাতে লাগলো। আমি বেডরুমের আধ খোলা দরজা পেরিয়ে ভেতরে এসে বিছানার উপর চাইতেই আটকে উঠলাম। আমার মা একটা বেডশিট জড়িয়ে কোনরকমে নিজের শরীরের উপরের দিকে র অংশ ঢাকা দিয়ে সম্পূর্ণ নগ্ম অবস্থায় হাত পা ছড়িয়ে নিচ্ছিন্তে চোখ বন্ধ অবস্থায় শুয়ে আছে। তার বুকের কাছে চাদর সরে গিয়ে বুকের দাবনার উপরে র অংশ বেরিয়ে পড়েছিল। আমি সেখানে টাটকা নখের আঁচড় কাটা দাগ লক্ষ্য করেছিলাম। দাঁত বসানোর দাগ ও লক্ষ্য করেছিলাম।
মা ঐ অবস্থাতেই একটু নড়া চড়া করতেই আমি ভয় পেয়ে কোনো শব্দ না করে বাইরে চলে আসলাম। শর্মা আংকেল সারাদিন টা আমাদের বাড়িতেই কাটালেন। মা সাড়ে বারোটায় বিছানা ছেড়ে উঠে বাথরুমে গিয়ে ঢুকলো। আস্তে আস্তে হাং ওভার কাটিয়ে ফ্রেশ হয়ে মা যখন একটা স্লিভলেস নাইটি পরে বাইরে বেরলো, আংকেল এর মুখে হাসি ফুটলো। পরে জেনেছিলাম ঐ বিশেষ হাতকাটা সতিন পিঙ্ক কালারের নাইটি টা আংকেলের ই গিফট করা। স্নান করে বেরোনোর পর দেখলাম, মার জড়তা অনেক তাই কেটে গেছে। চুপ চাপ লাঞ্চ সেরে যখন শর্মা আংকেলের ইচ্ছে মতন ড্রইং রুমে বসে ড্রিঙ্কস রেডী করছে, এমন সময় গীতা দি এসে কঠিন কথা টা মুখের উপর বলেই দিল।
মা কে গীতা দি বললো, ” বৌদি আজকাল তোমার সংসারে এসব কি শুরু হয়েছে। তুমি তো এরকম ছিলে না। তুমি যা করছো ঠিক করছো না। সব জিনিস সবার জন্য না। দোহাই বৌদি আগের মতন শক্ত হাতে তোমার সংসারে র হাল ধর, ভুল যা করছো শুধরে ফেলো। নয়ত এত অনাচার চোখের সামনে দেখে আমি আর বেশি দিন তোমার বাড়িতে কাজ করতে পারবো না। এই আমি বলে দিলুম।।” মা গীতাদির কাছে এত বড় সত্যি কথা স্পষ্ট ভাবে শুনতে পাবে আশা করে নি। লজ্জায় তার মাথা হেঁট হয়ে গেছিলো। সে ড্রিঙ্কস বানানো বন্ধ করে চুপ চাপ মুখ নামিয়ে বসে রইলো। এমন সময় শর্মা আংকেল এসে বললো, কী হলো কী নন্দিনী, আমার জন্য ড্রিঙ্কস রেডি করো, কী ভাবছো?
মা: গীতা দি ঠিক কথা বলেছে, যা হচ্ছে একদম ঠিক হচ্ছে না। আমি এত টা নিচে নেমে গেছি, ছি ছি…!
শর্মা আংকেল বলল, ধুস, তুমি তোমার বাড়িতে কাজ করতে আসা স্টাফ কি বললো তাই নিয়ে সেরিয়াসলি ভাবছো, সত্যি তুমিও না। এক কাজ কর, এই বড়ো বড়ো কথা বলা পুরনো লোক তাকে এক্ষুনি ছাড়িয়ে দাও।
মা: এটা হয় না শর্মা জী, গীতা দী আমার এখানে অনেক বছর হলো কাজ করছে, আমার ফ্যামিলির মতো হয়ে গেছে। সে যখন বলছে, আমি ভুল ই তো করছি।
শর্মা জী: ওহ কম অন, শুধু ইমোশনাল ফুলের মতন কথা বলো না। আমার কথা শোন। রাজীব থাকলেও তোমাকে একই কথা বলতো। তাছাড়া আমি তো বলছি। আমি কাল কেই তোমাদের মা ছেলের দেখা শোনা করার জন্য দুজন ট্রেন্ড লোক পাঠাচ্ছি। একজন ২৪ ঘণ্টা এই বাড়িতেই থাকবে, তোমাকে সব কিছুতে হেল্প করবে, সে ভালো ম্যাসেজ জানে, ড্রিঙ্কস বানাতে জানে, দরকার পড়লে গাড়িও চালিয়ে দেবে। বাড়ির সব কাজ সময় মত করে দেবে, আর তোমার ছেলের ও দেখা শোনা করবে। আর আরেকজন হলো রাধুনী । সকাল থেকে সন্ধ্যা অবধি থাকবে, তুমি যা চাইবে তাই করে খাওয়াবে । দেখবে তোমার বলার আগেই সব কাজ কেমন রেডি হয়ে যাবে। সব থেকে বড় কথা তারা তোমাকে এরকম জ্ঞান শোনাবে না। নাও এইবার ড্রিঙ্কস দাও, গলা শুকিয়ে গেছে। তুমিও বেশি না ভেবে এক পেগ নাও। দেখবে অনেক টা বেটার ফিল করবে। মা শর্মা আংকেল এর কথা মত ড্রিঙ্কস নিল। তারপর এসি টা বেশ বাড়িয়ে দিয়ে মায়ের গায়ে গা লাগিয়ে ঘনিষ্ট ভাবে বসলো। ড্রিংক খেতে খেতে একটা হাত মায়ের থাই তে আর অন্য একটা পিঠের উপরে ঘুরতে লাগলো।
এইভাবে মায়ের ব্রেইন ওয়াষ করে গীতা দী কে শর্মা আংকেল তাড়িয়েই ছাড়লো। পরের দিনই শর্মা আংকেলের পাঠানো নতুন লোক এসে গেলো। শর্মা আংকেল এর মতন দুটো লোকের একজন কেও আমার পছন্দ হলো না। ২৪ ঘণ্টার স্টাফ টি ছিল ইউপি র বাসিন্দা। আর রান্নার লোক সুদেব কে পুরো বাউন্সার গোছের দেখতে। সে উড়িশ্যার লোক। ২৪ ঘণ্টার স্টাফ এর নাম ছিল মনোজ। মার উপর স্পাই করার জন্যই মনোজ কে শর্মা আংকেল আমাদের পাঠিয়েছিল। তাকে থাকার জন্য আমাদের বাড়িতে একটা গেস্ট রুম দেওয়া হলো। প্রথম দিন এসেই মনোজ মার সঙ্গে বেশ ভাব জমিয়ে ফেললো।

দ্বিতীয় পর্ব
আমার মা নন্দিনী রায় প্রথম বার পর পুরুষের সঙ্গে রাত কাটানোর পর কোনো ভাবে আর সুস্থ্য স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে পারলো না। হাই ক্লাস সমাজ জীবনের মোহ বাবার মতন আমার মা কেও আস্তে আস্তে নিজের চরিত্রের চরম সর্বনাশ করার পথে ঠেলে দিয়েছিল। স্বামী পুত্র সংসারের প্রতি আগের সেই টান ও আস্তে আস্তে আলগা হচ্ছিলো। মা লোকচক্ষুর ভয়ে বাড়ির বাইরে অনাচার করতে রাজি ছিল না।
আমাদের বাড়ি র ভেতরেই শর্মা আঙ্কেল মা কে নিয়ে একান্ত অন্তরঙ্গ মুহূর্ত কাটাতে শুরু করার পর মায়ের জীবনে নতুন অধ্যায় শুরু হয়। পরপুরুষ কে নিজের বাড়ির নিজের বেড রুমের ভেতরে জায়গা করে দেওয়ার পর আমাদের বাড়ির পরিবেশ তাও মা দের পার্টি ক্লাবে দেদার খাওয়া অ্যালকোহলের মতন একই রকম বিষাক্ত হয়ে উঠেছিল।
শর্মা আংকেলের বন্ধুর পার্টি থেকে রাত নেশাতুর ভাবে ফেরার পর, মা আরো বেশি করে আংকেলের কথায় ওঠা বসা শুরু করলো। মা এমন ফাসা ফেসেছিল আঙ্কেল এর কথা না শুনে তার কাছে অন্য কোনো উপায় ও ছিল না। আংকেল এর পছন্দ করা দুজন লোককে মা বাড়িতে চট পট কাজে বহাল করলো। এই দুজন নতুন হাউস স্টাফের মধ্যে মনোজ বলে যিনি ছিলেন তিনি ভীষণ ই বুদ্ধিমান আর চটপটে ছিলেন। তার বয়স ছিল অল্প, ২৯-৩০ বছর, মাঝারি হাইট।
শর্মা আংকেলের এর মতন ওতটা ফরসা সুপুরুষ দেখতে না হলেও, মোটের উপর ভালই দেখতে। সে আমার মার সঙ্গে অল্প সময়েই বেশ ভাব জমিয়ে ফেললো। বাড়ির পুরনো লোক গীতা দির পরিবর্তে এসে বাড়ির সব কাজ কর্ম মনোজ ভালই সামলে দিচ্ছিলো। শর্মা আংকেল যেমন বলেছিল, মনোজ আসার পর দেখা গেল যে, ও সত্যি বেশ ভালো বডি ম্যাসেজ করতে জানে।
নিয়মিত পার্টি আর ক্লাবে বেরোনোর ফলে মার মাঝে মধ্যেই গা হাত পা কোমর এর মাসল ব্যাথা করতো। মনোজ মা কে বিছানায় শুইয়ে ভালো করে বডি ম্যাসেজ করে তাকে আরাম দেয়া শুরু করেছিলো। এই ভাবে অর্ধ নগ্ন অবস্থায় বিছানায় উপুড় হয়ে শুয়ে মনোজের থেকে প্রায় প্রতিদিন মিনিট ৪০ ধরে ম্যাসেজ নেওয়া মার প্রায় নিয়মিত অভ্যাস বনে গেলো।
এই ম্যাসেজ নেওয়ার ব্যাপারে মা কোনো রাখঢাক রাখতো না, দরজা খোলা থাকত। আমি বাড়িতে থাকলে এমনিতেই লজ্জাতে ম্যাসাজ নেওয়ার সময় ঐ দিক টা মারাতাম না। মনোজ খোলাখুলি ভাবে সময় নিয়ে মার বেডরুমে এসে কোনোদিন ৪০ মিনিট কখনো কখনো একঘন্টা ধরে ভালো করে ম্যাসাজ করে মায়ের শরীরের মাসেল গুলো লুজ করে দিতো। এতে মা আরাম যেমন পেতো, তেমনি দামী হার্বাল সুগন্ধি তেল দিয়ে নিয়মিত ম্যাসেজ নেওয়ার ফলে দিন দিন মার ত্বকে জেল্লা বাড়ছিল। যত দিন গেলো মা মনোজের সামনেও সহজ হয়ে উঠলো।
একদিন মার ম্যাসাজ নেবার সময় আমি মায়ের ঘরের সামনে দিয়ে পাস করছিলাম, এমন সময় কিছু কথা কানে এলো, আমি দু মিনিটের জন্য দাড়িয়ে গেলাম মা সবে মাত্র নিজের হাউস কোট খুলে বিছানায় গিয়ে শুয়েছে, এমন সময় মনোজ বললো, দিদি সাহস করে, একটা কথা বলবো? মা মুখের দিক থেকে পিছন ফিরে নিজের ব্রায়ের দিকের লেস খুলতে খুলতে বললো, ” হ্যা বলো।”, মনোজ বললো, ” দিদি, আমি আগে মিসেস মালিয়ার বাড়িতে দুই বছর কাজ করেছি। Maliya ম্যাডাম আমাকে দিয়ে একটা বিশেষ ম্যাসাজ খুব করাতেন, আমার খুব ভালো লাগবে যদি আপনাকে সেটা করে দেখাতে পারি।” মা হেসে বলল, ” ওহ তাই বুঝি, আমাকে নতুন ম্যাসাজ দেখিয়ে আরো ইমপ্রেস করবে, কি তাই তো,” ” ঠিক আছে, পারমিশন দিলাম। দেখাও কি ম্যাসাজ দেখাবে। আই অ্যাম রেডী।”
মনোজ বললো, ওকে দিদি, কিন্তু এই বিশেষ ম্যাসেজ টা করতে হলে আপনার পাশাপাশি আমাকে ও শার্ট খুলে টপলেস হতে হবে। নাহলে এটা করা যাবে না। এই ম্যাসাজ ব্যাংককে ভীষন পপুলার, যারা জানে তারা ওখানে শুধু এই ম্যাসাজ নিতেই যায়। মিসেস মালিয়া ব্যাংকক থেকে ফিরে এটাই নিতে পছন্দ করতেন। একবার এই ম্যাসাজ নিলে আপনার স্তন মন সব চুস্ত হয়ে যাবে। ”
মা কিছুক্ষন চুপ থাকার পর বললো, ঠিক আছে, বলছো যখন দেখাও তোমার ম্যাজিক। শুরু করার আগে, তুমি এক কাজ করো, দরজা টা বন্ধ করে দাও। তুমি তো জানো, আমার ছেলে সুরো আজ বাড়িতেই আছে, যদিও আজকাল আমার এদিকে খুব একটা প্রয়োজন ছাড়া আসে না। তাও কোনো রিস্ক নেওয়া ঠিক হবে না। দরজা বন্ধ করে নিছিন্ত ভাবে এসে শুরু করে দাও।”
আমি এই কথা শুনে আর দাড়ালাম না। মার এরকম অধঃপতন দেখে কষ্ট হচ্ছিল তাই চুপ চাপ নিজের ঘরে চলে আসলাম। সাধারণত ৩০-৪০ মিনিট ম্যাসাজ নেওয়ার পর মা একবার শাওয়ার নিতে যেত। আর তখন মনোজ দরজা দিয়ে মার রুমের বাইরে চলে আসতো। সেদিন মা প্রায় দেড় ঘণ্টা ধরে মনোজের সঙ্গে নিজের বেডরুমে দরজা বন্ধ অবস্থায় কাটিয়ে ফেললো, না মনোজ তাড়াতাড়ি বাইরে এলো না মা শাওয়ার নিতে গেলো।
দেড় ঘণ্টা বাদে শাওয়ার না নিয়েই শুধু মাত্র একটা টাওয়েল জড়িয়েই মনোজকে নিয়ে নিজের বেডরুমের বাইরে বেরিয়ে এলো। বাড়িতে মায়ের পাশের রুম তাই ছিলো আমার। সজোরে দরজা খোলার শব্দ পেয়ে আমি ঘরের বাইরে এসে একটা কোন দেখে দাড়িয়ে মা আর মনোজের কার্যকলাপ দেখতে লাগলাম। আমি লক্ষ্য করলাম ম্যাসেজ নিয়ে মা মনোজের উপর ভীষন রকম সন্তুষ্ট।
টাওয়েল পরেই ড্রইং রুমে বসে ফ্রুট জুস খেতে খেতে দরাজ গলায় জানিয়েছিল, মনোজ ও টপলেস অবস্থায় মার সঙ্গে বেরিয়েছিল। মনোজের সেক্সস অর্গান টা মায়ের শরীরের ছোয়া পেয়ে ফুলে ফেঁপে ঢোল এর মতন বড়ো হয়ে উঠেছিল। দূর থেকে আমি ওটা স্পষ্ট দেখতে পেয়েছিলাম। মা আরো ভালো ভাবে সামনে থেকে ওর খাড়া হওয়া পুরুষাঙ্গ দেখেছিল, আর দেখার পরেও ওর পাশে দাড়িয়ে কথা বলছিল।
মা প্রথমেই বলেছিল,
” মনোজ, আই অ্যাম রিয়েলি ইমপ্রেস। তুমি সত্যি ম্যাজিক জানো , ইট ওয়াজ লট অফ ফান টুডে, এটা করার পর সত্যি ভীষন হালকা লাগছে। এত আনন্দ অনেকদিন পাই নি। আমার এটার দরকার ছিলো। থ্যাংকস এ লট। এবার থেকে মিসেস মালিয়ার মতন তুমি আমাকে এই স্পেশাল ম্যাসাজ টাই করাবে। বুঝেছ?” মনোজ হেসে রিপ্লাই দিলো, “আমি জানতাম দিদি, এই স্পেশাল ম্যাসাজ আপনার ভালো লাগবেই। তবে একটা কথা বলতে বাধ্য হচ্ছি। এর আগে যাদের কেই এই ম্যাসাজ করেছি সবাই এই ম্যাসাজ নেওয়ার সময় পাগলের মতো আচরণ করতো। আমার রস বের করে নিংরে তবে শান্ত হতো, আপনি এই দিক থেকে বেশ সজ্জন ভদ্র বলতে হবে। আমার সঙ্গে কিছুই করলেন না। নিজে নিজেই প্লিজার নিলেন। এর আগেও ম্যাসাজ নেওয়ার সময় শান্ত ই ছিলেন। আজকেও আপনি একটি বারের জন্য ও নিজের নিয়ন্ত্রণ হারালেন না। আপনার মতন ম্যাডাম পেয়ে সত্যি লাকি। আপনাকে আজ কিছুটা আনন্দ দিতে পেরে আমিও ভীষণ সন্তুষ্টি পেয়েছি, তা দিদি, আপনি কি রাতেও আমাকে এক্সপেক্ট করছেন। আপনি ডাকলেই কিন্তু আমি রুমে চলে আসবো। আজকের পর আমি সব কিছু করতে পারবো আপনার জন্য। সব কিছু।”
মা বললো, ” না মনোজ আপাতত দিনের বেলায় যত খুশি তোমার ম্যাজিক দেখাও, সন্ধ্যের পর রাতের দিকে শর্মা জী রা আসবে। ওদের সাথেই আমাকে ব্যাস্ত থাকতে হবে। নাহলে ওদের ইগো হার্ট হবে। তুমি তো থাকবেই। এরপরে রাতে কোনোদিন ফ্রি থাকলে আমি কল করলে ইউ হ্যাভ মাস্ট কম ইন মাই রুম। রাতে আমার বিছানায় তোমার মাজিক কতটা কাজ করে আমি অবশ্যই টেস্ট করে দেখতে চাই, “।
মনোজ বললো, ” দিদি আপনি যা বলবেন তাই করবো। আপনাকে খুশি করা আমার ডিউটি। যা করবো মন থেকেই করবো, আপনি ও আমার কোম্পানি এঞ্জয় করবেন। এখন আপনার কি লাগবে। স্নান করবেন নিচ্ছয়।” মা উত্তর দিলো,” হ্যাঁ এই দেখো তোমার সঙ্গে এইভাবে শুধু এই টাওয়েল পরেই বেরিয়ে পড়লাম, এই মা… দেখেছো, কিছু পড়ার কথা এতক্ষন খেয়াল ও করি নি। তুমিও কিছু বললে না, যে দিদি ড্রেস ছাড়াই বেরিয়ে যাচ্ছেন রুম ছেড়ে, ছি ছি। স্নান তো করতেই হবে। আমার গিজারে গরম জল টা রেডি হয়ে কিনা একটু দেখবে মনোজ।”
হ্যা এক্ষুনি দেখছি, তবে একটা জিনিষ বলতেই হবে, আপনাকে এই টাওয়েল এ যা লাগছে না মাইরি, মাশাল্লা, আপনাকে খালি দেখতেই ইচ্ছে করছে। তাই আপনাকে কিছু পড়ার কথা বললাম না। আর পাঁচ মিনিট পাড়লে একটু বসুন না আমার সাথে” আমি ভেবেছিলাম মা হয়ত রেগে যাবে মনোজ এর এই কথা শুনে, কিন্তু মা রেগে গেলো না, বেশ হালকা ভাবে ইয়ারকির ছলে বললো, “এতক্ষন ধরে আমার সব কিছু দেখেও তোমার মন ভরে নি দেখছি। আজকের জন্য অনেক দেখেছো। বাকিটা কাল ম্যাসাজ করবার সময় দেখে নেবে, চাইলে করতেও পারো, আই ডোন্ট মাইন্ড এনিথিং। আফটার অল আফটার টুডে ইউ হ্যাভ আচ্ছিইভ ইট।”। এই ভাবে কিছুদিন যেতে না যেতে মনোজ এর সঙ্গেও মা শারীরিক যৌন সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ল।
বাবা শর্মা আঙ্কেল এর পর মনোজ কে ধরলে এটা মার জীবনে তিন নম্বর পুরুষ ছিল, যে মার শরীর টা ভালো করে চিনে গেছিলো। মনোজের মতন স্মার্ট করিৎকর্মা মতন লোক, আমাদের বাড়িতে ২৪ ঘণ্টা থাকতে শুরু করার পর, মা বাড়ির সংসারের কাজ থেকে অনেকটা ঝাড়া হাত পা হয়ে গেছিলো। মা অনেক বেশি তার সাবেকী গৃহবধূর খোলস ছেড়ে আধুনিকা হতে আরম্ভ করেছিল।
বাড়ির কাজ সংসারের কাজ সব মনোজ আর সুদেব সামলে নেওয়ায় মা নিজের জন্য প্রচুর সময় বের করতে শুরু করলো। পার্লার সালোন এ গিয়ে নিয়মিত রূপ চর্চা শুরু করলো। যার ফল স্বরূপ মায়ের রূপ আর লাবণ্য যেন দিন দিন আরো খুলতে লাগলো। মা কে কোনো কাজ আর আগের মতন করতে দিত না। তাই বাড়ির কাজ করবার সংসার এর টুকি টাকি ব্যাপারে নজর রাখবার অভ্যাস তাই মার নষ্ট হয়ে গেলো।
মার রবীন্দ্র সঙ্গীত গাওয়া আর আমার পিছনে সময় দেওয়া সব কিছু ভালো অভ্যাস যা কিছু ছিল আস্তে আস্তে সব বন্ধ হয়ে গেলো। মা শর্মা আংকেল দের পছন্দের ছাচে নিজেকে গড়তে লাগছিল। সে যত নিজেকে সুন্দর পরিপাটি করে রাখা শুরু করলো, শর্মা আংকেল তাকে তত বেশি ভালোবাসায় ভরিয়ে দিচ্ছিল। কথায় কথায় দামী গিফ্ট কিনে দেওয়া তো ছিল, যৌণ সম্পর্ক টা একটা পরিপূর্ণ রূপ পেতেই, আংকেল আমার মা কে হাত খরচের জন্য বেশ মোটা অঙ্কের টাকা দেওয়া শুরু করলো।
মায়ের মতন নারী যতই আধুনিক উচ্চ অভিজাত শ্রেণীর সঙ্গে মানানসই হচ্ছিলো, ততই আমার কাছে দিন দিন কেমন জানি অচেনা হয়ে যাচ্ছিলো। তার সাজ গোজ , চলা ফেরা কথা বার্তার ধরন খুব দ্রুত আর পাঁচটা হাই সোসাইটি ওম্যান দের মতন হয়ে যাচ্ছিল। বাড়ির থেকে বাইরে হাই ক্লাস সমাজে নিয়মিত মেলামেশা করতেই নিজেকে ব্যস্ত করে ফেললো। তার ব্যাক্তিগত জীবনে র পরিসরে প্রচুর নতুন মানুষ চলে এসেছিল। যাদের কে মা একটা সময় তাদের চরিত্রের জন্য এড়িয়ে চলতো ।
বাবাকে নানা কাজে ব্যাস্ত রেখে আর নিজের খুড়তুতো বোনের সঙ্গে অ্যাফেয়ার করিয়ে দিয়ে শর্মা আংকেল মার সঙ্গে অবাধ মেলামেশা শুরু করেছিল। সে যখন খুশি তখন এসে মা কে নিজের মর্জি মত ব্যাস্ত রাখতো, সপ্তাহে অন্তত দুই তিন দিন মার সঙ্গেই এক ঘরে থেকে যেতো। যতক্ষণ ইচ্ছে সে আমাদের বাড়িতে থেকে মার সঙ্গে একান্তে সময় কাটালেও বাবা তাকে একটা কথাও বলতে পারতো না। মার চোখ থেকে বাঁচতে আঙ্কেল যেদিন বাড়িতে আসতো সেদিন বাবা বাড়ি ফিরতো না।
এছাড়া বাবার কাজের সুবাদে দিনের পর দিন বাড়ির বাইরে থাকার সুযোগে শর্মা আংকেল আমাদের বাড়িতে নিজের পজিশন টা অনেকটা শক্ত করে নিয়েছিল। আঙ্কল এর সঙ্গে শারীরিক সম্পর্কে জড়ানোর পর মার মধ্যেও শর্মা আংকেলের অনেক গুলো বদ অভ্যাস আস্তে আস্তে দেখা যাচ্ছিল। আগে আমার মা নিজের ইনার ওয়ার ছাড়ার বিষয়ে খুব সচেতন থাকতো।
সেই মায়ের ই ব্রা পান্টি যেখানে সেখানে পরে থাকতে দেখা যাচ্ছিলো। আগে মা চুল খোলা অবস্থায় রাখত না। নিজের চুল সব সময় খোঁপা বা বিনুনি বেঁধে সুন্দর পরিপাটি করে রাখতে পছন্দ করতো। মা খোলা চুল নিয়ে বাইরের লোকের সামনে যাওয়া কে অসভ্যতা মনে করতো, আস্তে আস্তে শর্মা আঙ্কল দের সামনে আমার মা খোলা চুলে থাকতে অভ্যস্ত হয়ে যায়। শুধু তাই না, তার ওতো সুন্দর লম্বা চুল ছেটে ছোটো করে কাধের কাছে অবধি করে ফেলেছিল। যার ফলে মার চুল না বাঁধলেও চলে যেতো।
আমার বাবা বাড়িতেই অনেক বছর ধরেই অ্যালকোহল খেত। কিন্তু মা মদের বোতল গ্লাস কখনো সামনে খোলা জায়গায় রাখতো না। বাবার দেরাজে সারি সারি গ্লাস মদের বোতল সব বন্ধ অবস্থায় থাকতো, শুধু অতিথি এলে বা খাবার সময় বের করা হতো। আমার শিক্ষায় যাতে বাবার মদ খাওয়া নিয়ে কোনো কু প্রভাব না পড়ে এই বিষয়ে মা খুব সচেতন ছিল।
কিন্তু শর্মা আংকেল এর কথা মেনে যখন আমাদের ড্রইং রুমের এক কোন ড্রিঙ্কস বার ক্যাবিনেট কিনে এনে মদ আর নেশার যাবতীয় উপকরণ সব সামনা সামনি সাজিয়ে রাখবার বন্দোবস্ত করা হলো আমি মায়ের এই সিদ্ধান্তে অবাক হয়ে গেছিলাম । এছাড়া মা কবিতা আন্টি সুনাইনা আন্টি দের সঙ্গে মিশে মিশে তাড়াতাড়ি নিজের বারোটা বাজাচ্ছিল। ওরা মা কে টিপস দিয়ে দিয়ে ওদের মতন সাজ গোজ করায়, মেক আপ করায়, শরীর দেখানো পোশাক পড়াতে উৎসাহিত করছিল। মা ওদের দেখা দেখি লিপস্টিক , ফেস পাউডার, আইলাইনার এর মতন কসমেটিক এর ব্যাবহার বাড়িয়ে দিয়েছিল। এমনকি মা শুতে যাওয়ার আগে পর্যন্ত আধ ঘণ্টা ধরে আয়নার সামনে বসে প্রসাধন করবার অভ্যাস করে ফেলেছিল।
নিজের জন্য দুটো নতুন ওয়ার্ড্রোব কিনতে হয়েছিল আংকেলের দেওয়া সব গিফট আর ড্রেস গুলো কে রাখবার জন্য। খুব অল্প সময়ের মধ্যে মার ওয়ার্দ্রবে সেক্সী নাইটওয়ার আর মডার্ন কস্টিউম দের একটা ভালো কালেকশন তৈরি হয়। আংকেল দের প্রশ্রয় পেয়ে যে ধরনের পোশাক মা আগে পড়বার কথা স্বপ্নেও ভাবতে পারতো না। সেই ধরনের আধুনিক ড্রেস বাড়িতে পড়া শুরু করে দিয়েছিলো। ঘরের বাইরেও শাড়ি ছাড়া অন্য পোশাক ও পড়া আস্তে আস্তে চল করেছিল। যত দিন যাচ্ছিল মার সাহস ও বাড়ছিল।
তাই শর্মা আঙ্কল দের চাপে পড়ে শাড়ি আর ব্লাউজ ছেড়ে খুব তাড়াতাড়ি অনেক নতুন ধরনের আধুনিক পোশাক মা পড়তে শুরু করলো। আস্তে আস্তে বাবা যখন বাইরে থেকে ফিরত তখনও সেও শর্মা আংকেল এর দেখাদেখি ভদ্র সভ্য শাড়ির বদলে মডার্ন ড্রেস সিলেক্ট করে গিফট হিসাবে আনতে শুরু করেছিল। শর্মা আংকেল প্রথম রাত বাড়িতে কাটানোর পর পরই ঘন ঘন এসে মার সঙ্গে রাত কাটিয়ে যাওয়া শুরু করেছিল। শোয়ার আগে ওরা মদের আসর বসাত। কখনো শর্মা জী তার কিছু বন্ধু কে নেমন্তন্ন করে আমাদের বাড়িতে নিয়ে আসতো।
ড্রইং রুমে তাদের আসর যখন বসত, তখন ওদের মুখের ভাষা আর আচরণ এমন পর্যায়ে চলে যেতো যে ওদের সামনে যাওয়াই যেতো না। সব থেকে আশ্চর্যের বিষয় ছিল যে আমার মা নিজের অতীত ভুলে সংস্কৃতি ভুলে ঐ আসর গুলোতে বেশ এক্টিভ ভূমিকা পালন করতো। বাড়ির ভেতর আর বাইরে ক্লাবে রাখা আঙ্কল এর মিটিং গুলোয় বাবা বেশির ভাগ ক্ষেত্রে অনুপস্থিত থাকতো।
বাবা থাকলেও মার রুটিনে পরিবর্তন হতো না। আর বাবা যেদিন থাকতো না, সেদিন শর্মা আংকেল ইচ্ছে করে বাবার নামে বাড়িয়ে চড়িয়ে কলঙ্ক রটাত। অঞ্জলী আর অন্য নারী র সঙ্গে বাবার শারীরিক সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল, সেই বিষয়ে নানা গসিপ আংকেল মা র সামনে রসিয়ে রসিয়ে পরিবেশন করতো। শর্মা আংকেল এর সঙ্গে করে নিয়ে আসা বন্ধু রাও তাতে তাল মেলাতো।
এসব গসিপ শুনে আমার মা খুব কষ্ট পেতো। সে বাবা কে ভীষন ভালোবাসতো। তাই সে তাকে ছেড়ে অন্য নারী দের প্রতি আকৃষ্ট হয়ে দিনের পর দিন বাড়ির বাইরে কাটাচ্ছে এটা জানতে পেরে মার মন কষ্টে ভেঙে যেতো। তবুও মা মুখ ফুটে কিছু বলতো না, কারণ সেও আমার বাবার মতন এক পাপের ভাগীদার হয়ে উঠেছিল অনিকেত শর্মা র মতন পুরুষের সঙ্গে অবৈধ শারীরিক সম্পর্কে জড়িয়ে। নিজের মনের হতাশা আর পাপ বোধ ঢাকতে মা শর্মা আংকেল দের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে পেগের পর পেগ হার্ড ড্রিঙ্কস খেয়ে বেহুশ হয়ে পড়তো ।
মদ খাওয়া র পর মার স্বাভাবিক হিতাহিত জ্ঞান থাকতো না। শর্মা আংকেল যা খুশি তাই করিয়ে নিতে পারতো। বিশেষ করে নন্দিনী রায়ের ৩৬ ডি সাইজের পরিণত বুকের দাবনা গুলো নিয়ে খেলতে শর্মা আংকেল খুব পছন্দ করত। এছাড়া শর্মা আংকেল সুযোগ পেলেই জমাতে নিয়ে আসা ২-১ জন বন্ধুদের সামনেই মার কাছে টেনে কাপড় সরিয়ে নিয়ে আদর করা শুরু করে দিতো।
আঙ্কল কে খুল্লাম খুল্লা মার শরীর ছুয়ে আদর করতে দেখে শর্মা আংকেল এর বন্ধুরাও সাহস পেত মার অসহায় অবস্থার পূর্ণ অ্যাডভান্টেজ নেওয়ার। তারাও এক এক করে মার দুধ থাই পেট সহ বিভিন্ন অঙ্গে মনের সুখে টাচ করবার মস্তি লুটে নিত। মা মদের নেশায় আর উত্তেজনায় তাদের কে কোনো বাঁধাই দিতে পারতো না। যেদিন আংকেলের সাথে তার কিছু বন্ধুরা মদের আসর জমাতে আসতো ,মদের আসর শেষ করে শর্মা আংকেল বন্ধুদের সাথে বাড়ি ফিরে যেতো, রাতে থাকতো না।
আঙ্কল রা মার শরীরে সেক্সুয়াল হিট তুলে দিয়ে চলে গেলে মা সেই আগুন শান্ত করতে বাধ্য হয়ে মনোজ কে নিজের বেডরুমে ডেকে আনতো। শর্মা আংকেল আমাদের বাড়িতে মার সঙ্গে বিনা বাধায় রাত কাটিয়ে যাওয়ার অভ্যাস করে ফেলবার পর, আমার মার শরীর এর বাঁধন আস্তে আস্তে পর পুরুষের সামনে খুলে যাচ্ছিলো। বিভিন্ন হাই ক্লাস পার্টি তে , ক্লাবে ,এমন কি নিজের বাড়ির ভেতরেও মা নিজেকে পর পুরুষের ভোগের বস্তু তে সফল ভাবে রূপান্তর করেছিল।
মাত্র কয়েক মাসের ব্যবধানে আমার মায়ের এই নৈতিক আর বাহ্যিক পরিবর্তন দেখে আমি একেবারে হতভম্ভ হয়ে গেছিলাম। সে এতটাই আমার থেকে মানষিক ভাবে দুরে সরে গেছিলো, যে একটা সময় পর এক বাড়িতে থাকলেও আমাদের মা ছেলের মধ্যে কোনো কথা হতো না । এমন কি মায়ের সাথে দেখাও নাম মাত্রই হতো ।
আমার মা বাবার মতন ই নিজের জন্য আলাদা একটা জগৎ তৈরি করে নিয়েছিল। সেখানে আমার কোনো জায়গা ছিল না। আংকেল প্রথম বার আমাদের বাড়িতে রাত কাটানোর পর দ্রুত সব পরিবর্তন হয়ে গেছিলো। আংকেল এর সঙ্গে শোওয়া র এক মাসের মধ্যেই নিজের ফার্ম হাউস রিসোর্টে একটা গোটা উইকএন্ড কাটানোর ব্যাপারে শর্মা আংকেল আমার মা নন্দিনী রায় কে রাজি করিয়ে ফেলে।
একটা রোড ট্রিপ করে, শর্মা আংকেল এর diamond harbour ফার্ম হাউস রিসোর্টে দুই রাত কাটিয়ে আসার পর মা যেনো আরো বেশি করে শর্মা আংকেল এর নিয়ন্ত্রণে এসে যায়। ওখান থেকে ফিরে এসে মা শাখা সিদুর পড়াও হুট করে বন্ধ করে দিয়েছিল। আজকের আধুনিক বিবাহিত নারী রা অধিকাংশ ক্ষেত্রে শাখা সিদুর পরে না। তাই এই বিষয় টা নিয়ে আমার মনে খুট খুটামি থাকলেও আমার বাবা কোনো আমল ই দিলো না। আমি ইতিমধ্যে আড়ালে আবদারে ওদের কথা শুনে আরো একটা বিষয় জানতে পেরেছিলাম।
আমার মা শর্মা আংকেলের সঙ্গে ফার্মহউজ এ রাত কাটাতে গিয়ে, তার সঙ্গে একসাথে শওয়ার পর্যন্ত নিয়ে ফেলেছে। ওখান থেকে ফেরার পর, আংকেল ও তাদের ঐ ফার্ম হাউসের করা বার্থরুম রোমান্স বাড়ির মধ্যে আমদানি করতে চেয়েছিল কিন্তু মা তখনকার মতন তাকে আটকে দিতে সক্ষম হলো। এদিকে আমার ক্লাস ১২ ফাইনাল বোর্ড এক্সাম ও এসে গেছিলো।
আমি ফাইনাল এক্সাম নিয়ে ব্যাস্ত হয়ে পরলাম, তাই বেশ কয়েক দিন মার দিকে আর সেভাবে নজর দিতে পারলাম না। সেই সুযোগে মা কে সঙ্গে নিয়ে শর্মা আংকেল আবার বেড়াতে যাওয়ার প্ল্যান বানালো। এই দু রাতের জায়গায় পুরো একসপ্তাহের পাটায়া টুর। মা কোনোদিন আগে বিদেশ ভ্রমন করে নি। বাবার সম্মতি থাকলেও, আমার এক্সামের কথা ভেবে প্রথমে মা এই শর্মা আংকেল এর সঙ্গে ঘুরতে যাওয়ার বিষয়ে একটু দোনামোনা করছিল কিন্তু শেষ পর্যন্ত শর্মা আংকেলের ইচ্ছের জয় হলো। মা কে আংকেল পাটায়া ফুর্তি করতে যাওয়ার বিষয়ে কনভিন্স করে ফেললো। মা এই ভাবে পরপুরুষের সঙ্গে সম্পর্কে জড়িয়ে দিনের পর দিন আরো অধঃপতনের দিকে এগিয়ে চললো।

গল্পটি কেমন লাগলো ?

ভোট দিতে স্টার এর ওপর ক্লিক করুন!

সার্বিক ফলাফল 5 / 5. মোট ভোটঃ 1

এখন পর্যন্ত কোন ভোট নেই! আপনি এই পোস্টটির প্রথম ভোটার হন।

Leave a Comment