মায়ের পরপুরুষের সঙ্গলাভ [৪]

ষষ্ঠ পর্ব
মার আধুনিক জীবন তার নিজস্ব গতিতে এগিয়ে চলছিল। হটাৎ একদিন মা অনলাইন জুয়ায় অনেকগুলো টাকা হারিয়ে বসায় মার জীবনে আরো নতুন রং যোগ হলো। জুয়ায় টাকা হারিয়ে মা বাড়িতেই একদিন সকাল বেলা ভীষন আপসেট হয়ে বসেছিল। তার মুখের দিকে সে সময় তাকানো যাচ্ছিল না। মুখ গম্ভীর করে ড্রইং রুমে বসে সকাল বেলাতেই ফ্রাস্ট্রেশন ঢাকতে ড্রিঙ্ক করছিলো। তার চোখে মুখে বিরক্তি আর টেনশনের ছাপ স্পষ্ট দেখা যাচ্ছিল।
মা ড্রিংকনিতে নিতে ব্যাংকের কাগজ পত্র সব ঘাটছিলো, ড্রিংকে চুমুক দিতে দিতে কাগজ পেন আর ক্যালকুলেটর নিয়ে কিসের একটা হিসাব ও কষছিল। আর হিসাব না মেলায়, মাথা নাড়তে নাড়তে বেশি করে চোখ বুজে মদের পেয়ালা তে চুমুক দিচ্ছিলো। এই সময় মনোজ বাড়ির বাইরে গেছিলো তাই কেয়মাত ই একটু দূরে দাড়িয়ে মার খেয়াল রাখছিল। মালকিন কে সকাল থেকে মুড অফ করে মদ এর পেয়ালা নিয়ে বসে থাকতে দেখে কেয়ামত সাহস করে আমার মা কে জিজ্ঞেস করে ফেললো। ” কী হয়েছে ম্যাডাম? আপনার মুড আজ ভীষন অফ আছে দেখছি। ব্যাবসায় কোনো টেনশন থাকলে আমায় একবার বলে দেখতেই পারেন।”
মা ওর কথা শুনে খেচিয়ে উঠলো। ” তুমি তোমার কাজ করো, তোমাকে এত সব জানতে হবে না।,”
কেয়ামত হাল ছারলো না, মায়ের পিছনে এসে তার কাধ ম্যাসাজ করতে করতে বলে উঠলো,
প্লিজ বলেই দেখুন না ম্যাডাম, আপনার প্রবলেম আমি সলিউশন বের করে দিচ্ছি।”
মা কাধে ম্যাসাজে একটু আরাম পেয়ে কেয়ামতের প্রতি নরম হলো। আস্তে আস্তে নিজের সমস্যার কথা খুলে বললো। আসলে মার শেষ কদিন অনলাইন জুয়া খেলাতে ৮ লাখ টাকার লোকসান হয়েছিল। টাকা গুলো হারিয়ে মা ভেতরে ভেতরে গভীর হতাশায় ভুগছিল। ওগুলো ব্যাবসার হিসেবের টাকা ছিল। ১০ দিনের মধ্যে মা কে সেটা মিস্টার নায়েক কে একটা আর্বিটেশন এর ফিস মেটাতে পেমেন্ট করতে হবে। কোথা থেকে মা টাকা গুলো আনবে বুঝতে পারছিল না। সাভিংস এ থেকে ওতো গুলো টাকা তুলতে গেলে আমার বাবা কে জানাতে হতো। সেটা মা চাইছিল না। কেয়ামাত পুরো বিষয় টা শুনে বললো,
“আপনিও না ম্যাডাম অল্প তেই টেনশন নিয়ে ফেলেন। এটা কোনো প্রব্লেম হলো, আমি এক্ষুনি ঝাৎসে আপনার সব প্রবলেম মিটিয়ে দিতে পারি।”
মা শুনে অবাক হয়ে তার দিকে তাকিয়ে বললো, কীভাবে করবে বলো ? যদি সলিউশন করতে পারো তুমি যা চাইবে তাই আমি তোমাকে দেবো।।,”
ওকে ম্যাডাম, আমি একবার দিলওয়ার ভাই কে ফোন করি। উনি বারে আদমি আছেন। আপনাকে সঙ্গে সঙ্গে আট দশ লাখ টাকার পার্সোনাল লোন এমনিতেই দিয়ে দেবেন।”
মা: তার জন্য কি আমাকে আমার গয়না বন্ধক রাখতে হবে।
কেয়ামত: না ম্যাডাম আপনাকে শুধু একটা ছোটো favor করতে হবে। জাস্ট এক থেকে দেড় ঘণ্টার কাজ। আপনি সেটা ভালই করতে পারবেন। তার জন্য আপনাকে কোথাও যেতেও হবে না। বাড়িতে বসেই আপনি সেটা করে দিতে পারবেন। আর টাকা টা আপনার একাউন্ট এ ট্রান্সফার হয়ে যাবে। আপনি রাজি থাকলে বলুন আমি এক্ষুনি দিলেওয়ার ভাইকে ফোন করছি।”
মা ভালো করে সব কিছু না জেনেই ওর প্রস্তাবে বোকার মতন রাজী হয়ে গেলো।। পরদিন কেয়ামত এর সঙ্গে গিয়ে ডিলেওয়ার ভাই এর সঙ্গে একটা রেস্তোঁরা টে মিট করে দুই লাখ অ্যাডভান্স নিয়ে কি কাজ তাকে করতে হবে সে বিষয়ে সব কথা পাকা করে আসলো। কাজ টা ছিল মার মতন এক গৃহবধূর পক্ষে ভীষন রকম চ্যালেঞ্জিং। ল্যাপটপ খুলে ওয়েব ক্যাম অন করে তাকে দিলেওয়াল ভাইএর ঠিক করা ক্লিয়েন্ত দের সামনে একঘন্টা সময়ের জন্য হট লাইভ করতে হবে।
স্ট্রিপ টিজ, হালকা ড্যান্স মুভ , টপলেস হওয়া এসব করতে হবে। মুখ অবশ্য মাস্ক দিয়ে ঢাকা থাকবে অর্থাৎ এই লাইভ করতে গিয়ে কখনই আসল পরিচয় প্রকাশ করা হবে না। আর মাও কোনোদিন ভিউয়ার দের সঙ্গে নিজের আসল আইডি কন্টাক্ট নম্বর, সামনাসামনি মিট করতে পারবে না। মা পুরো ব্যাপার টা শুনে ভয় পেয়ে প্রথমে দিলেওয়ার আর কেয়ামত ভাই দের নাই করে দিয়েছিল। শেষে আজকাল অনেক ভালো ঘরের মেয়ে বউ রা টাকার জন্য এই কাজ করছে জানতে পেরে মাও ওদের কথায় মত দিয়ে ফেললো।
আর মা এই কাজ করতে রাজি হতেই দিলিওয়ার সেই দিনই মা কে একটা আলাদা ল্যাপটপ ডিভাইস হান্ড ওভার করে দিলো। ওরা মা কে তার এই লাইভ শো ব্যাপারটার বিষয়ে একটা কমপ্লিট ধারণা দেওয়ার জন্য, কয়েক টা লাইভ ভিডিও ক্লিপস ও তার ফোনে শেয়ার ও করেছিল। ঐ ভিডিও গুলো দেখে মার মুখ শুকিয়ে গেছিলো। মা বুঝতে পেরেছিল, ব্যাপার টা দেখে যত সহজ মনে হয় আদৌ ততটা সহজ নয়। দিলেওয়ারের সঙ্গে মায়ের এই লাইভ হট ভিডিও চ্যাট এর কাজের জন্য দুই মাস অর্থাৎ মোট ৬০ দিনের কন্ট্রাক্ট হয়েছিল।
মা দিলেওয়ার এর থেকে আরো ৭০ হাজার টাকা এক্সট্রা পেয়েছিলো। এই টাকাটা ছিল তার বেডরুমের সেট আপ টা বেশ আকর্ষনীয় করে সাজানোর জন্য, কেয়ামত দায়িত্ব নিয়ে মা যে জায়গায় বসে লাইভ করবে সেই জায়গা টা সহ পুরো বেডরুম তার ভোল একদিনের মধ্যেই পাল্টে ফেলেছিল। দিলেওয়ারের দেওয়া ভিডিও গুলো দেখে, মা পরিষ্কার বুঝতে পেরেছিল, এই কাজ টা সাধারণ স্টাইলিশ পোশাক পরে ভালো ভাবে করা যায় না। তাই মা কে কিছু শরীর শো অফ করা পোশাক কিনতে হলো।
থং, স্টকিং, ট্রান্সপারেন্ট লং নাইট ড্রেস এর মতন ভিউয়ার দের সেডিউস করবার মতো কস্টিউম ও কেনা হলো। দিলেওয়ারের সঙ্গে পাকা কথা হয়ে যাওয়ার দুদিন যেতে না যেতেই আমার মা নন্দিনী রায় নিজেকে অনেক নিচে নামিয়ে প্রফেশনাল ভাবে হট লাইভ ভিডিও করতে শুরু করলো। সেক্সী নতুন কেনা সব কস্টিউম পরে এসে মা রাজ্যের লোকের সামনে নিজের সুন্দর সেক্সী পরিণত শরীর দেখানো শুরু করলো। এই লাইভ ভিডিও স্ক্রিনিং এর একেবারে শেষ অংশে মা কে ভিউয়ার দের অনুরোধ রাখতে এক মিনিটের জন্য হলেও টপলেস সেমি নুড হতে হতো। এই লাইভে মা সেক্সী ভাবে অন্য টোন এ কথা বলবার স্টাইল খুব তাড়াতাড়ি adopt করেছিল।
প্রথমে ঠিক ছিল মা সপ্তাহে মাত্র দুই দিন তিন ঘণ্টা করে দিলেওয়ারে র সাইটে এসে লাইভ করবে। কিন্তু প্রথম দুটো শো এর পর, ভিউয়ার দের রিএকশন আর মায়ের লাইভের ডিমান্ড দেখে দিলওয়ার রা বুঝে গেলো, মা ওদের কাছে একটা সোনা র ডিম পাড়া হাঁস। দুই সপ্তাহ পর থেকেই দিলেওয়ার মা কে বোঝাতে আরম্ভ করলো, মিসেস রায় আপনার মধ্যে পুরো আগুন আছে। আপনি সপ্তাহে মাত্র দুদিন আসেন তাতেই ভিউয়ার রা আপনার জন্য এখন থেকেই অপেক্ষা করে থাকে। তাই ভাবেন, যদি আপনি দুদিনের জায়গায় সপ্তাহে পাঁচ দিন অথবা রোজ লাইভে আসেন আপনি কত টাকা কামাতে পারবেন। আরেক টা কথা আপনাকে টপলেস থাকবার সময় টা আরো একটু বাড়াতে হবে, ওটা কম হয়ে যাচ্ছে। আপনি ডিলডো, ভাইব্রেটর ও স্ক্রীনে নিয়ে আসেন তো আরো ভালো হয়। তার মতন সুন্দরী হট মেরেড ওমান এর মার্কেটে ভালই ডিমান্ড আছে। তাই আমি চাই এখনই আপনার সঙ্গে একটা লম্বা কন্ট্রাক্ট সাইন করতে।”
মা কিছুক্ষন ভেবে, তাকে বলেছিল না না রোজ রোজ আমি এটা করতে পারবো না। শরীরে ভীষন স্ট্রেস পরে, তাছাড়া আমি অন্য কাজেও ব্যাস্ত থাকি। দিলেওয়ার বললো,” আপনার মতন বিউটি কে সবাই চাইছে ম্যাডাম, আপনি প্লিজ আরেকটি বার আমার কথা টা ভাবুন। আমি আপনাকে ডবল পেমেন্ট দিতেও রাজি আছি।” আপনি যখন এত করে বলছেন, দুদিন এর শিডিউল টা এবার থেকে তিন দিন করে দেবেন। ঠিক আছে?,”
দিলেওয়ার জী বললো আর কন্ট্রাক্ট টা রেনিউ করবেন না? মা: দাড়ান মিস্টার দিলওয়ার, আগে একটা মাস কমপ্লিট হোক, , আমি যদি এই কাজ টা উপভোগ করি, আর পেমেন্ট যদি ঠিক থাকে তবে আমি কথা দিচ্ছি আপনার সঙ্গে এই কাজ টা আমি কন্টিনিউ করবো। প্লিজ কন্ট্রাক্ট আর লাইভ ভিডিও স্ক্রিনিং এর সংখ্যা এখনই আর বাড়াতে বলবেন না , আমি পারবো না।” এত কিছুর পর মার একটাই লাভ হলো।
এই ভাবে লাইভ আসতে আসতে অনলাইন জুয়ায় টাকা লাগানোর অভ্যাস থেকে মা একটু একটু করে সরে আসলো। তবে প্রতিদিন একঘন্টা এই লাইভে এসে বিভিন্ন বয়সের পুরুষদের মনোরঞ্জন করতে করতে মা যেরকম ক্লান্ত হয়ে পড়ত তেমনি তার শরীরের আদিম প্রবৃত্তি জেগে উঠে তাকে পাগল করে তুলতো। একটা সময় আসলো, যখন আমি আমার মা কে জাস্ট চিনতেই পারছিলাম না। প্রতি রাতে বা দুপুরে কারোর না কারোর সাথে না শুয়ে মা থাকতেই পারতো না।
নন্দিনী রায় একদিন তো নেশার ঘোরে কেয়ামত কে মনোজ ভেবে তার সঙ্গেই অন্তরঙ্গ মুহূর্ত শেঁয়ার করে ছিল। আমার চোখের সামনে কেয়ামত মা কে কিস করতে করতে তার বেডরুমের দিকে নিয়েগেছিলো। বেডরুমে ঢুকবার আগে মার পরনের সেক্সী জিপার বডিসুট টা অতি সন্তর্পনে খুলে দিয়েছিল। আশ্চর্য্য লাগলো মা ওকে কোনো রকম বাধা দিচ্ছিল না। তার মাথা হয়ত তার এই কাজ কে ধিক্কার জানাচ্ছিল কিন্তু মার শরীর সেই কথা শুনছিল না।
কেয়ামত মা কে পেয়ে সেদিন সন্ধ্যে বেলা থেকেই মতো আচরণ করছিল। অজস্র চুমুতে মার মুখ কাধ কানের পাশ ভরিয়ে দিয়ে, বেডরুমের দরজা খোলা রেখেই কেয়ামত নিজের প্যান্ট নামিয়ে মার লেগিনস টা হাঁটু অবধি সরিয়ে দিয়ে মা কে দেওয়ালে চেপে ধরে পিছন দিক থেকে জোরে জোরে ঠাপ দিতে আরম্ভ করেছিল। সেদিন প্রতি ঠাপে সেদিন মা সর্ষে ফুল দেখছিল। আহহহ আহহহ আরো জোরে আরো জোরে, আমার **”*** ফাটিয়ে দাও সোনা, আহহহ আহহহ….****” আরো জোরে সোনা আরো জোরে….., ঐ ভাবে কেয়ামতের সঙ্গে sex করার সময়, উত্তেজনায় মায়ের মুখের ভাষা শুনে সেদিন আমি স্তম্ভিত হয়ে গেছিলাম। আমার কান লাল হয়ে গেছিলো।
বিশাল ঘোড়ার সাইজের পুরুষ অঙ্গ টা একটা মেশিনের মতন মায়ের পাছার ছিদ্র দিয়ে ঢুকছিল আর বেরোচ্ছিল আর মা কাটা ছাগলের মতন ছট পট করছিল। মায়ের রস লেগে কেয়ামতের বিশাল পুরুষ অঙ্গ টা অল্প আলোতেও চক চক করছিল। তার পাছার ফুটো টা শর্মা আংকেল রা ব্যাবহার করে করে এতটাই বড়ো করে দিয়েছিল যে, কেয়ামতের অত বড় শক্ত ডান্ডার মতন পেনিস টা কে মা পাছায় বেশ পুরোটাই গিলে নিচ্ছিল। সেই রাত পুরো তাই আমার মা কেয়ামত কে নিজের বেডরুমে র ভেতর আটকে রেখেছিল। কেয়ামত আর মার শারীরিক মিলন এর পর থেকে একটা সাধারণ বিষয় হয়ে যায়। মনোজের থেকেও মা বিছানায় কেয়ামত কে বেশি পছন্দ করতে আরম্ভ করে।
এই ভাবে তিন চার মাস দ্রুত কেটে যায়, এদিকে আমার ফাইনাল এক্সামের রেজাল্ট ও যথাসময় বেরিয়ে যায়। আমার রেজাল্ট প্রত্যাশা অনুযায়ী বেশ ভালই হয়। মা বাবা দুজনেই আমার উপর সন্তুষ্ট হয়। তারপর বাইরে পড়তে যাওয়ার সুযোগ থাকলেও আমি আমার মা কে ছেড়ে এই নিজের শহর টা ছেড়ে কোথাও দূরে পড়তে যাওয়ার বিষয়ে মন স্থির করতে পারি না। একমাত্র ছেলে হওয়ায় আমার মা বাবা আমাকে ভীষন ভালোবাসতো। তাই তারা বাইরে পড়তে যাওয়ার বিষয়ে আমার উপর বিশেষ চাপ সৃষ্টি করে না। আমি শহরের একটা সেরা কলেজে আর্কিওলজি সাবজেক্ট নিয়ে পড়শোনা আরম্ভ করি।
আমার কলেজে ভর্তি হওয়ার একমাস বাদেই একটা শকিং নিউজ আমাদের বাড়ির সদস্য দের পারস্পরিক সম্পর্কের ভীত তাই নড়িয়ে দিয়েছিল। বিশেষ করে বাবা আর মা নিজেদের মধ্যে কথা বার্তা বন্ধ করে দিয়েছিল। আগেই বলেছি, বাবার সঙ্গে শর্মা আংকেলের কাজিন সিস্টার অঞ্জলী আন্টির অবৈধ সম্পর্ক ছিল। বাবা আর অঞ্জলী আন্টি ফরেন বিজনেস এক্সপশার টুরে বেরিয়ে আচমকাই বিনা নোটিসে মাঝপথেই দেশে ফিরে আসতে হয়। প্রধানত অঞ্জলি আন্টি অসুস্থ হওয়ায় মাঝপথে ফিরে আসতে হয়েছিল।
ওরা ফিরে আসার ক দিন পর শর্মা আংকেলের থেকে আমার মা জানতে পারে, যে অঞ্জলী আন্টি ফিরে এসে যে হেলথ টেস্ট করিয়েছে তাতে জানা গিয়েছে, অঞ্জলী আণ্টি দুই মাসের প্রেগনেন্ট। আর আমার বাবাই যে অঞ্জলী আন্টির বাচ্চার পিতা সেটাও পরিষ্কার হয়ে গেছিলো। এই খবর শুনে মা স্বভাবতই মানষিক ভাবে ভেঙে পরে। বাবার উপর প্রচন্ড ক্ষিপ্ত হয়ে তার সাথে কথা বার্তা এমন কি মুখ দেখা বন্ধ করে দেয়। বাবা কে ডিভোর্স দিয়ে এমনকি আমাকে নিয়ে বাড়ি ছেড়ে আলাদা মায়ের নামে বুক হওয়া নতুন ফ্ল্যাটে উঠে যাবে এমন সিদ্ধান্ত ও মনে মনে নিয়ে ফেলে। শর্মা আংকেল ও এটাই চাইছিল।
বাবার মার প্রতি সেরকম আর অধিকার অবশিষ্ট ছিল না। তবুও সে কথা মা র সঙ্গে কথা বলে তখনকার মতো ডিভোর্স হোওয়া আটকেছিল। তবে মায়ের বাড়ি ছেড়ে যাওয়া আটকানো গেলো না। বাবা জোরের সাথে বললে মা আর একটা সুযোগ বাবাকে দিতো। কিন্তু আশ্চর্যজনক ভাবে বাবা মা কে বাড়িতে রাখবার সেরকম চেষ্টাও করলো না। পরে বিষয় টা পরিষ্কার হয়ে যায়। বাবার উপর অঞ্জলী আন্টি র ও চাপ ছিল বাবার উপর তাদের সম্পর্ক টা কে একটা মর্যাদা দেওয়ার, আর তাদের জীবনে আসতে চলা সন্তান যাতে সসম্মানে বড়ো হতে পারে, তার জন্য মা কে বাবার জীবন থেকে আস্তে আস্তে সরে যেতেই হতো। আমি মা কে বাড়ি ছেড়ে না যাওয়ার ব্যাপারে বোঝাতে চেষ্টা করলাম, যে কিছুদিন আরো একটু দেখে তারপর না হয় সিদ্ধান্ত নেবে। কিন্তু আমি মার মনে বাবার প্রতি যে ক্ষোভ আর অভিমান জমেছিল তাকে শান্ত করতে পারলাম না। মা নিজের সিদ্ধান্তে অটল রইলো।
অঞ্জলী আন্টির বাবার সন্তানের মা হতে চলেছে এই খবর পাওয়ার মাত্র দিন পনেরোর মধ্যে মা আমাকে নিয়ে বাড়ি ছেড়ে নতুন ফ্ল্যাটে শিফট করলো। বাবা কষ্ট পেলেও আপত্তি করতে পারলো না। নতুন জায়গায় উঠে আসার পরে মার জীবনের দর্শনের ধরন তাই সম্পূর্ণ পরিবর্তিত হয়ে যায়। সে নিজেকে সম্পূর্ণ ভাবে অন্য রূপে মেলে ধরে। মাঝ খান থেকে আংকেল দের সামনে দিন দিন মা অনেক বেশি ওপেন হয়ে যায়। তারা যখন খুশি মা কে নিজেদের কাজে ব্যাবহার করতে শুরু করে। নতুন ফ্ল্যাটে আসবার দিন তিনেক এর মধ্যে শর্মা আংকেল তার লাগেজ নিয়ে মার কাছে এসে ওঠে।
মা আর শর্মা আঙ্কল লিভ ইন শুরু করে দেয়। live-in শুরু করার পর মা আর আংকেল এর সম্পর্ক টা আরো ঘনিষ্ঠ হয়। শুধু এক বিছানায় এক সঙ্গে শোয়াই না, মা আংকেল এর সঙ্গে একসাথে শাওয়ার নেওয়া, এক ই টুথব্রাশে দাঁত মাজা এমন কি এক গ্লাসে মদ খাওয়া আরম্ভ করে। এর পাশাপাশি তাদের ব্যাক্তিগত যৌণ সম্পর্ক অন্য উচ্চতায় পৌঁছে যায়।
আঙ্কল কোনরকম প্রটেকশন ছাড়াই প্রতি রাতে মায়ের সঙ্গে শুতে অভ্যস্ত হয়ে গেছিলো। আঙ্কল এর সঙ্গে দিনের পর দিন রাতের পর রাত প্রটেকশন ছাড়াই হার্ড সেক্স করতে মায়ের ভীষন কষ্ট হতো। প্রথম প্রথম মা আংকেল কে আদর করার আগে কনডম পরবার অনুরোধ করলেও, কিছুদিন বাদে মা হাল ছেড়ে দিয়েছিল। শেষে নিয়মিত ব্যাথার ট্যাবলেট খেয়ে শর্মা আংকেল কে মা বিনা বাধায় বাধ্য প্রেমিকার মতন যৌন সুখ দেওয়া আরম্ভ করেছিল। আর অন্যদিকে কবিতা আন্টির সঙ্গে শর্মা আংকেল এর ও ডিভোর্স প্রসেস চলছিল। আঙ্কল মার সঙ্গে এসে থাকার পরেও কবিতা আন্টির সঙ্গে মায়ের বন্ধুত্ব এক রকমই অটুট থাকে।
আসলে ডিভোর্সের বদলে শর্মা আংকেল কবিতা আণ্টি কে প্রচুর টাকা আর প্রপার্টি দিয়ে খুশি করে দিয়েছিল। তাই কবিতা আণ্টি মা আর আংকেল এর সম্পর্ক তাও মানষিক ভাবে অ্যাকসেপ্ট করে নিয়েছিল। মা নিজে ইচ্ছাতে আংকেল এর সঙ্গে শুত না। সে বাবার কাছ থেকে গুরুত্ব পেতে চাইতো। মা ভেবেছিল, আংকেল এর সঙ্গে সম্পর্ক রাখলে আমার বাবা একদিন না একদিন ঠিক জেলাস ফিল করে অঞ্জলী আণ্টি কে ছেড়ে আবার মায়ের কাছে ফিরে আসবে। কিন্তু মার এই ভাবনায় হিতে বিপরীত হলো।
আঙ্কল মা কে পেয়ে সমানে spoiled করছিল। যত দিন যাচ্ছিল মা আর বাবা একে অপরের থেকে দূরে সরে যাচ্ছিল। মা আংকেল এর কথার উপর বিশ্বাস করে বাবার ব্যভিচারের বদলা নিতে নিজেও ঘরে বাইরে সম্পূর্ণ স্বেচ্ছাচারী স্পইলড হাই ক্লাস লেডির মতন জীবন যাপন করা শুরু করলো। মার তার এত বছরের সংসারের প্রতি দায়বদ্ধতা সব স্বাভাবিক কারণেই চুকে বুকে গেছিলো। বাড়ি ছেড়ে ঐ ফ্ল্যাটে শিফট করবার পর থেকেই মার জীবন থেকে নিয়ন্ত্রণ যেনো হারিয়ে গেছিলো। মা বাড়ি ছেড়ে নতুন ফ্ল্যাটে শিফট হয়ে যাবার পর বাবা একদিনের জন্য ও মা এবং আমার খোজ পর্যন্ত নেয় নি।
বাবা এরপর আমাকে দু একবার কল করেছিল, তাতেও মার বিষয় একবারও উল্লেখ করে নি। বাবার এই আচরণের ফলে মার অভিমান দিন দিন বাড়ছিল। আঙ্কল মার মনে বাবার প্রতি বিষ ঢালছিল। আঙ্কল এর ধারণা ছিল, অঞ্জলী আণ্টি কে পেয়ে বাবা আমার মা কে একটু একটু করে ভুলে যাচ্ছিল, তাই আমার মা কেও বাবা কে ছেড়ে ভবিষ্যতের কথা ভাবা উচিত। কিছু সপ্তাহ নতুন ফ্ল্যাটে কাটানোর পর, দিন রাত বাবার সম্পর্কে আজে বাজে কথা শুনে আমিও বাবা কে আস্তে আস্তে ঘৃণা র চোখে দেখতে শুরু করেছিলাম।
তারপর অঞ্জলী আন্টির গোদভরাই( baby shower) অনুষ্ঠানের পর মা আংকেল এর কথা মেনে আস্তে আস্তে বাবার সঙ্গে মিউটুয়াল ডিভোর্স এর জন্য মানষিক ভাবে প্রস্তুত হয়। অন্যদিকে অঞ্জলী আণ্টি ও বাবাকে একই ভাবে চাপ দিয়ে তাড়াতাড়ি মার সঙ্গে বিবাহিত সম্পর্ক আইনি পথে শেষ করবার জন্য বলছিল। কিন্তু এত বছরের বিবাহিত স্বামী স্ত্রী সম্পর্ক কি এত সহজে শেষ করে ফেলা যায়!

সপ্তম পর্ব
এত বছরের নিজের হাতে সাজানো বাড়ি আর এত বছরের যত্নে গড়ে তোলা সংসার ছেড়ে এক লহমায় নিজেকে আলাদা করে সবকিছু ছেড়ে চলে আসা মায়ের পক্ষে সহজ ছিল না। বাড়ি ছেড়ে আমাকে নিয়ে অন্য নতুন ফ্ল্যাটে শিফট করবার পর থেকেই মা ভিতরে ভিতরে মানষিক অস্থিরতায় ভুগছিল। মা মনে মনে জানতো যে সে যা করছে ঠিক কাজ করছে না। তবুও আংকেল দের সঙ্গে এমন ভাবে সব নোংরা বিষয়ে জড়িয়ে গেছিলো যে মার এসব ছেড়ে বেরিয়ে আসবার কোনো উপায় ছিল না। তার এই মানষিক অস্থিরতার কথা কেবল মাত্র আমি ই বুঝেছিলাম।
কিন্তু বুঝেও কিছুই করে উঠতে পারি নি। মা নতুন ফ্ল্যাটে উঠে আসার পর থেকে পা থেকে মাথা অবধি নিজেকে সম্পূর্ণ বিলাসে ডুবিয়ে রেখেছিল। প্রায়শই রাত করে বাড়ি ফিরত। কাজের বাহানায় আংকেল রা মা কে নানা ভাবে ব্যাস্ত রেখে তার শরীরের যাবতীয় জীবন শক্তি এমন ভাবে নিংরে নিতো যে মা যখন দিনের শেষে বাড়ি ফিরতো তার শরীরে বিন্দু মাত্র এনার্জি অবশিষ্ঠ থাকতো না। শর্মা আনকেল দের পার্টনারশিপ বিজনেস টায় তাকে আরো বেশি সময় দিতে হতো। সপ্তাহে দু থেকে তিন দিন অফিস ও যেতে হতো।
বাইরে থেকে যতই মডার্ন বিজনেস উইমেন সাজুক ভেতরে ভেতরে মা এক সাধারণ গৃহবধূ ই ছিল। লুকিয়ে বাবার মঙ্গল কামনা করে সিদূর ও পড়তো। এমন কি শর্মা আংকেল এর বদান্যতায় বাবা মায়ের ডিভোর্স এর প্রসেস শুরু হওয়ার পরেও মা লুকিয়ে বাবার জন্য সিদূর পড়তো। শর্মা আংকেল এর ইচ্ছে ছিল মা কে নিজের আলিশান অ্যাপার্টমেন্টে নিয়ে গিয়ে তোলা। কিন্তু মা সেটা তে কিছুতেই রাজি হচ্ছিল না। যে নতুন ৩ bhk ফ্ল্যাটে আমরা এসে উঠলাম। তাতে রুমের সংখ্যা আমাদের আগের বাড়ির মতন ছিল না।
মনোজ আর কেয়ামত এর মধ্যে মা একজন কেই থাকতে দিতে পারতো। আমার পছন্দ ছিল মনোজ, কিন্তু মা আমাকে অবাক করে শেষ পর্যন্ত কেয়ামত কে বেছে নিলো। শেষ কয়েক মাসে মা মনোজের তুলনায় কেয়ামত এর সঙ্গেই বেশি ঘনিষ্ঠ হয়েছিল এটা আমি দেখেছিলাম। তাছাড়া তাকে মনোজের এর বদলে ওকে বেছে নেওয়ার জন্য অন্য কারণ ও ছিল। কেয়ামত মায়ের জীবনের এমন কিছু গোপন তথ্য জেনে গেছিলো, এমন সব অবৈধ কারবারে মা কে জড়িয়ে ফেলেছিল। ঐ তথ্য গুলো বাইরে লিক হয়ে গেলে পর মা অনেক বড়ো বিপদে পড়ে যেত। কাজেই কেয়ামত কে সন্তুষ্ট রাখা মায়ের পক্ষে একান্ত জরুরি হয়ে পড়েছিল। মনোজ বিদায় নিতে কেয়ামত মায়ের আরো বেশি ঘনিষ্ট হয়ে মা কে দিয়ে আরো বেশি করে নেশায় আর অন্ধকার কাজ কর্মে জড়িয়ে ফেলা শুরু করে।
এদিকে দিলেওয়ার এর সঙ্গে চুক্তির দুই মাস পূর্ণ হয়ে গেছিলো। মা স্বভাবতই লাইভে আসা বন্ধ করে দিয়েছিল। কিন্তু দিলেওয়ার মা কে কিছুতেই ছাড়তে চাইছিল না। তাকে বার বার ফোন করে পাগল করে তুলছিল। জুয়া খেলা বন্ধ করার ফলে, মার টাকার প্রয়োজন মিটে গেছিলো, তাই মা সতর্ক ভাবে ওদের প্রপোজাল এড়িয়ে যাচ্ছিল। এক মাস ধরে ক্রমাগত মায়ের কাছে আবেদন নিবেদন করেও যখন কাজের কাজ হলো না তখন দিলওয়ার মা কে রাজি করাতে অন্য পন্থা নিল। কেয়ামত মার সঙ্গে বিট্রে করে এই বিষয়ে দিলেওয়ার কে সাহায্য করলো।
মায়ের কিছু লাইভ ফুটেজ দিলেওয়ার এর সিস্টেমে রেকর্ড করা ছিলো। যদিও সেই সব ভিডিও তে মার মুখে মাস্ক আর পর্দা ছিল, দিলেওয়ার সেটা থেকে একটা আলাদা ক্লিপ বানিয়ে রেখেছিল। কেয়ামত এর কাছ থেকে মায়ের একটা সেলফি নিয়েছিল তারপর ওটা নিয়ে এডিট করে ঐ ক্লিপের সঙ্গে ম্যাচ করে একদিনের ভিতর একটা ভিডিও বানিয়ে মার ফোনে শেয়ার করলো।
মা নিজের ফোনে দিলেওয়ার এর পাঠানো ঐ এমএমএস ভিডিও দেখে খুব ভয় পেয়ে গেলো। মা সাথে সাথে দিলেওয়ার কে জিজ্ঞেস করল, এসবের মানে কী? দিলেওয়ার বললো, তার কাছে নাকি এরকম অনেক ভিডিও আছে সেগুলো ও খুব যত্ন করে রাখা আছে। মা কে ঐগুলো দেখাতে চায়। আর ঐ ফুটেজ গুলো বাইরে লিক করে দিলে মার সমাজে সন্মানের কি হতে পারে সেটাও ও চিন্তা করে দেখছে। তখন শর্মা আংকেল কিছুদিনের জন্য শহরের বাইরে গেছিলো কাজেই মা কে এই বিষয়ে সাহায্য করার জন্য কিছু ছিল না। ওদের ক্রমাগত মেসেজ আর কলে মা ভয় পেয়ে চিন্তা শক্তি হারিয়ে ফেলছিলো।
মা বুঝে গেছিল সে কত বড় ফাদে সে পরে গেছে। এখন দিলেওয়ার তাকে নিয়ে খেলছে। ওদের এই আচরণে যদিও মা ভীষন রকম চটে গেছিলো ঐ দিলেওয়ার আর কেয়ামত এর উপর। ফোন রেখে টেবিলের সামনে রাখা সুন্দর দামি ফুলদানি ছুড়ে ভেঙে ফেললো। মার মতন শান্ত ভদ্র ভালো ঘরের নারীর পক্ষে এমন আচরণ একেবারেই অপ্রত্যাশিত ছিল।
ঐ দামি পর্সেলিনের ফুলদানি ভাঙবার শব্দ শুনে আমি আমার ঘর থেকে ছুটে এসে দেখলাম , মা বার ক্যাবিনেটের কাচের দেরাজ খুলে এক পেগ ভদকা খেতে খেতে কি একটা ভাবছে । একেবারে খুব ফ্রাস্ট্রেশন না হলে মা সাধারণত দিনের বেলা ওরকম মদ পান করে না। আমি তার মুখের দিকে তাকিয়ে ভয়ে কিছু জিজ্ঞেস করতে পারলাম না।
আমি মার উপর এক নজর চোখ বুলিয়ে ঐ ড্রইং রুম ছেড়ে চলে যেতে যেতে শুনতে পেলাম, আমার মা আবার কার সাথে ফোনে কথা বলছে, আমি দাড়িয়ে শুনলাম, মা বলছে, “দিলেওয়ার জী আমি একবার আপনার সাথে দেখা করতে চাই, আপনি যা করছেন ঠিক কাজ করছেন না। ওকে, বলুন আজ কোথায় দেখা করতে বলছেন? —— হ্যাঁ চিনি জায়গা টা—-কী নাম বললেন, চাঁদনী বার?—- ওখানে তো শুনেছি সন্ধ্যের পর নাচ গান হয়, অন্য কোথাও যদি মিট করতে পারেন… না না ঠিক আছে, আমি আসছি।”
তারপর মা কাউকে কিছু না বলেই, ভালো করে সেজে গুজে একটা স্লিভলেস জিপার বডি সুট পরে সন্ধ্যে ৬ টা নাগাদ নিজেই গাড়ি চালিয়ে বেরিয়ে গেলো। নন্দিনী রায় সেই যে বেরিয়ে গেলো, ঐ দিন আর বাড়ি ফিরে আসলো না। তার ফোন টাও সমানে নট রিচেবেল বলছিল। মা রাতে বাড়ি না ফেরায় আমি চিন্তায় চিন্তায় অস্থির হয়ে গেছিলাম।
যদিও কেয়ামত ব্যাপার টা বেশ ভালো করে জানত। তাই সে আমাকে অহেতুক চিন্তা করতে বারণ ও করছিল। কেয়ামত মার সুস্থ্য স্বাভাবিক ভাবে ফিরে আসবার গ্যারান্টি দিলেও আমি কিছুতেই মনের আশঙ্কা দূর করতে পারছিলাম না। আগের দিন সন্ধ্যে ৬ টায় বেরিয়ে আমার মা শেষ মেষ বাড়ি ফিরে এসেছিল পরের দিন বেলা ১২ টা সময়ে। মা ফিরেছিল সম্পূর্ণ ক্লান্ত আর বিধ্বস্ত অবস্থায় একটা ট্যাক্সি করে। ড্রাইভিং করে ফেরার মতন শক্তি সে সময় মার শরীরে অবশিষ্ঠ ছিল না।
বাড়ি ফেরার পর মায়ের হাল দেখে আমি ভয় পেয়ে গেছিলাম। তার শরীরে অজস্র টাটকা কাটা ছেড়া দাত বসানোর দাগ ছড়িয়ে ছিল। এমন কি বডি সুটের তলায় পরা কালো রঙের নন ওয়ার্ড ব্রা টার ও ক্লাস্প ভাঙা। মার ঠোঁটের কোণে চামড়া ছড়ে গিয়ে রক্ত জমাট বাঁধা দাগ ও আমার চোখে পড়েছিল। মা এসে কোনো কথা না বলে কোনো রকমে কষ্ট করে নিজের পা দুটো টেনে কিছুটা খুড়িয়ে খুড়িয়ে নিজের রুমে ঢুকে দরজা টা ভেতর থেকে বন্ধ করে দিল। পরে জেনেছিলাম, মা দিলেওয়ার দের ঐ জঘন্য প্রফেশন থেকে মুক্তি পেয়েচে, কিন্তু আরো বেশি অসম্মানজনক শর্তে।
দিলেওয়ার চাঁদনী বারে মা ডেকে দুজনের মধ্যে একটা রফা সূত্র বের করে। দিনের পর দিন যেমন ঐ মুখ ঢেকে লাইভে এসে নিজের শরীর অচেনা অজানা লোক দের খুলে দেখানো মার মতন সমাজে সন্মানীয়া নারীর পক্ষে কন্টিনিউ করা সম্ভব ছিল না, ঠিক তেমনি, দিলেওয়ার রাও মায়ের মতন একজন হট সুন্দরী পরিণত বয়স্কা নারী কে বাগে পেয়েও ছেড়ে দিতে রাজি নয়। শেষে মা আর কোনো উপায় নেই দেখে, তার কাছে থাকা শেষ অস্ত্র ভের করে। সে দিলওয়ার এর চোখে চোখ রেখে নরম আর মিষ্টি স্বরে অনুরোধ করলো এইবারের মত তাকে যেনো ছেড়ে দেওয়া হয়, তার বদলে মা ওদের ব্যাক্তিগত আনন্দের জন্য সব কিছু করতে রাজি। মার সেক্সী ক্লিভেজ আর মদ এর গ্লাসে চুমুক দেওয়া রসালো ঠোঁট টা দেখে দিলেওয়ার মার প্রস্তাবে রাজি হয়ে যায়।
আর কোনো সময় নষ্ট না করে মা কে সেই রাতেই নিজের বাইক এর পিছনে বসিয়ে দিলেওয়ার তাকে ওর এক বন্ধুর বাড়িতে নিয়ে যায়। ঐ বন্ধুর নাম ছিল ইমতিয়াজ। উনি ছিলেন বিশাল ধনী, ৪৭ বছর বয়স এর এক লৌহ ব্যাবসায়ী। মা বাইক এ চেপে রওনা দেওয়ার পর, দিলেওয়ার এর কথা মতন তার এক চেলা এসে মার গাড়ি তার জিম্মা নেয়। ওটাকে ড্রাইভ করে ইমতিয়াজ ভাইএর বাড়ি অবধি নিয়ে আসে। তারপর সারা রাত ধরে যা যা হয় মার হাতে কোনো কিছুর আর নিয়ন্ত্রণ থাকে না।
মা তার জীবনে প্রথম বার থ্রীসাম সেক্সের অভিজ্ঞতা পায় ঐ রাতে। দিলেওয়ার আর ইমতিয়াজ দুজনে মিলে আমার মার সুন্দর শরীর টা কে মনের সুখে ভোগ করে, ওদের মিলিত অত্যাচারে মা সারা রাত দু চোখের পাতা পর্যন্ত এক করতে পারে না। মা পরে একবার বাড়িতে ঘরোয়া আসরে বলেছিল “ঐ রাত টা আমি জীবনে কোনো দিন ভুলতে পারবো না।
ঐ রাতে নিজেকে প্রেয়সি না বেশ্যা মনে হচ্ছিলো। দুজন নরাধম যেনো একটা পছন্দের খেলনা পেয়ে মনের সুখে সেদিন খেলছিল।” দুজনের সঙ্গে একসাথে করার অভ্যেস না থাকায় মার আরো বেশি কষ্ট হচ্ছিলো। সকালে জ্ঞান ফিরে ব্যাথায় কাতরাতে কাতরাতে দুজনের মাঝ খান থেকে বিছানা ছেড়ে উঠতে গিয়ে মা উঠতে পারলো না। ইমতিয়াজ এর ঘুম ভেঙে গেছিলো, ও মায়ের হাত ধরে টেনে আবার বিছানায় শুইয়ে দিয়েছিল। আর তারপর মায়ের উপর ফের চড়ে বসলো।
আধ ঘন্টা পর ইমতিয়াজ শান্ত হতেই দিলওয়ার এর ঘুম ভেঙে গেছিলো। ইমতিয়াজ এর জায়গায় ও উঠে চড়ে বসলো। মা যন্ত্রণায় সারা শরীর ছিড়ে গেলেও দিলেওয়ার কে কোনো বাধা দিলো না। মা বুঝতে পেরেছিল বাধা দিলে কোনো কাজ হতো না। উল্টে মার ই সমস্যা বাড়ত বই কমত না। এই ভাবে রাতের পর পরের দিন সকালেও করে ওদের দুজন কে বিছানায় সন্তুষ্ট করতে গিয়ে আমার মার বাড়ি ফিরতে ১২ টা সাড়ে ১২ টা বেজে গেছিলো। ঐ দিন সন্ধ্যে বেলাতেই শর্মা আংকেল ফিরে এসেছিল।

অষ্টম পর্ব
আর ফিরে এসেই লাগেজ নিয়ে ডাইরেক্ট মার ফ্ল্যাটে এসে হাজির হয়েছিল। আগের রাত জুড়ে দুজনের সঙ্গে থ্রি সাম করে মায়ের আংকেল কে বিছানায় খুশি করবার মতন শরীরের হালত ছিল না। আঙ্কল ও কিন্তু ডেসপারেট ছিল মার সঙ্গে সেই রাত এ শোবার বিষয়ে, এসে অনেক্ষন ধরে সুগন্ধি বডি ওয়্যাস গেল মেখে স্নান করেছিল।
এখানে মার শরীর খারাপ এর অজুহাত ধোপে টিকলো না। মা তবুও আংকেল কে একটা রাত না করার অনুরোধ করেছিল, কিন্তু আংকেল ও বেশ কয়েক দিন মার শরীর না পেয়ে ভেতরে ভেতরে ফুটছিল। মার অনুরোধ নাকজ করে মা কে তৈরি হয়ে ঠিক সময়ে বেডরুমে আসবার নির্দেশ দিল। মা বাধ্য হয়ে নিজের ব্যাগ থেকে কড়া ডোজ এর নেশার ওষুধ বার করলো।
আঙ্কল ওটা মা কে নিতে বারণ করলেও কবিতা আন্টির কাছ থেকে মা নিজের প্রয়োজনেই ঐ বিশেষ ওষুধ তার নাম আর কোথায় পাওয়া যায়, সেটা জেনে নিয়েছিল। তারপর কেয়ামত কে দিয়ে ঐ বিশেষ ওষুধ টা জোগাড় ও করে রেখেছিল, এই ওষুধ সেবন করলে যেমন অনেক সময় ধরে লাগাতার যৌনতা জারি রাখা যায় তেমনি এই ওষুধ তার অনেক সাইড এফেক্ট ও আছে।
এই ওষুধে স্ট্রেরয়েড থাকায় শরীরের মাংস পেশী গুলোতে চর্বি জমে, হার্টের রোগ ও দেখা যায়, বুক পেট পাছা সব আস্তে আস্তে একটা ভরাট শেপ নেয়। বিশেষ করে ব্রেস্ট খুব অল্প সময়ে সাইজে বেড়ে যায়। আর ওষুধ নিয়মিত নিলে এটা নেওয়ার একটা নেশা ধরে যায়। ঘুম আর জড়তা বেড়ে যায়, সব কিছু জেনেও মা ডিনারের পর বাধ্য হয়ে ঐ বিষ টা এক গ্লাস জলের সাথে পান করে, একটা নতুন পাতলা স্লিভলেস নাইটি পরে আংকেল এর সঙ্গে বেডরুমে প্রবেশ করালো।
আমার চোখের সামনে মা আঙ্কল এর সঙ্গে বেডরুমে প্রবেশ করার মিনিট পাঁচেক এর মধ্যেই বন্ধ দরজার ওপাশ থেকে শর্মা আঙ্কল আর মার সেক্সুয়াল ইন্টারকোর্স এর শব্দ ভেসে আসতে আরম্ভ করে। পরের দিন সকালে মা কে ব্রেকফাস্ট টেবিলে দেখে এক কথায় শোকড হয়ে যাই।
মা আগের রাতে নাইটি টা ছেড়ে স্নান সেরে শর্মা আঙ্কল এর পছন্দের হালকা আকাশী রঙের কটন অফিস সুইট টা পড়ে বেড়িয়ে ব্রেকফাস্ট নিতে এসেছে। uncle আগের রাত এর শার্ট পান্ট তাই পড়া ছিল। ওদের গা থেকে এক বডি ওয়্যাস জেল এর সুগন্ধ বেরোচ্ছিল। আমি আন্দাজ করেছিলাম মা আর আংকেল সকালে সম্ভবত একসাথেই শাওয়ার নিয়েছিল। শাওয়ার নেওয়ার পরেও ওদের মধ্যে এক রাউন্ড আদর হয়ে গেছে সেটাও বুঝতে পারছিলাম।
কারণ শর্মা আংকেল এর গলার কাছে মার লিপ মার্ক পরিষ্কার দেখা যাচ্ছিল যেটা আংকেল ক্লিন করতে ভুলে গেছিল। মার অফিস শুট এর তলায় পড়া সাদা শার্ট ছিল, শার্টের উপরের দুটো বোতাম খোলা থাকায় মায়ের স্তন্ বিভাজিকা স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছিলো। সব থেকে আশ্চর্য লাগলো শার্টের তলায় মা কোনো ইনার পরে নি। আমি মাকে ঐ অবস্থায় দেখে লজ্জা পেয়ে গেছিলাম। তা সত্বেও আমি আংকেল এর সামনেই গলা টা নামিয়ে মায়ের কানের কাছে মুখ এনে বলেছিলাম, মা তুমি এটা কি করছো? ঘরে যাও, আয়নার সামনে প্লিজ দাড়িয়ে দেখো। আজ শার্ট এর তলায় কিছু পড়তে ভুলে গেছো। এভাবে বাইরে যাবে।”
মা কিছু বলতে যাবে এমন সময় শর্মা আঙ্কল বলে উঠলো, তাতে কি হয়েছে সুরো, তোমার মা কিছু পড়ুক না পড়ুক বাড়িতে কে দেখবে….. রাতে শোওয়ার সময় তোমার মায়ের কিছুই পড়া ছিল না। হে হে হে… হু কেয়ার্স?? কিছু না পড়েই আরো বিউটিফুল লাগছিলো।”
মা আংকেল এর কথা শুনে মুখ আমার দিক থেকে সরিয়ে একটু অস্বস্তি ভাব এনে বললো। ” শর্মা জির খালি আজে বাজে কথা, একচুয়ালি কি হয়েছে বল তো সুরো, আমার লাস্ট ক দিন ধরেই সব ব্রা টাইট হচ্ছে। যে দুটো বড়ো সাইজ এডজাস্ট করে পড়ছিলাম সেটাও গত দুদিনে ছিড়ে গেছে। তবে আজ তোর শর্মা আংকেল আমাকে নিয়ে শপিং যাবে বলেছে। সেখানেই বেশি করে স্টক কিনে নেবো।”
শর্মা আংকেল মার কথা কে সাপোর্ট করে বললো,
ইয়েস ডারলিং, ইউ আর রাইট, আজ অফিস থেকে ফেরার পথে শপিং মলে যাবো। তোমার ফেভারিট জায়গা। যা পছন্দ তাই কিনে নেবে, বিল আমি মেটাবো।”
মা: না না শর্মা জী সব কিছু তে তোমার উপর এই বার বার ডিপেন্ড করতে আমার ভালো লাগছে না। তুমি কত করবে…
শর্মা আঙ্কল: এখানে আছো, আমি সেভাবে কিছুই করতে পারছি না। আমার ওখানে উঠলে দেখতে তোমাকে কি ভাবে রানী বানিয়ে রাখতাম। বাই দ্য ওয়ে আজ সন্ধ্যে বেলা মিস্টার সুখেয়ানির পার্টি আছে। মনে আছে, সেরে ওখানে যাবে তো? উনি তোমাকে বার বার যেতে বলেছেন।
মা: ওহ শিট, আজকেই তো ফ্রাইডে, ভুলেই গেছিলাম। মিস্টার সুখওয়ানির পার্টি, তার মানে বিশাল ব্যাপার। উফফ কদিন বাদে হলে বেশ হতো। আজ আমার শরীর টা ঠিক ভালো নেই। মিটিং টা না থাকলে অফিস তাও যেতাম না।
শর্মা আংকেল: কাম অন নন্দিনী, মিস্টার সুখওয়ানি আমাদের এতদিন কার ক্লায়েন্ট, ওনার পার্টি অ্যাটেন্ড করতেই হবে। অফিসের মিটিং এর ব্যাপার জাস্ট ১ ঘণ্টায় মিটে যাবে। তারপর তুমি ফ্রি। যা হবার আমার দুদিন আগেই ফাইনাল হয়ে আছে। তুমি জাস্ট এস বোর্ড মেম্বার মিটিং এর মিনিটস বুকে সাইন করে দিয়ে চুপ চাপ বসে থেকো। বাকিটা আমি সামলে নেবো। দরকার পড়লে, মিটিং এর পর কেবিনে তুমি একটু রেস্ট নিয়ে নেবে। তারপর শপিং সেরে, একটু স্যালন এ গিয়ে ফিটফাট হয়ে নিয়ে, আটটায় পার্টি। আর মিস্টার সুখওয়ানির পার্টি তে গেলেই তোমার শরীর ভালো করার বন্দোবস্ত থাকবেই, ইউ নো ইট ভেরি ওয়েল।”
মা: ওকে শর্মা জী, সুরো শুনলি তো, আজকে আমার জন্য অপেক্ষা করিস না। আমার ফিরতে লেট হবে। বেরোনোর আগে, আমি কেয়ামত কে বলে যাবো। তাড়াতাড়ি ডিনার সেরে শুয়ে পরবি। রাত করবি না। আমি আর আংকেল বাইরে খেয়ে ফিরবো।
আমি এইসব কথা শোনার পর আর ওদের সঙ্গে বেশি ক্ষণ বসে ব্রেকফাস্ট নিতে পারি নি। এক্সকিউজ মী বলে নিজের রুমে চলে এসেছিলাম। মাঝে মাঝে মার জীবনে হাই ক্লাস বন্ধু আর পার্টনারদের প্রভাব এমন বেড়ে যেতো মা তাল সামলাতে না পেরে নিজের সহ্য শক্তির লিমিট তাও ভুলে যেতো। মদ্য পান করে টলতে টলতে বাড়ি ফিরে কখনো শর্মা আংকেল আবার কখনো কেয়ামত কে নিজের রুমের বিছানায় সর্বস্ব লু টিয়ে দিচ্ছিলো।
মা বদ সঙ্গে পরে অনেক কিছু করতে আরম্ভ করেছিল যেগুলোর সবার সামনে করা তো দূর অস্ত সবার সামনে বলাও যায় না। এটা সত্যি নিয়মিত অফিস , পার্টি , ক্লাবে ঘোরা ফেরার জন্য মা কে নিজের শরীরের সৌন্দর্য র দিকে নজর রাখতে হয়েছিল। নিয়মিত বিউটি পার্লার, সেলোন, জিম এ গিয়ে পরিচর্যা করার ফলস্বরূপ তার শরীরী আবেদন দিন দিন বাড়ছিল। সময়ের সাথে সাথে মা অনেক সমস্যা অবাঞ্ছিত মুহূর্ত স্মার্টলি সামলে নিতে শিখে গেছিলো। কেয়ামতের সাথে তার সেলফি বাইরে চলে যাওয়ার পর থেকেই মা তার ফোনের পাস ওয়ার্ড নিয়মিত পরিবর্তন করতো। তার ফলে ফোন ঘেঁটে মা কখন কি করছে সেটা আর বোঝার উপায় থাকলো না।
আর এদিকে মা বাবার মধ্যে ডিভোর্স তাও সময় মত হয়ে গেছিলো। বাবা নিজেকে এতটাই পাল্টে ফেলেছিল, একটা পার্টি তে মা কে লুকিয়ে অঞ্জলী আন্টির সঙ্গে এনগেজমেন্ট রিং ও বদল করে নিয়েছিল। তাই অঞ্জলী আন্টির সঙ্গে সমঝোতা করে বাবার সঙ্গে তার বিবাহিত স্ত্রীর পরিচয়ে থাকতে চাইলেন না। আইন অনুযায়ী আমি সাবালক ছিলাম, তাই আমার কাছে অপশন ছিল মা আর বাবার মধ্যে একজন কে বেছে নেওয়ার । আমি লোকাল গার্জেন রূপে আমার মা কেই বেছে নিয়েছিলাম। মা ডিভোর্স এর alimony হিসেবে এককালীন বেশ কয়েক লাখ টাকা বাবার কাছ থেকে পেয়েছিলো। বাবা কে ছেড়ে মা নতুন ভাবে শুরু করার সিদ্ধান্ত নিল। আমি কষ্ট পেলেও, মার সিদ্বান্ত কে স্বাগত জানিয়ে ছিলাম।
তারপর দেখতে দেখতে মার বাবাকে ছেড়ে নতুন ফ্ল্যাটে শিফট করবার পর প্রায় ৬ মাস কেটে গেল। আমি আমার কলেজ লাইফ নিয়ে নিজের মতন ব্যাস্ত হয়ে পরলাম। আর মা নিজে আংকেল দের সঙ্গে ব্যাবসায় অংশ গ্রহণ করে একাই আমাদের দুজনের মা আর ছেলের সংসার টানতে লাগলো। বাবা প্রথমে মা কে মাস কাবারি একটা টাকা অফার করেছিল। মা বাবার ঐ অফার রিজেক্ট করেছিল। বাবার থেকে কোনো রকম সাহায্য না নিয়েই আমাদের দুজনের বেশ ভালো ভাবেই চলে যাচ্ছিল শুধু তাই না বেশ ভালো ভাবেই চলছিল। মা কোনো কিছুর অভাব রাখছিল না।
এর জন্য না জানি আমার মা কে কতখানি ত্যাগ স্বীকার করতে হচ্ছিলো। ঘরে বাইরে মা কে নিজের হাই ক্লাস জীবনের ধারা বজায় রাখতে হারে একটা ব্যাস্ত যৌন জীবন এর অভ্যাস জারি রাখতে হয়েছিল। হাই ক্লাস পার্টি করা মানুষ দের সঙ্গে মিশে মায়ের লজ্জা শরমের আগল যেনো ভেঙে গেছিলো। তার ব্লাউজের আকার পরনের ড্রেস ও দিন দিন ছোটো হচ্ছিলো। এই ৬ মাসের ভেতরে আরো একটা নতুন ফ্ল্যাট মা কেনে। ওটা দামি আসবাবপত্র দিয়ে সাজিয়ে সপ্তাহের শেষের দুদিন মাঝে মধ্যে ওই নতুন ফ্ল্যাটে কাটিয়ে আসা শুরু করে।
সেখানে গেলে মা অবশ্য একা যেত না। তার পছন্দের সঙ্গী কেও রাত কাটানোর উদ্দেশে মা নেমন্তন্ন করে নিয়ে যেতো। আর আমাদের বাড়িতেও সন্ধ্যের পর আংকেল রা এসে আসর জমাতো। তাই আমি আমার কোনো বন্ধু কে কখনো বাড়িতে ইনভাইট করতাম না। প্রথম প্রথম শর্মা আঙ্কল মা র সঙ্গে এক ফ্ল্যাটেই এক রুমেই লিভ ইন করতো। একটা সময় পর আংকেল নিজের কারবারে একটু ব্যাস্ত হওয়া তে সেই লিভ ইন বেশি দিন কন্টিনিউ করা গেলো না। মা তারপরেও আংকেল এর থেকে রেহাই পেল না।
কারণ শর্মা আংকেল তার বিরাট ব্যাবসা নিয়ে ব্যাস্ত থাকলেও, তার ফাঁক এ ঠিক সময় বার করে, দুই থেকে তিন দিন এসে রাত আর সকাল টা মার সঙ্গে কাটিয়ে যেতো। আরো অনেক পুরুষ মা কে কাছে পাওয়ার জন্য পাগল ছিল। নায়েক আর চৌধুরী সাহেব রাও ধারাবাহিক সম্পর্ক রেখেছিল। তার সব কথা শুনে তাকে নিয়মিত খুশি রাখবার উপহার স্বরূপ মা আংকেল এর থেকে একটা ব্র্যান্ড নিউ ইমপোর্টেড ফোর হুইলার কার গিফ্ট পেয়েছিল। এত কিছুর মধ্যেও আমি মাঝে মাঝে টের পেতাম মার মনে যেনো সুখ নেই।
মা খুব দ্রুত ছুটে চলছিল। অল্প সময়ে প্রভাবশালী দের সঙ্গে সম্পর্ক তৈরি করে যে পজিশন এ উঠে এসেছিল তার জন্য আস্তে আস্তে মার অনেক শত্রু হয়েছিল। এই শত্রু দের মধ্যে কেউ ছিল চেনা আবার কেউ সম্পূর্ণ অচেনা। একাধিক পুরুষের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্কের টানাপোড়েন আর হাই ক্লাস বিজনেস ওমেন লাইফের চাপ আস্তে আস্তে তার শরীরে আর মনে ছাপ ফেলতে শুরু করেছিল। সেই চাপ কাটাতে মা সিগারেট খাবার বদ অভ্যাস ধরলো।
বছর ঘুরতে না ঘুরতেই বাবা মার ডিভোর্স টার এক বছর পূর্ণ হতে না হতেই শর্মা আঙ্কেল মা কে তার সঙ্গে এনগেজমেন্ট এর বিষয়ে রাজি করে ফেললেন। তারপর আংকেল এর ফার্ম হাউসে রাখা হোলি পার্টি তে সেই এনগেজমেন্ট এর কথা সবার সামনে ঘোষণাও করে দিল। মা বাবার বিচ্ছেদের জন্য শর্মা আংকেল প্রধান দায়ী। এছাড়া আমি জেনেছিলাম আংকেল এর জীবন এ মা কে ছাড়াও নারী আছে। তাই এই এনগেজমেন্ট এর খবরে আমার মার জন্য আমি আতঙ্কিত হয়ে পরলাম। যেভাবেই হোক এই এনগেজমেন্ট আটকাতে হবে আমি মনে মনে স্থির করলাম। আর মা র জীবন থেকে শর্মা আংকেল এর মতন ভদ্র মানুষের মুখোশ পরা এক শয়তান কে বিদায় করতে আমি দৃঢ় প্রতিজ্ঞ হলাম।

গল্পটি কেমন লাগলো ?

ভোট দিতে স্টার এর ওপর ক্লিক করুন!

সার্বিক ফলাফল 1 / 5. মোট ভোটঃ 1

এখন পর্যন্ত কোন ভোট নেই! আপনি এই পোস্টটির প্রথম ভোটার হন।

Leave a Comment