মুখোশ – The Mask [৪৩-৪৪]

লেখকঃ Daily Passenger

৪৩
ফোন কেটেই আরিফ উঠে দাঁড়িয়েছেন। “স্যার এইবার ওয়ারেন্ট বের করুন।” মিস্টার বেরা একটা শুকনো হাসি হেসে বললেন “ হেয়ার সে র ওপর ভিত্তি করে, সরি পরোক্ষ হেয়ার সে র ওপর ভিত্তি করে কাউকে গ্রেফতার করে কোর্টে হাসির খোরাক হতে চাও। এখনও বুঝতে পারছ না যে ও জানত যে কখনও না কখনও এই সব কিছু আমরা জানতে পারব। কিন্তু তবুও আমরা কিছু করতে পারব না। কোর্টে কেস উঠলে বেকসুর খালাস পেয়ে যাবে ও। ওর বিরুদ্ধে এই ছেলেটার দেওয়া জবানবন্দি গ্রাহ্যই হবে না। কোর্টে হেয়ার সে-ই গ্রাহ্য হয় না। আর এটা তো আবার পরোক্ষ হেয়ার সে। আর তাছাড়া ভুলে যেও না সংকেত একা নয়। ওর অনেক সাঙ্গোপাঙ্গ আছে। কাজের জিনিসগুলো কার কাছে আছে সেটাও আমরা জানি না। ওদের সবাইকে একসাথে ধরতে হবে। নইলে আসল জিনিসটা বেহাত হয়ে যাবে। চলো এইবার কাজের কথায় ফেরা যাক। ২৩ নম্বর পয়েন্টটা আরেকবার গুছিয়ে নেওয়া যাক।
২৩… আপাত ভাবে সংকেতের কথা শুনে সবার মনে হয়েছিল যে সংকেত দীপককে মিস্টার মুখার্জির লোকদের থেকে সাবধান করে দিচ্ছে। কিন্তু দীপক সংকেতের কথার আসল মানে বুঝতে পারল। ও আকারে ইঙ্গিতে বুঝিয়ে দিল যে দীপক বাইরে বেরোলে সংকেত বা সংকেতের লোক ওকে মেরে ফেলবে। তার থেকে বেটার সুইসাইড করে নেওয়া। সেই ইঙ্গিতই সংকেত দীপককে দিয়ে এসেছিল।
২৪। সবাই তখন দীপকের চোখ মুখের দিকে তাকিয়ে আছে ব্যস্ত ভাবে। সবাই দীপকের হাবভাব বোঝার চেষ্টা করছে। কি লাহিড়ী ঠিক বলছি কি না? (লাহিড়ী নিরবে মাথা নাড়াল।) এটাই স্বাভাবিক। তখন তোমরা কেউ সংকেতের হাতের দিকে খেয়াল করেছিলে? (লাহিড়ী মাথা নাড়িয়ে বুঝিয়ে দিল যে আমার হাতের দিকে ও লক্ষ্য করেনি) সংকেত যখন দীপকের বিছানার কাছে গিয়ে দাঁড়িয়েছিল তখনই কোনও এক সময় ফাঁকে পিস্তলটা ওর চাদরের নিচে গুঁজে দিয়ে চলে আসে। এছাড়া আর কোনও সমাধান হতেই পারে না। ওই ছেলেটাকে তোমরা বেকার এতদিন ধরে আটকে রেখেছ।
২৫। সংকেতের ভয় দীপককে তখন সম্পূর্ণ ভাবে গ্রাস করেছে। সংকেতের লোকেদের হাতে মরতে হলে মরবার আগে ওকে আর কোন কোন যন্ত্রণা ভোগ করতে হবে কে জানে। তার থেকে এই ভালো। সংকেতের দেওয়া পিস্তল দিয়ে সুইসাইড করল। সাথে সাথে শান্তনু মুখার্জির চ্যাপটারও ক্লোস হয়ে গেল। সংকেত যে এই কাণ্ডের হোতা সেই ব্যাপারে আর একটাও প্রত্যক্ষদর্শী রইল না। অর্থাৎ দীপক নেমে গেল সংকেতের ঘাড় থেকে।
২৬। শান্তনু মুখার্জি মারা গেল, তার কয়েক ঘণ্টা পর সংকেতের প্ল্যান অনুযায়ী রঞ্জন মুখার্জিও মারা গেল। মিস্টার মেহেরা এখন সংকেতের চোখের সামনে। আমার বাড়িতে ঢোকার সব বন্দবস্ত মোটামুটি পাকা। সুতরাং শেষ কাজটা যেটা বাকি রইল সেটা হল মিস্টার মুখার্জির বাড়ি থেকে ফাইলটা… সরি ফাইলগুলো হাতিয়ে নেওয়া। দোলন মুখার্জি সংকেতের বন্ধু। রঞ্জন মুখার্জির মৃত্যুর পর সংকেত যে ওদের বাড়িতে যাতায়াত করবে সেটা তো বলাই বাহুল্য। আর সেই সময়ই কোনও এক সুযোগে… অবশ্য হোটেল ছেড়ে বেরনোর আগে ওই জানতে পারে যে ওইদিনই ফিউসটা এসে মিস্টার মেহেরার হাতে পৌঁছেছে। ভোর রাতে বাকি ফাইলগুলোর সাথে সেটাকে ও সরিয়ে নিল।
২৭। সংকেত যেমনটা চেয়েছিল সব তেমন তেমনই হয়ে গেল। শুধু আমার বাড়িতে যে কারণে প্রবেশ করেছিল সেটা করে উঠতে পারল না। এতগুলো ফাইলের র্যাকের মধ্যে থেকে শুধু ওই ফাইলগুলো খুঁজে বের করতে অনেক সময় লাগবে। ফাইল খোঁজার সময় সঞ্চিতার হাতে ধরা পড়ে গেলে তো কথাই নেই। কিন্তু এদিকে জানতে পেরেছে আমি ফিরে আসছি। সুতরাং যা করার খুব দ্রুত করতে হবে। সংকেত চলে গেল কলেজে। ওর এক সাকরেদ এসে হানা দিল আমার কাজের ঘরে। ঠিক সেই সময় আমি ফিরে এলাম। আর … (নিজের মাথার ব্যান্ডেজের দিকে ইশারা করে বাকি কথাগুলো উনি অসমাপ্ত রাখলেন) তবে যা খুঁজতে এসেছিল, সেগুলো নিয়ে লোকটা সরে পড়েছে। সুতরাং এই টার্গেটও অ্যাচিভড।
২৮। আর গতকাল আমি ফিরে আসছি জেনেই ও ১৫ই আগস্ট গিয়ে একজন মস্ত বড় উকিলের সাথে আগে ভাগে দেখা করে এলো। মিস্টার সত্যজিৎ ধর। আজ খেয়াল করেছিলেন নিশ্চই, মিস্টার ধর তার পুরো টিম নিয়ে থানার ক্যাম্পাসের বাইরে গোটা সময়টা দাঁড়িয়েছিল? বেচাল কিছু হলেই ঝাঁপিয়ে পড়বে। তখন ওকে ওখানে দেখে আমি কারণ ঠিক বুঝতে পারিনি, কিন্তু এখন বুঝতে পেরেছি। মিস্টার ধরকে আগে ভাগেই সংকেত বুক করে এসেছিল ১৫ তারিখ সকালে গিয়ে। তার চাক্ষুষ প্রমান ওর গোটা ফ্যামিলি। সংকেত ওর সাথে খুব মিস বিহেভ করেছে সেটাও ওনার মিসেস আমাদের লোককে বলেছে। মাথায় নাকি এক বালতি জল ঢেলে দিয়েছিল ঘুম কাটানোর জন্য। আর ফর সাম রিসন মিস্টার ধর সংকেতকে খুব ভয় পায়। এটাও ওর স্ত্রী আমাদের জানিয়েছে।
মিস্টার বেরা ফাইনালি থামলেন। মিস্টার রাহাকে জিজ্ঞেস করলেন “বলুন এইবার। কিছু অ্যাড বা মাইনাস করতে চান? আর কিছু ভুল বললে সেটাও বলতে পারেন।” মিস্টার রাহা একটু চিন্তা করে বললেন “ কেন জানি মনে হচ্ছে এখনও কয়েকটা জিনিস জানা বাকি রয়ে গেল। মোটের ওপর এই হাইপোথিসিস ঠিক। কিন্তু স্টিল কয়েকটা খটকা আছে। দীপকের বন্ধুর কাছ থেকে যেমন ওই ইনফরমেশনটা ক্লিয়ার কাট পাওয়া গেল তেমনই আরও কয়েকটা ইনফরমেশন ক্লিয়ার কাট পেলে ভালো লাগত।”
মিস্টার বেরা বললেন “আপনি কোন কোন জিনিসের কথা বলছেন ঠিক জানি না। কিন্তু একটা প্রশ্ন আমাকেও ভাবাচ্ছে। রঞ্জন মুখার্জির মৃত্যুর আগে সংকেত কিভাবে সেই ভিডিও ক্লিপটা পেল। বা ওদের কথা বার্তা রেকর্ডই বা করল কি করে? আমি যতদূর দেখেছি সংকেতের সিম লোকেশন অনুযায়ী ও রঞ্জন মুখার্জির মৃত্যুর দিন বিকাল বেলায় প্রথমবার মিস্টার মুখার্জির বাড়ি গেছে। “ পাশে বসে থাকা অফিসার মাথা নেড়ে সম্মতি জানালো। মিস্টার আরিফ খান বললেন “স্যার, এটা তো সংকেতের কোনও সাকরেদের কাজও হতে পারে। তাই না?” মিস্টার বেরা আর মিস্টার রাহা দুজনেই এক সাথে মাথা নাড়লেন। মিস্টার রাহা বললেন “অ্যান এমফাটিক নো মিস্টার খান। মিস্টার বেরার বাড়ি আর মিস্টার মুখার্জির বাড়ি এক নয়। মিস্টার মুখার্জির জীবদ্দশায় ওই বাড়ির চারপাশে সারাক্ষন সিকিউরিটি মোতায়েন থাকত, সে উনি বাড়িতে থাকুন বা নাই থাকুন। মিস্টার খান,ব্যাপারটাকে এত সহজ ভাবলে চলবে না। আর তাছাড়া মিস্টার খান, আমি আপনাকে একটা কোশ্চেন মার্ক লিখতে বলেছিলাম মনে আছে? সেই পয়েন্টটা একবার পড়ে শোনাবেন?” মিস্টার খান বললেন “মিস্টার বেরার হাইপোথিসিস অনুযায়ী মালিনীর কাছ থেকে কোনও মতে ও (সংকেত) জানতে পারল যে ফার্স্ট ফ্লোরের ক্যামেরা কাজ করে না।” মিস্টার রাহা বললেন “আমার প্রশ্ন কি করে জানতে পারল?”
মিস্টার বেরা বললেন “ হতে পারে সেক্সুয়াল ইন্টারকোর্সের সময়, বা মন ভোলানো কথা বলার সময় কোনও ভাবে মালিনীর পেট থেকে সেই কথা বের করে নিয়েছে। আমরা তো জানি মালিনীর সাথে সংকেতের একটা ঘনিষ্ঠতা তৈরি হয়েছিল। ওদের মধ্যে যৌন সম্পর্ক ছিল কিনা সেটা তর্ক সাপেক্ষ ব্যাপার হলেও, কিছুটা ঘনিষ্ঠতা তো ছিলই।” মিস্টার রাহা বললেন “ তাহলে মালিনী কেন সম্পূর্ণ ভাবে জিনিসটা অস্বীকার করল ওর ম্যানেজারের সামনে? মালিনী নিজের ম্যানেজারকেও যথেষ্ট শ্রদ্ধা করে। আর সব সময় এরকম ভাবার কারণ নেই যে মালিনী নিজের অজান্তে ভুল করেছে। অন্য দিক থেকেও ব্যাপারটা ভাবা যেতে পারে। একটু মন দিয়ে আমার কথা গুলো এইবার শুনুন। ফার্স্ট ফ্লোরের ক্যামেরা অন থাকবে সেটাই তো স্বাভাবিক ব্যাপার, নয় কি? এই নিয়ে কথা বলারই বা কি আছে? সংকেত হঠাৎ করে ফার্স্ট ফ্লোরের ক্যামেরার প্রসঙ্গ ওঠাতে যাবেই বা কেন? আর এটাও মোটামুটি মেনে নেওয়া যেতে পারে যে কোনও রুম বয়কে হাত করে সংকেত এই তথ্য বের করতে পারবে না। কারণ রুম বয়দের কেউ ব্যাপারটা জানতই না। ওরা ভি আই পি দের আগমনের ব্যাপারে কথা চালাচালি করলেও করতে পারে, কিন্তু ক্যামেরা অফ, সেটা কি করে জানবে?”
সবাই এর ওর মুখ চাওয়া চাওয়ি করছে দেখে মিস্টার রাহা বললেন “ ইনফ্যাকট সংকেত যে জাতের ধুরন্ধর তাতে ওর যদি ফার্স্ট ফ্লোরের ক্যামেরা নিয়ে কোনও বক্তব্য থাকতও, তবুও সে সেটা মালিনীর সামনে বলত না, আমার বিশ্বাস মালিনী কেন কারোর সামনেই বলত না। কারণ তাতে মালিনীর মনে সন্দেহের সৃষ্টি হতে পারে। এই জাতের ক্রিমিনালরা একটাও ভুল করে না মিস্টার বেরা। তার নজির তো দেখতেই পাচ্ছেন। সব বুঝতে পারছি, কিন্তু এটাও বুঝতে পারছি যে এইসব তথ্য নিয়ে কোর্টে যেতে পারব না। একটু অন্য ভাবে ভাবা দরকার বইকি।” মিস্টার বেরা নিজের গ্লাসে পানীয় ঢালতে ঢালতে বললেন “ আপনার এই ব্যাপারে কিছু বক্তব্য থাকলে বলে ফেলুন।” মিস্টার রাহা বললেন “আপনার মতন পয়েন্ট বাই পয়েন্ট বলার দরকার নেই। কিন্তু শুরু থেকে সংকেতের কাজ কর্মের যা প্যাটার্ন, সেটা দেখেই আমার মনে হয়েছে এখানেও কোনও না কোনও ভাবে স্পাই ক্যাম আর মাইক্রোফোনের কেরামতি আছে। দেখুন সংকেত যেখানে যেখানে নিজের পায়ের ধুলো রেখেছে তার অধিকাংশ জায়গায় এই সব সেট করে রেখে দিয়ে গেছে। হতে পারে এই দুই ক্ষেত্রেও…আর তাছাড়া শিখার মৃত্যুর ব্যাপারটা? সব বুঝেও অনেকগুলো ফাঁক থেকে গেছে, তাই না? বাট আই সাপোর্ট ইওর হাইপোথিসিস। ”
মিস্টার বেরা চুপ করে কিছুক্ষণ বসে রইলেন। সত্যি আর মাথা কাজ করছে না। মিস্টার রাহা এক মনে নিজের খালি গ্লাসের দিকে তাকিয়ে বসে আছেন। ওনার পাশে বসা মিসেস রাহা টেবিলের ওপর মাথা রেখে কখন যে ঘুমের কোলে ঢোলে পড়েছেন কে জানে। ঠিক এমন সময় হঠাৎ করে পাশে বসে থাকা সেই অফিসারটি চেঁচিয়ে উঠল “ইউরেকা” । এর উৎসাহের সত্যি কোনও সীমা পরিসীমা নেই। এত জোরে ও চেঁচিয়ে উঠেছে যে মিসেস রাহাও ধড়ফড় করে সোজা হয়ে বসেছেন। মিস্টার বেরা বললেন “আআআআহ। একটু আসতে। মিসেস রাহা একটু রেস্ট নিচ্ছিলেন। কি পেয়েছ?” ওই অফিসারের চোখ জ্বলছে, ঠোঁটের কোণে বিজয়ীর হাসি। সবাই ধড়ফড় করে উঠে ওই অফিসারের ল্যাপটপের উপরে গিয়ে ঝুঁকে পড়ল। সবার ব্রেন টায়ার্ড আর চোখের সামনে একগুচ্ছ নাম্বার আর লোকেশন। কেউ কিছুই বুঝতে পারল না।
মিস্টার বেরা বললেন “তুমি ওই হোয়াইট বোর্ডে গিয়ে তোমার পয়েন্ট গুলো একটু জট ডাউন করো, আমি ততক্ষণে একটু হালকা হয়ে আসছি। আরিফ দরজাটা বন্ধ করে দাও। থানায় বসে মদ খাচ্ছি, এই খবর মিডিয়া জানতে পারলে আর রক্ষে থাকবে না। উনি বেরিয়ে গেলেন। ওনার ফিরতে একটু সময় লাগলো। কিন্তু ঘরে ঢোকার পর বুঝতে পারলেন যে সত্যি কিছু ঘটে গেছে এই কয়েক মিনিটে। সবাই আবার নিজেদের পানীয় ঢালতে ব্যস্ত। এমনকি মিসেস রাহাও নিজের গ্লাসে পানীয় ঢালছেন। উনি রুমাল দিয়ে চোখের কোটরটা ভালো করে পরিষ্কার করে হোয়াইট বোর্ডের দিকে চেয়ে দেখলেন। এইগুলো হাইপোথিসিস নয়। জলজ্যান্ত প্রমান।
১। ওই দুর্ঘটনার রাতে(যেদিন শান্তনু মুখার্জি মারা যায়) আমি যে শিখার বাড়ি গেছিলাম সেটা রিপোর্ট থেকে স্পষ্ট… (মিস্টার বেরা এই পয়েন্টের পাশে লিখলেনঃএটা জানা তথ্য)
২। ওই দুর্ঘটনার রাতে দোলন, রাকা আর আমি যে মধ্য রাত্রি অব্দি জল বিহার করেছিলাম সেই তথ্য আবিষ্কৃত। (মিস্টার বেরা এই পয়েন্টের পাশে লিখলেনঃ এত রাতে এরা কি করছিল। সেখানে কি হয়েছিল জানা দরকার। রাকা, দোলনকে ডাকতে হবে)
৩। ১৫ইআগস্ট, দুপুর ২.৪৫। এটা ওই ১৫০ টা অচেনা নাম্বারের মধ্যে একটা নাম্বারের ব্যাপারে রিপোর্ট। সিকয়েন্স কিছুটা এরকমঃ-
–অচেনা নাম্বার থেকে আমার মোবাইলে একটা এস এম এস আসে। আমার মোবাইল লোকেশন তখন ওর লোকেশনের খুব কাছে।
–মিনিট দশেকের মধ্যে আমার সিমের লোকেশন আর ওই নাম্বারের লোকেশন এক হয়ে যায়। মিনিট দশেক দুটো সিমের লোকেশন এক ছিল। এবং একই জায়গায়। দুটোই স্থির।
— তারপর আবার দুটো সিম দু-দিকে মুভ করে। আমার সিমটা চলে যায় দোলনের বাড়ির দিকে। আর অন্য সিমটা চলে যায় শিখার বাড়ির দিকে। শিখার বাড়ির লোকেশনে পৌঁছে ওই মোবাইল থেকে আমার মোবাইলে একটা কল আসে। আর তারপরেই সিমটা ধরা ছোঁয়ার বাইরে চলে যায়। অর্থাৎ মোবাইল থেকে সিমটা খুলে ফেলা হয়। যে মোবাইল সেট থেকে এই কলটা এসেছিল সেটাও একই সাথে ধরাছোঁয়ার বাইরে চলে যায়।
— ঠিক সেই সময় আরেকটা নাম্বার (ওই ১৫০ টা অচেনা নাম্বারের মধ্যেই একটা নাম্বার) অন্য আরেকটা আই এম ই আই থেকে জেগে ওঠে শিখার বাড়ির লোকেশনে। সেই সিমটা অনেক রাত অব্দি চালু ছিল এবং ওই একই লোকেশনে স্থির হয়ে ছিল।
— নাম্বার চালু হওয়ার কিছুক্ষণ পর ওই মোবাইল/সিম থেকে প্রথম এস এম এস ঢোকে আমার মোবাইলে।
— মাঝ রাত পার করে সিমটা আবার মুভ করা শুরু করে। ঠিক তখনই ওই সিম থেকে আমার মোবাইলে আরেকটা এস এম এস ঢোকে। ব্যস তারপরেই এই সিম আর এই মোবাইলটা ধরাছোঁয়ার বাইরে চলে যায়। (মিস্টার বেরা এই পয়েন্টের পাশে লিখলেনঃ খুব জরুরি তথ্য। আমাদের হাইপোথিসিস কি?)
৪। শিখা যেদিন মারা যায় সেদিনও অনুরূপ ঘটনা ঘটে। সেই ১৫০ টা অচেনা নাম্বারের মধ্যে থেকে একটা অন্য নাম্বার একটা নতুন মোবাইল সেটে জেগে ওঠে শিখার বাড়ির ঠিক সামনে। সেই নাম্বার থেকে দুটো পর পর এস এম এস ঢোকে আমার মোবাইলে। তার পর গোটা রাত সব চুপচাপ। ঠিক ভোর ছটার দিকে আমার মোবাইলে আরেকটা এস এম এস ঢোকে ওই নাম্বার থেকে। তারপর একটা ১৫ সেকন্ডের কল আসে ওই সিম থেকে আমার সিমে। সিমটা ৮.০৫ মিনিটে ওই লোকেশন থেকে মুভ করতে শুরু করে। তারপরেই সিম আর মোবাইল একসাথে ধরাছোঁয়ার বাইরে চলে যায়। (মিস্টার বেরা এই পয়েন্টের পাশে লিখলেনঃ খুব জরুরি তথ্য। আমাদের হাইপোথিসিস কি?)
৫। আমার মোবাইলে সব থেকে বেশী এস এম এস করেছে রাকা। (মিস্টার বেরা এই পয়েন্টের পাশে লিখলেনঃ রাকার সাথে সংকেতের কি এত কথা? অন্য দিকে মালিনীও তো আছে?)
৬। দোলনও মাঝে সাঝে এস এম এস করেছে। (মিস্টার বেরা এই পয়েন্টের পাশে লিখলেনঃ দোলনের সাথে সংকেতের কি এত কথা? অন্য দিকে মালিনীও তো আছে?)
৭। মালিনীও মাঝে সাঝে এস এম এস করেছে। (মিস্টার বেরা এই পয়েন্টের পাশে লিখলেনঃএটা জানা তথ্য)
৮। রঞ্জন মুখার্জি যেদিন মারা যান ঠিক তার দুদিন পরের ঘটনা। দুটো সিমের মধ্যে বিকাল থেকে এস এম এসের আদান প্রদান হয়। আমার সিম আর রাকার সিম অনেকক্ষণ ধরে লেকের (সেই লেক) মধ্যে একই লোকেশনে ছিল। এর পর দুটো সিমই পর পর লেকের বাইরে বেরিয়ে আসে। অল্প কিছুদূর গিয়ে সিম দুটো আবার স্থির হয়ে যায়। অনেক রাত অব্দি সিম দুটো একই লোকেশনে ছিল। পরে যে যার বাড়ি ফিরে যায়। (মিস্টার বেরা এই পয়েন্টের পাশে লিখলেনঃ সেদিন গোটা শহর বিকালের পর বৃষ্টিতে ভেসে গিয়েছিল। রাকা আর সংকেত ওই লেকের ভেতর বসে কি করছিল?)
৯। ১৪ই আগস্ট বেলা মুখার্জির কাছ থেকে আমার সিমে একটা কল আসে। বেশ কিছুক্ষণ কথা হয়। (মিস্টার বেরা এই পয়েন্টের পাশে লিখলেনঃ মিসেস মুখার্জির সংকেতের সাথে কি দরকার থাকতে পারে? ১৫ই আগস্ট ওদের বাড়িতে নিয়ম ভাঙ্গার কাজ ছিল সেটা জানি। কিন্তু সেক্ষেত্রে মেয়ের বন্ধুকে নেমন্তন্ন করতে হলে সচরাচর মেয়েকেই কল করতে বলা হয়। অন্তত মেয়েকে কল করতে বলে, মেয়ের মোবাইল থেকেই মায়েরা মেয়ের বন্ধুর সাথে কথা বলে। বেলা মুখার্জি নিজে কেন সংকেতকে কল করতে গেলেন?)
১০। ১৫ ই আগস্ট রাত। আমার সিম ৮.১৮ তে মিসেস মুখার্জির বাড়ির লোকেশনে গিয়ে পৌঁছায়। তার আগে অব্দি অবশ্য আমার সিমটা মিস্টার বেরার বাড়ির চারপাশে এধার ওধার ঘুরে বেরিয়েছে। তিনটে সিম মধ্য রাত্রি অব্দি একই লোকেশনে ছিল। আমার সিম, সুধা সান্যালের সিম আর বেলা মুখার্জির সিম। (একই লোকেশন মানে একই বাড়ি নাও হতে পারে… প্লীজ খেয়াল রাখবেন।)
(মিস্টার বেরা এই পয়েন্টের পাশে লিখলেনঃ সংকেত সেদিন মিস্টার মুখার্জির বাড়ি গেছে সেটা আমাকে সঞ্চিতা জানিয়ে ছিল। সুধা সান্যালও যতদূর শুনেছি সেদিন ওই বাড়িতেই ছিলেন মিসেস মুখার্জির একাকীত্ব দূর করার জন্য। সংকেতকে খাবার জন্য নেমন্তন্ন করলে অত লেট হবে কেন? তিন জন মিলে এত রাত অব্দি কি করেছে? ফাইলটা কি সেদিনই সরিয়েছে? এমন ভাবার কারণ এই যে বাকি অন্য দিন গুলোতে যখন সংকেত ওদের বাড়ি গেছে তখন ওদের বাড়ির কাজের ব্যাপারে হেল্প করতে গেছে। আর সব সময় সংকেতের চারপাশে অনেক লোক ছিল। সংকেত প্রায় একাই সব জোগাড়যন্ত্র করেছে…বাকিদের বয়ান থেকে এই তথ্যই বেরিয়ে এসেছে। কিন্তু এইদিন বাড়িতে ছিল মাত্র তিন জন আর হয়ত চাকর বাকর। এত রাত অব্দি ওরা কি করছিল? )
১১। আমি প্রায় রোজ ভোরে যে মর্নিং ওয়াকে যাই, তার তথ্য এটা। যেই লেকের ধারে গিয়ে বসি, তার উল্লেখ আছে এখানে। (মিস্টার বেরা এই পয়েন্টের পাশে লিখলেনঃ আগামিকাল কুকুর নিয়ে গিয়ে এই লেকের চারপাশের জমির তল্লাশি নিতে হবে। )
এই অব্দি বোর্ডে লেখা আছে। মিস্টার বেরা ওই অফিসারের দিকে তাকিয়ে বললেন “ইউ ডিসার্ভ অ্যা পার্টি মাই বয়। সত্যি অনেক গুলো লিঙ্ক খুঁজে বের করেছ খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে। সবাই আরেকবার চিয়ার্স করে নতুন উদ্যমে মদ্যপান শুরু করতে যাচ্ছিল এই ভোর রাতে, কিন্তু মিস্টার বেরা ছেলেটার মুখের দিকে তাকিয়ে হাতের গ্লাস নামিয়ে রেখে দিলেন। “তোমার মুখ দেখে মনে হচ্ছে আরও কিছু বলতে চাও।” ছেলেটা এর ওর মুখের দিকে তাকাচ্ছে। স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছে যে ও আরও কিছু বলতে চায়, কিন্তু সাহস করতে পারছে না। ছেলেটা কিছু একটা বলতে গিয়েও কথাটা গিলে নিয়ে বলল “না স্যার। তেমন কিছু নয়। “
মিস্টার রাহা বললেন “তোমার চোখ দেখে বোঝা যাচ্ছে তুমি কিছু একটা চেপে যাচ্ছ হয় ভয়ে বা সংকোচে। যে সংকেত আমাদের এত বড় ক্ষতি করে এখনও ভালো মানুষ সেজে নাকে তেল দিয়ে ঘুমাচ্ছে আর আমরা এখানে বসে মাথা ঠুকে মরছি তার ব্যাপারে প্লীজ কিছু গোপন করো না। যা বুঝতে পেরেছ বলে ফেলো। ইনফ্যাকট কারোর যদি আরও কিছু অ্যাড করার থাকে সেটা করে ফেলো। দুটো জিনিস মনে রেখো। সংকেতের যা দরকার সেটা ওর হাতে চলে এসেছে। আমাদের হাতে ওকে হাজতে ধরে রাখার মতন কোনও প্রমান নেই। ও নিখুঁত ভাবে দাবার গুঁটি সাজিয়েছে। আমি সিওর এখনও অনেক কিছু আমাদের জানা বাকি। এই কেসে বিস্ময়ের সীমা নেই। কিন্তু সেই সাথে এখন যেটা সব থেকে সিরিয়াস হয়ে উঠেছে সেটা হল ও এইবার একে একে ওর এক্সিট প্ল্যানগুলো এক্সিকিউট করবে। ও যে কি করবে বোঝা যাচ্ছে না। এত দিন ও আমাদের থেকে ১ নয় ১০ পা এগিয়ে ছিল। এখন আমরা সবাই ওকে ঘিরে ধরেছি, আর ও একা। এখনও কি আমরা পারব না ওকে বিট করতে? তাই যার যা মনে আছে, সব খুলে বলে ফেলো। ভুল হলে হোক। সে পরে ভেবে দেখা যাবে। বাট চেষ্টায় ত্রুটি রাখা যাবে না।” ছেলেটা ধীরে ধীরে বোর্ডের সামনে গিয়ে দাঁড়াল। একবার পিছনে ফিরে মিস্টার বেরার দিকে তাকিয়ে দেখল। ওনার ভুরু কুঁচকে রয়েছে। ছেলেটা লেখা শুরু করল।
১২। ১৫ই আগস্ট মধ্যরাত্রির পর (মানে ইংরেজি মতে আফটার ১২ am, ১৫ই আগস্ট) মিসেস বেরার মোবাইল থেকে সংকেতের মোবাইলে পর পর দুটো এস এম এস ঢোকে। সংকেত তার রিপ্লাইও করে। প্রায় ভোর রাতের দিকে একটা নাম্বার থেকে মিসেস বেরার মোবাইলে একটা কল আসে। কলটা বেশ খানিকক্ষণ চলে। কলটা কাটার পর সেই একই নাম্বার থেকে সংকেতের মোবাইলে আরেকটা এস এম এস ঢোকে। এই সিমটা ১৪ই আগস্ট সন্ধ্যা থেকে মিস্টার বেরার বাড়ির পিছন দিকে যে বস্তিটা আছে সেই লোকেশনে ছিল। সংকেতকে এস এম এস করার পরের মুহূর্তেই সিম সমেত মোবাইল ধরা ছোঁয়ার বাইরে চলে যায়। এখানে একটা কথা বলা দরকার। সিমটা চালু হয় সংকেত এখানে আসার ঠিক দিন দুয়েক পরে। সিমটা সব সময় আপনার বাড়ির আশে পাশেই ঘোরা ফেরা করত। ১৪ই আগস্টই ফার্স্ট ওর লোকেশন চেঞ্জ হয়। ওই বস্তিতে যায়। সেখানেই ছিল ভোর রাত অব্দি। তারপর সেই শেষ এস এম এসের পর ধরাছোঁয়ার বাইরে চলে যায় পারমানেন্টলি। বলাই বাহুল্য এই নম্বর যে নামে বা ঠিকানায় রেজিস্টার্ড সেগুলো সব জালি।
(মিস্টার বেরা এই পয়েন্টের পাশে লিখলেনঃ সঞ্চিতা আর সংকেত এত রাতে এস এম এস করছিল কেন? ওরা জেগে থাকতে পারে। কিন্তু ছিল তো পাশা পাশি দুটো ঘরে। এস এম এস করে কথা বলার কি দরকার পড়ল? আর এই নাম্বার থেকে এত রাতে কলই বা এলো কেন? সঞ্চিতাকে ডাকতে হবে। ওই বাজার অঞ্চলে খোঁজ করে দেখতে হবে। বাড়ির পিছনে বস্তিতেও খোঁজ করে দেখতে হবে। খুবই জরুরি তথ্য।)
৪৪
উনি ওই অফিসারের দিকে ফিরে বললেন “এখানে আমার সিমও যদি কোনও ভাবে ইনভলভড বলে মনে হয়, সেটাও লোকাবে না। এটা আগেই লিখতে পারতে। আমি কিছু মনে করতাম না। এইবার চিয়ার্স। কোথায় কোথায় খোঁজ নিতে হবে মোটামুটি লেখা হয়ে গেছে। এইবার চটপট আমাদের হাইপোথিসিসগুলো সাজিয়ে ফেলি। মানে, যেগুলো নিয়ে আমরা কিছু সিদ্ধান্তে আসতে পারছি সেইগুলো নিয়ে।”
মিস্টার বেরা বললেন “ ৩ নম্বর অবসারভেশনের ব্যাপারে মিস্টার রাহা কিছু বলুন। এইবার আপনিই বলুন, আমি শুনব। “ মিস্টার রাহা বললেন “ ১২ই আগস্ট দুপুর বেলা …”। মিস্টার বেরা বাঁধা দিয়ে বললেন “তার আগে একটা জিনিস বলে দেওয়া ভালো। ওই দিনই দুপুর বেলা সংকেত আমার সাথেই বাড়ি থেকে লাঞ্চ সেরে বেরোয়। আমি গাড়ি ধরব। সংকেত মিস্টার মুখার্জির বাড়ি যাবে। আমার লাগেজ ও গাড়ি অব্দি এগিয়ে দিতে এসেছিল জল ভেঙ্গে। এক হাঁটুর ওপর জল ছিল বাড়ির সামনে। আমার সিম লোকেশন চেক করলে বুঝতে পারতে কিছুক্ষণ আগে অব্দি সংকেতের সিম আর আমার সিম একই জায়গায় ছিল। যা হয়েছে আমি ওখান থেকে গাড়ি চড়ে বেরিয়ে যাওয়ার পর হয়েছে। আর যে লোকেশনের কথা লেখা হয়েছে সেটা একটা খালি জায়গা, দোকান পাট ওখানে খুব একটা আছে বলে কোনও দিন দেখিনি। সুতরাং … নাউ ক্যারি অন।”
মিস্টার রাহা আবার শুরু করলেন “ মিস্টার বেরার সাথে ছাড়াছাড়ি হওয়ার পর সংকেত মিস্টার মুখার্জির বাড়ির দিকে এগিয়ে পড়ে। রাস্তায় কোথাও একটা ওই অচেনা নাম্বার ধারীর সাথে দেখা করে। ওদের মধ্যে কথাবার্তা হয়। তারপর অচেনা নাম্বারের সিম নিয়ে একজন চলে যায় শিখার বাড়ির উদ্দেশ্যে। আর সংকেতের সিম নিয়ে একজন চলে যায় লেট মিস্টার মুখার্জির বাড়ির উদ্দেশ্য।” এখানে রবিন বাবু বলে উঠলেন “অর্থাৎ সংকেত ওই লোকের সাথে দেখা করে। দিয়ে সংকেত চলে যায় মিস্টার মুখার্জির বাড়ির দিকে আর সেই লোকটা চলে যায় শিখার বাড়ির দিকে। আমরা জানি সিম লোকেশন একই জায়গা দেখালেও সব সময় একই বাড়ি নাও হতে পারে, স্টিল, এই লোকেশনে খুব একটা কিছু বাড়ি ঘর বা দোকান পাট আছে বলে মনে হয় না। সুতরাং আমরা ওখানে গিয়ে খোঁজ খবর নিতে পারি! “ মিস্টার বেরা হো হো করে হাসতে হাসতে বললেন “ লাভ হবে না। তুমি মিস্টার রাহার কথার মানে ধরতে পারনি, বা বুঝতে পারোনি, বা এই অল্প খেয়েই তোমার চড়ে গেছে। আরিফ বুঝিয়ে দাও।” মিস্টার খান একটু নড়ে চড়ে বসে সামান্য একটু উসখুস করে চুপ মেরে গেলেন। বোঝা গেল, ঘরের কেউ ঠিক ব্যাপারটা ধরতে পারেনি।
মিস্টার বেরা বললেন “ যমজ হলে আশ্চর্য হব না। অনেক আগেই আমার এই সন্দেহ হয়েছিল। সংকেত অন্য জায়গায়, আর অন্য আরেকজনকে সেই দিনই শিখার বাড়িতে দেখা যায়। ওই অন্য লোকটার চেহারা সংকেতের সাথে হুবুহু মিলে যায়। আর তাই ওই দুজন মহিলে সংকেতের কথাই বারবার বলে চলেছে। তবে এই সিম লোকেশনের রিপোর্ট পাওয়ার আগে অব্দি আরও অনেক চিন্তা মাথায় আসছিল। এখন তো মনে হচ্ছে সংকেত অ্যান্ড … হতে পারে যমজ ভাই। “ মিস্টার খান বললেন “স্যার মাস্কও তো হতে পারে!” মিস্টার বেরা বললেন “ বোকার মতন কথা বলে চলেছ তখন থেকে। তুমি বিবাহিত?” মিস্টার খান মাথা নাড়িয়ে হ্যাঁ বললেন। মিস্টার বেরা বললেন “ বউয়ের সাথে ইন্টারকোর্স করেছ নিশ্চই?” এর কোনও উত্তর হয় না। স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছে মিসেস রাহার মুখে হাসি লেগে থাকলেও উনিও এই প্রশ্নে কিছুটা অপ্রস্তুত ফিল করেছেন। মিস্টার বেরা বললেন “ করি সবাই, কিন্তু এই নিয়ে কথা বলতে হলেই লজ্জায় মাটির নিচে লুকিয়ে পড়ি। যাই হোক। সেক্সের সময় চুম্বন, এর ওর গালে হাত দেওয়া এগুলো কমন ব্যাপার। তোমার বউয়ের সামনে কাল মাস্ক পরে ওই সব করতে যেও। তারপর…”
মিসেস রাহা এই ব্যাপারটাকে এখানেই থামানোর উদ্দেশ্যে হাত তুলে বললেন “ মানে মাস্ক পরে রাস্তার লোককে ধোকা দেওয়া খুব সহজ হলেও হতে পারে। কিন্তু মাস্ক পরে কোনও মেয়ের সাথে কিছু করলে সে ধরে ফেলবে এক নিমেষে। এইবার এই টপিক থাক, কাজের কথায় ফেরা যাক।” মিস্টার বেরা বললেন “ অর্থাৎ যে শিখার বাড়ি গেছে তার মুখে মাস্ক ছিল না। কারণ ওই বিছানার ক্যাচ ক্যাচ বা ঘষ ঘষ আওয়াজ শুনে নিচের মহিলা দুজন বুঝেছেন যে ওদের মধ্যে সেক্স হচ্ছিল। এই শব্দ ওরা আগেও শুনেছে যখন দীপক আসত। “ মিস্টার রাহা বললেন “ মাস্ক ওর নো মাস্ক এখনই খুব একটা সিওর হওয়া যাচ্ছে না, বাট সিচুয়েশন ওই দিকেই ইশারা করছে। তবে আসল কথা হল সংকেতের চেহারা আর ওই লোকের চেহারা তখন বাইরে থেকে দেখলে একই রকম দেখাবে। সুতরাং ওরা যমজ হলেও এই সিদ্ধান্তে আসতে হবে আর যমজ না হয়ে কেউ একজন মাস্ক পরলেও একই সিদ্ধান্তে আসতে হবে। কে যে কার বাড়ি গেছে সেটা বলা শক্ত। তাই আমি বলেছিলাম যে সংকেতের সিম ধারী ব্যক্তি মিস্টার মুখার্জির বাড়ির দিকে গেছে টু ক্রিয়েট হিস অ্যালিবাই, আর অন্য সিম ধারী ব্যক্তি চলে গেল শিখার বাড়ি। মাস্কের ব্যাপার থাকলে, আমি বলব সংকেত চলে গেল শিখার বাড়ি কারণ ইন্টারকর্সের সময় মাস্ক কোনও কাজে আসবে না, আর মাস্ক পরা অন্য জন চলে গেল লেট মিস্টার মুখার্জির বাড়ি। আর যমজ হলে তো কে কোথায় গেছে মা গঙ্গাই জানেন। ”
মিস্টার খান ওনাকে থামিয়ে দিয়ে বললেন “ স্যার এক মোমেন্ট। আপনি অ্যালিবাই তৈরি করার ব্যাপারটা কেন বললেন?” মিস্টার বেরা এইবার বিরক্ত হয়ে চেয়ার ছেড়ে উঠে পড়েছেন। মিস্টার রাহা বললেন “ সংকেতকে এখনও চিনতে পারলে না। মিস্টার মুখার্জি ওর কে লাগে? কেউ না। আর সংকেত খুব ভালো করে জানে মিস্টার মুখার্জির কাজের ঘর থেকে ওই সব জিনিস সরাতে ওর বেশ খানিকটা সময় লাগবে। আর ওই দিন মিস্টার মুখার্জির বাড়িতে লোকের ছড়াছড়ি। কে কখন ওকে দেখে ফেলবে! সেদিন এই কাজ করা যাবে না। তবুও, হয় ও নিজেই, বা ওর যমজ ভাই বা ওর চেহারাওয়ালা কেউ, বা ওর চেহারার মাস্ক পরা কেউ লেট মিস্টার মুখার্জির বাড়ি গেল জোগাড় যন্ত্র করতে। এই জাতের ক্রিমিনালরা প্রয়োজনের বাইরে একটাও বাড়তি কাজ করে না। কারণ? কারণ, কাজ করলেই তাতে ভুল হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। আর বাড়তি কাজ করা মানে যেচে ভুল করা। একজন শিখার বাড়ি গেছে কিছু একটা কারণে, হতে পারে নিছক সেক্স। বা হতে পারে আগের দিন সংকেত শিখাকে ছাড়তে গিয়ে ওর ঘরে কিছু ভুল করে কিছু একটা ফেলে এসেছিল, এইবার ও গেছে সেটা কালেক্ট করতে। সঠিক বলতে পারব না। কিন্তু, সেই জন্যই আরেকজন তার অ্যালিবাই তৈরি করতে মিস্টার মুখার্জির বাড়িতে বেগার খাটতে গেছে। তাই কে কোথায় গেছে বলা শক্ত। কিন্তু অ্যালিবাই তৈরি করতেই যে এদের একজন মিস্টার মুখার্জির বাড়ি সেদিন গেছে সেটা অস্বীকার করার কোনও উপায় নেই। আর এর থেকে যে সিদ্ধান্তটা আমি করেছি সেটা আরও বেশী জরুরি।”
মিস্টার বেরা বেজার মুখে বললেন “ সংকেত আগে থেকেই জানত যে কোনও না কোনও দিন ওর শিখার বাড়ি যাওয়া নিয়ে কথা উঠবে। সেইদিন এই ব্যাপারটা ওর অ্যালিবাইয়ের কাজ করবে। আর তাই গতকাল দুপুর বেলা অব্দি আমরা সবাই কনফিউসড ছিলাম সংকেতের শিখার বাড়ি যাওয়া নিয়ে। ও কিছুটা সময় পেয়ে গেল। অবশ্যই ওর এক্সিট প্ল্যানের পার্ট। কিন্তু এখানে আরেকটা জিনিস না মেনে পারছি না। সেটা হল এই যে শিখা হয় পয়সার কারণে, বা অন্য কোনও ব্যাপারে ভয় পেয়ে সংকেতের সাথে শুতে রাজি হয়, অবশ্য হতে পারে দীপক শিখাকে সংকেতের ব্যাপারে কিছু বলেছিল। সংকেত মানে আমি সংকেতের চেহারার লোকের কথা বলছি। কারণ কে যে কোথায় গেছে সেটা আমরা এখনও জানি না। আর কোনও দিনও জানতে পারব বলেও মনে হচ্ছে না। তবে ও জানত এই ব্যাপারটা সবার সামনে কোনও না কোনও দিন আসবে। আর সেটাই ভাইটাল পয়েন্ট। আর তাছাড়া আরেকটা ব্যাপার এখানে না বলে পারছি না। সেদিন রাতে সংকেতের সিম ধারী লোকটাই আমাদের বাড়ি ফেরত আসে। আমরা জানি না কে সেদিন মিস্টার মুখার্জির বাড়ি গেছিল। সুতরাং কে যে সংকেত সেজে আমাদের বাড়িতে ফেরত এসেছিল সেটাও …মিস্টার রাহা পরের হাইপোথিসিস?”
মিস্টার রাহা বললেন “এই ব্যাপারে গোটা ব্যাপারটাই আগের ব্যাপারের সাথে এক। শুধু এই বিষয়ে দুই একটা কথা বলা প্রয়োজন। যে লোক প্রথম দিন মিস শিখার বাড়ি গিয়েছিল, আমি আশা করছি সেই একই লোক পরের দিনও শিখার বাড়ি গিয়েছিল। মানে ওর চেহারার অন্য কেউ যায়নি। ইন্টারকোর্সের সময় স্বাভাবিক কারণে মুখের স্মেল ইত্যাদি বোঝা যায়। বডির স্মেল কিছুটা হলেও স্প্রে ইত্যাদি দিয়ে ঢাকা যায়, কিন্তু মুখের স্মেল, প্রাইভেট অরগ্যানের স্মেল ইত্যাদি ঢাকা যায় না। মেয়েরা সেটা ধরে ফেলবে। “ মিসেস রাহার কান লাল হয়ে উঠেছে নিজের কর্তার কথা শুনে। সেটা সবাই লক্ষ্য করেছে, তবুও মিস্টার রাহা থামলেন না, “ তাই আমার বিশ্বাস, প্রথম দিন সংকেত সেজে যে গিয়েছিল, সেই একই লোক দ্বিতীয় দিনও গিয়েছিল। কলের প্যাটার্ন যা লেখা আছে সেটা থেকে একটাই জিনিস মনে হচ্ছে। আগেই বলছি, এটা ভুল হতে পারে। কিন্তু মনে হচ্ছে যে, প্রথমের এস এম এস গুলোতে শুধু কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য জানিয়ে দেওয়া হয়েছে সংকেতের সিম ধারী লোকটিকে। হতে পারে সাথে এটাও জানিয়ে দেওয়া হয়েছে যে দ্বিতীয় লোকটি শিখার বাড়ি পৌঁছে গেছে। সারা রাত ওদের মধ্যে শারীরিক মিলন হয়। যে কোনও কারনেই হোক, ও নিজের সিম আর মোবাইলটাকে তখনও চালু রেখেছিল। ভোরে, ৬টার সময় ওই মোবাইল থেকে একটা এস এম এস করা হয়। আর তারপর একটা কল। পোস্টমর্টেম বলছে ছটার দিকেই শিখার মৃত্যু হয়। খুব সিওর নই, কিন্তু মোটামুটি ভাবে সিওর হয়ে বলা চলে যে , ওই কলের সময় শিখা জেগে যায়, বা সব কিছু শুনে ফেলে। হয়ত কিছু গোপন ব্যাপারে কথা হয়েছিল। জানি না অত কম সময়ে কি কথা হতে পারে। হতে পারে কোড ভাষায় কিছু কথা হয়েছে। কিন্তু মোদ্দা কথা শিখা সেটা শুনে ফেলে। আর ঠিক তার পরেই ওকে মেরে ফেলে ব্যাপারটাকে আরও রোমাঞ্চকর একটা চেহারা দিয়ে, মানে সব বডি পার্টস আলাদা করে, শিখার ঘরের সব জিনিস নিজের ব্যাগে ঠুসে আততায়ী ওখান থেকে বেলা আটটার দিকে বিদায় নেয়। এখানে দুটো জিনিস আমার চোখে পড়েছে।
একঃ diversionary tactic. ও শিখার ডেড বডি যদি সাধারণ অবস্থায় রেখে দিয়ে আসত তাহলে পুলিশ অন্য অ্যাঙ্গেল থেকে জিনিসটা দেখতে শুরু করবে। তাই শিখার শরীরের টুকরো টুকরো করে গোটা ব্যাপারটার একটা নতুন চেহারা দিয়ে দিল। আমি জানি পুলিশ প্রথম একদিন, বা অন্তত বেশ কয়েক ঘণ্টা অযথা নষ্ট করেছে কোনও সিরিয়াল ক্রিমিনালের খোঁজ করে।(মিস্টার লাহিড়ীর মুখ মাটির দিকে) পরে অবশ্য সংকেতের স্কেচ হাতে পাওয়ার পর… যাই হোক, এই খানে ওই কয়েক ঘণ্টাই বিশেষ জরুরি। হতে পারে ওই কয়েক ঘণ্টায় আমাদের সংকেত তার এক্সিট প্ল্যানের দিকে আরেক ধাপ এগিয়ে গেছে। এরকম ছেলেরা হাফ আন আওয়ারের জন্য পুলিশের চোখে ধুলো দিয়ে গোটা দুনিয়া উদ্ধার করে ফিরে আসে। এখানে আমরা বেশ কয়েক ঘণ্টা ব্যয় করেছি ভুল জিনিস বুঝে। এইবার পরেরটা।
দুইঃ এতক্ষন ধরে বাকি কল রেকর্ডগুলো দেখে একটা ব্যাপার নিশ্চিত যে প্রয়োজনের একটা কি দুটো কল বা এস এম এস করার পরই সিম, মোবাইল সব লাপাতা হয়ে গেছে। কিন্তু এইখানে তার ব্যতিক্রম দেখা যাচ্ছে। খেয়াল করে দেখো এই সিম থেকে এই লাস্ট কলের পর সংকেতের সিমে আর কোনও কল বা এস এম এস আসেনি। অর্থাৎ, শিখার মতন এই সিমের প্রয়োজনও ফুরিয়েছে। তবুও আততায়ী ওই লাস্ট কলের পর, যেটা হয়েছিল ৬টার দিকে, আরও দুঘণ্টার ওপর এই সিম আর মোবাইলটাকে চালু রেখেছিল? এরা প্রফেশনল। এদের ভুল হয়না। তাহলে এই ভুলটা হল কি করে? সেই থেকেই আমার সন্দেহ জাগে যে, শিখা ওই লাস্ট কলের সময় কিছু একটা অপ্রত্যাশিত ভাবে শুনে ফেলেছিল। তাতে আততায়ীর স্থির করা প্ল্যানটা ঘেঁটে যায়। শিখাকে তৎক্ষণাৎ খুন করে তার ডেড বডির টুকরো টুকরো করে খুনের বা ক্রাইমের একটা নতুন চেহারা দেওয়ার ব্যাপারে আততায়ীর বেশ কিছুটা সময় নষ্ট হয়ে যায়। অর্থাৎ সে সিম বা মোবাইল বন্ধ করার সুযোগ পায়নি, বা সেই সিচুয়েশনে মোবাইল বা সিমের কথা তার মাথায় আসেনি। তারপর ব্যস্ততার সাথে সমস্ত ঘর সাফ করে সে বেরিয়ে আসে ৮.০৫ মিনিটে। তারপর সে বুঝতে পারে যে ভুল বশত তার মোবাইলটা এখনও অন আছে। ব্যস, সেই মুহূর্তে সে মোবাইল অফ করে দিয়ে আনরিচেবল হয়ে যায়, মানে ধরা ছোঁয়ার বাইরে চলে যায়। এক কথায় শিখাকে মারা হয়ত তার প্ল্যানের মধ্যে ছিল না। কেন ওখানে সে গেছিল সেটা কোনও দিনও হয়ত জানা যাবে না। তবে এইসব লোকদের সেক্স ভীষণ উগ্র হয়। হতে পারে শিখার সাথে… বা হতে পারে… জানি না। সেক্স ছাড়া আপাতত আর কিছু দেখতে পাচ্ছি না। “ সবাই স্তম্ভিত। মিস্টার বেরা বললেন “হান্ড্রেড আউট অফ হান্ড্রেড। এগিয়ে চলুন।”
মিস্টার রাহা বললেন “ ৫ আর ৮ পয়েন্ট মিলালে একটাই কথা বলতে পারি। মিস সান্যাল সংকেতের প্রেমে পড়েছিল। নইলে ওই বৃষ্টির মধ্যে লেকের ভেতর দুজনে মিলে বসে এতক্ষন সময় কাটানো কোনও ভাবে মেনে নেওয়া যাচ্ছে না। মিস্টার খান আবার আপনি একটা ভুল করবেন, তাই তার আগেই বলছি, মিস সান্যাল সংকেতের প্রেমে পড়েছিল। সংকেত প্রেমে পড়েনি। ও সুযোগ বুঝে আরেকটা শরীর ভোগ করছিল বা ভোগ করার প্ল্যান করছিল মাত্র। প্রেম ছিল রাকার দিক থেকে। সংকেত এখানে এসেছে একটা মিশনে। ও এখানে প্রেম করতে আসেনি। আবারও বলছি এইসব ছেলেরা একটাও বাড়তি কাজ করেনা। কোনও প্রয়োজন না থাকলে, ও নিজে থেকে আগ বাড়িয়ে মিস সান্যালকে প্রেম নিবেদন করতে যাবে না। মেয়েদের শরীর ওর কাছে একটা ভোগের বস্তু মাত্র। সারা দিনের পরিশ্রমের পর, একটা শরীর না পেলে এই সব ক্রিমিনালের রাতের ঘুম হয় না। আর নতুন নতুন শরীর পাওয়ার জন্য এরা খুবই উদগ্রীব। তবে এরা প্ল্যানের বাইরে যায় না। আমার ধারণা রাকা ওর প্রেমে পড়েছিল। ও জেনে শুনে বাধা দেয়নি। এখান থেকে যাওয়ার আগে আরেকটা নতুন নারী শরীর ভোগ করার ইচ্ছে হয়ত সংকেতকে, বা ইয়ে ওদেরকে পেয়ে বসেছিল। তাই ওরা রাকার সামনে প্রেমের নাটক করে … এইআর কি। এরা প্রেমে পড়েনা। গোটা কেসের রেসপেক্টে আমার মতে এটা একটা diversionary tactic ছাড়া আর কিছুই নয়। তবে মিস সান্যালের ব্যাপারটা আমার মতে জেনে শুনে করা হয়নি। মানে এখানে সংকেতের কোনও কারসাজি নেই। মিস সান্যাল নিজে থেকেই এগিয়ে আসে। সংকেত বা ওই ইয়েরা ওকে ভোগ করার সিদ্ধান্তটা তার পরে নেয়।“
মিস্টার বেরা মাথা নাড়ালেন মাত্র। এইবার উনি কিছুই বললেন না। তবে মাথা নাড়িয়ে বুঝিয়ে দিলেন যে উনি মিস্টার রাহার সাথে এই ব্যাপারে সম্পূর্ণ একমত। মিস্টার বেরা বললেন “ এখন আর কিছুই করার নেই। অনেক রাত, সরি ভোর হয়ে গেছে। এইবার সবাই কেটে পড়ো। কাল বেলার দিকে সব কটা রিপোর্ট আগে আমাদের হাতে আসুক। তারপর দেখা যাবে। আমার বাড়ির বাইরে ভিডিও সারভিলিয়েন্স বসাও। সংকেতকে এক মোমেন্টের জন্য নজরের বাইরে যেতে দেওয়া যাবে না। সংকেতের সাথে বাকি সবার নাম্বার ট্যাপ করো। মিসেস বেরার নাম্বারও। আর হ্যাঁ। শ্যামা নস্করের ব্যাপারে খোঁজ করতে গিয়ে সেই হাবিলদার এখনও কেন ফিরল না সেটার ব্যাপারে কাল সকাল হতেই খোঁজ করা শুরু করো। এখন মনে হচ্ছে ব্যাপারটা যতটা ভেবেছিলাম তার থেকেও বেশী সিরিয়াস। সেকন্ড হাফে সবাইকে ডেকে পাঠাও। আমার লিস্ট তৈরি। আরিফ, এই লিস্টটা তোমার কাছে রেখে দাও। আমি আর বাড়ি যাব না। কোনও লকআপ খালি আছে? সেখানেই একটা তক্তপোষ পেতে দাও। বাকি রাতটা আমি ওখানেই শুয়ে কাটিয়ে দিতে চাই। আমাকে এখন অনেক কিছু ভাবতে হবে। অনেক কিছু হাতের সামনে আছে। আশা করছি সাক্ষীদের সহযোগিতা পেলে কালই এই সমস্যার একটা সমাধান হয়ে যাবে। তবে ওই ফাইল বা ফিউস বা অন্য গবেষণার কাগজ ফিরে পাব কিনা, সেই ব্যাপারে এখনই কিছু বলতে পারছি না। চলো। এইবার সবাই কেটে পড়ো। আমি লাস্ট পেগটা একলা বসে পান করতে চাই। মনের ভেতরকার জটগুলো যদি কিছুটা ছাড়াতে পারি! আরেকটা জিনিস, ইউপি গিয়ে কোনও লাভ নেই। আমার ধারণা গোটা ব্যাপারটা ভাঁওতা। এখনও আমাদের হাতে ওখান থেকে কোনও তথ্য এসে পৌছায়নি। তবে গোপালবাজারে দ্বিগুণ লোক পাঠিয়ে দাও। এক্ষুনি। কাল দুপুরের মধ্যে তাদের রিপোর্টটা আসা খুব দরকার। গুড মর্নিং। বাই।”

গল্পটি কেমন লাগলো ?

ভোট দিতে স্টার এর ওপর ক্লিক করুন!

সার্বিক ফলাফল 0 / 5. মোট ভোটঃ 0

এখন পর্যন্ত কোন ভোট নেই! আপনি এই পোস্টটির প্রথম ভোটার হন।

Leave a Comment