শেষের পাতায় শুরু [পর্ব ৮][২]

Written by Pinuram

সারাটা রাস্তা একটা অস্বস্তিবোধ চলছিল রিশুর মনে মধ্যে, এতদিন পরে চন্দ্রিকাকে সঠিক ভাবেই চিনতে পেরেছে, স্বামীর সাথে বিচ্ছেদের পরেই ওর রিশুর কথা মনে পড়েছে, বিগত ছয় বছরে একবারের জন্য ফোন করেনি এমন কি শেষের চিঠিতেও ওকে সন্দেহ করেই লিখেছিল। মার্কেটে পৌঁছে বাইক পার্ক করতে করতে অদুরে দাঁড়ানো ওর রূপসী স্ত্রীর দেখা পেয়ে সেই অস্বস্তি বোধ কেটে যায়। সন্ধ্যে বেলায় মার্কেটে বেশ ভিড়, কিন্তু সেই ভিড়ের মধ্যেও ওর চোখ ঝিনুককে ঠিক খুঁজে নেয়। গায়ে গাড় নীল রঙের ওভারকোট লম্বা রেশমি চুল মৃদু হাওয়া উড়ছে, কোমল চাঁপারকলি আঙ্গুল নাড়িয়ে মিষ্টি ঠোঁট নাড়িয়ে রিতিকার সাথে গল্পে মশগুল। রিতিকার সাথে গল্প করলেও মাঝে মাঝেই মাথার চুলে আঙ্গুল বুলিয়ে ডান কানের ওপরে সরিয়ে রাস্তার দিকে অধীর তৃষ্ণার্ত দৃষ্টি নিয়ে তাকিয়ে থাকে। বেশ কিছুক্ষন অদুরে দাঁড়িয়ে প্রেয়সীর অধীর অপেক্ষারত মদির চোখ দুটো দেখে ধির পায়ে ওদের দিকে এগিয়ে যায়।
রিশুকে দেখতে পেয়েই এক প্রকার দৌড়ে এসে ওর বাম বাজু দুই হাতে জড়িয়ে ধরে মিষ্টি করে ধমকে ওঠে, “এত দেরি করলে কেন?”
কাছে আসতেই প্রেয়সীর গায়ের মদির গন্ধে উন্মাদপ্রায় হয়ে যায় রিশু, বড় বড় কাজল কালো চোখের তারায় অনুরক্তের তীব্র ভাষা। দুপুরে ঠোঁটে বাদামি রঙ দেখেছিল, এখন সেই মিষ্টি ঠোঁট জোড়া হাল্কা গোলাপি রঙ্গে রঞ্জিত দেখে রিশুর বুকের রক্তে হিল্লোল উঠে যায়। প্রেয়সীর কোমল হাতের ওপরে হাত রেখে উত্তর দেয়, “রাস্তায় একটু জ্যামে ফেঁসে গেছিলাম।”
রিতিকা ওদের দিকে এগিয়ে এসে হেসে বলে, “তোমার জন্য ওয়েট করতে করতে পাগল হয়ে গেছে তোমার বউ।”
রিতিকার কথায় লজ্জা পেয়ে যায় ঝিনুক, পারলে রিশুর পিঠের পেছনে মুখ লুকিয়ে ফেলে, “না গো, তেমন কিছু না।”
রিতিকা মুচকি হেসে ওকে বলে, “হ্যাঁ তুই তো রাস্তার দিকে তাকিয়ে গাড়ি গুনছিলিস তাই না।”
রিশুও সেই সাথে মজার ছলে প্রেয়সীকে বলে, “আমিও দেখেছি কিন্তু তুমি রাস্তার দিকে তাকিয়ে তাকিয়ে গাড়ি গুনছিলে।”
রিশুর বাজুর ওপরে জ্যাকেটের অপর দিয়ে আলতো দাঁত বসিয়ে বলে, “এবারে কামড়ে দেবো কিন্তু।”
রিতিকা চুকচুক করে বলে, “ওরে তোরা বাড়ি যা।” বলেই হেসে ফেলে।
ঝিনুক রিতিকাকে ইয়ার্কি মেরে বলে, “আমরা না হয় বাড়িতেই যাবো, তোর তাড়া আছে নাকি? কেউ তোর জন্য ওয়েট করছে নাকি রে?”
রিতিকা মুখ বেঁকিয়ে হেসে বলে, “নো ডারলিং, আই এম সিঙ্গেল রেডি টু মিঙ্গেল।” তারপরে রিশুর দিকে দেখে বলে, “দেখো না অম্বরীশ তোমার কোন চেনা শোনা কাউকে।”
রিশু রিতিকার কথা শুনে হেসে উত্তর দেয়, “বড্ড দেরি করে দিলে তুমি, আমার ব্যাচের মধ্যে আমার সব থেকে শেষে বিয়ে হয়েছে।”
রিতিকা আক্ষেপের শুরে বলে, “তোমার ব্যাচের না হোক, হসপিটালে আরো তো ডাক্তার আছে, দেখো না কাউকে।”
ঝিনুক মুচকি হেসে রিশুকে বলে, “হ্যাঁ হ্যাঁ একটা সাইকিয়াট্রিস্ট দেখো তো এর জন্য, পুরো পাগলি মেয়ে।”
রিশু মৃদু হেসে রিতিকাকে বলে, “আচ্ছা বেশ তোমার জন্য তাহলে একটা সাইকিয়েট্রিস্ট দেখেই দেবো।”
আরো বেশ কিছুক্ষন গল্প গুজব করার পরে রিতিকাকে একটা ক্যাবে উঠিয়ে দিয়ে ঝিনুক আর রিশু বাড়ির পথ ধরে। মার্কেট থেকে ওদের বাড়ি বেশি দুরের পথ নয়। বাইকের দুইপাশে পা দিয়ে রিশুর পেছনে উঠে বসে ঝিনুক। রিশুর বগলের তলা দিয়ে হাত গলিয়ে দুই কাঁধ আঁকরে ধরে নিজের দেহ রিশুর পিঠের ওপরে পিষে ধরে। রিশুর নাকে ভেসে আসে সুন্দরী ললনার দেহ নির্গত মদির ঘ্রাণ, প্রেয়সীর সেই মিষ্টি মধুর গন্ধে মাথা একটু পেছনের দিকে হেলিয়ে দেয় রিশু। ঝিনুকের কোমল গালের সাথে নিজের গাল ঠেকিয়ে আলতো ঘষে দেয়। গন্ডের ত্বকের ঘর্ষণে অন্ধকার সেই বাইক পারকিঙ্গে দুই তৃষ্ণার্ত কপোত কপোতীর হৃদয়ে প্রেমের স্ফুলিঙ্গ ফুটতে শুরু করে দেয়। রিশু নিজের পিঠের ওপরে প্রেমিকার পিনোন্নত নিটোল স্তন যুগলের পেষণে ওর শিরদাঁড়া বয়ে তপ্ত লাভার ন্যায় রক্ত ধেয়ে বেড়াতে শুরু করে দেয়। ওর কাঁধের ওপরে চাঁপার কলি আঙ্গুল মেলে শরীরের সব শক্তি দিয়ে রিশুকে আঁকরে ধরাতে রিশুর হৃদস্পন্দন ধিরে ধিরে বাড়তে শুরু করে দেয়।
আসন্ন উত্তেজনায় রিশুর গলা কেঁপে ওঠে, “বাইক চালাতে দেবে নাকি এইভাবে দুষ্টুমি করে যাবে।”
বাম কাঁধের ওপরে থুঁতনি রেখে রিশুর কানে উষ্ণ শ্বাসের ঢেউ বইয়ে মিষ্টি মধুর কন্ঠে বলে, “এখুনি বাড়িতেই ফিরতে হবে? কোথাও গেলে হয় না?”
প্রেয়সীর প্রেমকাতর মদির কন্ঠে রিশুর বুকের রক্ত তোলপাড় করে ওঠে, “এত রাতে কোথায় যেতে চাও?”
রিশুর গালে গাল ঘষে চোখ বুজে ফিসফিস করে বলে, “কোন জায়গায় নয়, এমনি ভাবেই ফাঁকা রাস্তায় উড়ে বেড়াতে চাই। আমি তো শুধু তোমাকে এইভাবে জড়িয়ে ধরে বসে থাকতে চাইছিলাম।”
বুক ভরে শ্বাস নেয় রিশু, “এত ঠান্ডা না হলে তোমাকে নিয়ে লং ড্রাইভে বেড়িয়ে পড়তাম। এই শীতে বাইকে লং ড্রাইভ একটু মুশকিল, ঝুনু। তোমার হেলমেট অথবা শাল কিছুই আনা হয়নি।”
দয়িতের মুখে আদরের নাম “ঝুনু” শুনে নিজেকে উজাড় করে ঢেলে দেয় রিশুর পিঠের ওপরে, দুই পেলব বাহু দিয়ে প্রানপনে আঁকরে ধরে রিশুকে, কানে কানে মধু ঢালা কন্ঠে বলে, “আচ্ছা বাড়ি চলো।”
বাইক স্টার্ট করে ঝিনুককে জিজ্ঞেস করে, “তুমি আমাকে এখানে ডাকলে ফিশ ফ্রাই খাওয়ানোর জন্য, কই সেই ফিস ফ্রাই?”
মুচকি হাসি দিয়ে ঝিনুক উত্তর দেয়, “আমি জানি তুমি বাইরের কিছুই খাও না। বাড়ি ফিরে স্নান না করা পর্যন্ত কোন কিছুতেই হাত দাও না। তাই ভাবলাম বাইরের কিছুই খেয়ে কাজ নেই।”
রিশু মাথা দুলিয়ে বলে, “আরে না রে, তুমি খেতে পারতে। দেখো তোমার সাথে বেড়িয়ে সেদিন ফুচকা খেয়েছিলাম কিন্তু। চলো ফিস ফ্রাই খেয়েই আসি।”
রিশুকে একদম ছাড়তে ইচ্ছে করছিল না ঝিনুকের তাই ওকে বলে, “না না আর যেতে হবে না থাক। তুমি চাইলে আমি বাড়িতেই বানিয়ে দেব।”
হেসে ফেলে রিশু, এই কয়দিনে নিজে হাতে কিছুই রান্না করেনি তাই ওকে বলে, “আচ্ছাআ… তুমি রান্না করতে জানো? আমি তো ভেবেছিলাম তুমি শুধু ডিম সেদ্দ আর ম্যাগি বানাতে জানো।”
সেটাই সত্যি নিজের বাড়িতে কোনদিন রান্নাঘরে ঢোকেনি ঝিনুক, ওর মা ওকে অনেকবার বলেছে একটু রান্নাবান্না কর, সারাদিন আমি খেটে মরি আর বাড়ির দুই মেয়ে কুটোটি পর্যন্ত নাড়াতে চায়না। মুচকি হেসে রিশুকে বলে, “আচ্ছা, মা বুঝি তোমাকে এই সব বলেছে? তুমিও তো রান্না কর না।”
হেসে ফেলে রিশু, “আচ্ছা এরপরে না হয় দুইজনে রান্নাঘরে এক্সপেরিমেন্ট করব।”
দুষ্টুমি করেই রিশুকে জিজ্ঞেস করে ঝিনুক, “কিসের এক্সপেরিমেন্ট করবে মাই ডিয়ার ডক?”
প্রেয়সীর কথার অন্তর্নিহিত অর্থ বুঝতে পেরে মুচকি হেসে রিশু উত্তর দেয়, “একেবারে প্রাক্টিকাল করেই দেখাব।”
রিশুর গালে আলতো কামর দিয়ে মদির কন্ঠে বলে, “সময় হলে দেখব কত প্রাক্টিকাল কর।”
গালের ওপরে প্রেয়সীর দাঁতের ছোঁয়া পেয়ে কেঁপে ওঠে রিশুর সারা শরীর, “তুমি দুষ্টুমি করা থামাবে নাকি।”
খিলখিল করে হেসে ফেলে ঝিনুক, “আচ্ছা বাবা নো কিসিং নো দুষ্টুমি। চলো কোথায় নিয়ে যাবে।”
বাইক চালাতে শুরু করে রিশু উত্তর দেয়, “প্রাক্টিকাল করতে…”
ঝিনুক ওর কথা শুনে হেসে ফেলে। ইচ্ছে করেই প্রেয়সীর নীরব অনুরোধ মেনে বেশ ধিরে বাইক চালায় রিশু। ওর বাম কাঁধের ওপরে থুঁতনি রেখে সারাটা রাস্তা দুই বাহু দিয়ে রিশুকে পেছন থেকে আস্টেপিস্টে জাপটে ধরে চুপচাপ বসে থাকে ঝিনুক। হেলমেট না পরে থাকায় রিশুর চুলের সাথে ঝিনুকের রেশমি করবী জড়িয়ে যায়, মাঝে মাঝেই রিশুর মুখের ওপরে উড়ে আসে রেশমি চুলের গোছা। পার্লার থেকে সদ্য গাড় বাদামি রঙ করিয়ে এসেছে, সামনের চুলের কয়েক গোছার রঙ একটু ভিন্ন একটু হাল্কা বাদামি। সেদিন সেই পাঁচ মিনিটের পথ পার করতে কুড়ি মিনিটে লেগে যায়। সারাটা রাস্তা রিশু শুধু পরিকল্পনা করে কি ভাবে প্রেয়সীকে এই হার দেওয়া যায়। সারাটা রাস্তা ঝিনুক রিশুর উষ্ণ গালে গাল ঠেকিয়ে মনে মনে ভাবে, ইসসস ছি ছি, এখুনি আর ভাবতে নেই সে সব কথা।
নিজের ফ্লাটে ঢুকে বসার ঘরের লাইট জ্বালিয়ে দিয়ে ঝিনুক রিশুর হাত থেকে ওর ব্যাগ এপ্রন আর স্টেথো নিয়ে নেয়। মত্ত হস্তিনীর মতন ভারী নিতম্ব দুলিয়ে সারা অঙ্গে মোহনীয় হিল্লোল তুলে শোয়ার ঘরের মধ্যে ঢুকে পরে। সোফায় বসে জুতো খুলতে খুলতে ঝিনুকের মত্ত চলন দেখে থমকে যায় রিশু। হাত দুটো নিশপিশ করে ওঠে প্রেয়সীকে নিজের বাহুবেষ্টনীতে আবদ্ধ করার। পিচ ফলের মতন লালচে গালে চুম্বনে চুম্বনে অতিষ্ঠ করে তোলার অভিপ্রায় জেগে ওঠে রিশুর বুকে। আসন্ন “প্রাক্টিকালের” কথা চিন্তা করতেই বুকের রক্ত তুষের আগুনের মতন ধিকিধিকি করে জ্বলতে শুরু করে দেয়। শুধু মাত্র চলনেই এই মাতন, চোখের ভাষায় সেই সকাল থেকেই ঘায়েল হয়ে পড়েছে। শোয়ার ঘরে ঢোকার আগে ঘাড় ঘুরিয়ে রিশুকে ভুরু নাচিয়ে ইশারায় প্রশ্ন করে, অত কি দেখছ? ধরা পরে গেছে দেখে লজ্জা পেয়ে রিশু মাথা দোলায়, না না কিছু না। রিশু জুতো খুলে শোয়ার ঘরের দিকে পা বাড়াতেই ঝিনুকের বুকের মধ্যে দুরুদুরু শুরু হয়ে যায়, যেভাবে তখন থেকে ওই গভীর চোখের চাহনি ওকে তাড়িয়ে বেড়াচ্ছে তাতে আসন্ন “বিপদ” এর ভীষণ সঙ্কেত দিচ্ছে।
নিচের ঠোঁট দাঁতে কেটে রিশুর দিকে হাত তুলে বলে, “এই আমি এখন ড্রেস চেঞ্জ করব, এখন আসবে না কিন্তু।”
চুলের মধ্যে আঙ্গুল বুলিয়ে মুচকি হেসে প্রেয়সীকে বলে, “চেঞ্জ কি করবে?”
ভুরু কুঁচকে দয়িতের দিকে তাকিয়ে প্রশ্ন করে ঝিনুক, “মানে?”
রূপসী ললনার দিকে দুই পা এগিয়ে এসে ফিসফিস করে বলে, “কিছু পড়ার দরকার আছে কি?”
ভীষণ ভাবেই লজ্জা পেয়ে যায় ঝিনুক, ডান হাত তুলে ওর দিকে দেখিয়ে বলে, “কাছে আসলে এবারে মারবো কিন্তু।”
প্রেয়সীর চপেটা সঙ্কেত উপেক্ষা করে এগিয়ে আসে রিশু, “ফিস ফ্রাই তো খাওয়ালে না তোমার হাতের মার খাই তাতেই শান্তি।”
বুকের ওপরে কিল মেরে ঠ্যালা মেরে রিশুকে শোয়ার ঘর থেকে বার করে দেয় ঝিনুক, “প্লিজ যাও না, আমি চেঞ্জ করব।” তারপরে মুখ বেঁকিয়ে ওকে বলে, “এবারে তোমার স্নানের দেরি হচ্ছে না?”
বুকের বাম দিকে হাত বুলিয়ে ঝিনুকের দিকে একটা তৃষ্ণার্ত চাহনি নিয়ে তাকিয়ে রিশু বলে, “আচ্ছা বাবা যাচ্ছি।”
বেড়িয়ে যাওয়ার আগে নিজের ব্যাগ নিয়ে পাশের ঘরে ঢুকে পরে রিশু। দরজা বন্ধ করে আলমারি খুলে রাতের পোশাক বার করে ঝিনুক। বেড়িয়ে যাওয়ার আগের মুহূর্তের রিশুর তীব্র তৃষ্ণার্ত চাহনির কথা মনে পড়তেই বুকের রক্ত ভীষণ ভাবেই চঞ্চল হয়ে ওঠে ঝিনুকের। সারাদিনের ক্লেদ থেকে মুক্তি পেতে হলে এই রাতে স্নান করতেই হবে। পরনের পোশাক খুলে ফেলে একটা ঢিলে টপ আর একটা চাপা লেগিন্স পরে নেয়। ঘর থেকে বেরনোর আগে রুম হিটারটা চালিয়ে দেয়। রুম থেকে বেড়িয়ে দেখে রিশু একটা গেঞ্জি আর কোমরে একটা তোয়ালে জড়িয়ে বাথরুমের দরজায় দাঁড়িয়ে। রিশুর লম্বা চওড়া দেহ কাঠামো দেখে বুকের রক্ত এলোপাথাড়ি ছুটতে শুরু করে দেয়।
অন্য দিনের মতন বাথরুমের রডে ঝিনুকের ভিজে জামা কাপড় দেখতে না পেয়ে রিশু মুচকি হেসে ওকে বলে, “আজকে তাহলে কাপড় শুকাতে মনে ছিল?”
মাথা দোলায় ঝিনুক, “হুম।”
রিশু ডান হাত মুঠো করে ঝিনুকের দিকে বাড়িয়ে দিয়ে বলে, “ছোট্ট একটা সারপ্রাইজ আছে তোমার জন্য।”
ভুরু নাচিয়ে ঝিনুক ওকে জিজ্ঞেস করে, “কি এটা?”
সুন্দরী স্ত্রীর চোখে চোখ রেখে গভীর ভাবে তাকিয়ে বলে, “এখন তোমাকে কিছুই দিতে পারিনি তাই…”
কথাটা শুনে ঝিনুকের দৃষ্টি প্রেমবারিতে ঝাপসা হয়ে আসে, “কে বলেছে তুমি কিছু দাও নি।” বলেই ছুটে গিয়ে ঝাঁপিয়ে পরে রিশুর বুকের ওপরে। দুই পেলব হাতে রিশুর বলিষ্ঠ দেহ কাঠামো প্রানপনে জড়িয়ে ধরে বলে, “ইউ আর এনাফ ইন মাই লাইফ, হানি।”
প্রেয়সীর কোমল বাহু বেষ্টনীতে আবদ্ধ হয়ে ভীষণ ভাবেই প্রেমকাতর হয়ে পরে রিশু, বাঁ হাতে ঝিনুকের নধর কোমল দেহপল্লব জড়িয়ে ধরে ওর চোখের সামনে ডান হাতের মুঠো খুলে বলে, “কেমন এটা?”
হাতের তালুর মধ্যে চকচকে বেশ বড় একটা সোনার হার সেই হারের সাথে একটা বেশ বড় মুক্তোর লকেট দেখে আবেগজনিত কন্ঠে রিশুকে বলে, “এটা কি তোমার চেয়েও দামী?”
প্রেমিকার অন্তর্বাসহীন দুই পীনোন্নত স্তন যুগল রিশুর প্রসস্থ ছাতির সাথে ভীষণ ভাবেই পিষ্ঠ হয়ে যায়। তপ্ত ছাতির পরশে ঝিনুকের স্তনাগ্র নুড়ি পাথরের মতন কঠিন হয়ে ওঠে। প্রেমাতুরা কামিনীর আবেগমাখা দুই গভীর কালো আঁখির দিকে দেখে বলে, “আমার ঝুনু অনেকদিন পরে খোলস ছাড়িয়ে বেড়িয়েছে দেখে মনে হল একটা মুক্তো প্রেজেন্ট করি।”
রিশুর লোমশ ছাতির ওপরে লালা মাখানো ঠোঁট চেপে ধরে তপ্ত চুম্বন এঁকে দিয়ে বলে, “এনেছো যখন তাহলে পড়িয়ে দাও।”
প্রেয়সীর কাঁধে হাত রেখে আয়নার দিকে ঘুরিয়ে দাঁড় করিয়ে রিশু ঝিনুকের পেছনে দাঁড়ায়। আয়নার প্রতিফলনে প্রেমাবেগে ভেসে যাওয়া এক জোড়া কপোত কপোতীর চার আঁখি মিলে যায়। ঝিনুক ফর্সা মসৃণ মরালী গর্দান থেকে রেশমি চুল সরিয়ে ঘাড় উন্মুক্ত করে দেয় রিশুর জন্য। ঝিনুকের রেশমি চুলের মধ্যে নাক ডুবিয়ে প্রেয়সীর মাতাল করা ঘ্রাণে মাথার ঘিলু এলোমেলো করে সোনার হার ঝিনুকের গলায় পড়িয়ে দেয়। ঘাড়ের পেছনে হারের হুক লাগানোর সময়ে রিশুর তপ্ত আঙ্গুলের ডগার পরশে কেঁপে ওঠে মদালসা কামিনী। সামনের দিকে ভীষণ ভাবে উঁচিয়ে থাকা নিটোল দুই স্তনের মাঝে দুলতে থাকা মুক্তোর লকেটে চোখ চলে যায় রিশুর। অন্তর্বাসহীন স্তনযুগল পাতলা টপ ফুঁড়ে হিমালয়ের দুই সুউচ্চ শৃঙ্গের ন্যায় উঁচিয়ে কাতর আবেদন জানায় রিশুকে। প্রেমিকের আঙ্গুলের পরশে ঝিনুকের স্তনাগ্র নুড়ি পাথরের মতন শক্ত হয়ে টপ ফুঁড়ে নিজের আকার ব্যাক্ত করে। আয়নায় চোখে চোখ রেখেই রিশুর মাথা নেমে আসে ঝিনুকের ঘাড়ের ওপরে, ফর্সা মরালী গর্দানে আলতো করে ঠোঁট ছোঁয়াতেই কামাতুরা ললনা চোখ বুজে মাথা হেলিয়ে দেয় রিশুর দিকে। ঠোঁট জোড়া আলতো খুলে যায় ওর, রিশুর তপ্ত জিহবার ডগা উষ্ণ লালার দাগ ফেলে দেয় ঝিনুকের মরালী গর্দানে।
রিশুর বাম হাতের থাবা ঝিনুকের উষ্ণ কোমল গোলাকার পেটের ওপরে চেপে বসে, ডান হাতের থাবা ঝিনুকের বুকের পাঁজর ঘেঁষে পীনোন্নত স্তনের একটু নিচে চেপে বসে যায়। দয়িতের হাতের ওপরে হাত রেখে আলিঙ্গন আরো ঘন করে তোলে ঝিনুক। নিটোল নিতম্বের খাঁজে চেপে বসে যায় রিশুর উদ্ধত পুরুষদন্ড, প্রেয়সীর কোমল নিতম্বের ছোঁয়ায় রিশু লিঙ্গ ভীষণ ভাবেই উত্তেজিত হয়ে ওঠে, তপ্ত লৌহশলাকার ন্যায় কঠিন হয়ে দুই নিতম্বের খাদের মাঝে আটকা পরে ভীষণ ভাবেই ফুঁসতে শুরু করে দেয়। প্রানপন শক্তি দিয়ে প্রেয়সীকে দুই বাহু দিয়ে আস্টেপিস্টে বেঁধে ফেলে রিশু। ডান কানের লতি ঠোঁটের মধ্যে নিয়ে চুষে দিতেই ঝিনুকের সর্বাঙ্গে তড়িৎ প্রবাহ ছুটে বেড়াতে শুরু করে। সর্বাঙ্গের সকল রোমকূপ একত্রিত হয়ে মিলনের অপেক্ষায় ফুটে ওঠে। এমন প্রেমাবেগে এর আগে কেউ ঝিনুককে জড়িয়ে ধরেনি, কেউ ওকে বুকভর্তি কোন ভালোবাসার নতুন নামেও ডাকেনি।
ঝিনুকের মতন কেউ রিশুর না বলা কথাগুলো এর আগে কেউ বোঝেনি, ওর অজান্তেই মায়ের দেওয়া ওর পছন্দের শারট সেদিন ওর হাতে তুলে দিয়েছিল, ওর অজান্তেই ওর বোনকে দিল্লী আসার কথা ফোনে জানিয়ে দিয়েছে, ওর অজান্তেই ওর শখের জন্য একদিন শাড়ি পড়েছে, ওর অজান্তেই ওর সুপ্ত মনোবাঞ্ছা পূরণ করে সাঙ্ঘাতিক ভাবেই আধুনিক সাজে সজ্জিত হয়ে ওর হসপিটালে গেছে। চূড়ান্ত আধুনিক সাজের এই সুপ্ত মনোবাঞ্ছা রিশু কোনদিন কাউকেই বলেনি তাও কি ভাবে যেন ওর ভালোবাসার পাত্রী ওর চোখের ভাষা পড়ে ফেলে, জানে না।
কামনার আগুনে রিশুর দেহ ধিরে ধিরে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে, তোয়ালে জাঙ্গিয়ার নিচে ওর প্রকান্ড পুরুষাঙ্গ ভীষণ ভাবেই প্রেয়সীর নিটোল নিতম্বের খাঁজে আটকে পরে দপদপ করে ফুলতে শুরু করে দেয়। কোমল নিতম্বের ওপরে প্রেমিকের পুরুষাঙ্গের ছোঁয়া পেয়ে কামকাতুরা ললনার হৃদয়ে কামবানের জোয়ার আসে। প্রেমিকের প্রকান্ড পুরুষাঙ্গ সুস্পষ্ট ভাবে অনুভব করার জন্য কোমর পেছনের দিকে ঠেলে নিটোল নিতম্ব দিয়ে রিশুর পুরুষাঙ্গ চেপে ধরে। রিশুর বাঁ হাত নেমে যায় ওর গোল তলপেটের ওপরে। ঝিনুক আলতো ঠোঁট ফাঁক করে ককিয়ে ওঠে। রিশুর বাহুপাশে আবদ্ধ হয়ে কামোত্তেজিত সাপের মতন কাতরাতে শুরু করে দেয় রূপসী মদালসা মোহিনী।
কুহু রবে ডেকে ওঠে ললনা, “উম্মম্ম স্নান … করবে …… না… সোনা…”
দুই হাতে প্রেয়সীকে পেছন থেকে জাপ্টে ধরে ঝিনুকের ডান কানের লতিতে আলতো চুমু খেয়ে বলে, “তুমি কত সুন্দরী ঝুনু, তুমি ভীষণ মিষ্টি।”
বারেবারে এই নতুন আদরের নামটা ঝিনুককে এক অনাবিল সুখের স্বর্গে নিয়ে যায়, “আরেকবার ডাকো না প্লিজ…”
মরালী গর্দানে উষ্ণ জিবের ডগা দিয়ে তপ্ত লালার দাগ কেটে গভীর ভাবেই ডাক ছাড়ে রিশুর হৃদয়, “ঝুনুউউ…”

রিশু ঝিনুকের কোমরে হাত দিয়ে নিজের দিকে ঘুরিয়ে দাঁড় করিয়ে দেয়। বাহু বেষ্টনী প্রগাড় করার জন্য নিজেকে সঁপে দেয় প্রেমিকের বাহুমাঝে। রিশুর প্রসস্থ ছাতির সাথে ওর উন্নত স্তন জোড়া ছুঁয়ে যায়। রিশুর বাঁ হাতের থাবা ঝিনুকের পিঠের শেষ প্রান্তে চেপে ধরে কাছে টেনে আনে ঝিনুকের নধর দেহপল্লব। প্রেয়সীর নিটোল স্তনযুগল ওর প্রসস্থ ছাতির ওপরে পিষে একাকার হয়ে যায়। প্রেয়সীর গতিশীল হৃদস্পন্দন নিজের বুকের ওপরে অনুভব করে আবেগে হারিয়ে যায় রিশু। ঘাড়ের কাছে রিশুর ডান হাতের থাবার পরশ পেয়েই দুই হাতে রিশুর বলিষ্ঠ দেহ জাপ্টে ধরে। প্রেমাবেগে ঝিনুকের শরীরের উষ্ণতা পরস্পরের শরীরকে কামোদ্দিপ্ত করে তোলে ধিরে ধিরে। রিশুর পায়ের ওপরে পা রেখে আঙ্গুলে ভর দিয়ে ঝিনুক ধিরে ধিরে রিশুর দিকে মুখ তুলে তাকায়, পদ্মকুড়ির মতন দুটো টানা টানা কাজল কালো চোখ মেলে দেখে দয়িতের চোখের পানে। রিশুর মাথা নেমে আসে প্রেয়সীর মুখের ওপরে, উষ্ণ শ্বাসের ঢেউ বয়ে যায় দুই কপোত কপোতীর নাসারন্ধ্র হতে। প্রেয়সীর কাজল কালো চোখের মনির মাঝে নিজের প্রতিফলন দেখতে পায় রিশু। আপনা থেকেই চোখ বুজে আসে ঝিনুকের, কমলালেবুর কোয়ার মতন সুমিষ্ঠ ওষ্ঠ অধর মেলে ধরে রিশুর ঠোঁটের কাছে, হাল্কা গোলাপি কোমল ঠোঁটের ভেতরে দুপাটি দাঁত মুক্তোর মতন সাজানো। রিশু আলতো করে ঠোঁট নামিয়ে ঝিনুকের নরম গোলাপি ঠোঁট ছুঁয়ে দেয়। প্রেমের চুম্বন নিবিড় করার জন্য ঝিনুক রিশুর কাঁধ ছেড়ে ঘাড়ের পেছনে হাত নিয়ে যায়। রিশু ঝিনুকের নিচের ঠোঁট মুখের মধ্যে নিয়ে আলতো করে চুষে দেয়, ঝিনুক নিথর হয়ে রিশুর চুম্বনের পরশে নিজেকে ডুবিয়ে দেয়। রিশু একবার ঝিনুকের ওপরে ঠোঁট নিজের ঠোঁটের মধ্যে নিয়ে চুষে দেয় তারপরে নিচের ঠোঁট নিয়ে চুষতে শুরু করে দেয়। প্রেমে বিভোর ঝিনুক জিব বের করে রিশুর মুখের মধ্যে ঢুকিয়ে দেয়, জিবের ডগা দিয়ে আলতো করে রিশুর জিবের সাথে খেলা করতে শুরু করে দেয়। চুম্বনে চুম্বনে একে অপরকে ভরিয়ে তোলার প্রবল প্রচেষ্টা, কালের চক্র দুই কপোত কপোতীর চুম্বন দৃশ্য দেখে চক্রাবাতে ঘুরতে ভুলে যায়।
লালায় লালায় দুই প্রেমিক প্রেমিকার মুখ ভরে ওঠে। বেশ কিছু পরে ঝিনুকের অধর ছেড়ে ওর মুখের দিকে তাকায় রিশু। ভালোবাসার পরশে সারা মুখমন্ডল রক্তরঞ্জিত হয়ে গেছে, দুই চোখ চিকচিক করছে প্রেমবারিতে। বাথরুমের হলদে আলোয় প্রেয়সীর মুখমন্ডলের থেকে অদ্ভুত এক সুন্দর আলোর ছটা বিচ্ছুরিত হচ্ছে।
তিরতির করে কেঁপে ওঠে ঝিনুকের ওষ্ঠঅধর, “আই লাভ ইউ রিশু ফ্রম দ্যা বিগিনিং ওফ টাইম টিল দ্যা এন্ড অফ মাই লাইফ।”
ঝিনুকের কপালে কপাল ঠেকিয়ে আদর করে বলে রিশু, “হ্যাঁ ঝুনু, আই লাভ ইউ ঝুনু।”
অধর মেলে উষ্ণ শ্বাসের প্রস্রবণে দয়িতের মুখমন্ডল ভরিয়ে তোলে বলে, “আমায় আদর কর সোনা…”
মৃদু মাথা দোলায় রিশু, এই দিনটার জন্য কতকাল ধরে অপেক্ষারত, “হ্যাঁ ঝুনু আমি তোমার…”
এই হ্যাঁ শোনার জন্য ঝিনুকের কর্ণকুহর এতদিন ভীষণ ভাবেই তৃষ্ণার্ত, “উড়তে চাই রিশু…”
রিশু হটাত করে ঝুঁকে পড়ে প্রেয়সীকে পাঁজাকোলা করে দুহাতে তুলে নেয়। ঝিনুক দুহাতে রিশুর গলা জড়িয়ে ধরে ওর মুখের দিকে মিষ্টি হাসি নিয়ে তাকিয়ে থাকে। চোখের ভাষায় দুই কপোত কপোতীর হৃদয় মাঝে বার্তালাপ শুরু হয়ে যায়। রূপসী মদালসা হৃদকামিনীকে কোলে করে নিয়ে শোয়ার ঘরের মধ্যে ঢুকে যায় রিশু। প্রেয়সীকে পদ্মপাতায় শিশিরবারির মতন সাবধানে সাদা বিছানায় আলতো করে বসিয়ে দিয়ে সোজা হয়ে দাঁড়িয়ে পরনের গেঞ্জি খুলে ফেলে। ঝিনুক আগে থেকেই রুম হিটার জ্বালিয়ে রেখেছিল যার ফলে এই শীতের মধ্যেও ঘরটা বেশ গরম হয়ে ছিল। ঝিনুক বিছানার ওপরে পা গুটিয়ে বসে রিশুর দিকে মদমত্ত নয়নে তাকিয়ে থাকে। প্রসস্থ লোমশ ছাতি চওড়া কাঁধ বিশাল অজগরের মতন দুই বাহু পেটানো মেদহীন অশ্বত্থ গাছের মতন দেহকান্ড দেখে হৃদয়ের মাঝে দুরুদুরু করে ওঠে নধর দেহপল্লব ধারিণী রূপসী অপ্সরার। শোয়ার ঘরের মৃদু হলদে আলোয় সারা ঘর উদ্ভাসিত, ঝিনুককে দেখে রিশুর মনে হল যেন সাগরফেনার মাঝে এক রূপসী মায়াবিনী সাগরকন্যে বসে রয়েছে। টাকা খরচ করে বিকেলে পার্লার থেকে ফিরেছে ওর প্রেয়সী, ভুরু জোড়া কালো চাবুকের মতন, নাকের ডগা মৃদু আলোয় আর উত্তেজনার ঘামে চকচক করছে। রিশুর সর্বাঙ্গ কামোত্তেজনায় ছটফট করতে শুরু করে দেয়, এত সুন্দরী সত্যি কি কেউ হতে পারে? হসপিটালে কত মানুষ দেখেছে, জীবনে কত নারীর দেখা পেয়েছে, সিনেমা টিভিতে অনেক নায়িকাদের দেখেছে কিন্তু ওর হৃদকামিনীর মতন রূপসী মোহনীয় অপ্সরার দর্শন এর আগে কোথাও পায়নি। ঝিনুকের দিকে হাত বাড়িয়ে ডাক দিল রিশু।
ভুরু কুঁচকে প্রশ্ন করে প্রেমিককে, “কি?”
প্রেমকাতর কন্ঠে প্রেয়সীকে বলে, “এসো না প্লিজ…”
গভীর সেই কন্ঠস্বর উপেক্ষা করার সাধ্য অনেক আগেই হারিয়ে ফেলেছে ঝিনুক। রিশুর হাতে হাত রেখে তীব্র চুম্বকীয় আকর্ষণে আকর্ষিত হয়ে বিছানা ছেড়ে প্রেমিকের সামনে এসে দাঁড়ায়।
এত ভালোবাসা এত প্রেম ওর জীবনে আগে আসেনি। তির তির করে কাঁপা অধর মেলে জিজ্ঞেস করে, “আবার দাঁড়াতে হবে।”
মুচকি হেসে নিজের সামনে দাঁড় করিয়ে রিশু বলে, “আজকে আমাদের প্রাক্টিকাল এক্সাম না।”
নিচের ঠোঁট দাঁতে কেটে কামকাতুরা ললনা মদমত্ত এক হাসি দিয়ে বলে, “এক্সামের ভয় দেখাচ্ছ নাকি?” রিশুর বুকের কাছে নিবিড় ভাবে সরে এসে মিহি কন্ঠে বলে, “আমি তো হারতে রাজি।”
পুরানো এক গানের ছত্র গেয়ে ওঠে রিশু, “তোমাকে হারাতে এসে আমারও কি পরাজয় হয়নি…”
খিলখিল করে হেসে ফেলে ঝিনুক, “মুখেতে বললে তুমি যে কথা…”
প্রেয়সীর কাঁধে হাত রেখে ঘুরিয়ে দাঁড় করিয়ে দেয় রিশু। আলমারির আয়নায় দুই কপোত কপোতীর চোখের মণি পুনরায় পরস্পরের আঁখিমাঝে স্থির হয়ে যায়। ঝিনুককে পেছন থেকে জড়িয়ে ধরে ডান কাঁধের ওপরে মাথা নামিয়ে আনে রিশু। ঝিনুক রিশুর হাতের ওপরে হাত রেখে আলিঙ্গন আরও নিবিড় করে নেয় নিজের কমনীয় দেহপল্লবের চারপাশে, অজগরের মতন বলিষ্ঠ বাহুবন্ধনে আবদ্ধ হয়ে যায় নধর কমনীয় দেহ। রিশুর ভিজে ঠোঁট নেমে আসে ঝিনুকের মরালি গর্দানের ওপরে। উষ্ণ ভিজে ঠোঁট চেপে ধরে ঘষে দেয় কানের পেছন পর্যন্ত, উষ্ণ পরশে ঝিনুকের সর্বাঙ্গ কম্পমান হয়। রিশু প্রেয়সীর ডান কানের লতি ঠোঁটের মধ্যে নিয়ে চুষে ধরে। থরথর করে প্রচন্ড কামাবেগে ঝিনুকের দেহ কেঁপে উঠে মিহি কন্ঠে মত্ত শীৎকার করে, উম্মম্মম্ম। কামিনীর ঢিলের টপের ভেতরে বাম হাত ঢুকিয়ে কোমল সুগোল পেটের ওপরে হাত নিয়ে চলে যায় রিশু। উষ্ণ মসৃণ ত্বকের পরশে রিশুর মাথার শিরা উপশিরার মধ্যে বিদ্যুতের ঝলকানি শুরু হয়ে যায়। হাতের থাবার মধ্যে মখমলের মতন কোমল মাংস চটকে ধরে রিশু। তলপেট ছাড়িয়ে রিশুর হাতের তালু উপরের দিকে উঠে আসে, প্রেয়সীর সুগভীর নাভির চারপাশের নরম ফোলা অংশে আঙুল ছুঁইয়ে দিতেই ককিয়ে ওঠে কামার্ত ললনা, “আহহহহহ… সোনা…” রিশুর হাত চেপে ধরে নিজের পেটের ওপরে। গলার নিচ থেকে বসে যাওয়া কেকারবে ককিয়ে উঠল লাস্যময়ী সুন্দরী, “ইসসসসসস…” প্রেয়সীর রেশমি করবীতে নাক ঘষে সুঘ্রানে মস্তিকের স্নায়ু সকল ভাসিয়ে দেয় রিশু। রিশুর দুরন্ত ডান হাতের থাবা ততক্ষনে ঝিনুকের টপের ভেতরে ঢুকে ওর পাঁজর ঘেঁষে উদ্ধত পীনোন্নত স্তনের ঠিক নিচে চেপে বসে যায়।
আয়নার প্রতিফলনে ঘরের মৃদু আলোয় ললনার অনাবৃত সুগোল পেট আর অতল গহবর নাভি দেখে উন্মাদপ্রায় হয়ে ওঠে রিশু। সুগোল ঈষৎ ফোলা পেটের মাঝে সুগভীর নাভি দেখে রিশুর পুরুষাঙ্গের ভেতরে জ্বলন্ত লাভা সঞ্চালন হতে শুরু করে। কোমর এগিয়ে ঝিনুকের সুগোল নিটোল নিতম্ব খাঁজে পুরুষাঙ্গ চেপে ধরে। তোয়ালে ভেদ করে বৃহৎ পুরুষাঙ্গের ছোঁয়া পেতেই ককিয়ে ওঠে কামার্ত রমণী। এক অজানা ভীতি এক অজানা ভালোলাগায় হৃদয় মাঝে সংকেত দেয় আসন্ন কামক্রীড়ার। ঝিনুকের সারা অঙ্গ জ্বলে পুড়ে ছারখার হয়ে যায়। প্রথমবার এইভাবে কেউ ওর দেহ স্পর্শ করছে, দুই পুরুষ্টু ঊরুর মাঝে লুক্কায়িত নারীঅঙ্গে ততক্ষনে জোয়ার এসে যায়।
ঝট করে ঝিনুকের কোমরে হাত দিয়ে ওকে নিজের দিকে ঘুরিয়ে দাঁড় করিয়ে দেয় রিশু। রূপসী ললনা যেন এক কাঁচের পুতুল, দয়িতের আলিঙ্গনে বাঁধা পরে নিজেকে সঁপে দিয়েছে। ঝিনুক নিজের প্রেমিকের দিকে আধবোজা চোখ মেলে তাকিয়ে প্রসস্থ লোমশ ছাতির ওপরে দুই হাতের দশ খানা চাঁপার কলি আঙ্গুল মেলে ধরে খালি বুকের ওপরে হাত দিয়ে আদর করতে শুরু করে। কোমল চাঁপার কলি আঙ্গুলের পরশে রিশু কামোত্তেজনায় মাতোয়ারা হয়ে ওঠে। সামনা সামনি দাঁড়াতেই নিজের কোমল তলপেটের ওপরে রিশুর বিশাল পুরুষাঙ্গের ধাক্কা অনুভব করে ঝিনুক। সেই আলিঙ্গন নিবিড় করে নেওয়ার জন্য রিশু প্রেয়সীর কোমর টেনে ভিমকায় পুরুষাঙ্গ ললনার নধর কদলী কান্ডের মতন সুগোল ঊরুর মাঝে চেপে ধরে। প্রেমিকের লৌহ কঠিন উত্তপ্ত পুরুষাঙ্গের ছোঁয়া পেতেই ঝিনুক কামোত্তেজিত হয়ে ওঠে। ধিরে ধিরে রিশু ঝিনুকের টপে ঢাকা স্তনের ওপরে মাথা নামিয়ে আনে। ঢিলে টপের ওপর দিয়ে উন্মুক্ত উপরিবক্ষে তপ্ত চুম্বনে ভরিয়ে তোলে। ঝিনুক দুই হাত দিয়ে রিশুর মাথার চুলের আঁকরে ধরে বক্ষ বিদলনে চেপে ধরে প্রেমিকের মাথা। টপের মধ্যে হাত ঢুকিয়ে মসৃণ পিঠের ওপরে হাত বুলিয়ে আদর করে দেয় রিশু। প্রেমাবেগে ঝিনুকের শ্বাসের গতি বেড়ে ওঠে, ভীষণ ভাবেই ওর স্তন জোড়া ওঠানামা করতে শুরু করে দেয়। থেকে থেকে কামোন্মাদ রমণীর ঠোঁট থেকে মিহি শীৎকারে গুঞ্জরিত হয় শুন্য ঘর।
উন্মুক্ত উপরিবক্ষ ছেড়ে হটাত করেই ঝিনুকের সামনে হাঁটু গেড়ে বসে পরে রিশু। পেটের ওপর থেকে কাপড় সরিয়ে দিয়ে সুগোল সুগভীর নাভির ওপরে ঠোঁট চেপে ধরে। রিশুর উষ্ণ লালাযুক্ত ভিজে ঠোঁটের স্পর্শ পেয়ে রিশুর মাথার চুল আঁকড়ে ধরে নিজের পেটের ওপরে চেপে ধরে ঝিনুক, একি পাগল করতে জানে ওর প্রেমিক। এমন ভাবে কেউ কাউকে ভালোবাসে সেটা এতদিন জানত না। জিবের ডগা দিয়ে নাভির চারপাশে আলতো করে বুলিয়ে দেয় রিশু। ঝিনুকের তলপেট নাভি স্তন ঊরু সর্বাঙ্গ থরথর করে কেঁপে ওঠে। সারা শরীর কাঠ হয়ে যায় দয়িতের এই সাঙ্ঘাতিক ভালোবাসার ক্রিয়াকলাপে। ভীষণ ভাবেই রিশুর মাথার চুল আঁকরে ধরে চেপে ধরে ওর ঠোঁট নিজের নাভির ওপরে। রিশুর হাত জোড়া অসভ্যের মতন প্রেয়সীর ভারী নিতম্ব জোড়া দুই বিশাল থাবার মধ্যে পিষে ধরে ঝিনুককে আরো বেশি করে টেনে আনে নিজের দিকে।
নিটোল নিতম্বের কোমল মাংসে তপ্ত আঙ্গুল বসে যেতেই মিহি কণ্ঠে শীৎকার করে ওঠে কামার্ত ললনা, “এইইইই কি করছ… দুষ্টু… সোনাআআ… ইসসসস… কিছু একটা হচ্ছে…”
কামোন্মাদনায় চোয়াল কঠিন হয়ে যায় রিশুর, দাঁত দিয়ে ধিরে ধিরে ঝিনুকের পরনের চাপা লেগিন্স নিচের দিকে টেনে নামিয়ে দেয়। শরীর ভীষণ ভাবেই কেঁপে ওঠে ঝিনুকের, চোখ বুজে উম্মম উম্মম করতে করতে প্রেমিকের মাথা চেপে ধরে নিজের পেটের ওপরে, কিন্তু দামাল রিশু কোমল নিতম্ব পিষতে পিষতে ধিরে ধিরে ওর লেগিন্স খুলে ফেলতে উদ্যত হয়। পেছনের দিক থেকে ধিরে ধিরে নিতম্ব ছাড়িয়ে নেমে যায় ঝিনুকের লেগিন্স সামনের দিকে ইতর অসভ্যের মতন দাঁতের মধ্যে লেগিন্স টেনে ধরে নিচের দিকে করে দেয়। জানুসন্ধি ভীষণ ভাবেই শিরশির করে ওঠে ঝিনুকের। প্রেয়সীর ক্ষুদ্র লাল প্যান্টির কোমরবন্ধনী চোখে পড়তেই রিশুর বুকের মধ্যে কামাগ্নি দাউদাউ করে জ্বলে ওঠে। ইসস কি নরম ওর প্রেয়সী, ভীষণ মিষ্টি মধুর ঝাঁঝালো সুগন্ধ ওর নাকে ভেসে আসে।
ঝিনুক রিশুর মাথার চুল মুঠি করে নিজের দিকে মাথা উঁচু করিয়ে ধরে চোখে চোখ রেখে বলে, “তুমি পাগল করে দিলে আমাকে…”
এতক্ষন কিছুর খেয়াল ছিল না রিশুর, কামোন্মাদ অশ্বের মতন প্রেমিকার দেহ নিয়ে মেতে ছিল। অনেকক্ষণ পরে প্রেয়সীর মধুঢালা আওয়াজ শুনে মন ভরে গেল। ঠোঁটে দুষ্টুমির হাসি মাখিয়ে ললনাকে উত্তর দেয় রিশু, “তুমি ভীষণ মিষ্টি ঝুনু… তোমাকে আদরে আদরে ভরিয়ে দেবো…”
আবার সেই ঝুনু নাম, নামটাতে একটা চুম্বকীয় আকর্ষণ আছে বিশেষ করে রিশু যখন গভীর প্রেমাবেগে ওকে ওই নামে ডাক দেয় তখন ঝিনুকের হৃদয় গলে যায়। “উম্মম সোনা, বেবি, আমার যে কিছু একটা হচ্ছে… তোমার আদর আমাকে পাগল করে তুলছে গো…”
রিশু প্রেয়সীর কামকাতর মুখের দিকে তাকিয়ে নরম কন্ঠে বলে, “আর একটু আদর সোনা…”
কোন মতে ভারী চোখের পাতা মেলে দয়িতের দিকে তাকিয়ে কেকারবে বলে ওঠে, “আমি আর দাঁড়াতে পারছি না বেবি, আমার পা দুটো অবশ হয়ে এসেছে।”
লেগিন্সের কোমরে দুই আঙ্গুল ফাঁসিয়ে নিচের দিকে টেনে দিল রিশু। কোমর ঊরু ছাড়িয়ে লেগিন্স নেমে যেতেই রিশুর চকচকে চোখের সামনে উন্মুক্ত হয়ে যায় অতি ছোট স্বচ্ছ লাল রঙের প্যান্টিতে ঢাকা প্রেয়সীর ফোলা উরুসন্ধি কোমল যোনিদেশ, উন্মুক্ত হয়ে যায় সুগোল কলা গাছের মতন মসৃণ সদ্য ওয়াক্স করা দুই পুরুষ্টু জঙ্ঘা। ভীষণ লজ্জায় দুই হাত দিয়ে ঢেকে দেয় উরুসন্ধি। ইসস ছি ছি কি ভীষণ লজ্জা, ওই ভাবে লোভী মানুষের মতন ওর পায়ের মাঝে কি ভাবে তাকিয়ে রিশু। প্রেয়সীর কব্জি ধরে ওর উরুসন্ধি থেকে হাত সরানোর চেষ্টা করে রিশু। পা দাপানোর ফলে ফর্সা পায়ের গোড়ালিতে বাঁধা পাতলা নুপুর জোড়া ছনছন বেজে ওঠে।
মাথা ঝাঁকিয়ে মিহি কণ্ঠে প্রতিবাদ জানায় ঝিনুক, “নাহহ… সরাবো না… আগে লাইট বন্ধ করো”
মুচকি হাসি দেয় রিশু, “ইসসস… লাইট বন্ধ করলে তোমায় দেখব কি করে?”
হাত মুঠো করে নিজের যোনিদেশ চেপে রিশুর কামুক নজর বাঁচিয়ে বলে, “না আমার লজ্জা করে…”
মনে মনে ভাবে রিশু, ইসসস প্রেয়সীর লজ্জা দেখ, দুষ্টুমি করতে যার জুড়ি মেলা ভার সে আবার এখন লজ্জাকাতর হয়ে পড়েছে। কোমল হাতের ওপরে তপ্ত চুমু এঁকে বলে, “তুমি আমার মিষ্টি ঝুনু বেবি…”
এই নামটাতে ভীষণ আকর্ষণ, চুম্বনে অবশ হয়ে যায় ঝিনুকের হাত। রিশু ওর হাত সরিয়ে স্বচ্ছ লাল প্যান্টির ওপর দিয়েই কোমরবন্ধনীতে চুম্বন এঁকে দেয়। তিরতির করে কেঁপে ওঠে ঝিনুক, “শয়তান ছেলে…”
স্বচ্ছ লাল প্যান্টিতে ঢাকা যোনিদেশ আর যোনিচেরা দেখে কামোন্মাদের চরম শিখরে পৌঁছে যায় রিশু। দুই জঙ্ঘা মাঝে কালো ঘন কুঞ্চিত কেশের রাশি দেখে আরো বেশি কামোন্মাদ হয়ে ওঠে রিশু, ইসসস কি সুন্দর সাজানো ওর প্রেয়সীর বাগান। এই বাগানের আজকে মালী হবে রিশু।
ইসসস কি অসভ্যের মতন ওর যোনির দিকে তাকিয়ে ওর প্রেমিক, “এই একদম ওই ভাবে তাকাবে না প্লিজ…”
হুহু করে ওঠে রিশুর বুক, উফফ কি সুন্দর প্রেয়সীর যোনিস্থান, জিবের ডগা দিয়ে তলপেটের ওপরে দাগ কেটে কামকাতর কন্ঠে বলে, “উফফ ভীষণ মিষ্টি তোমার গন্ধ…”
কামোন্মাদনার শিখরে পৌঁছে যায় ঝিনুক, “প্লিস এই ভাবে ওইখানে দেখো না…”
কামোন্মাদ রিশু ঝিনুকের পায়ের মাঝে স্বছ লাল প্যান্টির ওপরে ফোলা নরম যোনির ওপরে নাক চেপে বুক ভরে শ্বাস নিয়ে কামমদির কন্ঠে বলে, “আহহহ কি দারুন স্মেল…”
এইভাবে নাকের ডগা ঘষাতে ভীষণ ভাবেই কামকাতর হয়ে পরে ললনা, মাথার চুল আঁকরে ধরে উপরের দিকে উঠিয়ে রিশুকে আদরের বকুনি দিয়ে বলে, “তুমি না ভীষণ নোংরা… কেউ ওই ভাবে… ইসসস কি করছ…” মাথা গুলিয়ে যায় কামিনী রূপসী ললনার।
যোনির রসে ভিজে উঠেছে ঝিনুকের ছোট প্যান্টি, সেই রসের ঝাঁঝালো মিষ্টি মদির গন্ধে পাগলপ্রায় হয়ে যায় রিশু। রিশুর খালি ঊর্ধ্বাঙ্গ আর স্বল্প বস্ত্র পরিহিতা ঝিনুকের নগ্ন ত্বকের ওপরে শীতের ঠান্ডা হাওয়ায় ওদের শরীরে কামনার লেলিহান শিখা দাউদাউ করে জ্বলে ওঠে। প্রেয়সীর নধর দেহপল্লব আজ রাতে চটকে পিষে একাকার করতে উদ্যত হয় রিশু।
ললনার সামনে উঠে দাঁড়াতেই ক্ষিপ্র বাঘিনীর মতন দুই হাতের থাবায় রিশুর প্রসস্থ লোমশ ছাতির পেশি খামচে ধরে কামকাতর কন্ঠে বলে, “তুমি মহা শয়তান। এবারে আমি তোমাকে মজা দেখাবো…” বলেই ওর তোয়ালের খুট খুলে দেয়।
তোয়ালে মেঝেতে পরে যেতেই ঝিনুক দুম করে দেয়ালে ঠেলে দেয় রিশুকে। হটাত করে ক্ষিপ্র বাঘিনীর মতন হয়ে উঠতে দেখে কামকাতর রিশু জিজ্ঞেস করে, “এবারে কে শয়তানি করল।”
গায়ে যত জোর ছিল তত জোরে রিশুকে ঠেলে দেয় দেয়ালে, নিটোল স্তন জোড়া পিষে ধরে প্রেমিকের লোমশ ছাতির ওপরে। বাম হাতে বুকের লোম খামচে ধরে বলে, “দুষ্টুমি তুমি একাই করতে পারো নাকি, হানি?”
ধিরে ধিরে কামোন্মাদ ললনার বাম হাত নেমে যায় রিশুর তলপেটের কাছে। খাঁজকাটা পেশি বহুল পেটের ওপরে চাঁপার কলি আঙ্গুল মেলে ধরে আলতো আঁচর কেটে উত্যক্ত করে তোলে রিশুকে। উফফফ মেয়েটা কি যে পাগল করছে না, সারা শরীর ওর এই চাঁপার কলি আঙ্গুলের ছোঁয়ায় অবশ হয়ে আসে ধিরে ধিরে। ওর প্রকান্ড পুরুষাঙ্গ জাঙ্গিয়ার নিচে বাঁধা পরে দপদপ করতে শুরু করে দেয়। যত নিচে ঝিনুকের আঙ্গুল যায় তত ওর পেটের পেশি ক্রমশ শক্ত হয়ে ওঠে। বুকের ওপরে পেশি বহুল পেটের ওপরে সর্পিল চাঁপার কলি আঙ্গুলের পরশে ভীষণ ভাবেই দাপাদাপি শুরু করে দেয় রিশুর ভিমকায় পুরুষাঙ্গ। একি করছে ওর প্রেয়সী, এযে শুধু আঙ্গুলের ছোঁয়ায় ওকে মেরে ফেলতে উদ্যত। লোমশ ছাতি ছেড়ে বাম হাতে রিশুর গলা পেচিয়ে ধরে চোখে চোখ রেখে ডান হাতের নখ দিয়ে আলতো আঁচর কেটে দেয় রিশুর ছাতির বোঁটার চারপাশে। ছটফট করতে করতে দেয়ালে মাথা ঠুকে দেয় রিশু। ভীষণ ভাবেই প্রেয়সীর কোমর জড়িয়ে ধরে পুরুষ্টু জঙ্ঘামাঝে নিজের উরুসন্ধি ঠেলে ধরে রিশু। শিক্ত কাপড়ে ঢাকা যোনিদেশ বিশাল ভিমকায় লিঙ্গের পরশে আরো বেশি শিরশির করা শুরু করে দেয়।
শেষ পর্যন্ত আর থাকতে না পেরে প্রেয়সীকে আলতো ধাক্কা মেরে বিছানায় শুইয়ে দিয়ে বলে, “দুষ্টু ঝুনু…”
দুইহাতে রিশুর গলা জড়িয়ে ধরে নিজের সাথে রিশুকে নিয়ে বিছানার ওপর গড়িয়ে পড়তে পড়তে কামকাতর কন্ঠে বলে, “আমিও পারি…”
ধবধবে নরম সাদা বিছানার ওপরে লাস্যময়ী অপ্সরা চিত হয়ে শুয়ে পড়ল। রিশু ওর পাশে আধাশোয়া হয়ে ওর মুখের ওপরে ঝুঁকে পরে। মদালসা কামিনী রিশুর মাথার চুল দুহাতে আঁকরে ধরে নিজের ঠোঁট চেপে ধরে রিশুর ঠোঁটের সাথে। আরো এক প্রস্থ চুম্বনের খেলায় মেতে ওঠে প্রেমিক যুগল। এবারে চুম্বনের পালা শুধু মাত্র রূপসী কামিনীর, চুম্বনে চুম্বনে ভরিয়ে দেয় রিশুর ঠোঁট গাল কপাল। দুই হাতে প্রেয়সীর পাতলা কোমর জাপ্টে ধরে আলিঙ্গন নিবিড় করে নেয় রিশু। ঝিনুকের পুরুষ্টু ঊরুর মাঝে ডান জানু ঢুকিয়ে দেয় রিশু। ঝিনুক নিজের শিক্ত ঊরুসন্ধি চেপে ধরে রিশুর লোমশ জানুর ওপরে। উরুর ত্বকের ওপরে ওর ভিজে প্যান্টির পরশ অনুভব করে রিশু, অনুভব করে ওর হৃদয়ের অপ্সরার নারীদেশ ভিজে উঠেছে ভীষণ ভাবেই। ঝিনুক ওর প্রেমিকের সারা মুখে বেশ কিছু ক্ষন শিক্ত উষ্ণ চুম্বনের বর্ষণ করার পরে ওকে ঠেলে চিত করে শুইয়ে দিল বিছানার ওপরে। রিশুর বুকের ওপরে নিজের ঊর্ধ্বাঙ্গ টেনে আনে ঝিনুক।
রিশুর গভীর চোখের দিকে তাকিয়ে ওর চশমা খুলে দিয়ে মদির কামঘন কন্ঠে বলে, “এবারে আমার পালা, মাই ডারলিং রুশু।”
এতদিন রিশু ছাড়া ওকে কেউ অন্য নামে ডাকেনি, এই প্রথমবার প্রেয়সীর ঠোঁটে আদরের নাম শুনে জিব বের করে ঝিনুকের ঠোঁট চাটতে উদ্যত হয়।
সুন্দরী কামিনী রিশুর ঠোঁটের ওপরে ডান হাতের তর্জনী রেখে চুপ করিয়ে বলে তৃষ্ণার্ত কামুক হাসি দিয়ে বলে, “আমিও কিছু প্রাক্টিকাল করতে পারি হানি।”
মুচকি হাসি দেয় রিশু, “আই উইল ডাই টু নাইট বেবি।”
নিচের ঠোঁট দাঁতে কেটে কামুক হাসি দিয়ে রিশুকে বলে, “লেটস ডাই টুগেদার দেন।” রিশুর ঠোঁটের ওপরে আঙ্গুল দিয়ে আলতো ডলে দিয়ে আদর করে আদেশ করে, “চুপ করে শুয়ে থাকবে।”
প্রেমিকার আদেশ অমান্য করার সাধ্য রিশুর নেই তাই মাথা দুলিয়ে বলে, “জো হুকুম মেরি জান।”

অগত্যা রিশুর চুপ করে শুয়ে থাকা আর কোন উপায় নেই, যেভাবে ওকে চুম্বনে ওর দেহ অবশ করে ফেলেছে তাতে ওর সারা শরীর জুড়ে লেলিহান কামাগ্নি দাউ দাউ করে জ্বলছে। ঝিনুক রিশুর বুকের ওপরে বাঁ হাতের আঙুল মেলে ধরে আদর করে বুলিয়ে দেয়, তারপরে ধিরে ধিরে ওর বুকের ওপরে ঝুঁকে পরে রিশুর প্রসস্থ লোমশ ছাতির ওপরে সহস্র ছোটো ছোটো চুমু খেতে শুরু করে দেয়। রিশুর প্রসস্থ ছাতি আর চেহারা প্রেয়সীর রেশমি চুলের আবরণে ঢাকা পরে যায়। কোমল উষ্ণ শিক্ত অধর দিয়ে রিশুর বুকের ওপরে তপ্ত লালার দাগ ফেলে দিতে শুরু করে কামিনী ললনা। মাঝে মাঝে জিবের ডগা বের করে ছোট ছোট গোল দাগ কেটে ভীষণ ভাবেই উত্যক্ত করে তোলে মনের মানুষকে। কামঘন হৃদয় মাতাল হয়ে যায় চোখের পাতা ভারী হয়ে আসে রিশুর। ঝিনুক ওর প্রেমিকের বুকের স্তনবৃন্ত দাঁতের মাঝে নিয়ে আলতো কামড় দিতেই রিশু প্রেয়সীর মাথার রেশমি করবীর মধ্যে আঙ্গুল চুবিয়ে চেপে ধরে বুকের ওপরে। এক দিকে মুখের মধ্যে রিশুর এক ছাতির বৃন্ত অন্য হাতের আঙুল দিয়ে অন্য ছাতির বৃন্ত চেপে দেয়। মাথা ওঠানোর শক্তি হারিয়ে ফেলে রিশু, সুখের পরশে কামোন্মাদনার চরম শিখরে পৌঁছে যায় ততক্ষনে। ভালোবাসায় এত সুখ জানত না। ঝিনুকর শিক্ত কোমল অধর বেশ কিছুক্ষণ রিশুর বুকের ওপরে খেলা করে নিচের দিকে নামতে শুরু করে। অগত্যা রিশু চোখ বন্ধ করে নিয়ে সেই সুখের অনুভুতি প্রান ঢেলে উপভোগ করা ছাড়া আর কোন উপায় থাকে না। ওর প্রেয়সী মদমত্তা কামিনী আজকে ওকে সত্যি ছিঁড়ে কুটি কুটি করে ফেললেও ওর কিছু করার সাধ্য নেই।
ঝিনুক রিশুর পেটের নিচের দিকে নামতেই টপে ঢাকা নিটোল স্তনের মাঝে জাঙ্গিয়া ঢাকা প্রকান্ড লিঙ্গ আটকা পরে যায়। সুগোল কোমল পীনোন্নত বক্ষের পরশে কেঁপে ওঠে রিশুর সর্বাঙ্গ, কি ভীষণ নরম আর উষ্ণ ওর প্রেয়সীর স্তন জোড়া। কোমল স্তনের ওপরে প্রেমিকের প্রকান্ড পুরুষাঙ্গের ছোঁয়া পেতেই বুকের ভেতর কামাগ্নি দাউদাউ করে জ্বলে ওঠে কামাতুরা ললনার। উফফ কি গরম ওর প্রেমিকের পুংদন্ড, কি প্রকান্ড, এটা ওর শরীরের ভেতরে প্রবেশ করবে ভাবতেই ঝিনুকের গায়ে কাঁটা দিয়ে ওঠে। ভীষণ ভাবেই রিশুর পুংদন্ড নিজের বক্ষ মাঝে চেপে ধরে ঝিনুক। ইসস ওর শয়তান নচ্ছার প্রেমিক কি ভাবে ছটফট করছে, ভাবতেই ওর ভীষণ হাসি পায়। রূপসী মোহিনী রেশমি চুলের পর্দা মেলে ধরে ওর মনের মানুষের তলপেটের ওপরে। প্রকান্ড পুরুষাঙ্গের লাল গোলাকার লিঙ্গপ্রান্ত জাঙ্গিয়া ফুঁড়ে মাথা বেড়িয়ে আসে। ঝিনুকের উন্মুক্ত উপরিবক্ষে সেই সুগোল তপ্ত রসে মাখা লিঙ্গের ডগা স্পর্শ করতেই রিশু আর ঝিনুক দুইজনেই একত্রে কেঁপে ওঠে। লিঙ্গের ডগায় প্রেয়সীর মসৃণ ত্বকের পরশে রিশুর চোখের মনি ঘুরে যায়, কামোন্মাদনার চরম শিখরে পৌঁছে যায় রিশু। ঝিনুকের বুকের ওপরে প্রকান্ড তপ্ত লিঙ্গের শিক্ত ডগা ছুঁয়ে যেতেই শিরশির করে ওঠে কামুকী ললনার স্তন জোড়া। থাকতে না পেরে শেষ পর্যন্ত হাত বাড়িয়ে প্রেয়সীর চুলের মুঠি করে ধরে ফেলে রিশু।
চাপা শীৎকার করে উঠে প্রেয়সীকে বলে, “ঝুনু বেবি, প্লিজ থামো আর পারছি না …”
রূপসী তন্বী কামিনী কোন রকমে মাথা উঠিয়ে মনের মানুষের দিকে কামমদির মত্ত নয়নে অধরে এক দুষ্টু মিষ্টি হাসি দিয়ে বলে, “এত তাড়াতাড়ি রুশু? তাহলে আমার কি হবে?…”
রিশু আর থাকতে না পেরে ঝিনুকের টপ ধরে টান মেরে খুলে ফেলে। কিন্তু যেহেতু সুন্দরী ললনা ওর দেহের ওপরে ঝুঁকে ছিল তাই ঝিনুকের উন্মুক্ত পীনোন্নত স্তন জোড়ার দর্শন পেতে গিয়েও পেতে পারলো না। মনের মানুষের চোখে চোখ রেখে কামুকী এক হাসি দিয়ে নিজের সর্পিল কমনীয় শরীর ঘষতে ঘষতে বুলিয়ে নিয়ে আসে রিশুর বলশালী দেহের ওপরে। প্রেয়সীর নিটোল কোমল স্তুন আর তপ্ত নুড়ি পাথর ন্যায় স্তনের বোঁটা দিয়ে রিশুর খাঁজকাটা পেট আর পেশি বহুল ছাতির ওপরে শিক্ত কামাগ্নির দাগ কেটে দেয়। কমনীয় নধর দেহপল্লব পুরো টেনে এনে রিশুর মাথার দুপাশে কুনুইয়ে ভর করে মুখের ওপরে ঝুঁকে যায় ললনা। দুই চোখে ঝরে পরে কামাগ্নির তরল লেলিহান শিখা। পুরুষ্টু দুই জঙ্ঘা মেলে রিশুর দুই পা চেপে ধরে দুপাশ থেকে। প্রেম পিপাসিতা ঝিনুকের নধর দেহের ত্বক রিশুর কামার্ত ঘর্মাক্ত ত্বকের সাথে মিশে যায়। ওর প্রসস্থ লোমশ বুকের ওপরে নিটোল পীনোন্নত উষ্ণ কোমল স্তন জোড়া পিষে দেয় প্রেয়সী, উত্তপ্ত কঠিন স্তনের বোঁটা রিশুর বুকের পেশি পুড়িয়ে দিতে উদ্যত হয়। ওর পেটের প্রতি ইঞ্চি ঝিনুকের মোলায়ম ত্বকের সাথে নরম গোল পেটের সাথে লেপটে যায়। ঝিনুকের পুরুষ্টু নধর সুগোল জানুর মাঝে রিশুর উরু জোড়া বাঁধা পরে যায়। জাঙ্গিয়ার নিচে দাঁড়িয়ে থাকা লৌহকঠিন প্রকান্ড লিঙ্গ গিয়ে সজোরে ধাক্কা মারে প্রেয়সীর উরুসন্ধি স্থলে, ভেজা প্যান্টি ঢাকা যোনির ওপরে। কামিনী ললনা মনের মানুষের তপ্ত শলাকার পরশ পরম সুখের সাথে নিজের শিক্ত নারীত্বের দোরগোড়ার ওপরে উপভোগ করে। ওর মাথা ঝিমঝিম করতে শুরু করে দেয়,
কামসুখে মিহি শীৎকার করে কামার্ত ঝিনুক, “উম্মম্ম… তোমারটা… কত্ত বড়… আআহহহহ… উফফফফ বেবি থাকতে পারছি নাহহহহ… ” কথা জড়িয়ে আসে ললনার।
কামার্ত রিশু দুই হাতের বিশাল থাবা দিয়ে পিষে ধরে প্রেয়সীর নিটোল সুগোল নিতম্ব। দশ আঙ্গুল মেলে খামচে ধরে কোমল মাংস। নিচের দিকে টেনে প্রেয়সীর জঙ্ঘার মাঝে চেপে ধরে লৌহ কঠিন পুরুষাঙ্গ। কামার্ত ললনা কোমল যোনির ওপরে প্রেমিকের ভিমকায় লিঙ্গের পরশ পেয়ে মাথা ঝাঁকিয়ে রিশুর মুখের ওপরে রেশমি চুলের পর্দায় ঢেকে দেয়। দুই হাতে প্রেমিকের মুখ আঁজলা করে ধরে প্রেমগভীর দৃষ্টি ঢুলুঢুলু নয়নে চেয়ে দেখে প্রেমিকের আবেগভরা আঁখি। ওর হৃদস্পন্দন তড়িৎ গতিতে ধুকপুক করা শুরু করে দেয়। সেই মদির নয়নের চাহনি দেখে কামোন্মাদ রিশু প্রানপনে ললনার দুই ভারী নিটোল কোমল নিতম্ব খামচে ধরে নিচের থেকে উরুসন্ধি উঁচিয়ে ধরে। রিশুর কোমর উপরের দিকে উঠতেই ভিমকায় লিঙ্গের বড় গোলাকার ডগা প্যান্টি সমতে কিছুটা কামাতুরা ললনার যোনির দুই পাপড়ি সরিয়ে ঢুকে যায়। যোনির পাপড়ি মাঝে প্রেমিকের লিঙ্গের ডগা ঢুকে পড়তেই কুঁকড়ে যায় সুন্দরী কামার্ত ঝিনুক। ওর সারা শরীর বেয়ে অদ্ভুত এক শিরশির অনুভূতি জাগ্রত হয়, দুই হাতের দশ আঙ্গুল দিয়ে প্রেমিকের মাথার চুল প্রানপন শক্তি দিয়ে খামচে ধরে। চোখ বুজে রিশুর নিচের ঠোঁট প্রানপন শক্তি দিয়ে কামড়ে ধরে। প্রেমিকের লিঙ্গের প্রথম পরশে কামার্ত ললনার চিন্তা ভাবনা লোপ পেয়ে যায়, ওর চিন্তাধারা সব কিছুই যোনির দুই পাপড়িতে কেন্দ্রীভূত হয়ে যায়। কামনার সেই কামড়ে রিশুর থাবা আরো বেশি করে ঝিনুকের সুগোল নিতম্বের মাংসের ওপরে বসে যায়।
কামার্ত কন্ঠে কেকারবে শীৎকার করে ওঠে রূপসী, “উফফফ রুশু… সোনা… বেবি… একি… করে দিলে… ইসসসস… মরে যাবো সোনা… কি পাগল করছ…”
রিশুর কথা বলার ক্ষমতা লোপ পায় অনেক আগেই, তাও প্রেয়সীর নিতম্ব জোড়া পিষতে পিষতে বলে, “তুমি ভীষণ মিষ্টি ঝুনু… ইউ আর ভেরি হট হানি…”
মনের মানুষের ঠোঁট কামরাতে কামরাতে প্রেমকাতুরা ললনা চোখের তারায় ঝিলিক দিয়ে বলে, “তোমার টাচে জাদু আছে জানু…”
রিশু মিহি কণ্ঠে প্রেয়সীকে বলে, “তোমার মিষ্টি চোখের ভাষায় আমি পাগল হানি…”
রূপসী ললনার কোমর জড়িয়ে ধরে বিছানায় গড়িয়ে যায় রিশু। বলিষ্ঠ বাম হাত ঝিনুকের ঘাড়ের নিচে দিয়ে ওর মাথা নিজের দিকে উঁচু করে তুলে ধরে। রূপসী ললনা ঢুলুঢুলু নয়নে প্রেমিকের চোখের তারায় নিজের প্রতিফলন দেখে প্রেমে বিভোর হয়ে যায়। দুই হাত স্তনের ওপরে জড় করে প্রেমিকের কামার্ত জ্বলন্ত চাহনি হতে নিজের স্তনজোড়া বাঁচাতে চেষ্টা করে। প্রেয়সীর হাতের ওপরে হাত রেখে মাথা নামিয়ে আনে ললনার মুখের ওপরে, নাকের ডগা দিয়ে ভালোবেসে আলতো করে ললনার নাকের ডগা ঘষে দেয় রিশু। ঠোঁট খুলে জিবের ডগা বের করে প্রেমিকের ঠোঁট ছুঁয়ে দেয় ঝিনুক।
প্রেয়সীর অবশ হয়ে আসা হাত দুটো সরিয়ে দিয়ে ওর বুভুক্ষু প্রেমকাতর চাহনির সামনে উন্মুক্ত করে দেয় কামিনী নিটোল পীনোন্নত স্তন যুগল। গাড় বাদামি রঙের স্তনবৃন্ত জোড়া ভীষণ ভাবেই হাল্কা বাদামি বলয়ের মাঝ হতে স্তন শিখরে শোভা পায়। ফর্সা ত্বক এতক্ষনের প্রেমের কেলিতে লালচে রঙ ধরে গেছে। রিশু ডান হাতের নখ দিয়ে প্রেয়সীর স্তনের মাঝে আলতো আঁচর কেটে দেয়। সেই পরশে থরথর করে কেঁপে ওঠে ঝিনুকের দুই নিটোল সুউচ্চ কুচযুগল। ধিরে ধিরে প্রেয়সীর পাঁজর ঘেঁষে আঁচর কেটে দেয় রিশু, ওর দুষ্টু হাত প্রেমিকার নরম ঈষৎ ফোলা গোল পেটের ওপরে চলে যায়। ধিরে ধিরে রিশুর হাত ঝিনুকের নাভির পাশে চলে যায়। সুগভীর নাভির চারপাশে গোল করে আলতো আঁচর কেটে ভীষণ ভাবেই উত্তেজিত করে তোলে প্রানের প্রেয়সীকে।
নাভির চারপাশে প্রেমিকের আঙ্গুলের স্পর্শে কামাতুরা ললনা চোখ বুজে মিহি কণ্ঠে শীৎকার করে ওঠে, “ইসসস… কি যে পাগল করো না তুমি…”
রিশু প্রেয়সীর ঠোঁটের ওপরে আলতো চুমু খেয়ে বলে, “তুমি যে আমাকে পাগল করে দিলে বেবি…”
ধিরে ধিরে রিশুর হাত নেমে যায় চেপে ধরা জঙ্ঘা মাঝে, স্বছ লাল প্যান্টির ওপরে দিয়েই প্রেয়সীর কোমল যোনির ওপরে আঙ্গুল বুলিয়ে দেয় রিশু। যোনির ওপরে প্রেমিকের আঙ্গুলের প্রথম পরশে সর্বাঙ্গে কাঁটা দিয়ে ওঠে ঝিনুকের। “উফফফফ” করে মৃদু শীৎকার করে ওঠে কামন্মাদিনি ঝিনুক। প্যান্টির ওপরে দিয়েই যোনি চেরা বরাবর কঠিন মধ্যমা দিয়ে আলতো ডলে দেয় রিশু। ভীষণ ভাবেই ভিজে গেছে প্রেয়সীর যোনিদেশ, ভীষণ ভাবেই কাঁপতে শুরু করে প্রেয়সীর যোনিদেশ। ঝিনুকের যোনির চারপাশে শিক্ত যোনিকেশ আঁচর কেটে আদর করে দেয় রিশু। রিশু প্রেয়সীর প্যান্টি সরিয়ে দিয়ে ডান হাতের মধ্যমা দিয়ে প্রেয়সীর শিক্ত যোনি চেরার ওপরে বুলিয়ে দেয়। প্রেয়সীর ত্বক যেন মখমলের মতন। যোনির দুপাশের ফোলা নরম দেয়ালের মাঝখান দিয়ে কালচে গোলাপি পাপড়ি বেড়িয়ে আসে। যোনি চেরা বরাবর উপর হতে নিচ বারেবারে মধ্যমা দিয়ে ডলে দেয় রিশু। ওর আঙ্গুল ভিজে চপচপে অয়ে যায় কামার্ত ললনার যোনি রসে।
যোনির মধ্যে আঙ্গুলের পরশ পেতেই, “ইসসসসস…” করে শীৎকার করে ওঠে কামাতুরা ললনা।
রিশু মিহি কন্ঠে প্রেয়সীকে বলে, “তোমার কত ভিজে, সো মাচ হানি…”
হিস করে ওঠে কামাতুরা ললনা, “উফফফ হানি একি করছ… মরেএএ… যাবো… যে…”
ধিরে ধিরে মধ্যমা ঢুকিয়ে দেয় প্রেয়সীর যোনির মধ্যে। আঙ্গুলের ডগা একটু খানি ঢুকতেই ছটফট করে ওঠে রূপসী তন্বী কামিনী। ধিরে ধিরে পুরো মধ্যমা প্রেয়সীর শিক্ত যোনির মধ্যে প্রবেশ করিয়ে দেয় রিশু। বুড়ো আঙ্গুল দিয়ে যোনি চেরার উপরিভাগ ডলে দেয় আলতো করে। ভগাঙ্কুরে কঠিন তপ্ত আঙ্গুলের ছোঁয়া পেতেই সারা শরীর দুমড়ে যায় ঝিনুকের। দুই হাতে রিশুর মাথার চুল খামচে ধরে চুম্বন গভীর করে নেয় মোহিনী রূপসী। শিক্ত যোনি অতি সহজে রিশুর মধ্যমা গিলে ফেলে, আঙ্গুল দিয়ে প্রেয়সীর শিক্ত পিচ্ছিল যোনি গহবর মন্থন করতে শুরু করে দেয় রিশু। ওর কঠিন তপ্ত মধ্যমা ললনার অতল যোনির অভ্যন্তরে একবার আমুল ঢুকে যায় আর বেশ কিছুক্ষন যোনির ভেতরের পিচ্ছিল দেয়ালে নড়াচড়া করে আবার টেনে বের করে নেয়। এই ভাবে ধিমে লয়ে প্রেয়সীর পিচ্ছিল রসালো যোনি মন্থনে রত হয় রিশু আর সেই সাথে বুড়ো আঙ্গুল দিয়ে ভগাঙ্কুর ডলে দেয়।
কামাতুরা কাকাতুয়ার মিহি শীৎকারে ঘর ভরে ওঠে, “ইসস আহহহ আহহহ আহহহ… কর সোনা কর, ডলে দাও, উফফফফ পারছি না হানি, ভীষণ পাগল পাগল লাগছে বেবি… রুশুউউউউ তোমার আঙ্গুলের ছোঁয়ায় পাগল হয়ে যাচ্ছি গো… হ্যাঁ সোনা তোমার আঙ্গুলটা কি গরম … ইসসস একি নাহহহ এতো সুখ যে আর সহ্য করতে পারছি না হানি … ইসস কি যে হচ্ছে শরীরের মধ্যে… উফফ মাই ডারলিং বেবি….”
রিশুর মুখে কোন কথা নেই, নিবিষ্ঠ মনে আঙ্গুল দিয়ে প্রেয়সীর যোনি মন্থন করে চলে বেশ কিছুক্ষন। ঝিনুকের তলপেটে একটা ভীষণ অজানা শিরশিরানি শুরু হয়ে যায়। নাভির চারপাশ হতে কেমন যেন এক অচেনা অনুভূতি ওর পায়ের মাঝে গড়িয়ে পড়ছে মনে হল। ধিরে ধিরে সেই শিরশিরানি তলপেট ছাড়িয়ে যোনির মুখে চলে আসে। প্রানপন শক্তি দিয়ে বিছানার চাদর দুই হাতে খামচে ধরে ঝিনুক। তলপেট ছাড়িয়ে সেই শিরশিরানি নিচের দিকে নেমে যেতেই ঝিনুকের মনে হল ওর শরীরে একটা জ্বলন্ত বিস্ফরক আগ্নেয়গিরি ফেটে পড়ল। সারা শরীরে খিচ ধরে গেল কামাতুরা ললনার, পায়ের পাতা টানটান হয়ে যায়, দুই পুরুষ্ঠু ঊরু জোড়ার পেশি ভীষণ ভাবেই শক্ত হয়ে খিঁচ ধরে যায়। বন্ধ চোখের অন্ধকারে লাল নীল হলুদ সবুজ রঙ বেরঙ্গের তারাবাতির চমকানি দেখতে পায় ঝিনুক। একি হচ্ছে ওর শরীরে, এই অনুভূতি একদম ওর অজানা।
চাপা গোঙ্গান কন্ঠে ডাক ছাড়ে কামাতুরা রিশুর রূপসী প্রেয়সী, “চেপে ধর আমাকে রুশু… আহহহহহ বেবি… আমি পাগল হয়ে যাচ্ছি… নাআআহহ সোনা চেপে ধর… উফফফ…ইসসসসস…উম্মম্মম্মম… ” কামার্ত প্রলাপে ঘর ভরিয়ে তোলে।
রিশু প্রেয়সীর বুকের ওপরে ঝুঁকে পরে ললনার পীনোন্নত বাম স্তন নিজের মুখের মধ্যে নিয়ে নেয়, প্রথমে স্তনের চারপাশে আলতো করে চুমু খেয়ে তারপরে শিক্ত জিব বের করে কামিনীর স্তনবৃন্তের চারপাশে বাদামি বৃত্তের ওপরে জিব বুলিয়ে দেয়। স্তনের মোলায়ম ত্বকের ওপরে প্রেমিকের শিক্ত তপ্ত জিবের ডগার পরশে ঝিনুকর শরীর বেঁকে যায়, রিশুর কামঘন চুম্বন গভীর ভাবে অনুভব করার জন্য পিঠ উঁচিয়ে উপরের দিকে ঠেলে ধরে স্তন। রিশুর মাথার চুল আঁকরে ধরে পীনোন্নত বাম স্তন চেপে দেয় প্রেমিকের ঠোঁটের মধ্যে। রিশু ঠোঁট দিয়ে চেপে ধরে প্রেয়সীর তপ্ত স্তনবৃন্ত দাঁতের মধ্যে একটু ধরে ঠোঁট দিয়ে চুষে দেয় ওর স্তনবৃন্ত। কামাতুরা প্রেয়সীর কোমল স্তনের কিছুটা নরম মাংস নিজের মুখের মধ্যে চুষে নিয়ে টেনে ধরে উপর দিকে, তারপরে মুখ থেকে ছেড়ে দিতেই কোমল স্তন ঢেউ খেলে নেচে ওঠে। এইভাবে বেশ কিছুক্ষন প্রেয়সীর বাম স্তন কামনার লেলিহান আগুনে জ্বালিয়ে পুড়িয়ে ছারখার করে ললনার ডান স্তনে মনোনিবেশ করে রিশু। সেই সাথে প্রেয়সীর শিক্ত পিচ্ছিল যোনি অভ্যন্তর ক্ষিপ্র গতিতে আঙ্গুল সঞ্চালন করে মাতাল করে তোলে প্রানপ্রেয়সীকে।
সঙ্গম সুখের চরম শিখরে পৌঁছে যায় ঝিনুক, সারা শরীর টানটান হয়ে বেঁকে যায় ধনুকের মতন। থর থর করে কাঁপতে কাঁপতে রিশুর বাহুবেষ্টনী মাঝে বাঁধা পরে নিস্তেজ হয়ে যায় ঝিনুকের সারা শরীর। সর্বাঙ্গ দিয়ে কাম ঘাম ছুটে চলেছে অবিরত। এমন সুখের পরশ এর আগে কোনদিন পায়নি ঝিনুক। প্রেয়সীর কামাতুরা নধর দেহপল্লব বাহু মাঝে জাপ্টে ধরে নিজের লোমশ ছাতির সাথে মিশিয়ে দেয় রিশু। প্রেয়সীর বুকের কম্পন শরীরের কম্পন যতক্ষণ না স্তিমিত হয় ততক্ষন নিজের ছাতির সাথে প্রেয়সীকে মিশিয়ে নেয়। সর্বাঙ্গ শিক্ত ঘর্মাক্ত কামিনীর ঘামে নিজের দেহ ভিজিয়ে নেয় রিশু। গালে গাল ঠেকিয়ে আদর করে প্রেয়সীর সেই কম্পন অনুভব করে, তবে প্রেয়সীর যোনির ভেতর থেকে আঙ্গুল বের করে না। সব শক্তি দিয়ে ভীষণ ভাবেই চেপে ধরে থাকে কামাতুরা ললনা শিক্ত পিচ্ছিল যোনি।
দীর্ঘ এক “আহহহহহহ…” শীৎকার করে ওর কোলের মধ্যে নিস্তেজ হয়ে যায় রিশুর প্রান ভোমরা হৃদয় সঙ্গিনী ঝিনুক।
বেশ কিছু পরে পদ্ম ফুলের পাপড়ির মতন চোখের পাতা মেলে কাম মদির আঁখি মেলে প্রেমিকের দিকে তাকিয়ে এক পরিতৃপ্তির হাসি দিয়ে বলে, “তুমি না ভীষণ পাগল করতে জানো…” বলেই প্রেমিকের নাকের ডগায় নিজের ঘর্মাক্ত নাকের ডগা ঘষে দেয়। মিহি কন্ঠে প্রেম নিবেদন করে রূপসী অপ্সরা, “আই লাভ ইউ থ্রি মাচ বেবি… তোমায় ছাড়া বাঁচতে পারবো না রুশু…”
ঝিনুকের ঠোঁটে শিক্ত চুম্বন দিয়ে মিহি কামঘন কন্ঠে রিশু বলে, “আই লাভ ইউ বেবি, তোমাকে আমি ভীষণ ভালোবাসি ঝুনু…”
কমলালেবুর মতন রসযুক্ত গোলাপি ঠোঁট জোড়া মেলে আঁখি মাঝে শিক্ত ভালোবাসা আর দুষ্টুমি মাখা চাহনি নিয়ে প্রানের মানুষকে জিজ্ঞেস করে, “এত প্রাক্টিকাল শিখলে কোথায়?”
লজ্জা মাখানো কামুক হাসি দিয়ে রিশু বলে, “তোমার যদি মনের মধ্যে দুষ্টুমির স্বপ্ন থাকতে পারে তাহলে আমার কেন থাকতে পারে না? আজকে তো আমার প্রথম প্রাক্টিকাল এক্সাম, তোমার বুকে নিজেকে হারাতে হবে কিছু করে।”
লজ্জা জড়ানো মিহি মদির কন্ঠে ভালোবাসার মানুষের চোখের তারায় নিজেকে দেখে বলে, “আমারও আজকে ফার্স্ট টাইম বেবি…” বলে প্রেমিকের বুকের মধ্যে মুখ গুঁজে নেয়। ফিসফিস করে মুখ লুকিয়ে বলে, “এবারে তো আঙ্গুল বার কর, নাকি… ইসসস…কি দুষ্টু না তুমি জানু…”
ধিরে ধিরে কামাতুরা প্রেয়সীর শিক্ত পিচ্ছিল যোনির মধ্যে থেকে আঙ্গুল বার করে আনে রিশু। ওর আঙ্গুল তালু ললনার ঘন আঠালো কামরসে ভিজে চ্যাপচ্যাপে হয়ে গেছে। কামার্ত রিশু অশ্লীল ভাবে প্রান প্রেয়সীর মদির আঁখির দিকে তাকিয়ে সেই যোনি রসে রসশিক্ত আঙ্গুল নাকের কাছে নিয়ে গিয়ে বুক ভরে শ্বাস নিয়ে ঝাঁঝালো মদির গন্ধে নিজেকে মাতাল করে তোলে। মুখের মধ্যে আঙ্গুল ঢুকিয়ে চুষে স্বাদ নেয় প্রেয়সীর যোনিরস। উফফফ কি মিষ্টি নোনতা প্রেয়সীর দেহনির্গত রসের স্বাদ, ওর মাথার মধ্যে শত সহস্র পিঁপড়ে কিলবিল করতে শুরু করে দেয়। কামোন্মাদ হয়ে ওঠে ঝিনুকের প্রাণপ্রিয় পুরুষ।
প্রাণপ্রিয় মানুষকে ওই ভাবে নিজের রসসিক্ত আঙ্গুল চুষতে দেখে ভীষণ ভাবেই লজ্জিত হয়ে পরে কামাতুরা ললনা। বাম হাতের কড়ে আঙ্গুল দাঁতে কেটে ভীষণ লজ্জা পেয়েই নাক কুঁচকে বলে, “ছিঃ তুমি কি নোংরা… কেউ ওই ভাবে…”
ঠোঁটে প্রেমমদির হাসি টেনে প্রেয়সীকে বলে, “তোমার সব কিছুই মিষ্টি বেবি।”
একটা বালিশ টেনে প্রানপ্রিয় ললনার মাথার নিচে রেখে প্রেয়সীকে বিছানায় শুইয়ে দেয় রিশু। পরনের শেষ বস্ত্রখন্ড খুলে ফেলতেই তিরিং করে লাফিয়ে ওঠে রিশুর ভিমকায় পুরুষাঙ্গ। এতক্ষন জাঙ্গিয়ার বাঁধনে যেন হাঁসফাঁস করছিল ওর প্রকান্ড লিঙ্গ, ছাড়া পেতেই উঁচিয়ে যায় শায়িত প্রেয়সীর দিকে। ঝিনুক প্রানপ্রিয় দয়িতের প্রকান্ড লিঙ্গের আকার অবয়াব দেখে ভীষণ ভাবেই কামাকাতর হয়ে পরে। লিঙ্গের চারপাশের শিরা উপশিরা ভীষণ ভাবেই ফুলে ফেঁপে দেখা দেয়, প্রকান্ড লিঙ্গের লাল রঙের গোলাকার বড় ডগা দেখে ডান হাতের আঙ্গুল দাঁতের মাঝে চেপে ধরে কামতৃষ্ণা আয়ত্তে আনে। এই প্রকান্ড পুরুষাঙ্গ দিয়ে আজ রাতে ওর প্রাণেশ্বর ওকে ঘায়েল করবে ভাবতেই ওর হৃদ স্পন্দন শত গুন বেড়ে ওঠে। প্রেয়সীর পায়ের দিকে হাঁটু গেড়ে এগিয়ে যায় রিশু। সুন্দরী ললনা দুই হাতে মুখ ঢেকে নেয় লজ্জায়, বুঝতে পারে ওর দেহ থেকে শেষ বস্ত্রখন্ড ওর প্রাণপ্রিয় মানুষ এবারে খুলে ফেলবে। এই প্রথম বার কোন মানুষের সামনে সম্পূর্ণ এইভাবে উলঙ্গ হতে একটু ভীতি একটু লজ্জা আর হৃদয় ভরা প্রেম জেগে ওঠে।
রূপসী ললনার কোমরে হাত দিয়ে প্যান্টির ইলাস্টিকে আঙ্গুল ফাঁসিয়ে নিচের দিকে টেনে নামিয়ে দেয় রিশু। ঝিনুক কোমর উঁচু করে ওর হৃদয়ের অধিকারী রিশুকে ওর দেহের শেষ বস্ত্র খন্ড খুলে দিতে সাহায্য করে। প্রেয়সীর সুগোল ফর্সা মসৃণ দুটো পা জোড়া করে বুকের ওপরে চেপে ধরে রিশু। চোখের সামনে সম্পূর্ণ অনাবৃত ললনাকে দেখে মনে হয় যেন কোন রূপসী সাগরকন্যে ধবধবে সাদা ফেনার বিছানায় শুয়ে ওকে নিজের প্রেমের জোয়ারে ভাসিয়ে নিয়ে যেতে এসেছে। দুই পা উপরের দিকে থাকার ফলে রিশুর প্রকান্ড লিঙ্গ ভীষণ ভাবেই ঝিনুকের সুগোল নিতম্ব মাঝে আটকা পরে যায়। পেছন থেকে যোনি চেরা বরাবর পিষ্ঠ হয়ে যায় রিশুর ভিমকায় তপ্ত লৌহ কঠিন পুরুষাঙ্গ। ফর্সা পায়ের গোড়ালিতে বাঁধা পাতলা নুপুরের রিনিঝিনি ধ্বনি শুনে মিষ্টি হাসে রিশু। বাম হাতের মধ্যে দুই পা বুকের ওপরে জড়িয়ে ধরে পায়ের গুলিতে শিক্ত চুম্বন এঁকে দিয়ে ডান হাত প্রেয়সীর সুগোল পেটের ওপরে নিয়ে যায়। সুগভীর নাভির নিচের দিকে নখের আঁচর কেটে উত্যক্ত করে তোলে প্রেয়সীকে। পাঁচ আঙ্গুল মেলে ধরে নাভির নিচ থেকে জানুসন্ধি পর্যন্ত আলতো আঁচর কেটে দেয়। রিশুর কঠিন তপ্ত আঙ্গুলের আঁচড়ের সাথে সাথে রূপসী ললনার মসৃণ ফর্সা ত্বকে লালচে দাগ পরে যায়।

রিশুর কামাতুরা প্রেয়সী আলতো করে নিজের দুই নিটোল পীনোন্নত স্তন যুগল আদর করে নেয়। আলতো করে নিচের দিক থেকে চেপে ধরে নিজের নিটোল উন্নত স্তনযুগল, কোমল চাঁপার কলি আঙ্গুল দিয়ে নিজের নরম স্তন জোড়া চেপে ধরে। সেই দৃশ্য দেখে কামকাতর রিশু কামোন্মাদ হয়ে ওঠে। ঝিনুকের প্রানপুরুষ ওর পা দুটি জোড়া করে ধরে উপর দিকে তুলে ধরে, প্রেয়সীর নিতম্ব মাঝে রিশুর ভিমকায় লিঙ্গ ছুঁয়ে যায়। রূপসী ললনার পা দুখানি নিজের বুকের ওপরে চেপে ধরে পায়ের গুলিতে তপ্ত শিক্ত ঠোঁট ছুঁইয়ে দেয় রিশু। ওর বজ্রকঠিন লিঙ্গের ডগা একটু খানি ললনার শিক্ত পিচ্ছিল যোনির পাপড়ি ভেদ করে ছুঁয়ে থাকে। রিশু ঝিনুকের তলপেটের ওপরে বাম হাতের তালু মেলে আঁচর কেটে দিতেই ঝিনুকের শরীরের অঙ্গে প্রত্যঙ্গে ঢেউ খেলে যায়। রিশু ওর রূপসী প্রেমিকার পায়ের বুড়ো আঙুল মুখের মধ্যে পুরে চুষতে শুরু করে দেয়।
ঝিনুক শীৎকার করে বলে, “ওহহহহহ বেবি তুমি যে আমাকে পাগল করে করে দিচ্ছ… ।”
প্রেয়সীর মসৃণ ডান পায়ের গুলিতে শিক্ত চুম্বন এঁকে বুকের ওপরে চেপে ধরে মিহি কামার্ত কন্ঠে বলে, “ঝুনু বেবি, তুমি ভীষণ মিষ্টি গো। তোমাকে নিয়ে সারা রাত সারা দিন এইভাবেই পড়ে থাকতে চাই।”
রতি সুখের তীব্র আদরে কাতর হয়ে ওঠে কামার্ত ললনা, “রুশু জানু প্লিস এইভাবে আর আমাকে আর জ্বালিও নাআহহ…”
রিশু প্রেয়সীর পা দুটো ছেড়ে দিতেই কাটা কলা গাছের মতন রিশুর শরীরের দুপাশে এলিয়ে পরে গেল। দুই জঙ্ঘার ফর্সা মসৃণ ত্বকের ওপরে হাঁটু থেকে জানুসন্ধি পর্যন্ত আলতো নখের আঁচর কেটে দিতেই জল বিহীন মাছের মতন লাফিয়ে ওঠে কামার্ত রূপসী সুন্দরী। কামযাতনায় ঝিনুকের শরীর বারেবারে সাপের মতন এপাশ ওপাশ এঁকেবেঁকে যায়। প্রেয়সীকে আরো বেশি উত্যক্ত করে তোলার জন্য রিশু ঝুঁকে পরে ললনার পেটের ওপরে। দুই অজগরের মতন হাত বাড়িয়ে দেয় সুউন্নত নিটোল স্তন যুগলের দিকে। নিচের থেকে চেপে পিষে ধরে দুই স্তন, ঝিনুকের মাথা বালিশে পেছনের দিকে হেলে যায়, বুক উঠিয়ে রিশুকে নিজের স্তন সমর্পণ করে দেয়। নিটোল স্তনজোড়া নিদারুণ ভাবেই মর্দন করতে শুরু করে রিশু, সেই সাথে দুই আঙ্গুলের মাঝে স্তনাগ্র ধরে ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে মোচড় দিতেই লাফিয়ে ওঠে কামার্ত রমণী। এই নিপীড়ন ভীষণ ভাবে উপভোগ করে কামমত্ত ঝিনুকের শুন্য তৃষ্ণার্ত হৃদয়। এই প্রথমবার কোন প্রেমিক পুরুষ ওর দেহ এইভাবে ছুঁয়েছে, প্রেমিক পুরুষের তীব্র ভালোবাসায় ওর দেহটাই ভরে যাবে। সুখের আগুনে জ্বলে পুড়ে যাবে ওর শরীর। শরীর বেঁকে যায় ঝিনুকর, মাথা পেছন দিকে বেঁকে যায়, বুক উঁচিয়ে ওঠে, স্তন জোড়া রিশুর হাতের বিশাল থাবার মাঝে পরে গলতে শুরু করে দেয়।
স্তনাগ্র মোচড় দিতেই কামাতুরা রূপসী ললনা কামযন্ত্রণায় ছটফট করতে করতে শীৎকার করে ওঠে, “উফফফ মাই গড হানি… একি হচ্ছে … হ্যাঁ সোনা পেষ আরো টেপো সোনা… ইসসস… আহহহ…”
রিশু একটা বালিশ টেনে এনে ঝিনুকের কোমরের নিচে রেখে দেয় যার ফলে প্রেয়সীর জানুসন্ধি ভালো কর উঁচিয়ে যায় ওর দিকে। ঝিনুকের প্রেমিক পুরুষ ঝুঁকে পরে ওর মেলে ধরা জানুসন্ধির মাঝে। শিক্ত তপ্ত জিব দিয়ে হাঁটু থেকে জানুসন্ধি পর্যন্ত লালার দাগ ফেলে চেটে দেয় আর ছোট ছোট চুম্বনে ভরিয়ে দেয়। চোখের সামনে প্রেয়সীর কালো কুঞ্চিত কেশরাশি ঢাকা যোনিদেশ দেখে কামোন্মাদ হয়ে ওঠে রিশু। সোঁদা ঝাঁঝালো সুঘ্রানে ওর মাথা বুক সব ঝিমঝিম করতে শুরু করে দেয়। প্রেয়সীর কোমল নারীত্বের দ্বার জল থেকে তুলে আনা মাছের মতন হাঁ করে আছে, পাপড়ি দুটি ঈষৎ বেড়িয়ে গেছে যোনিচেরা মধ্যে থেকে, যোনির উপরিঅংশে ফুটে বেড়িয়ে আছে গোলাপি ভগাঙ্কুর। গোলাপি সেই মধুর গহ্বর থেকে ঝাঁজালো একটা মধুর গন্ধ নাকের ভেতরে ঢুকে রিশুর শরীরের আনাচেকানাচে দৌড়ে বেড়ায়। রিশু ওর যোনির পাশে জিব নিয়ে গিয়ে আলতো করে চেটে দিতেই, কামার্ত প্রেয়সী কোমর উঁচিয়ে রিশুর মুখের ওপরে যোনি চেপে ধরতে চেষ্টা করে।
কামোন্মাদ ঝিনুক রমন সুখের আগুনে ঝলসে মৃদু চিৎকার করে ওঠে, “উফফফফ বেবি প্লিজ আমাকে এইভাবে আর জ্বালিও না… কিছু একটা কর… আর থাকতে পারছি না বেবি…”
কামকাতর রূপসী ললনা দু হাতে কামোন্মাদ রিশুর মাথার চুল আঁকড়ে ধরে কোমর উঁচিয়ে যোনির ওপরে চেপে ধরে ওর প্রানপুরুষের মুখ। রিশুর শিক্ত উষ্ণ অধর চেপে যায় ঝিনুকের কোমল শিক্ত যোনি গহ্বরে। শিক্ত উষ্ণ জিবের পরশ পেতেই কাটা মাছের মতন ছটফটিয়ে ওঠে লাস্যময়ী ললনা। প্রেয়সীর যোনিদেশ বহু আগেই কাম রসে রসশিক্ত ছিল, জিবের ডগা ছুঁয়াতেই ভীষণ ভাবে ধনুকের মতন বেঁকে যায় কামার্ত ললনার শরীর। কামার্ত মিহি শীৎকারে ঘর ভরে ওঠে। ঝিনুক দশ আঙুল দিয়ে প্রানপুরুষের মাথার চুলের মধ্যে ডুবিয়ে রিশুর মাথা চেপে ধরে যোনির ওপরে। কামোন্মাদ রিশু জিবের ডগা দিয়ে যোনিচেরা বরাবর নিচের থেকে উপরের দিকে চাটতে শুরু করে দেয়। ঠোঁটে লাগে ঝাঁঝালো নোনতা যোনিরসের স্বাদ, এই প্রথম রিশুর ঠোঁটে কোন পূর্ণ বয়স্ক কামার্ত নারীর যোনির স্বাদ গ্রহন করছে। সেই প্রথম ঝিনুকের শরীর এইভাবে কেউ আদর করে দিচ্ছে। যোনির উপরিভাগে স্থিত ভগাঙ্কুর ঠোঁটের মধ্যে নিয়ে আলতো করে চুষে ধরতেই রিশুর মাথা চেপে ধরে নিজের যোনির সাথে।
রূপবতী কামাতুরা ললনা ভীষণ ভাবেই শীৎকার করে ওঠে, “ইসসস, উম্মম্ম… আহহহহহ… আরো আরো আরো… বেবি … জানু কর কর… উম্মম না…আহহহহ…উম্মম্মম্মম্ম… কি যে পাগল করছ সোনা… হ্যাঁ হ্যাঁ…” করে কামকাতর প্রলাপ বকতে শুরু করে দেয়।
রূপবতী কামাতুরা কামিনী রিশুর কাঁধের ওপরে নিজের পেলব পুরুষ্টু ডান জঙ্ঘা চড়িয়ে দেয়। রিশু ওর প্রেয়সীর হাঁটুর নিচ থেকে বাঁ হাত গলিয়ে দিয়ে উরুসন্ধির কাছে নিয়ে আসে। আঙ্গুল দিয়ে ঘন কালো কেশ রাশি আঁচর কেটে টেনে টেনে ধরে। তৃষ্ণার্ত বেড়াল যেমন দুধ চেটে খায় তেমনি ভাবে শিক্ত উষ্ণ জিবের ডগা দিয়ে কামোন্মাদ রিশু কামাতুরা ঝিনুকের যোনির চেরা বরাবর চাটতে শুরু করে দেয়। বাঁ হাতের আঙ্গুলে ললনার যোনি ফাঁক করে ভগাঙ্কুরের ওপরে নিষ্ঠুর আক্রমন করে। কামার্ত রূপসী এক হাতে রিশুর গালে মাথায় আঁচর কাটতে থাকে, অন্য হাতে নিজের পিনোন্নত নিটোল স্তনের পিষে ধরে। কামোন্মাদ রিশু তার সম্পূর্ণ চিত্ত মন প্রান ঢেলে দেয় জিবের ডগায়, প্রেয়সীর শিক্ত রসালো যোনিদেশের চোষণ কর্ম চরম পর্যায় পৌঁছে যায়। ঝিনুক বারেবারে কোমর উঁচু করে রিশুর ঠোঁটের ওপরে যোনি নাচিয়ে দেয়। কিছুক্ষণের মধ্যেই তলপেট, যোনিদেশ, পুরুষ্টু উরু দুটিতে ভীষণ কাঁপুনি শুরু হয়ে যায়। চরম কামোত্তেজনায় থরথর করে কেঁপে ওঠে মদালসা কামাকাতর ললনার নধর দেহ পল্লব। কোমর উঁচিয়ে আর রিশুর চুল আঁকড়ে মাথা চেপে ধরে ভীষণ কাম বন্যায় ভেসে যাওয়া যোনিদেশে। বেঁকে যায় ঝিনুকের কমনীয় দেহপল্লব, কামরসে ভিজে যায় কামোন্মাদ ঝিনুকের প্রানপুরুষের ঠোঁট। তৃষ্ণার্ত কপোত প্রেয়সীর যোনি গহ্বরের ওপরে ঠোঁট চেপে ধরে প্রান ভরে প্রেয়সীর যোনির মধু নেয়। ঝিনুকের চরম সময়ে দুই হাত বাড়িয়ে দুই পীনোন্নত নিটোল স্তন যুগল পিষে ধরে শরীরের শব শক্তি দিয়ে বিছানার সাথে চেপে ধরে রিশু। ঝিনুক দুই জঙ্ঘা দিয়ে প্রানপন শক্তি দিয়ে পায়ের মাঝে চেপে ধরে প্রানপ্রিয় প্রেমিকের মাথা। কামোন্মাদ রিশুর প্রকান্ড লিঙ্গ নিজের ভারে বিছানার সাথে পিষে ঘর্ষণের ফলে আগুন জ্বালিয়ে দেয়। কামক্রীড়ার ফলে ভিমকায় লিঙ্গের অগ্রভাগ হতে একটু কামরস গড়িয়ে পরে। কামাতুরা ললনার যোনির রস যোনি গহ্বর উপচে রিশুর মুখের লালার সাথে মিশে কষ বেয়ে গড়িয়ে পরে, দুই নিটোল বর্তুলসম নিতম্বের খাঁজের মাঝ হতে সেই কামরস পায়ু পর্যন্ত পৌঁছে যায়। কামসুখের নির্যাস ঝরিয়ে এলিয়ে পরে মদালসা সুন্দরী। রিশুর মাথা ঘাড় থেকে ঝিনুকের ঊরুর বাঁধন শিথিল হয়ে আসে।
রিশু প্রেয়সীর যোনি থেকে মুখ উঠিয়ে শিক্ত যোনিকেশের ওপরে ছোট একটা চুমু খেয়ে প্রেয়সীর মুখের দিকে তাকিয়ে মুচকি হাসি দিয়ে বলে, “কি হল?”
কামকাতর প্রান পুরুষের ভারী গলার স্বর কানে যেতেই ভীষণ লজ্জা পেয়ে গালের ওপরে আলতো আদরের চাঁটি মেরে বলে, “তুমি না খুব শয়তান… ”
ধিরে ধিরে নিজের বলশালী পেশিবহুল ভারী শরীর টেনে আনে শায়িত ললনার শিক্ত কামোত্তেজিত নধর লোভনীয় দেহপল্লবের ওপরে। লোমশ ছাতির সাথে কোমল মসৃণ ত্বকের ঘর্ষণে কামাগ্নি স্ফুলিঙ্গ ঝরতে শুরু করে দেয়। দুই পেলব বাহু দিয়ে প্রেমিককে আলিঙ্গনপাশে বদ্ধ করে নেয় রূপসী তন্বী তরুণী। লোমশ পেশি বহুল ছাতির নিচে কোমল নিটোল স্তন জোড়া পিষে যায়, কোমল মোলায়ম ঘর্মাক্ত তলপেটের সাথে রিশুর পেশি বহুল তলপেট, দুই কামোন্মাদ নর নারীর উরুসন্ধি একে অপরের সাথে যুক্ত হয়ে যায়। রিশুর লিঙ্গের চারপাশের ঘন কালো কেশ রাশি ঝিনুকের উরুসন্ধির ঘন কুঞ্চিত কেশরাশির সাথে জড়িয়ে যায়। ঝিনুক নিজের পা দিয়ে রিশুর পায়ের ওপরে উঠিয়ে জড়িয়ে ধরে থাকে। দুই কামতৃষ্ণার্ত নাগ নাগিনী মতন পরস্পরকে জড়িয়ে ধরে শুয়ে থাকে।
রিশুর মুখ আঁজলা করে কোমল চাঁপার কলি আঙ্গুল বুলিয়ে আদর করে চোখের তারায় উন্মাদনার ঝিলিক ঝরিয়ে মিহি আদুরে কন্ঠে বলে, “উফফফ হানি, তুমি ভীষণ পাগল…”
প্রেয়সীর শিক্ত গোলাপি নাকের ডগায় নাকের ডগা ঘষে, লৌহ কঠিন উত্তপ্ত প্রকান্ড পুরুষাঙ্গ একটু খানি কোমল যোনির ওপরে ঠেলে দিয়ে কামুক হাসি দিয়ে উত্তর দেয় রিশু, “তুমি বেবি মারাত্মক সুইট, মারাত্মক জুসি…”
ঠাস করে আলতো চাঁটি মেরে বলে, “ইসস ওই ভাবে কেউ চাটে নাকি?”
কোমল গোলাপি অধরে ছোট চুমু খেয়ে রিশু প্রেয়সীর চোখের মণির দিকে দৃষ্টি নিবদ্ধ করে বলে, “কেমন করে করে একটু শিখিয়ে দাও তাহলে।”
জিব বের করে প্রেমিকের জিবের ডগার সাথে ডগা মিশিয়ে আলতো নাড়িয়ে বলে, “ধ্যাত শয়তান… আমি পারিনা… তুমি তো প্রাক্টিকাল যা করলে তাতে আমার শরীরে কিন্তু আর শক্তি নেই।”
কোমর নাড়িয়ে ভিমকায় লিঙ্গ কোমল যোনির দোরগোড়ায় আলতো চেপে ধরে বলে, “ফাইনাল এক্সাম বাকি যে… ঝুনু…”
কর্ণকুহরে “ঝুনু” ডাক প্রবেশ করতেই আবেগে প্রান পুরুষের দেহ জড়িয়ে নিজের বুকের সাথে মিশিয়ে বলে, “শেষ করে দিও আজকে… আমি তো শুধু তোমার কোলে থাকতে এসেছি…”
কামোন্মাদ ষন্ড রিশু নিজেদের মিলিত জঙ্ঘামাঝে মাঝে ডান হাত ঢুকিয়ে নিজের প্রকান্ড পুরুষাঙ্গ কামাতুরা প্রেয়সীর শিক্ত কোমল যোনির চেরা বরাবর লিঙ্গের লাল মাথা ঘষে দেয়। কামাতুরা ললনা দুই পুরুষ্টু ঊরু অসভ্যের মতন প্রেমিকের প্রকান্ড পুরুষাঙ্গ ধারন করার জন্য মেলে ধরে।
কামাতুরা রূপসী ললনা কাম যাতনায় ছটফট করে বলে, “উম্মম্ম হানি তোমার ওইটা কি বিশাল, কি গরম গো… উফফফ বেবি একটু আস্তে দিও…।”
গোলাপি মিষ্টি অধরে আলতো চুম্বন খেয়ে রিশু প্রেয়সীকে বলে, “খুব আদর করে করব বেবি… ”
ডান বাহু দিয়ে রিশুর গলা জড়িয়ে প্রেমিকের পুরুষাঙ্গ নিজের দেহের গহীন কোনে ধারন করতে প্রস্তুতি নেয় কামাতুরা ললনা। কামার্ত শীৎকার করতে করতে নিজেই হাত বাড়িয়ে প্রেমিকের প্রকান্ড পুরুষাঙ্গ ছুঁয়ে দেখার চেষ্টা করে। চাঁপারকলি কোমল সাপের মতন আঙ্গুল পেঁচিয়ে যায় রিশুর প্রকান্ড উত্তপ্ত লিঙ্গের চারপাশে। মুঠোর মধ্যে ধরতে চেষ্টা করে প্রেমিকের দৈত্যাকার লিঙ্গ, হাতের তালুতে অনুধাবন করে তপ্ত লৌহ কঠিন শলাকা আর শলাকার চারপাশে ফুলে ওঠা শিরা উপশিরা।
লিঙ্গের গোলাকার লাল উত্তপ্ত ডগা শিক্ত যোনি পাপড়ি ছুঁয়ে যেতেই কামবেদনায় ককিয়ে ওঠে কামিনী, “উফফফফফ সোনা কত বড় গোওওওও… পারছি না সোনা এবারে দাও আমাকে…” চোখ বন্ধ করে মদির শীৎকার করে কামাতুরা রমণী, “উফফফফ… কি গরম… আমি পুড়ে ছারখার হয়ে যাচ্ছি হানি…”
রিশুর লিঙ্গের ডগা যোনি পাপড়ি ভেদ করে একটু ঢুকে যায় ঝিনুকের অন্দরমহলে। সুন্দরীর কপালে ঘামের বিন্দু দেখা দেয়। নিচের ঠোঁট দাঁতে চেপে সেই কামযন্ত্রণা আয়ত্তে আনার চেষ্টা করে। রিশু একটু একটু করে কোমর নামিয়ে নেয়, সেই সাথে ভিমকায় লিঙ্গ ঢুকতে শুরু করে প্রেয়সীর কোমল পিচ্ছিল যোনির অভ্যন্তরে। ঝিনুকের চোখ মুখ কুঁচকে যায়, নিচের ঠোঁট কামড়ে ধরে, একটু রমনব্যাথা আর ভীষণ কামসুখে ওর লালচে কোমল গাল ফুলে যায়।
রিশু আলতো এক চাপ দিতেই ঝিনুক ওর পিঠ খামচে ধরে, ককিয়ে ওঠে রূপসী রমণী, “উফফফফ, লাগছে, লাগছে…”
থেমে যায় রিশু, এখন ওর লিঙ্গের অনেকটাই প্রেয়সীর যোনির ভেতরে প্রবেশ করানো বাকি। দুই হাতে প্রেমিকের গলা জড়িয়ে বড় বড় শ্বাস নিয়ে যোনির কাম বেদনা আয়ত্তে আনার চেষ্টা করে ঝিনুক। বাম হাতে প্রেয়সীর মরালী গর্দান আঁকরে ধরে অন্য হাতে কোমর জড়িয়ে পুনরায় কোমর নামিয়ে দেয়, ধিরে ধিরে প্রকান্ড পুরুষাঙ্গ পিচ্ছিল উত্তপ্ত যোনির দেয়াল সরিয়ে সরিয়ে প্রবেশ করতে শুরু করে দেয়। আঁটো কোমল যোনির ভেতরের দেয়াল ভীষণ ভাবেই কামড়ে ধরে ভিমকায় পুরুষাঙ্গ। ঝিনুকের মনে হল কেউ যেন একটা বিশাল বড় গরম শাবল দিয়ে ওর দেহ গেঁথে দিয়েছে। কামসুখের যন্ত্রণায় ওর শরীর শক্ত হয়ে যায়। কামাতুরা সুন্দরী প্রেয়সী রিশুর নিচের ঠোঁট কামড়ে ধরে পিঠ খামচে ধরে থাকে। চেহারায় ফুটে ওঠে কামযন্ত্রণার আভাস। লিঙ্গের অধিকাংশ পিচ্ছিল তপ্ত যোনি অভ্যন্তরে প্রবেশ করিয়ে থেমে যায় ঝিনুকের প্রেমিক। লিঙ্গের চারপাশে উষ্ণ তরল স্নান করিয়ে দেয় ভিজিয়ে দেয় ভিমকায় পুরুষাঙ্গ।
প্রান প্রেয়সী বেশ কিছুক্ষন পরে পদ্মকুড়ির মতন চোখের পাতা মেলে দুষ্টু হেসে বলে, “উফফফ মেরে ফেলবে নাকি?…”
নাকের ওপরে নাক ঘষে রিশু বলে, “তোমার ওইটা কি মিষ্টি আর কত্ত গরম… এত্ত টাইট যেন আমারটা এর মধ্যেই ছিড়ে নিচ্ছে মনে হচ্ছে।”
ঝিনুক দুইপা দিয়ে রিশুর কোমর জড়িয়ে ধরে বলে, “বেবি… একটু আস্তে করবে…”
সুমিষ্ট অধর চুম্বন করে রিশু আদর করে বলে, “ভীষণ আদর করেই করব সোনা…”
লজ্জা পেয়ে ঝিনুক ওকে বলে, “এমন জায়গায় ঢুকেছে, জানতাম না যে আমার শরীরে এমন কোন জায়গা আছে…”
অতি যত্নে ঝিনুকের প্রানপুরুষ কোমর নাচিয়ে বজ্র কঠিন উত্তপ্ত পুরুষাঙ্গ প্রেয়সীর যোনির অভ্যন্তরে ঠেলে দেয়। বেশ কিছুক্ষন যোনি অভ্যন্তরে লিঙ্গ রেখে কুনুই দিয়ে বিছানার ওপরে ভর করে কোমর পেছনে টেনে নেয়, সেই সাথে লৌহ কঠিন ভিমকায় লিঙ্গ বেড়িয়ে আসে শিক্ত আঁটো যোনির ভেতর থেকে। লিঙ্গ বেড়িয়ে আসতেই কামার্ত ঝিনুক ককিয়ে ওঠে, শিক্ত যোনি গহ্বর এতক্ষণ যেন ভরে ছিল, হটাত খালি হয়ে যেতে শূন্যতা আসে যোনির ভেতরে। রিশুর লিঙ্গ যোনির শিক্ত দেয়াল কামড়ে ধরে, বের হতে দিতে চায় না। রিশুর চোখ ঝিনুকের মুখের ওপরে, ঝিনুকের চেহারায় অনুরাগের ছটা বিচ্ছুরিত হয়। কামোন্মাদ দস্যি রিশু অর্ধেক লিঙ্গ বের করে আবার ঢুকিয়ে দেয় প্রেয়সীর শিক্ত যোনির ভেতরে। ধিরে ধিরে তালে তালে কোমর আগুপিছু করে রমনসুখে মত্ত হয়ে মন্থনকেলি শুরু করে ঝিনুকর শিক্ত নরম তুলতুলে যোনির অভ্যন্তরে। সোহাগের তীব্র সহবাসে হারিয়ে যায় দুই কামার্ত প্রেমঘন কপোত কপোতী। প্রেয়সীর হাতের ওপরে হাত রাখে কামোন্মাদ রিশু, দুই নর নারীর হাতের আঙুল পরস্পরের সাথে পেঁচিয়ে যায়।
প্রতি মন্থনের সাথে করে রূপসী কামাতুরা ললনা গাল ফুলিয়ে চোখ বন্ধ করে উফফফ করে ওঠে। দু’জনের শরীর ঘেমে ওঠে প্রথম সঙ্গমে, ত্বকের সাথে ত্বক লেপটে যায়। রিশু ঘাড় বেঁকিয়ে ঝিনুকের ঘাড়ের ওপরে মুখ গুঁজে দেয় আর মন্থনের গতি বাড়িয়ে দেয়। ঘর ভরে ওঠে ঝিনুকের মিহি রমন সুখের শীৎকারে আর রিশুর রতি সুখের গোঙ্গানিতে। ধিমে লয়ে যোনি মন্থন করতে করতে গতি বৃদ্ধি করে রিশু। থেকে থেকে ঝিনুকের শরীর ফুলে ওঠে মাথা গুলিয়ে যায়, তলপেটে একটু পরে একটা অজানা ঝঞ্ঝার উদয় হয়। রমনের প্রথম দিকে যে কামযন্ত্রণা ঝিনুকের যোনির মধ্যে ছিল সেটা তখন সুখের অনুভুতিতে বদলে যায়। ঝিনুক হাঁটু ভাঁজ করে দুই পা দিয়ে রিশুর কোমর জড়িয়ে ধরে। কামোত্তেজনায় রিশুর সর্বাঙ্গ কাঁপতে শুরু করে দেয়, প্রেয়সীর স্ফিত যোনির মধ্যে অতি অনায়াসে লিঙ্গ সঞ্চালনে মত্ত হয় কামুকদস্যু রিশু। তীব্র রমনলীলায় দুই ঘর্মাক্ত কামার্ত প্রেমিক প্রেমিকার শরীর ভীষণ ভাবেই পরস্পরকে পেঁচিয়ে জাপটে কোমর নাচিয়ে পরিপূরক হওয়ার চেষ্টা করে। রিশুর বিশাল অণ্ডকোষ থপথপ করে দস্যির মতন ঝিনুকের নিটোল ভারী নিতম্বের মাঝে ধাক্কা মারতে শুরু করে দেয়।
ঝিনুক দুই হাতে রিশুর মাথার চুল মুঠি করে ধরে বলে, “হানি… আমি আর থাকতে পারছিনা… গো… উফফ কি যে হচ্ছে আমার মধ্যে… ইসসস পাগল হয়ে যাচ্ছি সোনা…”
চাপা গলায় হিস হিস করে ওঠে রিশু, “ওফফ ঝুনু সোনা কি ভীষণ গরম বেবি তুমি… ওফফ কত জোরে আমার ওইটা কামড়ে ধরছে…” যত বেশি করে রূপসী কামার্ত সুন্দরীর দেহসুধা আকণ্ঠ পান করা যায় ততভাবে চেষ্টা করতে উদ্দিপ্ত হয়ে ওঠে ঝিনুকের প্রানপ্রিয় মনের মানুষ।
ধির তালে কামাতুরা উর্বশীর পিচ্ছিল আঁটো যোনির মধ্যে লিঙ্গ সঞ্চালন শুরু করে দেয় রিশু। “উফফফফ হানি… ঝুনু ঝুনু মাই হানি বেবি…” চাপা গোঙ্গানি ঠিকরে বেড়িয়ে আসে রিশুর মুখ থেকে। লিঙ্গ বের হওয়ার মুহূর্তে শূন্যতা ভরে তুলতে হাঁ করে শ্বাস নেয় কামকাতর ঝিনুক, “উসসসসস” যেই রিশু আবার ঝিনুকের শিক্ত পিচ্ছিল যোনির মধ্যে লিঙ্গ ঢুকিয়ে দেয়, সেই মুহূর্তে শ্বাস ওর বুক ঠেলে বেড়িয়ে আসে, “আহহহহ… উফফফফ” মাথা ঘুরতে শুরু করে দেয় রূপসী ললনার, কি ভীষণ সুখ ওকে আজকে পেয়ে বসেছে। আর সইতে পারছে প্রেমিকের কামঘন তীব্র রমন ক্রীড়া। রিশুর দেহ ঘামিয়ে ওঠে ভীষণ রমন ক্রীড়ার ফলে, প্রতি লিঙ্গ সঞ্চলনে রিশু ঘোঁত ঘোঁত করে ওঠে প্রেয়সীর সুমিষ্ট নাম ধরে, “উফফফ সোনা আমার ঝুনু সোনা … আই লাভ ইউ ঝুনু…”
প্রকান্ড বলশালী লিঙ্গের সঞ্চালন ভীষণ ভাবে উপভোগ করতে করতে সিস কার দিয়ে ওঠে কামার্ত ললনা, “ইসসসসস বেবি উফফফফ কি ভীষণ ভালো লাগছে নাআহহহহ… মেরে ফেলো সোনা আমাকে, তোমার বেবিকে মেরে ফেলো আমার দেহটাকে ফাটিয়ে যেমন ইচ্ছে তেমন ভাবে কর।”
কামার্ত কণ্ঠের আকুল আহ্বান শুনে ভীষণ কামোত্তেজিত হয়ে লিঙ্গ সঞ্চালনের গতি বাড়িয়ে দেয় রিশুর। বলশালী এক পুরুষের সাথে নধর কোমলাঙ্গ নারীর দেহ মিলনের থপ থপ আওয়াজে ঘর ভরে ওঠে। রিশুর বলশালী দেহের ধাক্কার তালেতালে ঝিনুকের নধর কামুকী দেহবল্লরি ভীষণ ভাব নড়তে শুরু করে দেয়।
উফফফ কি ভাবে অবাধে রূপসী সুন্দরীর যোনির ভেতরে যাতায়াত করছে প্রান পুরুষের প্রকান্ড ভীষণ উত্তপ্ত পুরুষাঙ্গ। বারেবারে ওর যোনির দেয়াল ছিঁড়ে ওর জরায়ুর মুখে গিয়ে ধাক্কা মারছে পুরুষাঙ্গের বড় গোলাকার ডগা। পিষে ধরে নিজের ঊরুসন্ধি রিশুর ঊরুসন্ধির সাথে। রূপসী কামিনীর কুঞ্চিত ঘন কালো যোনি কেশের সাথে প্রান পুরুষের জংলি যৌন কেশ মিশে যায়। যতবার রিশুর ঝিনুকের দেহের মধ্যে প্রবেশ করে ততবার ওর দেহ চিনচিন করে ওঠে। হাঁটু বেঁকিয়ে পা দুটো উপরের দিকে উঠিয়ে দেয় ঝিনুক। ভীষণ অসভ্যের মতন ভাবে প্রান পুরুষের কাম যন্ত্রণা উপভোগ করার জন্য রিশুর দামাল ঊরুসন্ধির নিচে নিজের ঊরুসন্ধি মেলে ধরে।

লিঙ্গ চলাচলের তালেতালে মিহি শীৎকারে ঘর ভরিয়ে তোলে ঝিনুক, “ইসস উফফ ইসস উফফফ” অবাধে নির্দ্বিধায় ওর পিচ্ছিল কোমল যোনিপথের মধ্যে রিশুর পুরুষাঙ্গ যাতায়াত করতে শুরু করে দিয়েছে।
রিশু রূপসী প্রেয়সীর দেহের ওপরে ঝুঁকে পড়ে, ঝিনুকের বগলের তলা দিয়ে হাত গলিয়ে মাথার নিচে হাত নিয়ে যায়। চুলের গোছা বাম হাতের মুঠোর মধ্যে শক্ত করে ধরে মাথা উঁচু করে সুমিষ্ট অধরের ওপরে ঠোঁট বসিয়ে দেয়।
ঝিনুকের প্রানপুরুষ ওর নরম টোপা লালচে গালে চুমু খেয়ে বলে, “আই লাভ ইউ হানি… উফফফ বেবি তুমি ভীষণ মিষ্টি… তোমার শরীর ভীষণ সেক্সি…”
দুই পেলব বাহু দিয়ে প্রানপনে জাপটে ধরে সাধের প্রেমিককে। প্রেমাবেগে আপ্লুত কণ্ঠে উত্তর দেয় ঝিনুক, “আআ মি তোমাকে ভীষণ ভালোবাসি গো বেবি… আই লাভ ইউ… রুশু”
এক হাতের মুঠোয় প্রান পুরুষের চুল খামচে ধরে অধর দংশনটাকে গভীর করে তোলে। অন্য হাতের নরম আঙ্গুলের শক্ত নখ রিশুর বলিষ্ঠ পিঠের ওপরে নেচে বেড়ায়। আঁচর কেটে নখ গেঁথে দেয় কামসুখের অতিশয্যায়। ইসস কি ভীষণ ভাবে ওর প্রেমিক ওর সাথে আদিম ভঙ্গিমায় রমনে মেতে উঠেছে। অতি যত্ন নিয়ে রূপসী ললনার শিক্ত পিচ্ছিল যোনির মধ্যে থেকে টেনে বের করে নিয়ে আসে নিজেকে তারপরে আবার ঢুকিয়ে দেয় প্রবল এক ধাক্কায়। প্রত্যেক চাপের সাথে সাথে ঝিনুকের নধর দেহ জুড়ে উত্তাল ঢেউ খেলে যায়, ঢেউ খেলে ওর বুকের নিচে চেপে থাকা কোমল স্তনের ওপরে। রিশুর কপাল ঘামে ভরে যায়। থপ থপ শব্দে মুখরিত হয়ে ওঠে ঘর। চোখ বুজে হাঁ করে রিশুর দিকে মুখ উঁচিয়ে থাকে ঝিনুক। ইসস প্রেয়সীর উষ্ণ শ্বাসে ওর মুখ ভেসে যাচ্ছে। ওর কপাল থেকে ঘামের ফোঁটা টপটপ করে নাক বেয়ে গড়িয়ে প্রেয়সীর খোলা কোমল গোলাপি ঠোঁটের ওপরে ছলকে পড়ে।
ভীষণ কামুকদস্যি রিশু গোঙ্গিয়ে ওঠে, “বেবি দেখো আমারটা কেমন ভাবে তোমার ভেতরে ঢুকছে বের হচ্ছে, ইসস সোনা গো, বড় সুখ দিচ্ছ, ইসসস মরে যাবো ঝুনু তোমার দেহের এই সুখে মরে যাবো।”
ঝিনুক জিব দিয়ে প্রান পুরুষের ঘাম চেটে নেয়। রিশুর কামঘামের নোনতা স্বাদে আরও বেশি পাগল করে তোলে ঝিনুককে। মিহি কামার্ত কণ্ঠে ডাক ছাড়ে, “হ্যাঁ আমার বেবি এইবারে আমাকে শেষ দাও হানি… ইসসসসস আমি আর থাকতে পারছিনা গো সোনা…”
রিশুর অণ্ডকোষের ভেতরে জ্বলন্ত লাভা টগবগ করে ফুটতে শুরু করে দেয়। কামোন্মাদ হয়ে ওঠে রিশু। ওর যে আজকে স্বপ্ন পুরনের দিন। চোয়াল শক্ত করে মন্থনের গতি বাড়িয়ে দেয়। মাথা নিচু করে নিজেদের ঊরুসন্ধির দিকে তাকিয়ে একবার দেহ মিলনের দৃশ্যপট দেখে। ইসস ওর অত বড় কালো মোটা প্রকান্ড পুরুষাঙ্গটা অকথ্য ভাবে প্রেয়সীর নধর কমনীয় দেহবল্লরী চিড়ে কোমল নরম গোলাপি যোনির মধ্যে ঢুকে যাচ্ছে। ওর লিঙ্গের গোড়াটা যখন প্রেয়সীর অন্দর মহলে সেঁধিয়ে যায় তখন রূপসী ললনার নাক মুখ কুঁচকে আসছে। ওর মোটা লিঙ্গের শিরা উপশিরা ভীষণ কামুক ভাবে ঝিনুকের যোনির দেয়ালে ঘর্ষণ খাচ্ছে। দেহ মিলনের থপথপ আর পিচ্ছিল শব্দে ঘর ভরে। রিশু ঝিনুককে দুইহাতে ভীষণ ভাবে জড়িয়ে ধরে বিছানার সাথে মিশিয়ে দিল।
ঝিনুক হাত ভাঁজ করে দুই পা দিয়ে রিশুর কোমর পেঁচিয়ে দিল। প্রান পুরুষের শক্ত পাছার পেছনে গোড়ালি দিয়ে চাপ সৃষ্টি করে চলে প্রতি লিঙ্গ সঞ্চাল্পনের তালে। ওর প্রেমিক যখনি পুরুষাঙ্গ টেনে বের করে নিয়ে আসে ওর যোনির ভেতর থেকে তখনি ঊরুসন্ধি উঁচিয়ে সেই লিঙ্গ কামড়ে ধরে নিজের মধ্যে নিতে সচেষ্ট হয়ে ওঠে কামার্ত রমণী। কামোন্মাদ ষাঁড় রিশু চরম উত্তেজনায় কাঁপতে শুরু করে দেয়। ঝিনুক চোখ বুজে শুধু মাত্র “আআহহহ ইসসস…” করা ছাড়া আর কোন শব্দ বের করতে পারে না। ওর পিচ্ছিল যোনি গুহা প্রেমিকের প্রকান্ড পুরুষাঙ্গের ভীষণ দপদপানি অনুভব করে বুঝতে পারে যে প্রান পুরুষের চরম উত্তেজনা আসন্ন। ঘনিয়ে এসেছে ওদের কাল মুহূর্ত। প্রেমিকের তপ্ত বীর্যের স্বাদের কথা ভাবতেই শিরশির করে ওঠে ওর ঘর্মাক্ত নধর দেহপল্লব। ওর পায়ের পাতা ভীষণ ভাবে টানটান হয়ে আসে। তলপেটে খিচ ধরে যায়। সারা গায়ে অসম্ভব রকমের জ্বালা করতে শুরু করে দেয়।
অস্ফুট কাতর শীৎকার করে ওঠে রূপসী প্রেয়সী প্রেমিকা ঝিনুক, “উফফ সোনা গো মরে গেলাম, শেষ হয়ে গেলাম, চেপে ধরো আমাকে। ইসসস সোনা… রুশুউউউউউ… জোরে জোরে কর… মেরে ফেলো আমাকে সোনা…”
রিশু ঝিনুকের চুলের গোছা বাম হাতের মুঠোর মধ্যে শক্ত করে পেঁচিয়ে ধরে মুখ গুঁজে দেয় ঘাড়ে। ডান হাতের কোঠর থাবার মধ্যে প্রেয়সীর নিটোল নিতম্ব ভীষণ জোরে খামচে ধরে। “আহহহ… ওফফফ” ওর শরীর ভীষণ ভাবে জ্বলে ওঠে। প্রান পন শক্তি দিয়ে মদালসা কামিনীকে বিছানার সাথে পিষে ধরে মত্ত ষাঁড়ের মতন জোরে জোরে লিঙ্গ সঞ্চালনে মেতে ওঠে। প্রতিবার ওর লিঙ্গ আমুল গেঁথে যায় কামিনী রূপসী তরুণীর যোনির মধ্যে। মাথা বেঁকিয়ে দিল রিশুর জীবন সঙ্গিনী চরম কামোত্তেজনায় প্রেয়সীর ঘাড়ে কামড় বসিয়ে দিল।
রিশুও হাঁপাতে হাঁপাতে গোঙ্গিয়ে উঠল, “বেবি… ঝুনু আমি আর ধরে রাখতে পারব না, ওফফ ঝুনু…” রতিসুখের চরম পর্যায়ে পৌঁছে যায় রিশু, সেই সাথে ওর ভারী শরীরের নিচে চেপে থাকা রূপসী প্রেয়সীর শরীর অভ্যুন্তরে পুনরায় কামনার আগ্নেয়গিরি জ্বলে ওঠে। দাঁতে দাঁত পিষে প্রেয়সীর ঘাড়ে মাথা গুঁজে গোঙ্গিয়ে ওঠে রিশু, “হানি… আমার হয়ে যাবে …”
রিশু প্রানপন শক্তি দিয়ে ভীষণ জোরে এক গোঁতা লাগায় প্রেয়সীর শিক্ত আঁটো কোমল যোনির অভ্যন্তরে। ভিমকায় লৌহ কঠিন পুরুষাঙ্গ আমুল গেঁথে যায় কামাতুরা ললনার যোনির শেষ প্রান্তে। কামিনীর শিক্ত পিচ্ছিল যোনির শিক্ত দেয়াল রিশুর ভিমকায় অশ্বলিঙ্গ ভীষণ কামুক ভাবে কামড়ে ধরে। রতি রমনে চরম সুখের বশে রিশুর শরীর কেঁপে ওঠে, নরম্ম বিছানার সাথে পিশে ধরে প্রেয়সীর নধর ঘর্মাক্ত লোভনীয় শক্ত হয়ে আসা দেহপল্লব। রিশুর পিঠের ওপরে দশ নখ বসিয়ে পেছন দিকে মাথা বেঁকিয়ে দিল ঝিনুক। কামোন্মাদ রিশু ঠোঁট চেপে ধরে কামাতুরা ললনার ঘাড়ের ওপরে। কামুক দস্যু রিশু দেহের সব শক্তি জড় করে নরম বিছানার ওপরে চেপে ধরে প্রেয়সীর কোমল কমনীয় দেহপল্লব।
দীর্ঘ ঘরঘর আওয়াজে গোঙ্গিয়ে ওঠে কামোন্মাদ রিশু, “ঝুনুউউউউ মাই হানি…”
সেই সাথে অস্ফুট একটা চিৎকার করে উঠলো প্রেয়সী ললনা, “ইয়েস বেবি… উফফফফফফ… মরে গেলাম… সোনাআআআআআআ… ”
গরম বীর্যের ধারা রিশুর লিঙ্গ বেয়ে উঠে এল, ভাসিয়ে দিল ঝিনুকের শিক্ত কোমল যোনিগহ্বর। কামাতুরা মদালসা রমণী তার প্রান প্রিয় মানুষের চুল এক হাতে মুঠি করে ধরে ঠোঁটে ঠোঁট চেপে ধরে। অন্য হাতের নখ বসিয়ে দিল রিশুর কাঁধের পেশির ওপরে। শেষ মুহূর্তে তীব্র কাম চুম্বন দংশনে রিশুর ঠোঁট অল্প কেটে যায়। প্রেমের সেই চুম্বন দীর্ঘায়িত করে ঝিনুক নিজের প্রেমিক পুরুষের গরম রক্ত পান করে। রতিসুখের চরম উত্তেজনার শেষ প্রান্তে এসে দুজনের শ্বাস রুদ্ধ হয়ে যায় ক্ষণিকের জন্য। দুই প্রেমে বিভোর কপোত কপোতীর দেহে রমন সুখের আগ্নেয়গিরির বিস্ফোরণ ঘটে যায়। লিঙ্গের মাথা হতে গলগল করে বেড়িয়ে আসে ফুটন্ত বীর্য, আষাঢ়ের বানে ভাসিয়ে ললনার যোনি গুহা। ঝিনুকের প্রান পুরুষ ঝিনুককে প্রানপন শক্তি দিয়ে বিছানার সাথে ঠেসে ধরে, রিশুর রূপসী কামাতুরা প্রেমিকা রিশুকে নিজের শরীরের শেষ শক্তি দিয়ে জড়িয়ে ধরে থাকে। দুই প্রেমিক যুগলের হৃদয়ের স্পন্দন পরস্পরের বুকের ওপরে অনুভব করে দুইজনে। পরস্পরের উরুসন্ধি ভিজে যায় নর নারীর নির্যাসে।
কিছু পরে রিশু শরীর এলিয়ে অবশ হয়ে যায় প্রেয়সীর নধর কমনীয় দেহপল্লবের ওপরে। মদালসা রূপসী ঝিনুক রিশুর নিচে শুয়ে ওকে পেলব বাহু দিয়ে জড়িয়ে ধরে থাকে। পিঠের ওপরে আলতো করে নখের আঁচর কেটে দেয়। রিশু ঝিনুককে জড়িয়ে ধরে বিছানায় এলিয়ে শুয়ে পরে। ঝিনুক রিশুর বুকের ওপরে মাথা রেখে, ওর বাঁ দিকে নিস্তেজ হয়ে পরে থাকে। দুই কামাতুরা নর নারী যেন একটা ঝড় থেকে বেড়িয়ে ফিরেছি। দুজনের বুকের মাঝে হাপরের মতন শ্বাস চলতে থাকে। ঝিনুক আলতো করে মাথা রাখে রিশুর বুকের ওপরে, ঘাড়ের কাছে চাঁপার কলি নরম আঙুল বুলিয়ে আদর করতে থাকে প্রানপ্রিয় মানুষটাকে। রিশু প্রেয়সীর রেশমি চুলের মধ্যে আঙুল ডুবিয়ে ওর মাথায় আলতো করে আঁচর কেটে দেয়। সময় কতক্ষণ কেটে যায় সেদিকে খেয়াল থাকেনা ওদের। বেশ কিছুপরে ঝিনুক রিশুর বুকের ওপরে হাত ভাঁজ করে রেখে মাথা তুলে ওর মুখের দিকে তাকায়।
রিশু প্রেয়সীকে চোখের ইশারায় জিজ্ঞেস করে, “এই ঝুনু … অমন ভাবে কি দেখছে?”
রমন সুখের অতিশজ্যে রূপসী তন্বী সুন্দরীর চোখের কোনায় একটু জল, “আই লাভ ইউ হানি…” আদর করে সুমিষ্ট অধরে চুমু খেয়ে রিশু ওকে বলে, “আই লাভ ইউ বেবি…”
লোমশ ছাতির ওপরে শিক্ত কোমল ঠোঁট চেপে, “তুমি না খুব শয়তান জানো।”
রেশমি চুলের মধ্যে আলতো আঁচর কেটে আদর করতে করতে জিজ্ঞেস করে, “কেন কেন?”
রিশুর লোমশ ছাতির ওপরে হাত ভাঁজ করে থুঁতনি রেখে প্রেমিকের ভাসাভাসা চোখের দিকে মদির আঁখি নিয়ে তাকিয়ে বলে, “জানো, সেদিন যদি তোমার জায়গায় অন্য কেউ আমাকে দেখতে আসত তাহলে আমি সেই রাতে গলায় দড়ি দিতাম…”
প্রেয়সীর মাথায় আদর করে বলে, “আবার সেই মরার কথা?”
প্রেমের অতিশজ্যে নাকের ডগা লাল হয়ে ঝিনুকের, “সেদিন ওই ঘটনার পরে সত্যি আমার মনের মধ্যে শুধু আত্মহত্যার চিন্তাই ছিল, কিন্তু তুমি প্রথম দেখায় যখন আমাকে বললে, এই কি ভাবে ওই আঁচর লেগেছে, একটা মলম লিখে দেবো কিনে এনো… সেই মুহূর্তে কি মনে হয়েছিল জানো, আমার ভাঙা বুক সেই মুহূর্তে জোড়া লেগে গেছিল। যে মানুষ প্রথম দেখায় আমার ব্যাথা বুঝতে পারে…” বলতে বলতে চোখের কোনা চিকচিক করে ওঠে রূপসীর, “তার সাথে আমি যমের দুয়ারে যেতে রাজি।”
বুকের ওপরে তন্বী মদালসা রমণীর মাথা চেপে ধরে কপালে চুমু খেয়ে বলে, “প্লেন থেকে নেমে যখন দিয়া আমাকে তোমার ফটো দেখালো তখন সত্যি বলতে রূপের বশে আমিও একটু প্রেমে পড়েছিলাম, তবে তোমার কান্না ভেজা চোখ দেখে আমিও থাকতে পারিনি, আমি ঠিক করে নিয়েছিলাম এই ভাসা ভাসা চোখের ভাষা শুধু আমার হবে।”
হেসে ফেলে রিশু, জীবনে প্রথমবার স্নান না করেই বাড়ি ফিরে কোন কাজ শুরু করেছে। রূপসী তন্বী তরুণী স্ত্রীর রূপে এতটাই মোহিত হয়ে গিয়েছিল স্নানের কথা ভুলে গিয়েছিল রিশু। একবার অবশ্য ইচ্ছে করছিল বাথরুমের মধ্যেই অর্ধাঙ্গিনী রমন সুখে মেতে ওঠে, কিন্তু প্রথমবারের রতিক্রীড়া প্রান প্রেয়সীর সাথে নিবিড় ভাবে বিছানার ওপরে নিজের ভারী শরীর দিয়ে পিষে ধরে আয়েশ করে আদর করে করতে চেয়েছিল। ঝিনুক চোখ বুজে প্রেমিকের বুকের ওপরে মাথা রেখে দুইহাতে রিশুর বলশালী দেহকান্ড জাপটে ধরে নিস্তেজ হয়ে পরে থাকে। অজগরের মতন বিশাল বাহু দিয়ে মদালসা প্রেয়সীকে জড়িয়ে ধরে বুকের কাছে, বাম হাত দিয়ে আলতো ঝিনুকের ভারী নিটোল কোমল নিতম্বের আদর করে দেয়। রতিসুখের শেষ রেশ দীর্ঘায়িত করার চেষ্টা করে দুই কামসুখের সাগরে নিমজ্জিত দুই প্রান পরস্পরকে অনেকক্ষণ জড়িয়ে ধরে শুয়ে থাকে।
মদির আঁখির মত্ত চাহনি দিয়ে মিষ্টি হেসে রিশুকে জিজ্ঞেস করে, “এই শয়তান, খিধে পায়নি?”
হেসে ফেলে রিশু, “উফফফফ এতক্ষন তোমার মতন মিষ্টি মধুর হানি বেবিকে খাওয়ার পরে আর কি খিধে পায় নাকি?”
নাক কুঁচকে লোমশ ছাতির ওপরে কোমল মুঠির কিল মেরে বলে, “এই যে ডাক্তার, তুমি এখন স্নান করনি কিন্তু।”
ঠিক সেই সময়ে রিশুর ফোন বেজে ওঠে। ফোনের দিকে না তাকিয়েই ফোন কানের কাছে এনে জিজ্ঞেস করে, “হ্যালো, হু ইজ দেয়ার?”
অন্যপাশ থেকে ভেসে আসে এক তরুণীর সুরেলা কন্ঠস্বর, “হাউ আর ইউ হ্যান্ডসাম?”

=================== পর্ব আট সমাপ্ত ===================

গল্পটি কেমন লাগলো ?

ভোট দিতে স্টার এর ওপর ক্লিক করুন!

সার্বিক ফলাফল 0 / 5. মোট ভোটঃ 0

এখন পর্যন্ত কোন ভোট নেই! আপনি এই পোস্টটির প্রথম ভোটার হন।

Leave a Comment