সে আমার সোনার ভিতর এক ঠেলায় তার বাড়াটা ঢুকিয়ে দিল

ঢাকায় একজন অসুস্থ আত্বীয় কে দেখার জন্য বঙ্গোবন্ধু হাসপাতালে গিয়েছিলাম, সীতাকুন্ড হতে সকাল দশটায় রওয়ানা হয়ে বিকাল পাঁচটায় হাসপাতালে পৌঁছলাম।আমার সঙ্গী ছিল আমার স্বামী মনিরুল ইসলালাম তথন ।আমরা রোগীর দেখাশুনা ও কথাবার্তা বলতে বলতে রাত অনেক রাত হয়ে গেল। আমারা ঢাকায় গেছি শুনে আমার স্বামীর এক বাল্যবন্ধু আমাদের সাথে দেখা করার জন্য হাসপাতালে গিয়ে পৌঁছে।তার বাড়ী আমাদের সীতাকুন্ডে এবং সে শাহাজান পুরের একটি বাসায় থাকে স্বপরিবারে, সে বহুদিন পর্যন্ত কোন উতসব ছাড়া বাড়ীতে আসেনা। রোগী দেখার পর রোগীর সিটের অদুরে আমরা তিনজনে খোশ গল্পে ব্যস্ত হয়ে গেলাম। রাত কটা বাজে আমাদের সে দিকে মোটেও স্মরন নেই, প্রতিটি হাসপাতালের মত এই হাসপাতালের ও রোগী দেখার সময়সীমা নির্দিস্ট আছে তাই
হাসপাতালের কর্মীরা এসে সবাইকে সতর্ক করে দিল যাতে করে যে যার বাসায় চলে যায়। রাতে রোগীর সাথে কেউ থাকতে পারবেনা। তবে একজন অনুমতি সাপেক্ষে থাকার বিধান আছে সে বিধান মতে আমার আত্বীয়ের সাথে বিগত তিনদিন প্রর্যন্ত আমাদের অন্য একজন আত্বীয় থেকে আসছে।সে হাসপাতালের নিকটবর্তি একটি বোর্ডিং ভাড়া করেছে কিন্তু এক রাত ও সে সেখানে থাকতে পারেনি, শুধুমাত্র দিনের বেলায় নিদ্রাহীন রাতের ক্লান্তি কাটাতে বোর্ডিং এ গিয়ে সে ঘুমাত।হাস্পাতালের কর্মিদের সতর্কবানি শুনে আমরা মনে মনে যাওয়ার প্রস্তুতি নিলাম,আমার স্বামীর বন্ধুটি আমাদেরকে তার বাসায় যাওয়ার জন্য অনুরোধ করল,আমরা রাত যাপন করার একটা সুবিধাজনক স্থান পাওয়ায় খুশি মনে তার দাওয়াত মেনে নিলাম।ইতিমধ্যে রোগির সাথে আমাদের আত্বীয়টা আমার স্বামী মনিরুল ইসলাম তথনকে বিনয়ের সাথে অনুরোধ করল রোগির সাথে থাকার জন্য এবং সে একটি রাতের জন্য বিশ্রাম নিতে চাই । তথন উভয় সংকতে পরল, সে যদি এখানে থাকে মহিলা হিসাবে আমাকে কোথায় রাখবে!ঐ আত্বীয়ের সাথে বোর্ডিং এ থাকাও সম্ভব নয়।আমার স্বামীর বন্ধু আমাদের সমস্যা সল্ভ করে দিল, সে বলল, পারুল ভাবী আমার সাথে আমার বাসায় চলে যাক রোগির সাথে লোকটি বোর্ডি এ চলে যাক এবং আমার স্বামীকে লক্ষ্য করে বলল তুমি আজ রাত রোগির সাথে থাক। বাসায় মহিলাদের সাথে আমার থাকতে আমার অসুবিধা হবেনা ভেবে আমার স্বামি বন্ধুর সাথে আমাকে যেতে অনুমতি দিয়ে দিল। আমার স্বামীর কাছ হতে বিদায় নিয়ে আমি চলে গেলাম।

Read more

সোনালী যেভাবে আমার শক্ত পেনিসটা মুখে পুরে

সুখানুভূতি কাহিনী – লেখক কলেজে তখন সবে ভর্তি হয়েছি ফার্স্ট ইয়ারে। যখন আমার বারো বছর বয়স, হঠাৎই মা এই পৃথিবী ছেড়ে চলে গেলেন। বাবাকেও কাছে পাই না। চাকরীর সূত্রে বাবা এখানে থাকেন না। তাকে মাঝে মাঝে বিদেশেও যেতে হয়। বাড়ীতে একা থেকে মন টেকে না। সঞ্জু, ফিরোজ, ওরা সব আসে, আমার বন্ধুরা। গল্প করি, ক্যারাম খেলি, আড্ডা মারি। কিন্তু তাহলেও কিসের যেন একটা অভাব বোধ করি। আমার বন্ধুরা সব গার্ল ফ্রেন্ড নিয়ে ঘুরে বেড়ায়। সঞ্জুর সাথে ডলি, ফিরোজের সাথে বান্টি। কিন্তু আমার কেউ নেই। আমি গার্ল ফ্রেন্ড এর খোঁজ করি, কিন্তু মনের মত সেরকম কাউকে পাই না। মা বলেছিল, বড় হলে তোর একটা সুন্দর দেখে বউ আনব। তোর আমি পরীর সাথে বিয়ে দেব। কিন্তু মা আজ বেঁচে নেই, আর আমার পরীর মত বউ খুঁজে দেওয়ারও কেউ নেই। আমি শুধু সুখের তাগিদে মাঝে মাঝে ঘরে থেকে মাস্টারবেট করি। লিঙ্গটি হাতে নিয়ে

Read more