Tag: সেরা চটি

রসে ভরা লাল টমেটো

Wrtten by Munijaan07 দুই বছর প্রেম করার পর কাজিনের সাথে আমার যখন বিয়ে হয় তখন বয়স বাইশ।বাবার চাচাতো ভাইয়ের ছেলে,সেই হিসেবে আমার চাচাতো ভাই।৬ ফুট লম্বা সুদর্শন ৩২ বছরের যুবক।ভাল ছেলে হিসেবে সবার কাছেই তার যথেষ্ট সমাদর।আমার সাথে তার প্রেমটা হয়েছিল বেশ নাটকীয়ভাবে,আমিই প্রপোজ করেছি তাকে কিন্ত পাত্তা দেয়নি প্রথমে,তারপরও লেগে রইলাম আঠার মত।একসময় সাকসেসফুলও হয়ে গেলাম।আমার শশুরবাড়ী সিলেটে,বাপের বাড়ী চিটাগাং।আমরা তিনবোন একভাই।ভাই সবার বড়,বিয়ে করে বউ নিয়ে আলাদা থাকে।আমার বড় একবোন বিয়ে হয়ে গেছে জামাইর সাথে দুবাই থাকে আর ছোটটা এস,এস,সি দিবে এবার।আমি যখন ক্লাস নাইনে পড়তাম তখন আমাদের প্রাইভেট টিউটর ছিলেন রাসেল ভাই,আমি এবং ছোট বোন মুন্নি দুজনেই পড়তাম উনার কাছে।রাসেল ভাই মাস্টার্স কমপ্লিট করে তখন চাকরি খুজছিলেন আর পাশাপাশি টিউশনি করতেন।দেখতে সাধারণ ৫ফুট ৫ইঞ্চি গায়ের রং ময়লা,কিন্ত কালো বলা যাবেনা চেহারায় একটা মায়া মায়া ভাব ছিল।আমার তখন উঠতি বয়স যারে দেখি যা দেখি ভাল লাগে,আমি খুব দ্রুত রাসেল ভাইয়ের প্রেমে পড়ে গেলাম।রাসেল ভাই অনেক ঘাগু লোক ছিলেন তিনি ঠিকই ধরতে পারলেন ব্যাপারটা তাই শিকারি যেমন মাছ বড়শিতে ধরা পড়লে খেলিয়ে খেলিয়ে পাড়ে তুলে তেমন করে উনার বড়শিতে গাথলেন।প্রথম প্রথম চোখাচোখি হত,হত লাজুক হাসি বিনিময়,ভাললাগার স্বপ্নিল পরশ ছুয়ে […]

ছোট্ট একটি ভুল

এই গল্পটির মূল গল্পকার হচ্ছেন যাতিন গৌতম। তিনি এই গল্পটি প্রথম Xossip এ প্রকাশ করেছিলেন। গল্পটা আমি পড়ি আর আমার কাছে খুব ভাল লাগে। আমি চাই যে অন্যরাও এটা পড়ুক। কিন্তু এটা হিন্দি ভাষায় লেখা ছিল এবং বেশ দীর্ঘ ছিল। তাই আমি একে নিজের মত শব্দ ও চিন্তাধারা ব্যবহার করে কিছুটা সংক্ষিপ্ত ও নাম পরিমার্জন করে বাংলা ভাষায় লিখি। কিন্তু পটভূমি একই রেখেছি আমি। এক অপ্রতিরোধ্য তরুণের হাত ধরে এক গৃহবধূর পদস্খলন আর তার পরিতাপ, হত্যা, ধর্ষণ, ফিরে আসা, জীবন বোধ সব মিলিয়ে এক অপূর্ব গল্প ছোট্ট একটি ভুল। তো চলুন এক উত্তেজনাকর ও রোমাঞ্চকর যাত্রায়……. ——————-অজানা মানব ছোট্ট একটি ভুল পর্ব- ১ “যে মানুষটা নিচে নেমে যায় তার আবার উপরে উঠে আসার সম্ভাবনা থাকে”। নিউটনের ৩য় সূত্রও তাই বলে। “প্রত্যেক ক্রিয়ারই একটি সমান ও বিপরীত প্রতিক্রিয়া রয়েছে”। তবে এটা সত্য যে সবাই উঠে আসতে পারে না কিন্তু এর সম্ভাবনাকে অবহেলা করা যাবে না- যাতিন গৌতম ছোট্ট একটি ভুল- এর মাধ্যমে আমরা এই সম্ভাবনাকেই খোঁজার চেষ্টা করব। আমি অনন্যা। আমি সিলেটে বসবাসকারী এক গৃহবধূ। ফারুখের সাথে আমার বিয়ে ২০০৩ সালে হয়েছিল। তিনি একজন ডাক্তার আর তার নিজের একটি ক্লিনিক আছে। […]

মৌন মন্থর আর তুমি আমার সর্বনাম [২]

Written by virginia_bulls চারিদিকে দুপুরের কোলাহলের থেকে আলাদা একটা প্রকৃতির নিঃস্তব্ধতা ছেয়ে যায় । ভেসে আসে নানা পাখির ডাক, অচেনা রিকসাওয়ালার ঝনঝন বা খুটখাট । ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা মানুষ প্রজাতির নিত্য কালের কাজে পিছিয়ে থাকা মানুষ গুলোর কোলাহল ভেসে আসে যেন বেমানার সময়ের থেকে ছিটকে বেরিয়ে গেছে বাধা গতের থেকে দূরে । আর কোথাও সূর্য জানান দেয় হ্যাঁ দিন টা পেরিয়ে যাচ্ছে সকলের অগোচরে, শেষ বার কোলাকুলি করে নাও । আবার কোথাও সেই অদ্ভুত শুন্যতা নিয়ে পড়ন্ত নতুনবিকেল তার ব্যবসা খোলে । আর ডেকে নিয়ে আসে রঙিন মাধুর্য মাখা মায়াবী রাত । যে যেখানে প্রমোদ খুঁজে পায় সেখানেই সে বেঁচে থাকে । কেউ বিকেলে , কেউ সন্ধ্যায় , কেউ সকালে , কেউ নিশুতি রাতে , আর জীবিকার প্রয়োজনে পাঁচ মিশালী জগাখিচুড়ি এই সময় টেনে টেনে নিয়ে চলে মানুষের সভ্যতা কে ভারী বস্তার মতো । জনমেজয় এর ডাক পড়ে পূরবী চ্যাটার্জীর । চাকর বাকরেরা ডোমেস্টিক সার্ভেন্ট কোয়ার্টারে চলে গেছে, ঢুকবে সেই বিকেলে যদি নাকি মনিব না ডাকে আর । বিছানার কোনে লুকিয়ে ঘুমিয়ে গেছে গুঞ্জন ভিচন চাদর টা ভালোবেসে । তার স্বপ্নে জনমেজয় আছে কিনা এটা গল্পের বিষয় বস্তু নয় ।ঘরের […]

পাতাল সুন্দরী

Written By Lekhak (লেখক) ।। এক ।। মেয়েটাকে যতবারই আমি দেখি, পুরোন কখনও মনে হয় না। যেন নতুন নতুন রূপে দেখা দিচ্ছে আমার কাছে। মুগ্ধ চোখে ওকে শুধু দেখি আর আলোড়ন সৃষ্টি করে মনে, কখনও চেতনে কখনও অবচেতনে। এই নিয়ে পরপর চার সপ্তাহ হল, প্রতিদিন সকাল আটটার কিছু পরে ওকে টালীগঞ্জ মেট্রো স্টেশনে দেখছি। অন্যসব নিত্য যাত্রীদের সঙ্গে ও প্ল্যাটফর্মে অপেক্ষা করে ট্রেন ধরার জন্য। আমাকেও প্রতিদিন ট্রেনে করে ধর্মতলায় যেতে হয়। ওখান থেকে পায়ে হেঁটে দশ মিনিট লাগে আমার অফিসে পৌঁছোতে। পাতালের ভেতর দিয়ে প্রতিদিনই গরু-ভেড়ার মতো লক্ষ লক্ষ ট্রেন যাত্রীদের সাথে ওঠানামা করি। আমার মনের মধ্যে কোন বদ কুমতলব নেই, কিন্তু তবু যেন মেয়েটাকে দেখলেই আমার ভেতরটা কেমন ধুকপুক করে ওঠে। সেদিন মেয়েটা টিকিট কাটার জন্য লাইনে দাঁড়িয়ে ছিল। আমি গিয়ে দাঁড়ালাম, ঐ লাইনেই অনেক পেছনে। মেয়েটা টিকিট কেটে পেছনে ঘুরে, আমার সামনে দিয়েই চলে গেল। ওর মুখখানা দেখলাম, চেহারাটার মধ্যেও এমন টানটান আকর্ষণ। আমি পুরো মোহিত হয়ে গেলাম। আমি অবাক হলাম, মেয়েটা কিছুটা দূরে চলে গিয়েও থমকে দাঁড়িয়ে পড়ল একবার। পেছন ঘুরে স্থির চোখে তাকিয়ে রইল আমার দিকে। আমি হাঁ করে মেয়েটির দেহের সৌন্দর্য সুধা পান করতে […]

নিশি রাতের সঙ্গিনী

আষাঢ় মাসের শেষ সপ্তাহ। গ্রামেরই পাশের আত্মীয় বাড়ীতে বিয়ে উপলক্ষে অনেক লোকজন এসেছে। যেহেতু আমি তখন সবে যৌবন প্রাপ্ত, তাই বাইরের বৈঠকখানায় ঘরের মধ্যে দরমার বেড়ার পার্টিশান করে আমার জন্য আলাদা পড়া আর শোওয়ার ব্যবস্থা হয়েছে। টিনের ঘর, টিনের বেড়া, মাটির মেঝে। হ্যারিকেনের আলোতে পড়াশোনা করতে হয়। একটা টর্চলাইটও রাখি রাতে বেরুতে হলে কাজে লাগবে বলে। আমার ঘরে একটা বড় টেবিল আর লম্বা বেঞ্চ পাতা। হাতলওয়ালা একটা চেয়ার আর শোবার জন্য পাতা চৌকিটা বেশ বড়সড়ই আছে, প্রয়োজনে আড়াআড়ি করেও ৩-৪ জনে শোয়া যায়। বিকেল থেকে টিপটিপ করে বৃষ্টি হচ্ছিল। আমার সমকামী ছুতোর বাড়ীর সখাকে মাঝেমধ্যে রাতে আমার সঙ্গে শুতে ডেকে আনতাম। একটু বেশী রাত করে ও চলে আসতো, খোলামেলা বৈঠকখানা ঘরের মধ্যে দিয়ে। পার্টিশন করা বেড়ার একধারে একটা দরজা ছিল সেটা দিয়ে আমার ঘরে ও ঢুকে পড়ত। আমি আলো নিভিয়ে বাড়ীর ভেতরের দিকে দরজা বন্ধ করে দিয়ে কোনদিন আমার বিছানাতে কোনদিন বৈঠকখানা ঘরের বেঞ্চিতে সখাকে ফেলে বোল্ড আউট করতাম, তারপর বাড়ীর সামনের ছোট পুকুরে গিয়ে ধুয়েটুয়ে এসে দু’জনে শুয়ে ঘুমোতাম। ভোররাতে ও উঠে চলে যেত। এদিনও খেলার মধ্যে সখাকে বলেছিলাম, ও যেন রাতে চলে আসে। রাত ৯টা নাগাদ খাওয়া দাওয়া […]